alt

বাংলাদেশ

ঘাটে ঘাটে পরিস্থিতি ভয়াবহ উপচেপড়া ভিড়, দুর্ভোগ চরমে

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক : রোববার, ০১ আগস্ট ২০২১

শিবচরে ফেরিঘাটে ঢাকা ফেরার জন্য ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষারত শত শত মানুষ-সংবাদ

আরিচা, দৌলতদিয়া ও বাংলাবাজার ঘাটে রোববারও (১ আগস্ট)ঢাকামুখী যাত্রীদের ছিল উপচেপড়া ভিড়। কোথাও মানা হয়নি স্বাস্থ্যবিধি।

শিবালয় (মানিকগঞ্জ) প্রতিনিধি জানান, আরিচা ও দৌলতদিয়া ঘাটে রোববারও ছিল যাত্রীদের ভিড়। কিন্তু স্বাস্থ্যবিধির নেই কোন বালাই। রোববার রপ্তানিমুখী শিল্পকারখানার খোলায় শনিবার থেকে যাত্রীরা কর্মস্থলে ফিরতে শুরু করেছে। তবে শ্রমিকদের কর্মস্থলে ফেরার সুবিধাথে রোববার দুপুর ১২টা পর্যন্ত স্বাস্থ্যবিধি মেনে সারাদেশে সীমিত আকারে গণপরিবহন ও লঞ্চ চলাচলের অনুমতি দেয়ায় কিছুটা হলেও সিএনজি, অটোরিকশা ও পিকআপের গলাকাটা ভাড়া থেকে স্বস্তি পেয়েছেন যাত্রীরা। গণপরিবহন চলাচলের ঘোষণায় আরিচা ও দৌলতদিয়া ঘাটে যাত্রী ও যাত্রীবাহী গাড়ির চাপ বেড়েছে। পাশাপাশি আরিচা-কাজিরহাট এবং পাটুরিয়া- দৌলতদিয়া নৌরুটে লঞ্চ চলাচলও শুরু হয়েছে। রোববার দুপুর ১২টা পর্যন্ত গণপরিবহন চলাচলের কার্যকর থাকার ঘোষণা থাকলেও দুপুরের পরেও ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে গাড়ি চলাচল করতে দেখা গেছে। এমন পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত পরিসরে বাস ও লঞ্চ চলাচল করার কথা থাকলেও তা কেউ মানছেন না।

পাটুরিয়া ও কাজিরহাট থেকে ছেড়ে আসা ফেরিতে, লঞ্চে গাদি-গাদি করে বসে যাত্রীরা পদ্মা-যমুনা পারি দিচ্ছে। এদিকে বাসগুলোও স্বাস্থ্যবিধি না মেনে স্বাভাবিক সময়ের মতো যাত্রী পরিবহন করছে। ফলে যানবাহন বা হাটে-বাজারে পারা মহল্লায় কোথাও স্বাস্থ্য বিধি মানছেন না কেউ। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে লঞ্চে উঠা-নামা করছেন যাত্রীরা। দৌলতদিয়া ও কাজিরহাট ফেরি ও লঞ্চ ঘাটে লোকে লোকারণ্য। সেখানে স্বাস্থ্যবিধির বালাই নেই। একজন আরেকজনের গাঘেঁষে দাঁড়িয়ে লঞ্চে উঠা-নামা করছেন। আরিচা ও পাটুরিয়া বাসস্ট্যান্ডগুলোতেও ঢাকামুখী যাত্রীদের ভিড় দেখা গেছে। অনেক জায়গাতেই দেখা গেছে, বাসে অর্ধেক আসনের জায়গায় পূর্ণ সংখ্যক আসনেই যাত্রী নেয়া হচ্ছে। সামাজিক দূরত্ব না মেনেই যাত্রীরা চলাচল করছেন।

লঞ্চগুলোও মানছে না নিয়ম। শতভাগ আসনে যাত্রী নিয়ে আরিচা-কাজিরহাট এবং পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌ-রুটে পদ্মা-যমুনা পাড়ি দিচ্ছে লঞ্চগুলো। কিছু কিছু লঞ্চে অতিরিক্ত যাত্রী ওঠানো হচ্ছে। আরিচা-কাজিরহাট এবং পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে মোট ৩৭টি লঞ্চ চলাচল করছে।

এ ব্যাপারে বিআইডব্লিউটিএ’র নৌ-নিট্রা বিভাগের সহকারী পরিচালক শাহ-আলম বলেন, শারীরিক অসুস্থতার জন্য তিনি ঘাটে আসতে পারছেন না। তারপরও লঞ্চে অতিরিক্ত যাত্রী না নেয়ার জন্য লঞ্চ মালিকদের নিষেধ করা হচ্ছে এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে যাত্রী পরিবহনের জন্য তাগিদ দেয়া হচ্ছে। এরপরও যদি কেউ অতিরিক্ত যাত্রী বহন করে তাহলে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শিবচর (মাদারীপুর) প্রতিনিধি জানান, কঠোর লকডাউনের ১০ম দিনে বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌরুটে ঢাকামুখী যাত্রীদের চাপ রয়েছে ফেরি ও লঞ্চগুলোয়। এ রুটের ৪টি লঞ্চকে অতিরিক্ত যাত্রী নেয়ায় শিমুলিয়া ঘাটে মোবাইল কোর্ট জরিমানা করায় প্রায় ১ ঘণ্টা লঞ্চ চলাচল বন্ধ রাখে। পরে লঞ্চ চলাচল স্বাভাবিক হয়। ৪টি লঞ্চকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এসময় ফেরিতে যাত্রীদের প্রচণ্ড ঢল নামে। লঞ্চগুলোতেও প্রচণ্ড যাত্রী চাপ লক্ষ্য করা গেছে। উভয় ঘাটে প্রশাসনের তৎপরতা লক্ষ্য করা গেছে। গার্মেন্টসসহ রপ্তানিমুখী কলকারখানা খোলার ঘোষণায় এমন পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে বলে বিআইডব্লিউটিসি সূত্র দাবি করেছে। এদিন গার্মেন্টস ছাড়াও বিভিন্ন শিল্প প্রতিষ্ঠান ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের শ্রমিকরা ঢাকায় ফিরছেন। যাত্রী পারাপারে এদিনও ১০টি ফেরি চলছে।

নৌযানগুলো স্বাস্থ্যবিধি মানার তেমন কোন লক্ষণ নেই। এদিকে পদ্মায় পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় স্রোতের গতিও বৃদ্ধি পেয়ে ফেরি পারাপারে দীর্ঘ সময় লাগছে। বরিশাল, পটুয়াখালী, খুলনা, ফরিদপুর, মাদারীপুরসহ দক্ষিণাঞ্চলের জেলাগুলো থেকে গণপরিবহন ঘাটে আসছে। সেখানেও স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে না। উভয় ঘাটে যানবাহনের চাপ রয়েছে।

গোপালগঞ্জের টুঙ্গীপাড়ার বিপ্লব রায়হান বলেন, আমি ঢাকার উত্তরায় একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের অফিসে চাকরি করি। অফিসের কর্মকর্তাদের ফোন পেয়ে আমি কাজে যোগদান করতে ঢাকা যাচ্ছি। পথে পথে ভোগান্তির শেষ ছিল না। এখন ফেরি ঘাটে এসেও দেখছি ফেরিতে প্রচ- ভিড়। পদ্মা পাড়ি দেয়ার পরে আর কত ভোগান্তি পোহাতে হবে কে জানে।

বরিশাল থেকে আসা মো. আবু হালিম বলেন, আমি গাজীপুরের হোসেন চৌধরী অ্যান্ড সন্স নামক একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করি। আজ থেকে অফিস খোলা তাই ঢাকা যাচ্ছি। সময়মত কাজে যোগদান না করলে চাকরি থাকবে না। বাস চললেও আমি বাস না পেয়ে ইজিবাইক আর মোটরসাইকেলে চড়ে তিনগুণ ভাড়া দিয়ে বাংলাবাজার ঘাট পর্যন্ত আসলাম। ফেরি ঘাটে প্রচ- ভিড় দেখে লঞ্চ ঘাটে আসলাম। এখানেও প্রচ- ভিড়। লঞ্চে উঠতেও ভয় করছে।

শরীয়তপুরের জোসেফ বলেন, আমি ঢাকার সাভারে একটি গার্মেন্টসে চাকরি করি। ঈদে বাড়ি এসেছিলাম। এতদিন জানতাম ৫ আগস্টের পর গার্মেন্টস খুলবে, সেই সঙ্গে সব যানবাহনও ছাড়বে। হঠাৎ কারখানা থেকে ফোন এলো আজকের মধ্যে কারখানায় না গেলে চাকরি থাকবে না। তাই অনেক কষ্ট করে ঘাটে এসে ফেরিতে উঠলাম। ফেরিতে এত যাত্রী যে দাঁড়াবারও জায়গা পাওয়া মুস্কিল। আর স্বাস্থ্যবিধি বলতে এখানে কিছুই নেই।

বাংলাবাজার ঘাট ম্যানেজার মো. সালাউদ্দিন বলেন, লঞ্চ চলাচল শুরু করায় ফেরিতে চাপ কমেছে। এখনও গার্মেন্ট কর্মীদের প্রচণ্ড চাপ রয়েছে। এজন্য ফেরি সংখ্যা ৬ থেকে ১০ বাড়ানো হয়েছে।

আজ ২৪ ঘণ্টা কর্মবিরতি অ্যাপ-বেইসড ড্রাইভারস ইউনিয়নের

২৩ শতাংশ নারী শ্রমিক বিদেশ থেকে ফিরেছেন বছর পূর্ণ না হতেই

কাদের মির্জার বিরুদ্ধে তালা মেরে মার্কেট বন্ধ করে দেয়ার অভিযোগ

ভাসানচর থেকে পালানোর সময় ৩৫ রোহিঙ্গা আটক

ছবি

ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে ইন্ডাস্ট্রিয়াল টেকনোলজি বিষয়ক জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত

ছবি

অনলাইন ও অফলাইনে সেবা বাড়াচ্ছে ভিভো

ছবি

সাবেক ঢাবি শিক্ষার্থীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

ঢাবিতে ছাত্রলীগ নেতাকে পেটালেন আরেক সিনিয়র নেতা

ছবি

৬ দফা দাবিতে রাইড শেয়ার চালকদের কর্মবিরতি কাল

ছবি

বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ,শিক্ষক নেতা আনোয়ারা সুলতানা মারা গেছেন

ছবি

মাদারীপুুরে ভুল চিকিৎসায় ইমামের মৃত্যুর অভিযোগ স্বজনদের

মুুন্সীগঞ্জে চাকরির খোঁজে বের হয়ে নিখোঁজ, লাশ মিলল ধলেশ্বরীর তীরে

ছবি

গবেষনাকে অনুপ্রেরণা হিসেবে আখ্যায়িত তুরস্কের রাষ্ট্রদূত

ছবি

পরীমণির জব্দকৃত ১৬ আলামত ফেরত দিতে সুপারিশ

ছবি

বঙ্গবন্ধু ও তার কন্যা ব্যতীত দেশের উন্নয়ন-অর্জনের ইতিহাস নেই: তথ্য প্রতিমন্ত্রী

ছবি

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একজন জীবন্ত কিংবদন্তি: তথ্যমন্ত্রী

ছবি

দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা: পর্যবেক্ষণসহ আপিল বিভাগের নিষ্পত্তি

ছবি

আমরা আইনের ঊর্ধ্বে কোনো সরকার নই: পরিকল্পনামন্ত্রী

ছবি

হবিগঞ্জে প্রতারণার অভিযোগে চিকিৎসকসহ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে জরিমানা

ছবি

গাজীপুরে ট্রেনে কাটা পড়ে নিহত ২

ছবি

নির্মাণাধীন ভবনের পাশে মিললো মালিকের লাশ

ছবি

হবিগঞ্জে বাসের ধাক্কায় অটোরিকশার ৩ যাত্রী নিহত

ছবি

জটিলতা কাটলো সিরাজগঞ্জ-বগুড়া রেলপথ নির্মাণে

ছবি

মান্দায় অবৈধভাবে সরকারি গাছ কাটার অভিযোগ

ছবি

কক্সবাজারে বিশ্ব পর্যটন দিবস পালিত

সখীপুর থানায় ওপেন হাউজ ডে অনুষ্ঠিত

ছবি

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পুলিশ-যুবদল কর্মীদের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া

সোনারগাঁয়ে আবাদী জমি রক্ষায় মানববন্ধন

ছবি

রামেক হাসপাতালে আরও ৪ জনের মৃত্যু

ছবি

ফের শুরু হচ্ছে গণটিকা

ছবি

এম গার্লস নিয়ে আইকনিক ফ্যাশন গ্যারেজ

ছবি

নাটোরের সিংড়ায় বন্যার্তদের মাঝে হুয়াওয়ের ত্রাণসামগ্রী বিতরণ

ছবি

বইমেলায় সেরা পেমেন্ট গ্রহণকারী প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানগুলোকে পুরস্কৃত করলো বিকাশ

ছবি

আকাশ কিনে আরও তিন গ্রাহক টি-২০ বিশ্বকাপে

ছবি

ফেইসবুকের মাধ্যমে ৭০ বছর পর শতবর্ষী মা ফিরে পেলেন সন্তানকে

ছবি

আগামী ২৮ সেপ্টেম্বর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর নেতৃত্বে উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধিদল মাতারবাড়ি সমুদ্রবন্দর পরিদর্শন করবেন

tab

বাংলাদেশ

ঘাটে ঘাটে পরিস্থিতি ভয়াবহ উপচেপড়া ভিড়, দুর্ভোগ চরমে

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক

শিবচরে ফেরিঘাটে ঢাকা ফেরার জন্য ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষারত শত শত মানুষ-সংবাদ

রোববার, ০১ আগস্ট ২০২১

আরিচা, দৌলতদিয়া ও বাংলাবাজার ঘাটে রোববারও (১ আগস্ট)ঢাকামুখী যাত্রীদের ছিল উপচেপড়া ভিড়। কোথাও মানা হয়নি স্বাস্থ্যবিধি।

শিবালয় (মানিকগঞ্জ) প্রতিনিধি জানান, আরিচা ও দৌলতদিয়া ঘাটে রোববারও ছিল যাত্রীদের ভিড়। কিন্তু স্বাস্থ্যবিধির নেই কোন বালাই। রোববার রপ্তানিমুখী শিল্পকারখানার খোলায় শনিবার থেকে যাত্রীরা কর্মস্থলে ফিরতে শুরু করেছে। তবে শ্রমিকদের কর্মস্থলে ফেরার সুবিধাথে রোববার দুপুর ১২টা পর্যন্ত স্বাস্থ্যবিধি মেনে সারাদেশে সীমিত আকারে গণপরিবহন ও লঞ্চ চলাচলের অনুমতি দেয়ায় কিছুটা হলেও সিএনজি, অটোরিকশা ও পিকআপের গলাকাটা ভাড়া থেকে স্বস্তি পেয়েছেন যাত্রীরা। গণপরিবহন চলাচলের ঘোষণায় আরিচা ও দৌলতদিয়া ঘাটে যাত্রী ও যাত্রীবাহী গাড়ির চাপ বেড়েছে। পাশাপাশি আরিচা-কাজিরহাট এবং পাটুরিয়া- দৌলতদিয়া নৌরুটে লঞ্চ চলাচলও শুরু হয়েছে। রোববার দুপুর ১২টা পর্যন্ত গণপরিবহন চলাচলের কার্যকর থাকার ঘোষণা থাকলেও দুপুরের পরেও ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে গাড়ি চলাচল করতে দেখা গেছে। এমন পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত পরিসরে বাস ও লঞ্চ চলাচল করার কথা থাকলেও তা কেউ মানছেন না।

পাটুরিয়া ও কাজিরহাট থেকে ছেড়ে আসা ফেরিতে, লঞ্চে গাদি-গাদি করে বসে যাত্রীরা পদ্মা-যমুনা পারি দিচ্ছে। এদিকে বাসগুলোও স্বাস্থ্যবিধি না মেনে স্বাভাবিক সময়ের মতো যাত্রী পরিবহন করছে। ফলে যানবাহন বা হাটে-বাজারে পারা মহল্লায় কোথাও স্বাস্থ্য বিধি মানছেন না কেউ। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে লঞ্চে উঠা-নামা করছেন যাত্রীরা। দৌলতদিয়া ও কাজিরহাট ফেরি ও লঞ্চ ঘাটে লোকে লোকারণ্য। সেখানে স্বাস্থ্যবিধির বালাই নেই। একজন আরেকজনের গাঘেঁষে দাঁড়িয়ে লঞ্চে উঠা-নামা করছেন। আরিচা ও পাটুরিয়া বাসস্ট্যান্ডগুলোতেও ঢাকামুখী যাত্রীদের ভিড় দেখা গেছে। অনেক জায়গাতেই দেখা গেছে, বাসে অর্ধেক আসনের জায়গায় পূর্ণ সংখ্যক আসনেই যাত্রী নেয়া হচ্ছে। সামাজিক দূরত্ব না মেনেই যাত্রীরা চলাচল করছেন।

লঞ্চগুলোও মানছে না নিয়ম। শতভাগ আসনে যাত্রী নিয়ে আরিচা-কাজিরহাট এবং পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌ-রুটে পদ্মা-যমুনা পাড়ি দিচ্ছে লঞ্চগুলো। কিছু কিছু লঞ্চে অতিরিক্ত যাত্রী ওঠানো হচ্ছে। আরিচা-কাজিরহাট এবং পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে মোট ৩৭টি লঞ্চ চলাচল করছে।

এ ব্যাপারে বিআইডব্লিউটিএ’র নৌ-নিট্রা বিভাগের সহকারী পরিচালক শাহ-আলম বলেন, শারীরিক অসুস্থতার জন্য তিনি ঘাটে আসতে পারছেন না। তারপরও লঞ্চে অতিরিক্ত যাত্রী না নেয়ার জন্য লঞ্চ মালিকদের নিষেধ করা হচ্ছে এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে যাত্রী পরিবহনের জন্য তাগিদ দেয়া হচ্ছে। এরপরও যদি কেউ অতিরিক্ত যাত্রী বহন করে তাহলে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শিবচর (মাদারীপুর) প্রতিনিধি জানান, কঠোর লকডাউনের ১০ম দিনে বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌরুটে ঢাকামুখী যাত্রীদের চাপ রয়েছে ফেরি ও লঞ্চগুলোয়। এ রুটের ৪টি লঞ্চকে অতিরিক্ত যাত্রী নেয়ায় শিমুলিয়া ঘাটে মোবাইল কোর্ট জরিমানা করায় প্রায় ১ ঘণ্টা লঞ্চ চলাচল বন্ধ রাখে। পরে লঞ্চ চলাচল স্বাভাবিক হয়। ৪টি লঞ্চকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এসময় ফেরিতে যাত্রীদের প্রচণ্ড ঢল নামে। লঞ্চগুলোতেও প্রচণ্ড যাত্রী চাপ লক্ষ্য করা গেছে। উভয় ঘাটে প্রশাসনের তৎপরতা লক্ষ্য করা গেছে। গার্মেন্টসসহ রপ্তানিমুখী কলকারখানা খোলার ঘোষণায় এমন পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে বলে বিআইডব্লিউটিসি সূত্র দাবি করেছে। এদিন গার্মেন্টস ছাড়াও বিভিন্ন শিল্প প্রতিষ্ঠান ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের শ্রমিকরা ঢাকায় ফিরছেন। যাত্রী পারাপারে এদিনও ১০টি ফেরি চলছে।

নৌযানগুলো স্বাস্থ্যবিধি মানার তেমন কোন লক্ষণ নেই। এদিকে পদ্মায় পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় স্রোতের গতিও বৃদ্ধি পেয়ে ফেরি পারাপারে দীর্ঘ সময় লাগছে। বরিশাল, পটুয়াখালী, খুলনা, ফরিদপুর, মাদারীপুরসহ দক্ষিণাঞ্চলের জেলাগুলো থেকে গণপরিবহন ঘাটে আসছে। সেখানেও স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে না। উভয় ঘাটে যানবাহনের চাপ রয়েছে।

গোপালগঞ্জের টুঙ্গীপাড়ার বিপ্লব রায়হান বলেন, আমি ঢাকার উত্তরায় একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের অফিসে চাকরি করি। অফিসের কর্মকর্তাদের ফোন পেয়ে আমি কাজে যোগদান করতে ঢাকা যাচ্ছি। পথে পথে ভোগান্তির শেষ ছিল না। এখন ফেরি ঘাটে এসেও দেখছি ফেরিতে প্রচ- ভিড়। পদ্মা পাড়ি দেয়ার পরে আর কত ভোগান্তি পোহাতে হবে কে জানে।

বরিশাল থেকে আসা মো. আবু হালিম বলেন, আমি গাজীপুরের হোসেন চৌধরী অ্যান্ড সন্স নামক একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করি। আজ থেকে অফিস খোলা তাই ঢাকা যাচ্ছি। সময়মত কাজে যোগদান না করলে চাকরি থাকবে না। বাস চললেও আমি বাস না পেয়ে ইজিবাইক আর মোটরসাইকেলে চড়ে তিনগুণ ভাড়া দিয়ে বাংলাবাজার ঘাট পর্যন্ত আসলাম। ফেরি ঘাটে প্রচ- ভিড় দেখে লঞ্চ ঘাটে আসলাম। এখানেও প্রচ- ভিড়। লঞ্চে উঠতেও ভয় করছে।

শরীয়তপুরের জোসেফ বলেন, আমি ঢাকার সাভারে একটি গার্মেন্টসে চাকরি করি। ঈদে বাড়ি এসেছিলাম। এতদিন জানতাম ৫ আগস্টের পর গার্মেন্টস খুলবে, সেই সঙ্গে সব যানবাহনও ছাড়বে। হঠাৎ কারখানা থেকে ফোন এলো আজকের মধ্যে কারখানায় না গেলে চাকরি থাকবে না। তাই অনেক কষ্ট করে ঘাটে এসে ফেরিতে উঠলাম। ফেরিতে এত যাত্রী যে দাঁড়াবারও জায়গা পাওয়া মুস্কিল। আর স্বাস্থ্যবিধি বলতে এখানে কিছুই নেই।

বাংলাবাজার ঘাট ম্যানেজার মো. সালাউদ্দিন বলেন, লঞ্চ চলাচল শুরু করায় ফেরিতে চাপ কমেছে। এখনও গার্মেন্ট কর্মীদের প্রচণ্ড চাপ রয়েছে। এজন্য ফেরি সংখ্যা ৬ থেকে ১০ বাড়ানো হয়েছে।

back to top