alt

বাংলাদেশ

কঠোর লকডাউন এখন অনেকটা স্বাভাবিক

বাস ছাড়া চলছে সব যানবাহনই

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : বুধবার, ০৪ আগস্ট ২০২১

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে চলমান ‘কঠোর লকডাউন’ এখন অনেকটা স্বাভাবিক। বাস ছাড়া সড়ক-মহাসড়কে চলছে সব ধরনের যানবাহন। স্বাভাবিকভাবে চলছে মানুষের চলাফেরা।

কঠোর বিধি-নিষেধের ১৩তম দিনে বুধবার (৪ আগস্ট) রাজধানীর বিভিন্ন সড়কে ছিল যানবাহনের চাপ। ব্যক্তিগত গাড়ির পাশাপাশি লেগুনা, অটোরিকশা, মোটরসাইকেলসহ বেশির ভাগ যানবাহন চলাচল করতে দেখা গেছে। বিভিন্ন এলাকার অলিগলিতে সব ধরনের দোকানপাট ছিল খোলা। চায়ের দোকান ও খাবার হোটেলে বসেই খেতে দেখা গেছে অনেককেই। মানা হচ্ছে না শারীরিক দূরত্ব। কোন কারণ ছাড়াই বাইরে ঘুরে বেড়াচ্ছে মানুষজন। সরেজমিনে রাজধানীর বিভিন্ন স্থান ঘুরে দেখা গেছে একই দৃশ্য। রাজধানীর মানিকনগর এলাকায় আজিজ নামের এক মুদি দোকানদার বলেন, ‘সব কিছুই স্বাভাবিক। এখন কি লকডাউন আছে? পুলিশের গাড়ি মাঝে মাঝে সাইরেন বাজায়। তখন সামনের শাটার বন্ধ করি। পাশেরগুলো খোলাই থাকে। রাস্তায় সিএনজি আর বাস কম বলে একটু ফাঁকা লাগছে। আর কোনভাবে লকডাউন আছে বলে মনে হয়?’

আলম নামের অপর এক দোকানদার বলেন, ‘গার্মেন্টস চালরু পর সব খুলে দেয়া হয়েছে। কোথায় লকডাউন? সব তো খোলা। মানুষ তো অফিসে যাচ্ছে। তাই আমার কাছে কাপড় আসছে ধোয়া কিংবা ইস্ত্রি করার জন্য। দোকান তো এখন খোলা রাখতেই হবে।’

রাজধানীর বিভিন্ন সড়কে দেখা গেছে বাস ছাড়া সব ধরনের গাড়ি চলাচল করতে। এর মধ্যে বিভিন্ন স্থানে যানবাহনে জিজ্ঞাসাবাদ করতে দেখা গেছে। গুলিস্তান থেকে মোটরসাইকেলে মিরপুর যাচ্ছিলেন কামাল নামের একযাত্রী। গুলিস্তান জিপিওর পুলিশ তাদের আটকে দেয়। সেখানে কর্তব্যরত ট্রাফিক পুলিশের সদস্য তার মোটরসাইকেলের কাগজপত্র দেখতে চান।

পরে কামাল বলেন, ‘পুলিশ মোটরসাইকেলের কাগজপত্র দেখল। সবকিছু ঠিক ছিল। আমি আমার ভাইকে দেখতে হাসপাতালে গিয়েছিলাম। আমাকে সতর্ক করে ছেড়ে দিয়েছেন পুলিশ সদস্যরা।’

টিকাটুলি এলাকায় হাচিব নামের এক যাত্রী বলেন, ‘পাড়া-মহল্লার অলিগলিতে স্বাস্থ্যবিধি না মেনে চলছে তুমুল আড্ডা। এগুলো নিয়ন্ত্রণ করবে কে? লকডাউনের তৎপরতা শুধু আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর চেকপোস্টগুলোতে দেখা যায়। আর কোথাও দেখা যায় না।’

মিরপুর এলাকায় চেকপোস্টে দায়িত্বরত ট্রাফিক সার্জেন্ট মাহাবুব হাসান লিটন বলেন, ‘কোনো না কোনো অজুহাতে ঘর থেকে বাইরে আসছে মানুষজন। তাদের হরেক রকমের অজুহাত। বেশির ভাগ মানুষকে জিজ্ঞাসা করলে তারা বলছেন, ডাক্তার দেখাতে যাব। ডাক্তারি সব বিষয় তো আমরাও বুঝি না।’ বুধবার তেমন কোনো মামলা বা জরিমানা করা হয়নি। সতর্ক করে মানুষজনকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি।

রাজধানীর যাত্রাবাড়ী এলাকায় বেসরকারি অফিসে কর্মরত সাইফুল ইসলামের এক ব্যক্তি বলেন, ‘লকডাউনে সরকারি-বেসরকারি অফিস বন্ধ থাকার কথা। কিন্তু লকডাউনে তো আমার অফিস বন্ধ থাকার কথা। হোম অফিস করার কথা। কিন্তু তা কী হচ্ছে? আমাকে তো যেতে হচ্ছে। তাহলে লকডাউনটা কোথায়? লকডাউন শুধু নামে আছে। আপনিই নিজেই দেখছেন, স্কুল বন্ধ আর বাস বন্ধ। এ ছাড়া সব কিছুই চলছে।’

দয়াগঞ্জ এলাকার ভ্রাম্যমাণ চা বিক্রেতা মো. সালাউদ্দিন বলেন, ‘সাধারণ মানুষ লকডাউনে বাইর না হইতে পারলে কি খাইব? তাই আমার মতো অনেকেই বাধ্য হইয়া রাস্তায় বাইর হইছে।’

রাজধানীর সড়কগুলোতে গণপরিবহন না থাকলেও অবাধেই চলাচল করছে মোটরসাইকেল, প্রাইভেটকার, মালবাহী পিকআপ কিংবা সিএনজি অটোরিকশা। কোথাও কোথাও দেখা গেছে যানজট। গুলিস্তান এলাকায় রিকশা চালক চাঁন মিয়া বলেন, ‘সড়কে গাড়ি আগের থেকে অনেক বেড়েছে। মানুষও চলাচল বেশি। কোন সড়কে যানজটে আটকে থাকতে হয়।’

রাজধানীর মালিবাগ, কাকরাইল, তোপখানা রোড, গুলিস্তান, দৈনিক বাংলা মোড়, ফকিরাপুলসহ বিভিন্ন সড়কে রিকশা আর মানুষজনের চলাচলে কোনো বাধা ছিল না। রামপুরা থেকে দৈনিক বাংলা মোড়ে যাত্রী নিয়ে আসা রিকশা সরুজ মিয়া বলেন, ‘লকডাউন শেষ দিকে আছিল, কালকে আবার সরকার বাড়াইছে। ভোরবেলা রিকশা নিইয়া রাস্তায় আইসা রোডের চেহারা দেইখা মনে হইলো না লকডাউন বাড়াইছে। কোনো কড়াকড়িও পুলিশের দেখি নাই।’

২৩ শতাংশ নারী শ্রমিক বিদেশ থেকে ফিরেছেন বছর পূর্ণ না হতেই

কাদের মির্জার বিরুদ্ধে তালা মেরে মার্কেট বন্ধ করে দেয়ার অভিযোগ

ভাসানচর থেকে পালানোর সময় ৩৫ রোহিঙ্গা আটক

ছবি

ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে ইন্ডাস্ট্রিয়াল টেকনোলজি বিষয়ক জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত

ছবি

অনলাইন ও অফলাইনে সেবা বাড়াচ্ছে ভিভো

ছবি

সাবেক ঢাবি শিক্ষার্থীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

ঢাবিতে ছাত্রলীগ নেতাকে পেটালেন আরেক সিনিয়র নেতা

ছবি

৬ দফা দাবিতে রাইড শেয়ার চালকদের কর্মবিরতি কাল

ছবি

বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ,শিক্ষক নেতা আনোয়ারা সুলতানা মারা গেছেন

ছবি

মাদারীপুুরে ভুল চিকিৎসায় ইমামের মৃত্যুর অভিযোগ স্বজনদের

মুুন্সীগঞ্জে চাকরির খোঁজে বের হয়ে নিখোঁজ, লাশ মিলল ধলেশ্বরীর তীরে

ছবি

গবেষনাকে অনুপ্রেরণা হিসেবে আখ্যায়িত তুরস্কের রাষ্ট্রদূত

ছবি

পরীমণির জব্দকৃত ১৬ আলামত ফেরত দিতে সুপারিশ

ছবি

বঙ্গবন্ধু ও তার কন্যা ব্যতীত দেশের উন্নয়ন-অর্জনের ইতিহাস নেই: তথ্য প্রতিমন্ত্রী

ছবি

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একজন জীবন্ত কিংবদন্তি: তথ্যমন্ত্রী

ছবি

দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা: পর্যবেক্ষণসহ আপিল বিভাগের নিষ্পত্তি

ছবি

আমরা আইনের ঊর্ধ্বে কোনো সরকার নই: পরিকল্পনামন্ত্রী

ছবি

হবিগঞ্জে প্রতারণার অভিযোগে চিকিৎসকসহ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে জরিমানা

ছবি

গাজীপুরে ট্রেনে কাটা পড়ে নিহত ২

ছবি

নির্মাণাধীন ভবনের পাশে মিললো মালিকের লাশ

ছবি

হবিগঞ্জে বাসের ধাক্কায় অটোরিকশার ৩ যাত্রী নিহত

ছবি

জটিলতা কাটলো সিরাজগঞ্জ-বগুড়া রেলপথ নির্মাণে

ছবি

মান্দায় অবৈধভাবে সরকারি গাছ কাটার অভিযোগ

ছবি

কক্সবাজারে বিশ্ব পর্যটন দিবস পালিত

সখীপুর থানায় ওপেন হাউজ ডে অনুষ্ঠিত

ছবি

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পুলিশ-যুবদল কর্মীদের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া

সোনারগাঁয়ে আবাদী জমি রক্ষায় মানববন্ধন

ছবি

রামেক হাসপাতালে আরও ৪ জনের মৃত্যু

ছবি

ফের শুরু হচ্ছে গণটিকা

ছবি

এম গার্লস নিয়ে আইকনিক ফ্যাশন গ্যারেজ

ছবি

নাটোরের সিংড়ায় বন্যার্তদের মাঝে হুয়াওয়ের ত্রাণসামগ্রী বিতরণ

ছবি

বইমেলায় সেরা পেমেন্ট গ্রহণকারী প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানগুলোকে পুরস্কৃত করলো বিকাশ

ছবি

আকাশ কিনে আরও তিন গ্রাহক টি-২০ বিশ্বকাপে

ছবি

ফেইসবুকের মাধ্যমে ৭০ বছর পর শতবর্ষী মা ফিরে পেলেন সন্তানকে

ছবি

আগামী ২৮ সেপ্টেম্বর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর নেতৃত্বে উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধিদল মাতারবাড়ি সমুদ্রবন্দর পরিদর্শন করবেন

ছবি

সঠিক তথ্যের দাবীতে পাল্টা জরিপ

tab

বাংলাদেশ

কঠোর লকডাউন এখন অনেকটা স্বাভাবিক

বাস ছাড়া চলছে সব যানবাহনই

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

বুধবার, ০৪ আগস্ট ২০২১

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে চলমান ‘কঠোর লকডাউন’ এখন অনেকটা স্বাভাবিক। বাস ছাড়া সড়ক-মহাসড়কে চলছে সব ধরনের যানবাহন। স্বাভাবিকভাবে চলছে মানুষের চলাফেরা।

কঠোর বিধি-নিষেধের ১৩তম দিনে বুধবার (৪ আগস্ট) রাজধানীর বিভিন্ন সড়কে ছিল যানবাহনের চাপ। ব্যক্তিগত গাড়ির পাশাপাশি লেগুনা, অটোরিকশা, মোটরসাইকেলসহ বেশির ভাগ যানবাহন চলাচল করতে দেখা গেছে। বিভিন্ন এলাকার অলিগলিতে সব ধরনের দোকানপাট ছিল খোলা। চায়ের দোকান ও খাবার হোটেলে বসেই খেতে দেখা গেছে অনেককেই। মানা হচ্ছে না শারীরিক দূরত্ব। কোন কারণ ছাড়াই বাইরে ঘুরে বেড়াচ্ছে মানুষজন। সরেজমিনে রাজধানীর বিভিন্ন স্থান ঘুরে দেখা গেছে একই দৃশ্য। রাজধানীর মানিকনগর এলাকায় আজিজ নামের এক মুদি দোকানদার বলেন, ‘সব কিছুই স্বাভাবিক। এখন কি লকডাউন আছে? পুলিশের গাড়ি মাঝে মাঝে সাইরেন বাজায়। তখন সামনের শাটার বন্ধ করি। পাশেরগুলো খোলাই থাকে। রাস্তায় সিএনজি আর বাস কম বলে একটু ফাঁকা লাগছে। আর কোনভাবে লকডাউন আছে বলে মনে হয়?’

আলম নামের অপর এক দোকানদার বলেন, ‘গার্মেন্টস চালরু পর সব খুলে দেয়া হয়েছে। কোথায় লকডাউন? সব তো খোলা। মানুষ তো অফিসে যাচ্ছে। তাই আমার কাছে কাপড় আসছে ধোয়া কিংবা ইস্ত্রি করার জন্য। দোকান তো এখন খোলা রাখতেই হবে।’

রাজধানীর বিভিন্ন সড়কে দেখা গেছে বাস ছাড়া সব ধরনের গাড়ি চলাচল করতে। এর মধ্যে বিভিন্ন স্থানে যানবাহনে জিজ্ঞাসাবাদ করতে দেখা গেছে। গুলিস্তান থেকে মোটরসাইকেলে মিরপুর যাচ্ছিলেন কামাল নামের একযাত্রী। গুলিস্তান জিপিওর পুলিশ তাদের আটকে দেয়। সেখানে কর্তব্যরত ট্রাফিক পুলিশের সদস্য তার মোটরসাইকেলের কাগজপত্র দেখতে চান।

পরে কামাল বলেন, ‘পুলিশ মোটরসাইকেলের কাগজপত্র দেখল। সবকিছু ঠিক ছিল। আমি আমার ভাইকে দেখতে হাসপাতালে গিয়েছিলাম। আমাকে সতর্ক করে ছেড়ে দিয়েছেন পুলিশ সদস্যরা।’

টিকাটুলি এলাকায় হাচিব নামের এক যাত্রী বলেন, ‘পাড়া-মহল্লার অলিগলিতে স্বাস্থ্যবিধি না মেনে চলছে তুমুল আড্ডা। এগুলো নিয়ন্ত্রণ করবে কে? লকডাউনের তৎপরতা শুধু আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর চেকপোস্টগুলোতে দেখা যায়। আর কোথাও দেখা যায় না।’

মিরপুর এলাকায় চেকপোস্টে দায়িত্বরত ট্রাফিক সার্জেন্ট মাহাবুব হাসান লিটন বলেন, ‘কোনো না কোনো অজুহাতে ঘর থেকে বাইরে আসছে মানুষজন। তাদের হরেক রকমের অজুহাত। বেশির ভাগ মানুষকে জিজ্ঞাসা করলে তারা বলছেন, ডাক্তার দেখাতে যাব। ডাক্তারি সব বিষয় তো আমরাও বুঝি না।’ বুধবার তেমন কোনো মামলা বা জরিমানা করা হয়নি। সতর্ক করে মানুষজনকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি।

রাজধানীর যাত্রাবাড়ী এলাকায় বেসরকারি অফিসে কর্মরত সাইফুল ইসলামের এক ব্যক্তি বলেন, ‘লকডাউনে সরকারি-বেসরকারি অফিস বন্ধ থাকার কথা। কিন্তু লকডাউনে তো আমার অফিস বন্ধ থাকার কথা। হোম অফিস করার কথা। কিন্তু তা কী হচ্ছে? আমাকে তো যেতে হচ্ছে। তাহলে লকডাউনটা কোথায়? লকডাউন শুধু নামে আছে। আপনিই নিজেই দেখছেন, স্কুল বন্ধ আর বাস বন্ধ। এ ছাড়া সব কিছুই চলছে।’

দয়াগঞ্জ এলাকার ভ্রাম্যমাণ চা বিক্রেতা মো. সালাউদ্দিন বলেন, ‘সাধারণ মানুষ লকডাউনে বাইর না হইতে পারলে কি খাইব? তাই আমার মতো অনেকেই বাধ্য হইয়া রাস্তায় বাইর হইছে।’

রাজধানীর সড়কগুলোতে গণপরিবহন না থাকলেও অবাধেই চলাচল করছে মোটরসাইকেল, প্রাইভেটকার, মালবাহী পিকআপ কিংবা সিএনজি অটোরিকশা। কোথাও কোথাও দেখা গেছে যানজট। গুলিস্তান এলাকায় রিকশা চালক চাঁন মিয়া বলেন, ‘সড়কে গাড়ি আগের থেকে অনেক বেড়েছে। মানুষও চলাচল বেশি। কোন সড়কে যানজটে আটকে থাকতে হয়।’

রাজধানীর মালিবাগ, কাকরাইল, তোপখানা রোড, গুলিস্তান, দৈনিক বাংলা মোড়, ফকিরাপুলসহ বিভিন্ন সড়কে রিকশা আর মানুষজনের চলাচলে কোনো বাধা ছিল না। রামপুরা থেকে দৈনিক বাংলা মোড়ে যাত্রী নিয়ে আসা রিকশা সরুজ মিয়া বলেন, ‘লকডাউন শেষ দিকে আছিল, কালকে আবার সরকার বাড়াইছে। ভোরবেলা রিকশা নিইয়া রাস্তায় আইসা রোডের চেহারা দেইখা মনে হইলো না লকডাউন বাড়াইছে। কোনো কড়াকড়িও পুলিশের দেখি নাই।’

back to top