alt

সারাদেশ

ফের শিক্ষার্থীরা সড়কে

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : শনিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২১

বাসে হাফ ভাড়া নির্ধারণের দাবিতে বেশ কয়েকদিন ধরে আন্দোলন করছিলেন রাজধানীর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর শিক্ষার্থীরা। তার সঙ্গে নতুন যোগ হয়েছে নটর ডেম কলেজ শিক্ষার্থী নাঈমের মৃত্যুর বিচার ও সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত সব শিক্ষার্থীর পরিবারকে ক্ষতিপূরণের দাবি। একই সঙ্গে ২০১৮ সালের নিরাপদ সড়কের দাবিগুলোও বাস্তবায়নের দাবি জানিয়েছেন শিক্ষার্থীরা। এসব দাবি নিয়ে শনিবারও (২৭ নভেম্বর) রাজধানীর বিভিন্ন সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেন শিক্ষার্থীরা। আগামী মঙ্গলবারের মধ্যে ৯ দফা দাবি মেনে প্রজ্ঞাপন জারি করা না হলে বিআরটিএ কার্যালয় ঘেরাও করার ঘোষণা দিয়েছেন তারা। মিরপুর, ধানমন্ডি-২৭ ও ৩২, পুরান ঢাকার ভিক্টোরিয়া পার্ক ও যাত্রাবাড়ী এলাকার সড়ক অবরোধ করে তারা এসব দাবি জানান। এতে ওইসব এলাকার সড়কে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়, ভোগান্তিতে পড়তে হয় নগরবাসীকে।

শনিবার বেলা সোয়া ১১টার পরে ধানমন্ডি রাপা প্লাজার সামনের সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ শুরু করেন শিক্ষার্থীরা। এর মধ্যে তেজগাঁও কলেজ, আইডিয়াল কমার্স কলেজ, মোহাম্মদপুর প্রিপারেটরি কলেজ, ইডেন মহিলা কলেজ, মিরপুর দুয়ারীপাড়া কলেজ, নিউ মডেল ডিগ্রি কলেজসহ নগরীর বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ করেন। তারা সড়ক অবরোধ করে স্লোগান দিতে থাকেন। ‘আমার ভাই মরলো কেন, সব সাথীদের খবর দে, শক্ত-কঠিন দুর্গ গড়ে বেপরোয়ার কবর দে, উই ওয়ান্ট জাস্টিস, আমার ভাই কবরে, খুনি কেন বাহিরে, নিরাপদ সড়ক চাই’সংবলিত পোস্টার, ব্যানার হাতে নিয়ে সড়কে বসে পড়েন। ছাত্ররা হাতে হাত ধরে চতুর্দিক বেস্টুনি দিয়ে রাখেন। বৃত্তাকারের ভিতরে পাকা সড়কে বসে পোস্টার হাতে নিয়ে ছাত্রীরা স্লোগান দিতে থাকেন। কয়েক ঘণ্টা ধরে জনবহুল সড়ক অবরোধ করে রাখেন তারা।

শিক্ষার্থীরা জানিয়েছে, ৯ দফা দাবি আদায়ে বৃহস্পতিবার (২৬ নভেম্বর) তারা সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) কার্যালয়ে গিয়েছিল। বিআরটিএ কর্তৃপক্ষ এক সপ্তাহ সময় চেয়েছে। আগামী মঙ্গলবারের মধ্যে তাদের দাবি মেনে প্রজ্ঞাপন জারি করা না হলে ওই দিন দুপুরে শিক্ষার্থীরা বিআরটিএ কার্যালয় ঘেরাওয়ের ঘোষণা দিয়েছে। তবে নিরাপদ সড়কের দাবিতে আজ ও আগামীকাল রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ চলবে বলেও ঘোষণা দিয়েছেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। তারা আরও জানিয়েছে, সড়কে ফিটনেসবিহীন ও লাইসেন্সবিহীন যানবাহন যাচাই কার্যক্রমও চলবে। আমরা কোন ধরনের ভাঙচুর করার জন্য সড়কে নামি নাই। ২০১৮ সালের আন্দোলনের সময় ৯ দফা দাবি তুলেছিল। সরকার বলেছিল, দাবিগুলো মানা হয়েছে। কিন্তু একটি দফাও এখন পর্যন্ত বাস্তবায়িত হয়নি। এবার ৯ দফা মানা না হলে আগামী মঙ্গলবার থেকে আরও কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।

শিক্ষার্থীদের ৯ দফা দাবি হচ্ছে- নটর ডেম কলেজের শিক্ষার্থী নাঈমসহ সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত সব শিক্ষার্থীর পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেয়া, সড়ক দুর্ঘটনায় আহত সব যাত্রী ও পরিবহন শ্রমিকদের ক্ষতিপূরণ ও পুনর্বাসন নিশ্চিত করা, সড়ক, নৌ ও রেলপথে শিক্ষার্থীদের হাফ পাস নিশ্চিত করে প্রজ্ঞাপন জারি করা, বৈধ-অবৈধ যানবাহন চালকদের প্রশিক্ষণের মাধ্যমে বৈধতার আওতায় আনা, বিআরটিএ’র সব কার্যক্রমে নজরদারি ও জবাবদিহি নিশ্চিত করা, সারাদেশে ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা স্বয়ংক্রিয় আধুনিকায়ন এবং পরিকল্পিত নগরায়ণ সুনিশ্চিত করা, গণপরিবহনে নারীর প্রতি যৌন হয়রানি ও সহিংসতা বন্ধ করে নিরাপত্তা নিশ্চিত করা ও পরিকল্পিত বাস স্টপেজ, পার্কিং স্পেস নির্মাণ এবং এর যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে।

দুপুরে রাপা প্লাজার সামনে গিয়ে দেখা যায়, আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা দাবি আদায়ে স্লোগানের পাশাপাশি ধানমন্ডির বিভিন্ন সিগন্যালে থাকা প্রাইভেটকার, বাস এবং মোটরসাইকেল চালকের লাইসেন্স আছে কিনা, তা চেক করছেন। যেসব চালকের লাইসেন্স ঠিকঠাক রয়েছে, তাদের যেতে দেয়া হচ্ছে। যাদের কাগজপত্র ঠিক নেই তাদের চাবি নিয়ে পাশে থাকা পুলিশ সদস্যদের হাতে তুলে দিচ্ছেন। ২০১৮ সালে নিরাপদ সড়কের দাবির আন্দোলনের সময় যেমন জরুরি লেন, ব্যক্তিগত গাড়ির লেন ও পাবলিক বাসের লেন সিস্টেম করেছিল শিক্ষার্থীরা, শনিবারও ধানমন্ডি-২৭ এ এরকম লেন সিস্টেম করে গাড়ি চলতে বাধ্য করেন তারা।

তবে অ্যাম্বুলেন্স, পরীক্ষার্থীর গাড়ি ও জরুরি সেবার গাড়ি যেতে দিতে দেখা গেছে। বেলা ২টার দিকে ধানমন্ডি-২৭ এর দিক থেকে মোটরসাইকেল চালিয়ে আসার সময় একজন কনস্টেবলকে দাঁড় করান শিক্ষার্থীরা। তারা ওই কনস্টেবলের লাইসেন্সসহ বাইকের কাগজ দেখতে চান। কিন্তু কনস্টেবল কোন কাগজই দেখাতে পারেননি। পরে পাশে থাকা তেজগাঁও বিভাগের এডিসি রুবাইয়াত জামানের কাছে ওই পুলিশ সদস্যকে নিয়ে যান শিক্ষার্থীরা। লাইসেন্স ও বাইকের কাগজ না থাকলে সার্জেন্ট ডেকে ওই কনস্টেবলকে মামলা দেয়া হবে, এডিসির এমন আশ্বাসের পর শান্ত হন শিক্ষার্থীরা।

শিক্ষার্থীদের রাস্তায় নামার খবরে পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের ডিসি বিপ্লব কুমার সরকার, ওই বিভাগের এসি, এডিসিসহ অতিরিক্ত পুলিশ সদস্যরা ঘটনাস্থলে যান। ডিসি সেখানে গিয়ে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলেন। এ বিষয়ে শিক্ষার্থীরা জানান, ডিসি বলেছেন, তারা আমাদের দাবি-দাওয়ার সঙ্গে একমত। কিন্তু এভাবে আন্দোলন না করতে অনুরোধ করেছেন। পুলিশের অনুরোধেও আন্দোলন স্থগিত করেননি শিক্ষার্থীরা। ফলে মূল সড়কের চতুর্দিকে গণপরিবহনের জটলা সৃষ্টি হয়। এতে যাত্রীদের দুর্ভোগে পোহাতে দেখা গেছে।

শনিবার ব্যাংকের পরীক্ষা থাকায় অনেক পরীক্ষার্থীকে পায়ে হেঁটে কেন্দ্রে যেতেও দেখা গেছে। মাহমুদুল হাসান নামের একজন পরীক্ষার্থী জানান, লালমাটিয়া মহিলা কলেজে তার ব্যাংক পরীক্ষার আসন পড়েছে। তিনি পুরান ঢাকা থেকে বাসযোগে রওনা দেন। কিন্তু ধানমন্ডি-২৭ এ এসে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের কারণে আটকা পড়েন। পরে গাড়ি থেকে নেমে হেঁটে যান। এসময় সেখানে দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যদের অনুরোধ জানিয়ে মাহমুদুলসহ বেশ কয়েকজন বলেন, আজ (শনিবার) ব্যাংকের চাকরি পরীক্ষা আছে। পেছনের বাসগুলোতে অনেক পরীক্ষার্থী আটকা পড়েছে। বাসগুলো এখনই না ছাড়লে তাদের কেউ পরীক্ষা দিতে পারবে না। তবে তাদের কিছুই করার নেই বলে ¯্রফে জানিয়ে দেন সেখানে দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যরা। পরে বেলা আড়াইটার দিকে ৯ দফা দাবি জানিয়ে নিজ থেকে রাস্তা ছেড়ে চলে যান আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা।

পুরান ঢাকার সদরঘাটগামী সড়ক অবরোধও করে বিক্ষোভ করেন কবি নজরুল সরকারি কলেজ ও শহীদ সোহরাওয়ার্দী সরকারি কলেজের শিক্ষার্থীরা। তারা রায়সাহেব বাজার মোড় ব্লক করে স্লোগান দেন। এতে ওই এলাকায়ও তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়।

অবরোধে অংশ নেয়া ফাহমিদা নামে এক শিক্ষার্থী বলেন, এই রুটের বাসগুলোতে হাফ ভাড়া দেয়ায় শিক্ষার্থীদের বাসে তোলে না। ছাত্রী দেখলে দরজা বন্ধ করে রাখে। হাফ ভাড়া দিতে চাইলে বাস থেকে নামিয়ে দেয়। আমরা সুশৃঙ্খলভাবে বাসে চলাচল করতে চাই।

একই দাবিতে বেলা দেড়টার দিকে যাত্রাবাড়ীতে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করছেন মাহবুবুর রহমান মোল্লা কলেজ ও যাত্রাবাড়ী আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থীরা। এ দুই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভে যাত্রাবাড়ী মোড় ও আশপাশের যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এতে দীর্ঘ যানজট তৈরি হয়।

মাহবুবুর রহমান মোল্লা কলেজের শিক্ষার্থী আবদুল হক বলেন, দ্রুত নিরাপদ সড়ক ব্যবস্থা চালু করার দাবিতে আমরা রাস্তায় এসেছি।

ডিজেলের দাম বৃদ্ধির পর সরকার ভাড়া নির্ধারণ করে দিলেও এ অজুহাতে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে হাফ ভাড়া নিচ্ছে না রাজধানীর গণপরিবহনের শ্রমিকরা। হাফ ভাড়া নিয়ে পরিবহন শ্রমিকদের সঙ্গে শিক্ষার্থীদের মারামারি, হট্টগোল লেগেই আছে। ফলে হাফ ভাড়ার দাবিতে সড়কে নামে রাজধানীর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা। এরই মধ্যে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ময়লার গাড়ির চাপায় নটর ডেম কলেজ ছাত্র নাঈমের মৃত্যু হয়। হাফ ভাড়ার পাশাপাশি নাঈমের মৃত্যুর বিচার ও ক্ষতিপূরণের দাবিতেও বৃহস্পতিবার থেকে আন্দোলন শুরু করে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা।

ছবি

পশ্চিমাঞ্চল রেল : লেভেল ক্রসিং যেন মরণফাঁদ

ছবি

পরীক্ষা কমেছে, শনাক্ত কমেছে, হারও কমেছে

করোনা সংক্রমণের হার বেড়েই চলেছে

হাসপাতাল থেকে ক্লিনিকে রোগী পাঠিয়ে ভুল অস্ত্রোপচারের অভিযোগ চিকিৎসকের বিরুদ্ধে

দুর্গাপুরে লিজপ্রাপ্ত সম্পত্তি দখল চেষ্টার অভিযোগ

ছবি

পুলিশে যুক্ত হচ্ছে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স: আইজিপি

রংপুর ভিকটিম সেন্টারে তরুণীর আত্মহত্যা, প্রেমিক গ্রেপ্তার

ছবি

চাঁপাইয়ে দুটি পৌর সড়কে অসংখ্য গর্ত : নিত্য দুর্ঘটনা

ক্লিনিকে অবহেলায় নবজাতক মৃত্যুর অভিযোগ

ছবি

সুফিয়ান হত্যা: অগ্রগতি নেই তদন্তে, গ্রেফতার নেই এক সপ্তাহেও

কুষ্টিয়ায় অসুস্থ বৃদ্ধার পাশে ইউএনও

ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে ৫ বছরে ঝরেছে ২৪৯ প্রাণ

ছবি

শাবিপ্রবির আটক সাবেক ৫ শিক্ষার্থীর জামিন

ছবি

শাবির ঘটনায় পুলিশের দায় থাকলে ব্যবস্থা

ছবি

বগুড়ায় বাসচাপায় অটোরিকশা চালকসহ নিহত ৫

ছবি

মাঘের বিকেলে রাজধানীতে মুষলধারে বৃষ্টি

ওয়াচ ইউকের অর্থ পেল দগ্ধ ৩০ জন

নবাবগঞ্জে নতুন শনাক্ত ২৭

ঝালকাঠিতে করোনা আক্রান্ত ১৪

কিশোরগঞ্জে একাদশের শিক্ষার্থীদের টিকাদান কার্যক্রম শুরু

মাছ রক্ষায় জলমহাল ইজারা ১০ বছরে ২ বছর বন্ধের দাবি

ফকিরহাটে কৃষক হত্যা হত্যাকারী শনাক্ত গ্রেপ্তার নেই

ছবি

ভাসমান বাগানে সজীব বাঁধাকপি

ছবি

সিংগাইরে যত্রতত্র ইটভাটা, হুমকিতে ফসল-জনস্বাস্থ্য

ছবি

কুষ্টিয়ায় তীব্র নদী ভাঙন প্রতিদিন বিলীন ৭০ মি.

বড়াল সচলে ১১৭৮ অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের উদ্যোগ

ছবি

উপরমহলের অনুরোধে এসেছি, আশা করি কথা রাখবেনঃ জাফর ইকবাল

ছবি

পুলিশ সদস্যের বাড়ি থেকে কষ্টিমূর্তি উদ্ধার, গ্রেফতার ২

ছবি

ঢাকায় ভারতের প্রজাতন্ত্র দিবস উদযাপন

ছবি

সুনামগঞ্জে ট্রাক্টরচাপায় চালক নিহত

ছবি

একই পরিবারের চারজনকে কুপিয়ে আহত

ছবি

বরেন্দ্র এক্সপ্রেসের ধাক্কা, প্রাণ গেলো ৩ শ্রমিকের

ছবি

করোনা : একদিনে শনাক্ত ১৬ হাজার ছাড়ালো

ছবি

ইউরোপ যাওয়ার পথে ভূমধ্যসাগরে ৭ বাংলাদেশির মৃত্যু

ছবি

চাঁদপুর-চট্টগ্রাম রেলপথে নতুন ইঞ্জিনের ট্রায়াল;নতুন ট্রেন পাওয়ার সম্ভাবনা!

ছবি

কক্সবাজারে সড়ক নির্মাণে ধীরগতি

tab

সারাদেশ

ফের শিক্ষার্থীরা সড়কে

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

শনিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২১

বাসে হাফ ভাড়া নির্ধারণের দাবিতে বেশ কয়েকদিন ধরে আন্দোলন করছিলেন রাজধানীর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর শিক্ষার্থীরা। তার সঙ্গে নতুন যোগ হয়েছে নটর ডেম কলেজ শিক্ষার্থী নাঈমের মৃত্যুর বিচার ও সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত সব শিক্ষার্থীর পরিবারকে ক্ষতিপূরণের দাবি। একই সঙ্গে ২০১৮ সালের নিরাপদ সড়কের দাবিগুলোও বাস্তবায়নের দাবি জানিয়েছেন শিক্ষার্থীরা। এসব দাবি নিয়ে শনিবারও (২৭ নভেম্বর) রাজধানীর বিভিন্ন সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেন শিক্ষার্থীরা। আগামী মঙ্গলবারের মধ্যে ৯ দফা দাবি মেনে প্রজ্ঞাপন জারি করা না হলে বিআরটিএ কার্যালয় ঘেরাও করার ঘোষণা দিয়েছেন তারা। মিরপুর, ধানমন্ডি-২৭ ও ৩২, পুরান ঢাকার ভিক্টোরিয়া পার্ক ও যাত্রাবাড়ী এলাকার সড়ক অবরোধ করে তারা এসব দাবি জানান। এতে ওইসব এলাকার সড়কে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়, ভোগান্তিতে পড়তে হয় নগরবাসীকে।

শনিবার বেলা সোয়া ১১টার পরে ধানমন্ডি রাপা প্লাজার সামনের সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ শুরু করেন শিক্ষার্থীরা। এর মধ্যে তেজগাঁও কলেজ, আইডিয়াল কমার্স কলেজ, মোহাম্মদপুর প্রিপারেটরি কলেজ, ইডেন মহিলা কলেজ, মিরপুর দুয়ারীপাড়া কলেজ, নিউ মডেল ডিগ্রি কলেজসহ নগরীর বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ করেন। তারা সড়ক অবরোধ করে স্লোগান দিতে থাকেন। ‘আমার ভাই মরলো কেন, সব সাথীদের খবর দে, শক্ত-কঠিন দুর্গ গড়ে বেপরোয়ার কবর দে, উই ওয়ান্ট জাস্টিস, আমার ভাই কবরে, খুনি কেন বাহিরে, নিরাপদ সড়ক চাই’সংবলিত পোস্টার, ব্যানার হাতে নিয়ে সড়কে বসে পড়েন। ছাত্ররা হাতে হাত ধরে চতুর্দিক বেস্টুনি দিয়ে রাখেন। বৃত্তাকারের ভিতরে পাকা সড়কে বসে পোস্টার হাতে নিয়ে ছাত্রীরা স্লোগান দিতে থাকেন। কয়েক ঘণ্টা ধরে জনবহুল সড়ক অবরোধ করে রাখেন তারা।

শিক্ষার্থীরা জানিয়েছে, ৯ দফা দাবি আদায়ে বৃহস্পতিবার (২৬ নভেম্বর) তারা সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) কার্যালয়ে গিয়েছিল। বিআরটিএ কর্তৃপক্ষ এক সপ্তাহ সময় চেয়েছে। আগামী মঙ্গলবারের মধ্যে তাদের দাবি মেনে প্রজ্ঞাপন জারি করা না হলে ওই দিন দুপুরে শিক্ষার্থীরা বিআরটিএ কার্যালয় ঘেরাওয়ের ঘোষণা দিয়েছে। তবে নিরাপদ সড়কের দাবিতে আজ ও আগামীকাল রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ চলবে বলেও ঘোষণা দিয়েছেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। তারা আরও জানিয়েছে, সড়কে ফিটনেসবিহীন ও লাইসেন্সবিহীন যানবাহন যাচাই কার্যক্রমও চলবে। আমরা কোন ধরনের ভাঙচুর করার জন্য সড়কে নামি নাই। ২০১৮ সালের আন্দোলনের সময় ৯ দফা দাবি তুলেছিল। সরকার বলেছিল, দাবিগুলো মানা হয়েছে। কিন্তু একটি দফাও এখন পর্যন্ত বাস্তবায়িত হয়নি। এবার ৯ দফা মানা না হলে আগামী মঙ্গলবার থেকে আরও কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।

শিক্ষার্থীদের ৯ দফা দাবি হচ্ছে- নটর ডেম কলেজের শিক্ষার্থী নাঈমসহ সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত সব শিক্ষার্থীর পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেয়া, সড়ক দুর্ঘটনায় আহত সব যাত্রী ও পরিবহন শ্রমিকদের ক্ষতিপূরণ ও পুনর্বাসন নিশ্চিত করা, সড়ক, নৌ ও রেলপথে শিক্ষার্থীদের হাফ পাস নিশ্চিত করে প্রজ্ঞাপন জারি করা, বৈধ-অবৈধ যানবাহন চালকদের প্রশিক্ষণের মাধ্যমে বৈধতার আওতায় আনা, বিআরটিএ’র সব কার্যক্রমে নজরদারি ও জবাবদিহি নিশ্চিত করা, সারাদেশে ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা স্বয়ংক্রিয় আধুনিকায়ন এবং পরিকল্পিত নগরায়ণ সুনিশ্চিত করা, গণপরিবহনে নারীর প্রতি যৌন হয়রানি ও সহিংসতা বন্ধ করে নিরাপত্তা নিশ্চিত করা ও পরিকল্পিত বাস স্টপেজ, পার্কিং স্পেস নির্মাণ এবং এর যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে।

দুপুরে রাপা প্লাজার সামনে গিয়ে দেখা যায়, আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা দাবি আদায়ে স্লোগানের পাশাপাশি ধানমন্ডির বিভিন্ন সিগন্যালে থাকা প্রাইভেটকার, বাস এবং মোটরসাইকেল চালকের লাইসেন্স আছে কিনা, তা চেক করছেন। যেসব চালকের লাইসেন্স ঠিকঠাক রয়েছে, তাদের যেতে দেয়া হচ্ছে। যাদের কাগজপত্র ঠিক নেই তাদের চাবি নিয়ে পাশে থাকা পুলিশ সদস্যদের হাতে তুলে দিচ্ছেন। ২০১৮ সালে নিরাপদ সড়কের দাবির আন্দোলনের সময় যেমন জরুরি লেন, ব্যক্তিগত গাড়ির লেন ও পাবলিক বাসের লেন সিস্টেম করেছিল শিক্ষার্থীরা, শনিবারও ধানমন্ডি-২৭ এ এরকম লেন সিস্টেম করে গাড়ি চলতে বাধ্য করেন তারা।

তবে অ্যাম্বুলেন্স, পরীক্ষার্থীর গাড়ি ও জরুরি সেবার গাড়ি যেতে দিতে দেখা গেছে। বেলা ২টার দিকে ধানমন্ডি-২৭ এর দিক থেকে মোটরসাইকেল চালিয়ে আসার সময় একজন কনস্টেবলকে দাঁড় করান শিক্ষার্থীরা। তারা ওই কনস্টেবলের লাইসেন্সসহ বাইকের কাগজ দেখতে চান। কিন্তু কনস্টেবল কোন কাগজই দেখাতে পারেননি। পরে পাশে থাকা তেজগাঁও বিভাগের এডিসি রুবাইয়াত জামানের কাছে ওই পুলিশ সদস্যকে নিয়ে যান শিক্ষার্থীরা। লাইসেন্স ও বাইকের কাগজ না থাকলে সার্জেন্ট ডেকে ওই কনস্টেবলকে মামলা দেয়া হবে, এডিসির এমন আশ্বাসের পর শান্ত হন শিক্ষার্থীরা।

শিক্ষার্থীদের রাস্তায় নামার খবরে পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের ডিসি বিপ্লব কুমার সরকার, ওই বিভাগের এসি, এডিসিসহ অতিরিক্ত পুলিশ সদস্যরা ঘটনাস্থলে যান। ডিসি সেখানে গিয়ে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলেন। এ বিষয়ে শিক্ষার্থীরা জানান, ডিসি বলেছেন, তারা আমাদের দাবি-দাওয়ার সঙ্গে একমত। কিন্তু এভাবে আন্দোলন না করতে অনুরোধ করেছেন। পুলিশের অনুরোধেও আন্দোলন স্থগিত করেননি শিক্ষার্থীরা। ফলে মূল সড়কের চতুর্দিকে গণপরিবহনের জটলা সৃষ্টি হয়। এতে যাত্রীদের দুর্ভোগে পোহাতে দেখা গেছে।

শনিবার ব্যাংকের পরীক্ষা থাকায় অনেক পরীক্ষার্থীকে পায়ে হেঁটে কেন্দ্রে যেতেও দেখা গেছে। মাহমুদুল হাসান নামের একজন পরীক্ষার্থী জানান, লালমাটিয়া মহিলা কলেজে তার ব্যাংক পরীক্ষার আসন পড়েছে। তিনি পুরান ঢাকা থেকে বাসযোগে রওনা দেন। কিন্তু ধানমন্ডি-২৭ এ এসে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের কারণে আটকা পড়েন। পরে গাড়ি থেকে নেমে হেঁটে যান। এসময় সেখানে দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যদের অনুরোধ জানিয়ে মাহমুদুলসহ বেশ কয়েকজন বলেন, আজ (শনিবার) ব্যাংকের চাকরি পরীক্ষা আছে। পেছনের বাসগুলোতে অনেক পরীক্ষার্থী আটকা পড়েছে। বাসগুলো এখনই না ছাড়লে তাদের কেউ পরীক্ষা দিতে পারবে না। তবে তাদের কিছুই করার নেই বলে ¯্রফে জানিয়ে দেন সেখানে দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যরা। পরে বেলা আড়াইটার দিকে ৯ দফা দাবি জানিয়ে নিজ থেকে রাস্তা ছেড়ে চলে যান আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা।

পুরান ঢাকার সদরঘাটগামী সড়ক অবরোধও করে বিক্ষোভ করেন কবি নজরুল সরকারি কলেজ ও শহীদ সোহরাওয়ার্দী সরকারি কলেজের শিক্ষার্থীরা। তারা রায়সাহেব বাজার মোড় ব্লক করে স্লোগান দেন। এতে ওই এলাকায়ও তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়।

অবরোধে অংশ নেয়া ফাহমিদা নামে এক শিক্ষার্থী বলেন, এই রুটের বাসগুলোতে হাফ ভাড়া দেয়ায় শিক্ষার্থীদের বাসে তোলে না। ছাত্রী দেখলে দরজা বন্ধ করে রাখে। হাফ ভাড়া দিতে চাইলে বাস থেকে নামিয়ে দেয়। আমরা সুশৃঙ্খলভাবে বাসে চলাচল করতে চাই।

একই দাবিতে বেলা দেড়টার দিকে যাত্রাবাড়ীতে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করছেন মাহবুবুর রহমান মোল্লা কলেজ ও যাত্রাবাড়ী আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থীরা। এ দুই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভে যাত্রাবাড়ী মোড় ও আশপাশের যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এতে দীর্ঘ যানজট তৈরি হয়।

মাহবুবুর রহমান মোল্লা কলেজের শিক্ষার্থী আবদুল হক বলেন, দ্রুত নিরাপদ সড়ক ব্যবস্থা চালু করার দাবিতে আমরা রাস্তায় এসেছি।

ডিজেলের দাম বৃদ্ধির পর সরকার ভাড়া নির্ধারণ করে দিলেও এ অজুহাতে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে হাফ ভাড়া নিচ্ছে না রাজধানীর গণপরিবহনের শ্রমিকরা। হাফ ভাড়া নিয়ে পরিবহন শ্রমিকদের সঙ্গে শিক্ষার্থীদের মারামারি, হট্টগোল লেগেই আছে। ফলে হাফ ভাড়ার দাবিতে সড়কে নামে রাজধানীর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা। এরই মধ্যে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ময়লার গাড়ির চাপায় নটর ডেম কলেজ ছাত্র নাঈমের মৃত্যু হয়। হাফ ভাড়ার পাশাপাশি নাঈমের মৃত্যুর বিচার ও ক্ষতিপূরণের দাবিতেও বৃহস্পতিবার থেকে আন্দোলন শুরু করে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা।

back to top