alt

জাতীয়

১১৬ আলেমের আর্থিক লেনদেন : অনুসন্ধান শুরু করলো দুদক

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : বৃহস্পতিবার, ২৩ জুন ২০২২

সন্দেহজনক আর্থিক লেনদেনের তদন্ত চেয়ে জমা দেওয়া গণকমিশনের অভিযোগ আমলে নিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি ও সংখ্যালঘুদের অধিকার নিয়ে কাজ করা ব্যক্তিদের উদ্যোগে ‘মৌলবাদী ও সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস তদন্তে গঠিত গণকমিশন’ সম্প্রতি ১১৬ আলেম ও ইসলামি বক্তার একটি তালিকা গত ১১ মে দুর্নীতি দমন কমিশনে জমা দেয়। তালিকায় স্থান পাওয়া ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে জঙ্গি অর্থায়ন এবং ওয়াজের মাধ্যমে ধর্মীয় সম্প্রীতি নষ্ট করা ও ধর্মের নামে ব্যবসার অভিযোগ আনে গণকমিশন। তারা ‘বাংলাদেশে মৌলবাদী সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসের ২০০০ দিন’ শীর্ষক শ্বেতপত্র প্রকাশ করে।

অনুসন্ধানে দুদকের পরিচালক সৈয়দ ইকবাল হোসেনের নেতৃত্বে তিন সদস্যের অনুসন্ধানকারী দল গঠন করা হয়েছে। এ–সংক্রান্ত একটি দাপ্তরিক চিঠি মঙ্গলবার তিন কর্মকর্তাকে পাঠানো হয়।

অনুসন্ধানের জন্য নিযুক্ত অন্য দুই কর্মকর্তা হলেন দুদকের উপপরিচালক মোহাম্মদ ইব্রাহীম ও উপপরিচালক মো. আহসানুল কবীর। দুদকের পরিচালক উত্তম কুমার মণ্ডল এ চিঠি পাঠান।

পরিচালকের চিঠিতে বলা হয়, ‘....গঠিত তিন সদস্যবিশিষ্ট টিমের মাধ্যমে বিশেষ অনুসন্ধান ও তদন্ত শাখা হতে অনুসন্ধানের সদয় অনুমোদন ও অনুসন্ধানের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য মহাপরিচালক (বিশেষ তদন্ত) বরাবর প্রেরণের জন্য কমিশন কর্তৃক সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে।’ চিঠির সঙ্গে ২ হাজার ২১৫ পাতার ‘বাংলাদেশে মৌলবাদী সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসের ২০০০ দিন’-এর তিন খণ্ড কর্মকর্তাদের কাছে পাঠানো হয়।

দুদকের দাপ্তরিক চিঠিতে দেখা যায়, ১২ মে দুদকের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মঈনউদ্দীন আবদুল্লাহ অভিযোগ পরীক্ষা-নিরীক্ষাপূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য মহাপরিচালক (দৈনিক ও সাম্প্রতিক অভিযোগ সেলে) পাঠান। পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে অভিযোগ অনুসন্ধানের সিদ্ধান্ত নেয় দুদক।

প্রসঙ্গত, গণকমিশনের শ্বেতপত্র নিয়ে বিভিন্ন মহলে প্রতিক্রিয়া দেখা দিলে ২১ মে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে এক অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন, গণকমিশনের আইনি কোনো ভিত্তি নেই। গণকমিশনের এই তালিকা সম্পর্কে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘যাঁদের নামে তাঁরা দুর্নীতির দায় দিচ্ছেন, এগুলো আমরা তদন্ত করিনি। দেখিও নাই। কাজেই এগুলো না দেখে বলতে পারব না। যে অভিযোগের সুনির্দিষ্ট প্রমাণ হবে না, সেই অভিযোগ কখনো আমলে নেওয়া হবে না।’

দুদক চেয়ারম্যানের কাছে শ্বেতপত্র তুলে দেওয়ার পর গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলেন মৌলবাদী ও সন্ত্রাস তদন্তে গণকমিশনের চেয়ারম্যান শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক

এর দুই দিন পর ২৩ মে ১১ জন আলেম একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি এবং বাংলাদেশে মৌলবাদী ও সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস তদন্ত কমিশন গণকমিশনের অর্থের উৎস এবং দুটি সংগঠনের সদস্যদের সম্পদের অনুসন্ধানের জন্য দুর্নীতি দমন কমিশনে স্মারকলিপি দেন। দুদকের সচিব মো. মাহবুব হোসেন এই স্মারকলিপি গ্রহণ করেন।

স্মারকলিপিতে ১৯৯২ সাল থেকে বর্তমান সময় পর্যন্ত একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির আয়-ব্যয়ের হিসাব ও তহবিলের উৎস সম্পর্কে অনুসন্ধান এবং কমিটির নেতাদের নামে থাকা সম্পদের উৎস ও আয়-ব্যয়ের হিসাব সম্পর্কে অনুসন্ধান করারও অনুরোধ জানানো হয়।

একই সঙ্গে গণকমিশনের চেয়ারম্যান বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক, সংসদ সদস্য রাশেদ খান মেনন ও হাসানুল হক ইনু, শিক্ষাবিদ মমতাজ লতিফ, লেখক ও সাংবাদিক শাহরিয়ার কবির, অধ্যাপক মুনতাসীর মামুন, মাওলানা জিয়াউল হাসান, কমিশনের সদস্যসচিব তুরিন আফরোজ, সমন্বয়কারী কাজী মুকুল, সদস্য আসাদুজ্জামান বাবু, নাদিয়া চৌধুরী, আবু সালেহ রনি, মাওলানা রফিক হাসান, সৈয়দ নুর আলম, শেখ আলী শাহ নেওয়াজসহ কমিশনের সঙ্গে যুক্ত অন্যদের সম্পদের উৎস, ব্যাংক হিসাব, স্থাবর-অস্থাবর সম্পদ সম্পর্কে অনুসন্ধানের জন্য পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান জানানো হয়।

ছবি

বাজেট পাস হচ্ছে আজ

ছবি

‘পদ্মা সেতুর’ দুই প্রান্তে মোটরসাইকেল চলাচল নিষিদ্ধের প্রস্তাব

ছবি

নরসিংদীতে কাভার্ডভ্যান চাপায় ৪ জনের মৃত্যু

ছবি

মুহাম্মদ ইউনূসের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ : ইউনূস সেন্টারের জবাব

ছবি

‘খরচের’ চেয়ে কম দামে পাঠ্যপুস্তক ছাপতে চায় মুদ্রাকররা!

ছবি

মোটরবাইক বন্ধ করা ঠিক নয়, তবে নিয়ম ভঙ্গকারীদের জন্য অভিনব শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে : ড. বসুনিয়া

নড়াইলে শিক্ষক হেনস্তার ঘটনা খতিয়ে দেখা হচ্ছে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ছবি

ঢাকা-মাওয়া-ভাঙ্গা এক্সপ্রেসওয়েতে যত টোল দিতে হবে

বাড়ছে ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত রোগী

ছবি

ষড়যন্ত্রের কারণে পদ্মা সেতু নির্মাণে দুই বছর দেরি: প্রধানমন্ত্রী

ছবি

২৪ ঘণ্টায় করোনার নতুন রোগী ২২৪১ জন

ছবি

শিক্ষক লাঞ্ছনায় কার দায়-গাফিলতি তদন্ত হচ্ছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ভারতে পাচার হওয়া ২৫ জন তরুণ-তরুণীকে বাংলাদেশ পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে

পদ্মা সেতু সফলভাবে সম্পন্ন করায় অভিনন্দন সৌদি রাষ্ট্রদূতের

ছবি

হজে গেলেন ৪৪ হাজারের বেশি বাংলাদেশী, মৃত্যু ৭

ছবি

‘ফাইজার’ এলে শিশুদের টিকা ‘জুলাইয়ের শেষে’

ছবি

সিলেটসহ বিভিন্ন অঞ্চলে ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস, ফের বন্যা অবনতির আশঙ্কা

ছবি

তৃতীয় দিনে পদ্মা সেতুর আদায়কৃত টোল ১ কোটি ৯৪ লাখ

ছবি

ইউরোপে আশ্রয় চেয়েছেন ২০ হাজার বাংলাদেশি

ছবি

ঈদুল আজহা কবে, জানা যাবে বৃহস্পতিবার

ছবি

টোল দিতে হবে না পোস্তগোলা ব্রিজে

পদ্মা সেতু: ‘অপমানের’ ক্ষতিপূরণ দিতে বললেন মোমেন

ছবি

মাস্ক পরা বাধ্যতামূলকসহ নতুন ৬ নির্দেশনা

ছবি

নড়াইলে শিক্ষক লাঞ্ছনা: জড়িতদের শাস্তি দাবি মানবাধিকার কমিশনের

ছবি

ইভিএম আলোচনা লিপিবন্ধ, সামর্থ্য দেখে সিদ্ধান্ত: সিইসি আউয়াল

ছবি

আবারো ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস

ছবি

৫ থেকে ১২ বছরের শিশুদেরকে শিগগিরই করোনা টিকা

ছবি

ইভিএমের ব্যবহার বাড়ানোর পরামর্শ আওয়ামী লীগের

ছবি

করোনায় শনাক্ত ২০৮৭, মৃত্যু ৩

ছবি

বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত সড়কে সেতু-উড়াল সড়ক নির্মাণ করুন: প্রধানমন্ত্রী

ছবি

শিশুদের টিকা নিতে সুরক্ষা অ্যাপে নিবন্ধন করতে হবে: স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

ছবি

একনেকে ১০ প্রকল্প অনুমোদন

ছবি

পদ্মা সেতু চালু : লঞ্চ মালিকরা এখন পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছেন

ছবি

পদ্মা সেতুতে বাইক বন্ধের পর কমেছে টোল আদায়

ছবি

সৌদি আরব পৌঁছেছেন ৪২ হাজার হজযাত্রী

দেশে ডেঙ্গু রোগী বাড়ছে

tab

জাতীয়

১১৬ আলেমের আর্থিক লেনদেন : অনুসন্ধান শুরু করলো দুদক

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

বৃহস্পতিবার, ২৩ জুন ২০২২

সন্দেহজনক আর্থিক লেনদেনের তদন্ত চেয়ে জমা দেওয়া গণকমিশনের অভিযোগ আমলে নিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি ও সংখ্যালঘুদের অধিকার নিয়ে কাজ করা ব্যক্তিদের উদ্যোগে ‘মৌলবাদী ও সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস তদন্তে গঠিত গণকমিশন’ সম্প্রতি ১১৬ আলেম ও ইসলামি বক্তার একটি তালিকা গত ১১ মে দুর্নীতি দমন কমিশনে জমা দেয়। তালিকায় স্থান পাওয়া ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে জঙ্গি অর্থায়ন এবং ওয়াজের মাধ্যমে ধর্মীয় সম্প্রীতি নষ্ট করা ও ধর্মের নামে ব্যবসার অভিযোগ আনে গণকমিশন। তারা ‘বাংলাদেশে মৌলবাদী সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসের ২০০০ দিন’ শীর্ষক শ্বেতপত্র প্রকাশ করে।

অনুসন্ধানে দুদকের পরিচালক সৈয়দ ইকবাল হোসেনের নেতৃত্বে তিন সদস্যের অনুসন্ধানকারী দল গঠন করা হয়েছে। এ–সংক্রান্ত একটি দাপ্তরিক চিঠি মঙ্গলবার তিন কর্মকর্তাকে পাঠানো হয়।

অনুসন্ধানের জন্য নিযুক্ত অন্য দুই কর্মকর্তা হলেন দুদকের উপপরিচালক মোহাম্মদ ইব্রাহীম ও উপপরিচালক মো. আহসানুল কবীর। দুদকের পরিচালক উত্তম কুমার মণ্ডল এ চিঠি পাঠান।

পরিচালকের চিঠিতে বলা হয়, ‘....গঠিত তিন সদস্যবিশিষ্ট টিমের মাধ্যমে বিশেষ অনুসন্ধান ও তদন্ত শাখা হতে অনুসন্ধানের সদয় অনুমোদন ও অনুসন্ধানের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য মহাপরিচালক (বিশেষ তদন্ত) বরাবর প্রেরণের জন্য কমিশন কর্তৃক সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে।’ চিঠির সঙ্গে ২ হাজার ২১৫ পাতার ‘বাংলাদেশে মৌলবাদী সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসের ২০০০ দিন’-এর তিন খণ্ড কর্মকর্তাদের কাছে পাঠানো হয়।

দুদকের দাপ্তরিক চিঠিতে দেখা যায়, ১২ মে দুদকের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মঈনউদ্দীন আবদুল্লাহ অভিযোগ পরীক্ষা-নিরীক্ষাপূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য মহাপরিচালক (দৈনিক ও সাম্প্রতিক অভিযোগ সেলে) পাঠান। পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে অভিযোগ অনুসন্ধানের সিদ্ধান্ত নেয় দুদক।

প্রসঙ্গত, গণকমিশনের শ্বেতপত্র নিয়ে বিভিন্ন মহলে প্রতিক্রিয়া দেখা দিলে ২১ মে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে এক অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন, গণকমিশনের আইনি কোনো ভিত্তি নেই। গণকমিশনের এই তালিকা সম্পর্কে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘যাঁদের নামে তাঁরা দুর্নীতির দায় দিচ্ছেন, এগুলো আমরা তদন্ত করিনি। দেখিও নাই। কাজেই এগুলো না দেখে বলতে পারব না। যে অভিযোগের সুনির্দিষ্ট প্রমাণ হবে না, সেই অভিযোগ কখনো আমলে নেওয়া হবে না।’

দুদক চেয়ারম্যানের কাছে শ্বেতপত্র তুলে দেওয়ার পর গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলেন মৌলবাদী ও সন্ত্রাস তদন্তে গণকমিশনের চেয়ারম্যান শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক

এর দুই দিন পর ২৩ মে ১১ জন আলেম একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি এবং বাংলাদেশে মৌলবাদী ও সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস তদন্ত কমিশন গণকমিশনের অর্থের উৎস এবং দুটি সংগঠনের সদস্যদের সম্পদের অনুসন্ধানের জন্য দুর্নীতি দমন কমিশনে স্মারকলিপি দেন। দুদকের সচিব মো. মাহবুব হোসেন এই স্মারকলিপি গ্রহণ করেন।

স্মারকলিপিতে ১৯৯২ সাল থেকে বর্তমান সময় পর্যন্ত একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির আয়-ব্যয়ের হিসাব ও তহবিলের উৎস সম্পর্কে অনুসন্ধান এবং কমিটির নেতাদের নামে থাকা সম্পদের উৎস ও আয়-ব্যয়ের হিসাব সম্পর্কে অনুসন্ধান করারও অনুরোধ জানানো হয়।

একই সঙ্গে গণকমিশনের চেয়ারম্যান বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক, সংসদ সদস্য রাশেদ খান মেনন ও হাসানুল হক ইনু, শিক্ষাবিদ মমতাজ লতিফ, লেখক ও সাংবাদিক শাহরিয়ার কবির, অধ্যাপক মুনতাসীর মামুন, মাওলানা জিয়াউল হাসান, কমিশনের সদস্যসচিব তুরিন আফরোজ, সমন্বয়কারী কাজী মুকুল, সদস্য আসাদুজ্জামান বাবু, নাদিয়া চৌধুরী, আবু সালেহ রনি, মাওলানা রফিক হাসান, সৈয়দ নুর আলম, শেখ আলী শাহ নেওয়াজসহ কমিশনের সঙ্গে যুক্ত অন্যদের সম্পদের উৎস, ব্যাংক হিসাব, স্থাবর-অস্থাবর সম্পদ সম্পর্কে অনুসন্ধানের জন্য পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান জানানো হয়।

back to top