alt

সম্পাদকীয়

মহান মে দিবস

: শুক্রবার, ৩০ এপ্রিল ২০২১

আন্তর্জাতিক শ্রমিক সংহতি দিবস হিসেবে ১ মে পালন করা শুরু হয় ১৮৯০ সাল থেকে। ইতিহাসের সঙ্গে জড়িয়ে আছে ১৮৮৬ সালের ৪ মে শিকাগোর হে মার্কেটে ৮ ঘণ্টা কাজের দাবিতে একটি শ্রমিক সমাবেশে সংঘটিত রক্তাক্ত ঘটনাবলি। পুলিশ সেদিন গুলি চালিয়ে ৫ শ্রমিককে হত্যা এবং শ্রমিক নেতাদের গ্রেপ্তার করে। সেদিন শ্রমিকরা শুধু ৮ ঘণ্টা কাজের দাবিতেই সমাবেশ আহ্বান করেননি, তার আগের দিন অর্থাৎ ৩ মে ধর্মঘটি শ্রমিকদের ওপর গুলি চালিয়ে পুলিশ এক শ্রমিককে হত্যা করেছিল, সেই শ্রমিক হত্যার প্রতিবাদ জানাতেও শ্রমিকরা এসেছিলেন ওই সমাবেশে।

শিকাগো শহরে ১৮৮৬ সালের ৪ মে’র শ্রমিক হত্যা ও শ্রমিকদের মৃত্যুদন্ড শ্রমিক আন্দোলনকে স্তব্ধ করতে পারেনি। ইউরোপে শ্রমিকদের সংগঠন দ্বিতীয় ইন্টারন্যাশনাল ১৮৮৯ সালে এক সম্মেলনে সিদ্ধান্ত নেয় যে, পরবর্তী বছর অর্থাৎ ১৮৯০ সাল থেকে শিকাগোর শ্রমিকদের আন্দোলনের দিনটি স্মরণীয় করে রাখার জন্য প্রতি বছর ১ মে আন্তর্জাতিক শ্রমিক সংহতি দিবস হিসেবে পালন করা হবে। এভাবেই প্রতি বছর পৃথিবীর দেশে দেশে শ্রমিক শ্রেণী তথা মেহনতি মানুষ মহান মে দিবস পালন করে আসছেন।

কালক্রমে শ্রমিকদের ৮ ঘণ্টা কাজের দাবি পৃথিবীব্যাপী স্বীকৃতি পায়। আইএলও সনদের শ্রমিকদের ৮ ঘণ্টা কাজের দাবি স্বীকৃতি পেয়েছে। এখন সেটা সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনেও ছড়িয়ে পড়েছে।

এখনও গার্মেন্টসহ অন্যান্য কারখানার শ্রমিকরা অনেক ক্ষেত্রে তাদের ন্যায্য মজুরি এবং অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত। ট্রেড ইউনিয়ন অধিকার এখনও নেই গার্মেন্টসহ বিভিন্ন শিল্প খাতে। রানা প্লাজার শ্রমিকদের ক্ষতিপূরণ এবং আহতদের পুনর্বাসন এখনও সম্পূর্ণ হয়নি। নিরাপদ শিল্প এখনও একশ’ ভাগ নিশ্চিত হয়নি। আজকের বাংলাদেশে নিরাপদ কর্মপরিবেশ একটি বড় ইস্যু সন্দেহ নেই। শিল্প ও শ্রমিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করার লড়াই হোক এবারের মে দিবসের ডাক।

‘দুনিয়ার মজদুর এক হও’ স্লোগানের মধ্যে একদিন এ দেশের মেহনতি মানুষ তার শক্তির সন্ধান পেত, এটা এখন অভ্যাসগত স্লোগানে পরিণত হয়েছে। বাস্তবে ক্ষুদ্রস্বার্থ, অসৎ উপায়ে অর্থাগম, রাজনৈতিক ও পেশীশক্তি প্রয়োগ ট্রেড ইউনিয়ন আন্দোলনকে বিপথগামী করছে এবং এক শ্রেণীর মধ্যস্বত্বভোগী গোষ্ঠীর জন্ম দিয়েছিল। তা বিশেষ কোন রাজনৈতিক দল, আদর্শ ও পক্ষের অনুসারী নয়। তার নির্ভরতা ও বিশ্বাস পেশিশক্তির ওপর, এদের মদতদাতা হলো রাজনৈতিক অঙ্গনের সন্ত্রাসী শক্তি, যারা দায়বদ্ধ অর্থ ও ক্ষমতার কাছে। এ অবস্থা থেকে শ্রমিক শ্রেণীর স্বার্থরক্ষাকারী সংগঠন ট্রেড ইউনিয়নকে উদ্ধার করাই এবারের মহান মে দিবসের সংকল্প হওয়া জরুরি হয়ে দেখা দিয়েছে। বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও শিল্প বিকাশের স্বার্থে দুর্নীতিমুক্ত ট্রেড ইউনিয়ন সংগঠন গড়ে তোলা, বন্ধ কারখানা চালু করার আন্দোলন আজকের দিবসের দাবি।

মহান মে দিবসটি পালনের জন্য আমরা সবার সঙ্গে মিলে ও সবার শুভবুদ্ধির সঙ্গে হাত মিলিয়ে সেই পথের যাত্রী হবো, আর তখনই ‘দুনিয়ার মজদুর এক হও’ স্লোগানের সার্থকতা এই বিশ্বায়নের যুগে এক নতুন মাত্রা যুক্ত করবে।

জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধনে হয়রানি বন্ধ করুন

সীমান্তে করোনার সংক্রমণ কার উদাসীনতায়?

শিশুশ্রম : শ্রম আর ঘামে শৈশব যেন চুরি না হয়

মডেল মসজিদ প্রসঙ্গে

ঢাকার বাসযোগ্যতার আরেকটি করুণ চিত্র

পুঁজিবাজারে কারসাজি বন্ধে বিএসইসিকে কঠোর হতে হবে

উপকারভোগী নির্বাচন প্রক্রিয়া হতে হবে স্বচ্ছ

পাহাড়-বন কেটে আবার কেন রোহিঙ্গা ক্যাম্প

নিরীহ মানুষকে ফাঁসিয়ে মাদক নির্মূল করা যাবে না

গ্যাং কালচার থেকে শিশু-কিশোরদের ফেরাতে হবে

নিরাপদ খাদ্য প্রসঙ্গে

বস্তিতে আগুন : পুনরাবৃত্তি রোধে চাই বিদ্যুৎ-গ্যাসের বৈধ সংযোগ

নদী দূষণ বন্ধে চাই জোরালো উদ্যোগ

উদাসীন হলে চড়া মূল্য দিতে হবে

সমবায় সমিতির নামে প্রতারণার বিহিত করুন

নিত্যপণ্যের দাম বাড়ছে কোন কারণে

পুরান ঢাকা থেকে রাসায়নিকের গুদামগুলো সরিয়ে নিন

টিকা দেয়ার পরিকল্পনায় গলদ থাকলে ‘হার্ড ইমিউনিটি’ অর্জন করা সম্ভব হবে না

প্রকল্পের মেয়াদ ও ব্যয় বাড়ানোর মিছিলে ওয়াসা

সীমান্তবর্তী এলাকায় বাড়ছে করোনার সংক্রমণ : স্বাস্থ্যবিধিতে ছাড় নয়

জলাবদ্ধতা থেকে রাজধানীবাসীর মুক্তি মিলবে কবে

বাজেট : প্রাণ আর পেটের দায় মেটানোর অভিলাষ কি পূরণ হবে

মাদক নির্মূলে জিরো টলারেন্স নীতির কঠোর বাস্তবায়ন জরুরি

গৃহহীনদের ঘর নির্মাণে অনিয়ম-দুর্নীতি বন্ধ করুন

পদ্মা সেতুসংলগ্ন এলাকায় বালু তোলা বন্ধ করুন

পদ্মা সেতুসংলগ্ন এলাকায় বালু তোলা বন্ধ করুন

গ্যাসকূপ খননে বাপেক্স কেন নয়

বরাদ্দ ব্যয়ে স্বাস্থ্য বিভাগের সক্ষমতা বাড়াতে হবে

সিলেটে দফায় দফায় ভূমিকম্প : সতর্ক থাকতে হবে

অনলাইন ব্যবসায় প্রতারণা বন্ধে আইনি ব্যবস্থা নিন

কার স্বার্থে বারবার কালোটাকা সাদা করার সুযোগ দেয়া হচ্ছে

মানুষ ও বন্যপ্রাণী উভয়কেই রক্ষা করতে হবে

উপকূলীয় অঞ্চলে টেকসই বাঁধ নির্মাণ করা হোক

করোনার পরীক্ষায় প্রতারণা প্রসঙ্গে

এখনও ডায়রিয়ায় ভুগছে মানুষ প্রতিরোধে চাই সচেতনতা

সীমান্তে শিথিল স্বাস্থ্যবিধি কঠোর হোন

tab

সম্পাদকীয়

মহান মে দিবস

শুক্রবার, ৩০ এপ্রিল ২০২১

আন্তর্জাতিক শ্রমিক সংহতি দিবস হিসেবে ১ মে পালন করা শুরু হয় ১৮৯০ সাল থেকে। ইতিহাসের সঙ্গে জড়িয়ে আছে ১৮৮৬ সালের ৪ মে শিকাগোর হে মার্কেটে ৮ ঘণ্টা কাজের দাবিতে একটি শ্রমিক সমাবেশে সংঘটিত রক্তাক্ত ঘটনাবলি। পুলিশ সেদিন গুলি চালিয়ে ৫ শ্রমিককে হত্যা এবং শ্রমিক নেতাদের গ্রেপ্তার করে। সেদিন শ্রমিকরা শুধু ৮ ঘণ্টা কাজের দাবিতেই সমাবেশ আহ্বান করেননি, তার আগের দিন অর্থাৎ ৩ মে ধর্মঘটি শ্রমিকদের ওপর গুলি চালিয়ে পুলিশ এক শ্রমিককে হত্যা করেছিল, সেই শ্রমিক হত্যার প্রতিবাদ জানাতেও শ্রমিকরা এসেছিলেন ওই সমাবেশে।

শিকাগো শহরে ১৮৮৬ সালের ৪ মে’র শ্রমিক হত্যা ও শ্রমিকদের মৃত্যুদন্ড শ্রমিক আন্দোলনকে স্তব্ধ করতে পারেনি। ইউরোপে শ্রমিকদের সংগঠন দ্বিতীয় ইন্টারন্যাশনাল ১৮৮৯ সালে এক সম্মেলনে সিদ্ধান্ত নেয় যে, পরবর্তী বছর অর্থাৎ ১৮৯০ সাল থেকে শিকাগোর শ্রমিকদের আন্দোলনের দিনটি স্মরণীয় করে রাখার জন্য প্রতি বছর ১ মে আন্তর্জাতিক শ্রমিক সংহতি দিবস হিসেবে পালন করা হবে। এভাবেই প্রতি বছর পৃথিবীর দেশে দেশে শ্রমিক শ্রেণী তথা মেহনতি মানুষ মহান মে দিবস পালন করে আসছেন।

কালক্রমে শ্রমিকদের ৮ ঘণ্টা কাজের দাবি পৃথিবীব্যাপী স্বীকৃতি পায়। আইএলও সনদের শ্রমিকদের ৮ ঘণ্টা কাজের দাবি স্বীকৃতি পেয়েছে। এখন সেটা সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনেও ছড়িয়ে পড়েছে।

এখনও গার্মেন্টসহ অন্যান্য কারখানার শ্রমিকরা অনেক ক্ষেত্রে তাদের ন্যায্য মজুরি এবং অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত। ট্রেড ইউনিয়ন অধিকার এখনও নেই গার্মেন্টসহ বিভিন্ন শিল্প খাতে। রানা প্লাজার শ্রমিকদের ক্ষতিপূরণ এবং আহতদের পুনর্বাসন এখনও সম্পূর্ণ হয়নি। নিরাপদ শিল্প এখনও একশ’ ভাগ নিশ্চিত হয়নি। আজকের বাংলাদেশে নিরাপদ কর্মপরিবেশ একটি বড় ইস্যু সন্দেহ নেই। শিল্প ও শ্রমিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করার লড়াই হোক এবারের মে দিবসের ডাক।

‘দুনিয়ার মজদুর এক হও’ স্লোগানের মধ্যে একদিন এ দেশের মেহনতি মানুষ তার শক্তির সন্ধান পেত, এটা এখন অভ্যাসগত স্লোগানে পরিণত হয়েছে। বাস্তবে ক্ষুদ্রস্বার্থ, অসৎ উপায়ে অর্থাগম, রাজনৈতিক ও পেশীশক্তি প্রয়োগ ট্রেড ইউনিয়ন আন্দোলনকে বিপথগামী করছে এবং এক শ্রেণীর মধ্যস্বত্বভোগী গোষ্ঠীর জন্ম দিয়েছিল। তা বিশেষ কোন রাজনৈতিক দল, আদর্শ ও পক্ষের অনুসারী নয়। তার নির্ভরতা ও বিশ্বাস পেশিশক্তির ওপর, এদের মদতদাতা হলো রাজনৈতিক অঙ্গনের সন্ত্রাসী শক্তি, যারা দায়বদ্ধ অর্থ ও ক্ষমতার কাছে। এ অবস্থা থেকে শ্রমিক শ্রেণীর স্বার্থরক্ষাকারী সংগঠন ট্রেড ইউনিয়নকে উদ্ধার করাই এবারের মহান মে দিবসের সংকল্প হওয়া জরুরি হয়ে দেখা দিয়েছে। বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও শিল্প বিকাশের স্বার্থে দুর্নীতিমুক্ত ট্রেড ইউনিয়ন সংগঠন গড়ে তোলা, বন্ধ কারখানা চালু করার আন্দোলন আজকের দিবসের দাবি।

মহান মে দিবসটি পালনের জন্য আমরা সবার সঙ্গে মিলে ও সবার শুভবুদ্ধির সঙ্গে হাত মিলিয়ে সেই পথের যাত্রী হবো, আর তখনই ‘দুনিয়ার মজদুর এক হও’ স্লোগানের সার্থকতা এই বিশ্বায়নের যুগে এক নতুন মাত্রা যুক্ত করবে।

back to top