alt

সম্পাদকীয়

রায়হান হত্যা মামলার চার্জশিট প্রসঙ্গে

: বৃহস্পতিবার, ০৬ মে ২০২১

সিলেটের বন্দরবাজার ফাঁড়িতে পুলিশি নির্যাতনে রায়হান আহমদের মৃত্যুর অভিযোগে করা মামলায় পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) চার্জশিট দিয়েছে। সেখানে ছয়জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছে। ভিকটিমের মা সালমা বেগম বলেছেন, আসামিদের সর্বোচ্চ সাজা দেয়ার মতো চার্জশিট দেয়া হলে তারা দীর্ঘ অপেক্ষা সার্থক হবে। তবে চার্জশিটে পুলিশ সদস্যদের রক্ষার জন্য তার ছেলের বিরুদ্ধে বানোয়াট তথ্য দেয়া হয়েছে বলে তিনি অভিযোগ করেন।

পিবিআই পুলিশ সুপার খালেদ-উজ-জামান গণমাধ্যমকে বলছেন, তদন্তে যে ছয়জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে তাদের মধ্যে পুলিশ সদস্য পাঁচজন। পরে বিষয়গুলো আদালতে নিষ্পত্তি হবে।

রায়হান আহমদকে গত বছর ১১ অক্টোবরে সিলেটের বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়িতে নিয়ে নির্যাতন করা হয়। পুলিশি নির্যাতনে মৃত্যুর ঘটনায় সিলেট উত্তাল হয়ে উঠেছিল, দেশজুড়ে সমালোচনা হয়েছিল। নির্যাতন ও হত্যার অভিযোগে অভিযুক্তদের গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবিতে দেশের অনেক স্থানে তখন বিক্ষোভ-আন্দোলন হয়েছে। এর প্রেক্ষিতে ৫ জনকে গ্রেপ্তার করে জেলহাজতে রাখা হয়। ঘটনার প্রায় সাত মাস পর চার্জশিট দেয়া হলো। তদন্তে বেশি সময় লাগার কারণে সমালোচনা হয়েছে। তদন্ত কর্মকর্তারা বলছেন, সুষ্ঠু তদন্ত করতে গিয়ে সময় বেশি লেগেছে। ভিকটিমের স্বজনরা চার্জশিট নিয়ে পুরোপুরি সন্তুষ্ট না হওয়ায় এ নিয়ে বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে। যদিও তদন্তসংশ্লিষ্ট কর্তাব্যক্তিরা বলছেন যে, মামলার আসামি পুলিশ হওয়ায় একটি নির্ভুল, ত্রুটিমুক্ত ও গ্রহণযোগ্য অভিযোগপত্র তৈরি করার কাজে তারা বেশি যতœবান ছিলেন। তারা মনে করছেন, আসামিদের আইন অনুযায়ী সর্বোচ্চ শাস্তি হবে।

পুলিশ হেফাজতে কারও এমন মৃত্যু কাম্য নয়। রায়হানকে যারা নির্মমভাবে নির্যাতন করেছে, তার মৃত্যুর জন্য যারা দায়ী তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হচ্ছে সেটা আমরা দেখতে চাই। অভিযুক্তরা কোন বাহিনীর সদস্য বলে যেন পার পেয়ে না যায় সেটা নিশ্চিত করতে হবে। সুষ্ঠু বিচার হলেই শুধু সব বিতর্কের অবসান হবে।

জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধনে হয়রানি বন্ধ করুন

সীমান্তে করোনার সংক্রমণ কার উদাসীনতায়?

শিশুশ্রম : শ্রম আর ঘামে শৈশব যেন চুরি না হয়

মডেল মসজিদ প্রসঙ্গে

ঢাকার বাসযোগ্যতার আরেকটি করুণ চিত্র

পুঁজিবাজারে কারসাজি বন্ধে বিএসইসিকে কঠোর হতে হবে

উপকারভোগী নির্বাচন প্রক্রিয়া হতে হবে স্বচ্ছ

পাহাড়-বন কেটে আবার কেন রোহিঙ্গা ক্যাম্প

নিরীহ মানুষকে ফাঁসিয়ে মাদক নির্মূল করা যাবে না

গ্যাং কালচার থেকে শিশু-কিশোরদের ফেরাতে হবে

নিরাপদ খাদ্য প্রসঙ্গে

বস্তিতে আগুন : পুনরাবৃত্তি রোধে চাই বিদ্যুৎ-গ্যাসের বৈধ সংযোগ

নদী দূষণ বন্ধে চাই জোরালো উদ্যোগ

উদাসীন হলে চড়া মূল্য দিতে হবে

সমবায় সমিতির নামে প্রতারণার বিহিত করুন

নিত্যপণ্যের দাম বাড়ছে কোন কারণে

পুরান ঢাকা থেকে রাসায়নিকের গুদামগুলো সরিয়ে নিন

টিকা দেয়ার পরিকল্পনায় গলদ থাকলে ‘হার্ড ইমিউনিটি’ অর্জন করা সম্ভব হবে না

প্রকল্পের মেয়াদ ও ব্যয় বাড়ানোর মিছিলে ওয়াসা

সীমান্তবর্তী এলাকায় বাড়ছে করোনার সংক্রমণ : স্বাস্থ্যবিধিতে ছাড় নয়

জলাবদ্ধতা থেকে রাজধানীবাসীর মুক্তি মিলবে কবে

বাজেট : প্রাণ আর পেটের দায় মেটানোর অভিলাষ কি পূরণ হবে

মাদক নির্মূলে জিরো টলারেন্স নীতির কঠোর বাস্তবায়ন জরুরি

গৃহহীনদের ঘর নির্মাণে অনিয়ম-দুর্নীতি বন্ধ করুন

পদ্মা সেতুসংলগ্ন এলাকায় বালু তোলা বন্ধ করুন

পদ্মা সেতুসংলগ্ন এলাকায় বালু তোলা বন্ধ করুন

গ্যাসকূপ খননে বাপেক্স কেন নয়

বরাদ্দ ব্যয়ে স্বাস্থ্য বিভাগের সক্ষমতা বাড়াতে হবে

সিলেটে দফায় দফায় ভূমিকম্প : সতর্ক থাকতে হবে

অনলাইন ব্যবসায় প্রতারণা বন্ধে আইনি ব্যবস্থা নিন

কার স্বার্থে বারবার কালোটাকা সাদা করার সুযোগ দেয়া হচ্ছে

মানুষ ও বন্যপ্রাণী উভয়কেই রক্ষা করতে হবে

উপকূলীয় অঞ্চলে টেকসই বাঁধ নির্মাণ করা হোক

করোনার পরীক্ষায় প্রতারণা প্রসঙ্গে

এখনও ডায়রিয়ায় ভুগছে মানুষ প্রতিরোধে চাই সচেতনতা

সীমান্তে শিথিল স্বাস্থ্যবিধি কঠোর হোন

tab

সম্পাদকীয়

রায়হান হত্যা মামলার চার্জশিট প্রসঙ্গে

বৃহস্পতিবার, ০৬ মে ২০২১

সিলেটের বন্দরবাজার ফাঁড়িতে পুলিশি নির্যাতনে রায়হান আহমদের মৃত্যুর অভিযোগে করা মামলায় পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) চার্জশিট দিয়েছে। সেখানে ছয়জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছে। ভিকটিমের মা সালমা বেগম বলেছেন, আসামিদের সর্বোচ্চ সাজা দেয়ার মতো চার্জশিট দেয়া হলে তারা দীর্ঘ অপেক্ষা সার্থক হবে। তবে চার্জশিটে পুলিশ সদস্যদের রক্ষার জন্য তার ছেলের বিরুদ্ধে বানোয়াট তথ্য দেয়া হয়েছে বলে তিনি অভিযোগ করেন।

পিবিআই পুলিশ সুপার খালেদ-উজ-জামান গণমাধ্যমকে বলছেন, তদন্তে যে ছয়জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে তাদের মধ্যে পুলিশ সদস্য পাঁচজন। পরে বিষয়গুলো আদালতে নিষ্পত্তি হবে।

রায়হান আহমদকে গত বছর ১১ অক্টোবরে সিলেটের বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়িতে নিয়ে নির্যাতন করা হয়। পুলিশি নির্যাতনে মৃত্যুর ঘটনায় সিলেট উত্তাল হয়ে উঠেছিল, দেশজুড়ে সমালোচনা হয়েছিল। নির্যাতন ও হত্যার অভিযোগে অভিযুক্তদের গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবিতে দেশের অনেক স্থানে তখন বিক্ষোভ-আন্দোলন হয়েছে। এর প্রেক্ষিতে ৫ জনকে গ্রেপ্তার করে জেলহাজতে রাখা হয়। ঘটনার প্রায় সাত মাস পর চার্জশিট দেয়া হলো। তদন্তে বেশি সময় লাগার কারণে সমালোচনা হয়েছে। তদন্ত কর্মকর্তারা বলছেন, সুষ্ঠু তদন্ত করতে গিয়ে সময় বেশি লেগেছে। ভিকটিমের স্বজনরা চার্জশিট নিয়ে পুরোপুরি সন্তুষ্ট না হওয়ায় এ নিয়ে বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে। যদিও তদন্তসংশ্লিষ্ট কর্তাব্যক্তিরা বলছেন যে, মামলার আসামি পুলিশ হওয়ায় একটি নির্ভুল, ত্রুটিমুক্ত ও গ্রহণযোগ্য অভিযোগপত্র তৈরি করার কাজে তারা বেশি যতœবান ছিলেন। তারা মনে করছেন, আসামিদের আইন অনুযায়ী সর্বোচ্চ শাস্তি হবে।

পুলিশ হেফাজতে কারও এমন মৃত্যু কাম্য নয়। রায়হানকে যারা নির্মমভাবে নির্যাতন করেছে, তার মৃত্যুর জন্য যারা দায়ী তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হচ্ছে সেটা আমরা দেখতে চাই। অভিযুক্তরা কোন বাহিনীর সদস্য বলে যেন পার পেয়ে না যায় সেটা নিশ্চিত করতে হবে। সুষ্ঠু বিচার হলেই শুধু সব বিতর্কের অবসান হবে।

back to top