alt

সম্পাদকীয়

অনলাইন ব্যবসায় প্রতারণা বন্ধে আইনি ব্যবস্থা নিন

: রোববার, ৩০ মে ২০২১

অনলাইনের মাধ্যমে সাশ্রয়ী দামে গ্রাহক পর্যায়ে সরাসরি পণ্য পৌঁছে দিতে দেশে জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে ই-কমার্স ব্যবসা। তবে এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে কিছু স্বার্থান্বেষী চক্র গ্রাহকদের সঙ্গে প্রতারণা করছে। চাহিদা অনুযায়ী কাক্সিক্ষত পণ্য সরবরাহ না করা এবং করলেও নিম্নমানের পণ্য সরবরাহ করার ঘটনা প্রতিনিয়ত ঘটে চলছে। এছাড়া প্রি-অর্ডারের নামে ক্রেতাদের কাছ থেকে অগ্রিম টাকা নেয়া হচ্ছে। কিন্তু পণ্য সরবরাহ করা হচ্ছে না। অনলাইন উদ্যোক্তাদের সংগঠন ই-ক্যাবও বলছে, কিছু কিছু ক্ষেত্রে প্রতারণা হচ্ছে। ক্রেতারা প্রতারিত হচ্ছেন। সময়মতো ও সঠিক পণ্য ক্রেতারা পাচ্ছেন না।

অনলাইনে পণ্য কেনাবেচায় প্রতারণার খবরটি উদ্বেগজনক। এ অনাচার অনেক দিন ধরেই চলছে। তবে করোনাকালে এর হার বেড়েছে। বিধিনিষেধের কারণে গৃহবন্দী মানুষের পক্ষে প্রয়োজনীয় বা পছন্দের পণ্যটি যখন বাজারে গিয়ে কেনা সম্ভব হচ্ছে না, তখন তিনি তা অর্ডার করছেন অনলাইনে। কিন্তু যে পণ্যটি অর্ডার করা হচ্ছে, প্রতারকরা সেটি না দিয়ে দিচ্ছে নিম্নমানের বা অর্ডারের সঙ্গে সামঞ্জস্যহীন আরেকটি পণ্য।

এ ধরনের প্রতারণা বন্ধে প্রয়োজন ভোক্তা অধিকার আইনে দ্রুত বিচার নিশ্চিত করা। যারা অনলাইন ব্যবসার নামে প্রতারণা করছেন, তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে। এতে অনলাইন কেনাকাটায় মানুষের আস্থা ফিরে আসবে। তবে এটাও দেখতে হবে যে, কড়া নিয়ম ও বিধিবিধানের কারণে ভালো উদ্যোক্তাদের যেন কোন সমস্যা না হয়।

অনলাইনে পণ্য কেনাকাটায় প্রথমেই যা প্রয়োজন তা হলো সচেতনতা। কোন আকর্ষণীয় বা লোভনীয় বিজ্ঞাপন দেখেই হুট করে অর্ডার করা থেকে বিরত থাকতে হবে। প্রথমেই প্রতিষ্ঠানের নাম-ঠিকানা এবং মালিকের নাম-ঠিকানায় সামঞ্জস্য আছে কিনা তা ভালোভাবে দেখতে হবে। অনেক অনলাইন প্রতিষ্ঠান ট্রেড লাইসেন্স নিয়ে ব্যবসা পরিচালনা করে। ওয়েবসাইটে ট্রেড লাইসেন্সের কপি আছে কিনা তা দেখতে হবে। যদি না থাকে তাহলে ট্রেড লাইসেন্স করা আছে কিনা তা জেনে নিতে হবে।

শিশুশ্রম : শ্রম আর ঘামে শৈশব যেন চুরি না হয়

মডেল মসজিদ প্রসঙ্গে

ঢাকার বাসযোগ্যতার আরেকটি করুণ চিত্র

পুঁজিবাজারে কারসাজি বন্ধে বিএসইসিকে কঠোর হতে হবে

উপকারভোগী নির্বাচন প্রক্রিয়া হতে হবে স্বচ্ছ

পাহাড়-বন কেটে আবার কেন রোহিঙ্গা ক্যাম্প

নিরীহ মানুষকে ফাঁসিয়ে মাদক নির্মূল করা যাবে না

গ্যাং কালচার থেকে শিশু-কিশোরদের ফেরাতে হবে

নিরাপদ খাদ্য প্রসঙ্গে

বস্তিতে আগুন : পুনরাবৃত্তি রোধে চাই বিদ্যুৎ-গ্যাসের বৈধ সংযোগ

নদী দূষণ বন্ধে চাই জোরালো উদ্যোগ

উদাসীন হলে চড়া মূল্য দিতে হবে

সমবায় সমিতির নামে প্রতারণার বিহিত করুন

নিত্যপণ্যের দাম বাড়ছে কোন কারণে

পুরান ঢাকা থেকে রাসায়নিকের গুদামগুলো সরিয়ে নিন

টিকা দেয়ার পরিকল্পনায় গলদ থাকলে ‘হার্ড ইমিউনিটি’ অর্জন করা সম্ভব হবে না

প্রকল্পের মেয়াদ ও ব্যয় বাড়ানোর মিছিলে ওয়াসা

সীমান্তবর্তী এলাকায় বাড়ছে করোনার সংক্রমণ : স্বাস্থ্যবিধিতে ছাড় নয়

জলাবদ্ধতা থেকে রাজধানীবাসীর মুক্তি মিলবে কবে

বাজেট : প্রাণ আর পেটের দায় মেটানোর অভিলাষ কি পূরণ হবে

মাদক নির্মূলে জিরো টলারেন্স নীতির কঠোর বাস্তবায়ন জরুরি

গৃহহীনদের ঘর নির্মাণে অনিয়ম-দুর্নীতি বন্ধ করুন

পদ্মা সেতুসংলগ্ন এলাকায় বালু তোলা বন্ধ করুন

পদ্মা সেতুসংলগ্ন এলাকায় বালু তোলা বন্ধ করুন

গ্যাসকূপ খননে বাপেক্স কেন নয়

বরাদ্দ ব্যয়ে স্বাস্থ্য বিভাগের সক্ষমতা বাড়াতে হবে

সিলেটে দফায় দফায় ভূমিকম্প : সতর্ক থাকতে হবে

কার স্বার্থে বারবার কালোটাকা সাদা করার সুযোগ দেয়া হচ্ছে

মানুষ ও বন্যপ্রাণী উভয়কেই রক্ষা করতে হবে

উপকূলীয় অঞ্চলে টেকসই বাঁধ নির্মাণ করা হোক

করোনার পরীক্ষায় প্রতারণা প্রসঙ্গে

এখনও ডায়রিয়ায় ভুগছে মানুষ প্রতিরোধে চাই সচেতনতা

সীমান্তে শিথিল স্বাস্থ্যবিধি কঠোর হোন

ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্তদের দ্রুত পুনর্বাসন করুন

পানির দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত অমানবিক

আতঙ্ক নয়, চাই সতর্কতা

tab

সম্পাদকীয়

অনলাইন ব্যবসায় প্রতারণা বন্ধে আইনি ব্যবস্থা নিন

রোববার, ৩০ মে ২০২১

অনলাইনের মাধ্যমে সাশ্রয়ী দামে গ্রাহক পর্যায়ে সরাসরি পণ্য পৌঁছে দিতে দেশে জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে ই-কমার্স ব্যবসা। তবে এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে কিছু স্বার্থান্বেষী চক্র গ্রাহকদের সঙ্গে প্রতারণা করছে। চাহিদা অনুযায়ী কাক্সিক্ষত পণ্য সরবরাহ না করা এবং করলেও নিম্নমানের পণ্য সরবরাহ করার ঘটনা প্রতিনিয়ত ঘটে চলছে। এছাড়া প্রি-অর্ডারের নামে ক্রেতাদের কাছ থেকে অগ্রিম টাকা নেয়া হচ্ছে। কিন্তু পণ্য সরবরাহ করা হচ্ছে না। অনলাইন উদ্যোক্তাদের সংগঠন ই-ক্যাবও বলছে, কিছু কিছু ক্ষেত্রে প্রতারণা হচ্ছে। ক্রেতারা প্রতারিত হচ্ছেন। সময়মতো ও সঠিক পণ্য ক্রেতারা পাচ্ছেন না।

অনলাইনে পণ্য কেনাবেচায় প্রতারণার খবরটি উদ্বেগজনক। এ অনাচার অনেক দিন ধরেই চলছে। তবে করোনাকালে এর হার বেড়েছে। বিধিনিষেধের কারণে গৃহবন্দী মানুষের পক্ষে প্রয়োজনীয় বা পছন্দের পণ্যটি যখন বাজারে গিয়ে কেনা সম্ভব হচ্ছে না, তখন তিনি তা অর্ডার করছেন অনলাইনে। কিন্তু যে পণ্যটি অর্ডার করা হচ্ছে, প্রতারকরা সেটি না দিয়ে দিচ্ছে নিম্নমানের বা অর্ডারের সঙ্গে সামঞ্জস্যহীন আরেকটি পণ্য।

এ ধরনের প্রতারণা বন্ধে প্রয়োজন ভোক্তা অধিকার আইনে দ্রুত বিচার নিশ্চিত করা। যারা অনলাইন ব্যবসার নামে প্রতারণা করছেন, তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে। এতে অনলাইন কেনাকাটায় মানুষের আস্থা ফিরে আসবে। তবে এটাও দেখতে হবে যে, কড়া নিয়ম ও বিধিবিধানের কারণে ভালো উদ্যোক্তাদের যেন কোন সমস্যা না হয়।

অনলাইনে পণ্য কেনাকাটায় প্রথমেই যা প্রয়োজন তা হলো সচেতনতা। কোন আকর্ষণীয় বা লোভনীয় বিজ্ঞাপন দেখেই হুট করে অর্ডার করা থেকে বিরত থাকতে হবে। প্রথমেই প্রতিষ্ঠানের নাম-ঠিকানা এবং মালিকের নাম-ঠিকানায় সামঞ্জস্য আছে কিনা তা ভালোভাবে দেখতে হবে। অনেক অনলাইন প্রতিষ্ঠান ট্রেড লাইসেন্স নিয়ে ব্যবসা পরিচালনা করে। ওয়েবসাইটে ট্রেড লাইসেন্সের কপি আছে কিনা তা দেখতে হবে। যদি না থাকে তাহলে ট্রেড লাইসেন্স করা আছে কিনা তা জেনে নিতে হবে।

back to top