alt

সম্পাদকীয়

বস্তিতে আগুন : পুনরাবৃত্তি রোধে চাই বিদ্যুৎ-গ্যাসের বৈধ সংযোগ

: মঙ্গলবার, ০৮ জুন ২০২১

বছর না ঘুরতেই আবারও রাজধানীর মহাখালীর সাততলা বস্তিতে আগুন লাগল। গত বছর নভেম্বরে সেখানে আগুন লেগেছিল। তার আগেও ঐ বস্তিতে বেশ কয়েকবার আগুন লেগেছে। ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের তথ্য অনুযায়ী, অতীতে বস্তিটিতে অগ্নিকান্ডের সূত্রপাত হয়েছিল বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট থেকে। এবারও বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট থেকে অগ্নিকান্ডের সূত্রপাত হতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। গ্যাস সংযোগের লিকেজ থেকে অগ্নিকান্ডের ধারণাও উড়িয়ে দেয়া যাচ্ছে না।

অগ্নিকান্ডের কারণ অনুসন্ধানে কমিটি গঠন করা হয়েছে। আমরা আশা করব, সুষ্ঠু তদন্তে অগ্নিকান্ডের কারণ উদ্ঘাটিত হবে। প্রশ্ন হচ্ছে, অগ্নিকান্ডের কারণ উদ্ঘাটন হলে তাতে বস্তিবাসীর কী কল্যাণ হবে। বস্তিতে বিদ্যুৎ আছে, গ্যাস আছে কিন্তু এর কোনটিই বৈধ নয়। তবে বস্তিবাসী এসব নাগরিক সুবিধার জন্য মূল্য ঠিকই দিচ্ছেন। তবে সেই মূল্য তারা কাকে দিচ্ছেন, কোথা থেকে কীভাবে বস্তিতে অবৈধ সংযোগ গেল সেটা আরেক প্রশ্ন। বাস্তবতা হচ্ছে, বিদ্যুৎ-গ্যাস ছাড়া নগরে বসবাস করা সম্ভব নয়। বস্তির বাসিন্দারা কেন বৈধ সংযোগ পাচ্ছেন না সেটা আমরা জানতে চাইব। সেখানে থাকা সংযোগগুলো বৈধ করা হলে সেগুলো সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার অধীনে আনা গেলে বস্তিবাসীর জীবন আর অর্থ দুইই যেমন বাঁচে, তেমন সরকারের রাজস্বও বাড়ে। পাশাপাশি দেশের সব বস্তিতে অগ্নিনির্বাপণের ব্যবস্থাও রাখতে হবে।

গতকাল সোমবার লাগা আগুনে সাততলা বস্তির একশ’র বেশি ঘর পুড়ে গেছে, সর্বস্বান্ত হয়েছে বস্তির বহু বাসিন্দা। দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসা নিরুপায় মানুষ অগ্নিকান্ডে সহায়-সম্বল হারিয়ে দিশেহারা। এসব মানুষের পাশে সরকারকে দাঁড়াতে হবে। ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্ত প্রতিটি পরিবারকে ৫ হাজার টাকা, টিন ও ত্রাণ দেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। আমরা এ ঘোষণার দ্রুত বাস্তবায়ন দেখতে চাই। বস্তিবাসীর জন্য স্থায়ী আবাসন করার কথা বলেছে সরকার। এ সংক্রান্ত কয়েকটি প্রকল্প এখন চলমান। আমরা চাইব, প্রকল্পগুলো দ্রুত বাস্তবায়ন হবে। প্রকল্প শেষে যেন প্রকৃত বস্তিবাসী ঘর পান সেটা নিশ্চত করতে হবে। এক্ষেত্রে কোন অনিয়ম-দুর্নীতি কাম্য নয়।

রাজধানীর বৃত্তাকার নৌপথে চলুক ওয়াটার বাস

ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের দুর্দশা দূর করুন

সাইবার বুলিং প্রতিরোধে আইনের প্রয়োগ ও সচেতনতা জরুরি

শিশুটিকে হত্যা করল কে

উপকূলে দ্রুত টেকসই বাঁধ নির্মাণ করুন

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে জাতিসংঘকে দৃশ্যমান ভূমিকা রাখতে হবে

বুড়িগঙ্গার আদি চ্যানেলে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ, নিয়মিত নজরদারি চালাতে হবে

সুন্দরবনের বিস্তৃতি প্রসঙ্গে

জলাবদ্ধতা থেকে ফতুল্লাবাসীকে মুক্তি দিন

থামছে না মানব পাচার : গডফাদারদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

জি-৭ নেতাদের টিকা দেয়ার প্রতিশ্রুতি প্রসঙ্গে

অগ্রহণযোগ্য

অবৈধ দখল উচ্ছেদ না করে সীমানা খুঁটি কার স্বার্থে

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা থাকতে হবে

জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধনে হয়রানি বন্ধ করুন

সীমান্তে করোনার সংক্রমণ কার উদাসীনতায়?

শিশুশ্রম : শ্রম আর ঘামে শৈশব যেন চুরি না হয়

মডেল মসজিদ প্রসঙ্গে

ঢাকার বাসযোগ্যতার আরেকটি করুণ চিত্র

পুঁজিবাজারে কারসাজি বন্ধে বিএসইসিকে কঠোর হতে হবে

উপকারভোগী নির্বাচন প্রক্রিয়া হতে হবে স্বচ্ছ

পাহাড়-বন কেটে আবার কেন রোহিঙ্গা ক্যাম্প

নিরীহ মানুষকে ফাঁসিয়ে মাদক নির্মূল করা যাবে না

গ্যাং কালচার থেকে শিশু-কিশোরদের ফেরাতে হবে

নিরাপদ খাদ্য প্রসঙ্গে

নদী দূষণ বন্ধে চাই জোরালো উদ্যোগ

উদাসীন হলে চড়া মূল্য দিতে হবে

সমবায় সমিতির নামে প্রতারণার বিহিত করুন

নিত্যপণ্যের দাম বাড়ছে কোন কারণে

পুরান ঢাকা থেকে রাসায়নিকের গুদামগুলো সরিয়ে নিন

টিকা দেয়ার পরিকল্পনায় গলদ থাকলে ‘হার্ড ইমিউনিটি’ অর্জন করা সম্ভব হবে না

প্রকল্পের মেয়াদ ও ব্যয় বাড়ানোর মিছিলে ওয়াসা

সীমান্তবর্তী এলাকায় বাড়ছে করোনার সংক্রমণ : স্বাস্থ্যবিধিতে ছাড় নয়

জলাবদ্ধতা থেকে রাজধানীবাসীর মুক্তি মিলবে কবে

বাজেট : প্রাণ আর পেটের দায় মেটানোর অভিলাষ কি পূরণ হবে

মাদক নির্মূলে জিরো টলারেন্স নীতির কঠোর বাস্তবায়ন জরুরি

tab

সম্পাদকীয়

বস্তিতে আগুন : পুনরাবৃত্তি রোধে চাই বিদ্যুৎ-গ্যাসের বৈধ সংযোগ

মঙ্গলবার, ০৮ জুন ২০২১

বছর না ঘুরতেই আবারও রাজধানীর মহাখালীর সাততলা বস্তিতে আগুন লাগল। গত বছর নভেম্বরে সেখানে আগুন লেগেছিল। তার আগেও ঐ বস্তিতে বেশ কয়েকবার আগুন লেগেছে। ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের তথ্য অনুযায়ী, অতীতে বস্তিটিতে অগ্নিকান্ডের সূত্রপাত হয়েছিল বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট থেকে। এবারও বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট থেকে অগ্নিকান্ডের সূত্রপাত হতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। গ্যাস সংযোগের লিকেজ থেকে অগ্নিকান্ডের ধারণাও উড়িয়ে দেয়া যাচ্ছে না।

অগ্নিকান্ডের কারণ অনুসন্ধানে কমিটি গঠন করা হয়েছে। আমরা আশা করব, সুষ্ঠু তদন্তে অগ্নিকান্ডের কারণ উদ্ঘাটিত হবে। প্রশ্ন হচ্ছে, অগ্নিকান্ডের কারণ উদ্ঘাটন হলে তাতে বস্তিবাসীর কী কল্যাণ হবে। বস্তিতে বিদ্যুৎ আছে, গ্যাস আছে কিন্তু এর কোনটিই বৈধ নয়। তবে বস্তিবাসী এসব নাগরিক সুবিধার জন্য মূল্য ঠিকই দিচ্ছেন। তবে সেই মূল্য তারা কাকে দিচ্ছেন, কোথা থেকে কীভাবে বস্তিতে অবৈধ সংযোগ গেল সেটা আরেক প্রশ্ন। বাস্তবতা হচ্ছে, বিদ্যুৎ-গ্যাস ছাড়া নগরে বসবাস করা সম্ভব নয়। বস্তির বাসিন্দারা কেন বৈধ সংযোগ পাচ্ছেন না সেটা আমরা জানতে চাইব। সেখানে থাকা সংযোগগুলো বৈধ করা হলে সেগুলো সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার অধীনে আনা গেলে বস্তিবাসীর জীবন আর অর্থ দুইই যেমন বাঁচে, তেমন সরকারের রাজস্বও বাড়ে। পাশাপাশি দেশের সব বস্তিতে অগ্নিনির্বাপণের ব্যবস্থাও রাখতে হবে।

গতকাল সোমবার লাগা আগুনে সাততলা বস্তির একশ’র বেশি ঘর পুড়ে গেছে, সর্বস্বান্ত হয়েছে বস্তির বহু বাসিন্দা। দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসা নিরুপায় মানুষ অগ্নিকান্ডে সহায়-সম্বল হারিয়ে দিশেহারা। এসব মানুষের পাশে সরকারকে দাঁড়াতে হবে। ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্ত প্রতিটি পরিবারকে ৫ হাজার টাকা, টিন ও ত্রাণ দেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। আমরা এ ঘোষণার দ্রুত বাস্তবায়ন দেখতে চাই। বস্তিবাসীর জন্য স্থায়ী আবাসন করার কথা বলেছে সরকার। এ সংক্রান্ত কয়েকটি প্রকল্প এখন চলমান। আমরা চাইব, প্রকল্পগুলো দ্রুত বাস্তবায়ন হবে। প্রকল্প শেষে যেন প্রকৃত বস্তিবাসী ঘর পান সেটা নিশ্চত করতে হবে। এক্ষেত্রে কোন অনিয়ম-দুর্নীতি কাম্য নয়।

back to top