alt

সম্পাদকীয়

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা থাকতে হবে

: সোমবার, ১৪ জুন ২০২১

বৈশ্বিক মহামারি নভেল করোনাভাইরাসের কারণে বিশ্বের যে ১৪টি দেশে সবচেয়ে বেশি দিন স্কুল বন্ধ রয়েছে তার একটি হচ্ছে বাংলাদেশ। ইউনিসেফের একটি প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা গেছে। দেশে করোনার সংক্রমণের কারণে ২০২০ সালের ১৭ মার্চ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ করে দেয়ার পর আর খোলা হয়নি। করোনার সংক্রমণ আবার বেড়েছে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটিও বেড়েছে। আগামী ৩০ জুনের আগে আর তা খোলার সম্ভাবনা নেই।

কবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার সম্ভাবনা আছে- এমন প্রশ্নের উত্তর বলা হচ্ছে, করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে এলে তারপর খোলা হবে। আর বিশ্ববিদ্যালয় খোলা হবে শিক্ষার্থীদের টিকা দেওয়ার পর। হার্ড ইমিউনিটি অর্জন করা ছাড়া করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হবে না। হার্ড ইমিউনিটি অর্জনের জন্য দেশের ৭০ থেকে ৮০ ভাগ মানুষকে টিকা দিতে হবে। বাজেটে প্রতি মাসে ২৫ লাখ টিকা দেয়ার যে পরিকল্পনা করা হয়েছে তাতে ৮০ ভাগ মানুষকে টিকা দিতে প্রায় নয় বছর সময় লাগবে।

শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে টিকা দেওয়ার পর বিশ্ববিদ্যালয় খোলার ঘোষণা দিয়েছে সরকার। ৩৮টি বিশ্ববিদ্যালয়ের ১ লাখ ৩ হাজার শিক্ষার্থীর একটি তালিকাও করা হয়েছে। অথচ এখন টিকার জোগান নেই বললেই চলে। বহু মানুষ দ্বিতীয় ডোজের টিকা পায়নি। সীমান্তবর্তী জেলাগুলোতে করোনার সংক্রমণ বাড়ছে হু হু করে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সংক্রমণ বাড়তে থাকা জেলায় অগ্রাধিকার ভিত্তিতে টিকা দেয়া জরুরি। বয়স্ক ও জটিল রোগে আক্রান্ত মানুষদেরকেও অগ্রাধিকার ভিত্তিতে টিকা দিতে হবে। প্রশ্ন হচ্ছে, সীমিত জোগান দিয়ে অগ্রাধিকারের এতসব দাবি সরকার মেটাবে কীভাবে।

প্রশ্ন হচ্ছে-মহামারি যদি আগামী কয়েক বছরেও নিয়ন্ত্রণে না আসে তাহলে কি এভাবেই চলতে থাকবে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো কবে আর কীভাবে খুলবে সেটা নিয়ে সুনির্দিষ্ট কোন পরিকল্পনার কথা জানা যায় না। করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসেনি বলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা যাচ্ছে না- এমন ঘোষাণা দিয়েই দায়দায়িত্ব সারছেন সংশ্লিষ্টরা। স্কুল-কলেজ খোলার অপেক্ষায় থেকে থেকে হাঁফিয়ে উঠেছে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা বা পরীক্ষা নেয়ার জন্য বাস্তবায়নযোগ্য কোন রোডম্যাপ বা সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা নেই দেখে তাদের হতাশা আরো বাড়ছে। অনেক স্থানেই শিক্ষার্থীরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার দাবিতে আন্দোলন করছে। অনেকে ধাপে ধাপে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার পরামর্শ দিয়েছেন। তারা বলছেন, সংক্রমণ কম এমন এলাকায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে পরিস্থিতি পর্যিবেক্ষণ করা যায়। স্বাস্থ্যবিধি মেনে সপ্তাহের একেক দিনে একেক শ্রেণির পাঠদানের ব্যবস্থা করা গেলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভিড় এড়ানো সম্ভব হবে।

করোনার সংক্রমণ কমার আগে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা ঝুঁকিপূর্ণ। আবার দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার কারণে প্রাক?-প্রাথমিক থেকে উচ্চশিক্ষা পর্যন্ত প্রায় চার কোটি শিক্ষার্থীর ওপর নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে। শিক্ষার্থী ঝরে পড়ার আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা। শিশুশ্রম ও বাল্যবিয়ে বেড়েছে। সেশন জটের শিকার হচ্ছে অনেকে। পড়াশোনা শেষ না হওয়ায় কর্মজীবনে প্রবেশ করতে পারছে না উল্লেখযোগ্য একটি অংশ। শারীরিক-মানসিক নানান সংকট তো রয়েছেই।

দেশে দেশে করোনা দীর্ঘস্থায়ী হচ্ছে। বিশ্বের অনেক দেশই নতুন এ পরিস্থিতিতে খাপ খাইয়ে নেয়ার চেষ্টা করছে। করোনা মোকাবিলা করে কীভাবে শিক্ষা ব্যবস্থাকে সচল করা যায় সেই পথ খুঁজতে হবে। এজন্য সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা থাকা জরুরি। উন্নত দেশগুলোর অভিজ্ঞতা কাজে লাগানো যেতে পারে।

পাহাড়ি ঢলে বন্যা, ক্ষতিগ্রস্তদের দ্রুত সহায়তা দিন

শিল্পকারখানা খোলার ঝুঁকি মোকাবিলায় প্রস্তুতি কী

হুমকির মুখে থাকা বাঘ সুন্দরবনকে বাঁচাবে কী করে

পাহাড় ধসে মৃত্যু প্রতিরোধে স্থায়ী পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করুন

সড়ক দুর্ঘটনা রোধে সরকারের অঙ্গীকারের বাস্তবায়ন চাই

ডেঙ্গু প্রতিরোধে চাই সম্মিলিত প্রচেষ্টা

পানিতে ডুবে শিশুমৃত্যু প্রসঙ্গে

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন কার নিরাপত্তা দিচ্ছে?

সেতু নির্মাণের নামে জনগণের অর্থের অপচয় বন্ধ করতে হবে

আয় বৈষম্য কমানোর পথ খুঁজতে হবে

নদী খননে অনিয়ম কাম্য নয়

আইসিইউ স্থাপনে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ কেন মানা হয়নি

সরকারের ত্রাণ সহায়তায় অনিয়ম বন্ধ করতে হবে

পরিকল্পনাহীনতায় মানুষের ভোগান্তি

চাষিরা যেন আম উৎপাদনের সুফল পান

কঠোর বিধিনিষেধ প্রসঙ্গে

উপেক্ষিত স্বাস্থ্যবিধি : বড় মূল্য দিতে হতে পারে

অ্যান্টিবায়োটিকের যথেচ্ছ ব্যবহার বন্ধ করতে হবে

ডেঙ্গু প্রতিরোধে সম্মিলিত প্রচেষ্টা চালাতে হবে

কোরবানির পশুকেন্দ্রিক চাঁদাবাজি বন্ধ করুন

যথাসময়ে বকেয়া বেতন ও ঈদ বোনাস পরিশোধ করুন

দ্রুত সড়ক-মহাসড়ক সংস্কার করুন

কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের প্রশ্নবিদ্ধ ভূমিকা

হাসপাতালটি কেন সিআরবিতেই করতে হবে

অগ্নি দুর্ঘটনা প্রতিরোধে ফায়ার সার্ভিসের সুপারিশ বাস্তবায়ন করা জরুরি

চালের দামে লাগাম টানুন

অনিয়ম-দুর্নীতির পুনরাবৃত্তি রোধ করতে হবে

বন্ধ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দিতে ইউনিসেফের আহ্বান

নারায়ণগঞ্জে ‘জঙ্গি আস্তানা’ প্রসঙ্গে

স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে

গণটিকাদান শুরু : ‘হার্ড ইমিউনিটি’র লক্ষ্য অর্জন হবে কি

করোনাকালের বিষণ্ণতা: চাই সচেতনতা

ক্ষুধার মহামারী সম্পর্কে সতর্ক থাকতে হবে

জয় হোক মানবতার

শ্রমিক মৃত্যুর দায় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এড়াতে পারে না

সাঁকো সংস্কার করে জনগণের দুর্ভোগ লাঘব করুন

tab

সম্পাদকীয়

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা থাকতে হবে

সোমবার, ১৪ জুন ২০২১

বৈশ্বিক মহামারি নভেল করোনাভাইরাসের কারণে বিশ্বের যে ১৪টি দেশে সবচেয়ে বেশি দিন স্কুল বন্ধ রয়েছে তার একটি হচ্ছে বাংলাদেশ। ইউনিসেফের একটি প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা গেছে। দেশে করোনার সংক্রমণের কারণে ২০২০ সালের ১৭ মার্চ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ করে দেয়ার পর আর খোলা হয়নি। করোনার সংক্রমণ আবার বেড়েছে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটিও বেড়েছে। আগামী ৩০ জুনের আগে আর তা খোলার সম্ভাবনা নেই।

কবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার সম্ভাবনা আছে- এমন প্রশ্নের উত্তর বলা হচ্ছে, করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে এলে তারপর খোলা হবে। আর বিশ্ববিদ্যালয় খোলা হবে শিক্ষার্থীদের টিকা দেওয়ার পর। হার্ড ইমিউনিটি অর্জন করা ছাড়া করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হবে না। হার্ড ইমিউনিটি অর্জনের জন্য দেশের ৭০ থেকে ৮০ ভাগ মানুষকে টিকা দিতে হবে। বাজেটে প্রতি মাসে ২৫ লাখ টিকা দেয়ার যে পরিকল্পনা করা হয়েছে তাতে ৮০ ভাগ মানুষকে টিকা দিতে প্রায় নয় বছর সময় লাগবে।

শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে টিকা দেওয়ার পর বিশ্ববিদ্যালয় খোলার ঘোষণা দিয়েছে সরকার। ৩৮টি বিশ্ববিদ্যালয়ের ১ লাখ ৩ হাজার শিক্ষার্থীর একটি তালিকাও করা হয়েছে। অথচ এখন টিকার জোগান নেই বললেই চলে। বহু মানুষ দ্বিতীয় ডোজের টিকা পায়নি। সীমান্তবর্তী জেলাগুলোতে করোনার সংক্রমণ বাড়ছে হু হু করে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সংক্রমণ বাড়তে থাকা জেলায় অগ্রাধিকার ভিত্তিতে টিকা দেয়া জরুরি। বয়স্ক ও জটিল রোগে আক্রান্ত মানুষদেরকেও অগ্রাধিকার ভিত্তিতে টিকা দিতে হবে। প্রশ্ন হচ্ছে, সীমিত জোগান দিয়ে অগ্রাধিকারের এতসব দাবি সরকার মেটাবে কীভাবে।

প্রশ্ন হচ্ছে-মহামারি যদি আগামী কয়েক বছরেও নিয়ন্ত্রণে না আসে তাহলে কি এভাবেই চলতে থাকবে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো কবে আর কীভাবে খুলবে সেটা নিয়ে সুনির্দিষ্ট কোন পরিকল্পনার কথা জানা যায় না। করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসেনি বলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা যাচ্ছে না- এমন ঘোষাণা দিয়েই দায়দায়িত্ব সারছেন সংশ্লিষ্টরা। স্কুল-কলেজ খোলার অপেক্ষায় থেকে থেকে হাঁফিয়ে উঠেছে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা বা পরীক্ষা নেয়ার জন্য বাস্তবায়নযোগ্য কোন রোডম্যাপ বা সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা নেই দেখে তাদের হতাশা আরো বাড়ছে। অনেক স্থানেই শিক্ষার্থীরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার দাবিতে আন্দোলন করছে। অনেকে ধাপে ধাপে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার পরামর্শ দিয়েছেন। তারা বলছেন, সংক্রমণ কম এমন এলাকায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে পরিস্থিতি পর্যিবেক্ষণ করা যায়। স্বাস্থ্যবিধি মেনে সপ্তাহের একেক দিনে একেক শ্রেণির পাঠদানের ব্যবস্থা করা গেলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভিড় এড়ানো সম্ভব হবে।

করোনার সংক্রমণ কমার আগে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা ঝুঁকিপূর্ণ। আবার দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার কারণে প্রাক?-প্রাথমিক থেকে উচ্চশিক্ষা পর্যন্ত প্রায় চার কোটি শিক্ষার্থীর ওপর নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে। শিক্ষার্থী ঝরে পড়ার আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা। শিশুশ্রম ও বাল্যবিয়ে বেড়েছে। সেশন জটের শিকার হচ্ছে অনেকে। পড়াশোনা শেষ না হওয়ায় কর্মজীবনে প্রবেশ করতে পারছে না উল্লেখযোগ্য একটি অংশ। শারীরিক-মানসিক নানান সংকট তো রয়েছেই।

দেশে দেশে করোনা দীর্ঘস্থায়ী হচ্ছে। বিশ্বের অনেক দেশই নতুন এ পরিস্থিতিতে খাপ খাইয়ে নেয়ার চেষ্টা করছে। করোনা মোকাবিলা করে কীভাবে শিক্ষা ব্যবস্থাকে সচল করা যায় সেই পথ খুঁজতে হবে। এজন্য সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা থাকা জরুরি। উন্নত দেশগুলোর অভিজ্ঞতা কাজে লাগানো যেতে পারে।

back to top