alt

সম্পাদকীয়

ধর্ষণ মামলার রায় : আদালতের পর্যবেক্ষণ ও কিছু প্রশ্ন

: শনিবার, ১৩ নভেম্বর ২০২১

রাজধানীর বনানীর রেইনট্রি হোটেলে চার বছর আগে দুই তরুণীকে ধর্ষণের মামলায় সব আসামিকে খালাস দেয়া হয়েছে। ঢাকার ৭ নম্বর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক বেগম মোছা. কামরুন্নাহার বলেছেন, ‘ধর্ষণের অভিযোগ প্রমাণিত হয়নি। ভিকটিমদের ডাক্তারি রিপোর্টে কোন সেক্সুয়াল ভায়োলেশনের বিবরণ নেই। ভিকটিমের পরিধেয়তে পাওয়া ডিএনএ নমুনা আসামিদের সঙ্গে মিলল না।’

রায়ের পর্যবেক্ষণে আদালত বলেছে, ঘটনার ৩৮ দিন পর মামলা হওয়ায় ভিকটিমদের মেডিকেল রিপোর্টে প্রমাণ আসেনি। বিচারক বলেছেন, অভিযোগকারীরা শারীরিক সম্পর্কে অভ্যস্ত ছিল। ৩৮ দিন পর এসে তারা বললো ‘রেপ্ড হয়েছি’, বিষয়টি তদন্ত কর্মকর্তার বিবেচনা করা উচিৎ ছিল। সাক্ষ্য-প্রমাণ না পাওয়া সত্ত্বেও চার্জশিট দিয়ে তদন্ত কর্মকর্তা আদালতের সময় নষ্ট করেছে।

বিচারক ধর্ষণের ঘটনার ৭২ ঘণ্টা পর পুলিশকে মামলা না নিতে বলেছেন। কারণ হিসেবে তিনি বলেছেন, ৭২ ঘণ্টা পর মেডিকেল টেস্ট করা হলে ধর্ষণের আলামত পাওয়া যায় না। তাতে মামলা প্রমাণ করা দুরূহ হয়ে পড়ে।

আদালতের পর্যবেক্ষণে তদন্ত কর্মকর্তার ভূমিকার সমালোচনা করা হয়েছে। বিচারক বলছে, তদন্তে অভিযোগ প্রমাণিত হয়নি। আদালতের পর্যবেক্ষণে বোঝা যায়, তদন্তে গাফিলতি আছে। যদি তদন্তে গাফিলতি থাকে তাহলে আদালত পুনঃতদন্তের নির্দেশ দিতে পারে কিনা সেটা একটা প্রশ্ন।

ট্রাইব্যুনালের বিচারক কামরুন্নাহার বলেছেন, অভিযোগকারীরা শারীরিক সম্পর্কে অভ্যস্ত। প্রশ্ন হচ্ছে, শারীরিক সম্পর্কে অভ্যস্ত কোন ব্যক্তি কি ধর্ষণের শিকার হতে পারেন না? শারীরিক সম্পর্কে অভ্যস্ত কোন ব্যক্তি ধর্ষণের শিকার হলে তিনি কি বিচার পাওয়ার অধিকার হারিয়ে ফেলেন? দেশের আইন এ বিষয়ে কী বলে? উক্ত পর্যবেক্ষণ দিয়ে কী বোঝানো হলো?

ধর্ষণের ৭২ ঘণ্টা পর পুলিশকে মামলা না নেয়ার যে কথা আদালত বলেছে, সেটা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, উচ্চ আদালতের ঠিক করে দেয়া নীতিমালা অনুযায়ী, ধর্ষণের মামলা নেয়ার ক্ষেত্রে কোন রকম কালবিলম্ব চলবে না, সুনির্দিষ্ট কারণ ছাড়া পুলিশ মামলা নিতে অস্বীকৃতিও জানাতে পারবে না। উচ্চ আদালতের এমন নীতিমালা থাকা সত্ত্বেও নিম্ন আদালতের একজন বিচারক পুলিশকে ৭২ ঘণ্টা পর মামলা না নেয়ার পর্যবেক্ষণ দিলেন কিসের ভিত্তিতে সেই প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

বিচারক বলেছেন, ৭২ ঘণ্টা পর মেডিকেল টেস্ট করা হলে ধর্ষণের আলামত পাওয়া যায় না। তাতে মামলা প্রমাণ করা দুরূহ হয়ে পড়ে। আমরা জানতে চাইব, কেবল মেডিকেল টেস্ট দিয়ে ধর্ষণের অপরাধ প্রমাণ করতে হবে এমন বিধান কোথায় আছে। উচ্চ আদালতের রায় অনুযায়ী, ভিকটিমের মৌখিক সাক্ষ্য ও অন্যান্য পারিপার্শ্বিক সাক্ষ্যের মাধ্যমে আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণ করা গেলে তার ভিত্তিতেই দন্ড দেয়া যেতে পারে।

অভিযোগ রয়েছে, ধর্ষণের ঘটনায় অনেক থানা নানান অজুহাতে মামলা নিতে চায় না। অনেক কাঠখড় পুড়িয়ে কেউ ধর্ষণের মামলা করলেও তার বিচার মেলে না। বিচার পাওয়ার প্রতিটি স্তরে ভিকটিমকে হেনস্তা হতে হয়। এখন ট্রাইব্যুনালের একজন বিচারকের উল্লিখিত পর্যবেক্ষণের পর পরিস্থিতি আরও খারাপ হবে বলে আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। এতে ভিকটিমরা মামলা করতে নিরুৎসাহিত হতে পারেন। ৭২ ঘণ্টা পর মামলা না নেয়ার পর্যবেক্ষণ দিয়ে ধর্ষকদেরই অন্যায় উৎসাহ দেয়া হলো কিনা সেটা একটা প্রশ্ন। এসব প্রশ্নের উত্তর জানা দরকার। কারণ ট্রাইব্যুনালের বিচারক যে পর্যবেক্ষণ দিয়েছেন তা মানুষের মধ্যে উদ্বেগের সৃষ্টি করেছে। মানুষের এই উদ্বেগের অবসান ঘটানো জরুরি।

সংকটে সংবাদপত্রশিল্প প্রয়োজন প্রণোদনা

প্রান্তিক মানুষের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করুন

উপকূলে জলদস্যুদের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রাখতে হবে

পুরুষতান্ত্রিক সমাজের একজন প্রতিনিধি

পিইসি পরীক্ষা নিয়ে বিভ্রান্তি দূর করুন

জননিরাপত্তাকে অগ্রাধিকার দিয়ে রেলক্রসিংগুলো সুরক্ষিত করুন

বিমানবন্দরগুলোর নিরাপত্তা নিশ্চিত করুন

সড়কে শৃঙ্খলা ফিরবে নাকি যেমন আছে তেমনই থাকবে

রেলের উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ কতকাল ধরে চলতে থাকবে

‘বন্দুকযুদ্ধ’ কোন সমাধান নয়

এইডস প্রতিরোধে চাই জনসচেতনতা

সীমান্ত হত্যা বন্ধে প্রতিশ্রুতি রক্ষা করুন

পার্বত্য চুক্তির পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন জরুরি

শর্তযুক্ত ‘হাফ পাস’

সড়ক দুর্ঘটনায় এত শিক্ষার্থী মারা যাচ্ছে কেন

পশুর চ্যানেলে বাল্কহেড চলাচল বন্ধ করুন

ইউপি নির্বাচনে সহিংসতা ও ইসি’র দাবি

ফ্রাঞ্চাইজিভিত্তিক বাস সার্ভিস কবে আলোর মুখ দেখবে

করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট ‘ওমিক্রন’ মোকাবিলায় চাই সার্বিক প্রস্তুতি

পাহাড় দখল কি চলতেই থাকবে

নারী ক্রিকেটের আরেকটি মাইলফলক

যক্ষ্মা ও এইডস রোগ নির্মূল কর্মসূচি প্রসঙ্গে

সড়কে মৃত্যুর মিছিল বন্ধ হোক

ফিটনেসছাড়া ফেরিগুলো চলছে কীভাবে

বায়ুদূষণ রোধে সমন্বিত প্রচেষ্টা চালাতে হবে

সড়ক দুর্ঘটনায় ঝরছে প্রাণ

রাষ্ট্রপতির সময়োপযোগী আহ্বান

অভিনন্দন সুপ্তা, নারী ক্রীড়াবিদদের জয়যাত্রা অব্যাহত থাকুক

নারীর সুরক্ষায় আইনের কঠোর প্রয়োগ ঘটাতে হবে

শিক্ষার্থীদের ‘হাফ পাসের’ দাবি বিবেচনা করুন

দুদকের কাজ কঠিন তবে অসম্ভব নয়

ড্যাপের খসড়া : অংশীজনদের যৌক্তিক মত গ্রহণ করা জরুরি

করোনার সংক্রমণ কমলেও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে

দক্ষিণাঞ্চলে ফায়ার সার্ভিসের সমস্যা দূর করুন

আইসিটি শিক্ষক সংকট দূর করুন

শৌচাগার সংকট থেকে রাজধানীবাসীকে উদ্ধার করুন

tab

সম্পাদকীয়

ধর্ষণ মামলার রায় : আদালতের পর্যবেক্ষণ ও কিছু প্রশ্ন

শনিবার, ১৩ নভেম্বর ২০২১

রাজধানীর বনানীর রেইনট্রি হোটেলে চার বছর আগে দুই তরুণীকে ধর্ষণের মামলায় সব আসামিকে খালাস দেয়া হয়েছে। ঢাকার ৭ নম্বর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক বেগম মোছা. কামরুন্নাহার বলেছেন, ‘ধর্ষণের অভিযোগ প্রমাণিত হয়নি। ভিকটিমদের ডাক্তারি রিপোর্টে কোন সেক্সুয়াল ভায়োলেশনের বিবরণ নেই। ভিকটিমের পরিধেয়তে পাওয়া ডিএনএ নমুনা আসামিদের সঙ্গে মিলল না।’

রায়ের পর্যবেক্ষণে আদালত বলেছে, ঘটনার ৩৮ দিন পর মামলা হওয়ায় ভিকটিমদের মেডিকেল রিপোর্টে প্রমাণ আসেনি। বিচারক বলেছেন, অভিযোগকারীরা শারীরিক সম্পর্কে অভ্যস্ত ছিল। ৩৮ দিন পর এসে তারা বললো ‘রেপ্ড হয়েছি’, বিষয়টি তদন্ত কর্মকর্তার বিবেচনা করা উচিৎ ছিল। সাক্ষ্য-প্রমাণ না পাওয়া সত্ত্বেও চার্জশিট দিয়ে তদন্ত কর্মকর্তা আদালতের সময় নষ্ট করেছে।

বিচারক ধর্ষণের ঘটনার ৭২ ঘণ্টা পর পুলিশকে মামলা না নিতে বলেছেন। কারণ হিসেবে তিনি বলেছেন, ৭২ ঘণ্টা পর মেডিকেল টেস্ট করা হলে ধর্ষণের আলামত পাওয়া যায় না। তাতে মামলা প্রমাণ করা দুরূহ হয়ে পড়ে।

আদালতের পর্যবেক্ষণে তদন্ত কর্মকর্তার ভূমিকার সমালোচনা করা হয়েছে। বিচারক বলছে, তদন্তে অভিযোগ প্রমাণিত হয়নি। আদালতের পর্যবেক্ষণে বোঝা যায়, তদন্তে গাফিলতি আছে। যদি তদন্তে গাফিলতি থাকে তাহলে আদালত পুনঃতদন্তের নির্দেশ দিতে পারে কিনা সেটা একটা প্রশ্ন।

ট্রাইব্যুনালের বিচারক কামরুন্নাহার বলেছেন, অভিযোগকারীরা শারীরিক সম্পর্কে অভ্যস্ত। প্রশ্ন হচ্ছে, শারীরিক সম্পর্কে অভ্যস্ত কোন ব্যক্তি কি ধর্ষণের শিকার হতে পারেন না? শারীরিক সম্পর্কে অভ্যস্ত কোন ব্যক্তি ধর্ষণের শিকার হলে তিনি কি বিচার পাওয়ার অধিকার হারিয়ে ফেলেন? দেশের আইন এ বিষয়ে কী বলে? উক্ত পর্যবেক্ষণ দিয়ে কী বোঝানো হলো?

ধর্ষণের ৭২ ঘণ্টা পর পুলিশকে মামলা না নেয়ার যে কথা আদালত বলেছে, সেটা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, উচ্চ আদালতের ঠিক করে দেয়া নীতিমালা অনুযায়ী, ধর্ষণের মামলা নেয়ার ক্ষেত্রে কোন রকম কালবিলম্ব চলবে না, সুনির্দিষ্ট কারণ ছাড়া পুলিশ মামলা নিতে অস্বীকৃতিও জানাতে পারবে না। উচ্চ আদালতের এমন নীতিমালা থাকা সত্ত্বেও নিম্ন আদালতের একজন বিচারক পুলিশকে ৭২ ঘণ্টা পর মামলা না নেয়ার পর্যবেক্ষণ দিলেন কিসের ভিত্তিতে সেই প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

বিচারক বলেছেন, ৭২ ঘণ্টা পর মেডিকেল টেস্ট করা হলে ধর্ষণের আলামত পাওয়া যায় না। তাতে মামলা প্রমাণ করা দুরূহ হয়ে পড়ে। আমরা জানতে চাইব, কেবল মেডিকেল টেস্ট দিয়ে ধর্ষণের অপরাধ প্রমাণ করতে হবে এমন বিধান কোথায় আছে। উচ্চ আদালতের রায় অনুযায়ী, ভিকটিমের মৌখিক সাক্ষ্য ও অন্যান্য পারিপার্শ্বিক সাক্ষ্যের মাধ্যমে আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণ করা গেলে তার ভিত্তিতেই দন্ড দেয়া যেতে পারে।

অভিযোগ রয়েছে, ধর্ষণের ঘটনায় অনেক থানা নানান অজুহাতে মামলা নিতে চায় না। অনেক কাঠখড় পুড়িয়ে কেউ ধর্ষণের মামলা করলেও তার বিচার মেলে না। বিচার পাওয়ার প্রতিটি স্তরে ভিকটিমকে হেনস্তা হতে হয়। এখন ট্রাইব্যুনালের একজন বিচারকের উল্লিখিত পর্যবেক্ষণের পর পরিস্থিতি আরও খারাপ হবে বলে আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। এতে ভিকটিমরা মামলা করতে নিরুৎসাহিত হতে পারেন। ৭২ ঘণ্টা পর মামলা না নেয়ার পর্যবেক্ষণ দিয়ে ধর্ষকদেরই অন্যায় উৎসাহ দেয়া হলো কিনা সেটা একটা প্রশ্ন। এসব প্রশ্নের উত্তর জানা দরকার। কারণ ট্রাইব্যুনালের বিচারক যে পর্যবেক্ষণ দিয়েছেন তা মানুষের মধ্যে উদ্বেগের সৃষ্টি করেছে। মানুষের এই উদ্বেগের অবসান ঘটানো জরুরি।

back to top