alt

সম্পাদকীয়

ঈদের আগে শ্রমিকদের পাওনা পরিশোধ করুন

: বুধবার, ২৭ এপ্রিল ২০২২

বকেয়া বেতন ও বোনাসের দাবিতে প্রায় প্রতিদিনই কোথাও না কোথাও পোশাকশ্রমিকরা পথে নামছেন। গত সোমবার রাজধানীর মিরপুরে পোশাকশ্রমিকরা বেতন ও বোনাসের দাবিতে সড়ক অবরোধ করেছেন।

শ্রম মন্ত্রণালয়ের ত্রিপক্ষীয় পরামর্শ পরিষদের (টিসিসি) সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, ঈদের ছুটির আগে তৈরি পোশাকশিল্পসহ সব খাতের শ্রমিকেরা এপ্রিলের মাসের অর্ধেক বেতন ও ঈদ বোনাস পাবেন। তবে মার্চ মাসের পুরো বেতন ঈদের আগে পরিশোধ করতে হবে। যদিও শ্রমিকরা চলতি মাসের পুরো বেতন দেয়ার দাবি জানিয়েছে।

বাস্তবতা হচ্ছে, অনেক পোশাক কারখানা এখনো মার্চ মাসের বেতনই পরিশোধ করেনি। বোনাস ও চলতি মাসের অর্ধেক বেতন না দেয়া কারখানার সংখ্যা আরো বেশি। আশঙ্কা করা হচ্ছে, বেতন-বোনাস নিয়ে ঈদের আগে পাঁচ শতাধিক কারখানায় অস্থিতিশীলতা দেখা দিতে পারে।

ঈদের আগে বেতন-বোনাস নিয়ে শ্রমিকদের ক্ষোভ বা আন্দোলনের ঘটনা এবারই প্রথম নয়। প্রতি বছরই দেখা যায় ঈদের সময় একশ্রেণীর কারখানা শ্রমিকদের পাওনা পরিশোধে নানান টালবাহানা করে। বিশেষকরে সাবকন্ট্রাক্টে কাজ করা কারখানাগুলো প্রায়ই ঈদের সময়েও বেতন-বোনাস পরিশোধ করে না বলে অভিযোগ রয়েছে। যে কারণে অনেক সময় বেতন-বোনাস না পেয়ে এসব কারখানার শ্রমিকদের ফিরতে হয় শূন্য হাতে।

শ্রম আইনের বিধান অনুযায়ী, এক মাসের বেতন পরের মাসের সাত কর্মদিবস বা ১০ তারিখের মধ্যে দিতে হবে। অনেক কারখানা সেটা মানে না। অনেক কারখানায় মাসের পর মাস শ্রমিকের বেতন বকেয়া পড়ে থাকে। যথা সময়ে শ্রমিকদের বেতন-বোনাস না দেয়ার সমস্যা শুধু পোশাক কারখানার মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়। অন্যান্য অনেক শিল্পকারখানায়ও বেতন বকেয়া আছে।

আর কয়েক দিন পর ঈদ। উৎসবের সময়ও শ্রমিকদের যথাসময়ে বেতন-বোনাস না দেয়া অমানবিক। এই অমানবিকতা মেনে নেয়া যায় না। সরকার ঈদের আগেই বেতন ও বোনাস পরিশোধের আহ্বান জানিয়েছে। আমরা আশা করব, সব কারখানা এই আহ্বানে ইতিবাচকভাবে সাড়া দেবে।

ঈদের আগেই শ্রমিকদের বেতন-বোনাস দিতে হবে, বকেয়া পরিশোধ করতে হবে। শ্রমিকদের পাওনা পরিশোধ না করে কেউ যেন পার না পায় সেটা সংশ্লিষ্টদের নিশ্চিত করতে হবে। এখনো যেসব কারখানা বেতন-বোনাস ঝুলিয়ে রেখেছে সেগুলোকে নজরদারির মধ্যে রাখতে হবে। বেতন-বোনাস প্রশ্নে কোন অপ্রীতিকর পরিস্থিতির যেন উদ্ভব না হয়, সেজন্য সব পক্ষকেই দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করতে হবে।

নির্মাণের তিন মাসের মধ্যে সেতু ভাঙার কারণ কী

শিক্ষা খাতে প্রকল্প বাস্তবায়নে ধীরগতি

পরিবেশ দূষণ বন্ধে চাই সমন্বিত পদক্ষেপ

নারীর পোশাক পরার স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ কেন

খাল দখলমুক্ত করুন

সিলেট নগরীর জলাবদ্ধতা নিরসনে পরিকল্পিত পদক্ষেপ নিতে হবে

অবরুদ্ধ পরিবারটিকে মুক্ত করুন

নৌপথের নিরাপত্তা প্রসঙ্গে

সড়ক থেকে তোরণ অপসারণ করুন

ইভটিজিং বন্ধে আইনের কঠোর প্রয়োগ চাই

খালে বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ প্রসঙ্গে

সিলেটে বন্যা : দুর্গতদের পাশে দাঁড়ান

প্রান্তিক নারীদের ডিজিটাল সেবা প্রসঙ্গে

ভরা মৌসুমে কেন চালের দাম বাড়ছে

রংপুরের আবহাওয়া অফিসে রাডার বসানো হোক

রাজধানীর জলাবদ্ধতা নিরসনে এখনই উদ্যোগ নিন

সুস্থ গণতন্ত্রের জন্য মুক্ত গণমাধ্যম

নির্বিচারে পাহাড় কাটার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

ভোজ্যতেলের সংকট কেন কাটছে না

সমবায় সমিতির নামে প্রতারণা বন্ধ করুন

সরকারের সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত

সড়ক ধান মাড়াইয়ের স্থান হতে পারে না, বিকল্প খুঁজুন

পাসপোর্ট অফিসকে দালালমুক্ত করুন

খেলার মাঠেই কেন মেলার আয়োজন করতে হবে

যৌতুক প্রতিরোধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে

এমএলএম কোম্পানির নামে প্রতারণা

নতুন শিক্ষাক্রম বাস্তবায়নে কাজ করতে হবে সমন্বিতভাবে

টিলা কাটা বন্ধ করুন

করোনায় মৃত্যুর প্রকৃত সংখ্যা নিয়ে বিভ্রান্তি দূর করুন

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে মৌলিক পয়োনিষ্কাশনের পূর্ণাঙ্গ ব্যবস্থা করুন

বিনা টিকিটে রেল ভ্রমণের ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত নিশ্চিত করুন

ঈদযাত্রায় সড়ক দুর্ঘটনা

ভোজ্যতেলের বাজার ব্যবস্থাপনায় ছাড় নয়

ফল পাকাতে রাসায়নিকের ব্যবহার প্রসঙ্গে

এডিস মশা নিয়ন্ত্রণে এখনই ব্যবস্থা নিন

ঈদযাত্রায় স্বস্তি

tab

সম্পাদকীয়

ঈদের আগে শ্রমিকদের পাওনা পরিশোধ করুন

বুধবার, ২৭ এপ্রিল ২০২২

বকেয়া বেতন ও বোনাসের দাবিতে প্রায় প্রতিদিনই কোথাও না কোথাও পোশাকশ্রমিকরা পথে নামছেন। গত সোমবার রাজধানীর মিরপুরে পোশাকশ্রমিকরা বেতন ও বোনাসের দাবিতে সড়ক অবরোধ করেছেন।

শ্রম মন্ত্রণালয়ের ত্রিপক্ষীয় পরামর্শ পরিষদের (টিসিসি) সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, ঈদের ছুটির আগে তৈরি পোশাকশিল্পসহ সব খাতের শ্রমিকেরা এপ্রিলের মাসের অর্ধেক বেতন ও ঈদ বোনাস পাবেন। তবে মার্চ মাসের পুরো বেতন ঈদের আগে পরিশোধ করতে হবে। যদিও শ্রমিকরা চলতি মাসের পুরো বেতন দেয়ার দাবি জানিয়েছে।

বাস্তবতা হচ্ছে, অনেক পোশাক কারখানা এখনো মার্চ মাসের বেতনই পরিশোধ করেনি। বোনাস ও চলতি মাসের অর্ধেক বেতন না দেয়া কারখানার সংখ্যা আরো বেশি। আশঙ্কা করা হচ্ছে, বেতন-বোনাস নিয়ে ঈদের আগে পাঁচ শতাধিক কারখানায় অস্থিতিশীলতা দেখা দিতে পারে।

ঈদের আগে বেতন-বোনাস নিয়ে শ্রমিকদের ক্ষোভ বা আন্দোলনের ঘটনা এবারই প্রথম নয়। প্রতি বছরই দেখা যায় ঈদের সময় একশ্রেণীর কারখানা শ্রমিকদের পাওনা পরিশোধে নানান টালবাহানা করে। বিশেষকরে সাবকন্ট্রাক্টে কাজ করা কারখানাগুলো প্রায়ই ঈদের সময়েও বেতন-বোনাস পরিশোধ করে না বলে অভিযোগ রয়েছে। যে কারণে অনেক সময় বেতন-বোনাস না পেয়ে এসব কারখানার শ্রমিকদের ফিরতে হয় শূন্য হাতে।

শ্রম আইনের বিধান অনুযায়ী, এক মাসের বেতন পরের মাসের সাত কর্মদিবস বা ১০ তারিখের মধ্যে দিতে হবে। অনেক কারখানা সেটা মানে না। অনেক কারখানায় মাসের পর মাস শ্রমিকের বেতন বকেয়া পড়ে থাকে। যথা সময়ে শ্রমিকদের বেতন-বোনাস না দেয়ার সমস্যা শুধু পোশাক কারখানার মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়। অন্যান্য অনেক শিল্পকারখানায়ও বেতন বকেয়া আছে।

আর কয়েক দিন পর ঈদ। উৎসবের সময়ও শ্রমিকদের যথাসময়ে বেতন-বোনাস না দেয়া অমানবিক। এই অমানবিকতা মেনে নেয়া যায় না। সরকার ঈদের আগেই বেতন ও বোনাস পরিশোধের আহ্বান জানিয়েছে। আমরা আশা করব, সব কারখানা এই আহ্বানে ইতিবাচকভাবে সাড়া দেবে।

ঈদের আগেই শ্রমিকদের বেতন-বোনাস দিতে হবে, বকেয়া পরিশোধ করতে হবে। শ্রমিকদের পাওনা পরিশোধ না করে কেউ যেন পার না পায় সেটা সংশ্লিষ্টদের নিশ্চিত করতে হবে। এখনো যেসব কারখানা বেতন-বোনাস ঝুলিয়ে রেখেছে সেগুলোকে নজরদারির মধ্যে রাখতে হবে। বেতন-বোনাস প্রশ্নে কোন অপ্রীতিকর পরিস্থিতির যেন উদ্ভব না হয়, সেজন্য সব পক্ষকেই দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করতে হবে।

back to top