alt

সম্পাদকীয়

নারী ও শিশু নির্যাতনের মামলা দ্রুত নিষ্পত্তি করতে হবে

: রোববার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২২

বছরের পর বছর ধরে ঝুলে আছে নারী ও শিশু নির্যাতনের হাজারো মামলা। মামলার তদন্ত থেকে শুরু করে বিচার পর্যন্ত প্রতিটি স্তরে বিচারপ্রার্থীকে পোহাতে হয় ভোগান্তি। এ নিয়ে প্রায়ই গণমাধ্যমে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।

ধর্ষণ, যৌতুকের দাবিতে নির্যাতন ও হত্যা, যৌন নিপীড়নের মতো বিভিন্ন অপরাধের মামলার বিচার করা হয় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে। উচ্চ আদালতের তথ্য অনুযায়ী, গত ৩০ জুন পর্যন্ত দেশের ৯৯টি নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে বিচারাধীন মামলা রয়েছে ১ লাখ ৭৮ হাজার ২৩১টি। এর মধ্যে পাঁচ বছরের বেশি সময় ধরে বিচারাধীন মামলা রয়েছে ৪৩ হাজার ১১৪টি।

এক হিসাব অনুযায়ী, উচ্চ আদালত ও অধস্তন আদালতে জুন পর্যন্ত বিচারাধীন মামলা রয়েছে প্রায় ৪২ লাখ। আদালত পর্যবেক্ষণ ব্যবস্থা জোরদার করায় বছরের প্রথম ভাগের তুলনায় জুনে মামলা কমেছে ৩২ শতাংশ। এর বিপরীতে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে করা মামলার ক্ষেত্রে অগ্রগতি কম বলে গণমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয়েছে।

নারী নির্যাতনের মামলা বছরের পর বছর ঝুলে থাকার খবর উদ্বেগজনক। বিচারপ্রার্থীদের হয়রানি ও ভোগান্তির কথা সর্বজনবিদিত। প্রসঙ্গক্রমে বলা যায়, ধর্ষণ মামলার বিচারপ্রার্থীদের থানা থেকে আদালত পর্যন্ত অশেষ হয়রানি পোহাতে হয়। নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ধর্ষণ মামলা নির্ধারিত ১৮০ দিনের মধ্যে শেষ করার কথা বলা হয়। তবে এই সময়সীমা প্রায় ক্ষেত্রেই মানা হয় না। ধর্ষণের অসংখ্য মামলা বছরের পর বছর ঝুলে থাকার নজির রয়েছে। তদন্ত আর অভিযোগ গঠনে অনেক সময় চলে যায়। রহস্যজনক কারণে পুলিশ মামলার আসামিদের খুঁজে পায় না। অথবা দেখা যায়, আসামিদের খুঁজে পেলেও তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগের প্রমাণ পায় না।

নারী নির্যাতনের মামলার নিষ্পত্তির পথে যেসব অসংগতি আছে তার অবসান ঘটাতে হবে। তদন্ত ও আইনি বিধানসমূহ সঠিকভাবে প্রতিপালিত হচ্ছে কি না, সে বিষয়ে শক্তিশালী মনিটরিং ব্যবস্থা প্রবর্তন করতে হবে। নির্ধারিত সময়ে তদন্ত ও বিচার শেষ করতে হবে। পুলিশ, আইনজীবীসহ মামলার বিচারসংশ্লিষ্ট সবাই দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করলে পরিস্থিতির পরিবর্তন হতে পারে।

ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে হাল ছাড়লে চলবে না

শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশি সেনাদের আত্মত্যাগ

হাইওয়ের নিরাপত্তা প্রসঙ্গে

জাতীয় গ্রিড বারবার বিপর্যয়ের কারণ কী

সাম্প্রদায়িক হামলার বিচার নিশ্চিত করতে হবে

সাম্প্রদায়িক হামলার বিচার নিশ্চিত করতে হবে

কেঁচো সারের ব্যবহার বাড়াতে হবে

উপানুষ্ঠানিক শিক্ষার নামে হরিলুট বন্ধ করুন

পর্যটকদের নিরাপত্তায় কোন ছাড় নয়

কন্যাশিশু নির্যাতনের ভয়াবহ চিত্র

মুহিবুল্লাহ হত্যার সুষ্ঠু বিচার করা জরুরি

অপ্রয়োজনীয় সি-সেকশন প্রসঙ্গে

বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের ওপর হামলার বিচার কি হবে

নদী খননে জোর দিন

জ্বালানি নিরাপত্তার স্বার্থে তেল পরিশোধনের সক্ষমতা বাড়ানো জরুরি

বাল্যবিয়ে বন্ধে কাজীদের ভূমিকা

নদী দখল-দূষণ বন্ধে সংশ্লিষ্টদের দায়িত্বশীল হতে হবে

পাহাড় কাটা বন্ধে ব্যবস্থা নিন

বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে নিয়মের মধ্যে আনা যাচ্ছে না কেন

সুন্দরবনে বিষ দিয়ে মাছ ধরা কঠোরভাবে বন্ধ করুন

নৌকাডুবিতে মর্মান্তিক মৃত্যু

বিদ্যালয়ে কেন ইউনিয়ন পরিষদের কার্যক্রম

যুদ্ধ নয়, শান্তি চাই

কুয়াকাটায় পর্যটকদের ভোগান্তি কমবে কবে

বন্যপ্রাণীর খাবারের সংকট দূর করতে হবে

রাস্তাটি সংস্কার করুন

মাছ ধরায় নিষেধাজ্ঞা চলাকালে জেলেদের পর্যাপ্ত সহায়তা দিন

টিসিবির পণ্য বিক্রিতে অনিয়মের অভিযোগ আমলে নিন

কৃষককে কেন ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে

শিশুর সুরক্ষায় সমন্বিতভাবে কাজ করতে হবে

রুখতে হবে বাল্যবিয়ে

দ্রুত রাস্তা নির্মাণ করুন

নারী ফুটবল দলকে অভিনন্দন

খালে বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ বন্ধ করুন

নতুন শিক্ষাক্রম বাস্তবায়নের চ্যালেঞ্জ

অবৈধ গ্যাস সংযোগ প্রসঙ্গে

tab

সম্পাদকীয়

নারী ও শিশু নির্যাতনের মামলা দ্রুত নিষ্পত্তি করতে হবে

রোববার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২২

বছরের পর বছর ধরে ঝুলে আছে নারী ও শিশু নির্যাতনের হাজারো মামলা। মামলার তদন্ত থেকে শুরু করে বিচার পর্যন্ত প্রতিটি স্তরে বিচারপ্রার্থীকে পোহাতে হয় ভোগান্তি। এ নিয়ে প্রায়ই গণমাধ্যমে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।

ধর্ষণ, যৌতুকের দাবিতে নির্যাতন ও হত্যা, যৌন নিপীড়নের মতো বিভিন্ন অপরাধের মামলার বিচার করা হয় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে। উচ্চ আদালতের তথ্য অনুযায়ী, গত ৩০ জুন পর্যন্ত দেশের ৯৯টি নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে বিচারাধীন মামলা রয়েছে ১ লাখ ৭৮ হাজার ২৩১টি। এর মধ্যে পাঁচ বছরের বেশি সময় ধরে বিচারাধীন মামলা রয়েছে ৪৩ হাজার ১১৪টি।

এক হিসাব অনুযায়ী, উচ্চ আদালত ও অধস্তন আদালতে জুন পর্যন্ত বিচারাধীন মামলা রয়েছে প্রায় ৪২ লাখ। আদালত পর্যবেক্ষণ ব্যবস্থা জোরদার করায় বছরের প্রথম ভাগের তুলনায় জুনে মামলা কমেছে ৩২ শতাংশ। এর বিপরীতে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে করা মামলার ক্ষেত্রে অগ্রগতি কম বলে গণমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয়েছে।

নারী নির্যাতনের মামলা বছরের পর বছর ঝুলে থাকার খবর উদ্বেগজনক। বিচারপ্রার্থীদের হয়রানি ও ভোগান্তির কথা সর্বজনবিদিত। প্রসঙ্গক্রমে বলা যায়, ধর্ষণ মামলার বিচারপ্রার্থীদের থানা থেকে আদালত পর্যন্ত অশেষ হয়রানি পোহাতে হয়। নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ধর্ষণ মামলা নির্ধারিত ১৮০ দিনের মধ্যে শেষ করার কথা বলা হয়। তবে এই সময়সীমা প্রায় ক্ষেত্রেই মানা হয় না। ধর্ষণের অসংখ্য মামলা বছরের পর বছর ঝুলে থাকার নজির রয়েছে। তদন্ত আর অভিযোগ গঠনে অনেক সময় চলে যায়। রহস্যজনক কারণে পুলিশ মামলার আসামিদের খুঁজে পায় না। অথবা দেখা যায়, আসামিদের খুঁজে পেলেও তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগের প্রমাণ পায় না।

নারী নির্যাতনের মামলার নিষ্পত্তির পথে যেসব অসংগতি আছে তার অবসান ঘটাতে হবে। তদন্ত ও আইনি বিধানসমূহ সঠিকভাবে প্রতিপালিত হচ্ছে কি না, সে বিষয়ে শক্তিশালী মনিটরিং ব্যবস্থা প্রবর্তন করতে হবে। নির্ধারিত সময়ে তদন্ত ও বিচার শেষ করতে হবে। পুলিশ, আইনজীবীসহ মামলার বিচারসংশ্লিষ্ট সবাই দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করলে পরিস্থিতির পরিবর্তন হতে পারে।

back to top