alt

উপ-সম্পাদকীয়

খুলনায় একুশে বইমেলার মুগ্ধতা

চিরঞ্জীব চ্যাটার্জী

: মঙ্গলবার, ২০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

ফেব্রুয়ারির বইমেলা বলতেই প্রথমে প্রতিটি বাঙালির মানসপটে যে মেলাটি উঁকি দিয়ে ওঠে তা হচ্ছেÑ ঢাকার বাংলা একাডেমির ঐতিহ্যবাহী ‘অমর একুশে বইমেলা’ (পূর্ব নাম অমর একুশে গ্রন্থমেলা); কিন্তু অনেকেরই হয়তো অজানা এই একই সময়ে একই উপলক্ষে প্রায় প্রতি বছরই খুলনা বিভাগীয় সরকারি গণগ্রন্থাগারেও একটি বইমেলা অনুষ্ঠিত হয়। যেটি ‘একুশে বইমেলা-খুলনা’ নামেই বিশেষভাবে পরিচিত। এবারও মেলাটি যথাসময়ে অর্থাৎ ফেব্রুয়ারির ১ তারিখেই শুরু হয়েছে এবং যা ফেব্রুয়ারির ২৯ তারিখ পর্যন্ত চলবে। মেলা চলাকালীন প্রায় প্রতিদিনই মেলা প্রাঙ্গণে ক্রেতা-বিক্রেতা ও দর্শনার্থীদের উপস্থিতিও এবার যথেষ্ট উৎসাহব্যঞ্জক। বই ক্রয়-বিক্রয়ের পাশাপাশি প্রতিদিনই মেলা মঞ্চে তারা উপভোগ করেছেন বিভিন্ন গুণী শিল্পী-সাহিত্যিকদের বিশেষ সব পরিবেশনা। সব মিলিয়ে বাহান্নর ভাষাশহিদের স্মরণে মেলাটি প্রতিবারের মতো এবারো প্রতিদিনই যেন দিন গড়িয়ে রাত্রি মুগ্ধতায় প্রজ্বালিত হয়ে উঠছে!

অবশ্য মেলাটি বর্তমান পর্যায়ে যে খুব সহজে এসেছে তা নয়। নানান চড়াই-উতরাই পেরিয়েই মেলাটি বর্তমানে এ পর্যায়ে পৌঁছেছে। এর অতীত সম্পর্কে যতটা জানা যায় তা হচ্ছেÑ বিগত ২০১০ সাল থেকে মেলাটি খুলনা বিভাগীয় সরকারি গণগ্রন্থাগার ও খুলনা জেলা প্রশাসনের যৌথ উদ্যোগে মাসব্যাপী পরিচালিত হলেও পূর্বে এটি স্থানীয় একটি সাহিত্য সংগঠন ‘সাহিত্য সংসদ’ ও খুলনা বিভাগীয় সরকারি গণগ্রন্থাগারের যৌথ উদ্যোগে শুধু ‘বই মেলা’ নামেই পরিচালিত হতো। তখন মেলার সময়সীমা ও পরিসরও ছিল খুবই সংক্ষিপ্ত। এছাড়া গত ২০২০-২০২২ সাল পর্যন্ত সময়ে কোভিড-১৯ বৈশ্বিক মহামারির কারণেও মেলাটি অনেকটা সংক্ষিপ্ত পরিসরে পরিচালিত হয়। গত ২০২৩ সাল থেকে অবশ্য মেলাটি আবারও মাসব্যাপী রূপ লাভ করে। অর্থাৎ ফেব্রুয়ারির ১ তারিখে শুরু হয়ে তা ফেব্রুয়ারি মাসজুড়েই চলে।

সঙ্গত কারণে এবারও তাই ফেব্রুয়ারিজুড়ে চলার লক্ষ্য নিয়েই মেলাটি তার যাত্রা শুরু করেছে। মেলাটিতে এবার মোট প্রায় ১০০টির মতো বইয়ের স্টলসহ বেশ কিছু হালকা খাবারের স্টলও স্থান পেয়েছে।

অন্যদিকে প্রতিবারের মতো এবারও ক্রেতা-বিক্রেতা ও দর্শনার্থীরা বই ক্রয়-বিক্রয়ের পাশাপাশি এর মূলমঞ্চে বিভিন্ন গুণী শিল্পী-সাহিত্যিকদের বিশেষ সব পরিবেশনা উপভোগ করেছেন। সঙ্গীত, নৃত্য, আবৃত্তি, সেমিনার, নতুন গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন সবই তারা উপভোগ করেছেন; উপভোগ করছেন মেলাটির প্রতিদিনের সান্ধ্য অধিবেশনজুড়ে।

কিন্তু এই যে এতো-এতো আছের ভিড়ে নেই-নেই শব্দের উপস্থিতিও এখনো কম নয় এখানে। মেলাটিতে আয়োজক হিসেব জেলা প্রশাসনের বিভিন্ন তৎপরতা দৃশ্যমান হলেও রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতার বিষয়ে তাদের সহায়তা কতটা তা বলা মুশকিল। এ বিষয়ে যতটা জানা যায়, বরাবরই স্টল বরাদ্দের টাকা ও দু-একটি ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানের স্পন্সরশিপই নাকি মেলার মূল অর্থনৈতিক ভিত্তি হিসেবে কাজ করে। অথচ আমাদের সবারই জানা, ঢাকার বাংলা একাডেমির অমর একুশে বইমেলার মূল নিয়ন্ত্রণ এখন সরকারের সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের ওপরই ন্যন্ত থাকে। এ বিষয়ে খুলনার কোনো কোনো সাহিত্যপ্রেমী আশঙ্কা করে বলেন, এখনই মেলাটিকে সরকারের সর্বোচ্চ সুদৃষ্টিতে পৌঁছে দিতে না পারলে ভবিষ্যতে মেলাটি এভাবে আর খুব বেশি দূর এগোবে বলে মনে হয় না। একই সাথে এর স্থান সংকুলানের বিষয়েও তারা আয়োজকদের সুদৃষ্টি কামনা করেন।

অনেকে আবার মেলাটিতে বইয়ের স্টল ভিন্ন অন্য স্টলের বরাদ্দ না দেয়াসহ মেলা ও বইমেলার পার্থক্য রক্ষা বিষয়েও বরাবরই গুরুত্বারোপ করে থাকেন। অনেকে অবশ্য বিষয়টিকে সহনশীল দৃষ্টিতে দেখে মেলাটিকে যে কোনভাবে রক্ষার পক্ষেই মত দেন।

এখন বিষয় হচ্ছেÑ পৃথিবীর সব বইমেলার চরিত্রই যে এক তা কিন্তু নয়। যেমন- বিশ্বের অন্যতম ঐতিহ্যবাহী দুটি বইমেলা জার্মানির ‘ফ্রাঙ্কফুর্ট’ ও ইংল্যান্ডের ‘লন্ডন বইমেলা’; যার প্রথমটিতে মেলার শেষ সময়ে (৫ম দিন) বই ক্রয়-বিক্রয়ের কিছুটা সুযোগ থাকলেও দ্বিতীয়টিতে সে সুযোগ একদমই থাকে না। অর্থাৎ মেলা দুটি মূলত বইয়ের প্রদর্শনী বা প্রচারকেই বিশেষভাবে গুরুত্ব দিয়ে থাকে। আর বই ভিন্ন অন্য স্টল বলতে এ মেলা দুটিতে সরকারি-বেসরকারি ও আন্তর্জাতিক কিছু তথ্য ও সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের প্রদর্শনী স্টল স্থান পায়।

অন্যদিকে হংকং বইমেলা, কোলকাতা আন্তর্জাতিক পুস্তক মেলা ও আমাদের বাংলা একাডেমির অমর একুশে বইমেলার ক্ষেত্রে মূলত বইয়ের খুচরা ক্রয়-বিক্রয়কেই বিশেষভাবে উৎসাহিত করা হয়। এর প্যাভিলিয়নে বইয়ের স্টল ভিন্ন কিছু সরকারি-বেসরকারি তথ্য ও সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের প্রদর্শনী স্টল স্থান পায়। অবশ্য কোলকাতা বইমেলা ও হংকং বইমেলাতে কিছু আন্তর্জাতিক সংস্থার প্রদর্শনী স্টলেরও প্রচারণার সুযোগ থাকে।

অর্থাৎ বিশ্বের মর্যাদাপূর্ণ বইমেলাগুলোকে মোটামুটি দুই শ্রেণীতে দেখতে পাই আমারা। একটি শ্রেণীর মূল লক্ষ্য বইয়ের প্রদর্শনী বা প্রচার এবং অন্যটির লক্ষ্য বইয়ের ক্রয়-বিক্রয় বা খুচরা ক্রয়-বিক্রয়; কিন্তু বিস্ময়ের কারণ এই যে, এ উভয় শ্রেণীর মেলার মধ্যেই একটি বিশেষ সাদৃশ্য প্রস্ফুটিত হয়ে ওঠে; আর তা হচ্ছেÑ বইয়ের প্রতি মানুষের চিরন্তন ভালোবাসার প্রস্ফুট! আর আমার তো মনে হয় এটিই আসল; একটি সার্থক বইমেলা সৃষ্টিতে এর থেকে বড় উপাদান আর কী হতে পারে।

আর বাধা বা সীমাবদ্ধতা? সে কোথায় থাকে না বলেন! সেসব অতিক্রম করে এগিয়ে যাওয়াটাই তো আসল, তাই নয় কী? এই যে বই আর বইয়ের সুবাসিত ঘ্রাণে ভাষা শহিদদের শ্রদ্ধা নিবেদন, কতো যে সে মান-অভিমান, হাজারও স্মৃতি-বিস্মৃতির দ্বন্দ্ব, বিক্ষিপ্ত হাজারও বাদামের অনিয়ম, কত যে সে বিচিত্র রাত্রি মুগ্ধতাÑ এগুলোই বা আমাদের কম কিসে!

[লেখক : প্রভাষক, ফুলতলা মোজাম মহলদার কলেজ, খুলনা]

বিশ্ব ধরিত্রী দিবস

সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যুর মিছিলের শেষ কোথায়

খুব জানতে ইচ্ছে করে

কোন দিকে মোড় নিচ্ছে মধ্যপ্রাচ্যের সংকট?

কৃষিগুচ্ছ : ভর্তির আবেদনের নূ্যূনতম যোগ্যতা ও ফলাফল প্রস্তুতিতে বৈষম্য

ছবি

গণপরিবহনে নৈরাজ্যের শেষ কোথায়

ছাত্র রাজনীতি : পক্ষে-বিপক্ষে

ছবি

বি আর আম্বেদকর : নিম্নবর্গের মানুষের প্রতিনিধি

চেকের মামলায় আসামির মুক্তির পথ কী

রাম-নবমী : হিন্দুত্বের নয়া গবেষণাগার

‘একটি গ্রাম একটি পণ্য’ উদ্যোগ কি সফল হবে

কিশোর গ্যাং : সমস্যার মূলে যেতে হবে

গীতি চলচ্চিত্র ‘কাজল রেখা’ : সুস্থধারার চলচ্চিত্র বিকাশ ঘটুক

ছবি

ঋতুভিত্তিক চিরায়ত বাঙালি সংস্কৃতি

ছবি

স্মরণ : কাঙ্গাল হরিনাথ মজুমদার

ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস

দাবদাহে সুস্থ থাকবেন কীভাবে

কত দিন পরে এলে, একটু শোনো

রম্যগদ্য : আনন্দ, দ্বিগুণ আনন্দ...

ছবি

ইতিহাসের এক অবিস্মরণীয় নাম

বৈসাবি : ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর বর্ষবরণ উৎসব

‘ইন্ডিয়া আউট’ ক্যাম্পেইন

উদার-উদ্দাম বৈশাখ চাই

ঈদ নিয়ে আসুক শান্তি ও সমৃদ্ধি, বিস্তৃত হোক সম্প্রীতি ও সৌহার্দ

প্রসঙ্গ: বিদেশি ঋণ

ছাত্ররাজনীতি কি খারাপ?

জাকাত : বিশ্বের প্রথম সামাজিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা

বাংলাদেশ স্কাউটস দিবস : শুরুর কথা

ছবি

সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দৃষ্টান্ত

প্রবাসীর ঈদ-ভাবনা

বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস

ধানের ফলন বাড়াতে ক্লাইমেট স্মার্ট গুটি ইউরিয়া প্রযুক্তি

কমিশন কিংবা ভিজিটে জমি রেজিস্ট্রির আইনি বিধান ও প্রাসঙ্গিকতা

ছবি

ঈদের অর্থনীতি

পশ্চিমবঙ্গে ভোটের রাজনীতিতে ‘পোস্ট পার্টিশন সিনড্রম’

শিক্ষকের বঞ্চনা, শিক্ষকের বেদনা

tab

উপ-সম্পাদকীয়

খুলনায় একুশে বইমেলার মুগ্ধতা

চিরঞ্জীব চ্যাটার্জী

মঙ্গলবার, ২০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

ফেব্রুয়ারির বইমেলা বলতেই প্রথমে প্রতিটি বাঙালির মানসপটে যে মেলাটি উঁকি দিয়ে ওঠে তা হচ্ছেÑ ঢাকার বাংলা একাডেমির ঐতিহ্যবাহী ‘অমর একুশে বইমেলা’ (পূর্ব নাম অমর একুশে গ্রন্থমেলা); কিন্তু অনেকেরই হয়তো অজানা এই একই সময়ে একই উপলক্ষে প্রায় প্রতি বছরই খুলনা বিভাগীয় সরকারি গণগ্রন্থাগারেও একটি বইমেলা অনুষ্ঠিত হয়। যেটি ‘একুশে বইমেলা-খুলনা’ নামেই বিশেষভাবে পরিচিত। এবারও মেলাটি যথাসময়ে অর্থাৎ ফেব্রুয়ারির ১ তারিখেই শুরু হয়েছে এবং যা ফেব্রুয়ারির ২৯ তারিখ পর্যন্ত চলবে। মেলা চলাকালীন প্রায় প্রতিদিনই মেলা প্রাঙ্গণে ক্রেতা-বিক্রেতা ও দর্শনার্থীদের উপস্থিতিও এবার যথেষ্ট উৎসাহব্যঞ্জক। বই ক্রয়-বিক্রয়ের পাশাপাশি প্রতিদিনই মেলা মঞ্চে তারা উপভোগ করেছেন বিভিন্ন গুণী শিল্পী-সাহিত্যিকদের বিশেষ সব পরিবেশনা। সব মিলিয়ে বাহান্নর ভাষাশহিদের স্মরণে মেলাটি প্রতিবারের মতো এবারো প্রতিদিনই যেন দিন গড়িয়ে রাত্রি মুগ্ধতায় প্রজ্বালিত হয়ে উঠছে!

অবশ্য মেলাটি বর্তমান পর্যায়ে যে খুব সহজে এসেছে তা নয়। নানান চড়াই-উতরাই পেরিয়েই মেলাটি বর্তমানে এ পর্যায়ে পৌঁছেছে। এর অতীত সম্পর্কে যতটা জানা যায় তা হচ্ছেÑ বিগত ২০১০ সাল থেকে মেলাটি খুলনা বিভাগীয় সরকারি গণগ্রন্থাগার ও খুলনা জেলা প্রশাসনের যৌথ উদ্যোগে মাসব্যাপী পরিচালিত হলেও পূর্বে এটি স্থানীয় একটি সাহিত্য সংগঠন ‘সাহিত্য সংসদ’ ও খুলনা বিভাগীয় সরকারি গণগ্রন্থাগারের যৌথ উদ্যোগে শুধু ‘বই মেলা’ নামেই পরিচালিত হতো। তখন মেলার সময়সীমা ও পরিসরও ছিল খুবই সংক্ষিপ্ত। এছাড়া গত ২০২০-২০২২ সাল পর্যন্ত সময়ে কোভিড-১৯ বৈশ্বিক মহামারির কারণেও মেলাটি অনেকটা সংক্ষিপ্ত পরিসরে পরিচালিত হয়। গত ২০২৩ সাল থেকে অবশ্য মেলাটি আবারও মাসব্যাপী রূপ লাভ করে। অর্থাৎ ফেব্রুয়ারির ১ তারিখে শুরু হয়ে তা ফেব্রুয়ারি মাসজুড়েই চলে।

সঙ্গত কারণে এবারও তাই ফেব্রুয়ারিজুড়ে চলার লক্ষ্য নিয়েই মেলাটি তার যাত্রা শুরু করেছে। মেলাটিতে এবার মোট প্রায় ১০০টির মতো বইয়ের স্টলসহ বেশ কিছু হালকা খাবারের স্টলও স্থান পেয়েছে।

অন্যদিকে প্রতিবারের মতো এবারও ক্রেতা-বিক্রেতা ও দর্শনার্থীরা বই ক্রয়-বিক্রয়ের পাশাপাশি এর মূলমঞ্চে বিভিন্ন গুণী শিল্পী-সাহিত্যিকদের বিশেষ সব পরিবেশনা উপভোগ করেছেন। সঙ্গীত, নৃত্য, আবৃত্তি, সেমিনার, নতুন গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন সবই তারা উপভোগ করেছেন; উপভোগ করছেন মেলাটির প্রতিদিনের সান্ধ্য অধিবেশনজুড়ে।

কিন্তু এই যে এতো-এতো আছের ভিড়ে নেই-নেই শব্দের উপস্থিতিও এখনো কম নয় এখানে। মেলাটিতে আয়োজক হিসেব জেলা প্রশাসনের বিভিন্ন তৎপরতা দৃশ্যমান হলেও রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতার বিষয়ে তাদের সহায়তা কতটা তা বলা মুশকিল। এ বিষয়ে যতটা জানা যায়, বরাবরই স্টল বরাদ্দের টাকা ও দু-একটি ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানের স্পন্সরশিপই নাকি মেলার মূল অর্থনৈতিক ভিত্তি হিসেবে কাজ করে। অথচ আমাদের সবারই জানা, ঢাকার বাংলা একাডেমির অমর একুশে বইমেলার মূল নিয়ন্ত্রণ এখন সরকারের সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের ওপরই ন্যন্ত থাকে। এ বিষয়ে খুলনার কোনো কোনো সাহিত্যপ্রেমী আশঙ্কা করে বলেন, এখনই মেলাটিকে সরকারের সর্বোচ্চ সুদৃষ্টিতে পৌঁছে দিতে না পারলে ভবিষ্যতে মেলাটি এভাবে আর খুব বেশি দূর এগোবে বলে মনে হয় না। একই সাথে এর স্থান সংকুলানের বিষয়েও তারা আয়োজকদের সুদৃষ্টি কামনা করেন।

অনেকে আবার মেলাটিতে বইয়ের স্টল ভিন্ন অন্য স্টলের বরাদ্দ না দেয়াসহ মেলা ও বইমেলার পার্থক্য রক্ষা বিষয়েও বরাবরই গুরুত্বারোপ করে থাকেন। অনেকে অবশ্য বিষয়টিকে সহনশীল দৃষ্টিতে দেখে মেলাটিকে যে কোনভাবে রক্ষার পক্ষেই মত দেন।

এখন বিষয় হচ্ছেÑ পৃথিবীর সব বইমেলার চরিত্রই যে এক তা কিন্তু নয়। যেমন- বিশ্বের অন্যতম ঐতিহ্যবাহী দুটি বইমেলা জার্মানির ‘ফ্রাঙ্কফুর্ট’ ও ইংল্যান্ডের ‘লন্ডন বইমেলা’; যার প্রথমটিতে মেলার শেষ সময়ে (৫ম দিন) বই ক্রয়-বিক্রয়ের কিছুটা সুযোগ থাকলেও দ্বিতীয়টিতে সে সুযোগ একদমই থাকে না। অর্থাৎ মেলা দুটি মূলত বইয়ের প্রদর্শনী বা প্রচারকেই বিশেষভাবে গুরুত্ব দিয়ে থাকে। আর বই ভিন্ন অন্য স্টল বলতে এ মেলা দুটিতে সরকারি-বেসরকারি ও আন্তর্জাতিক কিছু তথ্য ও সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের প্রদর্শনী স্টল স্থান পায়।

অন্যদিকে হংকং বইমেলা, কোলকাতা আন্তর্জাতিক পুস্তক মেলা ও আমাদের বাংলা একাডেমির অমর একুশে বইমেলার ক্ষেত্রে মূলত বইয়ের খুচরা ক্রয়-বিক্রয়কেই বিশেষভাবে উৎসাহিত করা হয়। এর প্যাভিলিয়নে বইয়ের স্টল ভিন্ন কিছু সরকারি-বেসরকারি তথ্য ও সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের প্রদর্শনী স্টল স্থান পায়। অবশ্য কোলকাতা বইমেলা ও হংকং বইমেলাতে কিছু আন্তর্জাতিক সংস্থার প্রদর্শনী স্টলেরও প্রচারণার সুযোগ থাকে।

অর্থাৎ বিশ্বের মর্যাদাপূর্ণ বইমেলাগুলোকে মোটামুটি দুই শ্রেণীতে দেখতে পাই আমারা। একটি শ্রেণীর মূল লক্ষ্য বইয়ের প্রদর্শনী বা প্রচার এবং অন্যটির লক্ষ্য বইয়ের ক্রয়-বিক্রয় বা খুচরা ক্রয়-বিক্রয়; কিন্তু বিস্ময়ের কারণ এই যে, এ উভয় শ্রেণীর মেলার মধ্যেই একটি বিশেষ সাদৃশ্য প্রস্ফুটিত হয়ে ওঠে; আর তা হচ্ছেÑ বইয়ের প্রতি মানুষের চিরন্তন ভালোবাসার প্রস্ফুট! আর আমার তো মনে হয় এটিই আসল; একটি সার্থক বইমেলা সৃষ্টিতে এর থেকে বড় উপাদান আর কী হতে পারে।

আর বাধা বা সীমাবদ্ধতা? সে কোথায় থাকে না বলেন! সেসব অতিক্রম করে এগিয়ে যাওয়াটাই তো আসল, তাই নয় কী? এই যে বই আর বইয়ের সুবাসিত ঘ্রাণে ভাষা শহিদদের শ্রদ্ধা নিবেদন, কতো যে সে মান-অভিমান, হাজারও স্মৃতি-বিস্মৃতির দ্বন্দ্ব, বিক্ষিপ্ত হাজারও বাদামের অনিয়ম, কত যে সে বিচিত্র রাত্রি মুগ্ধতাÑ এগুলোই বা আমাদের কম কিসে!

[লেখক : প্রভাষক, ফুলতলা মোজাম মহলদার কলেজ, খুলনা]

back to top