alt

উপ-সম্পাদকীয়

কৃষকের পাশে দাঁড়াতে হবে

আর কে চৌধুরী

: বৃহস্পতিবার, ০৫ মে ২০২২
image

হাওরে এ বছর ফসলের যে ক্ষতি হয়েছে তা এক কথায় অবর্ণনীয়। করোনার আঘাত মোকাবিলা করে দেশ যখন মেরুদ- সোজা করে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছিল তখন রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ বাংলাদেশের মানুষকেও ভয়াবহ সংকটে ঠেলে দেয়। জ্বালানি তেল, ভোজ্যতেল ও গমের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় দেশের অর্থনীতির ওপর বিষনিঃশ্বাস ফেলতে শুরু করে। এ মহাবিপদের সময় ত্রিশঙ্কু অবস্থার সৃষ্টি করেছে আগাম বন্যায় দেশের হাওর এলাকায় ফসল মার খাওয়ার ঘটনা।

হাওর এলাকায় আগাম বন্যা এলেই নষ্ট হয়ে যায় মাথার ঘাম পায়ে ফেলা পরিশ্রমের ফসল। বন্যা রোধের জন্য নির্মিত বাঁধে শুভঙ্করের ফাঁকি থাকায় শুধু ওই এলাকা নয়, সারা দেশকেই খাদ্যাভাবের দিকে ঠেলে দেয়। এ বছরও আগাম বন্যায় ভেসে গেছে হাওরের বিস্তীর্ণ এলাকার ফসল। সর্বশেষ সুনামগঞ্জে বাঁধ ভেঙে তলিয়ে গেছে হালির হাওরও। নেত্রকোনায় মাছ ধরতে বাঁধ কেটে দেওয়ায় পানির নিচে ডুবে গেছে কৃষকের বিস্তর জমি। সোমবার মধ্যরাতে হাওরের আছানপুর বাঁধ ভেঙে প্রচ- বেগে পানি ঢুকতে শুরু করে। রাত পেরিয়ে বিকাল হতেই তলিয়ে যায় বৃহৎ এ হাওরটি। চলতি মৌসুমে হালির হাওরে ৫ হাজার ৭৫০ হেক্টর জমিতে বোরো ধান আবাদ করেছিল কৃষক। ইতোমধ্যে হাওরের প্রায় ৬০ ভাগ ধান কাটা হয়েছে।

বাঁধ ভেঙে পানি ঢোকায় তলিয়ে গেছে অবশিষ্ট ধান। বাঁধ ভাঙার আকস্মিক ঘটনায় বহু কৃষকের মাড়াই করা ধান পানিতে ভেসে গেছে। সুনামগঞ্জে ৩১টি হাওরের ফসলরক্ষা বাঁধ ভেঙে প্রায় ২০ হাজার হেক্টর জমির বোরো ফসল তলিয়ে গেছে বলে জানিয়েছে হাওর বাঁচাও আন্দোলন। হাওরসমৃদ্ধ অন্যান্য জেলায়ও ফসলহানি হয়েছে ব্যাপকভাবে। হাওর এলাকার কৃষকের দুর্দিনে তাদের পাশে সরকারকে দাঁড়াতে হবে দৃঢ়ভাবে। হাওরের বাঁধ সুরক্ষায় নিতে হবে কৃষকবান্ধব নীতি।

বাঁধ নির্মাণ ও মেরামতে অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ অনেক দিনের। জরুরিভিত্তিতে এসবের তদন্ত হওয়া প্রয়োজন। অনিয়মের প্রমাণ পাওয়া গেলে কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে। বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, শুধু বাঁধ মেরামত করেই হাওরাঞ্চল রক্ষা করা যাবে না। এজন্য আশু ও দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা নিতে হবে। হাওরাঞ্চলে থাকা নদীগুলোর গভীরতা কমে যাওয়ায় উজানের পানি নদী দিয়ে নামতে না পেরে দুকূল ভাসিয়ে দিচ্ছে। তাই যত দ্রুত সম্ভব নদীগুলো খননের উদ্যোগ নিতে হবে। পাশাপাশি বাঁধগুলো সঠিকভাবে মেরামত করতে হবে। একই সঙ্গে আগাম বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে দাঁড়াতে হবে।

[লেখক : সাবেক চেয়ারম্যান, রাজউক]

আলু উৎপাদনে যন্ত্রের ব্যবহার

বাংলাদেশ বার কাউন্সিল : ‘নেই কাজ তো খই ভাজ’

ডিজিটাল যুগের ডিজিটাল প্রকাশ মাধ্যম

সাম্প্রতিক সংকট মোকাবিলায় বিবেচ্য বিষয়

ই-কমার্সের জবাবদিহিতা

ইভিএমে আস্থার সংকট

মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা : কাড়ছে প্রাণ, বাড়ছে পঙ্গুত্ব

চাকরিতে প্রবেশের বয়স নিয়ে বিতর্ক

ছবি

পূর্ণাঙ্গ আম গবেষণা প্রতিষ্ঠান কেন নেই?

দুর্নীতি ও দোষারোপের রাজনীতি

মমতা এবং আরএসএসের সম্পর্ক প্রসঙ্গে

ভূমি অপরাধ আইন এবং আদিবাসী

ঝুঁকিতে অর্থনীতি : করণীয় কী

চুকনগর : বিশ্বের স্বাধীনতা ইতিহাসে অন্যতম গণহত্যা

পিকের মেধা-প্রতিভা

পেশার অর্জন

প্রসঙ্গ : ধর্মীয় অনুভূতি

নির্বাচনই কি একমাত্র লক্ষ্য?

ছবি

হরপ্রাসাদের ‘তৈল’ এবং উন্নয়নের পথরেখা

নদী রক্ষায় চাই কার্যকর ব্যবস্থা

ডিজিটাল যুগের ডিজিটাল প্রকাশমাধ্যম

সংবাদ ও বাংলাদেশ

জলবায়ু পরিবর্তনে গ্লোবাল সাউথের সর্বনাশ

সাইবার অপরাধ ও প্রাসঙ্গিক কথা

ছবি

দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ : সরকারের দায় ও দায়িত্ব

প্রস্তাবিত ভূমি অপরাধ প্রতিরোধ ও প্রতিকার আইন

ছবি

শুভ বুদ্ধপূর্ণিমা

‘চাচা চৌকিদার বিধায় থানা ভাতিজার’

পশ্চিমবঙ্গবাসীর একমাত্র ভবিতব্য

তেলজাতীয় ফসলে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনের গুরুত্ব

প্রশাসন ক্যাডার কেন প্রথম পছন্দ

মাদক মামলা ও বাস্তবতা

সড়ক দুর্ঘটনা কি নিয়ন্ত্রণে আসবে না

বাংলাদেশেও কি শ্রীলঙ্কার মতো পরিস্থিতি হতে পারে

ছবি

পরিবারতন্ত্র ও শ্রীলঙ্কার অস্থিরতা

কে বড়?

tab

উপ-সম্পাদকীয়

কৃষকের পাশে দাঁড়াতে হবে

আর কে চৌধুরী

image

বৃহস্পতিবার, ০৫ মে ২০২২

হাওরে এ বছর ফসলের যে ক্ষতি হয়েছে তা এক কথায় অবর্ণনীয়। করোনার আঘাত মোকাবিলা করে দেশ যখন মেরুদ- সোজা করে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছিল তখন রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ বাংলাদেশের মানুষকেও ভয়াবহ সংকটে ঠেলে দেয়। জ্বালানি তেল, ভোজ্যতেল ও গমের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় দেশের অর্থনীতির ওপর বিষনিঃশ্বাস ফেলতে শুরু করে। এ মহাবিপদের সময় ত্রিশঙ্কু অবস্থার সৃষ্টি করেছে আগাম বন্যায় দেশের হাওর এলাকায় ফসল মার খাওয়ার ঘটনা।

হাওর এলাকায় আগাম বন্যা এলেই নষ্ট হয়ে যায় মাথার ঘাম পায়ে ফেলা পরিশ্রমের ফসল। বন্যা রোধের জন্য নির্মিত বাঁধে শুভঙ্করের ফাঁকি থাকায় শুধু ওই এলাকা নয়, সারা দেশকেই খাদ্যাভাবের দিকে ঠেলে দেয়। এ বছরও আগাম বন্যায় ভেসে গেছে হাওরের বিস্তীর্ণ এলাকার ফসল। সর্বশেষ সুনামগঞ্জে বাঁধ ভেঙে তলিয়ে গেছে হালির হাওরও। নেত্রকোনায় মাছ ধরতে বাঁধ কেটে দেওয়ায় পানির নিচে ডুবে গেছে কৃষকের বিস্তর জমি। সোমবার মধ্যরাতে হাওরের আছানপুর বাঁধ ভেঙে প্রচ- বেগে পানি ঢুকতে শুরু করে। রাত পেরিয়ে বিকাল হতেই তলিয়ে যায় বৃহৎ এ হাওরটি। চলতি মৌসুমে হালির হাওরে ৫ হাজার ৭৫০ হেক্টর জমিতে বোরো ধান আবাদ করেছিল কৃষক। ইতোমধ্যে হাওরের প্রায় ৬০ ভাগ ধান কাটা হয়েছে।

বাঁধ ভেঙে পানি ঢোকায় তলিয়ে গেছে অবশিষ্ট ধান। বাঁধ ভাঙার আকস্মিক ঘটনায় বহু কৃষকের মাড়াই করা ধান পানিতে ভেসে গেছে। সুনামগঞ্জে ৩১টি হাওরের ফসলরক্ষা বাঁধ ভেঙে প্রায় ২০ হাজার হেক্টর জমির বোরো ফসল তলিয়ে গেছে বলে জানিয়েছে হাওর বাঁচাও আন্দোলন। হাওরসমৃদ্ধ অন্যান্য জেলায়ও ফসলহানি হয়েছে ব্যাপকভাবে। হাওর এলাকার কৃষকের দুর্দিনে তাদের পাশে সরকারকে দাঁড়াতে হবে দৃঢ়ভাবে। হাওরের বাঁধ সুরক্ষায় নিতে হবে কৃষকবান্ধব নীতি।

বাঁধ নির্মাণ ও মেরামতে অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ অনেক দিনের। জরুরিভিত্তিতে এসবের তদন্ত হওয়া প্রয়োজন। অনিয়মের প্রমাণ পাওয়া গেলে কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে। বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, শুধু বাঁধ মেরামত করেই হাওরাঞ্চল রক্ষা করা যাবে না। এজন্য আশু ও দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা নিতে হবে। হাওরাঞ্চলে থাকা নদীগুলোর গভীরতা কমে যাওয়ায় উজানের পানি নদী দিয়ে নামতে না পেরে দুকূল ভাসিয়ে দিচ্ছে। তাই যত দ্রুত সম্ভব নদীগুলো খননের উদ্যোগ নিতে হবে। পাশাপাশি বাঁধগুলো সঠিকভাবে মেরামত করতে হবে। একই সঙ্গে আগাম বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে দাঁড়াতে হবে।

[লেখক : সাবেক চেয়ারম্যান, রাজউক]

back to top