alt

বাংলাদেশ

অকল্পনীয় সংখ্যায় কুকুরের কারণে পযর্টকসহ সেন্টমার্টিনবাসীরা রীতিমতো আতঙ্কে

সংবাদ :
  • জসিম সিদ্দিকী, কক্সবাজার
image
শনিবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯

কক্সবাজারের টেকনাফ সেন্টমার্টিনে কুকুরের উপদ্রবে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে পর্যটক এবং দ্বীপের বাসিন্দারা। প্রায় ১০ বর্গকিলোমিটার আয়তনের ছোট্ট এই দ্বীপে ৫ হাজারের মতো কুকুর রয়েছে বলে স্থানীয়দের দাবি। যে দ্বীপে প্রায় ১০ হাজার মানুষের বসবাস সেখানে এতো কুকুর পর্যটক এবং স্থানীয়দের রীতিমত ভাবিয়ে তুলছেন। এসব কুকুর বেশিরভাগই বেওয়ারিশ বলে জানা গেছে। এদিকে কুকুরের কারণে দ্বীপের অনেক অভিভাবক, ছেলে-মেয়েদের স্কুল মাদরাসায় পাঠাতেও ভয় পাচ্ছেন। জানা যায়, দ্বীপের বাজার, সী-বীচ এবং জেটির পার্শ্ববর্তী এলাকায় বেওয়ারিশ কুকুরের উপদ্রব বেশি রয়েছে। বিষয়টিকে পর্যটকসহ স্থানীয় বাসিন্দারা পর্যটনের জন্য ক্ষতির কারণ হিসেবে দেখছেন। পর্যটকরা ভোর এবং বৈকালিন সময়ে সমুদ্রে অবাধে বিচরণ করতে পারে। সেই জন্য দ্রুত সময়ে কুকুর নিধন প্রক্রিয়া শুরুর দাবি জানিয়েছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। দ্বীপের জনপ্রতিনিধিরা জানান, গত কয়েকবছর ধরে কুকুর নিধন প্রক্রিয়া বন্ধ রয়েছে। এই কারণে কুকুরের সংখ্যা বহুগুণ বেড়ে গেছে।

চট্টগ্রাম থেকে বেড়াতে আসা এনজিও কর্মী শাহাদত হোছাইন জানান, সেন্টমার্টিনের মতো এত ছোট জায়গায় এতো কুকুর! যা একেবারেই অকল্পনীয়। কুকুরের জ্বালায় বীচে ঘুরাঘুরি করাটা আতঙ্কের ব্যাপার। দ্বীপে বেড়াতে আসা আরেক পর্যটক জানান, কুকুরে শঙ্কিত পর্যটকরা। জীবনেও দেখিনি এত কুকুর! জনধিক বিবেচনায় তিনি কুকুর নিধনের ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

সেন্টমার্টিন ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব নুর আহমদ জানান, দ্বীপে প্রায় ৫ হাজারেরও বেশি বেওয়ারিশ কুকুর রয়েছে। এসব কুকুরের কারণে পযর্টকসহ স্থানীয়রা রীতিমতো আতঙ্কে রয়েছে। তিনি বিষয়টি জেলা এবং উপজেলা পর্যায়ে অনুষ্ঠিত সভায় একাধিকবার উত্থাপন করেছেন জানিয়ে পরিবেশ অধিদপ্তরের বাঁধার কারণে কুকুর নিধন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করা সম্ভব হচ্ছে না বলে জানান।

টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম জানান, আইনী জটিলতার কারণে দ্বীপের বেওয়ারিশ কুকুর নিধন করা যাচ্ছে না। তবে তিনি পর্যটক এবং স্থানীয়দের স্বার্থে বিকল্প ব্যবস্থাপনার কথা জানান।

এই বিষয়ে জানতে পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক নুরুল আমিনের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি কুকুর নিধনের বিষয়ে পরিবেশের কোন বাধা নেই বলে জানান।

ছবি

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় তাণ্ডব : আরও ৩ জন গ্রেফতার

ছবি

বাসচাপায় প্রাণ গেল দুই মোটরসাইকেল আরোহীর

ছবি

উপাচার্যদের দুর্নীতির তদন্ত, কোন ব্যবস্থা নেয়া হয় না

ছবি

বিজিবি দিয়েও ঠেকানো যাচ্ছে না জনস্রোত

ছবি

ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট : সতর্ক বার্তা জনস্বাস্থ্যবিদদের

ছবি

কক্সবাজার শহরে অস্ত্র-গুলিসহ ৩ সন্ত্রাসী আটক

ছবি

ভাড়াটিয়া কর্তৃক অবরুদ্ধ হোটেল কল্লোল’র মালিক!

ছবি

ময়মনসিংহে সিটি কর্পোরেশনের ঈদ উপহার বিতরণ

ছবি

এনার্জিপ্যাকের ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক উদ্বোধন

ছবি

অর্ধেক দামে মোটরসাইকেল দিচ্ছে থলে ডট এক্সওয়াইজেড

ছবি

করোনাকালে অসহায় মানুষের জন্য তাসাউফ ফাউন্ডেশনের “পাশেই আছি” কর্মসূচী পালন

ছবি

অব্যবহৃতই থাকছে আবু নাসের হাসপাতালের পরিচালক, উপ-পরিচালকের বাসভবন

ছবি

বিয়ানীবাজারে ঈদ শপিংয়ে ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড়, মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধি

ছবি

চেয়ারম্যানের অত্যাচার নির্যাতন থেকে বাচঁতে প্রধানমন্ত্রীর সহানুভূতি কামনা

ছবি

নওগাঁয় বিভিন্ন রোগিদের সরকারী সহায়তা প্রদান

ছবি

নারায়ণগঞ্জে করোনা হাসপাতালে বসেছে অক্সিজেন ট্যাংক

ছবি

মামুনুলের রিমান্ড শুনানি পেছাল

ছবি

সিলেটে মাজারে রক্তের ছােপ

ছবি

জাফলংয়ে সিরাত প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণ সম্পন্ন

ছবি

পত্নীতলায় গোল্ডেন তরমুজ চাষে সফল মিজানুর

ছবি

করোনা: গ্রামের মানুষের রঙ্গরস

ছবি

মির্জাপুরে মাটি ব্যবসায়ীর তিনদিনের জেল

ছবি

মির্জাপুরে ঈমামদের সম্মানি প্রদান

বিশেষ মহলের চাপে বন্ধ বাসদের মানবতার বাজার

কিশোরগঞ্জে মনি সিংহ ফরহাদ ট্রাস্টের ত্রাণ

ছবি

করতোয়ার বালু তুলে তীর ভরাট, হুমকিতে সড়ক : ভাঙন আশঙ্কা

সোনাইমুড়িতে যুবককে পিটিয়ে হত্যা : আটক ২

ছবি

অনাবৃষ্টিতে সেচ সংকট বীজতলা ফেটে চৌচির

বাইক হাতে বেপরোয়া কিশোররা : নিত্য দুর্ঘটনা

ফেসবুক স্ট্যাটাসে ধর্ম অবমাননা, আটক : এক

ছবি

শিল্পে ভূগর্ভস্থ পানির ব্যবহার টিউবওয়েলে উঠছে না পানি

পঞ্চগড় সড়কে মৃত্যু ১

ঈশ্বরদীতে হেরোইনসহ যুবক গ্রেফতার

মির্জাগঞ্জে মাস্ক না পড়ায় ৮ জনকে জরিমানা

কলাপাড়ায় যুবকের মরদেহ উদ্ধার

রামেক হাসপাতালে করোনায় মৃত্যু ২

tab

বাংলাদেশ

অকল্পনীয় সংখ্যায় কুকুরের কারণে পযর্টকসহ সেন্টমার্টিনবাসীরা রীতিমতো আতঙ্কে

সংবাদ :
  • জসিম সিদ্দিকী, কক্সবাজার
image
শনিবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯

কক্সবাজারের টেকনাফ সেন্টমার্টিনে কুকুরের উপদ্রবে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে পর্যটক এবং দ্বীপের বাসিন্দারা। প্রায় ১০ বর্গকিলোমিটার আয়তনের ছোট্ট এই দ্বীপে ৫ হাজারের মতো কুকুর রয়েছে বলে স্থানীয়দের দাবি। যে দ্বীপে প্রায় ১০ হাজার মানুষের বসবাস সেখানে এতো কুকুর পর্যটক এবং স্থানীয়দের রীতিমত ভাবিয়ে তুলছেন। এসব কুকুর বেশিরভাগই বেওয়ারিশ বলে জানা গেছে। এদিকে কুকুরের কারণে দ্বীপের অনেক অভিভাবক, ছেলে-মেয়েদের স্কুল মাদরাসায় পাঠাতেও ভয় পাচ্ছেন। জানা যায়, দ্বীপের বাজার, সী-বীচ এবং জেটির পার্শ্ববর্তী এলাকায় বেওয়ারিশ কুকুরের উপদ্রব বেশি রয়েছে। বিষয়টিকে পর্যটকসহ স্থানীয় বাসিন্দারা পর্যটনের জন্য ক্ষতির কারণ হিসেবে দেখছেন। পর্যটকরা ভোর এবং বৈকালিন সময়ে সমুদ্রে অবাধে বিচরণ করতে পারে। সেই জন্য দ্রুত সময়ে কুকুর নিধন প্রক্রিয়া শুরুর দাবি জানিয়েছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। দ্বীপের জনপ্রতিনিধিরা জানান, গত কয়েকবছর ধরে কুকুর নিধন প্রক্রিয়া বন্ধ রয়েছে। এই কারণে কুকুরের সংখ্যা বহুগুণ বেড়ে গেছে।

চট্টগ্রাম থেকে বেড়াতে আসা এনজিও কর্মী শাহাদত হোছাইন জানান, সেন্টমার্টিনের মতো এত ছোট জায়গায় এতো কুকুর! যা একেবারেই অকল্পনীয়। কুকুরের জ্বালায় বীচে ঘুরাঘুরি করাটা আতঙ্কের ব্যাপার। দ্বীপে বেড়াতে আসা আরেক পর্যটক জানান, কুকুরে শঙ্কিত পর্যটকরা। জীবনেও দেখিনি এত কুকুর! জনধিক বিবেচনায় তিনি কুকুর নিধনের ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

সেন্টমার্টিন ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব নুর আহমদ জানান, দ্বীপে প্রায় ৫ হাজারেরও বেশি বেওয়ারিশ কুকুর রয়েছে। এসব কুকুরের কারণে পযর্টকসহ স্থানীয়রা রীতিমতো আতঙ্কে রয়েছে। তিনি বিষয়টি জেলা এবং উপজেলা পর্যায়ে অনুষ্ঠিত সভায় একাধিকবার উত্থাপন করেছেন জানিয়ে পরিবেশ অধিদপ্তরের বাঁধার কারণে কুকুর নিধন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করা সম্ভব হচ্ছে না বলে জানান।

টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম জানান, আইনী জটিলতার কারণে দ্বীপের বেওয়ারিশ কুকুর নিধন করা যাচ্ছে না। তবে তিনি পর্যটক এবং স্থানীয়দের স্বার্থে বিকল্প ব্যবস্থাপনার কথা জানান।

এই বিষয়ে জানতে পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক নুরুল আমিনের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি কুকুর নিধনের বিষয়ে পরিবেশের কোন বাধা নেই বলে জানান।

back to top