alt

বাংলাদেশ

সালথায় সহিংসতায় ক্ষয়ক্ষতি ৩ কোটি টাকা

সংবাদ :
  • কেএম রুবেল, ফরিদপুর
রোববার, ১১ এপ্রিল ২০২১

ফরিদপুরের সালথায় বিভিন্ন সরকারি স্থাপনায় হামলা, ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনায় অন্তত তিন কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে তদন্ত কমিটি প্রতিবেদন জমা দিয়েছে। ১১ এপ্রিল রোববার সকালে জেলা প্রশাসক অতুল সরকারের কাছে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেন তদন্ত কমিটির প্রধান অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আসলাম মোল্লা। তদন্ত কমিটির প্রধান আসলাম মোল্লা বলেন, তদন্তে ক্ষয়ক্ষতির যে বিবরণ পাওয়া গেছে, তাতে প্রায় তিন কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়ার আগে ধ্বংসযজ্ঞের ক্ষয়ক্ষতি নিরূপণে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোছা. তাসলিমা আলী ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মো. আসলাম মোল্যাকে প্রধান করে দুইটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। জেলা প্রশাসক অতুল সরকার বলেন, সালথার সহিংসতার ঘটনায় দুইটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। রোববার একটি কমিটির প্রধান অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মো. আসলাম মোল্যা তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিয়েছেন। তদন্ত প্রতিবেদনে প্রায় তিন কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে। এছাড়া অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোছা. তাসলিমা আলীকে প্রধান করে আরেকটি কমিটি গঠন করা হয়। ওই কমিটির প্রতিবেদন জমা দিতে আরও দুই দিন সময় লাগবে। এদিকে সহিংসতার ঘটনায় জড়িত সন্দেহে আরও ১০ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

এ নিয়ে গ্রেপ্তার ব্যক্তির সংখ্যা দাঁড়ালো ৬১। এর মধ্যে একজন চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। ফরিদপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. জামাল পাশা বলেন, সালথার ঘটনায় এ পর্যন্ত মোট ৬১ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এর মধ্যে মিরান মোল্লা (৩৫) নামের একজন ঢাকায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। এছাড়া দুজন গুলিবিদ্ধ হয়ে গ্রেপ্তার রয়েছেন। তাদের পুলিশি পাহারায় চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। জামাল পাশা বলেন, গ্রেপ্তার ব্যক্তিদের মধ্যে এ পর্যন্ত আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে ৫৮ জনকে। এর মধ্যে ৪৮ জনের রিমান্ড মঞ্জুর হয়েছে। তাদের রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এ ঘটনায় এ পর্যন্ত সালথা থানায় মোট পাঁচটি মামলা করা হয়েছে। সালথা থানার এসআই (উপপরিদর্শক) মিজানুর রহমান, বীর মুক্তিযোদ্ধা বাচ্চু মাতুব্বর, ইউএনওর গাড়িচালক মো. হাশমত আলী, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) কার্যালয়ের নিরাপত্তারক্ষী সমীর বিশ্বাস ও উপজেলা সহকারী কমিশনারের (ভূমি) গাড়িচালক মো. সাগর সিকদার বাদী হয়ে মামলাগুলো দায়ের করেন। মামলায় ২৬১ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা আসামি করা হয়েছে অভিন্ন ৩ থেকে ৪ হাজার জনকে।

প্রসঙ্গত, সোমবার (৫ এপ্রিল) সন্ধ্যায় করোনা মোকাবিলায় কঠোর বিধিনিষেধ কার্যকর করতে দুই আনসার সদস্য ও ব্যক্তিগত সহকারীকে নিয়ে সালথা উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মারুফা সুলতানা খান হিরামণি ফুকরা বাজারে যান। সেখানে তিনি যাওয়ার পর মানুষের জটলা সৃষ্টি হয়।

এ অবস্থায় তিনি ওই স্থান থেকে ফিরে আসেন এবং সেখানে থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মিজানুর রহমানের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল পাঠান। ঘটনাস্থলে পৌঁছানোর সঙ্গে সঙ্গে উত্তেজিত জনতা এসআই মিজানুর রহমানের ওপর হামলা চালান। এতে তার মাথা ফেটে যায়। পরে স্থানীয় জনতা পুলিশের গুলিতে দুইজন নিহত ও বাহিরদিয়া মাদ্রাসার মাওলানা আকরাম হোসেন এবং জনৈক আরেক মাওলানার গ্রেপ্তারের গুজব ছড়িয়ে দেয়। গুজবে কান দিয়ে হাজারো মানুষ এসে থানা ঘেরাও করে। সেই সঙ্গে উপজেলা পরিষদ, থানা, সহকারী কমিশনারের (ভূমি) কার্যালয়, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বাসভবন, উপজেলা কৃষি অফিস, সাব-রেজিস্ট্রি অফিস, উপজেলা চেয়ারম্যানের বাসভবন ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করা হয়। এ সময় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার গাড়ি ও সহকারী কমিশনারের (ভূমি) গাড়ি আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয়া হয়। সালথা উপজেলা সদর এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। পরে সালথা থানা পুলিশের পাশাপাশি ফরিদপুর, বোয়ালমারী, ভাঙ্গা ও নগরকান্দা পুলিশ এবং র‌্যাব ও আনসার সদস্যরা যৌথভাবে ফাঁকা গুলি ও টিয়ারশেল ছুড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর আট সদস্যসহ আহত হন ২০ জন। আহতদের মধ্যে জুবায়ের হোসেন (২৫) ও মিরান মোল্যা (৩৫) নামের দুই যুবক চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

ছবি

চট্টগ্রামের দুর্গম পাহাড়ে ভেজাল মদের কারখানা

ছবি

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় তাণ্ডব : আরও ৩ জন গ্রেফতার

ছবি

বাসচাপায় প্রাণ গেল দুই মোটরসাইকেল আরোহীর

ছবি

উপাচার্যদের দুর্নীতির তদন্ত, কোন ব্যবস্থা নেয়া হয় না

ছবি

বিজিবি দিয়েও ঠেকানো যাচ্ছে না জনস্রোত

ছবি

ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট : সতর্ক বার্তা জনস্বাস্থ্যবিদদের

ছবি

কক্সবাজার শহরে অস্ত্র-গুলিসহ ৩ সন্ত্রাসী আটক

ছবি

ভাড়াটিয়া কর্তৃক অবরুদ্ধ হোটেল কল্লোল’র মালিক!

ছবি

ময়মনসিংহে সিটি কর্পোরেশনের ঈদ উপহার বিতরণ

ছবি

এনার্জিপ্যাকের ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক উদ্বোধন

ছবি

অর্ধেক দামে মোটরসাইকেল দিচ্ছে থলে ডট এক্সওয়াইজেড

ছবি

করোনাকালে অসহায় মানুষের জন্য তাসাউফ ফাউন্ডেশনের “পাশেই আছি” কর্মসূচী পালন

ছবি

অব্যবহৃতই থাকছে আবু নাসের হাসপাতালের পরিচালক, উপ-পরিচালকের বাসভবন

ছবি

বিয়ানীবাজারে ঈদ শপিংয়ে ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড়, মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধি

ছবি

চেয়ারম্যানের অত্যাচার নির্যাতন থেকে বাচঁতে প্রধানমন্ত্রীর সহানুভূতি কামনা

ছবি

নওগাঁয় বিভিন্ন রোগিদের সরকারী সহায়তা প্রদান

ছবি

নারায়ণগঞ্জে করোনা হাসপাতালে বসেছে অক্সিজেন ট্যাংক

ছবি

মামুনুলের রিমান্ড শুনানি পেছাল

ছবি

সিলেটে মাজারে রক্তের ছােপ

ছবি

জাফলংয়ে সিরাত প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণ সম্পন্ন

ছবি

পত্নীতলায় গোল্ডেন তরমুজ চাষে সফল মিজানুর

ছবি

করোনা: গ্রামের মানুষের রঙ্গরস

ছবি

মির্জাপুরে মাটি ব্যবসায়ীর তিনদিনের জেল

ছবি

মির্জাপুরে ঈমামদের সম্মানি প্রদান

বিশেষ মহলের চাপে বন্ধ বাসদের মানবতার বাজার

কিশোরগঞ্জে মনি সিংহ ফরহাদ ট্রাস্টের ত্রাণ

ছবি

করতোয়ার বালু তুলে তীর ভরাট, হুমকিতে সড়ক : ভাঙন আশঙ্কা

সোনাইমুড়িতে যুবককে পিটিয়ে হত্যা : আটক ২

ছবি

অনাবৃষ্টিতে সেচ সংকট বীজতলা ফেটে চৌচির

বাইক হাতে বেপরোয়া কিশোররা : নিত্য দুর্ঘটনা

ফেসবুক স্ট্যাটাসে ধর্ম অবমাননা, আটক : এক

ছবি

শিল্পে ভূগর্ভস্থ পানির ব্যবহার টিউবওয়েলে উঠছে না পানি

পঞ্চগড় সড়কে মৃত্যু ১

ঈশ্বরদীতে হেরোইনসহ যুবক গ্রেফতার

মির্জাগঞ্জে মাস্ক না পড়ায় ৮ জনকে জরিমানা

কলাপাড়ায় যুবকের মরদেহ উদ্ধার

tab

বাংলাদেশ

সালথায় সহিংসতায় ক্ষয়ক্ষতি ৩ কোটি টাকা

সংবাদ :
  • কেএম রুবেল, ফরিদপুর
রোববার, ১১ এপ্রিল ২০২১

ফরিদপুরের সালথায় বিভিন্ন সরকারি স্থাপনায় হামলা, ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনায় অন্তত তিন কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে তদন্ত কমিটি প্রতিবেদন জমা দিয়েছে। ১১ এপ্রিল রোববার সকালে জেলা প্রশাসক অতুল সরকারের কাছে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেন তদন্ত কমিটির প্রধান অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আসলাম মোল্লা। তদন্ত কমিটির প্রধান আসলাম মোল্লা বলেন, তদন্তে ক্ষয়ক্ষতির যে বিবরণ পাওয়া গেছে, তাতে প্রায় তিন কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়ার আগে ধ্বংসযজ্ঞের ক্ষয়ক্ষতি নিরূপণে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোছা. তাসলিমা আলী ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মো. আসলাম মোল্যাকে প্রধান করে দুইটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। জেলা প্রশাসক অতুল সরকার বলেন, সালথার সহিংসতার ঘটনায় দুইটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। রোববার একটি কমিটির প্রধান অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মো. আসলাম মোল্যা তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিয়েছেন। তদন্ত প্রতিবেদনে প্রায় তিন কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে। এছাড়া অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোছা. তাসলিমা আলীকে প্রধান করে আরেকটি কমিটি গঠন করা হয়। ওই কমিটির প্রতিবেদন জমা দিতে আরও দুই দিন সময় লাগবে। এদিকে সহিংসতার ঘটনায় জড়িত সন্দেহে আরও ১০ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

এ নিয়ে গ্রেপ্তার ব্যক্তির সংখ্যা দাঁড়ালো ৬১। এর মধ্যে একজন চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। ফরিদপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. জামাল পাশা বলেন, সালথার ঘটনায় এ পর্যন্ত মোট ৬১ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এর মধ্যে মিরান মোল্লা (৩৫) নামের একজন ঢাকায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। এছাড়া দুজন গুলিবিদ্ধ হয়ে গ্রেপ্তার রয়েছেন। তাদের পুলিশি পাহারায় চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। জামাল পাশা বলেন, গ্রেপ্তার ব্যক্তিদের মধ্যে এ পর্যন্ত আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে ৫৮ জনকে। এর মধ্যে ৪৮ জনের রিমান্ড মঞ্জুর হয়েছে। তাদের রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এ ঘটনায় এ পর্যন্ত সালথা থানায় মোট পাঁচটি মামলা করা হয়েছে। সালথা থানার এসআই (উপপরিদর্শক) মিজানুর রহমান, বীর মুক্তিযোদ্ধা বাচ্চু মাতুব্বর, ইউএনওর গাড়িচালক মো. হাশমত আলী, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) কার্যালয়ের নিরাপত্তারক্ষী সমীর বিশ্বাস ও উপজেলা সহকারী কমিশনারের (ভূমি) গাড়িচালক মো. সাগর সিকদার বাদী হয়ে মামলাগুলো দায়ের করেন। মামলায় ২৬১ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা আসামি করা হয়েছে অভিন্ন ৩ থেকে ৪ হাজার জনকে।

প্রসঙ্গত, সোমবার (৫ এপ্রিল) সন্ধ্যায় করোনা মোকাবিলায় কঠোর বিধিনিষেধ কার্যকর করতে দুই আনসার সদস্য ও ব্যক্তিগত সহকারীকে নিয়ে সালথা উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মারুফা সুলতানা খান হিরামণি ফুকরা বাজারে যান। সেখানে তিনি যাওয়ার পর মানুষের জটলা সৃষ্টি হয়।

এ অবস্থায় তিনি ওই স্থান থেকে ফিরে আসেন এবং সেখানে থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মিজানুর রহমানের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল পাঠান। ঘটনাস্থলে পৌঁছানোর সঙ্গে সঙ্গে উত্তেজিত জনতা এসআই মিজানুর রহমানের ওপর হামলা চালান। এতে তার মাথা ফেটে যায়। পরে স্থানীয় জনতা পুলিশের গুলিতে দুইজন নিহত ও বাহিরদিয়া মাদ্রাসার মাওলানা আকরাম হোসেন এবং জনৈক আরেক মাওলানার গ্রেপ্তারের গুজব ছড়িয়ে দেয়। গুজবে কান দিয়ে হাজারো মানুষ এসে থানা ঘেরাও করে। সেই সঙ্গে উপজেলা পরিষদ, থানা, সহকারী কমিশনারের (ভূমি) কার্যালয়, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বাসভবন, উপজেলা কৃষি অফিস, সাব-রেজিস্ট্রি অফিস, উপজেলা চেয়ারম্যানের বাসভবন ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করা হয়। এ সময় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার গাড়ি ও সহকারী কমিশনারের (ভূমি) গাড়ি আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয়া হয়। সালথা উপজেলা সদর এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। পরে সালথা থানা পুলিশের পাশাপাশি ফরিদপুর, বোয়ালমারী, ভাঙ্গা ও নগরকান্দা পুলিশ এবং র‌্যাব ও আনসার সদস্যরা যৌথভাবে ফাঁকা গুলি ও টিয়ারশেল ছুড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর আট সদস্যসহ আহত হন ২০ জন। আহতদের মধ্যে জুবায়ের হোসেন (২৫) ও মিরান মোল্যা (৩৫) নামের দুই যুবক চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

back to top