alt

বাংলাদেশ

নির্বিচারে পাহাড় নিধন চলছেই: কক্সবাজারে এক যুগে পাহাড় ধসে নিহত ৩০০

ঝুঁকিতে আড়াই লাখ মানুষ

জসিম সিদ্দিকী, কক্সবাজার : বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১

কক্সবাজারে পাহাড়ের ঝুঁকিতে বসবাস করছে প্রায় আড়াই লাখ মানুষ। প্রায় ১৫ হাজার হেক্টর পাহাড় দখল করে এরা বসবাস করছেন। সাধারণ মানুষকে ঢাল বানিয়ে মূলত এসব পাহাড় দখলে রেখেছে প্রভাবশালীরা।

এ অঞ্চলে জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক নেতা, চিহ্নিত অপরাধী, এমনকি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অনেক সদস্য পাহাড় দখল করে বসতি গড়ছে। শুধু তাই নয়, তারা বিক্রি করছে সরকারি পাহাড়ের দখলস্বত্বও। আর বসতি স্থাপনের জন্য কক্সবাজার অঞ্চলে কাটা হয় পাহাড়।

আর বর্ষা এলেই শুরু হয় পাহাড়কাটার ধুম, লক্ষ্য ভূমি সমতল করে বসতি গড়া। এতে ঘটে পাহাড় ধসের ঘটনা। কক্সবাজারের বহুল আলোচিত ৫১ একর পাহাড় কেটে প্লট তৈরি করেছে খোদ প্রশাসনের লোকজন।

কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের পরিসংখ্যান মতে, বিগত এক যুগে পাহাড় ধসে ৩ শতাধিক মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন। এর মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ পাহাড় ধস হয় ২০১০ সালের ১৫ জুন। এদিন রামু উপজেলার হিমছড়ি এলাকার ১৭ ইসিবি সেনা ক্যাম্পের ৬ সেনাসদস্যসহ জেলার বিভিন্ন স্থানে পাহাড় ধসে প্রায় ৬২ জন প্রাণ হারায়।

২০০৮ সালের ৪ ও ৬ জুলাই টেকনাফে ফকিরামুরা ও টুন্যার পাহাড় ধসের একই পরিবারের চারজনসহ ১৩ জন, ২০১২ সালে ২৬ ও ২৭ জুন পাহাড় ধসের ঘটনায় ২৯ জন। ২০০৯ সালে চকরিয়া, উখিয়া ও রামুতে ৫ জন, ২০১১-১৩ সালে পাহাড় ধসে মারা যায় ১৯ জন। ২০১৫ সালে কক্সবাজার শহরের রাডারের পাহাড় ধসে ৫ জন। ২০১৬ সালে পাহাড় ধসে মারা যায় ১৭ জন। ২০১৭ সালে ২৬ জন। ২০১৮ সালের ২৫ জুলাই শহরের দক্ষিণ রুমালিয়ারছড়ার বাঁচামিয়ার ঘোনা এলাকায় ২৮ জন। ২০১৯ সালে ২২ জন। ২০২০ সালে ১৫ জন এবং সর্বশেষ গত ২ দিনে মারা গেল ১৪ জন।

কক্সবাজার জেলা ত্রাণ ও পুর্নবাসন কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলমের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, কক্সবাজারে পাহাড় ধসের ঘটনায় হতাহতের সংখ্যা তার জানা নেই। তবে গত ২ দিনে ১৩ জন পাহাড় ধসে প্রাণ হারিয়েছেন বলে জানান তিনি।

প্রতি বছর কক্সবাজার জেলায় পাহাড় ধসে প্রাণহানির ঘটনা ঘটলেও ঝুঁকি নিয়ে বসবাসকারীদের নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেয়ার কাজ শুধুমাত্র বর্ষা এলে কিছুটা চোখে পড়ে। বর্ষা চলে গেলে থেমে যায় সবকিছু। এর ফলে অনেকটা বাধাহীনভাবে চলছে কক্সবাজারের পাহাড় নিধন।

এসব পাহাড় এবং পাহাড়ের পাদদেশের ভূমি জেলা প্রশাসনের ১ নম্বর খতিয়ানভুক্ত ও বনবিভাগের মালিকানাধীন হলেও এসব জমির দখল-বেচাকেনা চলে সারা বছর। সরকারি জমি বেচাকেনা আইনত অপরাধ তবুও নোটারি পাবলিক কার্যালয় থেকে এসব খাস জমির দখল ও বেচাকেনা হয়।

কতটা পাহাড়ি এলাকা তথা খাস জমি অবৈধ দখলে রয়েছে তার সঠিক এবং সর্বশেষ পরিসংখ্যান পাওয়া যাচ্ছে না। কক্সবাজার বন বিভাগ সূত্র জানায়, জেলায় মোট বনভূমির পরিমাণ ৭৩ হাজার ৩৫৮ হেক্টর। এর মধ্যে অবৈধ দখলে রয়েছে ৯ হাজার ৬৫৭ হেক্টর বনভূমি। এসব জমি দখল করে বসবাস করছে প্রায় ১০ লাখ মানুষ। আর পাহাড়ি জমিতে বসবাস করছে ১৩ হাজার ৮২৬টি পরিবারের ৩ লাখ মানুষ। এর মধ্যে প্রায় আড়াই লাখ মানুষ পাহাড় ধসের ঝুঁকিতে রয়েছে। জেলার মোট জনসংখ্যা ২৩ লাখ।

প্রতি বছর বর্ষা মৌসুম এলে কক্সবাজার জেলা প্রশাসন ঝুঁকিপূর্ণভাবে বসবাস করা এসব লোকজনকে অন্য কোথাও সরিয়ে নেয়ার উদ্যোগ নেন। মাইকিং করে সতর্কমূলক প্রচারণা চালান। এখনও প্রচারণা চালাচ্ছে জেলা প্রশাসন। এ সময় কিছু মানুষ সরে এলেও পরে আবার এসে আগের জায়গায় বসবাস শুরু করে। গত দুদিনের দুর্ঘটনার পর কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের তৎপরতা ছিল ঠিক আগের মতই।

কক্সবাজার জেলা ত্রাণ ও পুর্নবাসন কর্মকর্তা মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, জেলায় ৫২ স্পটে ৮৯৮ পরিবার ঝুঁকিতে রয়েছে। কক্সবাজার পৌরসভায় ৬টি ওয়ার্ডে ৭টি আশ্রয় কেন্দ্র প্রস্তুত রাখা হয়েছে। এবারের বৃষ্টিতে ঝুঁকিতে বসবাস করা লোকজনদের জোর করে আশ্রয় কেন্দ্রে সরিয়ে নেয়া হচ্ছে।

তিনি আরও জানান, পাশাপাশি কক্সবাজারের মহেশখালী, টেকনাফ, উখিয়া, রামু, চকরিয়াসহ বিভিন্ন স্থানে যারা ঝুঁকিপূর্ণ পাহাড়ে বসবাস করছেন তাদের সরিয়ে নেয়া হচ্ছে।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ আবু সুফিয়ান বলেন, কক্সবাজার পৌরসভার অভ্যন্তরে ৬টি ওয়ার্ডে সবচেয়ে বেশি মানুষ ঝুঁকিতে বসবাস করছে। তাদের সরিয়ে আনাটা একটি দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা। তারপরও ঝুঁকি এড়াতে কর্মপরিকল্পনা নিয়েছে জেলা প্রশাসন। এ সংক্রান্ত একটি জরুরি সভা হয়েছে। সেখানে সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের কাউন্সিলরদের প্রধান করে একটি উপকমিটিও গঠন করা হয়। তালিকা প্রণয়নে কাজ করা এনজিওকেও সহযোগি হিসেবে কাজ করতে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মামুনুর রশীদ জানান, পাহাড়ে বসবাসকারীদের নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেয়ার জন্য প্রশাসন নিরলসভাবে কাজ করছে।

কক্সবাজার পরিবেশ রক্ষা আন্দোলন কমিটির সভাপতি ফজলুল কাদের চেীধুরী জানান, কক্সবাজারের পাহাড় সংরক্ষণে উচ্চ আদালতের আদেশ বাস্তবায়ন করলে প্রতি বছর এতো প্রাণহাণির ঘটনা ঘটতো না।

ছবি

ঝুমন দাসের জামিন আদেশ বৃহস্পতিবার

লক্ষ্মীপুর যুবলীগ সভাপতির বিরুদ্ধে নেতাকর্মীদের মারধরের অভিযোগ

ছবি

জাতিসংঘের অধিবেশনের উদ্বোধনী দিনে প্রধানমন্ত্রীর যোগদান

ছবি

সিলেটে দুই বোনের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার, নেপথ্যে বিয়ে?

ছবি

হাউজকিপার মরিয়ম হত্যায় ২ কাঠমিস্ত্রির মৃত্যুদণ্ড

ছবি

রাজশাহীতে চার দফা দাবিতে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং এর বিক্ষোভ মিছিল সমাবেশ

ছবি

প্রতারণামূলক বিজ্ঞাপন প্রচার-প্রকাশে নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের নিষ্ক্রিয়তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে হাইকোর্ট

ছবি

‘মুকুট মণি’ আখ্যায়িত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

ছবি

জলবায়ু বিজ্ঞান প্রতিযোগিতার শীর্ষ দশ কমিউনিকেটদের মধ্যে রয়েছে এক বাংলাদেশি শিক্ষার্থী

ছবি

শেখ হাসিনার সঙ্গে বার্বাডোজের প্রধানমন্ত্রীর সৌজন্য সাক্ষাৎ

ছবি

রাজশাহীতে সড়ক নির্মাণ চার লেনে উন্নীতকরণ কাজের উদ্বোধন

বেরোবিতে জাতীয় পতাকা বিকৃত প্রদর্শন, ১৯ শিক্ষক-কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন

ছবি

১৮ অক্টোবর শেখ রাসেল দিবস পালনের নির্দেশ

ছবি

ঢাকা-নিউ ইয়র্ক ফ্লাইট দ্রুত সময়ে চালু হবে, আশা পররাষ্ট্রমন্ত্রীর

ছবি

বদলগাছীর কোলা হাট-বাজার ইজারায় অনিয়ম

কাপাসিয়ায় বিদ্যুতে চালকের মৃত্যু

টেকনাফ ইউপি নির্বাচনে সহিংসতা : ১৩ পুলিশসহ আহত ১৫

নৌকা প্রতীকে ৩৩ স্বতন্ত্র ৮ বিনা ভোটে ৩৮ চেয়ারম্যান প্রার্থী বিজয়ী

সোনারগাঁয়ে করোনা সংকট মোকাবিলায় নগদ অর্থ বিতরণ

মহেশখালীতে মকছুদ চকরিয়ায় আলমগীর নৌকা প্রতীকে মেয়র নির্বাচিত

ছবি

কীর্তনখোলায় জোয়ার এলেই ডুবে যায় চরবাড়িয়ার সড়ক

কিশোরগঞ্জে গত সপ্তাহের সংক্রমণ হার ২.৪৬ ভাগ আগস্টে ছিল ৩৩ ভাগ

ছবি

লালমনিরহাটে পানিতে পড়ে শিশুর মৃত্যু

ছবি

ময়মনসিংহে ভিজিডির ৮৪ বস্তা চাল পাচারের সময় জব্দ

ছবি

বিমানবন্দরে কবে নাগাদ ল্যাব চালু হবে, জানেন না দুই মন্ত্রী

ছবি

শূন্য পদে কারা চিকিৎসক নিয়োগে হাইকোর্টের নির্দেশ

ছবি

ডা. জাফরুল্লাহর রিট মামলা শুনতে হাইকোর্টের অপারগতা

ছবি

নিজেকে নির্দোষ দাবি করে ন্যায় বিচারের প্রার্থনা: আদালতে বাবর

ছবি

শ্রেণিকক্ষে টিকটক ভিডিও ধারন, অভিভাবকদের ডেকে সতর্ক

ছবি

বাগেরহাটের সব ইউনিয়নে আ. লীগের জয়

ছবি

বিমানবন্দরে খোলা জায়গায় করোনা পরীক্ষার ল্যাব বসানোর বিপক্ষে স্বাস্থ্যমন্ত্রী

ছবি

প্রধানমন্ত্রী পেলেন এসডিজি পুরস্কার

ছবি

রাসেলের মুক্তি চেয়ে আদালত প্রাঙ্গনে ইভ্যালির গ্রাহকদের মানববন্ধন

ছবি

জলবায়ু ইস্যুতে বলিষ্ঠ পদক্ষেপের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

ছবি

টঙ্গীতে ট্রেনের বগি লাইনচ্যুত, ঢাকার সঙ্গে রেল যোগাযোগ বন্ধ

কক্সবাজারে ইউপি নির্বাচনে যারা বেসরকারিভাবে নির্বাচিত

tab

বাংলাদেশ

নির্বিচারে পাহাড় নিধন চলছেই: কক্সবাজারে এক যুগে পাহাড় ধসে নিহত ৩০০

ঝুঁকিতে আড়াই লাখ মানুষ

জসিম সিদ্দিকী, কক্সবাজার

বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১

কক্সবাজারে পাহাড়ের ঝুঁকিতে বসবাস করছে প্রায় আড়াই লাখ মানুষ। প্রায় ১৫ হাজার হেক্টর পাহাড় দখল করে এরা বসবাস করছেন। সাধারণ মানুষকে ঢাল বানিয়ে মূলত এসব পাহাড় দখলে রেখেছে প্রভাবশালীরা।

এ অঞ্চলে জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক নেতা, চিহ্নিত অপরাধী, এমনকি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অনেক সদস্য পাহাড় দখল করে বসতি গড়ছে। শুধু তাই নয়, তারা বিক্রি করছে সরকারি পাহাড়ের দখলস্বত্বও। আর বসতি স্থাপনের জন্য কক্সবাজার অঞ্চলে কাটা হয় পাহাড়।

আর বর্ষা এলেই শুরু হয় পাহাড়কাটার ধুম, লক্ষ্য ভূমি সমতল করে বসতি গড়া। এতে ঘটে পাহাড় ধসের ঘটনা। কক্সবাজারের বহুল আলোচিত ৫১ একর পাহাড় কেটে প্লট তৈরি করেছে খোদ প্রশাসনের লোকজন।

কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের পরিসংখ্যান মতে, বিগত এক যুগে পাহাড় ধসে ৩ শতাধিক মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন। এর মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ পাহাড় ধস হয় ২০১০ সালের ১৫ জুন। এদিন রামু উপজেলার হিমছড়ি এলাকার ১৭ ইসিবি সেনা ক্যাম্পের ৬ সেনাসদস্যসহ জেলার বিভিন্ন স্থানে পাহাড় ধসে প্রায় ৬২ জন প্রাণ হারায়।

২০০৮ সালের ৪ ও ৬ জুলাই টেকনাফে ফকিরামুরা ও টুন্যার পাহাড় ধসের একই পরিবারের চারজনসহ ১৩ জন, ২০১২ সালে ২৬ ও ২৭ জুন পাহাড় ধসের ঘটনায় ২৯ জন। ২০০৯ সালে চকরিয়া, উখিয়া ও রামুতে ৫ জন, ২০১১-১৩ সালে পাহাড় ধসে মারা যায় ১৯ জন। ২০১৫ সালে কক্সবাজার শহরের রাডারের পাহাড় ধসে ৫ জন। ২০১৬ সালে পাহাড় ধসে মারা যায় ১৭ জন। ২০১৭ সালে ২৬ জন। ২০১৮ সালের ২৫ জুলাই শহরের দক্ষিণ রুমালিয়ারছড়ার বাঁচামিয়ার ঘোনা এলাকায় ২৮ জন। ২০১৯ সালে ২২ জন। ২০২০ সালে ১৫ জন এবং সর্বশেষ গত ২ দিনে মারা গেল ১৪ জন।

কক্সবাজার জেলা ত্রাণ ও পুর্নবাসন কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলমের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, কক্সবাজারে পাহাড় ধসের ঘটনায় হতাহতের সংখ্যা তার জানা নেই। তবে গত ২ দিনে ১৩ জন পাহাড় ধসে প্রাণ হারিয়েছেন বলে জানান তিনি।

প্রতি বছর কক্সবাজার জেলায় পাহাড় ধসে প্রাণহানির ঘটনা ঘটলেও ঝুঁকি নিয়ে বসবাসকারীদের নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেয়ার কাজ শুধুমাত্র বর্ষা এলে কিছুটা চোখে পড়ে। বর্ষা চলে গেলে থেমে যায় সবকিছু। এর ফলে অনেকটা বাধাহীনভাবে চলছে কক্সবাজারের পাহাড় নিধন।

এসব পাহাড় এবং পাহাড়ের পাদদেশের ভূমি জেলা প্রশাসনের ১ নম্বর খতিয়ানভুক্ত ও বনবিভাগের মালিকানাধীন হলেও এসব জমির দখল-বেচাকেনা চলে সারা বছর। সরকারি জমি বেচাকেনা আইনত অপরাধ তবুও নোটারি পাবলিক কার্যালয় থেকে এসব খাস জমির দখল ও বেচাকেনা হয়।

কতটা পাহাড়ি এলাকা তথা খাস জমি অবৈধ দখলে রয়েছে তার সঠিক এবং সর্বশেষ পরিসংখ্যান পাওয়া যাচ্ছে না। কক্সবাজার বন বিভাগ সূত্র জানায়, জেলায় মোট বনভূমির পরিমাণ ৭৩ হাজার ৩৫৮ হেক্টর। এর মধ্যে অবৈধ দখলে রয়েছে ৯ হাজার ৬৫৭ হেক্টর বনভূমি। এসব জমি দখল করে বসবাস করছে প্রায় ১০ লাখ মানুষ। আর পাহাড়ি জমিতে বসবাস করছে ১৩ হাজার ৮২৬টি পরিবারের ৩ লাখ মানুষ। এর মধ্যে প্রায় আড়াই লাখ মানুষ পাহাড় ধসের ঝুঁকিতে রয়েছে। জেলার মোট জনসংখ্যা ২৩ লাখ।

প্রতি বছর বর্ষা মৌসুম এলে কক্সবাজার জেলা প্রশাসন ঝুঁকিপূর্ণভাবে বসবাস করা এসব লোকজনকে অন্য কোথাও সরিয়ে নেয়ার উদ্যোগ নেন। মাইকিং করে সতর্কমূলক প্রচারণা চালান। এখনও প্রচারণা চালাচ্ছে জেলা প্রশাসন। এ সময় কিছু মানুষ সরে এলেও পরে আবার এসে আগের জায়গায় বসবাস শুরু করে। গত দুদিনের দুর্ঘটনার পর কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের তৎপরতা ছিল ঠিক আগের মতই।

কক্সবাজার জেলা ত্রাণ ও পুর্নবাসন কর্মকর্তা মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, জেলায় ৫২ স্পটে ৮৯৮ পরিবার ঝুঁকিতে রয়েছে। কক্সবাজার পৌরসভায় ৬টি ওয়ার্ডে ৭টি আশ্রয় কেন্দ্র প্রস্তুত রাখা হয়েছে। এবারের বৃষ্টিতে ঝুঁকিতে বসবাস করা লোকজনদের জোর করে আশ্রয় কেন্দ্রে সরিয়ে নেয়া হচ্ছে।

তিনি আরও জানান, পাশাপাশি কক্সবাজারের মহেশখালী, টেকনাফ, উখিয়া, রামু, চকরিয়াসহ বিভিন্ন স্থানে যারা ঝুঁকিপূর্ণ পাহাড়ে বসবাস করছেন তাদের সরিয়ে নেয়া হচ্ছে।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ আবু সুফিয়ান বলেন, কক্সবাজার পৌরসভার অভ্যন্তরে ৬টি ওয়ার্ডে সবচেয়ে বেশি মানুষ ঝুঁকিতে বসবাস করছে। তাদের সরিয়ে আনাটা একটি দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা। তারপরও ঝুঁকি এড়াতে কর্মপরিকল্পনা নিয়েছে জেলা প্রশাসন। এ সংক্রান্ত একটি জরুরি সভা হয়েছে। সেখানে সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের কাউন্সিলরদের প্রধান করে একটি উপকমিটিও গঠন করা হয়। তালিকা প্রণয়নে কাজ করা এনজিওকেও সহযোগি হিসেবে কাজ করতে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মামুনুর রশীদ জানান, পাহাড়ে বসবাসকারীদের নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেয়ার জন্য প্রশাসন নিরলসভাবে কাজ করছে।

কক্সবাজার পরিবেশ রক্ষা আন্দোলন কমিটির সভাপতি ফজলুল কাদের চেীধুরী জানান, কক্সবাজারের পাহাড় সংরক্ষণে উচ্চ আদালতের আদেশ বাস্তবায়ন করলে প্রতি বছর এতো প্রাণহাণির ঘটনা ঘটতো না।

back to top