alt

বাংলাদেশ

বজ্রপাতে ১৭ জন নিহত

জেলা বার্তা পরিবেশক, চাঁপাইনবাবগঞ্জ : বুধবার, ০৪ আগস্ট ২০২১

বুধবার চাঁপাইনবাবগঞ্জে বজ্রপাতে নিহতদের ঘিরে স্বজনদের আহাজারি-সংবাদ

চাঁপাইনবাবগঞ্জে বিয়ের অনুষ্ঠানে যাওয়ার পথে বজ্রপাতে অন্তত ১৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। বুধবার (৪ আগস্ট) দুপুর ১২টার দিকে শিবগঞ্জ উপজেলার পাকা ইউনিয়নের দক্ষিণ পাকা তেররশিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন-শিবগঞ্জ উপজেলার পাকা ইউনিয়নের দক্ষিণ পাকা তেররশিয়া গ্রামের মৃত সোহবুল হকের ছেলে রফিকুল ইসলাম (৬০), চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার নারায়ণপুর ইউনিয়নের ডাইলপাড়ার সৈয়ব আলীর ছেলে তোবজুল (৭০), তোবজুলের স্ত্রী জমিলা (৫৮) ছেলে সাদল আলী (৩৫), জামালের মেয়ে লেচন (৫০), রফিকুলের ছেলে বাবলু (২৬), বাদলের ছেলে বাবু (২০) একই উপজেলার সূর্য নারায়ণপুরের ধুলু মিয়ার ছেলে সজীব (২২), সাহালাল বাবুর স্ত্রী মৌসুমী (২৫), কালুর ছেলে আলম (৪৮), মোস্তফার ছেলে পাতু (৪০), চর সূর্য নারায়ণপুরের টিপুর স্ত্রী বেবি (৩২) ফাটা পাড়ার গ্রামের সাদিকুলের স্ত্রী টকি বেগম (৩০), চর বাগডাঙ্গা গোঠাপাড়ার সাত্তারের ছেলে সহবুল (৩০), বাবুডাইং এলাকার মকবুলের ছেলে টিপু সুলতান (৪৫) ও সুন্দরপুর এলাকার সেরাজুলের ছেলে অসিকুল ইসলাম ডাকু (২৪)।

শিবগঞ্জ উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) আরিফুল ইসলাম জানান, বুধবার চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার নারায়ণপুর ইউনিয়নের ডাইলপাড়া থেকে বরপক্ষের ২০ জন শ্যালো ইঞ্জিনচালিত নৌকাযোগে পাকা ইউনিয়নের দক্ষিণ পাকা তেররশিয়া গ্রামের হোসেন আলীর বাড়িতে বৌভাত অনুষ্ঠানে যোগ দিতে যাচ্ছিলেন। দুপুর ১২টার দিকে দক্ষিণ পাকা খেয়াঘাটে নামার সময় বৃষ্টি শুরু হলে তারা ঘাটের নিকট টিনের ঘরে আশ্রয় নেয়। এ সময় বজ্রপাত হলে তাদের মৃত্যু ঘটে। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা সাতটি মরদেহ ও আটজনকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে ২৫০ শয্যার জেলা হাসপাতালে নিয়ে আসে। ঘটনায় ১৩ জন আহত হন। পরে মরদেহগুলো নৌকায় করে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার সুন্দরপুর ইউনিয়নের আলিমনগর ঘাটে নিয়ে যাওয়া হয়।

ফায়ার সার্ভিসের উপপরিচালক সাবের আলী প্রামাণিক জানান, ফায়ার সার্ভিস ১৪টি মরদেহ উদ্ধার করেছে এবং বাকি কয়েকজনের লাশ তাদের আত্মীয়-স্বজন আগেই নিয়ে গেছে। খবর পেয়ে জেলা প্রশাসক মো. মঞ্জুরুল হাফিজ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মোহাম্মদ মাহবুব আলম, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইফফাত জাহানসহ কর্মকর্তারা ডাইলপাড়া গ্রামে যান।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর হাসপাতালের আরএমও ডা. নুরুন নাহার জানান, বজ্রপাতে আহতদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ছাড়া একজনকে গুরুতর অবস্থায় রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

জেলা প্রশাসক মো. মঞ্জুরুল হাফিজ সংবাদকে বলেন, ‘আমরা ১৪ জনের লাশ শনাক্ত করেছি। জেলা হাসপাতালে ভর্তি আছে ১১ জন। রাজশাহী মেডিকেল কলেজে ভর্তি আছে একজন।’ তিনি আরো বলেন, ‘আমরা নিহত প্রত্যেকের পরিবারকে ২৫ হাজার টাকা করে দিয়েছি। যারা হাসপাতালে ভর্তি আছেন, তাদের প্রত্যেকের চিকিৎসার দায়িত্ব জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে আমরা নিয়েছি।’

চোখের সামনে ডাইলপাড়া গ্রামের মাইদুল ইসলাম (৩৫) দেখেছেন বজ্রপাতে বাবা-মা ও ভাইসহ নিজের পরিবারের সাতজনের মৃত্যু।

মাইদুল ইসলামের ডাইলপাড়া গ্রামের বাড়িতে দেখা যায়, ঘটনার আকস্মিকতায় একটি ঘরে তিনি নির্বাক হয়ে বসে আছেন। প্রতিবেশীরা মৃত্যুর খবর শুনে তার বাড়িতে ভিড় জমিয়েছেন। এই গ্রামে একসঙ্গে এত মানুষের মৃত্যু আগে কেউ দেখেনি। স্বজন আর প্রতিবেশীদের কান্না-আহাজারি বাড়িজুড়ে। একে একে যখন সাতটি লাশ নিয়ে আসা হয়, তখন কান্নার শব্দ যেন পুরো গ্রামে ছড়িয়ে পড়ে। বাড়ির পাশে একে একে খোঁড়া হয় সাতটি কবর।

প্রত্যক্ষদর্শীদের বয়ানে জানা যায়, অল্পের জন্য প্রাণে বাঁচেন মাইদুল ইসলাম ও তার ১০ বছরের মেয়ে সুমাইয়া খাতুন। নৌকা থেকে নামতে একটু দেরি হওয়ায় বাবা-মেয়ে ছাউনি পর্যন্ত পৌঁছাতে পারেননি। আর সেই মুহূর্তেই বজ্রপাতের ঘটনা ঘটে। চোখের পলকে বাবা-মাসহ প্রিয়জনদের মৃত্যু দেখে শোকে নির্বাক হয়ে আছেন মাইদুল।

আজ ২৪ ঘণ্টা কর্মবিরতি অ্যাপ-বেইসড ড্রাইভারস ইউনিয়নের

২৩ শতাংশ নারী শ্রমিক বিদেশ থেকে ফিরেছেন বছর পূর্ণ না হতেই

কাদের মির্জার বিরুদ্ধে তালা মেরে মার্কেট বন্ধ করে দেয়ার অভিযোগ

ভাসানচর থেকে পালানোর সময় ৩৫ রোহিঙ্গা আটক

ছবি

ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে ইন্ডাস্ট্রিয়াল টেকনোলজি বিষয়ক জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত

ছবি

অনলাইন ও অফলাইনে সেবা বাড়াচ্ছে ভিভো

ছবি

সাবেক ঢাবি শিক্ষার্থীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

ঢাবিতে ছাত্রলীগ নেতাকে পেটালেন আরেক সিনিয়র নেতা

ছবি

৬ দফা দাবিতে রাইড শেয়ার চালকদের কর্মবিরতি কাল

ছবি

বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ,শিক্ষক নেতা আনোয়ারা সুলতানা মারা গেছেন

ছবি

মাদারীপুুরে ভুল চিকিৎসায় ইমামের মৃত্যুর অভিযোগ স্বজনদের

মুুন্সীগঞ্জে চাকরির খোঁজে বের হয়ে নিখোঁজ, লাশ মিলল ধলেশ্বরীর তীরে

ছবি

গবেষনাকে অনুপ্রেরণা হিসেবে আখ্যায়িত তুরস্কের রাষ্ট্রদূত

ছবি

পরীমণির জব্দকৃত ১৬ আলামত ফেরত দিতে সুপারিশ

ছবি

বঙ্গবন্ধু ও তার কন্যা ব্যতীত দেশের উন্নয়ন-অর্জনের ইতিহাস নেই: তথ্য প্রতিমন্ত্রী

ছবি

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একজন জীবন্ত কিংবদন্তি: তথ্যমন্ত্রী

ছবি

দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা: পর্যবেক্ষণসহ আপিল বিভাগের নিষ্পত্তি

ছবি

আমরা আইনের ঊর্ধ্বে কোনো সরকার নই: পরিকল্পনামন্ত্রী

ছবি

হবিগঞ্জে প্রতারণার অভিযোগে চিকিৎসকসহ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে জরিমানা

ছবি

গাজীপুরে ট্রেনে কাটা পড়ে নিহত ২

ছবি

নির্মাণাধীন ভবনের পাশে মিললো মালিকের লাশ

ছবি

হবিগঞ্জে বাসের ধাক্কায় অটোরিকশার ৩ যাত্রী নিহত

ছবি

জটিলতা কাটলো সিরাজগঞ্জ-বগুড়া রেলপথ নির্মাণে

ছবি

মান্দায় অবৈধভাবে সরকারি গাছ কাটার অভিযোগ

ছবি

কক্সবাজারে বিশ্ব পর্যটন দিবস পালিত

সখীপুর থানায় ওপেন হাউজ ডে অনুষ্ঠিত

ছবি

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পুলিশ-যুবদল কর্মীদের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া

সোনারগাঁয়ে আবাদী জমি রক্ষায় মানববন্ধন

ছবি

রামেক হাসপাতালে আরও ৪ জনের মৃত্যু

ছবি

ফের শুরু হচ্ছে গণটিকা

ছবি

এম গার্লস নিয়ে আইকনিক ফ্যাশন গ্যারেজ

ছবি

নাটোরের সিংড়ায় বন্যার্তদের মাঝে হুয়াওয়ের ত্রাণসামগ্রী বিতরণ

ছবি

বইমেলায় সেরা পেমেন্ট গ্রহণকারী প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানগুলোকে পুরস্কৃত করলো বিকাশ

ছবি

আকাশ কিনে আরও তিন গ্রাহক টি-২০ বিশ্বকাপে

ছবি

ফেইসবুকের মাধ্যমে ৭০ বছর পর শতবর্ষী মা ফিরে পেলেন সন্তানকে

ছবি

আগামী ২৮ সেপ্টেম্বর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর নেতৃত্বে উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধিদল মাতারবাড়ি সমুদ্রবন্দর পরিদর্শন করবেন

tab

বাংলাদেশ

বজ্রপাতে ১৭ জন নিহত

জেলা বার্তা পরিবেশক, চাঁপাইনবাবগঞ্জ

বুধবার চাঁপাইনবাবগঞ্জে বজ্রপাতে নিহতদের ঘিরে স্বজনদের আহাজারি-সংবাদ

বুধবার, ০৪ আগস্ট ২০২১

চাঁপাইনবাবগঞ্জে বিয়ের অনুষ্ঠানে যাওয়ার পথে বজ্রপাতে অন্তত ১৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। বুধবার (৪ আগস্ট) দুপুর ১২টার দিকে শিবগঞ্জ উপজেলার পাকা ইউনিয়নের দক্ষিণ পাকা তেররশিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন-শিবগঞ্জ উপজেলার পাকা ইউনিয়নের দক্ষিণ পাকা তেররশিয়া গ্রামের মৃত সোহবুল হকের ছেলে রফিকুল ইসলাম (৬০), চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার নারায়ণপুর ইউনিয়নের ডাইলপাড়ার সৈয়ব আলীর ছেলে তোবজুল (৭০), তোবজুলের স্ত্রী জমিলা (৫৮) ছেলে সাদল আলী (৩৫), জামালের মেয়ে লেচন (৫০), রফিকুলের ছেলে বাবলু (২৬), বাদলের ছেলে বাবু (২০) একই উপজেলার সূর্য নারায়ণপুরের ধুলু মিয়ার ছেলে সজীব (২২), সাহালাল বাবুর স্ত্রী মৌসুমী (২৫), কালুর ছেলে আলম (৪৮), মোস্তফার ছেলে পাতু (৪০), চর সূর্য নারায়ণপুরের টিপুর স্ত্রী বেবি (৩২) ফাটা পাড়ার গ্রামের সাদিকুলের স্ত্রী টকি বেগম (৩০), চর বাগডাঙ্গা গোঠাপাড়ার সাত্তারের ছেলে সহবুল (৩০), বাবুডাইং এলাকার মকবুলের ছেলে টিপু সুলতান (৪৫) ও সুন্দরপুর এলাকার সেরাজুলের ছেলে অসিকুল ইসলাম ডাকু (২৪)।

শিবগঞ্জ উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) আরিফুল ইসলাম জানান, বুধবার চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার নারায়ণপুর ইউনিয়নের ডাইলপাড়া থেকে বরপক্ষের ২০ জন শ্যালো ইঞ্জিনচালিত নৌকাযোগে পাকা ইউনিয়নের দক্ষিণ পাকা তেররশিয়া গ্রামের হোসেন আলীর বাড়িতে বৌভাত অনুষ্ঠানে যোগ দিতে যাচ্ছিলেন। দুপুর ১২টার দিকে দক্ষিণ পাকা খেয়াঘাটে নামার সময় বৃষ্টি শুরু হলে তারা ঘাটের নিকট টিনের ঘরে আশ্রয় নেয়। এ সময় বজ্রপাত হলে তাদের মৃত্যু ঘটে। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা সাতটি মরদেহ ও আটজনকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে ২৫০ শয্যার জেলা হাসপাতালে নিয়ে আসে। ঘটনায় ১৩ জন আহত হন। পরে মরদেহগুলো নৌকায় করে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার সুন্দরপুর ইউনিয়নের আলিমনগর ঘাটে নিয়ে যাওয়া হয়।

ফায়ার সার্ভিসের উপপরিচালক সাবের আলী প্রামাণিক জানান, ফায়ার সার্ভিস ১৪টি মরদেহ উদ্ধার করেছে এবং বাকি কয়েকজনের লাশ তাদের আত্মীয়-স্বজন আগেই নিয়ে গেছে। খবর পেয়ে জেলা প্রশাসক মো. মঞ্জুরুল হাফিজ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মোহাম্মদ মাহবুব আলম, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইফফাত জাহানসহ কর্মকর্তারা ডাইলপাড়া গ্রামে যান।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর হাসপাতালের আরএমও ডা. নুরুন নাহার জানান, বজ্রপাতে আহতদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ছাড়া একজনকে গুরুতর অবস্থায় রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

জেলা প্রশাসক মো. মঞ্জুরুল হাফিজ সংবাদকে বলেন, ‘আমরা ১৪ জনের লাশ শনাক্ত করেছি। জেলা হাসপাতালে ভর্তি আছে ১১ জন। রাজশাহী মেডিকেল কলেজে ভর্তি আছে একজন।’ তিনি আরো বলেন, ‘আমরা নিহত প্রত্যেকের পরিবারকে ২৫ হাজার টাকা করে দিয়েছি। যারা হাসপাতালে ভর্তি আছেন, তাদের প্রত্যেকের চিকিৎসার দায়িত্ব জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে আমরা নিয়েছি।’

চোখের সামনে ডাইলপাড়া গ্রামের মাইদুল ইসলাম (৩৫) দেখেছেন বজ্রপাতে বাবা-মা ও ভাইসহ নিজের পরিবারের সাতজনের মৃত্যু।

মাইদুল ইসলামের ডাইলপাড়া গ্রামের বাড়িতে দেখা যায়, ঘটনার আকস্মিকতায় একটি ঘরে তিনি নির্বাক হয়ে বসে আছেন। প্রতিবেশীরা মৃত্যুর খবর শুনে তার বাড়িতে ভিড় জমিয়েছেন। এই গ্রামে একসঙ্গে এত মানুষের মৃত্যু আগে কেউ দেখেনি। স্বজন আর প্রতিবেশীদের কান্না-আহাজারি বাড়িজুড়ে। একে একে যখন সাতটি লাশ নিয়ে আসা হয়, তখন কান্নার শব্দ যেন পুরো গ্রামে ছড়িয়ে পড়ে। বাড়ির পাশে একে একে খোঁড়া হয় সাতটি কবর।

প্রত্যক্ষদর্শীদের বয়ানে জানা যায়, অল্পের জন্য প্রাণে বাঁচেন মাইদুল ইসলাম ও তার ১০ বছরের মেয়ে সুমাইয়া খাতুন। নৌকা থেকে নামতে একটু দেরি হওয়ায় বাবা-মেয়ে ছাউনি পর্যন্ত পৌঁছাতে পারেননি। আর সেই মুহূর্তেই বজ্রপাতের ঘটনা ঘটে। চোখের পলকে বাবা-মাসহ প্রিয়জনদের মৃত্যু দেখে শোকে নির্বাক হয়ে আছেন মাইদুল।

back to top