alt

বাংলাদেশ

বসুর হাটে কারখানা গুঁড়িয়ে দিলেন কাদের মির্জা

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১

বসুর হাট পৌর মেয়র আবদুল কাদের মির্জার অনুসারী ও পৌরসভার কর্মীদের বিরুদ্ধে আজ শুক্রবার সকালে নোয়াখালীর পৌরসভার করালিয়া এলাকায় একটি আসবাব কারখানা গুঁড়িয়ে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে।

জানা গেছে, নোয়াখালীর বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা দলবল নিয়ে একটি আসবাব কারখানা ও স মিল গুঁড়িয়ে দিয়ে সেখানে শিশুপার্ক করার সাইনবোর্ড ঝুলিয়ে দিয়েছেন। আজ শুক্রবার সকালে বসুরহাট পৌরসভার ২ নম্বর ওয়ার্ডের করালিয়া এলাকায় (সারের গুদাম) এ ঘটনা ঘটে। এতে হুমায়ুন টিম্বার মার্সেন্ট অ্যান্ড স মিল গুড়িয়ে দেয়া হয়েছে। অভিযোগ উঠেছে যে, ভাংচুরের ফলে প্রতিষ্ঠানটির কয়েক কোটি টাকার আর্থিক ক্ষতি হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শুক্রবার সকাল ছয়টার দিকে কাদের মির্জার নেতৃত্বে তাঁর বেশ কিছু অনুসারী ও পৌরসভার কর্মী হুমায়ুন টিম্বার মার্সেন্ট অ্যান্ড স মিলে যায়। তাঁরা দুটি এক্সকাভেটর দিয়ে ভেতরের বিভিন্ন মালামাল গুঁড়িয়ে দেন। পরে মেয়রের অনুসারীরা সেখানে ‘শিশুপার্কের জন্য নির্ধারিত স্থান’ লেখাসংবলিত একটি সাইনবোর্ড টাঙিয়ে দেন।

এ ব্যাপারে হুমায়ুন টিম্বারের মালিক কোম্পানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি), জেলা পুলিশ সুপার ও জেলা প্রশাসককে ফোন করে ঘটনাটি অবহিত করেন এবং আইনগত সহায়তা চান। কিন্তু প্রশাসনের লোকজন তাঁর সহযোগিতায় এগিয়ে আসেননি।

কারখানার মালিক ফিরোজ আলম অভিযোগ করেন, তাঁরা ১৯৯০ সাল থেকে করালিয়া মৌজার ডিএস ১৩৩ নম্বর খতিয়ানের ৫৫৮ নম্বর দাগের ১৭ শতাংশ জমির ক্রয়সূত্রে মালিক। জমি কেনার পর তাঁরা সেখানে ‘হুমায়ুন টিম্বার মার্সেন্ট অ্যান্ড স মিল’ প্রতিষ্ঠা করেন। সম্প্রতি বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আকস্মিকভাবে ওই জমি ‘খাস’ দাবি করেন এবং জমি থেকে তাঁদের স্থাপনা সরিয়ে নেওয়ার নির্দেশনা দেন।

ফিরোজ আলম জানান, ওই আদেশের বিরুদ্ধে তাঁরা জেলা জজ আদালতে গত ২৫ মার্চ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) বিরুদ্ধে একটি মামলা করেন। আদালত মামলা আমলে নিয়ে বিরোধীয় ভূমিতে বিবাদী পক্ষের প্রবেশে অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেন। কিন্তু আদালতের আদেশ অমান্য করে কাদের মির্জার নেতৃত্বে প্রায় ২০০ অনুসারী ও পৌরসভার এক্সকাভেটর মেশিন গিয়ে তাঁদের ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানটি ভাঙচুর করে গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়। এ সময় তাঁরা প্রতিষ্ঠানের মূল্যবান কাঠসহ অনেক মালামাল পৌরসভার গাড়ি বোঝাই করে নিয়ে যান।

ফিরোজ আলমের অভিযোগ, মেয়র আবদুল কাদের মির্জার নেতৃত্বে চলা প্রায় তিন ঘণ্টার তাণ্ডবলীলায় তাঁর প্রতিষ্ঠানের কয়েক কোটি টাকা ক্ষতি হয়েছে। ঘটনার পর তিনি কোম্পানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি), জেলা পুলিশ সুপার ও জেলা প্রশাসককে ফোন করে ঘটনাটি অবহিত করেন এবং আইনগত সহায়তা চান। কিন্তু প্রশাসনের লোকজন তাঁর সহযোগিতায় এগিয়ে আসেননি।

কোম্পানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সাইফুদ্দিন আনোয়ার সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, তাঁকে প্রতিষ্ঠানটির মালিক ফোনে ঘটনাটি জানানোর পর তিনি পুলিশ পাঠিয়ে মেয়রকে আদালতের নিষেধাজ্ঞার বার্তাটি পৌঁছান। এরপর পুলিশ সেখান থেকে চলে আসে। তবে এ ঘটনার বিষয়ে ক্ষতিগ্রস্ত পক্ষটি থানায় কোনো অভিযোগ করেনি।

ফিরোজ আলমের বড় ভাই হুমায়ুন কবিরকে ২ সেপ্টেম্বর দেওয়া পৌরসভার চিঠিতে বলা হয়, ‘আপনি সরকারি খাস সম্পত্তির ওপর বিধিবহির্ভূতভাবে স্থাপনা নির্মাণ করেছেন। জনস্বার্থে উক্ত জায়গার ওপর বসুরহাট পৌরসভার শিশুপার্ক নির্মাণের জন্য প্রস্তাব করা হয়েছে। নোটিশ প্রাপ্তির সাত দিনের মধ্যে আপনার বিধিবহির্ভূত স্থাপনা সরিয়ে নেওয়ার জন্য পুনর্নির্দেশ দেওয়া হলো।’ এর আগে গত ২২ মার্চ একই বিষয়ে আরেকটি নোটিশ করা হয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে এবং স্থাপনা সরিয়ে না নিলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের কথা বলা হয়েছে।

জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ খোরশেদ আলম খান সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, বসুরহাটের ওই জায়গাটি খাস কি না, কাগজপত্র না দেখে বলা যাবে না। তবে কিছুদিন আগে পৌরসভা থেকে একটি শিশুপার্ক নির্মাণের প্রস্তাব তাঁর কাছে পাঠানো হয়েছিল। তিনি বিষয়টি খতিয়ে দেখতে ইউএনওকে ওই প্রস্তাবের চিঠিটি পাঠিয়ে দিয়েছেন। কিন্তু মেয়রের প্রস্তাবিত শিশুপার্কের স্থান কোনটি, তা তিনি এই মুহূর্তে বলতে পারছেন না।

ছবি

অর্থ পাচার: শুনানিতে বিবাদীদের শিথিলতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন হাইকোর্ট

ছবি

জাতিসংঘের ৫ ‘মাতব্বরে’ জন্যই রোহিঙ্গা সঙ্কট ঝুলে আছে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ছবি

করোনা মহামারী সত্ত্বেও দেশে খাদ্য সংকট হয়নি: কৃষিমন্ত্রী

ছবি

পরমাণু প্রযুক্তিতে স্বল্প খরচে ক্যান্সার নির্ণয় করা যাবে: স্থপতি ইয়াফেস ওসমান

ছবি

১শ’কোটি মানুষকে টিকা দেয়ায় মোদীকে প্রধানমন্ত্রীর অভিনন্দন

ছবি

নোয়াখালীতে যাত্রীবাহী বাস খালে পড়ে আহত ৩০

২৫ আসামির মৃত্যুদন্ড চায় রাষ্ট্রপক্ষ

ছবি

মন্দির ও পূজামণ্ডপের নিরাপত্তা জোরদারের নির্দেশ

ছবি

ধৈর্য ধরুন, টিকার মেসেজ আসবে: স্বাস্থ্য অধিদফতর

ছবি

ধর্মীয় সম্প্রীতি রক্ষায় প্রতিটি ওয়ার্ডে কমিটি গঠন করা হবে: স্থানীয় সরকার মন্ত্রী

ছবি

সহিংসতার দায় এড়াতে পারে না সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম: তথ্যমন্ত্রী

ছবি

দেশের উন্নয়ন অব্যাহত রাখতে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষা করতে হবে: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

ছবি

যথাযথ মান বজায় রেখে ‘বীর নিবাস’ নির্মাণ নিশ্চিত করতে হবে: মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রী

ছবি

অধ্যাপক সিরাজুল ইসলামের বিরুদ্ধে মামলার আবেদন প্রত্যাহার

ছবি

কলকাতা প্রেসক্লাবে বঙ্গবন্ধু মিডিয়া সেন্টারের উদ্বোধন ২৮ অক্টোবর

ছবি

ফের সাম্প্রদায়িক শক্তির সঙ্গে আপস চলছে: মেনন

লালপুরে নিখোঁজ শিশুর বস্তাবন্দী মরদেহ উদ্ধার

ছবি

নবীনগরে ফসলি জমির বালু উত্তোলন করায় ড্রেজার ধংস

শব্দ দূষণে শিশুদের শারীরিক মানসিক ব্যাপক ক্ষতি

ছবি

এক কর্মকর্তাকে একাধিক প্রকল্পের পরিচালক না করার সুপারিশ

দক্ষিণাঞ্চলে বোরোর আবাদ বাড়াতে সেচ ও উন্নত বীজে গুরুত্বারোপ

ছবি

এমপিওভূক্তি না হওয়ায় মানবেতর জীবনে শিক্ষক : চিন্তিত অভিভাবকরা

ছবি

বিএনপির দৃষ্টিসীমা এখন কুয়াশাচ্ছন্ন: ওবায়দুল কাদের

সুন্দরগঞ্জে অপহৃত শিশু উদ্ধার : ধৃত ১

ছবি

সম্রাটসহ ৭ জনের বিরুদ্ধে অর্থপাচারের প্রতিবেদন হাইকোর্টে দাখিল

ছবি

কক্সবাজার বিমানবন্দরে যাত্রীদের ভোগান্তি

ছবি

অন্তরঙ্গ মুহূর্তে প্রেমিকের জিহ্বা কেটে নিলো প্রেমিকা

ছবি

সিরাজগঞ্জে ট্রাকচাপায় নিহত ২

ছবি

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ৬ খুনের ঘটনায় গ্রেপ্তার ১০

চট্টগ্রামে মণ্ডপে হামলা, দুদিন আগেই হয়েছিল পরিকল্পনা

ছবি

পীরগঞ্জে হামলার মূল হোতা ছাত্রলীগ নেতা সৈকত ও ইমাম রবিউল

ছবি

লালমনিরহাটে তিস্তার পানি নামছে, জনভোগান্তি চরমে

৩৫ জেলায় একদিনে কোন রোগী শনাক্ত হয়নি

বিদ্যুৎ উৎপাদন খরচ বাড়ছে

ছবি

গুজব ছড়ানোর অভিযোগে ছাত্র অধিকার পরিষদ নেতা আটক

ছবি

একশনএইডের ৩৮ বছর পথচলা উপলক্ষে দিনব্যাপী প্রদর্শনী

tab

বাংলাদেশ

বসুর হাটে কারখানা গুঁড়িয়ে দিলেন কাদের মির্জা

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১

বসুর হাট পৌর মেয়র আবদুল কাদের মির্জার অনুসারী ও পৌরসভার কর্মীদের বিরুদ্ধে আজ শুক্রবার সকালে নোয়াখালীর পৌরসভার করালিয়া এলাকায় একটি আসবাব কারখানা গুঁড়িয়ে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে।

জানা গেছে, নোয়াখালীর বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা দলবল নিয়ে একটি আসবাব কারখানা ও স মিল গুঁড়িয়ে দিয়ে সেখানে শিশুপার্ক করার সাইনবোর্ড ঝুলিয়ে দিয়েছেন। আজ শুক্রবার সকালে বসুরহাট পৌরসভার ২ নম্বর ওয়ার্ডের করালিয়া এলাকায় (সারের গুদাম) এ ঘটনা ঘটে। এতে হুমায়ুন টিম্বার মার্সেন্ট অ্যান্ড স মিল গুড়িয়ে দেয়া হয়েছে। অভিযোগ উঠেছে যে, ভাংচুরের ফলে প্রতিষ্ঠানটির কয়েক কোটি টাকার আর্থিক ক্ষতি হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শুক্রবার সকাল ছয়টার দিকে কাদের মির্জার নেতৃত্বে তাঁর বেশ কিছু অনুসারী ও পৌরসভার কর্মী হুমায়ুন টিম্বার মার্সেন্ট অ্যান্ড স মিলে যায়। তাঁরা দুটি এক্সকাভেটর দিয়ে ভেতরের বিভিন্ন মালামাল গুঁড়িয়ে দেন। পরে মেয়রের অনুসারীরা সেখানে ‘শিশুপার্কের জন্য নির্ধারিত স্থান’ লেখাসংবলিত একটি সাইনবোর্ড টাঙিয়ে দেন।

এ ব্যাপারে হুমায়ুন টিম্বারের মালিক কোম্পানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি), জেলা পুলিশ সুপার ও জেলা প্রশাসককে ফোন করে ঘটনাটি অবহিত করেন এবং আইনগত সহায়তা চান। কিন্তু প্রশাসনের লোকজন তাঁর সহযোগিতায় এগিয়ে আসেননি।

কারখানার মালিক ফিরোজ আলম অভিযোগ করেন, তাঁরা ১৯৯০ সাল থেকে করালিয়া মৌজার ডিএস ১৩৩ নম্বর খতিয়ানের ৫৫৮ নম্বর দাগের ১৭ শতাংশ জমির ক্রয়সূত্রে মালিক। জমি কেনার পর তাঁরা সেখানে ‘হুমায়ুন টিম্বার মার্সেন্ট অ্যান্ড স মিল’ প্রতিষ্ঠা করেন। সম্প্রতি বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আকস্মিকভাবে ওই জমি ‘খাস’ দাবি করেন এবং জমি থেকে তাঁদের স্থাপনা সরিয়ে নেওয়ার নির্দেশনা দেন।

ফিরোজ আলম জানান, ওই আদেশের বিরুদ্ধে তাঁরা জেলা জজ আদালতে গত ২৫ মার্চ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) বিরুদ্ধে একটি মামলা করেন। আদালত মামলা আমলে নিয়ে বিরোধীয় ভূমিতে বিবাদী পক্ষের প্রবেশে অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেন। কিন্তু আদালতের আদেশ অমান্য করে কাদের মির্জার নেতৃত্বে প্রায় ২০০ অনুসারী ও পৌরসভার এক্সকাভেটর মেশিন গিয়ে তাঁদের ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানটি ভাঙচুর করে গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়। এ সময় তাঁরা প্রতিষ্ঠানের মূল্যবান কাঠসহ অনেক মালামাল পৌরসভার গাড়ি বোঝাই করে নিয়ে যান।

ফিরোজ আলমের অভিযোগ, মেয়র আবদুল কাদের মির্জার নেতৃত্বে চলা প্রায় তিন ঘণ্টার তাণ্ডবলীলায় তাঁর প্রতিষ্ঠানের কয়েক কোটি টাকা ক্ষতি হয়েছে। ঘটনার পর তিনি কোম্পানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি), জেলা পুলিশ সুপার ও জেলা প্রশাসককে ফোন করে ঘটনাটি অবহিত করেন এবং আইনগত সহায়তা চান। কিন্তু প্রশাসনের লোকজন তাঁর সহযোগিতায় এগিয়ে আসেননি।

কোম্পানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সাইফুদ্দিন আনোয়ার সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, তাঁকে প্রতিষ্ঠানটির মালিক ফোনে ঘটনাটি জানানোর পর তিনি পুলিশ পাঠিয়ে মেয়রকে আদালতের নিষেধাজ্ঞার বার্তাটি পৌঁছান। এরপর পুলিশ সেখান থেকে চলে আসে। তবে এ ঘটনার বিষয়ে ক্ষতিগ্রস্ত পক্ষটি থানায় কোনো অভিযোগ করেনি।

ফিরোজ আলমের বড় ভাই হুমায়ুন কবিরকে ২ সেপ্টেম্বর দেওয়া পৌরসভার চিঠিতে বলা হয়, ‘আপনি সরকারি খাস সম্পত্তির ওপর বিধিবহির্ভূতভাবে স্থাপনা নির্মাণ করেছেন। জনস্বার্থে উক্ত জায়গার ওপর বসুরহাট পৌরসভার শিশুপার্ক নির্মাণের জন্য প্রস্তাব করা হয়েছে। নোটিশ প্রাপ্তির সাত দিনের মধ্যে আপনার বিধিবহির্ভূত স্থাপনা সরিয়ে নেওয়ার জন্য পুনর্নির্দেশ দেওয়া হলো।’ এর আগে গত ২২ মার্চ একই বিষয়ে আরেকটি নোটিশ করা হয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে এবং স্থাপনা সরিয়ে না নিলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের কথা বলা হয়েছে।

জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ খোরশেদ আলম খান সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, বসুরহাটের ওই জায়গাটি খাস কি না, কাগজপত্র না দেখে বলা যাবে না। তবে কিছুদিন আগে পৌরসভা থেকে একটি শিশুপার্ক নির্মাণের প্রস্তাব তাঁর কাছে পাঠানো হয়েছিল। তিনি বিষয়টি খতিয়ে দেখতে ইউএনওকে ওই প্রস্তাবের চিঠিটি পাঠিয়ে দিয়েছেন। কিন্তু মেয়রের প্রস্তাবিত শিশুপার্কের স্থান কোনটি, তা তিনি এই মুহূর্তে বলতে পারছেন না।

back to top