alt

অর্থ-বাণিজ্য

কৃষক বাঁচাতে অতিরিক্ত চাল-গম কিনতে চান না অর্থমন্ত্রী

সংবাদ :
  • অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক
image
বুধবার, ০৭ এপ্রিল ২০২১

প্রয়োজনের অতিরিক্ত চাল ও গম কেনা হবে না বলে জানিয়ে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, ‘আমরা বেশি চাল কিনব না, বেশি কিনলে আমাদের কৃষক সম্প্রদায় ক্ষতিগ্রস্ত হবে। আবার গমও বাড়তি কিনব না যাতে আমাদের কনজিউমারদের সাফার করতে না হয়। বুধবার (৭ এপ্রিল) অর্থমন্ত্রীর সভাপতিত্বে ভার্চুয়ালি অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত ও সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা জানান মন্ত্রী। অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘আজ অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির ১২তম এবং সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির ১৪তম সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির অনুমোদনের জন্য ২টি এবং ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির অনুমোদনের জন্য ৮টি প্রস্তাব উত্থাপন করা হয়। ক্রয় সংক্রান্ত কমিটিতে উপস্থাপিত প্রস্তাবনাগুলোর মধ্যে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের ৪টি, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ বিভাগের ১টি, খাদ্য মন্ত্রণালয়ের ১টি, গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের ১টি এবং সেতু বিভাগের ১টি প্রস্তাব ছিল। এরমধ্যে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের একটি ক্রয় প্রস্তাবের অনুমোদন দেয়া হয়নি। এছাড়া গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের অধীন গণপূর্ত অধিদপ্তরের অন্য একটি প্রস্তাবে পুনঃদরপত্রের অনুমোদন দেয়া হয়েছে। অনুমোদিত ৬টি প্রস্তাবে মোট অর্থের পরিমাণ এক হাজার ৫৬৬ কোটি ৭১ লাখ ৭৯ হাজার ১৬০ টাকা।’

তিনি আরও বলেন, ‘বৈঠকে খাদ্য মন্ত্রণালয়ের অধীন খাদ্য অধিদপ্তর কর্তৃক মেসার্স পিকে অ্যাগ্রো লিংক প্রাইভেট লিমিটেডের কাছ থেকে ৫০ হাজার মেট্রিক টন নন-বাসমতি সেদ্ধ চাল আমদানির একটি প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে। প্রতি মেট্রিক টন চালের দাম পড়বে ৪১১ দশমিক ৯৩ মার্কিন ডলার। এতে মোট ব্যয় হবে ১৭৪ কোটি ৬৫ লাখ ৮৩ হাজার ২০০ টাকা। চাল আমাদানির অনুমোদন দেয়া হয়েছে আমাদের যতটুকু প্রয়োজন সেই পরিমাণ। কিন্তু সেখান থেকে যখন কোন সাপ্লাইয়ার তা সময়মতো দিতে পারে না তখন আমরা এটাকে পরিবর্তন করে আরেক জায়গায় চলে যাই।’

মুস্তফা কামাল বলেন, ‘আমাদের খাদ্য মন্ত্রণালয় কৃষি মন্ত্রণালয়কে সঙ্গে নিয়ে একদম ইন্টিগ্রিটেড ওয়েতে দেখে কী পরিমাণ চাল দরকার এগুলো নির্ধারণ হয়। আমাদের প্রয়োজন এবং আগামীর প্রয়োজন, পরবর্তী ফসল কখন আসবে, সেটিকে মাথায় রেখে আমাদের কাজটি করতে হয়।’

অর্থনৈতিকবিষয়ক সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে খাদ্য মন্ত্রণালয়ের অধীন খাদ্য অধিদপ্তর কর্তৃক রাষ্ট্রীয় জরুরি প্রয়োজনে জি টু জি পদ্ধতিতে ভারতের ন্যাশনাল ফেডারেশনের অব ফার্মাস প্রকিউরমেন্ট প্রসেসিং অ্যান্ড রিটেলিং কো-অপারেটিভ লিমিটেড (এনএসিওএফ) থেকে এক লাখ মেট্রিক টন নন-বাসমতি সেদ্ধ চাল সরাসরি ক্রয় পদ্ধতিতে (ডিপিএম) আমদানির নীতিগত অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

লকডাউনে দোকানপাট বন্ধ থাকায় নিম্ন আয়ের মানুষ সমস্যায় আছে, অর্থমন্ত্রী হিসেবে তাদের জন্য কিছু করার পরিকল্পনা আছে কিনা- এমন প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের যে সব কারণে লকডাউন দেওয়া হয়েছে সেটা আপনারা জানেন। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্টরা দেখে ব্যবস্থা নেবেন। করোনার প্রণোদনা প্যাকেজগুলো আমাদের মন্ত্রণালয় থেকেই ঘোষণা করা হয়েছে, কিন্তু সবগুলো প্যাকেজই প্রধানমন্ত্রীর ধারণা ও পরিকল্পনায় হয়েছে। তিনিই সেসব করে দিয়েছে। আমরা শুধু তার হয়ে এগুলো বাস্তবায়ন করেছি।

বিশ্বব্যাংকের প্রজেকশন নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘বিশ্বব্যাংক অথবা আইএমএফ বিভিন্ন দেশের জন্য প্রজেকশন করে থাকে, টাইম টু টাইম। বিশ্বব্যাংক আমাদের সম্পর্কে বেশ উচ্ছ্বসিত ধারণা দিলো, এর সঙ্গে বাস্তবের কোনো মিল আছে আমাদের? মূলত আমাদের কাজ আমাদেরই করতে হবে। উন্নয়ন যাতে আরো বেশি বেশি করতে পারি এবং আমাদের পলিসি পারসপেকটিভে আইডিয়া ছিলে সেগুলো বাস্তবায়ন যেন যথাযথভাবে করতে পারি সেটাই আমাদের লক্ষ্য। সেই লক্ষ্য পূরণ হলে আমরা টাইম টু টাইম প্রজেকশন করি বাস্তবায়ন কতটুকু হলো। কিন্তু তারা কিছু পসিবিলিটি ও অ্যাজামশনের উপর ভিত্তি কর প্রজেকশনটা করে।’

ছবি

উৎপাদনশীলতা বাড়াতে আধুনিক শিল্প পার্ক স্থাপনের বিকল্প নেই : শিল্পমন্ত্রী

সব ব্যবসায়ীকে ১৩ সংখ্যার বিআইএন নিতে হবে

ছবি

ঈদের বাজারে মসলার আমদানি বেড়েছে

বৈষম্য-অসমতা দূর করতে বিশ্বায়ন নয় দেশজায়নে গুরুত্বারোপ অর্থনীতিবিদদের

জেনেক্স ইনফোসিসের আয় হবে ২২ কোটি

৭শ’ এর বেশি তৈরিপোশাক প্রতিষ্ঠান নিয়ে কাজ করছে সেরাই

সাত হাজার পরিবারকে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করলো স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক

৭ হাজার কোটি টাকা বাজার মূলধন বেড়েছে শেয়ারবাজারে

গ্রাহকের টাকা ব্যবহার করতে পারবে না মোবাইল ব্যাংক প্রতিষ্ঠানগুলো

ভারত থেকে প্রথমবার ট্রেনে চাল আমদানি

এবার জুরিখ ও মস্কোতে ‘রোড শো’ করবে বিএসইসি

নতুন শেয়ারের শুরুতেই স্বাভাবিক সার্কিট ব্রেকার আরোপ

তামাক-কর বৃদ্ধির জন্য ১২১ জন চিকিৎসকের বিবৃতি

বিসিক স্কিটিতে চলছে সপ্তাহব্যাপী উদ্যোক্তা মেলা

ছবি

শখের অনলাইন ব্যবসায় সাবলম্বী কারিশমা

ছবি

সবজির বাজার স্থিতিশীল, বেড়েছে মুরগির দাম

বিদেশ থেকে প্রচুর বিনিয়োগ আসার সম্ভাবনা রয়েছে : বিএসইসি চেয়ারম্যান

‘নগদ’-এর মাধ্যমে মুহূর্তেই দেয়া যাবে জাকাত-ফিতরা

ঈদের ছুটিতে কর্মস্থল ছাড়তে পারবে না ব্যাংক কর্মীরা

দুই মাস পর ডিএসইএক্স ৫৬০০ পয়েন্টের ঘরে

ছবি

শ্রমজীবী মানুষের সামাজিক নিরাপত্তা ও অধিকার সুরক্ষার আহ্বান

টিসিবির পণ্য বিক্রির সময় বাড়ল ৩ দিন

বিআরটিএ-তে বিশেষ ব্যবস্থায় গাড়ির রেজিস্ট্রেশন চায় বারভিডা

বীমা খাত উন্নয়নে ছয় দাবি বিআইএ’র

ছবি

করোনার প্রভাব : এক বছরে ৬২ শতাংশ মানুষ কর্মহীন

ছবি

জুন পর্যন্ত গণপূর্তের নতুন কোন প্রকল্প অনুমোদন নয় : অর্থমন্ত্রী

৯৪ শতাংশ মানুষ প্রযুক্তিভিত্তিক লেনদেনের কথা ভাবছেন

কালো টাকা সাদা করার সুযোগ না দেয়ার পরামর্শ অর্থনীতিবিদদের

জেলায় সর্বোচ্চ একটি আর্থিক প্রতিষ্ঠান খোলা রাখা যাবে

উদ্যোক্তাদের সহযোগিতা করতে এসএমই ফাউন্ডেশনের হেল্প ডেস্ক চালু

‘ঈদ মেগা সেল’-এ বিশেষ ছাড় ওয়ালটনের স্মার্ট, এলইডি টিভি

ছবি

ভ্যাকসিন না দিলে টাকা ফেরত দেবে সেরাম

ছবি

করোনা ভ্যাকসিন উৎপাদন করতে চায় ওরিয়ন ফার্মা

ছবি

ব্যবসায়ীদের আশঙ্কা, ঈদে বেচাকেনা অর্ধেকের নিচে নেমে আসবে

ছবি

বেআইনিভাবে শ্রমিক ছাঁটাইয়ের প্রতিবাদে বিক্ষোভ

বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ৪৫ দশমিক ১০ বিলিয়ন ডলার

tab

অর্থ-বাণিজ্য

কৃষক বাঁচাতে অতিরিক্ত চাল-গম কিনতে চান না অর্থমন্ত্রী

সংবাদ :
  • অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক
image
বুধবার, ০৭ এপ্রিল ২০২১

প্রয়োজনের অতিরিক্ত চাল ও গম কেনা হবে না বলে জানিয়ে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, ‘আমরা বেশি চাল কিনব না, বেশি কিনলে আমাদের কৃষক সম্প্রদায় ক্ষতিগ্রস্ত হবে। আবার গমও বাড়তি কিনব না যাতে আমাদের কনজিউমারদের সাফার করতে না হয়। বুধবার (৭ এপ্রিল) অর্থমন্ত্রীর সভাপতিত্বে ভার্চুয়ালি অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত ও সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা জানান মন্ত্রী। অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘আজ অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির ১২তম এবং সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির ১৪তম সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির অনুমোদনের জন্য ২টি এবং ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির অনুমোদনের জন্য ৮টি প্রস্তাব উত্থাপন করা হয়। ক্রয় সংক্রান্ত কমিটিতে উপস্থাপিত প্রস্তাবনাগুলোর মধ্যে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের ৪টি, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ বিভাগের ১টি, খাদ্য মন্ত্রণালয়ের ১টি, গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের ১টি এবং সেতু বিভাগের ১টি প্রস্তাব ছিল। এরমধ্যে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের একটি ক্রয় প্রস্তাবের অনুমোদন দেয়া হয়নি। এছাড়া গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের অধীন গণপূর্ত অধিদপ্তরের অন্য একটি প্রস্তাবে পুনঃদরপত্রের অনুমোদন দেয়া হয়েছে। অনুমোদিত ৬টি প্রস্তাবে মোট অর্থের পরিমাণ এক হাজার ৫৬৬ কোটি ৭১ লাখ ৭৯ হাজার ১৬০ টাকা।’

তিনি আরও বলেন, ‘বৈঠকে খাদ্য মন্ত্রণালয়ের অধীন খাদ্য অধিদপ্তর কর্তৃক মেসার্স পিকে অ্যাগ্রো লিংক প্রাইভেট লিমিটেডের কাছ থেকে ৫০ হাজার মেট্রিক টন নন-বাসমতি সেদ্ধ চাল আমদানির একটি প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে। প্রতি মেট্রিক টন চালের দাম পড়বে ৪১১ দশমিক ৯৩ মার্কিন ডলার। এতে মোট ব্যয় হবে ১৭৪ কোটি ৬৫ লাখ ৮৩ হাজার ২০০ টাকা। চাল আমাদানির অনুমোদন দেয়া হয়েছে আমাদের যতটুকু প্রয়োজন সেই পরিমাণ। কিন্তু সেখান থেকে যখন কোন সাপ্লাইয়ার তা সময়মতো দিতে পারে না তখন আমরা এটাকে পরিবর্তন করে আরেক জায়গায় চলে যাই।’

মুস্তফা কামাল বলেন, ‘আমাদের খাদ্য মন্ত্রণালয় কৃষি মন্ত্রণালয়কে সঙ্গে নিয়ে একদম ইন্টিগ্রিটেড ওয়েতে দেখে কী পরিমাণ চাল দরকার এগুলো নির্ধারণ হয়। আমাদের প্রয়োজন এবং আগামীর প্রয়োজন, পরবর্তী ফসল কখন আসবে, সেটিকে মাথায় রেখে আমাদের কাজটি করতে হয়।’

অর্থনৈতিকবিষয়ক সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে খাদ্য মন্ত্রণালয়ের অধীন খাদ্য অধিদপ্তর কর্তৃক রাষ্ট্রীয় জরুরি প্রয়োজনে জি টু জি পদ্ধতিতে ভারতের ন্যাশনাল ফেডারেশনের অব ফার্মাস প্রকিউরমেন্ট প্রসেসিং অ্যান্ড রিটেলিং কো-অপারেটিভ লিমিটেড (এনএসিওএফ) থেকে এক লাখ মেট্রিক টন নন-বাসমতি সেদ্ধ চাল সরাসরি ক্রয় পদ্ধতিতে (ডিপিএম) আমদানির নীতিগত অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

লকডাউনে দোকানপাট বন্ধ থাকায় নিম্ন আয়ের মানুষ সমস্যায় আছে, অর্থমন্ত্রী হিসেবে তাদের জন্য কিছু করার পরিকল্পনা আছে কিনা- এমন প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের যে সব কারণে লকডাউন দেওয়া হয়েছে সেটা আপনারা জানেন। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্টরা দেখে ব্যবস্থা নেবেন। করোনার প্রণোদনা প্যাকেজগুলো আমাদের মন্ত্রণালয় থেকেই ঘোষণা করা হয়েছে, কিন্তু সবগুলো প্যাকেজই প্রধানমন্ত্রীর ধারণা ও পরিকল্পনায় হয়েছে। তিনিই সেসব করে দিয়েছে। আমরা শুধু তার হয়ে এগুলো বাস্তবায়ন করেছি।

বিশ্বব্যাংকের প্রজেকশন নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘বিশ্বব্যাংক অথবা আইএমএফ বিভিন্ন দেশের জন্য প্রজেকশন করে থাকে, টাইম টু টাইম। বিশ্বব্যাংক আমাদের সম্পর্কে বেশ উচ্ছ্বসিত ধারণা দিলো, এর সঙ্গে বাস্তবের কোনো মিল আছে আমাদের? মূলত আমাদের কাজ আমাদেরই করতে হবে। উন্নয়ন যাতে আরো বেশি বেশি করতে পারি এবং আমাদের পলিসি পারসপেকটিভে আইডিয়া ছিলে সেগুলো বাস্তবায়ন যেন যথাযথভাবে করতে পারি সেটাই আমাদের লক্ষ্য। সেই লক্ষ্য পূরণ হলে আমরা টাইম টু টাইম প্রজেকশন করি বাস্তবায়ন কতটুকু হলো। কিন্তু তারা কিছু পসিবিলিটি ও অ্যাজামশনের উপর ভিত্তি কর প্রজেকশনটা করে।’

back to top