alt

অর্থ-বাণিজ্য

লকডাউনে বিদেশগামী কর্মীদের ফ্লাইট চালু রাখার দাবি

সংবাদ :
  • অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক
মঙ্গলবার, ১৩ এপ্রিল ২০২১

প্রায় ২০ থেকে ২৫ হাজার বিদেশগামী বাংলাদেশি কর্মীর বিদেশ যাত্রা অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়বে বলে উল্লেখ করে এক সপ্তাহের লকডাউন চলাকালে বিদেশগামী এসব কর্মীদের ফ্লাইট চালু রাখার দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব ইন্টারন্যাশনাল রিক্রুটিং এজেন্সি (বায়রা)। মঙ্গলবার (১৩ এপ্রিল) রাজধানীর ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে (ডিআরইউ) আলাদা সংবাদ সম্মেলনে বায়রা নেতারা এ দাবি জানান।

উভয় সংগঠনের পক্ষ থেকে বলা হয়, এক সপ্তাহের জন্য আন্তর্জাতিক ফ্লাইটে নিষেধাজ্ঞার কারণে অনেক কর্মীর ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে যাবে। সময়মতো না যেতে পারলে নিয়োগকর্তা চাহিদাপত্র বাতিল করতে পারে। বাংলাদেশ থেকে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট বন্ধ করে দিলে কর্মী নেয়া দেশগুলো যখন জানবে, করোনা মহামারীর জন্য ফ্লাইট বন্ধ করা হয়েছে, তখন আন্তর্জাতিক ফ্লাইট চালু করে দেয়ার পরেও কর্মী নেয়া দেশগুলো কর্মী নিতে অনীহা পোষণ করতে পারে।

বায়রা নেতারা মহামারীর এই সময়ে লকডাউন চলাকালীন পরিস্থিতিতে বিদেশগামী কর্মীদের কথা বিবেচনা করে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট বন্ধ না করে বরং জনশক্তি পাঠানো এই খাতকে ‘জরুরি সেবা খাত’ হিসেবে ঘোষণা করে তা লকডাউনের আওতামুক্ত রাখার দাবি জানান।

সংবাদ সম্মেলনে বায়রার পক্ষে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সংগঠনটির সাবেক অর্থসচিব ফখরুল ইসলাম।

বায়রার পক্ষ থেকে বলা হয়, এক সপ্তাহের জন্য সব আন্তর্জাতিক ফ্লাইট বন্ধের কারণে প্রায় ২০ থেকে ২৫ হাজার বিদেশগামী বাংলাদেশি শ্রমিকের নিজ নিজ কর্মস্থলে যাওয়া অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়বে। তাদের সবাই অধিক মূল্যে ফ্লাইটের টিকিট সংগ্রহ করেছেন। এছাড়া আরও হাজারও বিদেশগামী কর্মী টিকিটের অপেক্ষায় আছেন। ফলে হঠাৎ ফ্লাইট বন্ধের ঘোষণায় বিদেশ গমন অনিশ্চিত হয়ে পড়ায় সংশ্লিষ্ট সবাই উৎকণ্ঠা ও হতাশায় নিমজ্জিত।

বায়রার পক্ষ থেকে বলা হয়, বর্তমান পরিস্থিতিতে আন্তর্জাতিক সব ফ্লাইট বন্ধ করা হলে মারাত্মক ক্ষতি হবে বিদেশগামী কর্মী, সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ী ও সর্বোপরি দেশের। কাতার ও ওমানগামী হাজারো যাত্রী লাখ লাখ টাকা দিয়ে কোয়ারেন্টিনের জন্য হোটেল বুকিং করে রেখেছে, সেসব দেশে যেগুলো নন-রিফান্ডেবল। এতে তাদের বড় অঙ্কের লোকসান গুনতে হবে।

বায়রার পক্ষ থেকে বলা হয়, নেপাল, ভারত, পাকিস্তান, ফিলিপাইনসহ কর্মী পাঠানো দেশগুলো লকডাউনের মধ্যেও জরুরি খাত হিসেবে বিভিন্ন দেশে কর্মী পাঠাচ্ছে। সেখানে বাংলাদেশ থেকে কর্মী পাঠানো বন্ধ হলে বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক শ্রমবাজারে প্রতিযোগিতা থেকে পিছিয়ে যাবে।

ছবি

উৎপাদনশীলতা বাড়াতে আধুনিক শিল্প পার্ক স্থাপনের বিকল্প নেই : শিল্পমন্ত্রী

সব ব্যবসায়ীকে ১৩ সংখ্যার বিআইএন নিতে হবে

ছবি

ঈদের বাজারে মসলার আমদানি বেড়েছে

বৈষম্য-অসমতা দূর করতে বিশ্বায়ন নয় দেশজায়নে গুরুত্বারোপ অর্থনীতিবিদদের

জেনেক্স ইনফোসিসের আয় হবে ২২ কোটি

৭শ’ এর বেশি তৈরিপোশাক প্রতিষ্ঠান নিয়ে কাজ করছে সেরাই

সাত হাজার পরিবারকে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করলো স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক

৭ হাজার কোটি টাকা বাজার মূলধন বেড়েছে শেয়ারবাজারে

গ্রাহকের টাকা ব্যবহার করতে পারবে না মোবাইল ব্যাংক প্রতিষ্ঠানগুলো

ভারত থেকে প্রথমবার ট্রেনে চাল আমদানি

এবার জুরিখ ও মস্কোতে ‘রোড শো’ করবে বিএসইসি

নতুন শেয়ারের শুরুতেই স্বাভাবিক সার্কিট ব্রেকার আরোপ

তামাক-কর বৃদ্ধির জন্য ১২১ জন চিকিৎসকের বিবৃতি

বিসিক স্কিটিতে চলছে সপ্তাহব্যাপী উদ্যোক্তা মেলা

ছবি

শখের অনলাইন ব্যবসায় সাবলম্বী কারিশমা

ছবি

সবজির বাজার স্থিতিশীল, বেড়েছে মুরগির দাম

বিদেশ থেকে প্রচুর বিনিয়োগ আসার সম্ভাবনা রয়েছে : বিএসইসি চেয়ারম্যান

‘নগদ’-এর মাধ্যমে মুহূর্তেই দেয়া যাবে জাকাত-ফিতরা

ঈদের ছুটিতে কর্মস্থল ছাড়তে পারবে না ব্যাংক কর্মীরা

দুই মাস পর ডিএসইএক্স ৫৬০০ পয়েন্টের ঘরে

ছবি

শ্রমজীবী মানুষের সামাজিক নিরাপত্তা ও অধিকার সুরক্ষার আহ্বান

টিসিবির পণ্য বিক্রির সময় বাড়ল ৩ দিন

বিআরটিএ-তে বিশেষ ব্যবস্থায় গাড়ির রেজিস্ট্রেশন চায় বারভিডা

বীমা খাত উন্নয়নে ছয় দাবি বিআইএ’র

ছবি

করোনার প্রভাব : এক বছরে ৬২ শতাংশ মানুষ কর্মহীন

ছবি

জুন পর্যন্ত গণপূর্তের নতুন কোন প্রকল্প অনুমোদন নয় : অর্থমন্ত্রী

৯৪ শতাংশ মানুষ প্রযুক্তিভিত্তিক লেনদেনের কথা ভাবছেন

কালো টাকা সাদা করার সুযোগ না দেয়ার পরামর্শ অর্থনীতিবিদদের

জেলায় সর্বোচ্চ একটি আর্থিক প্রতিষ্ঠান খোলা রাখা যাবে

উদ্যোক্তাদের সহযোগিতা করতে এসএমই ফাউন্ডেশনের হেল্প ডেস্ক চালু

‘ঈদ মেগা সেল’-এ বিশেষ ছাড় ওয়ালটনের স্মার্ট, এলইডি টিভি

ছবি

ভ্যাকসিন না দিলে টাকা ফেরত দেবে সেরাম

ছবি

করোনা ভ্যাকসিন উৎপাদন করতে চায় ওরিয়ন ফার্মা

ছবি

ব্যবসায়ীদের আশঙ্কা, ঈদে বেচাকেনা অর্ধেকের নিচে নেমে আসবে

ছবি

বেআইনিভাবে শ্রমিক ছাঁটাইয়ের প্রতিবাদে বিক্ষোভ

বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ৪৫ দশমিক ১০ বিলিয়ন ডলার

tab

অর্থ-বাণিজ্য

লকডাউনে বিদেশগামী কর্মীদের ফ্লাইট চালু রাখার দাবি

সংবাদ :
  • অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক
মঙ্গলবার, ১৩ এপ্রিল ২০২১

প্রায় ২০ থেকে ২৫ হাজার বিদেশগামী বাংলাদেশি কর্মীর বিদেশ যাত্রা অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়বে বলে উল্লেখ করে এক সপ্তাহের লকডাউন চলাকালে বিদেশগামী এসব কর্মীদের ফ্লাইট চালু রাখার দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব ইন্টারন্যাশনাল রিক্রুটিং এজেন্সি (বায়রা)। মঙ্গলবার (১৩ এপ্রিল) রাজধানীর ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে (ডিআরইউ) আলাদা সংবাদ সম্মেলনে বায়রা নেতারা এ দাবি জানান।

উভয় সংগঠনের পক্ষ থেকে বলা হয়, এক সপ্তাহের জন্য আন্তর্জাতিক ফ্লাইটে নিষেধাজ্ঞার কারণে অনেক কর্মীর ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে যাবে। সময়মতো না যেতে পারলে নিয়োগকর্তা চাহিদাপত্র বাতিল করতে পারে। বাংলাদেশ থেকে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট বন্ধ করে দিলে কর্মী নেয়া দেশগুলো যখন জানবে, করোনা মহামারীর জন্য ফ্লাইট বন্ধ করা হয়েছে, তখন আন্তর্জাতিক ফ্লাইট চালু করে দেয়ার পরেও কর্মী নেয়া দেশগুলো কর্মী নিতে অনীহা পোষণ করতে পারে।

বায়রা নেতারা মহামারীর এই সময়ে লকডাউন চলাকালীন পরিস্থিতিতে বিদেশগামী কর্মীদের কথা বিবেচনা করে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট বন্ধ না করে বরং জনশক্তি পাঠানো এই খাতকে ‘জরুরি সেবা খাত’ হিসেবে ঘোষণা করে তা লকডাউনের আওতামুক্ত রাখার দাবি জানান।

সংবাদ সম্মেলনে বায়রার পক্ষে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সংগঠনটির সাবেক অর্থসচিব ফখরুল ইসলাম।

বায়রার পক্ষ থেকে বলা হয়, এক সপ্তাহের জন্য সব আন্তর্জাতিক ফ্লাইট বন্ধের কারণে প্রায় ২০ থেকে ২৫ হাজার বিদেশগামী বাংলাদেশি শ্রমিকের নিজ নিজ কর্মস্থলে যাওয়া অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়বে। তাদের সবাই অধিক মূল্যে ফ্লাইটের টিকিট সংগ্রহ করেছেন। এছাড়া আরও হাজারও বিদেশগামী কর্মী টিকিটের অপেক্ষায় আছেন। ফলে হঠাৎ ফ্লাইট বন্ধের ঘোষণায় বিদেশ গমন অনিশ্চিত হয়ে পড়ায় সংশ্লিষ্ট সবাই উৎকণ্ঠা ও হতাশায় নিমজ্জিত।

বায়রার পক্ষ থেকে বলা হয়, বর্তমান পরিস্থিতিতে আন্তর্জাতিক সব ফ্লাইট বন্ধ করা হলে মারাত্মক ক্ষতি হবে বিদেশগামী কর্মী, সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ী ও সর্বোপরি দেশের। কাতার ও ওমানগামী হাজারো যাত্রী লাখ লাখ টাকা দিয়ে কোয়ারেন্টিনের জন্য হোটেল বুকিং করে রেখেছে, সেসব দেশে যেগুলো নন-রিফান্ডেবল। এতে তাদের বড় অঙ্কের লোকসান গুনতে হবে।

বায়রার পক্ষ থেকে বলা হয়, নেপাল, ভারত, পাকিস্তান, ফিলিপাইনসহ কর্মী পাঠানো দেশগুলো লকডাউনের মধ্যেও জরুরি খাত হিসেবে বিভিন্ন দেশে কর্মী পাঠাচ্ছে। সেখানে বাংলাদেশ থেকে কর্মী পাঠানো বন্ধ হলে বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক শ্রমবাজারে প্রতিযোগিতা থেকে পিছিয়ে যাবে।

back to top