alt

অর্থ-বাণিজ্য

অর্থনীতিবিদদের অভিমত

দেশে কোটিপতি বৃদ্ধি আয়-বৈষম্যের উৎকৃষ্ট উদাহরণ

রেজাউল করিম : রোববার, ২৫ জুলাই ২০২১

সম্প্রতি বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদনে দেখা গেছে, গত এক বছরে ব্যাংকে রাখা আমানতের হিসাবে কোটিপতি বেড়েছে ১১ হাজার ৬৪৭টি। করোনার মধ্যেও এতোজন কোটিপতি হিসাব বৃদ্ধিকে দেশের সাধারণ মানুষের সঙ্গে ধনীদের আয় বৈষম্যের উৎকৃষ্ট উদাহরণ হিসেবে দেখছেন অর্থনীতিবিদরা। তারা বলছেন, দেশের প্রবৃদ্ধি গুটিকয়েক মানুষ ভোগ করছেন। তাই কোটিপতি হিসাব বৃদ্ধি পাচ্ছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের ২০২১ সালের মার্চ মাসের প্রতিবেদনে দেখা গেছে, বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোতে এক কোটি টাকার বেশি আমানত রয়েছে এমন হিসাবের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৯৪ হাজার ২৭২টি। করোনা সংক্রমণের আগে কোটি টাকার আমানতের হিসাব ছিল ৮২ হাজার ৬২৫টি। অর্থাৎ এক বছরের কোটি টাকার ব্যাংক হিসাব বেড়েছে ১১ হাজার ৬৪৭টি।

এ প্রসঙ্গে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের সাবেক অধ্যাপক ড. মইনুল ইসলাম সংবাদকে বলেন, ‘বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। তবে এর সুফল সবাই ভোগ করতে পারছেন না। গুটিকয়েক ধনীর আয় বাড়ছে। অন্যদিকে সাধারণ মানুষের আয় তুলনামূলক বাড়ছে না। এতে চরম আয়বৈষম্য সৃষ্টি হচ্ছে।’

বিষয়টিকে দুইভাবে দেখছেন গবেষণা সংস্থা পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মনসুর। তিনি সংবাদকে বলেন, ‘বিষয়টিকে দুইভাবে ব্যাখ্যা করা যায়। প্রথমত, দেশে কোটিপতি বৃদ্ধি হওয়ায় মনে হতে পারে দেশে ধনী বাড়ছে অর্থাৎ দেশ উন্নত হচ্ছে। দ্বিতীয়ত, কোটিপতি বাড়ছে মানে আয়বৈষম্য বৃদ্ধি পাচ্ছে, কিছু মানুষ গরিব হচ্ছে। আর আরও গভীরে গিয়ে দেখলে দেখা যাবে, যারা কোটিপতি হচ্ছে তারা কিভাবে কোটিপতি হচ্ছে। তারা সৎপথে কোটিপতি হচ্ছে? অবশ্যই না। অনেকে অসৎ পথে ইনকাম করে ব্যাংকে রাখছেন। এর মধ্যে অধিকাংশই রয়েছেন সরকারি আমলা ও রাজনৈতিক ব্যক্তি। তাদের বেশিরভাগের আয়ই অবৈধ।’

বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদনে দেখা যায়, ২০২১ সালের মার্চ পর্যন্ত ব্যাংকিং খাতে আমানতকারীদের হিসাবে জমা ছিল ১৩ লাখ ৮৪ হাজার ৩২৫ কোটি টাকা। ২০২০ সালের মার্চে এই ব্যাংকগুলোতে আমানত ছিল ১২ লাখ ১০ হাজার ৪৯৭ কোটি টাকা। সেই হিসেবে গত বছরে দেশের বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোতে আমানত বেড়েছে ১ লাখ ৭৩ হাজার ৮২৮ কোটি টাকা। আমানতকারীদের জমানো অর্থের প্রায় ৪৩ দশমিক ৯ শতাংশই কোটিপতিদের দখলে। চলতি বছরের মার্চে তাদের হিসাবে জমা ৫ লাখ ৯৬ হাজার ৫৫৫ কোটি টাকা। গত বছরের মার্চে কোটিপতি ব্যাংক হিসাবে জমা ছিল ৫ লাখ ১৫ হাজার ৮৭৭ কোটি টাকা। সেই হিসেবে এক বছরে কোটিপতি ব্যাংক হিসাবগুলোর জমানো টাকা বেড়েছে ৮০ হাজার ৬৭৮ কোটি টাকা।

দেশের নীতিনির্ধারকরাদের এই আয়বৈষম্যের সৃষ্টির জন্য দায়ী করে মইনুল ইসলাম বলেন, ‘আয়বৈষম্য বৃদ্ধির জন্য সরকারের নীতিনির্ধারকরাই দায়ী। বর্তমান সরকারের মন্ত্রিপরিষদে অধিকাংশই ব্যবসায়ীরা বসে আছেন। তাই তারা সাধারণ মানুষের বিষয়টি চিন্তা করেন না। তারা সাধারণ মানুষকে জিডিপি প্রবৃদ্ধির গল্প শুনিয়ে নিজেরা আখের গুছিয়ে নিচ্ছে।’

সারাবিশ্বের মতো বাংলাদেশের অর্থনীতিতেও নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। অনেকে কাজ হারিয়েছেন। অনেকে কর্মহীন হওয়ার ঝুঁকিতে রয়েছেন। এমন পরিস্থিতিতেও আমানতকারীর সঙ্গে কোটি টাকা জমার হিসাবের সংখ্যা বাড়ছে। বিষয়টিকে ইতিবাচক হিসেবে দেখার সুযোগ নেই বলে জানান এই অর্থনীতিবিদ।

বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদনে আরও দেখা যায়, ২০২১ সালের মার্চ মাস শেষে ১ কোটি ১ টাকা থেকে ৫ কোটি টাকার আমানতকারীর সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৭৪ হাজার ২২৯টি। ৫ কোটি ১ টাকা থেকে ১০ কোটি পর্যন্ত জমা হিসাবের সংখ্যা ১০ হাজার ৪৯৯টি, ১০ কোটি ১ টাকা থেকে ১৫ কোটির টাকার হিসাব রয়েছে ৩ হাজার ৪৪৬টি, ১৫ কোটি ১ টাকা থেকে ২০ কোটির মধ্যে এক হাজার ৬৯৩টি, ২০ কোটি ১ টাকা থেকে ২৫ কোটির মধ্যে এক হাজার ৮১ জন, ২৫ কোটি ১ টাকা থেকে ৩০ কোটির মধ্যে হিসাব রয়েছে ৭৬৬ জনের, ৩০ কোটি ১ টাকা থেকে ৩৫ কোটি টাকার মধ্যে ৩৮৮ জন এবং ৩৫ কোটি ১ টাকা থেকে ৪০ কোটির মধ্যে ২৯৬ জন আমানতকারী হিসাব রয়েছে। গত এক বছরে ৪০ কোটি এক টাকা থেকে ৫০ কোটি টাকার অ্যাকাউন্ট সংখ্যা দাঁড়ায় ৫০৪টি। আলোচিত সময়ে ৫০ কোটি টাকার বেশি আমানত রাখা ব্যক্তির সংখ্যা বেড়ে এক হাজার ৩৭০টিতে দাঁড়িয়েছে।

স্বাধীনতার পর ১৯৭২ সালে দেশে কোটিপতি আমানতকারী ছিল ৫ জন, ১৯৭৫ সালে তা ৪৭ জনে উন্নীত হয়। ১৯৮০ সালে কোটিপতিদের হিসাবধারীর সংখ্যা ছিল ৯৮টি। এরপর ১৯৯০ সালে ৯৪৩টি, ১৯৯৬ সালে ২ হাজার ৫৯৪ জন, ২০০১ সালে ৫ হাজার ১৬২টি, ২০০৬ সালে ৮ হাজার ৮৮৭টি এবং ২০০৮ সালে ছিল ১৯ হাজার ১৬৩টি। ২০২০ সালে ডিসেম্বর শেষে দাঁড়ায় ৯৩ হাজার ৮৯০টিতে।

ছবি

বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষ এবং কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর এর মধ্যে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর

ছবি

তৈরি পোশাক খাতের ডিজিটাইজেশানের জন্য প্রি-সিড রাউন্ডে ২ লাখ ৬০ হাজার ডলার বিনিয়োগ পেল মার্চেন্টবে

ছবি

আসিয়ানে বাণিজ্য ও অর্থনীতি ডিজিটাল করতে আগামী পাঁচ বছর অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ

ছবি

৪৯৩টি উপজেলায় ‘বিসিক-ঐক্য ডিজিটাল ডিসপ্লে অ্যান্ড সেলস সেন্টার’ স্থাপনে চুক্তি

ছবি

চলছে হুয়াওয়ে কানেক্ট ২০২১

ছবি

শেষ হলো দারাজ চ্যাম্পিয়নশিপ কেস স্টাডি পর্ব

ছবি

ই-কমার্স সাইট থেকে পণ্য কিনে বাণিজ্যমন্ত্রী নিজেই প্রতারিত

সূচক কমলেও লেনদেন বেড়েছে শেয়ারবাজারে

এবার ধামাকার বিরুদ্ধে টঙ্গীতে মামলা

৪শ’ চীনা কোম্পানি কাজ করছে বাংলাদেশে : পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী

বিএসটিআই’র অভিযানে মামলা ও জরিমানা

ছবি

টেকসই বৈশ্বিক অর্থনৈতিক ভিত্তি তৈরি করে গেছেন বঙ্গবন্ধু : এফবিসিসিআই সভাপতি

এনআরবিসি ব্যাংক কর্মকর্তাকে মারধরের মামলায় প্রধান আসামি আটক

১-৫ অক্টোবর মার্কেন্টাইল ব্যাংকে লেনদেন বন্ধ

ছবি

চালু হলো স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ডের ‘স্মার্ট কার্ড’

ছবি

ডেসটিনি-যুবকের গ্রাহকরা অর্ধেক টাকা ফেরত পেতে পারেন: বাণিজ্যমন্ত্রী

ছবি

সঞ্চয়পত্রে নতুন মুনাফার হার পালনে বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশনা

ছবি

ই-কমার্স সাইট থেকে গরু কিনে বাণিজ্যমন্ত্রী নিজেই প্রতারিত

৫৬ শতাংশ প্রতিষ্ঠানের দর বৃদ্ধিতেও সূচকে মিশ্রপ্রবণতা

ছবি

নিউ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকে যোগ দিল বাংলাদেশ

ছবি

সালমান বলছেন, বাংলাদেশে বিনিয়োগে আগ্রহ দেখিয়েছে সৌদি আরব

ছবি

করোনার ক্ষতি কাটাতে ২ হাজার কোটি টাকা ঋণ দেবে এডিবি

নিবন্ধন প্রক্রিয়ার আওতায় আসছে ই-কমার্স

বাণিজ্যিক সম্পর্কোন্নয়নে প্রবাসীদের এগিয়ে আসার আহ্বান এফবিসিসিআই’র

ই-কমার্সে নিয়ন্ত্রক সংস্থা চান না উদ্যোক্তারা

বাড়ছে ডলারের দাম, কমছে টাকার মান

ছবি

ভারতে গেলো তৃতীয় দিনে ১৮৬ মেট্রিক টন ইলিশ

ছবি

বাংলাদেশকে স্বাগত জানিয়ে বার্তা দিলেন এনডিবি প্রেসিডেন্ট

ছবি

নিউ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক প্রেসিডেন্ট নতুন সদস্য হিসেবে বাংলাদেশকে স্বাগত জানালেন

ছবি

বেড়েই চলেছে সবজির দাম

শেয়ারবাজারে ফিরলো আড়াই হাজার কোটি টাকা

এলডিসি পরবর্তী চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় জাতিসংঘের সহায়তা চায় এফবিসিসিআই

ছবি

পানিফল চাষ জনপ্রিয় হচ্ছে সাতক্ষীরায়

নতুন চারটি পণ্য আনছে আরডি ফুড

ছবি

ভারতে তুলার উৎপাদন কমার আশঙ্কা

ছবি

‘স্বপ্ন’ এখন দক্ষিণ সস্তাপুরে

tab

অর্থ-বাণিজ্য

অর্থনীতিবিদদের অভিমত

দেশে কোটিপতি বৃদ্ধি আয়-বৈষম্যের উৎকৃষ্ট উদাহরণ

রেজাউল করিম

রোববার, ২৫ জুলাই ২০২১

সম্প্রতি বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদনে দেখা গেছে, গত এক বছরে ব্যাংকে রাখা আমানতের হিসাবে কোটিপতি বেড়েছে ১১ হাজার ৬৪৭টি। করোনার মধ্যেও এতোজন কোটিপতি হিসাব বৃদ্ধিকে দেশের সাধারণ মানুষের সঙ্গে ধনীদের আয় বৈষম্যের উৎকৃষ্ট উদাহরণ হিসেবে দেখছেন অর্থনীতিবিদরা। তারা বলছেন, দেশের প্রবৃদ্ধি গুটিকয়েক মানুষ ভোগ করছেন। তাই কোটিপতি হিসাব বৃদ্ধি পাচ্ছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের ২০২১ সালের মার্চ মাসের প্রতিবেদনে দেখা গেছে, বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোতে এক কোটি টাকার বেশি আমানত রয়েছে এমন হিসাবের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৯৪ হাজার ২৭২টি। করোনা সংক্রমণের আগে কোটি টাকার আমানতের হিসাব ছিল ৮২ হাজার ৬২৫টি। অর্থাৎ এক বছরের কোটি টাকার ব্যাংক হিসাব বেড়েছে ১১ হাজার ৬৪৭টি।

এ প্রসঙ্গে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের সাবেক অধ্যাপক ড. মইনুল ইসলাম সংবাদকে বলেন, ‘বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। তবে এর সুফল সবাই ভোগ করতে পারছেন না। গুটিকয়েক ধনীর আয় বাড়ছে। অন্যদিকে সাধারণ মানুষের আয় তুলনামূলক বাড়ছে না। এতে চরম আয়বৈষম্য সৃষ্টি হচ্ছে।’

বিষয়টিকে দুইভাবে দেখছেন গবেষণা সংস্থা পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মনসুর। তিনি সংবাদকে বলেন, ‘বিষয়টিকে দুইভাবে ব্যাখ্যা করা যায়। প্রথমত, দেশে কোটিপতি বৃদ্ধি হওয়ায় মনে হতে পারে দেশে ধনী বাড়ছে অর্থাৎ দেশ উন্নত হচ্ছে। দ্বিতীয়ত, কোটিপতি বাড়ছে মানে আয়বৈষম্য বৃদ্ধি পাচ্ছে, কিছু মানুষ গরিব হচ্ছে। আর আরও গভীরে গিয়ে দেখলে দেখা যাবে, যারা কোটিপতি হচ্ছে তারা কিভাবে কোটিপতি হচ্ছে। তারা সৎপথে কোটিপতি হচ্ছে? অবশ্যই না। অনেকে অসৎ পথে ইনকাম করে ব্যাংকে রাখছেন। এর মধ্যে অধিকাংশই রয়েছেন সরকারি আমলা ও রাজনৈতিক ব্যক্তি। তাদের বেশিরভাগের আয়ই অবৈধ।’

বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদনে দেখা যায়, ২০২১ সালের মার্চ পর্যন্ত ব্যাংকিং খাতে আমানতকারীদের হিসাবে জমা ছিল ১৩ লাখ ৮৪ হাজার ৩২৫ কোটি টাকা। ২০২০ সালের মার্চে এই ব্যাংকগুলোতে আমানত ছিল ১২ লাখ ১০ হাজার ৪৯৭ কোটি টাকা। সেই হিসেবে গত বছরে দেশের বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোতে আমানত বেড়েছে ১ লাখ ৭৩ হাজার ৮২৮ কোটি টাকা। আমানতকারীদের জমানো অর্থের প্রায় ৪৩ দশমিক ৯ শতাংশই কোটিপতিদের দখলে। চলতি বছরের মার্চে তাদের হিসাবে জমা ৫ লাখ ৯৬ হাজার ৫৫৫ কোটি টাকা। গত বছরের মার্চে কোটিপতি ব্যাংক হিসাবে জমা ছিল ৫ লাখ ১৫ হাজার ৮৭৭ কোটি টাকা। সেই হিসেবে এক বছরে কোটিপতি ব্যাংক হিসাবগুলোর জমানো টাকা বেড়েছে ৮০ হাজার ৬৭৮ কোটি টাকা।

দেশের নীতিনির্ধারকরাদের এই আয়বৈষম্যের সৃষ্টির জন্য দায়ী করে মইনুল ইসলাম বলেন, ‘আয়বৈষম্য বৃদ্ধির জন্য সরকারের নীতিনির্ধারকরাই দায়ী। বর্তমান সরকারের মন্ত্রিপরিষদে অধিকাংশই ব্যবসায়ীরা বসে আছেন। তাই তারা সাধারণ মানুষের বিষয়টি চিন্তা করেন না। তারা সাধারণ মানুষকে জিডিপি প্রবৃদ্ধির গল্প শুনিয়ে নিজেরা আখের গুছিয়ে নিচ্ছে।’

সারাবিশ্বের মতো বাংলাদেশের অর্থনীতিতেও নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। অনেকে কাজ হারিয়েছেন। অনেকে কর্মহীন হওয়ার ঝুঁকিতে রয়েছেন। এমন পরিস্থিতিতেও আমানতকারীর সঙ্গে কোটি টাকা জমার হিসাবের সংখ্যা বাড়ছে। বিষয়টিকে ইতিবাচক হিসেবে দেখার সুযোগ নেই বলে জানান এই অর্থনীতিবিদ।

বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদনে আরও দেখা যায়, ২০২১ সালের মার্চ মাস শেষে ১ কোটি ১ টাকা থেকে ৫ কোটি টাকার আমানতকারীর সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৭৪ হাজার ২২৯টি। ৫ কোটি ১ টাকা থেকে ১০ কোটি পর্যন্ত জমা হিসাবের সংখ্যা ১০ হাজার ৪৯৯টি, ১০ কোটি ১ টাকা থেকে ১৫ কোটির টাকার হিসাব রয়েছে ৩ হাজার ৪৪৬টি, ১৫ কোটি ১ টাকা থেকে ২০ কোটির মধ্যে এক হাজার ৬৯৩টি, ২০ কোটি ১ টাকা থেকে ২৫ কোটির মধ্যে এক হাজার ৮১ জন, ২৫ কোটি ১ টাকা থেকে ৩০ কোটির মধ্যে হিসাব রয়েছে ৭৬৬ জনের, ৩০ কোটি ১ টাকা থেকে ৩৫ কোটি টাকার মধ্যে ৩৮৮ জন এবং ৩৫ কোটি ১ টাকা থেকে ৪০ কোটির মধ্যে ২৯৬ জন আমানতকারী হিসাব রয়েছে। গত এক বছরে ৪০ কোটি এক টাকা থেকে ৫০ কোটি টাকার অ্যাকাউন্ট সংখ্যা দাঁড়ায় ৫০৪টি। আলোচিত সময়ে ৫০ কোটি টাকার বেশি আমানত রাখা ব্যক্তির সংখ্যা বেড়ে এক হাজার ৩৭০টিতে দাঁড়িয়েছে।

স্বাধীনতার পর ১৯৭২ সালে দেশে কোটিপতি আমানতকারী ছিল ৫ জন, ১৯৭৫ সালে তা ৪৭ জনে উন্নীত হয়। ১৯৮০ সালে কোটিপতিদের হিসাবধারীর সংখ্যা ছিল ৯৮টি। এরপর ১৯৯০ সালে ৯৪৩টি, ১৯৯৬ সালে ২ হাজার ৫৯৪ জন, ২০০১ সালে ৫ হাজার ১৬২টি, ২০০৬ সালে ৮ হাজার ৮৮৭টি এবং ২০০৮ সালে ছিল ১৯ হাজার ১৬৩টি। ২০২০ সালে ডিসেম্বর শেষে দাঁড়ায় ৯৩ হাজার ৮৯০টিতে।

back to top