alt

অর্থ-বাণিজ্য

তৈরি পোশাক খাতের ব্যবসায়ীদের আশঙ্কা

পুরোনো ক্রয়াদেশ শিপমেন্ট না হলে নতুনগুলো অন্য দেশে চলে যাবে

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক : মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই ২০২১

করোনা সংক্রমণ রোধে ঘোষিত কঠোর লকডাউনে রপ্তানিমুখী সব তৈরি পোশাক কারখানাও বন্ধ রয়েছে। তাই আগের ক্রয়াদেশ পাওয়া কাজগুলো আটকে রয়েছে। আর যেসব ক্রয়াদেশের কাজ শেষ হয়েছে অর্থাৎ পুরোনো ক্রয়াদেশগুলোও লকডাউনের কারণে শিফমেন্ট হচ্ছে না। সঠিক সময় মতো শিপমেন্ট না হলে দেশের পোশাক খাত ও অর্থনীতি বড় ধরনের ক্ষতির মুখে পড়তে যাচ্ছে বলে দাবি করেছেন এই খাতের উদ্যোক্তারা। সম্প্রতি তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তারা এমন দাবি করেন।

এ বিষয়ে তৈরি পোশাক মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ-এর সভাপতি ফারুক হাসান বলেন, ‘লকডাউনের কারণে নতুন অর্ডার কমেছে। আর পুরোনো যেসব অর্ডার ছিল সেগুলোর শিফমেন্টও করতে পারছি না। সময় মতো শিপমেন্ট না করতে পারলে বায়াররা আমাদের নতুন অর্ডার দিবে না। আর অনেকে হয়তো পুরোনো অর্ডারগুলোও বাতিল করে দিতে পারে। যদি এমন হয় তাহলে তৈরি পোশাক খাতের ব্যবসায়ীরা ক্ষতিগ্রস্ত হবে। একই সঙ্গে বাংলাদেশের অর্থনীতিতেও ধস নামবে।’

সারা বছর যে পরিমাণ ক্রয়াদেশ আসে সেই ক্রয়াদেশের বেশিরভাগই আসে জুন, জুলাই, আগস্ট মাসে। তাই এই সময় কারখানা বন্ধ থাকার অর্থ হচ্ছে পোশাক খাতের জন্য বড় ক্ষতি। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সরকার গত ২৩ জুলাই থেকে তৈরি পোশাকসহ দেশের বেশির ভাগ কলকারখানা বন্ধ রেখেছে। এমন অবস্থা চলবে আগামী ৫ আগস্ট পর্যন্ত। জানা গেছে, চলমান এই বিধিনিষেধে বায়াররা এখন পর্যন্ত কোন ক্রয়াদেশ বাতিল করেননি।

তবে ব্যবসায়ীরা বলছেন, দেশে করোনার প্রকোপ এখনও ঊর্ধ্বমুখী। বায়াররা এ নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছেন যে, সরকারের কঠোর বিধিনিষেধ আগামী ৫ আগস্ট পর্যন্তই থাকবে, নাকি আরও বাড়বে? সময় বাড়লে ওই সময়ে যদি পোশাক কারখানা বন্ধ থাকে তবে পণ্য সঠিক সময়ে পাওয়া যাবে না। বিধিনিষেধ বাড়লেও যদি পোশাক কারখানা এর আওতার বাইরে রাখা হয়, তাহলে কোন সমস্যা থাকে না।

ফারুক হাসান আরও বলেন, ‘বায়ররা ৫ আগস্ট পর্যন্ত বাংলাদেশের পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করবেন। আমরা সরকারের কাছে প্রস্তাব করেছি, আগামী ১ আগস্ট থেকে রপ্তানিমুখী কারখানাগুলোকে বিধিনিষেধের বাইরে রাখার জন্য। আশা করি, সরকার বিবেচনায় নেবে।’

এই অবস্থায় সম্ভাব্য ক্ষতি এড়াতে তৈরি পোশাক কারখানার কর্মীদের গণটিকাদানের প্রস্তাব করেছেন ব্যবসায়ীরা। এর পাশাপাশি শেষ পর্যায়ে থাকা ক্রয় আদেশের কাজগুলো সারতে সীমিত সংখ্যক শ্রমিক দিয়ে কারখানা খোলার প্রস্তাব দেন তারা।

বিজিএমইএ’র পরিচালক আরশাদ জামাল বলেন, ‘ঈদের ছুটিতে অনেক ক্রেতা প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি জানিয়েছেন, বিধিনিষেধের পর তৈরি করা পোশাক উড়োজাহাজে পাঠাতে হবে, না হলে ক্রয়াদেশ বাতিল হবে। কারণ, তাদের দ্রুত পণ্য দরকার। তাদের কিছু করার নেই, তাদের হাত-পা বাঁধা। সব মিলিয়ে আমার মনে হচ্ছে, এবারের বিধিনিষেধের ফলে আমাদের ১০-১৫ শতাংশ ক্রয়াদেশ কমে যাবে। করোনার শুরু থেকেই পোশাক শ্রমিকদের সুরক্ষার বিষয়টি বেশ ভালোভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে পেরেছি আমরা। আমাদের শ্রমিকদের মধ্যে সংক্রমণের হার কখনোই ৩ শতাংশের বেশি হয়নি। ইতোমধ্যে শ্রমিকদের টিকা দেয়ার কাজও শুরু করেছে সরকার।’

এ বিষয়ে নিটওয়্যার কারখানা মালিকদের সংগঠন বিকেএমইএর সভাপতি সেলিম ওসমান বলেন, ‘শ্রমিক ও দেশের অর্থনীতিকে ভালো রাখতে হলে কারখানা চালু রাখতে হবে। তা না হলে, দেশ থেকে বিদেশিরা ক্রয়াদেশ তুলে নেবেন। অর্ডারগুলো অন্যদেশে চলে যাবে। বিকেএমইএর পক্ষ থেকে প্রত্যাশা করছি, সরকার আমাদের আগের অর্ডারের পণ্য সঠিক সময়ে পাঠানোর সুযোগ দিক। আমাদের শিপমেন্টের কাজগুলো করতে দিক।

বিকেএমইএর সহ-সভাপতি মোহাম্মদ হাতেম বলেন, ‘বেশকিছু কারখানায় বায়ারদের অর্ডারের ৯০ শতাংশ কাজ শেষ। সেগুলো আগামী ৩০ জুলাইয়ের মধ্যে শিপমেন্ট দেয়ার কথা। নির্ধারিত সময়ে পণ্য দিতে না পারলে অর্ডার বাতিল করার হুমকি দিচ্ছেন বায়াররা। অন্তত ওই কারখানাগুলো সীমিত পরিসরে খোলার অনুমতি দেয়া হোক।’

ছবি

বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষ এবং কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর এর মধ্যে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর

ছবি

তৈরি পোশাক খাতের ডিজিটাইজেশানের জন্য প্রি-সিড রাউন্ডে ২ লাখ ৬০ হাজার ডলার বিনিয়োগ পেল মার্চেন্টবে

ছবি

আসিয়ানে বাণিজ্য ও অর্থনীতি ডিজিটাল করতে আগামী পাঁচ বছর অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ

ছবি

৪৯৩টি উপজেলায় ‘বিসিক-ঐক্য ডিজিটাল ডিসপ্লে অ্যান্ড সেলস সেন্টার’ স্থাপনে চুক্তি

ছবি

চলছে হুয়াওয়ে কানেক্ট ২০২১

ছবি

শেষ হলো দারাজ চ্যাম্পিয়নশিপ কেস স্টাডি পর্ব

ছবি

ই-কমার্স সাইট থেকে পণ্য কিনে বাণিজ্যমন্ত্রী নিজেই প্রতারিত

সূচক কমলেও লেনদেন বেড়েছে শেয়ারবাজারে

এবার ধামাকার বিরুদ্ধে টঙ্গীতে মামলা

৪শ’ চীনা কোম্পানি কাজ করছে বাংলাদেশে : পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী

বিএসটিআই’র অভিযানে মামলা ও জরিমানা

ছবি

টেকসই বৈশ্বিক অর্থনৈতিক ভিত্তি তৈরি করে গেছেন বঙ্গবন্ধু : এফবিসিসিআই সভাপতি

এনআরবিসি ব্যাংক কর্মকর্তাকে মারধরের মামলায় প্রধান আসামি আটক

১-৫ অক্টোবর মার্কেন্টাইল ব্যাংকে লেনদেন বন্ধ

ছবি

চালু হলো স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ডের ‘স্মার্ট কার্ড’

ছবি

ডেসটিনি-যুবকের গ্রাহকরা অর্ধেক টাকা ফেরত পেতে পারেন: বাণিজ্যমন্ত্রী

ছবি

সঞ্চয়পত্রে নতুন মুনাফার হার পালনে বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশনা

ছবি

ই-কমার্স সাইট থেকে গরু কিনে বাণিজ্যমন্ত্রী নিজেই প্রতারিত

৫৬ শতাংশ প্রতিষ্ঠানের দর বৃদ্ধিতেও সূচকে মিশ্রপ্রবণতা

ছবি

নিউ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকে যোগ দিল বাংলাদেশ

ছবি

সালমান বলছেন, বাংলাদেশে বিনিয়োগে আগ্রহ দেখিয়েছে সৌদি আরব

ছবি

করোনার ক্ষতি কাটাতে ২ হাজার কোটি টাকা ঋণ দেবে এডিবি

নিবন্ধন প্রক্রিয়ার আওতায় আসছে ই-কমার্স

বাণিজ্যিক সম্পর্কোন্নয়নে প্রবাসীদের এগিয়ে আসার আহ্বান এফবিসিসিআই’র

ই-কমার্সে নিয়ন্ত্রক সংস্থা চান না উদ্যোক্তারা

বাড়ছে ডলারের দাম, কমছে টাকার মান

ছবি

ভারতে গেলো তৃতীয় দিনে ১৮৬ মেট্রিক টন ইলিশ

ছবি

বাংলাদেশকে স্বাগত জানিয়ে বার্তা দিলেন এনডিবি প্রেসিডেন্ট

ছবি

নিউ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক প্রেসিডেন্ট নতুন সদস্য হিসেবে বাংলাদেশকে স্বাগত জানালেন

ছবি

বেড়েই চলেছে সবজির দাম

শেয়ারবাজারে ফিরলো আড়াই হাজার কোটি টাকা

এলডিসি পরবর্তী চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় জাতিসংঘের সহায়তা চায় এফবিসিসিআই

ছবি

পানিফল চাষ জনপ্রিয় হচ্ছে সাতক্ষীরায়

নতুন চারটি পণ্য আনছে আরডি ফুড

ছবি

ভারতে তুলার উৎপাদন কমার আশঙ্কা

ছবি

‘স্বপ্ন’ এখন দক্ষিণ সস্তাপুরে

tab

অর্থ-বাণিজ্য

তৈরি পোশাক খাতের ব্যবসায়ীদের আশঙ্কা

পুরোনো ক্রয়াদেশ শিপমেন্ট না হলে নতুনগুলো অন্য দেশে চলে যাবে

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই ২০২১

করোনা সংক্রমণ রোধে ঘোষিত কঠোর লকডাউনে রপ্তানিমুখী সব তৈরি পোশাক কারখানাও বন্ধ রয়েছে। তাই আগের ক্রয়াদেশ পাওয়া কাজগুলো আটকে রয়েছে। আর যেসব ক্রয়াদেশের কাজ শেষ হয়েছে অর্থাৎ পুরোনো ক্রয়াদেশগুলোও লকডাউনের কারণে শিফমেন্ট হচ্ছে না। সঠিক সময় মতো শিপমেন্ট না হলে দেশের পোশাক খাত ও অর্থনীতি বড় ধরনের ক্ষতির মুখে পড়তে যাচ্ছে বলে দাবি করেছেন এই খাতের উদ্যোক্তারা। সম্প্রতি তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তারা এমন দাবি করেন।

এ বিষয়ে তৈরি পোশাক মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ-এর সভাপতি ফারুক হাসান বলেন, ‘লকডাউনের কারণে নতুন অর্ডার কমেছে। আর পুরোনো যেসব অর্ডার ছিল সেগুলোর শিফমেন্টও করতে পারছি না। সময় মতো শিপমেন্ট না করতে পারলে বায়াররা আমাদের নতুন অর্ডার দিবে না। আর অনেকে হয়তো পুরোনো অর্ডারগুলোও বাতিল করে দিতে পারে। যদি এমন হয় তাহলে তৈরি পোশাক খাতের ব্যবসায়ীরা ক্ষতিগ্রস্ত হবে। একই সঙ্গে বাংলাদেশের অর্থনীতিতেও ধস নামবে।’

সারা বছর যে পরিমাণ ক্রয়াদেশ আসে সেই ক্রয়াদেশের বেশিরভাগই আসে জুন, জুলাই, আগস্ট মাসে। তাই এই সময় কারখানা বন্ধ থাকার অর্থ হচ্ছে পোশাক খাতের জন্য বড় ক্ষতি। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সরকার গত ২৩ জুলাই থেকে তৈরি পোশাকসহ দেশের বেশির ভাগ কলকারখানা বন্ধ রেখেছে। এমন অবস্থা চলবে আগামী ৫ আগস্ট পর্যন্ত। জানা গেছে, চলমান এই বিধিনিষেধে বায়াররা এখন পর্যন্ত কোন ক্রয়াদেশ বাতিল করেননি।

তবে ব্যবসায়ীরা বলছেন, দেশে করোনার প্রকোপ এখনও ঊর্ধ্বমুখী। বায়াররা এ নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছেন যে, সরকারের কঠোর বিধিনিষেধ আগামী ৫ আগস্ট পর্যন্তই থাকবে, নাকি আরও বাড়বে? সময় বাড়লে ওই সময়ে যদি পোশাক কারখানা বন্ধ থাকে তবে পণ্য সঠিক সময়ে পাওয়া যাবে না। বিধিনিষেধ বাড়লেও যদি পোশাক কারখানা এর আওতার বাইরে রাখা হয়, তাহলে কোন সমস্যা থাকে না।

ফারুক হাসান আরও বলেন, ‘বায়ররা ৫ আগস্ট পর্যন্ত বাংলাদেশের পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করবেন। আমরা সরকারের কাছে প্রস্তাব করেছি, আগামী ১ আগস্ট থেকে রপ্তানিমুখী কারখানাগুলোকে বিধিনিষেধের বাইরে রাখার জন্য। আশা করি, সরকার বিবেচনায় নেবে।’

এই অবস্থায় সম্ভাব্য ক্ষতি এড়াতে তৈরি পোশাক কারখানার কর্মীদের গণটিকাদানের প্রস্তাব করেছেন ব্যবসায়ীরা। এর পাশাপাশি শেষ পর্যায়ে থাকা ক্রয় আদেশের কাজগুলো সারতে সীমিত সংখ্যক শ্রমিক দিয়ে কারখানা খোলার প্রস্তাব দেন তারা।

বিজিএমইএ’র পরিচালক আরশাদ জামাল বলেন, ‘ঈদের ছুটিতে অনেক ক্রেতা প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি জানিয়েছেন, বিধিনিষেধের পর তৈরি করা পোশাক উড়োজাহাজে পাঠাতে হবে, না হলে ক্রয়াদেশ বাতিল হবে। কারণ, তাদের দ্রুত পণ্য দরকার। তাদের কিছু করার নেই, তাদের হাত-পা বাঁধা। সব মিলিয়ে আমার মনে হচ্ছে, এবারের বিধিনিষেধের ফলে আমাদের ১০-১৫ শতাংশ ক্রয়াদেশ কমে যাবে। করোনার শুরু থেকেই পোশাক শ্রমিকদের সুরক্ষার বিষয়টি বেশ ভালোভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে পেরেছি আমরা। আমাদের শ্রমিকদের মধ্যে সংক্রমণের হার কখনোই ৩ শতাংশের বেশি হয়নি। ইতোমধ্যে শ্রমিকদের টিকা দেয়ার কাজও শুরু করেছে সরকার।’

এ বিষয়ে নিটওয়্যার কারখানা মালিকদের সংগঠন বিকেএমইএর সভাপতি সেলিম ওসমান বলেন, ‘শ্রমিক ও দেশের অর্থনীতিকে ভালো রাখতে হলে কারখানা চালু রাখতে হবে। তা না হলে, দেশ থেকে বিদেশিরা ক্রয়াদেশ তুলে নেবেন। অর্ডারগুলো অন্যদেশে চলে যাবে। বিকেএমইএর পক্ষ থেকে প্রত্যাশা করছি, সরকার আমাদের আগের অর্ডারের পণ্য সঠিক সময়ে পাঠানোর সুযোগ দিক। আমাদের শিপমেন্টের কাজগুলো করতে দিক।

বিকেএমইএর সহ-সভাপতি মোহাম্মদ হাতেম বলেন, ‘বেশকিছু কারখানায় বায়ারদের অর্ডারের ৯০ শতাংশ কাজ শেষ। সেগুলো আগামী ৩০ জুলাইয়ের মধ্যে শিপমেন্ট দেয়ার কথা। নির্ধারিত সময়ে পণ্য দিতে না পারলে অর্ডার বাতিল করার হুমকি দিচ্ছেন বায়াররা। অন্তত ওই কারখানাগুলো সীমিত পরিসরে খোলার অনুমতি দেয়া হোক।’

back to top