alt

অর্থ-বাণিজ্য

ভারত ও পাকিস্তানের চেয়ে এগিয়ে বাংলাদেশ

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক : শুক্রবার, ১৫ অক্টোবর ২০২১

http://sangbad.net.bd/images/2021/October/15Oct21/news/hunger.jpg

বৈশ্বিক ক্ষুধা সূচকে প্রতিবেশী ভারত ও পাকিস্তানের চেয়ে এগিয়ে রয়েছে বাংলাদেশ। সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান ৭৬তম। সম্প্রতি বৈশ্বিক ক্ষুধা সূচক (জিএইচআই) এ তালিকা প্রকাশ করে। এ বছরের সূচকে দেখা যায়, পাকিস্তান ও ভারতের চেয়ে এগিয়ে রয়েছে বাংলাদেশ। পাকিস্তানের অবস্থান ৯২তম আর ভারতের অবস্থান ১০১তম। বাংলাদেশের স্কোর হচ্ছে ১৯.১, পাকিস্তানের ২৪.৭ আর ভারতের ২৭.৫।

জানা গেছে, ২০২১ সালে বিশ্বের ১১৬ দেশের ওপর সমীক্ষা চালিয়েছে বৈশ্বিক ক্ষুধা সূচক (জিএইচআই)। এতে বাংলাদেশ গত বছরের তুলনায় এক ধাপ পিছিয়েছে। অবশ্য এবার সমীক্ষা চালানো দেশের সংখ্যাও বেড়েছে। ২০২০ সালে ১০৭ দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ৭৫তম। এবার ১১৬ দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ৭৬তম। ৭৬তম অবস্থানে রয়েছে নেপালও। এ তালিকায় পাঁচ থেকেও কম স্কোর নিয়ে বেলারুশ, তুরস্ক, উরুগুয়ে, চীন, কুয়েত ও ব্রাজিলসহ ১৮ দেশ শীর্ষে অবস্থান করছে।

প্রতিবছর আয়রল্যান্ডের স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা ‘কনসার্ন ওয়ার্ল্ডওয়াইড’ এবং জার্মান সংস্থা ‘ওয়েল্ট হাঙ্গার হিলফ’ যৌথভাবে বিশ্বের দেশগুলোর মধ্যে ক্ষুধার পরিমাণ নির্ধারণ করে থাকে। এ ক্ষেত্রে নির্ণায়ক ভূমিকা পালন করে যে কোন দেশের সমসাময়িক অর্থনৈতিক অবস্থান, শিশু স্বাস্থ্য এবং সম্পদ বণ্টনের ক্ষেত্রে বৈষম্য ইত্যাদি বিষয়গুলো।

২০২০ সালের ১০৭টি দেশের মধ্যে এই সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ৭৫তম। সেই হিসেবে চলতি বছরের প্রতিবেদন অনুযায়ী বাংলাদেশের একধাপ অবনতি হয়েছে। ভারতের অবনতি হয়েছে গতবারের চেয়ে। ২০২০ সালে ৯৪তম অবস্থানে থাকলেও এবার নেমে এসেছে ১০১ এ যা বাংলাদেশ এবং নেপালের চেয়েও পিছিয়ে।

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের প্রতিবেদনে বলা হয়, চারটি বিষয়ের মাপকাঠিতে এই সূচক তৈরি হয়। যার মধ্যে আছে অপুষ্টি, পাঁচ বছরের কম বয়সের শিশুদের উচ্চতার তুলনায় ওজন, পাঁচ বছরের কম শিশুদের উচ্চতা ও পাঁচ বছরের কম শিশুদের মৃত্যু হার।

ভারতের অবনতির বিষয়ে প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, কোভিড-১৯ ও অতিমারী সংক্রান্ত বিধিনিষেধের কারণে ভারতের মানুষের ওপর ব্যাপক প্রভাব পড়েছে। পাঁচ বছরের কম বয়সের শিশুদের মৃত্যুহারের ক্ষেত্রে ভারতে পরিস্থিতির উন্নতি হয়েছে। সেইসঙ্গে খাদ্যের অভাবজনিত অপুষ্টির হারও কমেছে ভারতে।

শুধু ক্ষুধার সূচকই নয়, আরও কয়েকটি সূচকে ভারত পাকিস্তানকে ছাড়িয়ে গেছে বাংলাদেশ। সম্প্রতি আইএমএফ জানিয়েছে, ২০২১ সালে মাথাপিছু জিডিপিতে ভারতকে পেছনে ফেলবে বাংলাদেশ। এর আগে অর্থাৎ ২০২০ সালেও বাংলাদেশ প্রতিবেশি এই বড় অর্থনীতির দেশটিকে পেছনে ফেলেছিল।

আইএমএফ পূর্বাভাস অনুযায়ী, চলতি ২০২১ সালে চলতি মূল্যে বাংলাদেশের মাথাপিছু জিডিপি হবে ২ হাজার ১৩৮ দশমিক ৭৯৪ ডলার। অন্যদিকে ভারতের মাথাপিছু জিডিপি হবে ২ হাজার ১১৬ দশমিক ৪৪৪ ডলার।

অর্থাৎ ভারতের চেয়ে বাংলাদেশের মাথাপিছু জিডিপি বেশি হবে ২২ দশমিক ৩৫ ডলার। গত বছরও ভারতকে পেছনে ফেলেছিল বাংলাদেশ। সেটি হিসেব করলে পর পর দুই বছর ভারতকে পেছনে ফেলল বাংলাদেশ।

গত বছরও আইএমএফ ডব্লিউইও প্রতিবেদন প্রকাশ করেছিল। সেখানে সংস্থাটি জানিয়েছিল, ২০২০ সালে বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি হবে ৩ দশমিক ৮ শতাংশ। আর ভারতের প্রবৃদ্ধি কমে হবে ঋণাত্মক, অর্থাৎ (-) ১০ দশমিক ৩ শতাংশ। এর ফলে ২০২০ সালে বাংলাদেশের মাথাপিছু জিডিপি হবে ১ হাজার ৮৮৮ ডলার ও ভারতের হবে ১ হাজার ৮৮৭ ডলার। সুতরাং গতবার বাংলাদেশ ছিল ঠিক এক ডলারে এগিয়ে। তবে সেটি ছিল পূর্বাভাস।

এখন সংস্থাটি বলছে, ২০২০ সালে প্রকৃতপক্ষে বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৩ দশমিক ৫ শতাংশ। আর ভারতের প্রবৃদ্ধি ছিল ঋণাত্মক, (-) ৭ দশমিক ৩ শতাংশ। ফলে শেষ পর্যন্ত তাদের হিসাবে ২০২০ সালে বাংলাদেশের মাথাপিছু জিডিপি হয় ১ হাজার ৯৬১ দশমিক ৬১৪ ডলার এবং ভারতের ১ হাজার ৯২৯ দশমিক ৬৭৭ ডলার। সুতরাং আসলে শেষ পর্যন্ত বাংলাদেশের মাথাপিছু জিডিপি বেশি হয়েছিল ৩১ দশমিক ৯৩৭ ডলার।

আইএমএফএর প্রতিবেদনে আরও দেখা যায়, ২০০৪ সাল থেকেই বাংলাদেশ ও ভারতের অর্থনীতি অনেক বেশি দ্রুত হারে এগিয়েছে। এই এগিয়ে যাওয়া বজায় ছিল ২০১৬ সাল পর্যন্ত। তবে পরিস্থিতি বদলাতে শুরু করে ২০১৭ থেকে। এর পর থেকে ভারতের অর্থনীতির এগিয়ে যাওয়া শ্লথ হয়ে পড়ে। আর বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধির হার বেড়েছে দ্রুতগতিতে।

এছাড়া সরকারি বিভিন্ন পরিসংখ্যানে দেখা যায়, করোনার মধ্যেও বাংলাদেশের অর্থনীতি তুলনামূলক ভালো করেছে। আইএমএফের পূর্বাভাস হলো, চলতি বছরে বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৪ দশমিক ৬ শতাংশ হতে পারে, যা দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে তৃতীয় সর্বোচ্চ। সর্বোচ্চ প্রবৃদ্ধি হবে মালদ্বীপে, ১৮ দশমিক ৯ শতাংশ, এরপর ভারতে সাড়ে ৯ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হবে।

এ ছাড়া পাকিস্তান ৩ দশমিক ৯ শতাংশ, শ্রীলঙ্কা ৩ দশমিক ৬ শতাংশ, নেপালে ১ দশমিক ৮ এবং ভুটানে মাইনাস ১ দশমিক ৯ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হতে পারে। তবে আফগানিস্তানের জন্য কোন পূর্বাভাস দেয়নি আইএমএফ।

ছবি

কারা টাকা পাচার করেন, জানেন না অর্থমন্ত্রী

বিডার বিনিয়োগ সম্মেলন, ১৫টি দেশ থেকে বিনিয়োগের প্রত্যাশা

বিনিয়োগকারীদের জন্য উদার শিল্পনীতি করেছি : শিল্পমন্ত্রী

আগ্রহের শীর্ষে একমি পেস্টিসাইডস, অনাগ্রহে এলআর গ্লোবাল ফান্ড

ছবি

‘ওয়ালটন’ উদীয়মান বাংলাদেশের প্রতিচ্ছবি : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

বাংলাদেশে প্রথমবার গ্রিন বন্ড আনলো স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক

প্রযুক্তি গ্রহণে কারখানাগুলোকে সহযোগিতা করবে ব্র্যাক-বিজিএমইএ

অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারের ইঙ্গিত থাকলেও নতুন চ্যালেঞ্জ রয়েছে

টানা পতনে ১৫ হাজার কোটি টাকা হারালো বিনিয়োগকারীরা

ছবি

ভয়েস ব্যাংকিং নিয়ে আসছে ব্যাংক এশিয়া

আড়াই কোটি টাকার শাস্তির মুখে এসএস স্টিল

ছবি

‘মেড ইন বাংলাদেশ’ ট্রেডমার্ক বহন করছে পোশাকশিল্প, আমরা গর্বিত : ফারুক হাসান

ই-রিটার্নে নিবন্ধন ৬৭ হাজার ছাড়ালো

ছবি

করোনা বিপর্যয় কাটিয়ে উঠছে ব্রিটেন, চাহিদা মেটাতে হিমশিম খাচ্ছে কারখানাগুলো

ছবি

ওয়ালটন’র ওয়েড-ফিস্ট-কম্বো অফারে বিশাল ছাড়

ছবি

ফ্রান্স-যুক্তরাজ্যের সঙ্গে বাণিজ্য বাড়াতে বাংলাদেশের ৬ চুক্তি

রিটার্ন জমার সময় একমাস বাড়ানোর প্রস্তাব চিটাগাং চেম্বারের

নগদের সঙ্গে বোনাস শেয়ারও দেবে এসএস স্টিল

ছবি

ন্যাশনাল ব্যাংকের এমডি সৈয়দ আবদুল বারীর পদত্যাগ

আবারও অন্যতম শীর্ষ করদাতার স্বীকৃতি পেল বিএটি বাংলাদেশ

ব্লকে লেনদেন ২৭ কোটি টাকার

মোবাইল ব্যাংকিং প্রতিষ্ঠানের ২৫ শতাংশ অর্থ কেন্দ্রীয় ব্যাংকে জমা থাকে

সর্বনিম্ন কমিশন রেট এখন পাঠাও বাইকে

ছবি

জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানো ঠিক হয়নি : এফবিসিসিআই

সাত মাসে সর্বনিম্ন লেনদেন

সাত মাসে সর্বনিম্ন লেনদেন

ছবি

স্বাস্থ্যসেবা খাতে এএফসি হেলথের সঙ্গে কাজ করবে ভারতের মনিপাল হসপিটালস

ছবি

বেক্সিমকো পিপিই ও জাপানের কে২ লজিস্টিকের মধ্যে চুক্তি

ছবি

সেরা করদাতার সম্মাননা পেলেন ওয়ালটন ডিজি-টেকের এমডি মঞ্জুরুল আলম

ছবি

জাতিসংঘ স্বল্পোন্নত দেশ থেকে বাংলাদেশের উত্তরণের সুপারিশ করল

পেঁয়াজ-আলু সংরক্ষণে উন্নত ল্যাব নির্মাণে সহযোগিতা পাওয়া যাবে

মোবাইল ব্যাংকিংয়ে মোট গ্রাহকের ৪৭ শতাংশই নারী : পরিকল্পনামন্ত্রী

খেলাপি ঋণ আদায় করতে বিকেবি ও রাকাবকে তাগিদ

১৪১ ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠান পেল সেরা করদাতার সম্মাননা

সেরা করদাতা হতে সবসময়ই ভালো লাগে : কাউছ মিয়া

দাম কমাতে রাষ্ট্রীয় ভান্ডার থেকে তেল ছাড়বে যুক্তরাষ্ট্র

tab

অর্থ-বাণিজ্য

ভারত ও পাকিস্তানের চেয়ে এগিয়ে বাংলাদেশ

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

শুক্রবার, ১৫ অক্টোবর ২০২১

http://sangbad.net.bd/images/2021/October/15Oct21/news/hunger.jpg

বৈশ্বিক ক্ষুধা সূচকে প্রতিবেশী ভারত ও পাকিস্তানের চেয়ে এগিয়ে রয়েছে বাংলাদেশ। সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান ৭৬তম। সম্প্রতি বৈশ্বিক ক্ষুধা সূচক (জিএইচআই) এ তালিকা প্রকাশ করে। এ বছরের সূচকে দেখা যায়, পাকিস্তান ও ভারতের চেয়ে এগিয়ে রয়েছে বাংলাদেশ। পাকিস্তানের অবস্থান ৯২তম আর ভারতের অবস্থান ১০১তম। বাংলাদেশের স্কোর হচ্ছে ১৯.১, পাকিস্তানের ২৪.৭ আর ভারতের ২৭.৫।

জানা গেছে, ২০২১ সালে বিশ্বের ১১৬ দেশের ওপর সমীক্ষা চালিয়েছে বৈশ্বিক ক্ষুধা সূচক (জিএইচআই)। এতে বাংলাদেশ গত বছরের তুলনায় এক ধাপ পিছিয়েছে। অবশ্য এবার সমীক্ষা চালানো দেশের সংখ্যাও বেড়েছে। ২০২০ সালে ১০৭ দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ৭৫তম। এবার ১১৬ দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ৭৬তম। ৭৬তম অবস্থানে রয়েছে নেপালও। এ তালিকায় পাঁচ থেকেও কম স্কোর নিয়ে বেলারুশ, তুরস্ক, উরুগুয়ে, চীন, কুয়েত ও ব্রাজিলসহ ১৮ দেশ শীর্ষে অবস্থান করছে।

প্রতিবছর আয়রল্যান্ডের স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা ‘কনসার্ন ওয়ার্ল্ডওয়াইড’ এবং জার্মান সংস্থা ‘ওয়েল্ট হাঙ্গার হিলফ’ যৌথভাবে বিশ্বের দেশগুলোর মধ্যে ক্ষুধার পরিমাণ নির্ধারণ করে থাকে। এ ক্ষেত্রে নির্ণায়ক ভূমিকা পালন করে যে কোন দেশের সমসাময়িক অর্থনৈতিক অবস্থান, শিশু স্বাস্থ্য এবং সম্পদ বণ্টনের ক্ষেত্রে বৈষম্য ইত্যাদি বিষয়গুলো।

২০২০ সালের ১০৭টি দেশের মধ্যে এই সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ৭৫তম। সেই হিসেবে চলতি বছরের প্রতিবেদন অনুযায়ী বাংলাদেশের একধাপ অবনতি হয়েছে। ভারতের অবনতি হয়েছে গতবারের চেয়ে। ২০২০ সালে ৯৪তম অবস্থানে থাকলেও এবার নেমে এসেছে ১০১ এ যা বাংলাদেশ এবং নেপালের চেয়েও পিছিয়ে।

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের প্রতিবেদনে বলা হয়, চারটি বিষয়ের মাপকাঠিতে এই সূচক তৈরি হয়। যার মধ্যে আছে অপুষ্টি, পাঁচ বছরের কম বয়সের শিশুদের উচ্চতার তুলনায় ওজন, পাঁচ বছরের কম শিশুদের উচ্চতা ও পাঁচ বছরের কম শিশুদের মৃত্যু হার।

ভারতের অবনতির বিষয়ে প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, কোভিড-১৯ ও অতিমারী সংক্রান্ত বিধিনিষেধের কারণে ভারতের মানুষের ওপর ব্যাপক প্রভাব পড়েছে। পাঁচ বছরের কম বয়সের শিশুদের মৃত্যুহারের ক্ষেত্রে ভারতে পরিস্থিতির উন্নতি হয়েছে। সেইসঙ্গে খাদ্যের অভাবজনিত অপুষ্টির হারও কমেছে ভারতে।

শুধু ক্ষুধার সূচকই নয়, আরও কয়েকটি সূচকে ভারত পাকিস্তানকে ছাড়িয়ে গেছে বাংলাদেশ। সম্প্রতি আইএমএফ জানিয়েছে, ২০২১ সালে মাথাপিছু জিডিপিতে ভারতকে পেছনে ফেলবে বাংলাদেশ। এর আগে অর্থাৎ ২০২০ সালেও বাংলাদেশ প্রতিবেশি এই বড় অর্থনীতির দেশটিকে পেছনে ফেলেছিল।

আইএমএফ পূর্বাভাস অনুযায়ী, চলতি ২০২১ সালে চলতি মূল্যে বাংলাদেশের মাথাপিছু জিডিপি হবে ২ হাজার ১৩৮ দশমিক ৭৯৪ ডলার। অন্যদিকে ভারতের মাথাপিছু জিডিপি হবে ২ হাজার ১১৬ দশমিক ৪৪৪ ডলার।

অর্থাৎ ভারতের চেয়ে বাংলাদেশের মাথাপিছু জিডিপি বেশি হবে ২২ দশমিক ৩৫ ডলার। গত বছরও ভারতকে পেছনে ফেলেছিল বাংলাদেশ। সেটি হিসেব করলে পর পর দুই বছর ভারতকে পেছনে ফেলল বাংলাদেশ।

গত বছরও আইএমএফ ডব্লিউইও প্রতিবেদন প্রকাশ করেছিল। সেখানে সংস্থাটি জানিয়েছিল, ২০২০ সালে বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি হবে ৩ দশমিক ৮ শতাংশ। আর ভারতের প্রবৃদ্ধি কমে হবে ঋণাত্মক, অর্থাৎ (-) ১০ দশমিক ৩ শতাংশ। এর ফলে ২০২০ সালে বাংলাদেশের মাথাপিছু জিডিপি হবে ১ হাজার ৮৮৮ ডলার ও ভারতের হবে ১ হাজার ৮৮৭ ডলার। সুতরাং গতবার বাংলাদেশ ছিল ঠিক এক ডলারে এগিয়ে। তবে সেটি ছিল পূর্বাভাস।

এখন সংস্থাটি বলছে, ২০২০ সালে প্রকৃতপক্ষে বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৩ দশমিক ৫ শতাংশ। আর ভারতের প্রবৃদ্ধি ছিল ঋণাত্মক, (-) ৭ দশমিক ৩ শতাংশ। ফলে শেষ পর্যন্ত তাদের হিসাবে ২০২০ সালে বাংলাদেশের মাথাপিছু জিডিপি হয় ১ হাজার ৯৬১ দশমিক ৬১৪ ডলার এবং ভারতের ১ হাজার ৯২৯ দশমিক ৬৭৭ ডলার। সুতরাং আসলে শেষ পর্যন্ত বাংলাদেশের মাথাপিছু জিডিপি বেশি হয়েছিল ৩১ দশমিক ৯৩৭ ডলার।

আইএমএফএর প্রতিবেদনে আরও দেখা যায়, ২০০৪ সাল থেকেই বাংলাদেশ ও ভারতের অর্থনীতি অনেক বেশি দ্রুত হারে এগিয়েছে। এই এগিয়ে যাওয়া বজায় ছিল ২০১৬ সাল পর্যন্ত। তবে পরিস্থিতি বদলাতে শুরু করে ২০১৭ থেকে। এর পর থেকে ভারতের অর্থনীতির এগিয়ে যাওয়া শ্লথ হয়ে পড়ে। আর বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধির হার বেড়েছে দ্রুতগতিতে।

এছাড়া সরকারি বিভিন্ন পরিসংখ্যানে দেখা যায়, করোনার মধ্যেও বাংলাদেশের অর্থনীতি তুলনামূলক ভালো করেছে। আইএমএফের পূর্বাভাস হলো, চলতি বছরে বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৪ দশমিক ৬ শতাংশ হতে পারে, যা দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে তৃতীয় সর্বোচ্চ। সর্বোচ্চ প্রবৃদ্ধি হবে মালদ্বীপে, ১৮ দশমিক ৯ শতাংশ, এরপর ভারতে সাড়ে ৯ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হবে।

এ ছাড়া পাকিস্তান ৩ দশমিক ৯ শতাংশ, শ্রীলঙ্কা ৩ দশমিক ৬ শতাংশ, নেপালে ১ দশমিক ৮ এবং ভুটানে মাইনাস ১ দশমিক ৯ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হতে পারে। তবে আফগানিস্তানের জন্য কোন পূর্বাভাস দেয়নি আইএমএফ।

back to top