alt

অপরাধ ও দুর্নীতি

রমনা বটমূলে বোমা হামলা

২০ বছরেও শেষ হয়নি বিস্ফোরক মামলা

এখন সাক্ষ্য পর্যায়ে আছে : পিপি

সংবাদ :
  • আদালত বার্তা পরিবেশক
image
বুধবার, ১৪ এপ্রিল ২০২১

রাজধানীর রমনা বটমূলে ছায়ানটের বর্ষবরণ অনুষ্ঠানে বোমা হামলার ২০ বছর পূর্তি হচ্ছে আজ। ২০০১ সালে বর্ষবরণ অনুষ্ঠানে এ ভয়াবহ বোমা হামলায় ১০ জন নিহত ও ২০ জন গুরুতর আহত হন। এ ঘটনায় দায়ের করা দুটি মামলার মধ্যে হত্যা মামলা নিষ্পত্তি হলেও বিষ্ফোরক আইনের মামলাটি ২০ বছরেও শেষ হয়নি। বিস্ফোরক মামলাটি ঢাকার ১ নম্বর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে বিচারাধীন। এই মামলায় ৮৪ জন সাক্ষীর মধ্যে এ পর্যন্ত ৫৫ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয়েছে। নানা কারণে মামলাটি সাক্ষ্য এখনো শেষ হয়নি। কবে শেষ হবে তা এখনো অনিশ্চিত।

অন্যদিকে হত্যা মামলায় নিম্ন আদালতের রায়ের ডেথ রেফারেন্স ও আপিল আবেদন হাইকোর্টে শুনানির অপেক্ষায় রয়েছে। এ মামলার আসামিদের একজন মুফতি হান্নানের অন্য মামলায় মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হয়েছে। মৃত্যুদণ্ড প্রাপ্ত তিনজন কারাগারে রয়েছেন। ৪ জন পলাতক রয়েছে।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী আবু আবদুল্লাহ ভূইয়া জানান, মামলাটি এখন সাক্ষ্য পর্যায়ে আছে। ৫৫ জনের সাক্ষ্য শেষ হয়েছে। গত ৫ এপ্রিল তদন্তকারী কর্মকর্তা আবু হেনা মো. ইউসুফের সাক্ষ্যগ্রহণের দিন ধার্য ছিল। কিন্তু তিনি গত এক বছর ধরে অসুস্থ। এ কারণে তারিখ পেছানো হয়েছে। সাক্ষ্য শেষে আত্মপক্ষ সমর্থন ও যুক্তিতর্ক শেষে মামলার রায় ঘোষণা করা হবে। এ মামলার অনেক আসামি ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা, রমনা বটমূলে হত্যা মামলা, কোটালীপাড়া বোমা মামলাসহ বিভিন্ন মামলার আসামি। অনেকের অন্য মামলায় ইতোমধ্যে সাজা হয়ে গেছে।

অন্যদিকে আসামিপক্ষের আইনজীবী ফারুক আহম্মেদ বলেন, মামলাটি সাক্ষী পর্যায়ে আছে। কিন্তু সাক্ষী তো আদালতে হাজির হচ্ছে না। এ কারণে মামলাটি নিষ্পত্তিতে বিলম্ব হচ্ছে।

এদিকে রমনা বটমূলে বোমা হামলায় দায়ের করা দুটি পৃথক মামলার মধ্যে হত্যা মামলার রায় হয় প্রায় ১৩ বছর পর ২০১৪ সালের ২৩ জুন। রায়ে নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন হরকাতুল জিহাদ বাংলাদেশের শীর্ষ নেতা মুফতি আবদুল হান্নানসহ ৮ জনের মৃত্যুদণ্ড ও ৬ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ দেন আদালত। মামলায় সাবেক উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিন্টুর ভাই মাওলানা তাজউদ্দিনসহ চার আসামি এখনও পলাতক।

জানা গেছে, ২০১৪ সালের বিচারিক আদালতের রায় ঘোষণার পর হত্যা মামলাটি ডেথ রেফারেন্স হিসেবে হাইকোর্টে আসে। একই সঙ্গে আসামিদের পক্ষ থেকেও জেল আপিল হয়। পরে পেপারবুক প্রস্তুত করে মামলাটি হাইকোর্টের একটি দ্বৈত বেঞ্চে শুনারি অপেক্ষায় ছিল। ওই বেঞ্চের এখতিয়ার পরিবর্তন হওয়ায় বর্তমান অন্য একটি বেঞ্চে কার্যতালিকায় আসে।

বিস্ফোরক আইনে করা মামলায় ২০১৪ সালের ১৪ সেপ্টেম্বর ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক শাহেদ নূর উদ্দিন মামলার অন্যতম আসামি মুফতি হান্নানসহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন। মামলাটিতে ৮৪ সাক্ষীর মধ্যে পর্যন্ত মোট ৫৫ সাক্ষীর জবানবন্দি গ্রহণ করে ট্রাইব্যুনাল।

এদিকে ২০১৪ সালের ২৩ জুন হত্যা মামলাটির রায় ঘোষণা করেন ঢাকার দ্বিতীয় অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক রুহুল আমিন। রায়ে নিষিদ্ধ ঘোষিত হরকাতুল জিহাদের (হুজি) শীর্ষ নেতা মুফতি আবদুল হান্নান, বিএনপি নেতা ও সাবেক উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিন্টুর ভাই মাওলানা তাজউদ্দিনসহ ৮ জনের মৃত্যুদণ্ড ও ৬ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেয়া হয়।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তরা হলো মুফতি আবদুল হান্নান, মাওলানা আকবর হোসেন, মুফতি আবদুল হাই, হাফেজ জাহাঙ্গীর আলম বদর, মাওলানা আবু বকর ওরফে হাফেজ সেলিম হাওলাদার, মুফতি শফিকুর রহমান, মাওলানা আরিফ হাসান সুমন ও মাওলানা মো. তাজউদ্দিন। যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্তরা হলো হাফেজ মাওলানা আবু তাহের, মাওলানা সাব্বির ওরফে আবদুল হান্নান সাব্বির, হাফেজ মাওলানা ইয়াহিয়া, মাওলানা শওকত ওসমান ওরফে শেখ ফরিদ, মাওলানা আবদুর রউফ ও শাহাদত উল্লাহ ওরফে জুয়েল। তবে এ মামলায় দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের মধ্যে সাবেক উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিন্টুর ভাই মাওলানা তাজউদ্দিনসহ চার আসামি এখনও পলাতক।

২০০১ সালের ১৪ এপ্রিল রমনা বটমূলে ছায়ানটের বর্ষবরণ অনুষ্ঠানে বোমা হামলার পর নীলক্ষেত পুলিশ ফাঁড়ির সার্জেন্ট অমল চন্দ্র চন্দ ওই দিনই রমনা থানায় হত্যা ও বিস্ফোরক আইনে দুটি মামলা করেন।

বিস্ফোরক দ্রব্য মামলা চলমান থাকায় মুফতি হান্নানসহ তিনজনের ফাঁসি কার্যকর করা হলেও এখনো আনেকেই ফাঁসির রায় কার্যকর হয়নি। এছাড়া হত্যা মামলায় ৮ আসামির মৃত্যুদণ্ড অনুমোদন (ডেথ রেফারেন্স) এবং আপিলের শুনানি হাইকোর্টে থমকে থাকায় জন্য বিচার প্রার্থীদের অপেক্ষা দীর্ঘায়িত হচ্ছে। হত্যা মামলায় রায়ের পর ২০১৭ সালের ১৭ জানুয়ারি মামলাটি আসামিদের ডেথ রেফারেন্স ও আপিল শুনানির জন্য হাইকোর্টে উঠে। এছাড়া বিস্ফোরক আইনের মামলায় ২০০৯ সালে অভিযোগ গঠনের পর প্রথম ৭ জনের সাক্ষ্য নেয়া হলেও এরপর বিচার কার্যক্রম গতি হারায় সাক্ষী না আসায়। ২০১৫ সালের ২২ মার্চ থেকে সাক্ষীদের প্রতি সমনের পাশাপাশি গ্রেপ্তারি পরোয়না জারি করা হচ্ছে। গত দুই বছরে মাত্র ২ জনের সাক্ষ্য নেয়া হয়েছে এ মামলায়। এ মামলার ৮৪ জন সাক্ষীর মধ্যে এ পর্যন্ত ২৬ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ হয়েছে। ঢাকার এক নম্বর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে মামলাটি বিচারধীন রয়েছে।

ছবি

কুতুপালং ক্যাম্পে রোহিঙ্গা নেতার বাসা থেকে অস্ত্র-গুলি উদ্ধার

ছবি

টেকনাফে ক্রিস্টাল মেথ, ইয়াবাসহ আটক ১

ছবি

ধান বোঝায় ট্রাক থেকে ৪০ কেজি গাঁজা উদ্ধার

ছবি

হেফাজত নেতা ফয়েজীর বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা

ছবি

তাণ্ডবের মামলায় সিলেটে গ্রেপ্তার হেফাজত নেতা শাহিনুর পাশা

ছবি

চুরির ১ ঘন্টার মধ্যে চোর চক্রের ৫ সদস্য টাকাসহ গ্রেফতার

ছবি

রায়হান হত্যা: এসআই আকবরকে প্রধান আসামী করে চার্জশিট

ছবি

বাঁশখালিতে নিহতদের পরিবারকে ৫ লাখ টাকা করে দেয়ার নির্দেশ

ছবি

ফের ৫ দিনের রিমান্ডে মামুনুল

ছবি

ধরাছোঁয়ার বাইরে মুসা ম্যানশনের মালিক মোস্তাক

ছবি

বোনের প্রেমিককে গুলি ও মারধর

ছবি

পুলিশের কাছে চোরাই স্বর্ণালংকার ক্রয়ের ঘটনাফাঁস, ভাংচুর

ছবি

নওগাঁয় ফেন্সিডিলসহ দুই নারী মাদক কারবারি আটক

ছবি

হযরত শাহজালাল বিমানবন্দর থেকে ২৮টি সোনার বার উদ্ধার

ছবি

ধর্ষণের অভিযোগে মামুনুলের বিরুদ্ধে ঝর্ণার মামলা

ছবি

ইউনাইটেডে আগুনে মৃত্যু : চার পরিবারকে ২৫ লাখ করে দেওয়ার নির্দেশ

ছবি

বসুন্ধরা এমডির আগাম জামিন আবেদন এখন শুনবে না হাইকোর্ট

ছবি

ভেজাল ও মেয়াদোত্তীর্ণ খেজুর ২১ হাজার কেজি জব্দ

ছবি

২ কোটি ৮৫ লাখ মিটার অবৈধ কারেন্ট জাল ও অন্যান্য মালামাল জব্দ

ছবি

৩ পুকুর ভরাটকারীর সাজা ভ্রাম্যমান আদালতের

ছবি

তরুণীর লাশ উদ্ধার: আত্মহত্যায় প্ররোচনার অভিযোগে বসুন্ধরার এমডির বিরুদ্ধে মামলা

ছবি

ফের ৭ দিনের রিমান্ডে জুনায়েদ আল হাবিব

ছবি

দুই মামলায় মামুনুল হক ফের ৭ দিনের রিমান্ডে

ছবি

হিজড়া মিলন ও তার সহযোগীদেরকে গ্রেফতার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ

ছবি

হেফাজতের নায়েবে আমির আবদুল কাদের ৫ দিনের রিমান্ডে

ছবি

ইরফান সেলিমের জামিন বহাল, কারামুক্তিতে বাধা নেই

ছবি

সিন্ডিকেট, বিত্তবৈভব, রাজনৈতিক উদ্দেশ্য : হেফাজত নেতাদের জিজ্ঞাসাবাদ, পুলিশের ভাষ্য

ছবি

রানা প্লাজা ধস, ৮ বছরেও দুটি মামলা শেষ হয়নি

ছবি

ফের ৭ দিনের রিমান্ডে ‘শিশুবক্তা’ রফিকুল

ছবি

সখীপুরে রাতভর গৃহবধূকে ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার ১

ছবি

প্রায় ১৪ কোটি ৭ লাখ টাকার অবৈধ কারেন্ট জাল জব্দ : গ্রেফতার এক

ছবি

এবার ডিজিটাল আইনে নুরের বিরুদ্ধে চট্টগ্রামে মামলা

ছবি

মুন্সীগঞ্জে গাঁজা-হেরোইনসহ দুইজন গ্রেফতার

ছবি

মা-বোনের গায়ে এসিড নিক্ষেপ করে নিজের গায়েও ঢাললেন

ছবি

৭ দিনের রিমান্ডে মামুনুল হক

ছবি

আদালত প্রাঙ্গণে নিরাপত্তা জোরদার

tab

অপরাধ ও দুর্নীতি

রমনা বটমূলে বোমা হামলা

২০ বছরেও শেষ হয়নি বিস্ফোরক মামলা

এখন সাক্ষ্য পর্যায়ে আছে : পিপি

সংবাদ :
  • আদালত বার্তা পরিবেশক
image
বুধবার, ১৪ এপ্রিল ২০২১

রাজধানীর রমনা বটমূলে ছায়ানটের বর্ষবরণ অনুষ্ঠানে বোমা হামলার ২০ বছর পূর্তি হচ্ছে আজ। ২০০১ সালে বর্ষবরণ অনুষ্ঠানে এ ভয়াবহ বোমা হামলায় ১০ জন নিহত ও ২০ জন গুরুতর আহত হন। এ ঘটনায় দায়ের করা দুটি মামলার মধ্যে হত্যা মামলা নিষ্পত্তি হলেও বিষ্ফোরক আইনের মামলাটি ২০ বছরেও শেষ হয়নি। বিস্ফোরক মামলাটি ঢাকার ১ নম্বর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে বিচারাধীন। এই মামলায় ৮৪ জন সাক্ষীর মধ্যে এ পর্যন্ত ৫৫ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয়েছে। নানা কারণে মামলাটি সাক্ষ্য এখনো শেষ হয়নি। কবে শেষ হবে তা এখনো অনিশ্চিত।

অন্যদিকে হত্যা মামলায় নিম্ন আদালতের রায়ের ডেথ রেফারেন্স ও আপিল আবেদন হাইকোর্টে শুনানির অপেক্ষায় রয়েছে। এ মামলার আসামিদের একজন মুফতি হান্নানের অন্য মামলায় মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হয়েছে। মৃত্যুদণ্ড প্রাপ্ত তিনজন কারাগারে রয়েছেন। ৪ জন পলাতক রয়েছে।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী আবু আবদুল্লাহ ভূইয়া জানান, মামলাটি এখন সাক্ষ্য পর্যায়ে আছে। ৫৫ জনের সাক্ষ্য শেষ হয়েছে। গত ৫ এপ্রিল তদন্তকারী কর্মকর্তা আবু হেনা মো. ইউসুফের সাক্ষ্যগ্রহণের দিন ধার্য ছিল। কিন্তু তিনি গত এক বছর ধরে অসুস্থ। এ কারণে তারিখ পেছানো হয়েছে। সাক্ষ্য শেষে আত্মপক্ষ সমর্থন ও যুক্তিতর্ক শেষে মামলার রায় ঘোষণা করা হবে। এ মামলার অনেক আসামি ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা, রমনা বটমূলে হত্যা মামলা, কোটালীপাড়া বোমা মামলাসহ বিভিন্ন মামলার আসামি। অনেকের অন্য মামলায় ইতোমধ্যে সাজা হয়ে গেছে।

অন্যদিকে আসামিপক্ষের আইনজীবী ফারুক আহম্মেদ বলেন, মামলাটি সাক্ষী পর্যায়ে আছে। কিন্তু সাক্ষী তো আদালতে হাজির হচ্ছে না। এ কারণে মামলাটি নিষ্পত্তিতে বিলম্ব হচ্ছে।

এদিকে রমনা বটমূলে বোমা হামলায় দায়ের করা দুটি পৃথক মামলার মধ্যে হত্যা মামলার রায় হয় প্রায় ১৩ বছর পর ২০১৪ সালের ২৩ জুন। রায়ে নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন হরকাতুল জিহাদ বাংলাদেশের শীর্ষ নেতা মুফতি আবদুল হান্নানসহ ৮ জনের মৃত্যুদণ্ড ও ৬ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ দেন আদালত। মামলায় সাবেক উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিন্টুর ভাই মাওলানা তাজউদ্দিনসহ চার আসামি এখনও পলাতক।

জানা গেছে, ২০১৪ সালের বিচারিক আদালতের রায় ঘোষণার পর হত্যা মামলাটি ডেথ রেফারেন্স হিসেবে হাইকোর্টে আসে। একই সঙ্গে আসামিদের পক্ষ থেকেও জেল আপিল হয়। পরে পেপারবুক প্রস্তুত করে মামলাটি হাইকোর্টের একটি দ্বৈত বেঞ্চে শুনারি অপেক্ষায় ছিল। ওই বেঞ্চের এখতিয়ার পরিবর্তন হওয়ায় বর্তমান অন্য একটি বেঞ্চে কার্যতালিকায় আসে।

বিস্ফোরক আইনে করা মামলায় ২০১৪ সালের ১৪ সেপ্টেম্বর ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক শাহেদ নূর উদ্দিন মামলার অন্যতম আসামি মুফতি হান্নানসহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন। মামলাটিতে ৮৪ সাক্ষীর মধ্যে পর্যন্ত মোট ৫৫ সাক্ষীর জবানবন্দি গ্রহণ করে ট্রাইব্যুনাল।

এদিকে ২০১৪ সালের ২৩ জুন হত্যা মামলাটির রায় ঘোষণা করেন ঢাকার দ্বিতীয় অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক রুহুল আমিন। রায়ে নিষিদ্ধ ঘোষিত হরকাতুল জিহাদের (হুজি) শীর্ষ নেতা মুফতি আবদুল হান্নান, বিএনপি নেতা ও সাবেক উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিন্টুর ভাই মাওলানা তাজউদ্দিনসহ ৮ জনের মৃত্যুদণ্ড ও ৬ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেয়া হয়।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তরা হলো মুফতি আবদুল হান্নান, মাওলানা আকবর হোসেন, মুফতি আবদুল হাই, হাফেজ জাহাঙ্গীর আলম বদর, মাওলানা আবু বকর ওরফে হাফেজ সেলিম হাওলাদার, মুফতি শফিকুর রহমান, মাওলানা আরিফ হাসান সুমন ও মাওলানা মো. তাজউদ্দিন। যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্তরা হলো হাফেজ মাওলানা আবু তাহের, মাওলানা সাব্বির ওরফে আবদুল হান্নান সাব্বির, হাফেজ মাওলানা ইয়াহিয়া, মাওলানা শওকত ওসমান ওরফে শেখ ফরিদ, মাওলানা আবদুর রউফ ও শাহাদত উল্লাহ ওরফে জুয়েল। তবে এ মামলায় দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের মধ্যে সাবেক উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিন্টুর ভাই মাওলানা তাজউদ্দিনসহ চার আসামি এখনও পলাতক।

২০০১ সালের ১৪ এপ্রিল রমনা বটমূলে ছায়ানটের বর্ষবরণ অনুষ্ঠানে বোমা হামলার পর নীলক্ষেত পুলিশ ফাঁড়ির সার্জেন্ট অমল চন্দ্র চন্দ ওই দিনই রমনা থানায় হত্যা ও বিস্ফোরক আইনে দুটি মামলা করেন।

বিস্ফোরক দ্রব্য মামলা চলমান থাকায় মুফতি হান্নানসহ তিনজনের ফাঁসি কার্যকর করা হলেও এখনো আনেকেই ফাঁসির রায় কার্যকর হয়নি। এছাড়া হত্যা মামলায় ৮ আসামির মৃত্যুদণ্ড অনুমোদন (ডেথ রেফারেন্স) এবং আপিলের শুনানি হাইকোর্টে থমকে থাকায় জন্য বিচার প্রার্থীদের অপেক্ষা দীর্ঘায়িত হচ্ছে। হত্যা মামলায় রায়ের পর ২০১৭ সালের ১৭ জানুয়ারি মামলাটি আসামিদের ডেথ রেফারেন্স ও আপিল শুনানির জন্য হাইকোর্টে উঠে। এছাড়া বিস্ফোরক আইনের মামলায় ২০০৯ সালে অভিযোগ গঠনের পর প্রথম ৭ জনের সাক্ষ্য নেয়া হলেও এরপর বিচার কার্যক্রম গতি হারায় সাক্ষী না আসায়। ২০১৫ সালের ২২ মার্চ থেকে সাক্ষীদের প্রতি সমনের পাশাপাশি গ্রেপ্তারি পরোয়না জারি করা হচ্ছে। গত দুই বছরে মাত্র ২ জনের সাক্ষ্য নেয়া হয়েছে এ মামলায়। এ মামলার ৮৪ জন সাক্ষীর মধ্যে এ পর্যন্ত ২৬ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ হয়েছে। ঢাকার এক নম্বর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে মামলাটি বিচারধীন রয়েছে।

back to top