alt

অপরাধ ও দুর্নীতি

২২ বছর সাজা খেটে বেরিয়েই ফের হত্যাচেষ্টা

সাইফ বাবলু : মঙ্গলবার, ১৩ জুলাই ২০২১

একটি হত্যা মামলায় কারাগারে ছিলেন ২২ বছর। সাজা খেটে বেরিয়ে ফের অস্ত্র মামলায় ১ বছর। দুবার জেলে গেলেও তার অপরাধী মনোভাব বদলায়নি একটুও। কারাগার থেকে বের হয়ে ফের সন্ত্রাসী ও চুক্তিতে মানুষ হত্যায় সক্রিয় হয়ে উঠে। এ জন্য গড়ে তোলে নিজস্ব অস্ত্রধারী বাহিনীও। গোটা হাজারীবাগ এলাকার বাসিন্দারা তার ভয়ে আতঙ্কিত। এ ব্যক্তির নাম রফিকুল ইসলাম ওরফে রতন। ভাড়ায় মানুষ হত্যা, জমি দখলসহ এমন কোন অপরাধ নেই যেখানে সে সম্পৃক্ত না।

সম্প্রতি হত্যাচেষ্টা মামলায় ফের রফিকুল ইসলাম ও তার সহযোগী আরমানকে গ্রেপ্তারের পর নানা অপরাধের তথ্য খুঁজে পায় ঢাকা মহানগর অপরাধ তথ্য ও গোয়েন্দা বিভাগ ডিবি। বর্তমানে হত্যাচেষ্টা ও অস্ত্র মামলায় রফিকুল এবং আরমানসহ তার ৫ সহযোগী জেলে। তবে তার অন্য সাঙ্গপাঙ্গ এখনও ধরাছোঁয়ার বাইরে। এলাকাবাসী বলছে, রফিকুলের সহযোগিরা এখন এলাকা দাপিয়ে বেড়াচ্ছে।

ডিবির অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার মো. সাইফুল ইসলাম সাইফ সংবাদকে জানান, হাজারীবাগের শিকারীটোলার ৮৯ গজমহলের বাসিন্দা মৃত সালেহ আহমেদের ছেলে মামুনকে গুলি করে হত্যা করার চেষ্টা করে সন্ত্রাসীরা। গত ৪ জুন রাতে এ ঘটনা ঘটে। গুলিতে আহত হয় মামুন মিয়া। এ ঘটনায় ৫ জুন হাজারীবাগ থানায় ১০ জনের নাম উল্লেখ করে একটি মামলা করে মামুনের বড় ভাই সুমন মিয়া। পুলিশের পাশাপাশি ঘটনাটি ছায়া তদন্ত শুরু করে ডিবির মিরপুর জোনাল টিম।

ডিবির তদন্তে বেরিয়ে আসে মামুনকে হত্যাচেষ্টায় গুলি করে রফিক। সে এলাকার শীর্ষ সন্ত্রাসী হিসেবে পরিচিত। তদন্ত করতে গিয়ে ডিবি জানতে পারে সন্ত্রাসী রফিককে ভাড়া করা হয়েছিল মামুন ও তার ভাইদের গুলি করার জন্য। ভাড়া করা ব্যক্তির নাম মো. আবুল হাসেম। যিনি মামুনের এক চাচার কাছ থেকে কিছু জমি কিনেছিলেন। ওই জমির রাস্তার জন্য ২ ফুট জায়গা নিয়ে আবুল হাসেমের বিরোধ হয় মামুন ও তার ভাইদের সঙ্গে। রাস্তার জমি দখল করে প্রাচীর নির্মাণ করেন আবুল হাসেম। বাধা দিলে তাদের মধ্যে বিরোধ হয়। তখন মামুন ও সুমনের পরিবারকে শায়েস্তা করার জন্য সন্ত্রাসী রফিককে ভাড়া করেন আবুল হাসেম ১০ হাজার টাকায়।

ডিবি জানিয়েছে, গত ২৩ জুন ডিবি রফিকুল ইসলাম এবং তার সহযোগী আরমানকে গ্রেপ্তার করে। এ অভিযানে রফিকের কাছ থেকে দুটি বিদেশি পিস্তল ও গুলি উদ্ধার করে। মামুনকে হত্যাচেষ্টায় জড়িত হিসেবে মহসিন, রাশেল, নাছির, জসিম, শরীফসহ কয়েকজনের সংশ্লিষ্টতার তথ্য বেরিয়ে আসে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে রফিক ও আরমান ঘটনায় নিজেদের জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে।

ঘটনার নেপথ্যে বিশ্লেষণ করে ডিবি জানতে পারে, ১৯৯৬ সালে এক রাজনৈতিক মিছিলে সন্ত্রাসী হামলা হয়। ওই হামলার নেতৃত্বে ছিলেন রফিক। ওই হামলায় সনু নামে এক ব্যক্তি মারা যান। এ ঘটনায় মামলা হলে পুলিশ তখন রফিককে গ্রেপ্তার করে। পরবর্তীতে ওই মামলায় অপরাধ প্রমাণিত হলে রফিকের সাজা হয়। টানা ২২ বছর জেলে কাটে রফিকের। ২০১৭ সালে জেল থেকে মুক্তি পান। জেল থেকে বের হয়ে ফের এলাকায় সন্ত্রাসী তৎপরতা শুরু করেন। সন্ত্রাসী কার্যক্রমে জড়িত থাকার অভিযোগে ২০১৯ সালে ফের গ্রেপ্তার হন রফিক। ১ বছর জেলে থাকার পর জামিনে বের হন সম্প্রতি। জামিনে বের হওয়ার ৩ মাস পরই সে সুমনকে হত্যার উদ্দ্যেশে গুলি চালান।

ডিবি জানিয়েছে, রফিক সন্ত্রাসী কার্যক্রম পরিচালনার জন্য অস্ত্র কিনেছিলেন। অস্ত্র কিনে রাশেল নামে এক অস্ত্র ব্যবসায়ীর কাছ থেকে। তার দলে রয়েছে বাবুল, কুট্টু, শরীফ, আরমান, বাছির, জসিম, আবদুস ছালামসহ ১০ থেকে ১৫ জনের অস্ত্রধারী বাহিনী। কোন জায়গায় গুলি চালাতে হবে, কাউকে হত্যা করতে হবে বা কাউকে গুলি করে আহত করতে হবে, জমি দখল করতে হবে, কাউকে শায়েস্তা করতে হবে সব কাজেই ছিল রফিকের ডাক। কাজের ধরন বুঝে টাকা নিতেন রফিক।

পুলিশের একটি সূত্র জানিয়েছে, ২২ বছর জেলে থাকার পর ২০১৭ সালে জেল থেকে বের হয়েই বিয়ে করে রফিক। ২ সন্তানও আছে। দুজনই মেয়ে। এলাকার একটি ভাড়া বাসায় রফিকের পরিবার থাকতো। ২ সন্তান ও স্ত্রী ছাড়া আর কোন স্বজন নেই রফিকের। সন্ত্রাসী কার্যক্রমই তার আয়ের একমাত্র উৎস। এলাকাবাসী তার বিষয়ে জানলেও ভয়ে কথা বলতো না।

হাজারীবাগ থানার ওসি সাজেদুল ইসলাম জানান, হত্যা চেষ্টা মামলাটি হাজারীবাগ থানা পুলিশ তদন্ত করছে।

রফিকসহ ৪ জন গ্রেপ্তার হওয়ার পর অন্যরা গাঢাকা দিয়েছে। তাদেরও গ্রেপ্তারের চেষ্টা করা হচ্ছে।

স্বাস্থ্যের গাড়িচালক মালেক ও স্ত্রীর বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদের মামলার চার্জশিট দিচ্ছে দুদক

ছবি

সুবর্নচরে নির্বাচনী ফলাফল শুনে পুলিশের ওপর হামলা

যুবলীগ নেতার ছেলের বিরুদ্ধে কিশোরীকে ধর্ষণ চেষ্টা

ছবি

সাগর-রুনি হত্যা মামলার প্রতিবেদন আবার পেছাল

ছবি

রিমান্ড শেষে এহসান গ্রুপের রাগীবসহ ৪ ভাই কারাগারে

ঈশ্বরগঞ্জে ভিজিডির ৮৪ বস্তা চাল জব্দ

কুতুপালংয়ে অস্ত্রসহ রোহিঙ্গা আটক

ছবি

ইভ্যালির রাসেল ফের রিমান্ডে, স্ত্রী শামীমা কারাগারে

ছবি

কুষ্টিয়ায় সাব-রেজিস্ট্রার হত্যায় ৪ আসামিকে মৃত্যুদন্ড

ছবি

মেজর সিনহা হত্যা: তৃতীয় দফায় ২য় দিনের সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু

ধর্ষণের অভিযোগে ময়মনসিংহে জাপা নেতা গ্রেপ্তার

ছবি

মুন্সীগঞ্জে স্বর্ণের দোকানে ডাকাতি,৮ ডাকাত গ্রেফতার

প্রধানমন্ত্রীর আপত্তিকর ছবি ফেসবুকে, রাজশাহীতে ১ ব্যক্তির দন্ড

ছবি

নিরাপদ সুপেয় পানি নিশ্চিতে ওয়াসার কর্মপরিকল্পনা দেখতে চায় হাইকোর্ট

ছবি

পাওনা চাইতে গেলে ব্যবসায়ীকে ক্ষুর দিয়ে খুন করলো সেলুনকর্মী

ছবি

স্বাস্থ্যের সাবেক ডিজি ও সাহেদসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট অনুমোদন

ছবি

নারায়ণগঞ্জে সোলেমান হত্যা মামলার ২ আসামির জবানবন্দি

ছবি

স্বাস্থ্য অধিদফতরের গাড়িচালক মালেকের ১৫ বছরের কারাদণ্ড

ছবি

মিটফোর্ডে নকল-ভেজাল ওষুধের ছড়াছড়ি, অভিযানেও থামছে না

ছবি

দুর্নীতিবাজরা যেন শাস্তি পায়: দুদককে রাষ্ট্রপতি

ছবি

টেকনাফে রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী কালা জোবায়ের আটক

ছবি

রাজারবাগ দরবার শরিফের সব সম্পদের বিষয়ে তদন্ত করতে নির্দেশ: হাইকোর্ট

ছবি

থানচি হেডম্যানপাড়া সড়ক নির্মাণে ঠিকাদারের গাফিলতি : দুর্ভোগ

ছবি

দুদকের মামলায় ২১ সেপ্টেম্বর বাবরের আত্মপক্ষ শুনানি

ছবি

ইভ্যালির রাসেলসহ আরোও ২০ জনের বিরুদ্ধে আরেক মামলা

ছবি

ডিআইজি প্রিজনস পার্থ গোপাল বণিক কারাগারে

কুড়িগ্রাম ধর্ষণ মামলায় বিএনপি নেতা গ্রেপ্তার

ছবি

চট্টগ্রামে ১০০ কোটি টাকা আত্মসাৎ করে ঢাকায় বিলাসবহুল জীবনযাপন

জয়েন্ট স্টক ও বিএসইসি কর্মকর্তাদের সহযোগিতা ছিল

টঙ্গীতে ধর্ষণের শিকার কিশোরী অন্তঃসত্বা : ধৃত ১

ঝালকাঠির গৃহবধূর দেহ সোনারগাঁয়ে উদ্ধার

ছবি

বগুড়ায় শালিস নিয়ে বিরোধে এক ব্যক্তিকে কুপিয়ে হত্যা

ছবি

ইভ্যালির রাসেল রিমান্ডে ‘অসুস্থ’ ঢাকা মেডিকেলে চিকিৎসা

ছবি

আদালতে বিচারাধীন হিন্দু পরিবারের জমিতে পাঁচ তলা ভবন নির্মাণ

মহেশপুরে ইজিবাইক চালককে পিটিয়ে হত্যা : বিচারের দাবিতে মানববন্ধন

মুক্তাগাছায় আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের দুই সদস্য গ্রেপ্তার

tab

অপরাধ ও দুর্নীতি

২২ বছর সাজা খেটে বেরিয়েই ফের হত্যাচেষ্টা

সাইফ বাবলু

মঙ্গলবার, ১৩ জুলাই ২০২১

একটি হত্যা মামলায় কারাগারে ছিলেন ২২ বছর। সাজা খেটে বেরিয়ে ফের অস্ত্র মামলায় ১ বছর। দুবার জেলে গেলেও তার অপরাধী মনোভাব বদলায়নি একটুও। কারাগার থেকে বের হয়ে ফের সন্ত্রাসী ও চুক্তিতে মানুষ হত্যায় সক্রিয় হয়ে উঠে। এ জন্য গড়ে তোলে নিজস্ব অস্ত্রধারী বাহিনীও। গোটা হাজারীবাগ এলাকার বাসিন্দারা তার ভয়ে আতঙ্কিত। এ ব্যক্তির নাম রফিকুল ইসলাম ওরফে রতন। ভাড়ায় মানুষ হত্যা, জমি দখলসহ এমন কোন অপরাধ নেই যেখানে সে সম্পৃক্ত না।

সম্প্রতি হত্যাচেষ্টা মামলায় ফের রফিকুল ইসলাম ও তার সহযোগী আরমানকে গ্রেপ্তারের পর নানা অপরাধের তথ্য খুঁজে পায় ঢাকা মহানগর অপরাধ তথ্য ও গোয়েন্দা বিভাগ ডিবি। বর্তমানে হত্যাচেষ্টা ও অস্ত্র মামলায় রফিকুল এবং আরমানসহ তার ৫ সহযোগী জেলে। তবে তার অন্য সাঙ্গপাঙ্গ এখনও ধরাছোঁয়ার বাইরে। এলাকাবাসী বলছে, রফিকুলের সহযোগিরা এখন এলাকা দাপিয়ে বেড়াচ্ছে।

ডিবির অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার মো. সাইফুল ইসলাম সাইফ সংবাদকে জানান, হাজারীবাগের শিকারীটোলার ৮৯ গজমহলের বাসিন্দা মৃত সালেহ আহমেদের ছেলে মামুনকে গুলি করে হত্যা করার চেষ্টা করে সন্ত্রাসীরা। গত ৪ জুন রাতে এ ঘটনা ঘটে। গুলিতে আহত হয় মামুন মিয়া। এ ঘটনায় ৫ জুন হাজারীবাগ থানায় ১০ জনের নাম উল্লেখ করে একটি মামলা করে মামুনের বড় ভাই সুমন মিয়া। পুলিশের পাশাপাশি ঘটনাটি ছায়া তদন্ত শুরু করে ডিবির মিরপুর জোনাল টিম।

ডিবির তদন্তে বেরিয়ে আসে মামুনকে হত্যাচেষ্টায় গুলি করে রফিক। সে এলাকার শীর্ষ সন্ত্রাসী হিসেবে পরিচিত। তদন্ত করতে গিয়ে ডিবি জানতে পারে সন্ত্রাসী রফিককে ভাড়া করা হয়েছিল মামুন ও তার ভাইদের গুলি করার জন্য। ভাড়া করা ব্যক্তির নাম মো. আবুল হাসেম। যিনি মামুনের এক চাচার কাছ থেকে কিছু জমি কিনেছিলেন। ওই জমির রাস্তার জন্য ২ ফুট জায়গা নিয়ে আবুল হাসেমের বিরোধ হয় মামুন ও তার ভাইদের সঙ্গে। রাস্তার জমি দখল করে প্রাচীর নির্মাণ করেন আবুল হাসেম। বাধা দিলে তাদের মধ্যে বিরোধ হয়। তখন মামুন ও সুমনের পরিবারকে শায়েস্তা করার জন্য সন্ত্রাসী রফিককে ভাড়া করেন আবুল হাসেম ১০ হাজার টাকায়।

ডিবি জানিয়েছে, গত ২৩ জুন ডিবি রফিকুল ইসলাম এবং তার সহযোগী আরমানকে গ্রেপ্তার করে। এ অভিযানে রফিকের কাছ থেকে দুটি বিদেশি পিস্তল ও গুলি উদ্ধার করে। মামুনকে হত্যাচেষ্টায় জড়িত হিসেবে মহসিন, রাশেল, নাছির, জসিম, শরীফসহ কয়েকজনের সংশ্লিষ্টতার তথ্য বেরিয়ে আসে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে রফিক ও আরমান ঘটনায় নিজেদের জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে।

ঘটনার নেপথ্যে বিশ্লেষণ করে ডিবি জানতে পারে, ১৯৯৬ সালে এক রাজনৈতিক মিছিলে সন্ত্রাসী হামলা হয়। ওই হামলার নেতৃত্বে ছিলেন রফিক। ওই হামলায় সনু নামে এক ব্যক্তি মারা যান। এ ঘটনায় মামলা হলে পুলিশ তখন রফিককে গ্রেপ্তার করে। পরবর্তীতে ওই মামলায় অপরাধ প্রমাণিত হলে রফিকের সাজা হয়। টানা ২২ বছর জেলে কাটে রফিকের। ২০১৭ সালে জেল থেকে মুক্তি পান। জেল থেকে বের হয়ে ফের এলাকায় সন্ত্রাসী তৎপরতা শুরু করেন। সন্ত্রাসী কার্যক্রমে জড়িত থাকার অভিযোগে ২০১৯ সালে ফের গ্রেপ্তার হন রফিক। ১ বছর জেলে থাকার পর জামিনে বের হন সম্প্রতি। জামিনে বের হওয়ার ৩ মাস পরই সে সুমনকে হত্যার উদ্দ্যেশে গুলি চালান।

ডিবি জানিয়েছে, রফিক সন্ত্রাসী কার্যক্রম পরিচালনার জন্য অস্ত্র কিনেছিলেন। অস্ত্র কিনে রাশেল নামে এক অস্ত্র ব্যবসায়ীর কাছ থেকে। তার দলে রয়েছে বাবুল, কুট্টু, শরীফ, আরমান, বাছির, জসিম, আবদুস ছালামসহ ১০ থেকে ১৫ জনের অস্ত্রধারী বাহিনী। কোন জায়গায় গুলি চালাতে হবে, কাউকে হত্যা করতে হবে বা কাউকে গুলি করে আহত করতে হবে, জমি দখল করতে হবে, কাউকে শায়েস্তা করতে হবে সব কাজেই ছিল রফিকের ডাক। কাজের ধরন বুঝে টাকা নিতেন রফিক।

পুলিশের একটি সূত্র জানিয়েছে, ২২ বছর জেলে থাকার পর ২০১৭ সালে জেল থেকে বের হয়েই বিয়ে করে রফিক। ২ সন্তানও আছে। দুজনই মেয়ে। এলাকার একটি ভাড়া বাসায় রফিকের পরিবার থাকতো। ২ সন্তান ও স্ত্রী ছাড়া আর কোন স্বজন নেই রফিকের। সন্ত্রাসী কার্যক্রমই তার আয়ের একমাত্র উৎস। এলাকাবাসী তার বিষয়ে জানলেও ভয়ে কথা বলতো না।

হাজারীবাগ থানার ওসি সাজেদুল ইসলাম জানান, হত্যা চেষ্টা মামলাটি হাজারীবাগ থানা পুলিশ তদন্ত করছে।

রফিকসহ ৪ জন গ্রেপ্তার হওয়ার পর অন্যরা গাঢাকা দিয়েছে। তাদেরও গ্রেপ্তারের চেষ্টা করা হচ্ছে।

back to top