alt

আন্তর্জাতিক

ভূমি মালিকানা আইন সংশোধন নিয়ে ক্ষোভ কাশ্মীরে

সংবাদ :
  • সংবাদ অনলাইন ডেস্ক
image
বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০

সংবিধানের বিশেষ মর্যাদা প্রত্যাহারের পর রাজ্য থেকে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে পরিণত হওয়া জম্মু ও কাশ্মীরের ভূমি আইন সংশোধন করেছে ভারত। এই সংশোধনের ফলে দেশটির যে কোনো নাগরিক পৃথিবী ভূস্বর্গ বলে পরিচিত ওই অঞ্চলটিতে জমি কিনতে পারবে। এ পরিবর্তনে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে কাশ্মীরের বিভিন্ন রাজনৈতিক দল।

মঙ্গলবার দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জারি করা এক নির্দেশনায় ভূমি আইনটির পরিবর্তনের কথা জানানো হয় বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে কাতারভিত্তিক বার্তা সংস্থা আজ জাজিরা। আইন সংশোধনের ফলে ওই অঞ্চলের বাসিন্দা নন এমন ভারতীয়রাও এখন সেখানে জমি কেনার সুযোগ পাবেন, জানিয়েছেন ভারতীয় কর্মকর্তারা।

কাশ্মীরের বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ভূমি আইনের এমন পরিবর্তনের তীব্র বিরোধিতা করেছে । ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার ধীরে ধীরে কাশ্মীরি জনগণের সব অধিকার কেড়ে নিচ্ছে বলেও মন্তব্য করেছে তারা। তাদের মতে, এই সংশোধনী জম্মু ও কাশ্মীরকে বিক্রির জন্য নিলামে তুলবে।

কাশ্মীরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লাহ টুইটারে বলেছেন, নতুন এসব আইন জম্মু ও কাশ্মীরের জনগণের কাছে অগ্রহণযোগ্য। ওমর বলেছেন, জনসংখ্যার বৈশিষ্ট্য পরিবর্তন করতে চাইছে সরকার। কাশ্মীর হলো মুসলিম প্রধান। আইনের এ পরিবর্তনের মানে, অন্য ধর্মের মানুষ বাড়িয়ে দেয়ার চেষ্টা। ইতিমধ্যেই অ-কৃষি জমি এবং কৃষি জমি হস্তান্তর সহজ করার সাথে সাথে আবাসনের দফারফা একরকম হয়েই গেছে। ছোট জমিতে চাষবাস করেন এমন দরিদ্র কৃষকেরা এই আইনের কারণে মারাত্নকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হবেন। কাশ্মীরে এতদিন ধরে জমি কেনার ক্ষেত্রে ক্রেতাকে অবশ্যই রাজ্যের স্থায়ী বাসিন্দা হতে হবে এমন শর্ত ছিল। মঙ্গলবার জারি করা নির্দেশনায় ওই শর্ত বাদ দিতে বলা হয়েছে, এর ফলে কাশ্মীরের বাইরের ভারতীয়দেরও পশ্চিম হিমালয়ের ওই অঞ্চল থেকে জমি কেনার সুযোগ তৈরি হলো।

ক্ষমতাসীন বিজেপি বহুদিন ধরেই বলছে, কাশ্মীর যদি ভারতের অংশ হয়, তা হলে অন্য প্রদেশের মানুষেরা কেন সেখানে জমি কিনতে পারবে না, বাড়ি বানাতে পারবে না? কাশ্মীরের ভূমি মালিকানা নিয়ে নতুন পদক্ষেপগুলি স্থানীয় জনগোষ্ঠীকে বাস্তুচ্যুত ও বঞ্চনার দিকে ঠেলে দেয়ার কৌশল বলে মনে করছেন কাশ্মীরের রাজনৈতিক বিশ্লেষকেরা।

রাজনৈতিক বিশ্লেষক অধ্যাপক শেখ শওকত হুসেন আল জাজিরাকে বলেছেন, গত বছর ৩৭০ অনুচ্ছেদের ধারাবাহিকতায় এই ধরনের পদক্ষেপ নেয়া হলো। নতুন এই আইন কাশ্মীরীদের নিরাপত্তাহীনতা আরো বাড়িয়েছে। এই আইন কার্যকর হলে স্থানীয়দের নিজ জমি থেকে উচ্ছেদের আশঙ্কা তৈরি হবে।

ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস জানিয়েছে, নতুন সংশোধনী শুধু জম্মু ও কাশ্মীরের জন্য। লাদাখে তা চালু হবে না। লাদাখের জন্য যদি আইন সংশোধন না করা হয়, তা হলে বুঝতে হবে, শুধু জম্মু ও কাশ্মীরেই নতুন ব্যবস্থা চালু হচ্ছে। ওমর, মেহবুবা মুফতির দলসহ বাম দলগুলোর সমন্বয়ে গঠিত বিরোধী জোটের অন্যান্য নেতারাও ভূমি সংক্রান্ত নতুন আইন নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

লেফটন্যান্ট গভর্নর মনোজ সিনহা অবশ্য অভয় দিয়ে বলেছেন, কিনতে চাইলেই কাউকে জমি দেওয়া হবে না। শিল্পের জন্য জমি দেওয়া হবে। সেটাও ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক করে। তবে আইনে যদি বলে জমি কেনা যাবে, তা হলে তা আটকানো হবে কী করে, সেই প্রশ্নও উঠছে।

গত বছর পর্যন্ত কাশ্মীর ভারতীয় সংবিধানে বিশেষ মর্যাদার অঞ্চল হিসেবে অন্তর্ভুক্ত ছিল। ওই মর্যাদা বলে অঞ্চলটির কর্তৃপক্ষ স্থায়ী বাসিন্দা নির্ধারণ ও কারা কারা জম্মু-কাশ্মীরের জমি কিনতে পারবে সে সংক্রান্ত নিজস্ব আইন তৈরি করতে পারতো।

প্রসঙ্গত, কাশ্মীরের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে বিরোধ আছে। দুটো দেশই সমগ্র কাশ্মীরকে নিজেদের বলে দাবি করে আসছে, উভয়েই অঞ্চলটির পৃথক পৃথক অংশ শাসনও করছে। ১৯৪৭ সালে ভাগ হওয়ার পর থেকে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে যে তিনটি যুদ্ধ হয়েছে, তার দুটিই হয়েছে কাশ্মীরকে নিয়ে।

গত শতকের ৮০-র দশকের শেষদিক থেকে ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে বিচ্ছিন্নতাবাদীদের তৎপরতা ও সহিংসতাও ব্যাপক হারে বেড়ে যায়। গত বছরের অগাস্টে নরেন্দ্র মোদী নেতৃত্বাধীন ভারতের কেন্দ্রীয় বিজেপি সরকার অঞ্চলটির স্বায়ত্তশাসন বাতিল করে। জম্মু ও কাশ্মীরের সাংবিধানিক মর্যাদা বাতিল করে অঞ্চলটিকে পৃথক দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল করার পর ওই অঞ্চলে ব্যাপক বিক্ষোভ দেখা দেয়।

মোদী সরকার এর আগে বলেছিল, ভারতীয় অন্যান্য অঞ্চলের মতো অভিন্ন নিয়ম ও শাসনব্যবস্থা কাশ্মীরের সমৃদ্ধি নিয়ে আসবে। গত বছর জম্মু ও কাশ্মীরের স্বায়ত্তশাসন বাতিল করার আগে অঞ্চলটির ৫ হাজার অধিবাসীকে আটক করা হয়েছিল।

ছবি

করোনায় একদিনে ১১ হাজার মানুষের মৃত্যু

ছবি

গাজায় ইসরায়েলের বিমান হামলা, নিহত ২১‌

ছবি

দেশে ফেরার দাবিতে বাংলাদেশিদের বিক্ষোভ

ছবি

নতুন-পুরনো নিয়ে মমতার নতুন মন্ত্রিসভা বিতর্কিতরা বাদ

ছবি

ভারতে গঙ্গা-যমুনায় ভাসছে শত শত লাশ

ছবি

শপথ নিলেন মমতার মন্ত্রিসভার ৪৩ সদস্য

ছবি

আল-আকসার মসজিদের ভেতরে ইসরায়েলি বাহিনীর হামলা

ছবি

এ বছর ‘বিশেষ শর্তে’ হজ

ছবি

মন্ত্রিসভায় একাধিক নতুন মুখ আনছেন মমতা

ছবি

যুক্তরাষ্ট্রে জন্মদিনের পার্টিতে ৬ জনকে গুলি করে হত্যা

ছবি

করোনায় মৃত্যু ৩৩ লাখ ছাড়াল

ছবি

‘ক্ষমার অযোগ্য অপরাধ’ করেছেন নরেন্দ্র মোদি: ল্যানসেট

ছবি

নিউইয়র্কের টাইমস স্কয়ারে শিশুসহ গুলিবিদ্ধ তিন

ছবি

করোনায় বিপর্যস্ত ভারত, টানা চার দিন ৪ হাজারের বেশি মৃত্যু

ছবি

আল-আকসায় ইসরায়েলি হামলা, ১৬৩ ফিলিস্তিনি আহত

ছবি

মমতার মন্ত্রিসভায় এবারও ৪৪ জন সদস্য থাকছেন

ছবি

কঠিন পরিস্থিতি ভারতে, একদিনে চার হাজারের বেশি মৃত্যু

ছবি

ভারতে করোনার দুই ডোজ টিকা পেয়েছেন মাত্র ৩ শতাংশ মানুষ

ছবি

বিধ্বস্ত ভারতে সংক্রমণের নতুন রেকর্ড

ছবি

কিশোরদের জন্যে ফাইজারের টিকার ছাড়পত্র দিল কানাডা

ছবি

ভেঙে পড়েছে ভারতের স্বাস্থ্য ব্যবস্থা

ছবি

বিল-মেলিন্ডার সন্তানরা কে কত টাকার সম্পদ পাচ্ছেন

ছবি

টানা তৃতীয় দফায় শপথ নিলেন মমতা

ছবি

তৃণমূল বিপুল জয় পেলেও বিজেপির ভোটও কম নয়

ছবি

পশ্চিমবঙ্গে নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতা, নিহত ১২

ছবি

মুখ্যমন্ত্রীর পদ থেকে পদত্যাগ করলেন মমতা

ছবি

মেক্সিকোতে মেট্রো ট্রেন দুর্ঘটনা, নিহত ১৫

ছবি

সাত বছর তুমুল প্রেম করে বিয়ে করেছিলেন বিল-মেলিন্ডা

ছবি

মেক্সিকোতে মেট্রোরেল ভেঙে পড়ে নিহত ১৫, আহত ৭০

ছবি

আফগানিস্তানে ফের গৃহযুদ্ধের শঙ্কা দেখছেন হিলারি

ছবি

বিধ্বস্ত ভারতে করোনা আক্রান্ত দুই কোটি পার

ছবি

তৃতীয় দফায় মুখ্যমন্ত্রী পদে কাল শপথ নিচ্ছেন মমতা

ছবি

টেকনো’র গ্লোবাল ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর হলেন ক্যাপ্টেন আমেরিকা খ্যাত সুপারস্টার ক্রিস ইভানস

ছবি

যেকোনো গণজমায়েতের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করুন: ভারত সুপ্রিম কোর্ট

ছবি

পাল্টা আক্রমণেই জয় তুলে নিলো মমতা

ছবি

ইসরায়েলি সেনার গুলিতে ফিলিস্তিনি বৃদ্ধা নিহত

tab

আন্তর্জাতিক

ভূমি মালিকানা আইন সংশোধন নিয়ে ক্ষোভ কাশ্মীরে

সংবাদ :
  • সংবাদ অনলাইন ডেস্ক
image
বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০

সংবিধানের বিশেষ মর্যাদা প্রত্যাহারের পর রাজ্য থেকে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে পরিণত হওয়া জম্মু ও কাশ্মীরের ভূমি আইন সংশোধন করেছে ভারত। এই সংশোধনের ফলে দেশটির যে কোনো নাগরিক পৃথিবী ভূস্বর্গ বলে পরিচিত ওই অঞ্চলটিতে জমি কিনতে পারবে। এ পরিবর্তনে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে কাশ্মীরের বিভিন্ন রাজনৈতিক দল।

মঙ্গলবার দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জারি করা এক নির্দেশনায় ভূমি আইনটির পরিবর্তনের কথা জানানো হয় বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে কাতারভিত্তিক বার্তা সংস্থা আজ জাজিরা। আইন সংশোধনের ফলে ওই অঞ্চলের বাসিন্দা নন এমন ভারতীয়রাও এখন সেখানে জমি কেনার সুযোগ পাবেন, জানিয়েছেন ভারতীয় কর্মকর্তারা।

কাশ্মীরের বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ভূমি আইনের এমন পরিবর্তনের তীব্র বিরোধিতা করেছে । ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার ধীরে ধীরে কাশ্মীরি জনগণের সব অধিকার কেড়ে নিচ্ছে বলেও মন্তব্য করেছে তারা। তাদের মতে, এই সংশোধনী জম্মু ও কাশ্মীরকে বিক্রির জন্য নিলামে তুলবে।

কাশ্মীরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লাহ টুইটারে বলেছেন, নতুন এসব আইন জম্মু ও কাশ্মীরের জনগণের কাছে অগ্রহণযোগ্য। ওমর বলেছেন, জনসংখ্যার বৈশিষ্ট্য পরিবর্তন করতে চাইছে সরকার। কাশ্মীর হলো মুসলিম প্রধান। আইনের এ পরিবর্তনের মানে, অন্য ধর্মের মানুষ বাড়িয়ে দেয়ার চেষ্টা। ইতিমধ্যেই অ-কৃষি জমি এবং কৃষি জমি হস্তান্তর সহজ করার সাথে সাথে আবাসনের দফারফা একরকম হয়েই গেছে। ছোট জমিতে চাষবাস করেন এমন দরিদ্র কৃষকেরা এই আইনের কারণে মারাত্নকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হবেন। কাশ্মীরে এতদিন ধরে জমি কেনার ক্ষেত্রে ক্রেতাকে অবশ্যই রাজ্যের স্থায়ী বাসিন্দা হতে হবে এমন শর্ত ছিল। মঙ্গলবার জারি করা নির্দেশনায় ওই শর্ত বাদ দিতে বলা হয়েছে, এর ফলে কাশ্মীরের বাইরের ভারতীয়দেরও পশ্চিম হিমালয়ের ওই অঞ্চল থেকে জমি কেনার সুযোগ তৈরি হলো।

ক্ষমতাসীন বিজেপি বহুদিন ধরেই বলছে, কাশ্মীর যদি ভারতের অংশ হয়, তা হলে অন্য প্রদেশের মানুষেরা কেন সেখানে জমি কিনতে পারবে না, বাড়ি বানাতে পারবে না? কাশ্মীরের ভূমি মালিকানা নিয়ে নতুন পদক্ষেপগুলি স্থানীয় জনগোষ্ঠীকে বাস্তুচ্যুত ও বঞ্চনার দিকে ঠেলে দেয়ার কৌশল বলে মনে করছেন কাশ্মীরের রাজনৈতিক বিশ্লেষকেরা।

রাজনৈতিক বিশ্লেষক অধ্যাপক শেখ শওকত হুসেন আল জাজিরাকে বলেছেন, গত বছর ৩৭০ অনুচ্ছেদের ধারাবাহিকতায় এই ধরনের পদক্ষেপ নেয়া হলো। নতুন এই আইন কাশ্মীরীদের নিরাপত্তাহীনতা আরো বাড়িয়েছে। এই আইন কার্যকর হলে স্থানীয়দের নিজ জমি থেকে উচ্ছেদের আশঙ্কা তৈরি হবে।

ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস জানিয়েছে, নতুন সংশোধনী শুধু জম্মু ও কাশ্মীরের জন্য। লাদাখে তা চালু হবে না। লাদাখের জন্য যদি আইন সংশোধন না করা হয়, তা হলে বুঝতে হবে, শুধু জম্মু ও কাশ্মীরেই নতুন ব্যবস্থা চালু হচ্ছে। ওমর, মেহবুবা মুফতির দলসহ বাম দলগুলোর সমন্বয়ে গঠিত বিরোধী জোটের অন্যান্য নেতারাও ভূমি সংক্রান্ত নতুন আইন নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

লেফটন্যান্ট গভর্নর মনোজ সিনহা অবশ্য অভয় দিয়ে বলেছেন, কিনতে চাইলেই কাউকে জমি দেওয়া হবে না। শিল্পের জন্য জমি দেওয়া হবে। সেটাও ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক করে। তবে আইনে যদি বলে জমি কেনা যাবে, তা হলে তা আটকানো হবে কী করে, সেই প্রশ্নও উঠছে।

গত বছর পর্যন্ত কাশ্মীর ভারতীয় সংবিধানে বিশেষ মর্যাদার অঞ্চল হিসেবে অন্তর্ভুক্ত ছিল। ওই মর্যাদা বলে অঞ্চলটির কর্তৃপক্ষ স্থায়ী বাসিন্দা নির্ধারণ ও কারা কারা জম্মু-কাশ্মীরের জমি কিনতে পারবে সে সংক্রান্ত নিজস্ব আইন তৈরি করতে পারতো।

প্রসঙ্গত, কাশ্মীরের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে বিরোধ আছে। দুটো দেশই সমগ্র কাশ্মীরকে নিজেদের বলে দাবি করে আসছে, উভয়েই অঞ্চলটির পৃথক পৃথক অংশ শাসনও করছে। ১৯৪৭ সালে ভাগ হওয়ার পর থেকে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে যে তিনটি যুদ্ধ হয়েছে, তার দুটিই হয়েছে কাশ্মীরকে নিয়ে।

গত শতকের ৮০-র দশকের শেষদিক থেকে ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে বিচ্ছিন্নতাবাদীদের তৎপরতা ও সহিংসতাও ব্যাপক হারে বেড়ে যায়। গত বছরের অগাস্টে নরেন্দ্র মোদী নেতৃত্বাধীন ভারতের কেন্দ্রীয় বিজেপি সরকার অঞ্চলটির স্বায়ত্তশাসন বাতিল করে। জম্মু ও কাশ্মীরের সাংবিধানিক মর্যাদা বাতিল করে অঞ্চলটিকে পৃথক দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল করার পর ওই অঞ্চলে ব্যাপক বিক্ষোভ দেখা দেয়।

মোদী সরকার এর আগে বলেছিল, ভারতীয় অন্যান্য অঞ্চলের মতো অভিন্ন নিয়ম ও শাসনব্যবস্থা কাশ্মীরের সমৃদ্ধি নিয়ে আসবে। গত বছর জম্মু ও কাশ্মীরের স্বায়ত্তশাসন বাতিল করার আগে অঞ্চলটির ৫ হাজার অধিবাসীকে আটক করা হয়েছিল।

back to top