alt

আন্তর্জাতিক

মিয়ানমারের নির্বাচনে ভোট বাতিলে ক্ষুব্দ সংখ্যালঘু নৃগোষ্ঠী

সংবাদ :
  • সংবাদ অনলাইন ডেস্ক
image
বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০

মিয়ানমারে আগামী ৯ নভেম্বর অনুষ্ঠিতব্য জাতীয় নির্বাচনে ১৫ লাখের বেশি মানুষ ভোট দিতে পারবেন না। সহিংসতাপূর্ণ এলাকাগুলোতে ভোট বাতিল করায় এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। নির্বাচন কমিশনের এ সিদ্ধান্তে ভোটের সুষ্ঠুতা নিয়েও সংশয় বেড়েছে বলে জানিয়েছে কাতারভিত্তিক সংবাদ মাধ্যম আল জাজিরা। বাতিল হওয়া ভোটকেন্দ্রগুলোর প্রায় সবই দেশটির পশ্চিমাঞ্চলীয় রাখাইন রাজ্যে। সেখানে ২০১৮ সাল থেকে স্বায়ত্তশাসনকামী সশস্ত্র গোষ্ঠী আরাকান আর্মির সঙ্গে দেশটির নিরাপত্তা বাহিনীর সংঘাত বাড়ছে। এখানে ভোটারের সংখ্যা ১২ লাখ।

বিশেষজ্ঞরা আশঙ্কা করছেন, ভোট দিতে না পারায় এখানকার মানুষের সঙ্গে দেশের বাকি অংশের আরো বিচ্ছিন্নতা তৈরি হবে, যার ফলে এখানকার সশস্ত্র গোষ্ঠীগুলো আরো সমর্থন পাবে। সর্বশেষ ২০১৫ সালের নির্বাচনে অং সান সুচির নেতৃত্বাধীন ন্যাশনাল লীগ ফর ডেমোক্রেসি (এনএলডি) ভূমিধ্বস বিজয় লাভ করে।

মিয়ানমারের ইনস্টিটিউট অব পীস এন্ড সিকিউরিটির নির্বাহী পরিচালন মিন জ ও বলেন, “কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশনের ভোট বাতিলের এই সিদ্ধান্তে স্বচ্ছতা যেমন নেই, তা সঙ্গতিপূর্ণও না।” তিনি বলেন এই সিদ্ধান্তের ফলে ৭৩ শতাংশ রাখাইন ভোটাধিকার বঞ্চিত হবে। এর ফলে জাতীয় পুনর্গঠন প্রক্রিয়া ঝুঁকির মধ্যে পড়বে।

গত ১৬ অক্টোবর নির্বাচন কমিশন নিরাপত্তা ঝুঁকির কারণ দেখিয়ে এসব এলাকায় নির্বাচন বাতিল করে। নির্বাচন কমিশনের ভাষ্য, সহিংস পরিস্থিতির কারণে এসব এলাকায় নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠু হওয়ার নিশ্চয়তা তারা দিতে পারবে না। ২০১৫ নির্বাচনেও এসব জায়গায় নির্বাচন বাতিল করা হয়। তবে নির্বাচন কমিশনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ প্রক্রিয়ার স্বচ্ছতা নিয়ে তখন থেকেই প্রশ্ন আছে।

আসন্ন নির্বাচনে ৯২টি রাজনৈতিক দল অংশ নিচ্ছে। এর মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে মূলত সুচির নেতৃত্বাধীন এনএলডি এবং সেনা-ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত ইউনিয়ন সলিডারিটি এন্ড ডেভেলপমেন্ট পার্টির মধ্যে। অং সান সুচির দলের জনপ্রিয়তা মূলত সংখ্যাগরিষ্ঠ নৃগোষ্ঠীর মধ্যে। তাদের সমর্থনেই তার বৈতরণী পেরোনোর কথা। আগে ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীগুলোর কাছ থেকেও সমর্থন পেতেন তিনি। ২০১৫ নির্বাচনের আগেও তার প্রতিশ্রুতি ছিল - শান্তি নিশ্চিত করা। কিন্তু গত পাঁচ বছরে সংখ্যালঘু নৃগোষ্ঠীর মানুষের ওপর নিপীড়ন, তাদের ব্যাপক বাস্তুচ্যুতি ও প্রান্তিকীকরণ সুচির ব্যাপারে তাদের মোহভঙ্গের কারণ হয়েছে।

তবে ২০১৫ সালের নির্বাচনেও পশ্চিমাঞ্চলীয় রাখাইনেই সুচি বড় ধরাটা খেয়েছিল রাখাইনভিত্তিক আরাকান ন্যাশনাল পার্টি বা এএনপির কাছে। এবার সেসব জায়গাতেই নির্বাচন বাতিল করা হয়েছে যেখানে সুচির সমর্থন তুলনামূলক ভাবে কম। পাঁচটি আঞ্চলিক দল তাই নির্বাচন কমিশনের নিরপেক্ষতা, স্বচ্ছতা ও সততা প্রশ্ন তুলেছেন। সবচেয়ে বড় বিষয় রাখাইনের এমন সব জায়গাতেও নির্বাচন বাতিল হয়েছে যেখানে কোনো ধরনের সহিংসতাই নেই। যেমন রাখাইনের পকতাও শহরে নির্বাচন বাতিল হয়েছে, যেখানে কোনো ধরনের সহিংসতা নেই। গত নির্বাচনে সেখানে এএনপি জিতেছিল। এদিকে পলেতোয়া শহরে যেখানে সহিংসতা লেগেই থাকে সেখানে নির্বাচন হবে। আগের নির্বাচনে এখানে সুচির এনএলডি জিতেছিল।

নির্বাচন কমিশন গত সপ্তাহে সংবাদ মাধ্যমকে জানান, তারা সরকার, প্রতিরক্ষা ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, সেনাবাহিনী ও পুলিশের সুপারিশের ভিত্তিতে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। পকতাউয়ের এএনপির মনোনীত প্রার্থী অং কিয়াউ হতোয়ি আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, প্রতিনিধিত্ব না থাকা নিয়ে মানুষের ক্ষোভের বিষয় যদি সমাধান না হয়, তাহলে পরিস্থিতি আরো খারাপ হবে।

তিনি আরো বলেন, রাখাইন অঞ্চলের বেশিরভাগ জায়গায় নির্বাচন বাতিলের ফল হবে আরো তীব্র সংঘাত। তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশনের এই সিদ্ধান্ত রাজ্যের স্থিতিশীলতা ও পুনর্গঠন প্রক্রিয়া ক্ষতিগ্রস্ত হবে। তবে নির্বাচন বাদেও আমি রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক পরিস্থিতির সম্ভাব্য অবনতির কথা ভাবছি, বলেন তিনি।

প্রসঙ্গত, গত সেপ্টেম্বর থেকে এ পর্যন্ত সরকারবিরোধী বিক্ষোভ করায় বেশ কয়েকজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এর মধ্যে ১৬ অক্টোবর নির্বাচন বাতিলের ঘোষণা আসার পর তার বিরুদ্ধে বিক্ষোভের কারণে চারজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে যার মধ্যে তিনজনই ছাত্র।

ছবি

করোনায় একদিনে ১১ হাজার মানুষের মৃত্যু

ছবি

গাজায় ইসরায়েলের বিমান হামলা, নিহত ২১‌

ছবি

দেশে ফেরার দাবিতে বাংলাদেশিদের বিক্ষোভ

ছবি

নতুন-পুরনো নিয়ে মমতার নতুন মন্ত্রিসভা বিতর্কিতরা বাদ

ছবি

ভারতে গঙ্গা-যমুনায় ভাসছে শত শত লাশ

ছবি

শপথ নিলেন মমতার মন্ত্রিসভার ৪৩ সদস্য

ছবি

আল-আকসার মসজিদের ভেতরে ইসরায়েলি বাহিনীর হামলা

ছবি

এ বছর ‘বিশেষ শর্তে’ হজ

ছবি

মন্ত্রিসভায় একাধিক নতুন মুখ আনছেন মমতা

ছবি

যুক্তরাষ্ট্রে জন্মদিনের পার্টিতে ৬ জনকে গুলি করে হত্যা

ছবি

করোনায় মৃত্যু ৩৩ লাখ ছাড়াল

ছবি

‘ক্ষমার অযোগ্য অপরাধ’ করেছেন নরেন্দ্র মোদি: ল্যানসেট

ছবি

নিউইয়র্কের টাইমস স্কয়ারে শিশুসহ গুলিবিদ্ধ তিন

ছবি

করোনায় বিপর্যস্ত ভারত, টানা চার দিন ৪ হাজারের বেশি মৃত্যু

ছবি

আল-আকসায় ইসরায়েলি হামলা, ১৬৩ ফিলিস্তিনি আহত

ছবি

মমতার মন্ত্রিসভায় এবারও ৪৪ জন সদস্য থাকছেন

ছবি

কঠিন পরিস্থিতি ভারতে, একদিনে চার হাজারের বেশি মৃত্যু

ছবি

ভারতে করোনার দুই ডোজ টিকা পেয়েছেন মাত্র ৩ শতাংশ মানুষ

ছবি

বিধ্বস্ত ভারতে সংক্রমণের নতুন রেকর্ড

ছবি

কিশোরদের জন্যে ফাইজারের টিকার ছাড়পত্র দিল কানাডা

ছবি

ভেঙে পড়েছে ভারতের স্বাস্থ্য ব্যবস্থা

ছবি

বিল-মেলিন্ডার সন্তানরা কে কত টাকার সম্পদ পাচ্ছেন

ছবি

টানা তৃতীয় দফায় শপথ নিলেন মমতা

ছবি

তৃণমূল বিপুল জয় পেলেও বিজেপির ভোটও কম নয়

ছবি

পশ্চিমবঙ্গে নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতা, নিহত ১২

ছবি

মুখ্যমন্ত্রীর পদ থেকে পদত্যাগ করলেন মমতা

ছবি

মেক্সিকোতে মেট্রো ট্রেন দুর্ঘটনা, নিহত ১৫

ছবি

সাত বছর তুমুল প্রেম করে বিয়ে করেছিলেন বিল-মেলিন্ডা

ছবি

মেক্সিকোতে মেট্রোরেল ভেঙে পড়ে নিহত ১৫, আহত ৭০

ছবি

আফগানিস্তানে ফের গৃহযুদ্ধের শঙ্কা দেখছেন হিলারি

ছবি

বিধ্বস্ত ভারতে করোনা আক্রান্ত দুই কোটি পার

ছবি

তৃতীয় দফায় মুখ্যমন্ত্রী পদে কাল শপথ নিচ্ছেন মমতা

ছবি

টেকনো’র গ্লোবাল ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর হলেন ক্যাপ্টেন আমেরিকা খ্যাত সুপারস্টার ক্রিস ইভানস

ছবি

যেকোনো গণজমায়েতের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করুন: ভারত সুপ্রিম কোর্ট

ছবি

পাল্টা আক্রমণেই জয় তুলে নিলো মমতা

ছবি

ইসরায়েলি সেনার গুলিতে ফিলিস্তিনি বৃদ্ধা নিহত

tab

আন্তর্জাতিক

মিয়ানমারের নির্বাচনে ভোট বাতিলে ক্ষুব্দ সংখ্যালঘু নৃগোষ্ঠী

সংবাদ :
  • সংবাদ অনলাইন ডেস্ক
image
বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০

মিয়ানমারে আগামী ৯ নভেম্বর অনুষ্ঠিতব্য জাতীয় নির্বাচনে ১৫ লাখের বেশি মানুষ ভোট দিতে পারবেন না। সহিংসতাপূর্ণ এলাকাগুলোতে ভোট বাতিল করায় এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। নির্বাচন কমিশনের এ সিদ্ধান্তে ভোটের সুষ্ঠুতা নিয়েও সংশয় বেড়েছে বলে জানিয়েছে কাতারভিত্তিক সংবাদ মাধ্যম আল জাজিরা। বাতিল হওয়া ভোটকেন্দ্রগুলোর প্রায় সবই দেশটির পশ্চিমাঞ্চলীয় রাখাইন রাজ্যে। সেখানে ২০১৮ সাল থেকে স্বায়ত্তশাসনকামী সশস্ত্র গোষ্ঠী আরাকান আর্মির সঙ্গে দেশটির নিরাপত্তা বাহিনীর সংঘাত বাড়ছে। এখানে ভোটারের সংখ্যা ১২ লাখ।

বিশেষজ্ঞরা আশঙ্কা করছেন, ভোট দিতে না পারায় এখানকার মানুষের সঙ্গে দেশের বাকি অংশের আরো বিচ্ছিন্নতা তৈরি হবে, যার ফলে এখানকার সশস্ত্র গোষ্ঠীগুলো আরো সমর্থন পাবে। সর্বশেষ ২০১৫ সালের নির্বাচনে অং সান সুচির নেতৃত্বাধীন ন্যাশনাল লীগ ফর ডেমোক্রেসি (এনএলডি) ভূমিধ্বস বিজয় লাভ করে।

মিয়ানমারের ইনস্টিটিউট অব পীস এন্ড সিকিউরিটির নির্বাহী পরিচালন মিন জ ও বলেন, “কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশনের ভোট বাতিলের এই সিদ্ধান্তে স্বচ্ছতা যেমন নেই, তা সঙ্গতিপূর্ণও না।” তিনি বলেন এই সিদ্ধান্তের ফলে ৭৩ শতাংশ রাখাইন ভোটাধিকার বঞ্চিত হবে। এর ফলে জাতীয় পুনর্গঠন প্রক্রিয়া ঝুঁকির মধ্যে পড়বে।

গত ১৬ অক্টোবর নির্বাচন কমিশন নিরাপত্তা ঝুঁকির কারণ দেখিয়ে এসব এলাকায় নির্বাচন বাতিল করে। নির্বাচন কমিশনের ভাষ্য, সহিংস পরিস্থিতির কারণে এসব এলাকায় নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠু হওয়ার নিশ্চয়তা তারা দিতে পারবে না। ২০১৫ নির্বাচনেও এসব জায়গায় নির্বাচন বাতিল করা হয়। তবে নির্বাচন কমিশনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ প্রক্রিয়ার স্বচ্ছতা নিয়ে তখন থেকেই প্রশ্ন আছে।

আসন্ন নির্বাচনে ৯২টি রাজনৈতিক দল অংশ নিচ্ছে। এর মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে মূলত সুচির নেতৃত্বাধীন এনএলডি এবং সেনা-ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত ইউনিয়ন সলিডারিটি এন্ড ডেভেলপমেন্ট পার্টির মধ্যে। অং সান সুচির দলের জনপ্রিয়তা মূলত সংখ্যাগরিষ্ঠ নৃগোষ্ঠীর মধ্যে। তাদের সমর্থনেই তার বৈতরণী পেরোনোর কথা। আগে ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীগুলোর কাছ থেকেও সমর্থন পেতেন তিনি। ২০১৫ নির্বাচনের আগেও তার প্রতিশ্রুতি ছিল - শান্তি নিশ্চিত করা। কিন্তু গত পাঁচ বছরে সংখ্যালঘু নৃগোষ্ঠীর মানুষের ওপর নিপীড়ন, তাদের ব্যাপক বাস্তুচ্যুতি ও প্রান্তিকীকরণ সুচির ব্যাপারে তাদের মোহভঙ্গের কারণ হয়েছে।

তবে ২০১৫ সালের নির্বাচনেও পশ্চিমাঞ্চলীয় রাখাইনেই সুচি বড় ধরাটা খেয়েছিল রাখাইনভিত্তিক আরাকান ন্যাশনাল পার্টি বা এএনপির কাছে। এবার সেসব জায়গাতেই নির্বাচন বাতিল করা হয়েছে যেখানে সুচির সমর্থন তুলনামূলক ভাবে কম। পাঁচটি আঞ্চলিক দল তাই নির্বাচন কমিশনের নিরপেক্ষতা, স্বচ্ছতা ও সততা প্রশ্ন তুলেছেন। সবচেয়ে বড় বিষয় রাখাইনের এমন সব জায়গাতেও নির্বাচন বাতিল হয়েছে যেখানে কোনো ধরনের সহিংসতাই নেই। যেমন রাখাইনের পকতাও শহরে নির্বাচন বাতিল হয়েছে, যেখানে কোনো ধরনের সহিংসতা নেই। গত নির্বাচনে সেখানে এএনপি জিতেছিল। এদিকে পলেতোয়া শহরে যেখানে সহিংসতা লেগেই থাকে সেখানে নির্বাচন হবে। আগের নির্বাচনে এখানে সুচির এনএলডি জিতেছিল।

নির্বাচন কমিশন গত সপ্তাহে সংবাদ মাধ্যমকে জানান, তারা সরকার, প্রতিরক্ষা ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, সেনাবাহিনী ও পুলিশের সুপারিশের ভিত্তিতে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। পকতাউয়ের এএনপির মনোনীত প্রার্থী অং কিয়াউ হতোয়ি আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, প্রতিনিধিত্ব না থাকা নিয়ে মানুষের ক্ষোভের বিষয় যদি সমাধান না হয়, তাহলে পরিস্থিতি আরো খারাপ হবে।

তিনি আরো বলেন, রাখাইন অঞ্চলের বেশিরভাগ জায়গায় নির্বাচন বাতিলের ফল হবে আরো তীব্র সংঘাত। তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশনের এই সিদ্ধান্ত রাজ্যের স্থিতিশীলতা ও পুনর্গঠন প্রক্রিয়া ক্ষতিগ্রস্ত হবে। তবে নির্বাচন বাদেও আমি রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক পরিস্থিতির সম্ভাব্য অবনতির কথা ভাবছি, বলেন তিনি।

প্রসঙ্গত, গত সেপ্টেম্বর থেকে এ পর্যন্ত সরকারবিরোধী বিক্ষোভ করায় বেশ কয়েকজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এর মধ্যে ১৬ অক্টোবর নির্বাচন বাতিলের ঘোষণা আসার পর তার বিরুদ্ধে বিক্ষোভের কারণে চারজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে যার মধ্যে তিনজনই ছাত্র।

back to top