alt

আন্তর্জাতিক

তালেবানের ভয়ে আফগান সঙ্গীতশিল্পীরা পালিয়ে গেছেন পাকিস্তানে

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১

আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলের নিয়ন্ত্রণ তালেবানের হাতে চলে যাওয়ার পর সহিংসতার শিকার হওয়য়ায় আশঙ্কায় পাকিস্তানে পালিয়ে গেছেন সংগীতশিল্পীরা।

সীমান্ত পেরিয়ে অবৈধভাবে পাকিস্তানে ঢুকেছেন এবং এখন আত্মগোপনে আছেন- এমন ছয় আফগান সংগীতশিল্পীর সঙ্গে কথা বলেছে বিবিসি।

পাকিস্তানে পালানো এই সংগীতশিল্পীদের একজন বিবিসি-কে বলেছেন, আফগানিস্তানে থেকে গেলে তাকে মেরে ফেলা হতে পারে বলে শঙ্কিত ছিলেন তিনি।

তালেবান সংগীতের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে, এমনকী গতমাসের আগস্টে বাঘলান প্রদেশে এক লোকসঙ্গীত শিল্পীকে হত্যা করারও অভিযোগও আছে তাদের বিরুদ্ধে। তবে এ বিষয়ে তালেবান এখনও কোনওকিছু বলেনি।

যাকে হত্যা করা হয়েছিল, তার নাম ফাওয়াদ আনদারাবি। তার ছেলে জাওয়াদ বার্তা সংস্থা এপি কে বলেছিলেন, আনদারাব উপত্যকায় তাদের কৃষি খামার আছে। সেখানে তার বাবাকে মাথায় গুলি করে হত্যা করে তালেবান।

আফগানিস্তান থেকে যে ক’জন শিল্পী পাকিস্তানে পালিয়েছেন, তাদের একজনের নাম খান (ছদ্মনাম)। ২০ ধরে আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলে মূলত বিভিন্ন বিয়ের অনুষ্ঠানে গান গাইতেন তিনি। পশতুদের বিয়েতে লোকসংগীত শিল্পীরা বেশ জনপ্রিয়।

২০০১ সালে আফগানিস্তানে যুক্তরাষ্ট্রের হামলায় তালেবান সরকারের পতনের গান গাওয়ার সুযোগ পেয়েছিলেন খান। তার আগে এ সুযোগ ছিল না। কারণ, ১৯৯৬ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত শাসনামলে তালেবান সংগীতের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিল।

এবার আফগানিস্তান দখলে তালবানের অগ্রযাত্রার সময়ও গান নিয়ে উদ্বিগ্ন ছিলেন না খানসহ অন্য শিল্পীরা। তাদের ধারণা ছিল, হয়ত তালেবান বদলে গেছে। তারা হয়ত এবার গান করা কিংবা গান কম্পোজ করার সুযোগ দেবে।

কিন্তু তাদের এই ধারণা ছিল ভুল। গত মাসে তালেবান কাবুলের নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার পর অস্ত্রধারীরা খানের সব বাদ্যযন্ত্র ভেঙে ফেলে। তারা খানকে খুঁজেও বেড়াচ্ছিল। খানের ধারণা, ওই অস্ত্রধারীরা তালেবান যোদ্ধা।

খান বলেন, “মধ্যরাতে আমার কার্যালয়ের নিরাপত্তা প্রহরী আমাকে টেলিফোনে জানায়, কয়েকজন বন্দুকধারী এসে বাদ্যযন্ত্র ভেঙে ফেলেছে। তারা এখনো এখানে আছে। আপনাকে খুঁজছে।”

এর পরদিন ভোরেই পরিবারের সদস্যদের নিয়ে কাবুল ছেড়ে চলে যান খান। তালেবান সম্পর্কে যা ভেবেছিলেন তা ভুল ছিল, এখন সেকথাই বলছেন তিনি।

এই গায়ক ও সংগীত পরিচালকরা তোরখাম ও চামান সীমান্ত দিয়ে পাকিস্তানে পালিয়ে গেছেন। ইসলামাবাদ ও পেশোয়ারের শহরতলিতে লুকিয়ে আছেন তারা। পাকিস্তানের বাইরে কোথাও রাজনৈতিক আশ্রয় পাওয়ার পথ খুঁজছেন তারা।

এমনই আরেক শিল্পী হাসান (ছদ্মনাম)। তিনি বলেন, তালেবান তাকে ধরতে পারলে মেরে ফেলত। কারণ, কাবুলের পতনের আগে তিনি আফগানিস্তানের সেনাবাহিনীর জন্য গান গেয়েছিলেন। বর্তমানে রাওয়ালপিন্ডিতে এক বন্ধুর কাছে আছেন তিনি। তালেবানের ভয়ে পরিবারের সদস্যদের আফগানিস্তানে রেখেই তিনি পালিয়ে যান।

পলাতক আরেক শিল্পীর নাম আখতার (আসল নাম নয়)। বন্ধু ও স্বজনদের পাঁচ পরিবারের সঙ্গে তিনি পালিয়ে পাকিস্তানের পেশোয়ারে চলে গেছন। সেখানে যেতে তার পাঁচ দিন লেগেছে। বিবিসি-কে তিনি বলেন, জীবনের ঝুঁকি নিয়ে তিনি এই যাত্রা করেছিলেন। তার সাত বছরের মেয়ে হৃদ্রোগে আক্রান্ত। আখতার বলেন, “পথ পাড়ি দিতে আমি আমার জীবনের কথা চিন্তা করিনি। মেয়ের জীবন নিয়ে চিন্তিত ছিলাম।”

আখতার জানান, তার মতো এমন আরও অনেক গায়ক এবং সঙ্গীতশিল্পী পাকিস্তানে চলে যাচ্ছেন নতুন একটি আবাস পাওয়ার আশায়, যেখানে তারা সঙ্গীতচর্চা চালিয়ে যেতে পারবেন এবং নির্ভয়ে বাস করতে পারবেন।

আফগানিস্তানে গত ২০ বছরের পশ্চিমা-সমর্থিত সরকার ব্যবস্থায় রাজধানী কাবুল ও অন্যান্য নগরীতে গড়ে উঠেছিল প্রাণবন্ত এক জনপ্রিয় সংস্কৃতি। বডিবিল্ডিং, রকমারি চুলের স্টাইল, জোর আওয়াজে পপ গান কত কীই না চলেছে! তুর্কি সোপ অপেরা থেকে শুরু করে নানা অনুষ্ঠান এবং টিভিতে ‘আফগান স্টার শো’ হয়েছে বহুল জনপ্রিয়।

এখন রাতারাতি বদলে যেতে শুরু করেছে সে সবকিছুই। গানে গানে মুখরিত থাকত যে আফগানিস্তান ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব মিউজিক, ছেলেমেয়েরা একসঙ্গে যেখানে গান শিখত; সেই স্কুলের দরজা এখন বন্ধ। স্তব্ধ হলরুমে পড়ে আছে বাদ্যযন্ত্র। সেখানে এখন তালেবানের আনাগোনা।

শরিয়া আইন অনুযায়ী যেন সব হয় তা নিশ্চিত করার প্রক্রিয়া এরই মধ্যে শুরু করে দিয়েছে তালেবান। কাবুলের কাছের লেগমান প্রদেশের এক সাংবাদিক জানান, তালেবানের স্থানীয় সাংস্কৃতিক কমিশন রাষ্ট্র-পরিচালতি একটি রেডিও এবং ৬ টি বেসরকারি রেডিও স্টেশনকে শরিয়া আইনানুযায়ী অনুষ্ঠান করতে বলেছে।

কান্দাহারে তালেবান কর্তৃপক্ষ গত সপ্তাহে আনুষ্ঠানিকভাবেই নির্দেশ দিয়ে রেডিও স্টেশনগুলোকে গান-বাজনা এবং নারী কণ্ঠের ঘোষণা বন্ধ করতে বলেছে।

ছবি

তাইওয়ানে শক্তিশালী ভূমিকম্প

ছবি

তিন দিনের সফরে সৌদি আরবে ইমরান খান

ছবি

কলম্বিয়ার শীর্ষ ‘মাদক সম্রাট’ গ্রেপ্তার

ছবি

ক্ষমতাধর ১০ দেশের কূটনীতিককে বহিষ্কার করবে তুরস্ক

জাতিসংঘ দিবস আজ

করোনার ডেল্টা ‘প্লাস’ ভ্যারিয়েন্ট আরও বেশি সংক্রামক হতে পারে

ছবি

মিয়ানমারের উত্তরাঞ্চলে সেনা মোতায়েন, গণহত্যার শঙ্কা জাতিসংঘের

ছবি

শিক্ষার্থীদের চাপ কমাতে চীনে আইন পাস

ছবি

আইএসের পশ্চিম আফ্রিকাপ্রধান নিহত, দাবি নাইজেরিয়ার

ছবি

ফের বাড়ছে ভারতে করোনা সংক্রমণ

বিদেশি শ্রমিকদের ওপর নিষেধাজ্ঞা তুলছে মালয়েশিয়া

ছবি

উইঘুর ইস্যুতে চীনের ওপর আন্তর্জাতিক চাপ বাড়ছে

ছবি

দলীয় নেতাদের সামনেই বিজেপি কর্মীদের মারপিট

ছবি

চীন ও রাশিয়ার সঙ্গে হাইপারসোনিক অস্ত্র নির্মাণের প্রতিযোগিতায় পিছিয়ে যুক্তরাষ্ট্র

ছবি

প্রায় দুই বছর পর তেহরানে ফের জুমার নামাজ শুরু

রাশিয়ায় রাসায়নিক কারখানায় বিস্ফোরণে নিহত ১৬

ছবি

চার মাস ধরে বেতন পান না আফগান শিক্ষকরা

ছবি

সিরিয়ায় ২৪ জনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর

ছবি

চীনে ফের সংক্রমণ, ফ্লাইট বাতিল-স্কুল বন্ধ

ছবি

প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর সঙ্গে সেলফি তুলে বিপদে নারী পুলিশ

ছবি

ফের সাংবাদিকদের মারলো তালেবান

ছবি

প্রথমবারের মতো মহাকাশ রকেট উৎক্ষেপণ দ. কোরিয়ার

ছবি

ফের পুলিশের হাতে আটক প্রিয়াঙ্কা গান্ধী,পরে মুক্তি

ছবি

ভারত ও নেপালে বন্যা-ভূমিধসে মৃতের সংখ্যা ১৫০ ছাড়িয়েছে

ছবি

২০২২ সালেও চলতে পারে করোনা মহামারি: ডব্লিউএইচও

ছবি

উত্তর কোরিয়ার সাথে বৈঠকে বসতে চায় যুক্তরাষ্ট্র

ছবি

সিরিয়া সেনাবহরে বোমা হামলা, নিহত ১৪

ছবি

ভারত ও নেপালে বন্যা, ভূমিধসে মৃত্যু শতাধিক

ছবি

মানবদেহে প্রথমবার শূকরের কিডনির সফল প্রতিস্থাপন

ছবি

নেপালে বন্যা-ভূমিধসে নিহত ৪৩

ছবি

হাইতিতে মিশনারি অপহরণ : প্রতিজন ১০ লাখ ডলারে মুক্তিপণ দাবি

ছবি

ভারতের উত্তরাখাণ্ডে দুর্যোগে মৃত্যু বেড়ে ৪৬

ছবি

মুসলিম প্রেমিকের সঙ্গে বিল গেটসের মেয়ের জমকালো বিয়ে

ছবি

বন্দুকধারীদের হামলায় নাইজেরিয়ায় নিহত ৪৩

ছবি

ফের ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালাল উত্তর কোরিয়া

ছবি

প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী কলিন পাওয়েল আর নেই

tab

আন্তর্জাতিক

তালেবানের ভয়ে আফগান সঙ্গীতশিল্পীরা পালিয়ে গেছেন পাকিস্তানে

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১

আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলের নিয়ন্ত্রণ তালেবানের হাতে চলে যাওয়ার পর সহিংসতার শিকার হওয়য়ায় আশঙ্কায় পাকিস্তানে পালিয়ে গেছেন সংগীতশিল্পীরা।

সীমান্ত পেরিয়ে অবৈধভাবে পাকিস্তানে ঢুকেছেন এবং এখন আত্মগোপনে আছেন- এমন ছয় আফগান সংগীতশিল্পীর সঙ্গে কথা বলেছে বিবিসি।

পাকিস্তানে পালানো এই সংগীতশিল্পীদের একজন বিবিসি-কে বলেছেন, আফগানিস্তানে থেকে গেলে তাকে মেরে ফেলা হতে পারে বলে শঙ্কিত ছিলেন তিনি।

তালেবান সংগীতের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে, এমনকী গতমাসের আগস্টে বাঘলান প্রদেশে এক লোকসঙ্গীত শিল্পীকে হত্যা করারও অভিযোগও আছে তাদের বিরুদ্ধে। তবে এ বিষয়ে তালেবান এখনও কোনওকিছু বলেনি।

যাকে হত্যা করা হয়েছিল, তার নাম ফাওয়াদ আনদারাবি। তার ছেলে জাওয়াদ বার্তা সংস্থা এপি কে বলেছিলেন, আনদারাব উপত্যকায় তাদের কৃষি খামার আছে। সেখানে তার বাবাকে মাথায় গুলি করে হত্যা করে তালেবান।

আফগানিস্তান থেকে যে ক’জন শিল্পী পাকিস্তানে পালিয়েছেন, তাদের একজনের নাম খান (ছদ্মনাম)। ২০ ধরে আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলে মূলত বিভিন্ন বিয়ের অনুষ্ঠানে গান গাইতেন তিনি। পশতুদের বিয়েতে লোকসংগীত শিল্পীরা বেশ জনপ্রিয়।

২০০১ সালে আফগানিস্তানে যুক্তরাষ্ট্রের হামলায় তালেবান সরকারের পতনের গান গাওয়ার সুযোগ পেয়েছিলেন খান। তার আগে এ সুযোগ ছিল না। কারণ, ১৯৯৬ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত শাসনামলে তালেবান সংগীতের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিল।

এবার আফগানিস্তান দখলে তালবানের অগ্রযাত্রার সময়ও গান নিয়ে উদ্বিগ্ন ছিলেন না খানসহ অন্য শিল্পীরা। তাদের ধারণা ছিল, হয়ত তালেবান বদলে গেছে। তারা হয়ত এবার গান করা কিংবা গান কম্পোজ করার সুযোগ দেবে।

কিন্তু তাদের এই ধারণা ছিল ভুল। গত মাসে তালেবান কাবুলের নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার পর অস্ত্রধারীরা খানের সব বাদ্যযন্ত্র ভেঙে ফেলে। তারা খানকে খুঁজেও বেড়াচ্ছিল। খানের ধারণা, ওই অস্ত্রধারীরা তালেবান যোদ্ধা।

খান বলেন, “মধ্যরাতে আমার কার্যালয়ের নিরাপত্তা প্রহরী আমাকে টেলিফোনে জানায়, কয়েকজন বন্দুকধারী এসে বাদ্যযন্ত্র ভেঙে ফেলেছে। তারা এখনো এখানে আছে। আপনাকে খুঁজছে।”

এর পরদিন ভোরেই পরিবারের সদস্যদের নিয়ে কাবুল ছেড়ে চলে যান খান। তালেবান সম্পর্কে যা ভেবেছিলেন তা ভুল ছিল, এখন সেকথাই বলছেন তিনি।

এই গায়ক ও সংগীত পরিচালকরা তোরখাম ও চামান সীমান্ত দিয়ে পাকিস্তানে পালিয়ে গেছেন। ইসলামাবাদ ও পেশোয়ারের শহরতলিতে লুকিয়ে আছেন তারা। পাকিস্তানের বাইরে কোথাও রাজনৈতিক আশ্রয় পাওয়ার পথ খুঁজছেন তারা।

এমনই আরেক শিল্পী হাসান (ছদ্মনাম)। তিনি বলেন, তালেবান তাকে ধরতে পারলে মেরে ফেলত। কারণ, কাবুলের পতনের আগে তিনি আফগানিস্তানের সেনাবাহিনীর জন্য গান গেয়েছিলেন। বর্তমানে রাওয়ালপিন্ডিতে এক বন্ধুর কাছে আছেন তিনি। তালেবানের ভয়ে পরিবারের সদস্যদের আফগানিস্তানে রেখেই তিনি পালিয়ে যান।

পলাতক আরেক শিল্পীর নাম আখতার (আসল নাম নয়)। বন্ধু ও স্বজনদের পাঁচ পরিবারের সঙ্গে তিনি পালিয়ে পাকিস্তানের পেশোয়ারে চলে গেছন। সেখানে যেতে তার পাঁচ দিন লেগেছে। বিবিসি-কে তিনি বলেন, জীবনের ঝুঁকি নিয়ে তিনি এই যাত্রা করেছিলেন। তার সাত বছরের মেয়ে হৃদ্রোগে আক্রান্ত। আখতার বলেন, “পথ পাড়ি দিতে আমি আমার জীবনের কথা চিন্তা করিনি। মেয়ের জীবন নিয়ে চিন্তিত ছিলাম।”

আখতার জানান, তার মতো এমন আরও অনেক গায়ক এবং সঙ্গীতশিল্পী পাকিস্তানে চলে যাচ্ছেন নতুন একটি আবাস পাওয়ার আশায়, যেখানে তারা সঙ্গীতচর্চা চালিয়ে যেতে পারবেন এবং নির্ভয়ে বাস করতে পারবেন।

আফগানিস্তানে গত ২০ বছরের পশ্চিমা-সমর্থিত সরকার ব্যবস্থায় রাজধানী কাবুল ও অন্যান্য নগরীতে গড়ে উঠেছিল প্রাণবন্ত এক জনপ্রিয় সংস্কৃতি। বডিবিল্ডিং, রকমারি চুলের স্টাইল, জোর আওয়াজে পপ গান কত কীই না চলেছে! তুর্কি সোপ অপেরা থেকে শুরু করে নানা অনুষ্ঠান এবং টিভিতে ‘আফগান স্টার শো’ হয়েছে বহুল জনপ্রিয়।

এখন রাতারাতি বদলে যেতে শুরু করেছে সে সবকিছুই। গানে গানে মুখরিত থাকত যে আফগানিস্তান ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব মিউজিক, ছেলেমেয়েরা একসঙ্গে যেখানে গান শিখত; সেই স্কুলের দরজা এখন বন্ধ। স্তব্ধ হলরুমে পড়ে আছে বাদ্যযন্ত্র। সেখানে এখন তালেবানের আনাগোনা।

শরিয়া আইন অনুযায়ী যেন সব হয় তা নিশ্চিত করার প্রক্রিয়া এরই মধ্যে শুরু করে দিয়েছে তালেবান। কাবুলের কাছের লেগমান প্রদেশের এক সাংবাদিক জানান, তালেবানের স্থানীয় সাংস্কৃতিক কমিশন রাষ্ট্র-পরিচালতি একটি রেডিও এবং ৬ টি বেসরকারি রেডিও স্টেশনকে শরিয়া আইনানুযায়ী অনুষ্ঠান করতে বলেছে।

কান্দাহারে তালেবান কর্তৃপক্ষ গত সপ্তাহে আনুষ্ঠানিকভাবেই নির্দেশ দিয়ে রেডিও স্টেশনগুলোকে গান-বাজনা এবং নারী কণ্ঠের ঘোষণা বন্ধ করতে বলেছে।

back to top