alt

আন্তর্জাতিক

কাবুলে মার্কিন ড্রোন হামলা : নিহতদের পরিবারের জন্য ক্ষতিপূরণ দাবি

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : রোববার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১

আফগানিস্তান ছাড়ার শেষ সময়ে এসে চালানো যুক্তরাষ্ট্রের ড্রোন হামলায় নিহত হয় একই পরিবারের ১০ সদস্য। রাজধানী কাবুলে চালানো ওই হামলাকে ভুল হিসেবে স্বীকার করেছে যুক্তরাষ্ট্র। তবে এতে সন্তুষ্ট নন নিহত ব্যক্তিদের আত্মীয়রা। তাঁরা এই ঘটনার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তাদের আফগানিস্তানে এসে ক্ষমা চাওয়া ও ক্ষতিপূরণের দাবি করেছেন। গতকাল শনিবার তাঁরা এমন দাবি করেন বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা এএফপি।

গত ২৯ আগস্ট আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেটের (আইএস) সদস্য সন্দেহে কাবুলে একটি গাড়িতে ওই ড্রোন হামলা চালান মার্কিন গোয়েন্দারা। এতে গাড়িটিতে থাকা এজমারাই আহমাদিসহ তিন প্রাপ্তবয়স্ক ও সাত শিশু নিহত হয়। এর আগে ২৬ আগস্ট রাজধানীর হামিদ কারজাই বিমানবন্দরের বাইরে আইএসের আত্মঘাতী বোমা হামলায় ১৩ মার্কিন সেনাসহ ১৭০ আফগান নিহত হয়।

সেদিনের ড্রোন হামলার পর এএফপির সঙ্গে কথা বলেছেন ফারশাদ হায়দারি (২২)। ড্রোন হামলায় নিহত এজমারাই আহমাদি সম্পর্কে তাঁর চাচা। কাবুলে নিজ বাসা থেকে হায়দারি বলেন, হামলার পর যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে তাঁদের পরিবারের সঙ্গে কোনো যোগাযোগ করা হয়নি। মার্কিনদের আফগানিস্তানে আসতে হবে এবং সামনাসামনি ক্ষমা চাইতে হবে। এ ছাড়া তাদের অবশ্যই এ ঘটনার জন্য ক্ষতিপূরণ দিতে হবে।

হামলায় নিহত ব্যক্তিদের মধ্যে হায়দারির ভাই নাসেরও ছিলেন। পরিবারের সদস্যদের পক্ষে তিনি বলেন, নিহত ব্যক্তিদের কেউ যে সন্ত্রাসী ছিল না, এটা এখন যুক্তরাষ্ট্রের কাছে পরিষ্কার। সারা বিশ্বের মানুষও এখন এটা জানবে। এ সময় তিনি হামলার জন্য দায়ী কর্মকর্তাদের আটক করে শাস্তির দাবি করেন।

মার্কিন ড্রোন হামলায় নিহত ব্যক্তিদের মধ্যে বেশির ভাগই গত ২০ বছরে আফগানিস্তানে সামরিক অভিযানের সময় যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষে কাজ করেছিলেন বলে জানিয়েছেন হায়দারি। তাঁর ভাই নাসের যুক্তরাষ্ট্রের হয়ে ১০ বছরের মতো সময় কাজ করেছেন। চাচা আহমাদিও মৃত্যুর সময় একটি মার্কিন প্রতিষ্ঠানের হয়ে কাজ করছিলেন। তালেবান কাবুল দখলের পর তাঁদের সবার কাছে আফগানিস্তান ত্যাগের ছাড়পত্র ছিল। তাঁরা খুব শিগগির যুক্তরাষ্ট্র পাড়ি দেওয়ার আশায় ছিলেন বলে জানান হায়দারি।

হামলায় নিহত ব্যক্তিদের বিষয়ে এএফপি কথা বলেছে আহমাদির ভাই আইমালের সঙ্গে। সেদিন গাড়িতে অন্যদের সঙ্গে ছিল তাঁর তিন বছরের মেয়ে মালেকাও। ড্র্রোন হামলা তার প্রাণও কেড়ে নেয়। আইমাল বলেন, ‘আমরা আন্তর্জাতিক সংস্থার কাছে বিচার চাই...এরপর আমরা এর ক্ষতিপূরণ চাই।’

এদিকে ড্রোন হামলাটিকে ভুল বলে স্বীকার করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের সেন্ট্রাল কমান্ডের কমান্ডার জেনারেল কেনেথ ম্যাকেঞ্জি। হামলায় নিহত ব্যক্তিদের পরিবারের কাছে ক্ষমা চেয়েছেন দেশটির প্রতিরক্ষামন্ত্রী লয়েড অস্টিনও। তিনি বলেন, নিহত আহমাদির সঙ্গে ইসলামিক স্টেটের সঙ্গে কোনো সংযোগ ছিল না। হামলায় নিহত ব্যক্তিদের পরিবারকে কীভাবে ক্ষতিপূরণ দেওয়া যেতে পারে, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

ছবি

তাইওয়ানে শক্তিশালী ভূমিকম্প

ছবি

তিন দিনের সফরে সৌদি আরবে ইমরান খান

ছবি

কলম্বিয়ার শীর্ষ ‘মাদক সম্রাট’ গ্রেপ্তার

ছবি

ক্ষমতাধর ১০ দেশের কূটনীতিককে বহিষ্কার করবে তুরস্ক

জাতিসংঘ দিবস আজ

করোনার ডেল্টা ‘প্লাস’ ভ্যারিয়েন্ট আরও বেশি সংক্রামক হতে পারে

ছবি

মিয়ানমারের উত্তরাঞ্চলে সেনা মোতায়েন, গণহত্যার শঙ্কা জাতিসংঘের

ছবি

শিক্ষার্থীদের চাপ কমাতে চীনে আইন পাস

ছবি

আইএসের পশ্চিম আফ্রিকাপ্রধান নিহত, দাবি নাইজেরিয়ার

ছবি

ফের বাড়ছে ভারতে করোনা সংক্রমণ

বিদেশি শ্রমিকদের ওপর নিষেধাজ্ঞা তুলছে মালয়েশিয়া

ছবি

উইঘুর ইস্যুতে চীনের ওপর আন্তর্জাতিক চাপ বাড়ছে

ছবি

দলীয় নেতাদের সামনেই বিজেপি কর্মীদের মারপিট

ছবি

চীন ও রাশিয়ার সঙ্গে হাইপারসোনিক অস্ত্র নির্মাণের প্রতিযোগিতায় পিছিয়ে যুক্তরাষ্ট্র

ছবি

প্রায় দুই বছর পর তেহরানে ফের জুমার নামাজ শুরু

রাশিয়ায় রাসায়নিক কারখানায় বিস্ফোরণে নিহত ১৬

ছবি

চার মাস ধরে বেতন পান না আফগান শিক্ষকরা

ছবি

সিরিয়ায় ২৪ জনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর

ছবি

চীনে ফের সংক্রমণ, ফ্লাইট বাতিল-স্কুল বন্ধ

ছবি

প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর সঙ্গে সেলফি তুলে বিপদে নারী পুলিশ

ছবি

ফের সাংবাদিকদের মারলো তালেবান

ছবি

প্রথমবারের মতো মহাকাশ রকেট উৎক্ষেপণ দ. কোরিয়ার

ছবি

ফের পুলিশের হাতে আটক প্রিয়াঙ্কা গান্ধী,পরে মুক্তি

ছবি

ভারত ও নেপালে বন্যা-ভূমিধসে মৃতের সংখ্যা ১৫০ ছাড়িয়েছে

ছবি

২০২২ সালেও চলতে পারে করোনা মহামারি: ডব্লিউএইচও

ছবি

উত্তর কোরিয়ার সাথে বৈঠকে বসতে চায় যুক্তরাষ্ট্র

ছবি

সিরিয়া সেনাবহরে বোমা হামলা, নিহত ১৪

ছবি

ভারত ও নেপালে বন্যা, ভূমিধসে মৃত্যু শতাধিক

ছবি

মানবদেহে প্রথমবার শূকরের কিডনির সফল প্রতিস্থাপন

ছবি

নেপালে বন্যা-ভূমিধসে নিহত ৪৩

ছবি

হাইতিতে মিশনারি অপহরণ : প্রতিজন ১০ লাখ ডলারে মুক্তিপণ দাবি

ছবি

ভারতের উত্তরাখাণ্ডে দুর্যোগে মৃত্যু বেড়ে ৪৬

ছবি

মুসলিম প্রেমিকের সঙ্গে বিল গেটসের মেয়ের জমকালো বিয়ে

ছবি

বন্দুকধারীদের হামলায় নাইজেরিয়ায় নিহত ৪৩

ছবি

ফের ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালাল উত্তর কোরিয়া

ছবি

প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী কলিন পাওয়েল আর নেই

tab

আন্তর্জাতিক

কাবুলে মার্কিন ড্রোন হামলা : নিহতদের পরিবারের জন্য ক্ষতিপূরণ দাবি

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

রোববার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১

আফগানিস্তান ছাড়ার শেষ সময়ে এসে চালানো যুক্তরাষ্ট্রের ড্রোন হামলায় নিহত হয় একই পরিবারের ১০ সদস্য। রাজধানী কাবুলে চালানো ওই হামলাকে ভুল হিসেবে স্বীকার করেছে যুক্তরাষ্ট্র। তবে এতে সন্তুষ্ট নন নিহত ব্যক্তিদের আত্মীয়রা। তাঁরা এই ঘটনার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তাদের আফগানিস্তানে এসে ক্ষমা চাওয়া ও ক্ষতিপূরণের দাবি করেছেন। গতকাল শনিবার তাঁরা এমন দাবি করেন বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা এএফপি।

গত ২৯ আগস্ট আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেটের (আইএস) সদস্য সন্দেহে কাবুলে একটি গাড়িতে ওই ড্রোন হামলা চালান মার্কিন গোয়েন্দারা। এতে গাড়িটিতে থাকা এজমারাই আহমাদিসহ তিন প্রাপ্তবয়স্ক ও সাত শিশু নিহত হয়। এর আগে ২৬ আগস্ট রাজধানীর হামিদ কারজাই বিমানবন্দরের বাইরে আইএসের আত্মঘাতী বোমা হামলায় ১৩ মার্কিন সেনাসহ ১৭০ আফগান নিহত হয়।

সেদিনের ড্রোন হামলার পর এএফপির সঙ্গে কথা বলেছেন ফারশাদ হায়দারি (২২)। ড্রোন হামলায় নিহত এজমারাই আহমাদি সম্পর্কে তাঁর চাচা। কাবুলে নিজ বাসা থেকে হায়দারি বলেন, হামলার পর যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে তাঁদের পরিবারের সঙ্গে কোনো যোগাযোগ করা হয়নি। মার্কিনদের আফগানিস্তানে আসতে হবে এবং সামনাসামনি ক্ষমা চাইতে হবে। এ ছাড়া তাদের অবশ্যই এ ঘটনার জন্য ক্ষতিপূরণ দিতে হবে।

হামলায় নিহত ব্যক্তিদের মধ্যে হায়দারির ভাই নাসেরও ছিলেন। পরিবারের সদস্যদের পক্ষে তিনি বলেন, নিহত ব্যক্তিদের কেউ যে সন্ত্রাসী ছিল না, এটা এখন যুক্তরাষ্ট্রের কাছে পরিষ্কার। সারা বিশ্বের মানুষও এখন এটা জানবে। এ সময় তিনি হামলার জন্য দায়ী কর্মকর্তাদের আটক করে শাস্তির দাবি করেন।

মার্কিন ড্রোন হামলায় নিহত ব্যক্তিদের মধ্যে বেশির ভাগই গত ২০ বছরে আফগানিস্তানে সামরিক অভিযানের সময় যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষে কাজ করেছিলেন বলে জানিয়েছেন হায়দারি। তাঁর ভাই নাসের যুক্তরাষ্ট্রের হয়ে ১০ বছরের মতো সময় কাজ করেছেন। চাচা আহমাদিও মৃত্যুর সময় একটি মার্কিন প্রতিষ্ঠানের হয়ে কাজ করছিলেন। তালেবান কাবুল দখলের পর তাঁদের সবার কাছে আফগানিস্তান ত্যাগের ছাড়পত্র ছিল। তাঁরা খুব শিগগির যুক্তরাষ্ট্র পাড়ি দেওয়ার আশায় ছিলেন বলে জানান হায়দারি।

হামলায় নিহত ব্যক্তিদের বিষয়ে এএফপি কথা বলেছে আহমাদির ভাই আইমালের সঙ্গে। সেদিন গাড়িতে অন্যদের সঙ্গে ছিল তাঁর তিন বছরের মেয়ে মালেকাও। ড্র্রোন হামলা তার প্রাণও কেড়ে নেয়। আইমাল বলেন, ‘আমরা আন্তর্জাতিক সংস্থার কাছে বিচার চাই...এরপর আমরা এর ক্ষতিপূরণ চাই।’

এদিকে ড্রোন হামলাটিকে ভুল বলে স্বীকার করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের সেন্ট্রাল কমান্ডের কমান্ডার জেনারেল কেনেথ ম্যাকেঞ্জি। হামলায় নিহত ব্যক্তিদের পরিবারের কাছে ক্ষমা চেয়েছেন দেশটির প্রতিরক্ষামন্ত্রী লয়েড অস্টিনও। তিনি বলেন, নিহত আহমাদির সঙ্গে ইসলামিক স্টেটের সঙ্গে কোনো সংযোগ ছিল না। হামলায় নিহত ব্যক্তিদের পরিবারকে কীভাবে ক্ষতিপূরণ দেওয়া যেতে পারে, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

back to top