alt

প্রযুক্তি

ফোনে রিবুট করার মাধ্যমে হ্যাকিং কমানো সম্ভব

: শুক্রবার, ০৬ আগস্ট ২০২১

বিশ্বব্যাপী ডিজিটাল নিরাপত্তা নিয়ে যখন সর্বত্র আলোচনা চলছে তখন কম্পিউটার ঠিক করার সবচেয়ে পুরনো ও সহজ উপায়,অর্থাৎ ডিভাইসটি বন্ধ করা এবং চালু করা হ্যাকারদেরকে স্মার্টফোনের তথ্য চুরির প্রয়াস ব্যর্থ করে দিতে পারে।

সেনেট গোয়েন্দা কমিটির সদস্য হবার কারণে সেনেটর অ্যাঙ্গাস কিং-এর হ্যাকারদের নিয়ে চিন্তিত হবার যৌক্তিক কারণ রয়েছে। তিনি জানান এ বছর নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের এক ব্রিফিং-এ সেলফোন কিভাবে নিরাপদ রাখা যায় তা নিয়ে তিনি কিছু পরামর্শ পেয়েছেন।

প্রথম ধাপঃ ফোন বন্ধ করা

দ্বিতীয় ধাপঃ ফোন খোলা

ব্যাস! ডিজিটাল নিরাপত্তা নিয়ে যখন সর্বত্র আলোচনা চলছে তখন কম্পিউটার ঠিক করার সবচেয়ে পুরনো ও সহজ উপায়,অর্থাৎ ডিভাইসটি বন্ধ করা এবং চালু করা হ্যাকারদেরকে স্মার্টফোনের তথ্য চুরির প্রয়াস ব্যর্থ করে দিতে পারে।

নিয়মিতভাবে স্মার্টফোন খোলা ও বন্ধ করার মাধ্যমে সাইবার অপরাধীদের কিংবা ভাড়া করা গোয়েন্দা ফার্ম, যারা ডিজিটাল বিশ্বে তথ্য নিরাপদ ও ব্যক্তিগত রাখার জন্যে হুমকি হয়ে উঠেছে, তাদেরকে থামাতে না পারলেও দক্ষ হ্যাকারদেরকে অন্য কারও ফোনের মধ্যে ঢোকা ও তথ্য চুরির প্রচেষ্টাকে কঠিন করে তুলবে।

জাতীয় নিরাপত্তা সংস্থার সাইবার অপরাধ বিভাগের টেকনিক্যাল ডিরেক্টর নীল জায়ারিং এর মতে, “এটা মূলত ঐ বাজে লোকগুলোর জন্যে তাদের কাজের খরচ বাড়িয়ে তোলা”।

জাতীয় নিরাপত্তা সংস্থা গত বছর মোবাইল ডিভাইস নিরাপত্তার একটি নীতিমালা প্রণয়ন করেছে যাতে হ্যাকিং বন্ধ করার একটি উপায় হিসাবে সপ্তাহে একবার ফোন রিবুট করার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

মেইনের স্বতন্ত্র সেনেটর কিং বলেন, ফোন রিবুট করা এখন তাঁর রুটিনের অংশ হয়ে উঠেছে, তিনি বলেন “আমি বলবো সম্ভবত সপ্তাহে একবার, যখনই মনে হয় রিবুট করি”।

ফোন সাধারণত সর্বদাই মানুষের হাতের কাছে থাকে। ফোনের মধ্যে থাকে প্রচুর ব্যক্তিগত ও স্পর্শকাতর ডেটা। আর সেলফোন হ্যাকারদের শীর্ষ লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত হয় সেসব। তারা ব্যবহারকারির তথ্য চুরির লক্ষ্যে তার টেক্সট ম্যাসেজ,কন্টাক্টস এবং ফটো, অবস্থান জেনে নেয়, এমনকি গোপনে তার ভিডিও ও মাইক্রোফোন পর্যন্ত চালু করে ফেলে।

নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ ও জাতীয় নিরাপত্তা সংস্থার সাবেক গবেষক প্যাট্রিক ওয়ার্ডলের মতে, “ফোনকে আমি মনে করি আমাদের ডিজিটাল আত্মার মতো”।

প্রতি বছর কি পরিমাণ লোকের ফোন হ্যাক হয় তার কোন সঠিক হিসাব্ নেই, তবে তথ্য প্রমাণে বোঝা যায় এই সংখ্যা উল্লেখযোগ্য।

ফোন হ্যাকিং নিয়ে সাম্প্রতিককালে এক আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম কনসোর্টিয়ামের তদন্তের ফলাফল নিয়ে ফ্রান্স, ভারত,হাঙ্গেরি ও অন্যান্য বিভিন্ন স্থানে রাজনৈতিক হৈ চৈ পড়ে গেছে। এতে গবেষকরা দেখেছেন বিপুল সংখ্যক সাংবাদিক,মানবাধিকার কর্মী এবং রাজনীতিবিদ একটি ইসরাইলী হ্যাকিং কোম্পানির সম্ভাব্য তালিকায় ছিলেন।

জায়ারিং বলছেন, সাধারণত হ্যাকার যখন কোন ডিভাইস বা নেটওয়ার্কে ঢোকার সুযোগ পায়, তারা পথ খোঁজে কিভাবে দুষিত সফটওয়্যার দিয়ে কম্পিউটারের মূল ফাইল সিস্টেম নষ্ট করে তার দখল নেয়া যায়। তবে অ্যাপল এবং গুগলের মতো ফোন প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠানগুলো এসব ম্যালওয়্যার থেকে দূরে থাকার জন্যে অপারেটিং সিস্টেম অনেক শক্তিশালী নিরাপত্তা বেষ্টনী দিয়ে তৈরি করছে।

তিনি বলেন, “হ্যাকারের জন্যে সেই বেষ্টনী ভাঙ্গা কঠিন হয় এবং ফোনে ঢোকাও কঠিন হয়ে পড়ে”।

এর ফলে হ্যাকাররা অন্য পথ খোঁজে। ‘ইন-মেমোরি পে লোডস’ শনাক্ত করে তারা প্রেরণকারীকে অনুসরণ করে। রিবুটিং এ ধরণের হ্যাকিং নস্যাৎ করে দেয়। তবে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে তা হয় না, কারণ মানুষ কালে ভদ্রে তাদের ফোন বন্ধ করেন।

বিশেষজ্ঞ ওয়ার্ডলের মতে, “যদি কোনো উপায়ে তারা মাত্র একবারের জন্যে আপনার ডিভাইসে ঢুকতে পারে, চ্যাট ম্যাসেজ পড়তে পারে, কন্টাক্ট ও পাসওয়ার্ড জেনে নিতে পারে, তাহলেতো খেলা প্রায় শেষ তাই না ?”

বর্তমানে ফোন হ্যাকিং টুলস এর একটি শক্তিশালী বাজার সৃষ্টি হয়েছে। জিরোডিয়াম এবং ক্রাউডফেন্সের মতো কোম্পানিগুলো জিরো-ক্লিক হ্যাকিং টুলস এর জন্য প্রকাশ্যে লক্ষ লক্ষ ডলার দেবার প্রস্তাব করছে।

সাম্প্রতিক সময়ে টাকা নিয়ে কাজ করার মতো প্রচুর হ্যাকার কোম্পানি প্রতিষ্ঠিত হয়েছে, যারা সরকার ও আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে মোবাইল ডিভাইসের হ্যাকিং টুল সরবরাহ করে। সবচেয়ে বেশি পরিচিতি পেয়েছে ইসরাইলভিত্তিক এনএসও (NSO) গ্রুপ। গবেষকরা বলছেন বিশ্বব্যাপী মানবাধিকার কর্মী, সাংবাদিক, এমনকি ক্যাথলিক পাদ্রিদের ফোন হ্যাকিং করা হচ্ছে তাদের স্পাইওয়্যার দিয়ে।

সম্প্রতি একটি গণমাধ্যমে NSO গ্রুপের হ্যাকিং টুল পেগাসাস নিয়ে রিপোর্ট এসেছে। ওয়াশিংটন পোষ্টের খবরে বলা হয়, পেগাসাস ব্যবহার করে ৩৭টি ঘটনায় ব্যবসায়ী, মানবাধিকার কর্মী এবং অন্যান্যদের ফোন সফলভাবে হ্যাকিং অথবা হ্যাকিং এর চেষ্টা করা হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রে ফেসবুক এই কোম্পানির বিরুদ্ধে মামলা করেছে। বলা হচ্ছে, তারা জিরোক্লিকের মাধ্যমে ফেসবুকের ১৪০০ ক্লায়ান্টের হোয়াটস অ্যাপের ব্যক্তিগত মেসেজ টার্গেট করেছিল।

NSO গ্রুপ বলছে তারা শুধুমাত্র পরীক্ষিত সরকারি সংস্থার কাছে তাদের স্পাইওয়্যার বিক্রি করে, সন্ত্রাসী বা বড়ো অপরাধিদের বিরুদ্ধে ব্যবহারের লক্ষ্যে। তবে মতামতের জন্যে অনুরোধ করা হলে কোম্পানিটির পক্ষ থেকে কোন মন্তব্য করা হয়নি।

NSO কোম্পানির স্পাইওয়্যার তার কার্যকারিতার জন্যে জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। ভাইস নিউজ বলছে, কয়েক বছর আগে ঐ কোম্পানির যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক অংশীদার, আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী সংস্থাকে একটি হ্যাকিং টুল দেয় যা ফোনের ফ্যাক্টরি রিসেটের পরও কাজ করে।

মার্কজ্যাক NSO গ্রুপের কর্মকান্ড গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করছেন কয়েক বছর ধরে। তার মতে, কোম্পানিটি প্রথমে জিরো-ক্লিক এক্সপ্লয়েট দিয়ে শুরু করে যা ২০১৯ পর্যন্ত সফলভাবে চলে।

হোয়াটস্যাপে যারা এতে ক্ষতির মুখে পড়েছিলেন তারা হ্যাকিং টুলটি তাদের ফোনে ঢোকার আগে প্রথমে কয়েকবার ইনকামিং কল পেতেন। ২০২০ সালে মার্কজ্যাক এবং সিটিজেন ল্যাব জিরো-ক্লিক দিয়ে NSO গ্রুপের আরেকটি হ্যাকিং প্রয়াস ধরে ফেলে যাতে আল জাজিরার কয়েকজন সাংবাদিককে টার্গেট করা হয়েছিল। তাতে হ্যাকাররা অ্যাপলের আই ম্যাসেজ টেক্সটিং সার্ভিস ব্যাবহার করে।

মার্কজ্যাক বলেন, “যাদের টার্গেট করা হয়েছিল তারা তাদের ফোনের স্ক্রিনে কিছুই দেখতে পাননি। সেটি ছিল সম্পূর্ণ অদৃশ্য এবং ব্যবহারকারিরা তাতে কোনভাবেই সম্পৃক্ত ছিলেন না”। মার্কজ্যাক বলেন, তাদের কাছে এতোটাই শক্তিশালী হ্যাকিং টুল আছে যা আপনার ফোন রিবুট করলেও কাজ হবে না। আপনি রিবুট করলে সে আরেকটি জিরো-ক্লিক পাঠিয়ে দেবে।

তিনি বলেন, “এটা একটু অন্য মডেলের টুল। অনেকটা বারবার সংক্রমণের মতো কাজ করে”।

ছবি

১১-১৪ নভেম্বর ঢাকায় অনুষ্ঠিত হবে প্রযুক্তি খাতের বিশ্ব সম্মেলন ‘ডব্লিউসিআইটি ২০২১’

ছবি

বয়স ১৬ এর নিচে হলে অস্ট্রেলিয়ায় ফেইসবুক ব্যবহারে লাগবে অনুমতি

ছবি

যুব প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের গ্লোবাল আইটি চ্যালেঞ্জ ২০২১-এ বাংলাদেশ দলের সাফল্য অর্জন

ছবি

অবৈধ মোবাইল ফোন বন্ধ হচ্ছে না: মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা

ছবি

ফেইসবুকের নাম পরিবর্তন করার কারণ

ছবি

নাম বদলের পরিকল্পনা করছে ফেসবুক

ছবি

বায়োস্কোপ ও মাইজিপি অ্যাপেও টি২০ বিশ্বকাপ দেখাবে র‌্যাবিটহোল

ছবি

ড্যাফোডিল ইউনিভার্সিটিতে প্রবীণদের জন্য মোবাইল ব্যবহার প্রশিক্ষণ কর্মশালা

ছবি

সারা দেশে মোবাইলে ইন্টারনেট সেবা সচল

ছবি

বন্ধ মোবাইল ইন্টারনেট সেবা

ছবি

শিক্ষকদের প্রযুক্তি দক্ষতা উন্নয়নে ইয়ুথ হাবের প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত

ছবি

ফেসবুকের কালো তালিকাভুক্ত বাংলাদেশের ১ ব্যক্তিসহ ৬ জঙ্গি সংগঠন

ছবি

দ্বিতীয় বর্ষপূর্তি উপলক্ষে ডিজিটাল স্কলার এর বিশেষ অফার

ছবি

মেরেজ এন্ড ডিভোর্স রেজিস্ট্রেশন সিস্টেম শীঘ্রই উন্মুক্ত করা হচ্ছে: আইসিটি প্রতিমন্ত্রী পলক

ছবি

প্রধানমন্ত্রীর সততা, সাহস ও দূরদর্শিতার সুফল পাচ্ছে বাংলাদেশ: উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান

ছবি

ব্রডব্যান্ড সেবায় বিঘ্ন ঘটলে গ্রাহকদের বিলে ছাড়

ছবি

মুখ খুলেছেন জাকারবার্গ, কিন্তু এড়িয়ে গেছেন অনেক কথা

ছবি

৮ অক্টোবর থেকে অনুষ্ঠিত হবে ৩ দিনব্যাপী আন্তর্জাতিক ব্লকচেইন অলিম্পিয়াড ২০২১

ছবি

ঢাকায় অনুষ্ঠিত হবে ৪৫তম আন্তর্জাতিক কলেজিয়েট প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতা (আইসিপিসি)

ছবি

আন্তর্জাতিক ব্লকচেইন অলিম্পিয়াডের এবারের আয়োজক বাংলাদেশ

ছবি

ক্লিন ফিড না চালালে আগামীকাল থেকে মোবাইল কোর্ট: তথ্যমন্ত্রী

ছবি

বাংলাদেশে ‘মোবিকুইটি পে এক্স’ ডিজিটাল পেমেন্ট প্ল্যাটফর্ম চালু করলো কমভিভা

ছবি

৬ ঘণ্টার পর সচল হয়েছে ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ

ছবি

সারা বিশ্বে ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম ও হোয়াটসঅ্যাপ ‘ডাউন’

ছবি

আন্তর্জাতিক ব্লকচেইন অলিম্পিয়াড ২০২১ আয়োজনে চলছে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি

ছবি

হুয়াওয়ে ক্লাউডে প্রথম ভার্চুয়াল মানুষ

ছবি

ডিআরইউতে একটি শেখ রাসেল আধুনিক ডিজিটাল ল্যাব গঠন করা হবে: আইসিটি প্রতিমন্ত্রী পলক

ছবি

বাংলাদেশকে উন্নয়নের রোল মডেলে পরিণত করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা: আইসিটি প্রতিমন্ত্রী পলক

ছবি

শেষ হলো ৪র্থ বাংলাদেশ রোবট অলিম্পিয়াড

ছবি

কাওরান বাজারে আরো একটি সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্ক স্থাপন করা হবে: আইসিটি প্রতিমন্ত্রী পলক

ছবি

আইপি টিভির রেজিস্ট্রেশন দ্রুত দেওয়া হবে: তথ্যমন্ত্রী

ছবি

ইন্টারনেটে মতপ্রকাশের সূচকে আরও পেছাল বাংলাদেশ

ছবি

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের সম্প্রচার কার্যক্রমে বিঘ্ন ঘটতে পারে

ছবি

‘দি কান্ট্রি দ্যাট লিভড-ফিফটি ইয়ার্স অব ফ্রিডম অ্যান্ড দ্য কনসার্ট ফর বাংলাদেশ’ কফি টেবিল বুক’ হিসেবে প্রকাশ করলো আইসিটি বিভাগ

ছবি

১৮ তম আন্তর্জাতিক জুনিয়র সায়েন্স অলিম্পিয়াডের জন্য বাংলাদেশ দল ঘোষণা

ছবি

বেসিস এর ২২তম বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত

tab

প্রযুক্তি

ফোনে রিবুট করার মাধ্যমে হ্যাকিং কমানো সম্ভব

শুক্রবার, ০৬ আগস্ট ২০২১

বিশ্বব্যাপী ডিজিটাল নিরাপত্তা নিয়ে যখন সর্বত্র আলোচনা চলছে তখন কম্পিউটার ঠিক করার সবচেয়ে পুরনো ও সহজ উপায়,অর্থাৎ ডিভাইসটি বন্ধ করা এবং চালু করা হ্যাকারদেরকে স্মার্টফোনের তথ্য চুরির প্রয়াস ব্যর্থ করে দিতে পারে।

সেনেট গোয়েন্দা কমিটির সদস্য হবার কারণে সেনেটর অ্যাঙ্গাস কিং-এর হ্যাকারদের নিয়ে চিন্তিত হবার যৌক্তিক কারণ রয়েছে। তিনি জানান এ বছর নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের এক ব্রিফিং-এ সেলফোন কিভাবে নিরাপদ রাখা যায় তা নিয়ে তিনি কিছু পরামর্শ পেয়েছেন।

প্রথম ধাপঃ ফোন বন্ধ করা

দ্বিতীয় ধাপঃ ফোন খোলা

ব্যাস! ডিজিটাল নিরাপত্তা নিয়ে যখন সর্বত্র আলোচনা চলছে তখন কম্পিউটার ঠিক করার সবচেয়ে পুরনো ও সহজ উপায়,অর্থাৎ ডিভাইসটি বন্ধ করা এবং চালু করা হ্যাকারদেরকে স্মার্টফোনের তথ্য চুরির প্রয়াস ব্যর্থ করে দিতে পারে।

নিয়মিতভাবে স্মার্টফোন খোলা ও বন্ধ করার মাধ্যমে সাইবার অপরাধীদের কিংবা ভাড়া করা গোয়েন্দা ফার্ম, যারা ডিজিটাল বিশ্বে তথ্য নিরাপদ ও ব্যক্তিগত রাখার জন্যে হুমকি হয়ে উঠেছে, তাদেরকে থামাতে না পারলেও দক্ষ হ্যাকারদেরকে অন্য কারও ফোনের মধ্যে ঢোকা ও তথ্য চুরির প্রচেষ্টাকে কঠিন করে তুলবে।

জাতীয় নিরাপত্তা সংস্থার সাইবার অপরাধ বিভাগের টেকনিক্যাল ডিরেক্টর নীল জায়ারিং এর মতে, “এটা মূলত ঐ বাজে লোকগুলোর জন্যে তাদের কাজের খরচ বাড়িয়ে তোলা”।

জাতীয় নিরাপত্তা সংস্থা গত বছর মোবাইল ডিভাইস নিরাপত্তার একটি নীতিমালা প্রণয়ন করেছে যাতে হ্যাকিং বন্ধ করার একটি উপায় হিসাবে সপ্তাহে একবার ফোন রিবুট করার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

মেইনের স্বতন্ত্র সেনেটর কিং বলেন, ফোন রিবুট করা এখন তাঁর রুটিনের অংশ হয়ে উঠেছে, তিনি বলেন “আমি বলবো সম্ভবত সপ্তাহে একবার, যখনই মনে হয় রিবুট করি”।

ফোন সাধারণত সর্বদাই মানুষের হাতের কাছে থাকে। ফোনের মধ্যে থাকে প্রচুর ব্যক্তিগত ও স্পর্শকাতর ডেটা। আর সেলফোন হ্যাকারদের শীর্ষ লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত হয় সেসব। তারা ব্যবহারকারির তথ্য চুরির লক্ষ্যে তার টেক্সট ম্যাসেজ,কন্টাক্টস এবং ফটো, অবস্থান জেনে নেয়, এমনকি গোপনে তার ভিডিও ও মাইক্রোফোন পর্যন্ত চালু করে ফেলে।

নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ ও জাতীয় নিরাপত্তা সংস্থার সাবেক গবেষক প্যাট্রিক ওয়ার্ডলের মতে, “ফোনকে আমি মনে করি আমাদের ডিজিটাল আত্মার মতো”।

প্রতি বছর কি পরিমাণ লোকের ফোন হ্যাক হয় তার কোন সঠিক হিসাব্ নেই, তবে তথ্য প্রমাণে বোঝা যায় এই সংখ্যা উল্লেখযোগ্য।

ফোন হ্যাকিং নিয়ে সাম্প্রতিককালে এক আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম কনসোর্টিয়ামের তদন্তের ফলাফল নিয়ে ফ্রান্স, ভারত,হাঙ্গেরি ও অন্যান্য বিভিন্ন স্থানে রাজনৈতিক হৈ চৈ পড়ে গেছে। এতে গবেষকরা দেখেছেন বিপুল সংখ্যক সাংবাদিক,মানবাধিকার কর্মী এবং রাজনীতিবিদ একটি ইসরাইলী হ্যাকিং কোম্পানির সম্ভাব্য তালিকায় ছিলেন।

জায়ারিং বলছেন, সাধারণত হ্যাকার যখন কোন ডিভাইস বা নেটওয়ার্কে ঢোকার সুযোগ পায়, তারা পথ খোঁজে কিভাবে দুষিত সফটওয়্যার দিয়ে কম্পিউটারের মূল ফাইল সিস্টেম নষ্ট করে তার দখল নেয়া যায়। তবে অ্যাপল এবং গুগলের মতো ফোন প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠানগুলো এসব ম্যালওয়্যার থেকে দূরে থাকার জন্যে অপারেটিং সিস্টেম অনেক শক্তিশালী নিরাপত্তা বেষ্টনী দিয়ে তৈরি করছে।

তিনি বলেন, “হ্যাকারের জন্যে সেই বেষ্টনী ভাঙ্গা কঠিন হয় এবং ফোনে ঢোকাও কঠিন হয়ে পড়ে”।

এর ফলে হ্যাকাররা অন্য পথ খোঁজে। ‘ইন-মেমোরি পে লোডস’ শনাক্ত করে তারা প্রেরণকারীকে অনুসরণ করে। রিবুটিং এ ধরণের হ্যাকিং নস্যাৎ করে দেয়। তবে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে তা হয় না, কারণ মানুষ কালে ভদ্রে তাদের ফোন বন্ধ করেন।

বিশেষজ্ঞ ওয়ার্ডলের মতে, “যদি কোনো উপায়ে তারা মাত্র একবারের জন্যে আপনার ডিভাইসে ঢুকতে পারে, চ্যাট ম্যাসেজ পড়তে পারে, কন্টাক্ট ও পাসওয়ার্ড জেনে নিতে পারে, তাহলেতো খেলা প্রায় শেষ তাই না ?”

বর্তমানে ফোন হ্যাকিং টুলস এর একটি শক্তিশালী বাজার সৃষ্টি হয়েছে। জিরোডিয়াম এবং ক্রাউডফেন্সের মতো কোম্পানিগুলো জিরো-ক্লিক হ্যাকিং টুলস এর জন্য প্রকাশ্যে লক্ষ লক্ষ ডলার দেবার প্রস্তাব করছে।

সাম্প্রতিক সময়ে টাকা নিয়ে কাজ করার মতো প্রচুর হ্যাকার কোম্পানি প্রতিষ্ঠিত হয়েছে, যারা সরকার ও আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে মোবাইল ডিভাইসের হ্যাকিং টুল সরবরাহ করে। সবচেয়ে বেশি পরিচিতি পেয়েছে ইসরাইলভিত্তিক এনএসও (NSO) গ্রুপ। গবেষকরা বলছেন বিশ্বব্যাপী মানবাধিকার কর্মী, সাংবাদিক, এমনকি ক্যাথলিক পাদ্রিদের ফোন হ্যাকিং করা হচ্ছে তাদের স্পাইওয়্যার দিয়ে।

সম্প্রতি একটি গণমাধ্যমে NSO গ্রুপের হ্যাকিং টুল পেগাসাস নিয়ে রিপোর্ট এসেছে। ওয়াশিংটন পোষ্টের খবরে বলা হয়, পেগাসাস ব্যবহার করে ৩৭টি ঘটনায় ব্যবসায়ী, মানবাধিকার কর্মী এবং অন্যান্যদের ফোন সফলভাবে হ্যাকিং অথবা হ্যাকিং এর চেষ্টা করা হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রে ফেসবুক এই কোম্পানির বিরুদ্ধে মামলা করেছে। বলা হচ্ছে, তারা জিরোক্লিকের মাধ্যমে ফেসবুকের ১৪০০ ক্লায়ান্টের হোয়াটস অ্যাপের ব্যক্তিগত মেসেজ টার্গেট করেছিল।

NSO গ্রুপ বলছে তারা শুধুমাত্র পরীক্ষিত সরকারি সংস্থার কাছে তাদের স্পাইওয়্যার বিক্রি করে, সন্ত্রাসী বা বড়ো অপরাধিদের বিরুদ্ধে ব্যবহারের লক্ষ্যে। তবে মতামতের জন্যে অনুরোধ করা হলে কোম্পানিটির পক্ষ থেকে কোন মন্তব্য করা হয়নি।

NSO কোম্পানির স্পাইওয়্যার তার কার্যকারিতার জন্যে জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। ভাইস নিউজ বলছে, কয়েক বছর আগে ঐ কোম্পানির যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক অংশীদার, আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী সংস্থাকে একটি হ্যাকিং টুল দেয় যা ফোনের ফ্যাক্টরি রিসেটের পরও কাজ করে।

মার্কজ্যাক NSO গ্রুপের কর্মকান্ড গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করছেন কয়েক বছর ধরে। তার মতে, কোম্পানিটি প্রথমে জিরো-ক্লিক এক্সপ্লয়েট দিয়ে শুরু করে যা ২০১৯ পর্যন্ত সফলভাবে চলে।

হোয়াটস্যাপে যারা এতে ক্ষতির মুখে পড়েছিলেন তারা হ্যাকিং টুলটি তাদের ফোনে ঢোকার আগে প্রথমে কয়েকবার ইনকামিং কল পেতেন। ২০২০ সালে মার্কজ্যাক এবং সিটিজেন ল্যাব জিরো-ক্লিক দিয়ে NSO গ্রুপের আরেকটি হ্যাকিং প্রয়াস ধরে ফেলে যাতে আল জাজিরার কয়েকজন সাংবাদিককে টার্গেট করা হয়েছিল। তাতে হ্যাকাররা অ্যাপলের আই ম্যাসেজ টেক্সটিং সার্ভিস ব্যাবহার করে।

মার্কজ্যাক বলেন, “যাদের টার্গেট করা হয়েছিল তারা তাদের ফোনের স্ক্রিনে কিছুই দেখতে পাননি। সেটি ছিল সম্পূর্ণ অদৃশ্য এবং ব্যবহারকারিরা তাতে কোনভাবেই সম্পৃক্ত ছিলেন না”। মার্কজ্যাক বলেন, তাদের কাছে এতোটাই শক্তিশালী হ্যাকিং টুল আছে যা আপনার ফোন রিবুট করলেও কাজ হবে না। আপনি রিবুট করলে সে আরেকটি জিরো-ক্লিক পাঠিয়ে দেবে।

তিনি বলেন, “এটা একটু অন্য মডেলের টুল। অনেকটা বারবার সংক্রমণের মতো কাজ করে”।

back to top