alt

জাতীয়

‘এমন শাস্তি, যেন ভবিষ্যতে আর কেউ সাহস না পায়’

বাসস : বৃহস্পতিবার, ১৪ অক্টোবর ২০২১

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ উল্লেখ করে সবাইকে এক হয়ে চলার আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, পূজামন্ডপে অরাজকতা সৃষ্টিকারীদের তার সরকার আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করবে। সম্প্রতি কুমিল্লার পূজামন্ডপে সৃষ্ট গুজবকে কেন্দ্র করে মন্ডপ ভাঙচুর এবং অরাজকতা সৃষ্টির অপচেষ্টাকারীদের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যে ঘটনা ঘটেছে সঙ্গে সঙ্গেই আমরা ব্যবস্থা নিচ্ছি, সার্বক্ষণিকই আমরা যোগাযোগ রাখছিলাম। এ ব্যাপারে যথাযথ পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে এবং যেখানে যেখানে যারাই এ ধরনের কোন ঘটনা ঘটাবে সঙ্গে সঙ্গে তাদেরকে খুঁজে বের করা হবে। এটা আমরা অতীতেও করেছি এবং সেটা আমরা করতে পারব।’ প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যথাযথ শাস্তি তাদের দিতে হবে। মানে এমন শাস্তি, যেন ভবিষ্যতে আর কেউ সাহস না পায়, সেটাই আমরা চাই।’ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ বিকেলে শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে ঢাকেশ্বরী জাতীয় মন্দির কেন্দ্রীয় পূজামন্ডপে ভক্তদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময়কালে দেয়া ভাষণে এসব কথা বলেন।

তিনি গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ভার্চুয়ালি অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন।

তিনি একে ‘অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক’ আখ্যায়িত করে বলেন, কিছুদিন আগে কুমিল্লায় যে ঘটনা ঘটেছে, তার খুব ব্যাপকভাবেই তদন্ত হচ্ছে। অনেক তথ্য আমরা পাচ্ছি । অবশ্যই এ ধরনের ঘটনা যারা ঘটাবে তাদেরকে আমরা খুঁজে বের করবই এবং আমরা তা করতে পারব। কারণ এখন প্রযুক্তির যুগ। এটা বের করা যাবে এবং সে যেই হোক কেন, যে ধর্মেরই হোক না কেন, তার বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা অবশ্যই নেয়া হবে। আর আমরা তা করেছি এবং করব।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ যখন উন্নয়নের পথে দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে, সে সময় এই যাত্রাটাকে ব্যাহত করার এবং সঙ্গে সঙ্গে দেশের ভেতরে একটা সমস্যা সৃষ্টি করার এ ধরনের কিছু দুষ্ট লোক দেশে রয়ে গেছে, যারা জনগণের আস্থা ও বিশ্বাস অর্জন করতে পারে না। রাজনীতি নেই, কোন আদর্শ নেই। আসলে তারাই এ ধরনের কাজ করে। এটা তাদের এক ধরনের দুর্বলতা। কিন্তু এর বিরুদ্ধে যদি সবাই সচেতন থাকে, তাহলে এগুলো যেমন প্রতিরোধ করা যায় তেমনি এর বিরুদ্ধে অবশ্যই ব্যবস্থা নেয়া হবে এবং মহানগর পূজা কমিটির সভাপতির আশঙ্কা ব্যক্ত করার প্রসঙ্গ টেনে সবাইকে আশ্বস্ত করে তিনি বলেন, অবশ্যই এ ব্যাপারে আমরা জানি এবং যথাযথ ব্যবস্থা নিচ্ছি।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন, মহানগর সার্বজনীন পূজা কমিটির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট কিশোর রঞ্জন মন্ডল। শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন, বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি মিলন কান্তি দত্ত, রামকৃষ্ণ মঠ ও মিশন ঢাকার অধ্যক্ষ স্বামী পূর্ণাত্মানন্দ মহারাজ।

বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক নির্মল কুমার চ্যাটার্জীর সঞ্চালনায় এতে সভাপতিত্ব করেন, মহানগর সার্বজনীন পূজা কমিটির সভাপতি শৈলেন্দ্রনাথ মজুমদার।

জাতির পিতার রেখে যাওয়া অসাম্প্রদায়িক আদর্শ নিয়েই তার সরকার পথ চলবে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ একটা অসম্প্রদায়িক চেতনার দেশ। বাংলাদেশে সব ধর্ম, বর্ণের মানুষ সবাই একসঙ্গে বসবাস করবে এবং যার যার ধর্ম সে সে পালন করবে। অর্থাৎ ধর্ম যার যার কিন্তু উৎসব সবার। এটা বাংলাদেশে সব সময় ছিল এবং আছে যে প্রতিটি উৎসবের সময় সবাই একসঙ্গে সামিল হয়ে আনন্দ উপভোগ করে। কিন্তু, মাঝে মাঝে কিছু দুষ্ট চক্র কিছু ঘটনা ঘটিয়ে মানুষের ভেতরের এই চেতনাটাকে নষ্ট করতে চায়।

জাতির পিতা সাংবিধানিকভাবেই আমাদের যার যার ধর্ম স্বাধীনভাবে পালনের অধিকার নিশ্চিত করে যান উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী ১৯৭৪ সালের ১৫ ডিসেম্বর জাতির পিতার ভাষণের উদ্ধৃতি তুলে ধরে দেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বজায় রাখার আহ্বান পুনর্ব্যক্ত করেন। জাতির পিতা বলেছিলেন, ‘বাংলার মাটিতে সাম্প্রদায়িকতার স্থান নাই। মুসলমান, হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান বাংলাদেশে যারা বসবাস করেন, তারা সবাই এ দেশের নাগরিক। প্রতিটি ক্ষেত্রে তারা সমঅধিকার ভোগ করবে।’

বঙ্গবন্ধু কন্যা বলেন, ধর্ম যার যার রাষ্ট্র সবার- এই নীতিতেই আমরা বিশ্বাস করি। কাজেই আমরা সব সময় এটাই চেষ্টা করি যাতে প্রত্যেকেই নিজের ধর্মন্ডকর্ম স্বাধীনভাবে আনন্দের সঙ্গে উদযাপন ও পালন করতে পারেন। ’৭৫ এর পর যারা ক্ষমতায় এসেছিল, বিশেষ করে বিএনপি-জামায়াতের মাধ্যমেই এদেশে ধর্মের নামে বিভেদ সৃষ্টি বলেও প্রধানমন্ত্রী উল্লেখ করেন। প্রধানমন্ত্রী দেশ-বিদেশে অবস্থানকারী সব সনাতন ধর্মাবলম্বীদের শারদীয় দুর্গোৎসবের শুভেচ্ছা জানান এবং নিজেরা নিজেদেরকে যেন ক্ষুদ্র সম্প্রদায় বা সংখ্যালঘু না ভাবেন সে জন্য সনাতন ধর্মাবলম্বীদের প্রতি আহ্বান জানান।

সাম্প্রদায়িক হামলার ইন্ধনদাতাদের নাম শীঘ্রই প্রকাশ করা হবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ছবি

গেমিং শিল্প বিকাশে জাতীয় নীতিমালা দরকার

ছবি

গণটিকার দ্বিতীয় ডোজ বৃহস্পতিবার

ছবি

চীন থেকে এলো সিনোফার্মের আরও ২ লাখ টিকা

ছবি

ডেঙ্গুতে মৃত্যু ১, নতুন আক্রান্ত আরও ১৮২ জন

ছবি

করোনায় মৃত্যু আরও ৬, শনাক্ত ২৭৬

ছবি

গণমাধ্যমের ভূমিকা সমাজে ইতিবাচক পরিবর্তন আনতে পারে: স্পিকার

ছবি

ব্যবসায়িক যোগাযোগের সেতুবন্ধন গড়ে তুলবে বাংলাদেশ: প্রধানমন্ত্রী

ছবি

শিগগিরই পূজা মণ্ডপে হামলার ইন্ধনদাতাদের নাম প্রকাশ: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ছবি

চিকিৎসা গ্রহণের পর দেশে ফিরলেন রাষ্ট্রপতি

রপ্তানি করা যাবে বিদ্যুৎ বাধা সঞ্চালন লাইন

ছবি

বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও বিজয়ের সুবর্ণজয়ন্তীর অনুষ্ঠান সংক্রান্ত সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত

ছবি

একদিনে ডেঙ্গু আক্রান্ত আরও ১৯০ জন

ছবি

করোনায় মৃত্যু কমে ৫, শনাক্তের হার ১.৩৯

ছবি

২২ দিন পর শুরু হচ্ছে ইলিশ ধরা

ছবি

স্বপ্নের পায়রা সেতু খুলে দেয়া হলো

ছবি

দেশের ভাবমূর্তি ক্ষতিগ্রস্তকারীদের সম্পর্কে সচেতন হতে হবে : প্রধানমন্ত্রী

ছবি

ডেঙ্গুতে মৃত্যু ১, নতুন আক্রান্ত আরও ১৭৯ জন

ছবি

করোনায় মৃত্যু আরও ৯, শনাক্তের হার কমে ১.৪৯

ছবি

করোনা টিকা ছাড়াই আসা যাবে বাংলাদেশে

ছবি

সংখ্যালঘু সুরক্ষা আইন বিষয়ে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে

ছবি

পায়রা সেতু : খুলে গেলো দক্ষিণাঞ্চলের যোগােযোগের নতুন দ্বার

ছবি

আসুন জাতিসংঘকে আমাদের আশার বাতিঘর বানাই: প্রধানমন্ত্রী

‘সাম্প্রদায়িক হামলার পেছনে কিছু অপশক্তি জড়িত’

ছবি

ডেঙ্গুতে মৃত্যু আরও ২, একদিনে নতুন আক্রান্ত ১৮৯

ছবি

হিন্দু সম্প্রদায়ের উপর হামলায় ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে দাঁড়িয়েছে সরকার: স্পিকার

ছবি

সাম্প্র্রদায়িক হামলার প্রতিবাদে গণঅনশন-বিক্ষোভ

ছবি

করোনায় আরও মৃত্যু ৯, শনাক্তের হার ১.৮৫

ছবি

কবি শামসুর রাহমানের জন্মদিন আজ

ছবি

সম্প্রদায়িক সহিংসতা : মামলা ১০২, অভিযুক্ত ২০,৬১৯, গ্রেপ্তার ৫৮৪

ছবি

১১ বছর বয়সী শিশুদেহে ফাইজারের টিকার ‘কার্যকারিতা ৯০.৭%’

ছবি

করোনায় দেড় বছরে সর্বনিম্ন ৪ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২৩২ জন

ছবি

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি আরও ১২৩ জন

ছবি

কক্সবাজারে আটক ইকবালই প্রকৃত ইকবাল : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ছবি

কুমিল্লার ঘটনা দুঃখজনক, অপরাধী যেই হোক বিচার হবেই : প্রধানমন্ত্রী

ছবি

ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন হবে সন্ত্রাসমুক্ত ও প্রতিযোগিতামূলক: মাগুরায় সিইসি

tab

জাতীয়

‘এমন শাস্তি, যেন ভবিষ্যতে আর কেউ সাহস না পায়’

বাসস

বৃহস্পতিবার, ১৪ অক্টোবর ২০২১

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ উল্লেখ করে সবাইকে এক হয়ে চলার আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, পূজামন্ডপে অরাজকতা সৃষ্টিকারীদের তার সরকার আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করবে। সম্প্রতি কুমিল্লার পূজামন্ডপে সৃষ্ট গুজবকে কেন্দ্র করে মন্ডপ ভাঙচুর এবং অরাজকতা সৃষ্টির অপচেষ্টাকারীদের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যে ঘটনা ঘটেছে সঙ্গে সঙ্গেই আমরা ব্যবস্থা নিচ্ছি, সার্বক্ষণিকই আমরা যোগাযোগ রাখছিলাম। এ ব্যাপারে যথাযথ পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে এবং যেখানে যেখানে যারাই এ ধরনের কোন ঘটনা ঘটাবে সঙ্গে সঙ্গে তাদেরকে খুঁজে বের করা হবে। এটা আমরা অতীতেও করেছি এবং সেটা আমরা করতে পারব।’ প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যথাযথ শাস্তি তাদের দিতে হবে। মানে এমন শাস্তি, যেন ভবিষ্যতে আর কেউ সাহস না পায়, সেটাই আমরা চাই।’ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ বিকেলে শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে ঢাকেশ্বরী জাতীয় মন্দির কেন্দ্রীয় পূজামন্ডপে ভক্তদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময়কালে দেয়া ভাষণে এসব কথা বলেন।

তিনি গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ভার্চুয়ালি অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন।

তিনি একে ‘অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক’ আখ্যায়িত করে বলেন, কিছুদিন আগে কুমিল্লায় যে ঘটনা ঘটেছে, তার খুব ব্যাপকভাবেই তদন্ত হচ্ছে। অনেক তথ্য আমরা পাচ্ছি । অবশ্যই এ ধরনের ঘটনা যারা ঘটাবে তাদেরকে আমরা খুঁজে বের করবই এবং আমরা তা করতে পারব। কারণ এখন প্রযুক্তির যুগ। এটা বের করা যাবে এবং সে যেই হোক কেন, যে ধর্মেরই হোক না কেন, তার বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা অবশ্যই নেয়া হবে। আর আমরা তা করেছি এবং করব।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ যখন উন্নয়নের পথে দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে, সে সময় এই যাত্রাটাকে ব্যাহত করার এবং সঙ্গে সঙ্গে দেশের ভেতরে একটা সমস্যা সৃষ্টি করার এ ধরনের কিছু দুষ্ট লোক দেশে রয়ে গেছে, যারা জনগণের আস্থা ও বিশ্বাস অর্জন করতে পারে না। রাজনীতি নেই, কোন আদর্শ নেই। আসলে তারাই এ ধরনের কাজ করে। এটা তাদের এক ধরনের দুর্বলতা। কিন্তু এর বিরুদ্ধে যদি সবাই সচেতন থাকে, তাহলে এগুলো যেমন প্রতিরোধ করা যায় তেমনি এর বিরুদ্ধে অবশ্যই ব্যবস্থা নেয়া হবে এবং মহানগর পূজা কমিটির সভাপতির আশঙ্কা ব্যক্ত করার প্রসঙ্গ টেনে সবাইকে আশ্বস্ত করে তিনি বলেন, অবশ্যই এ ব্যাপারে আমরা জানি এবং যথাযথ ব্যবস্থা নিচ্ছি।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন, মহানগর সার্বজনীন পূজা কমিটির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট কিশোর রঞ্জন মন্ডল। শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন, বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি মিলন কান্তি দত্ত, রামকৃষ্ণ মঠ ও মিশন ঢাকার অধ্যক্ষ স্বামী পূর্ণাত্মানন্দ মহারাজ।

বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক নির্মল কুমার চ্যাটার্জীর সঞ্চালনায় এতে সভাপতিত্ব করেন, মহানগর সার্বজনীন পূজা কমিটির সভাপতি শৈলেন্দ্রনাথ মজুমদার।

জাতির পিতার রেখে যাওয়া অসাম্প্রদায়িক আদর্শ নিয়েই তার সরকার পথ চলবে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ একটা অসম্প্রদায়িক চেতনার দেশ। বাংলাদেশে সব ধর্ম, বর্ণের মানুষ সবাই একসঙ্গে বসবাস করবে এবং যার যার ধর্ম সে সে পালন করবে। অর্থাৎ ধর্ম যার যার কিন্তু উৎসব সবার। এটা বাংলাদেশে সব সময় ছিল এবং আছে যে প্রতিটি উৎসবের সময় সবাই একসঙ্গে সামিল হয়ে আনন্দ উপভোগ করে। কিন্তু, মাঝে মাঝে কিছু দুষ্ট চক্র কিছু ঘটনা ঘটিয়ে মানুষের ভেতরের এই চেতনাটাকে নষ্ট করতে চায়।

জাতির পিতা সাংবিধানিকভাবেই আমাদের যার যার ধর্ম স্বাধীনভাবে পালনের অধিকার নিশ্চিত করে যান উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী ১৯৭৪ সালের ১৫ ডিসেম্বর জাতির পিতার ভাষণের উদ্ধৃতি তুলে ধরে দেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বজায় রাখার আহ্বান পুনর্ব্যক্ত করেন। জাতির পিতা বলেছিলেন, ‘বাংলার মাটিতে সাম্প্রদায়িকতার স্থান নাই। মুসলমান, হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান বাংলাদেশে যারা বসবাস করেন, তারা সবাই এ দেশের নাগরিক। প্রতিটি ক্ষেত্রে তারা সমঅধিকার ভোগ করবে।’

বঙ্গবন্ধু কন্যা বলেন, ধর্ম যার যার রাষ্ট্র সবার- এই নীতিতেই আমরা বিশ্বাস করি। কাজেই আমরা সব সময় এটাই চেষ্টা করি যাতে প্রত্যেকেই নিজের ধর্মন্ডকর্ম স্বাধীনভাবে আনন্দের সঙ্গে উদযাপন ও পালন করতে পারেন। ’৭৫ এর পর যারা ক্ষমতায় এসেছিল, বিশেষ করে বিএনপি-জামায়াতের মাধ্যমেই এদেশে ধর্মের নামে বিভেদ সৃষ্টি বলেও প্রধানমন্ত্রী উল্লেখ করেন। প্রধানমন্ত্রী দেশ-বিদেশে অবস্থানকারী সব সনাতন ধর্মাবলম্বীদের শারদীয় দুর্গোৎসবের শুভেচ্ছা জানান এবং নিজেরা নিজেদেরকে যেন ক্ষুদ্র সম্প্রদায় বা সংখ্যালঘু না ভাবেন সে জন্য সনাতন ধর্মাবলম্বীদের প্রতি আহ্বান জানান।

back to top