alt

জাতীয়

করোনা প্রতিরোধে

রেড জোনে ‘লকডাউন’ আগামী সপ্তাহে

সবচেয়ে খারাপ অবস্থা ঢাকার

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক : শুক্রবার, ০৫ জুন ২০২০
image

ফাইল ছবি

দেশের বড় শহরগুলোর যেসব এলাকায় করোনায় আক্রান্ত রোগী সবচেয়ে বেশি সেসব এলাকাকে লকডাউন করার মাধ্যমে নতুন পদক্ষেপে যাচ্ছে সরকার। আগামী সপ্তাহ থেকেই এটি কার্যকরে চিন্তাভাবনা চলছে। এরই মধ্যে পুরো দেশের ইউনিয়ন পর্যন্ত ম্যাপিং করে দিয়েছে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ। বিশেষজ্ঞ কমিটি প্রতিদিন শনাক্ত হওয়া রোগীদের মোবাইল নম্বর ব্যবহার করে সফটওয়্যারের মাধ্যমে সারা দেশের চিত্র দেখতে পারছে। এখান থেকে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত এলাকাগুলোকে লকডাউন ঘোষণা করা হবে।

একটি এলাকার কত বর্গকিলোমিটার জায়গায় কতজন করোনায় আক্রান্ত হলে সেটি রেড, ইয়েলো ও গ্রিন জোন হিসেবে চিহ্নিত হবে, সেই মানদণ্ড ঠিক করছেন বিশেষজ্ঞরা। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বলছে, বর্তমানে দেশের বেশির ভাগ এলাকাই ‘গ্রিন’ আছে। তাই প্রথমে বড় কয়েকটি শহরের সবচেয়ে বেশি করোনায় আক্রান্ত রোগীর এলাকাকে রেড জোন ঘোষণা দিয়ে লকডাউন কার্যকর করা হবে।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ও মন্ত্রণালয়ের মিডিয়া সেলের দায়িত্বপ্রাপ্ত হাবিবুর রহমান খান গতকাল বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের বলেন, ‘কতটুকু এলাকায় কতজন শনাক্ত হলে রেড জোন ঘোষণা করা হবে, সেটি নির্ধারণে কাজ করছে বিশেষজ্ঞ কমিটি। তারা এ বিষয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখছে।’

মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন, কানাডাসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে থাকা বাংলাদেশি অধ্যাপক, মহামারি ও জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ নিয়ে সারা দেশকে জোন বা এলাকাভিত্তিক ভাগ করার মাধ্যমে করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণ পরিকল্পনার ছক চূড়ান্ত হচ্ছে। দেশের বাইরের এমন ২৫ জন বিশেষজ্ঞ দেশের বিশেষজ্ঞ কমিটিকে সহযোগিতা করছেন বলে সূত্র জানিয়েছে।

যা থাকছে জোনভিত্তিক পদক্ষেপে

কড়া লকডাউনের মাধ্যমে চেষ্টা থাকবে রেড জোনের রোগীর সংখ্যা যাতে কোনোভাবেই না বাড়ে এবং পর্যায়ক্রমে ইয়েলো জোনে পরিণত হয়ে শেষে গ্রিন জোন হয়। অন্যদিকে ইয়েলো জোনের চিত্র যাতে রেড জোনে পরিণত না হয় এবং গ্রিন জোনকে যেন গ্রিনই রাখা যায়, তা নিশ্চিত করা। এর মধ্যে রেড জোনের বাসিন্দাদের অত্যন্ত কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ করা হবে। শুধু জীবনধারণের জন্য নিত্যপ্রয়োজনীয় সহায়তা ছাড়া আর কিছু এই এলাকার মানুষের কাছে পৌঁছবে না। এখানকার কাউকে বাইরে বের হতে দেওয়া হবে না। ইয়েলো জোনে থাকবে কড়া সতর্কতা। বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া কাউকে বাইরে বের হতে দেওয়া হবে না। প্রতিদিনই দেশের সব এলাকার চিত্র পর্যালোচনা করে রোগী বাড়ছে না কমছে, তা বের করে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হবে। আর গ্রিন জোনের চলাচলে তেমন কড়াকড়ি না থাকলেও স্বাস্থ্যবিধি মানতে সবাইকে বাধ্য করা হবে।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেন, ‘সরকার সহজে আবারও সাধারণ ছুটিতে ফিরতে চায় না। অর্থনৈতিক কার্যক্রম সীমিত আকারে চালাতেই হবে।’ তিনি বলেন, ‘বিশেষজ্ঞ কমিটির কাছ থেকে জোনভিত্তিক পদক্ষেপ নেওয়ার সুপারিশ পেলেই আমরা মাঠ প্রশাসনকে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা পাঠিয়ে দেব। বিশেষজ্ঞ কমিটি আজ (গতকাল বৃহস্পতিবার) পর্যন্ত সময় নিয়েছে। আশা করছি, আগামী সপ্তাহের মাঝামাঝি সময়ের মধ্যে জোনভিত্তিক পদক্ষেপের সিদ্ধান্ত নেওয়া সম্ভব হবে।’

গত ২৬ মার্চ থেকে টানা ৩০ মে পর্যন্ত সাধারণ ছুটির পর ৩১ মে থেকে সীমিত পরিসরে দেশব্যাপী সব কার্যক্রম পরিচালনার সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। সরকারি-বেসরকারি সব অফিস-আদালতসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে গণপরিবহন চালানোর চেষ্টা চলছে। সীমিত কার্যক্রম পরিচালনার এক সপ্তাহের কার্যদিবস শেষ হলো গতকাল। এ সময়ে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে কভিড-১৯ রোগী ও মৃতের সংখ্যা। সবচেয়ে খারাপ অবস্থা ঢাকার এর পর গাজীপুর, নারায়ণগঞ্জ ও চট্টগ্রামের। এরই মধ্যে গত সোমবার মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে উল্লিখিত পাঁচ সিটি করপোরেশনের মেয়রদের নিয়ে তিন মন্ত্রীসহ ঊর্ধ্বতন সরকারি কর্মকর্তারা বৈঠক করে সারা দেশকে জোনভিত্তিক ভাগ করার সিদ্ধান্ত নেন।

ছবি

বইয়ের জগৎ থেকে হারিয়ে যাচ্ছে শিক্ষার্থীরা

ছবি

‘করোনার চেয়ে নির্বাচন বেশি গুরুত্বপূর্ণ’

ছবি

‘সিনোফার্মের টিকা কিনতে চীনের সঙ্গে চুক্তি সম্পন্ন’

ছবি

এবারও বাংলাদেশ থেকে হজে যাওয়া হচ্ছে না

ছবি

দেশে করোনায় আরও ৩৯ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ১৬৩৭

ছবি

উত্তাল সাগর, চার সমুদ্র বন্দরে ৩ নম্বর সতর্কতা

ছবি

তিন আসনের উপনির্বাচনে আ’লীগের মনোনয়ন পেলেন যারা

ছবি

এ বছর চার মাসে বজ্রপাতে ১৭৭ জনের মৃত্যু

ছবি

চাঁদ দেখা যায়নি, রোববার থেকে জিলকদ মাস শুরু

ছবি

দেশে করোনায় মৃত্যু ১৩ হাজার ছাড়াল

ছবি

রাজধানীসহ সারাদেশে দিনভর থেমে থেমে বৃষ্টির সম্ভাবনা

ছবি

১০ লাখের বেশি টিকা দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র: ড. মোমেন

ছবি

করোনার ভুয়া রিপোর্ট ঠেকাতে বিদেশগামীদের নতুন নির্দেশনা

ছবি

স্টিমকার গেমিং অ্যাপে জুয়া, আড্ডা ও টাকা পাচার

ছবি

স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীতে ঘুরবে ‘বিশ্ব’ বাংলাদেশ

ছবি

বিদ্যুৎ ও জ্বালানি বিভাগের ২২ কোটি ২৫ লাখ টাকা অনুদান

ছবি

নতুন সেনাপ্রধান এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ

ছবি

অগ্নিকাণ্ডে দক্ষিণ আফ্রিকায় দুই বাংলাদেশি পরিবারের ৬ জন নিহত

ছবি

দেশে করোনায় মৃত্যু ৪০, শনাক্ত আড়াই হাজারের বেশি

ছবি

সবাই বলে টিকা দেবে, কবে দেবে বলে না : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ছবি

সরকারি তথ্যে গোপনীয়তায় গণমাধ্যমকে সম্মান দেখানোর আহ্বান

ছবি

সন্ত্রাস,জঙ্গিবাদ, ও মানুষ হত্যা করে কেউ বেহেশতে যাবে না :প্রধানমন্ত্রী

ছবি

একযোগে ৫০টি মডেল মসজিদ উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

ছবি

১৪০টি দেশের মধ্যে অবস্থান ১৩৭

ছবি

বেঁধে দেয়া দামে এলপি গ্যাস বিক্রিতে অনাগ্রহী ব্যবসায়ীরা

ছবি

দেশে করোনায় আরও ৩৬ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২৫৩৭

ছবি

করোনায় বাহরাইনে ৭০ বাংলাদেশির মৃত্যু

ছবি

আবেদনের এক সপ্তাহের মধ্যে কোয়ারেন্টিন ভর্তুকির টাকা হাতে পাবেন সৌদি প্রবাসীরা

যুক্তরাষ্ট্র যাচ্ছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ছবি

অর্ধশত মডেল মসজিদের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

ছবি

নৌবাহিনী প্রধানের সাথে বিমান বাহিনীর প্রধানের বিদায়ী সাক্ষাৎ

ছবি

দেশে করোনায় এক মাসে সর্বোচ্চ মৃত্যু ও শনাক্ত

ছবি

জুনের প্রথম সপ্তাহে বজ্রপাতে প্রাণ হারালো ৫৬ জন

ছবি

দেশে ভ্যাকসিনের কোনো সংকট হবে না

ছবি

জাতিসংঘের সহ-সভাপতি নির্বাচিত বাংলাদেশ

ছবি

কাউন্টারে ট্রেনের টিকিট বিক্রি শুরু

tab

জাতীয়

করোনা প্রতিরোধে

রেড জোনে ‘লকডাউন’ আগামী সপ্তাহে

সবচেয়ে খারাপ অবস্থা ঢাকার

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক
image

ফাইল ছবি

শুক্রবার, ০৫ জুন ২০২০

দেশের বড় শহরগুলোর যেসব এলাকায় করোনায় আক্রান্ত রোগী সবচেয়ে বেশি সেসব এলাকাকে লকডাউন করার মাধ্যমে নতুন পদক্ষেপে যাচ্ছে সরকার। আগামী সপ্তাহ থেকেই এটি কার্যকরে চিন্তাভাবনা চলছে। এরই মধ্যে পুরো দেশের ইউনিয়ন পর্যন্ত ম্যাপিং করে দিয়েছে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ। বিশেষজ্ঞ কমিটি প্রতিদিন শনাক্ত হওয়া রোগীদের মোবাইল নম্বর ব্যবহার করে সফটওয়্যারের মাধ্যমে সারা দেশের চিত্র দেখতে পারছে। এখান থেকে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত এলাকাগুলোকে লকডাউন ঘোষণা করা হবে।

একটি এলাকার কত বর্গকিলোমিটার জায়গায় কতজন করোনায় আক্রান্ত হলে সেটি রেড, ইয়েলো ও গ্রিন জোন হিসেবে চিহ্নিত হবে, সেই মানদণ্ড ঠিক করছেন বিশেষজ্ঞরা। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বলছে, বর্তমানে দেশের বেশির ভাগ এলাকাই ‘গ্রিন’ আছে। তাই প্রথমে বড় কয়েকটি শহরের সবচেয়ে বেশি করোনায় আক্রান্ত রোগীর এলাকাকে রেড জোন ঘোষণা দিয়ে লকডাউন কার্যকর করা হবে।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ও মন্ত্রণালয়ের মিডিয়া সেলের দায়িত্বপ্রাপ্ত হাবিবুর রহমান খান গতকাল বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের বলেন, ‘কতটুকু এলাকায় কতজন শনাক্ত হলে রেড জোন ঘোষণা করা হবে, সেটি নির্ধারণে কাজ করছে বিশেষজ্ঞ কমিটি। তারা এ বিষয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখছে।’

মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন, কানাডাসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে থাকা বাংলাদেশি অধ্যাপক, মহামারি ও জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ নিয়ে সারা দেশকে জোন বা এলাকাভিত্তিক ভাগ করার মাধ্যমে করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণ পরিকল্পনার ছক চূড়ান্ত হচ্ছে। দেশের বাইরের এমন ২৫ জন বিশেষজ্ঞ দেশের বিশেষজ্ঞ কমিটিকে সহযোগিতা করছেন বলে সূত্র জানিয়েছে।

যা থাকছে জোনভিত্তিক পদক্ষেপে

কড়া লকডাউনের মাধ্যমে চেষ্টা থাকবে রেড জোনের রোগীর সংখ্যা যাতে কোনোভাবেই না বাড়ে এবং পর্যায়ক্রমে ইয়েলো জোনে পরিণত হয়ে শেষে গ্রিন জোন হয়। অন্যদিকে ইয়েলো জোনের চিত্র যাতে রেড জোনে পরিণত না হয় এবং গ্রিন জোনকে যেন গ্রিনই রাখা যায়, তা নিশ্চিত করা। এর মধ্যে রেড জোনের বাসিন্দাদের অত্যন্ত কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ করা হবে। শুধু জীবনধারণের জন্য নিত্যপ্রয়োজনীয় সহায়তা ছাড়া আর কিছু এই এলাকার মানুষের কাছে পৌঁছবে না। এখানকার কাউকে বাইরে বের হতে দেওয়া হবে না। ইয়েলো জোনে থাকবে কড়া সতর্কতা। বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া কাউকে বাইরে বের হতে দেওয়া হবে না। প্রতিদিনই দেশের সব এলাকার চিত্র পর্যালোচনা করে রোগী বাড়ছে না কমছে, তা বের করে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হবে। আর গ্রিন জোনের চলাচলে তেমন কড়াকড়ি না থাকলেও স্বাস্থ্যবিধি মানতে সবাইকে বাধ্য করা হবে।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেন, ‘সরকার সহজে আবারও সাধারণ ছুটিতে ফিরতে চায় না। অর্থনৈতিক কার্যক্রম সীমিত আকারে চালাতেই হবে।’ তিনি বলেন, ‘বিশেষজ্ঞ কমিটির কাছ থেকে জোনভিত্তিক পদক্ষেপ নেওয়ার সুপারিশ পেলেই আমরা মাঠ প্রশাসনকে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা পাঠিয়ে দেব। বিশেষজ্ঞ কমিটি আজ (গতকাল বৃহস্পতিবার) পর্যন্ত সময় নিয়েছে। আশা করছি, আগামী সপ্তাহের মাঝামাঝি সময়ের মধ্যে জোনভিত্তিক পদক্ষেপের সিদ্ধান্ত নেওয়া সম্ভব হবে।’

গত ২৬ মার্চ থেকে টানা ৩০ মে পর্যন্ত সাধারণ ছুটির পর ৩১ মে থেকে সীমিত পরিসরে দেশব্যাপী সব কার্যক্রম পরিচালনার সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। সরকারি-বেসরকারি সব অফিস-আদালতসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে গণপরিবহন চালানোর চেষ্টা চলছে। সীমিত কার্যক্রম পরিচালনার এক সপ্তাহের কার্যদিবস শেষ হলো গতকাল। এ সময়ে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে কভিড-১৯ রোগী ও মৃতের সংখ্যা। সবচেয়ে খারাপ অবস্থা ঢাকার এর পর গাজীপুর, নারায়ণগঞ্জ ও চট্টগ্রামের। এরই মধ্যে গত সোমবার মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে উল্লিখিত পাঁচ সিটি করপোরেশনের মেয়রদের নিয়ে তিন মন্ত্রীসহ ঊর্ধ্বতন সরকারি কর্মকর্তারা বৈঠক করে সারা দেশকে জোনভিত্তিক ভাগ করার সিদ্ধান্ত নেন।

back to top