alt

রাজনীতি

স্বাস্থ্যমন্ত্রীর ‘লজ্জা-শরম’ বলতে কিছু নেই : মির্জা ফখরুল

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : রোববার, ০৪ জুলাই ২০২১

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেকের ‘লজ্জা-শরম’ বলতে কিছু নেই বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। রোববার (৪ জুলাই) বিএনপি সমর্থিত ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের ‘মহান স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী : গণমাধ্যমের প্রত্যাশা ও প্রাপ্তি’ শীর্ষক ভার্চুয়াল আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে তিনি এসব কথা বলেন।

জাতীয় সংসদে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেকের বিরুদ্ধে সরকারি ও বিরোধী দলের সদস্যদের বক্তব্যের প্রসঙ্গ টেনে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, স্বাস্থ্যমন্ত্রী একজন নির্লজ্জ ব্যক্তি। পার্লামেন্টে তার বিরুদ্ধে তার দলের লোকেরা কথা বলছেন, বিরোধী দলের কয়েকজন কথা বলেছেন, সারাদেশের মানুষ কথা বলছেন। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দুর্নীতি প্রমাণ হয়েছে, দুর্নীতিতে সাজাপ্রাপ্ত ব্যক্তির সঙ্গে তিনি (স্বাস্থ্যমন্ত্রী) চিত্রিত হয়েছেন, ছবি তোলা হয়েছে এগ্রিমেন্ট সই করার সময়। তারপরও তিনি পদত্যাগ করছেন না। তার লজ্জা-শরম বলতে কোন জিনিস আছে বলে মনে হয় না। দুর্ভাগ্য আমাদের যে এরকম একটা ভয়ঙ্কর গণবিরোধী সরকার যারা আমাদের সমস্ত অর্জনকে ধ্বংস করে দিচ্ছে। তারা এখনো সরকারে আছেন এবং বহাল তবিয়তে আছে।

তিনি বলেন, সরকার চরম দুর্নীতিতে নিমজ্জিত। এই করোনাভাইরাসে যখন মানুষের জীবন চলে যাচ্ছে, তখন স্বাস্থ্যখাতে ভয়াবহ দুর্নীতি চলছে। আমরা প্রথম থেকে বলছিলাম জেলার হাসপাতালগুলোতে পর্যাপ্ত পরিমাণ আইসিইউ বেডের ব্যবস্থা করা হোক, অক্সিজেন সরবারহের ব্যবস্থা করা হোক, ওষুধের ব্যবস্থা করা হোক। দুর্ভাগ্যজনকভাবে শতকরা ৫২টি হাসপাতালে কোন আইসিইউ বেড নেই। একটি জেলা হাসপাতালেও কোন অক্সিজেন সরবরাহের ব্যবস্থা নেই।

মির্জা ফখরুল বলেন, গণমাধ্যমে সরকারের সমালোচনা করলে তাদের বিভিন্নভাবে নির্যাতনের শিকার হতে হচ্ছে, ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্টের মাধ্যমে চরম নির্যাতন করা হচ্ছে। শুধুমাত্র সত্য কথা বলার কারণে গত ৬ মাসে ১৫০ জনের মতো সাংবাদিকের বিরুদ্ধে ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্টে মামলা করা হয়েছে।

তিনি বলেন, এই জাতিকে বাঁচানোর জন্য, তাদের অন্ধকার থেকে আলোতে নিয়ে আসার জন্য আমাদের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। আমি অনুরোধ জানাব, তরুণদের এখনই জেগে উঠতে হবে, এই ঘোরতর অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমাদের রুখে দাঁড়াতে হবে।

মির্জা ফখরুল বলেন, এক সময়ের নামকরা সাংবাদিকরা এখন উচ্ছিষ্টভোগী হয়েছেন। তারা জিয়াউর রহমান ও বেগম খালেদা জিয়া এবং আমাদের আন্দোলন সম্পর্কে অপপ্রচারমূলক কলাম লিখছেন। এই লেখাগুলোর বিরুদ্ধে আপনাদের জবাব দিতে হবে, সেগুলোর বিরুদ্ধে পত্রিকায় আপনাদের লেখা দিতে হবে। কিছুদিন আগে আবদুল গাফফার চৌধুরী যে সমস্ত লেখা লিখেছেন, আপনারা যারা আমাদের মতাদর্শের তারা একজনও কিন্তু প্রতিবাদ করে কলাম লিখছেন না। অন্তত যে কথাগুলো তার সত্য নয়, সেগুলো তো আপনাদের বলতে হবে, লিখতে হবে, জনগণকে জানাতে হবে সত্যটা।

ছবি

সার্চ কমিটির মাধ্যমেই নির্বাচন কমিশন গঠিত হবে: ড. রাজ্জাক

ছবি

দেশকে ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত করতে বিএনপি ষড়যন্ত্র করছে: তাজুল ইসলাম

ছবি

মেগা প্রকল্প উদ্বোধন হলে বিএনপি নেতারা চোখে সর্ষে ফুল দেখবে: সেতুমন্ত্রী

ছবি

সরকার পুরো প্রশাসনকে দলীয়করণ করে ফেলেছে: মির্জা ফখরুল

ছবি

বিএনপির ঐক্যের শক্তি হাওয়ায় মিলিয়ে গেছে: তথ্যমন্ত্রী

ছবি

বঙ্গবন্ধুর খুনি নূরকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠানোর দাবি তথ্য প্রতিমন্ত্রীর

ছবি

রাজশাহীতে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলায় জামিন পেলেন বিএনপির শীর্ষ তিন নেতা

ছবি

বহুদলীয় গণতন্ত্রের নামে দেশে বিরাজনীতিকরণ চলছে: জিএম কাদের

ছবি

দেশের উন্নয়ন করে সরকার ইতিহাস সৃষ্টি করেছে: পরিকল্পনামন্ত্রী

ছবি

প্রধানমন্ত্রীর জাতিসংঘ সফরে কোনো অর্জন নেই: মির্জা ফখরুল

ছবি

আবার সহিংসতার করলে দাঁতভাঙ্গা জবাব দেওয়া হবে: বিএনপিকে কাদের

ছবি

প্রধানমন্ত্রীর বেশির ভাগ সফরসঙ্গীই নিজ খরচে গেছেন: হাছান মাহমুদ

ছবি

প্রধানমন্ত্রী অসহায়দের পাশে আছেন: শিল্পমন্ত্রী

ছবি

নির্বাচন নামের শব্দ নিয়ে আর কোনো আলোচনা নয়: গয়েশ্বর চন্দ্র রায়

ছবি

বিএনপি সব সময় পেছনের দরজা পছন্দ করে: তথ্যমন্ত্রী

ছবি

বঙ্গবন্ধুর খুনিদের কবর জাতীয় সংসদ চত্বরে থাকতে পারে না: স্থানীয় সরকার মন্ত্রী

ছবি

ষড়যন্ত্র ও সমালোচনার পার্থক্য সরকাকে বুঝতে হবে: প্রধানমন্ত্রীকে ইনু

ছবি

বিএনপি তৃণমূল নেতাদের পরামর্শ সম্পর্কে সিদ্ধান্ত নেবেন শীর্ষ নেতৃত্ব

ছবি

বিএনপি দেশকে অস্থিতিশীল করে অগ্রযাত্রার গতি থামিয়ে দিতে চায়: ওবায়দুল কাদের

জনগণ চাইলে খালেদা জিয়াকে বিদেশ যেতে দেওয়া হবে: আইনমন্ত্রী

ছবি

মাহবুব তালুকদারের বক্তব্য রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত

ছবি

প্রধানমন্ত্রীর ‘ক্রাউন জুয়েল’ অর্জনে ছাত্রলীগের আনন্দ মিছিল

ছবি

গণতন্ত্রী পার্টির মাস্ক বিতরণ

ছবি

দেশের মানুষ ‘ভালো’ আছে বলে বিএনপি ‘ভালো’ নেই: ওবায়দুল কাদের

ছবি

আ.লীগ দেশ পরিচালনার সব ক্ষেত্রেই সম্পূর্ণ ব্যর্থ: মির্জা ফখরুল

ছবি

বাকশাল কৃষকের কল্যাণেই হয়েছিল: পরিকল্পনামন্ত্রী

মাদারীপুরের আ’লীগের ‘বিরোধ মেটাতে’ শাজাহান খানের ডাকে সাড়া দেননি কেউ

ছবি

খালেদা জিয়া কি জেলে না মুক্ত?

ছবি

আ.লীগ-বিএনপি ‘সংকটে’ জাপার ভবিষ্যত উজ্জ্বল: জিএম কাদের

ছবি

ভোটারদের নির্বাচন বিমুখতা, গণতন্ত্রের জন্য অশনিসংকেত: মাহবুব তালুকদার

ছবি

মেয়র তাহেরের ছেলে লক্ষ্মীপুরে ১০ যুবলীগ নেতা-কর্মীকে পেটালেন

ছবি

বর্তমানে দেশের কেউ ভালো নেই, শান্তিতে নেই: মির্জা ফখরুল

ছবি

স্থানীয় সরকার নির্বাচন তৃণমূলে গণতন্ত্রের ভিত্তি মজবুত করে: ওবায়দুল কাদের

ছবি

সরকার যে কারো ব্যাংক হিসাব তলব করতে পারে: তথ্যমন্ত্রী

ছবি

নির্বাচন কমিশনের ক্ষমতা সাধারণ মানুষের কাছে দৃশ্যমান নয়: জি এম কাদের

ছবি

সাংবাদিক নেতার বিরুদ্ধে বাংলাদেশ ব্যাংকের চিঠি অপ্রত্যাশি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

tab

রাজনীতি

স্বাস্থ্যমন্ত্রীর ‘লজ্জা-শরম’ বলতে কিছু নেই : মির্জা ফখরুল

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

রোববার, ০৪ জুলাই ২০২১

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেকের ‘লজ্জা-শরম’ বলতে কিছু নেই বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। রোববার (৪ জুলাই) বিএনপি সমর্থিত ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের ‘মহান স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী : গণমাধ্যমের প্রত্যাশা ও প্রাপ্তি’ শীর্ষক ভার্চুয়াল আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে তিনি এসব কথা বলেন।

জাতীয় সংসদে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেকের বিরুদ্ধে সরকারি ও বিরোধী দলের সদস্যদের বক্তব্যের প্রসঙ্গ টেনে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, স্বাস্থ্যমন্ত্রী একজন নির্লজ্জ ব্যক্তি। পার্লামেন্টে তার বিরুদ্ধে তার দলের লোকেরা কথা বলছেন, বিরোধী দলের কয়েকজন কথা বলেছেন, সারাদেশের মানুষ কথা বলছেন। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দুর্নীতি প্রমাণ হয়েছে, দুর্নীতিতে সাজাপ্রাপ্ত ব্যক্তির সঙ্গে তিনি (স্বাস্থ্যমন্ত্রী) চিত্রিত হয়েছেন, ছবি তোলা হয়েছে এগ্রিমেন্ট সই করার সময়। তারপরও তিনি পদত্যাগ করছেন না। তার লজ্জা-শরম বলতে কোন জিনিস আছে বলে মনে হয় না। দুর্ভাগ্য আমাদের যে এরকম একটা ভয়ঙ্কর গণবিরোধী সরকার যারা আমাদের সমস্ত অর্জনকে ধ্বংস করে দিচ্ছে। তারা এখনো সরকারে আছেন এবং বহাল তবিয়তে আছে।

তিনি বলেন, সরকার চরম দুর্নীতিতে নিমজ্জিত। এই করোনাভাইরাসে যখন মানুষের জীবন চলে যাচ্ছে, তখন স্বাস্থ্যখাতে ভয়াবহ দুর্নীতি চলছে। আমরা প্রথম থেকে বলছিলাম জেলার হাসপাতালগুলোতে পর্যাপ্ত পরিমাণ আইসিইউ বেডের ব্যবস্থা করা হোক, অক্সিজেন সরবারহের ব্যবস্থা করা হোক, ওষুধের ব্যবস্থা করা হোক। দুর্ভাগ্যজনকভাবে শতকরা ৫২টি হাসপাতালে কোন আইসিইউ বেড নেই। একটি জেলা হাসপাতালেও কোন অক্সিজেন সরবরাহের ব্যবস্থা নেই।

মির্জা ফখরুল বলেন, গণমাধ্যমে সরকারের সমালোচনা করলে তাদের বিভিন্নভাবে নির্যাতনের শিকার হতে হচ্ছে, ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্টের মাধ্যমে চরম নির্যাতন করা হচ্ছে। শুধুমাত্র সত্য কথা বলার কারণে গত ৬ মাসে ১৫০ জনের মতো সাংবাদিকের বিরুদ্ধে ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্টে মামলা করা হয়েছে।

তিনি বলেন, এই জাতিকে বাঁচানোর জন্য, তাদের অন্ধকার থেকে আলোতে নিয়ে আসার জন্য আমাদের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। আমি অনুরোধ জানাব, তরুণদের এখনই জেগে উঠতে হবে, এই ঘোরতর অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমাদের রুখে দাঁড়াতে হবে।

মির্জা ফখরুল বলেন, এক সময়ের নামকরা সাংবাদিকরা এখন উচ্ছিষ্টভোগী হয়েছেন। তারা জিয়াউর রহমান ও বেগম খালেদা জিয়া এবং আমাদের আন্দোলন সম্পর্কে অপপ্রচারমূলক কলাম লিখছেন। এই লেখাগুলোর বিরুদ্ধে আপনাদের জবাব দিতে হবে, সেগুলোর বিরুদ্ধে পত্রিকায় আপনাদের লেখা দিতে হবে। কিছুদিন আগে আবদুল গাফফার চৌধুরী যে সমস্ত লেখা লিখেছেন, আপনারা যারা আমাদের মতাদর্শের তারা একজনও কিন্তু প্রতিবাদ করে কলাম লিখছেন না। অন্তত যে কথাগুলো তার সত্য নয়, সেগুলো তো আপনাদের বলতে হবে, লিখতে হবে, জনগণকে জানাতে হবে সত্যটা।

back to top