alt

সারাদেশ

জলবায়ু পরিবর্তনে ঝুঁকির মুখে বাঁশখালীর ৩৩ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ

প্রতিনিধি, বাঁশখালী (চট্টগ্রাম) : বুধবার, ১৫ মে ২০২৪

চট্টগ্রামের বাঁশখালীর সাগর উপকূলের ৩৩ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ অরক্ষিত থাকায় মৃত্যু ঝুঁকি মাথায় নিয়ে বসবাস করছেন লোকজন। ইতোমধ্যেই নবনির্মিত বেড়িবাঁধের ২৬ স্থানে ফাটল দেখা দিয়েছে। সাগর উপকূলের প্যারাবন, বাইন বাগান নির্বিচারে কেটে সাবাড় করায় জলবায়ু পরিবর্তনের এ-যুগে পুরো উপকূল হুমকির মুখে পড়েছে। দীর্ঘদিনেও বেড়িবাঁধটি স্থায়ী বাঁধে পরিণত না হওয়ায় ঝুঁকি মারাত্মক আকার ধারণ করেছে।

বাঁশখালীর উত্তর সীমান্ত পুকুরিয়া থেকে ছনুয়া পর্যন্ত সাগর পাড়ের প্রায় ৩৩ কিলোমিটার দীর্ঘ বেড়িবাঁধের অধিকাংশ এলাকা অরক্ষিত হয়ে পড়েছে। অরক্ষিত বেড়িবাঁধ নিয়ে উপকূলবাসীদের মধ্যে আতংক দেখা দিয়েছে। আসন্ন বর্ষায় সামুদ্রিক জলোচ্ছ্বাস হলে উপকূলের অধিকাংশ গ্রাম তলিয়ে যাবার সম্ভবনা রয়েছে। বর্ষায় অরক্ষিত বাঁধ বেয়ে বন্যার পানি ঢুকে মাছের ঘের, লবণ মাঠ, ফসলি জমিসহ ডুবে কোটি টাকার ক্ষতির আশংকা করছে উপকূলবাসী। সাগর পাড়ে বসবাসকারী লোকজন অভিযোগ করে বলেন, পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) সঠিক তদারকির অভাবে গেল দুই বছরের মাথায় ২০২৪’এ নির্মিত বেড়িবাঁধের প্রায় ২৬ স্থানে ফাটল ও ধস দেখা দিয়েছে। জলোচ্ছ্বাস ছাড়াই সমুদ্রের স্বাভাবিক ঢেউয়ে ভেঙে গেছে সিসি ব্লক। কোথাও কোথাও বেড়ীবাঁধের প্রায় অংশ সমতলে বিলীনের পথে। যেকোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগে বড় বিপর্যয়ের আশংকা করছে বাঁশখালী উপকূলের অধীবাসীরা। এ বিষয় জানতে চাইলে পাউবো কর্তৃপক্ষ বলেছেন, আগামী বর্ষার আগে বরাদ্দ পাবার সুযোগ নেই।

সরেজমিনে দেখা গেছে, বাঁশখালী উপকূলবাসীর জীবন রক্ষায় ২৯৩ কোটি ৬০ লাখ টাকায় নব নির্মিত স্থায়ী বেড়িবাঁধ জলোচ্ছ্বাস ছাড়াই ভাঙছে আর ভাঙছে। খানখানাবাদ উপকূলের কদম রসুল গ্রামে ভাঙা বেড়িবাঁধ দিয়ে জোয়ার-ভাটার পানি ঢুকে ভাঙ্গন বিশালকার রূপ নিচ্ছে। কোথাও আবার বাঁধ ধসে গেছে ভয়ানকভাবে। একই দৃশ্য খানখানাবাদের প্রেমাশিয়া, খানখানাবাদ গ্রাম, পুকুরিয়ার তেইচ্ছিপাড়া, সাধনপুরের রাতা খোর্দ, গন্ডামারার বড়ঘোনায়, শেখেরখীলের ফাঁড়ি মূখের অদূরে, ছনুয়ার ছোট ছনুয়া। ওইসব স্থানগুলোর অন্তত ২৬ স্থানে নব নির্মিত বেড়িবাঁধে সিসি ব্লকে ধ্বস দেখা দিয়েছে। নিম্নমানের সামগ্রীতে নির্মিত সিসি ব্লকের সিমেন্ট উঠে গিয়ে সিসি ব্লক ভেঙে গেছে। স্থানীয়রা অভিযোগ করে বলেন, বেড়িবাঁধ নির্মাণ ও সংস্কারের নামে লুটপাটের কারণে অল্প সময়ে স্থায়ী বেড়িবাঁধে ফাটল ধরেছে এবং ভাঙছে। যার ফলে কোটি টাকার বেড়ীবাঁধ এখনো অধরা, স্বপ্নের মতোই।

এলাকাবাসী অভিযোগ করে আরও বলেন, ২০১৫ সালে বাঁশখালীতে বেড়িবাঁধ নির্মাণ কাজ শুরু হলে কাজ শেষ হয় ২০২২ সালে। সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার নানা রকম কৌশল অবলম্বন করে দুর্নীতি করেছেন এ বাঁধ নির্মাণে। বেড়িবাঁধ রক্ষায় ঢালু বেড়িবাঁধে পর্যাপ্ত ঘাস ও গাছ লাগানোর কথা থাকলেও তা লাগানো হয়নি। ব্লক নির্মাণে নিম্নমানের পাথর, ইট, সিমেন্ট ও বালু ব্যবহার করায় কাজ বুঝিয়ে দেয়ার আগেই অধিকাংশ সিসি ব্লক ভেঙে গেছে। বিস্তীর্ণ বেড়িবাঁধ জুড়ে ভাঙা সিসি ব্লক দৃশ্যমান হলেও পাউবো’র সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের কোনো নজর নেই। অতিবৃষ্টি কিংবা বর্ষার ঢলে, সমুদ্রের জোয়ারের ঢেউয়ে বিলীন হয়ে যেতে বসেছে বাঁধের অধিকাংশ পয়েন্ট। এখনও বাঁশখালী উপকুলের নি¤œাঞ্চলেরর মানুষ দূর্যোগকালীন সময়ে আতংকে থাকেন। এ উপজেলার মানুষ এখনও প্রতি বর্ষায় নির্ঘুম রাত কাটান। ঘূর্ণিঝড় ও জলোচ্ছ্বাস থেকে জীবন এবং সম্পদ বাঁচাতে সমন্বিত উপকূল সংরক্ষণ ও ব্যবস্থাপনা কার্যক্রমের আওতায় বেড়িবাঁধে বনায়ন গড়ে তুলার কার্যক্রমও হাতে নেয়া হয়নি।

পাউবোর উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী অনুপম পাল বলেন, বাঁশখালী উপকূলের বেড়িবাঁধের বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে আমরা অবগত আছি। বেড়িবাঁধের জন্য বরাদ্দ চাওয়া হয়েছে। তবে তা আগামী বর্ষার আগে পাবার সম্ভাবনা নেই। তবে দুর্যোগ ঠেকাতে তারা সার্বক্ষণিক বাঁশখালীকে নজরে রেখেছেন।

সখীপুরে আগুনে পুড়ল ১১ দোকান, তিন কোটি টাকার ক্ষতি

ঘুমধুম সীমান্তে মাইন বিস্ফোরণে আহত ২ একজনের অবস্থা আশংকা জনক

সৌদি আরবে আরেক বাংলাদেশি হজযাত্রীর মৃত্যু

ছবি

গাজীপুরে আগুন পুড়লো কলোনির ৭০টি ঘর

ছবি

উখিয়ায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আগুন, পুড়েছে ৩ শতাধিক বসতি

ছবি

ঝিনাইদহে প্রবাসীর স্ত্রীকে গলা কেটে হত্যা

ছবি

বাঁশখালী ছনুয়া-কুতুবদিয়া জেটিঘাট এখন মরণ ফাঁদ

আখতারুজ্জামান, শিমুল-এরা কারা

ছবি

টানা তাপপ্রাবাহে ফলন তলানিতে, বাজারে চড়া দাম লিচুর

ছবি

ধনবাড়ীতে ডায়াবেটিক ধান চাষে মিলেছে সফলতা

ছবি

খাবারের প্যাকেট নিয়ে দুই গ্রুপের সংঘর্ষ, নিহত ১

ছবি

কুমারখালীর হাবাসপুর সরকারি বিদ্যালয় ৩ শিক্ষার্থীর বিপরীতে ৪ শিক্ষক, শিক্ষার্থীরা থাকে অনুপস্থিত

ছবি

বরুড়ায় স্বেচ্ছাশ্রমে দেড় কিমি. রাস্তা তৈরি করছেন দেওড়া গ্রামবাসীরা

মতলবে ঋণের চাপে বিকাশ ব্যবসায়ীর আত্মহত্যা

ছবি

বেগমগঞ্জে আগ্নেয়াস্ত্রসহ ৪ ডাকাত গ্রেপ্তার

ছবি

সেই গৃহবধূর চুল কাটা ঘটনায় মামলা নথিভুক্ত

ছবি

কিরগিজস্তানের মাফিয়ার কবলে ইন্দুরকানীর যুবক

ছবি

সিরাজদিখানে বাইক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ২ স্কুলছাত্র নিহত

ছবি

রাজশাহীতে কলেজছাত্র অপহরণ, গ্রেপ্তার ৩

ছবি

মনোহরদীতে কমিউনিটি ক্লিনিকের সরকারি ওষুধ মিললো বাড়িতে

ছবি

গাইবান্ধায় কোরবানির জন্য প্রস্তুত দেড় লাখ পশু, দাম নিয়ে চিন্তিত খামারিরা

ভাতকুড়া-মুশুদ্দি ভাঙা সড়কটি সংস্কার দাবি

ছবি

বাগাতিপাড়ায় হেরোইনসহ নারী মাদককারবারি আটক

ছবি

১৪ ভরি স্বর্ণালংকার চুরি, বিদেশে পালানোর সময় দোকান কর্মচারী গ্রেপ্তার

ছবি

মোল্লাহাটে দুই গ্রুপের সংঘর্ষ, আহত ১৫

ছবি

ঠাকুরগাঁওয়ে ছেলের চুরির অপবাদে মাকে নির্যাতন, আদিবাসী গৃহবধূর মৃত্যু

ছবি

তালতলীতে চেয়াম্যান প্রার্থীর কর্মীকে মারধরের অভিযোগ

ছবি

লাখাইয়ে সরকারিভাবে ধান-চাল সংগ্রহ উদ্বোধন

ছবি

৩ জেলায় ভারতীয় নাগরিকসহ তিন মরদেহ উদ্ধার

ছবি

কালিগঞ্জে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মাদ্রাসাছাত্রের মৃত্যু

ছবি

রূপগঞ্জে হাবিবুর রহমান চেয়ারম্যান নির্বাচিত

ছবি

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বিপুল পরিমাণ অস্ত্র-গুলিসহ আরসা সন্ত্রাসী গ্রেপ্তার

ছবি

নরসিংদীতে আধিপত্য বিস্তারে দুপক্ষের সংঘর্ষ, গুলি-টেঁটাবিদ্ধ ৭

ছবি

আরাকান আর্মির গুলিতে বাংলাদেশি জেলের পা বিচ্ছিন্ন

ছবি

গাজীপুরে তুরাগ কমিউটার ট্রেনের বগি লাইনচ্যুত

সমুদ্র সৈকতে ভেসে এলো অজ্ঞাত নারীর মরদেহ

tab

সারাদেশ

জলবায়ু পরিবর্তনে ঝুঁকির মুখে বাঁশখালীর ৩৩ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ

প্রতিনিধি, বাঁশখালী (চট্টগ্রাম)

বুধবার, ১৫ মে ২০২৪

চট্টগ্রামের বাঁশখালীর সাগর উপকূলের ৩৩ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ অরক্ষিত থাকায় মৃত্যু ঝুঁকি মাথায় নিয়ে বসবাস করছেন লোকজন। ইতোমধ্যেই নবনির্মিত বেড়িবাঁধের ২৬ স্থানে ফাটল দেখা দিয়েছে। সাগর উপকূলের প্যারাবন, বাইন বাগান নির্বিচারে কেটে সাবাড় করায় জলবায়ু পরিবর্তনের এ-যুগে পুরো উপকূল হুমকির মুখে পড়েছে। দীর্ঘদিনেও বেড়িবাঁধটি স্থায়ী বাঁধে পরিণত না হওয়ায় ঝুঁকি মারাত্মক আকার ধারণ করেছে।

বাঁশখালীর উত্তর সীমান্ত পুকুরিয়া থেকে ছনুয়া পর্যন্ত সাগর পাড়ের প্রায় ৩৩ কিলোমিটার দীর্ঘ বেড়িবাঁধের অধিকাংশ এলাকা অরক্ষিত হয়ে পড়েছে। অরক্ষিত বেড়িবাঁধ নিয়ে উপকূলবাসীদের মধ্যে আতংক দেখা দিয়েছে। আসন্ন বর্ষায় সামুদ্রিক জলোচ্ছ্বাস হলে উপকূলের অধিকাংশ গ্রাম তলিয়ে যাবার সম্ভবনা রয়েছে। বর্ষায় অরক্ষিত বাঁধ বেয়ে বন্যার পানি ঢুকে মাছের ঘের, লবণ মাঠ, ফসলি জমিসহ ডুবে কোটি টাকার ক্ষতির আশংকা করছে উপকূলবাসী। সাগর পাড়ে বসবাসকারী লোকজন অভিযোগ করে বলেন, পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) সঠিক তদারকির অভাবে গেল দুই বছরের মাথায় ২০২৪’এ নির্মিত বেড়িবাঁধের প্রায় ২৬ স্থানে ফাটল ও ধস দেখা দিয়েছে। জলোচ্ছ্বাস ছাড়াই সমুদ্রের স্বাভাবিক ঢেউয়ে ভেঙে গেছে সিসি ব্লক। কোথাও কোথাও বেড়ীবাঁধের প্রায় অংশ সমতলে বিলীনের পথে। যেকোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগে বড় বিপর্যয়ের আশংকা করছে বাঁশখালী উপকূলের অধীবাসীরা। এ বিষয় জানতে চাইলে পাউবো কর্তৃপক্ষ বলেছেন, আগামী বর্ষার আগে বরাদ্দ পাবার সুযোগ নেই।

সরেজমিনে দেখা গেছে, বাঁশখালী উপকূলবাসীর জীবন রক্ষায় ২৯৩ কোটি ৬০ লাখ টাকায় নব নির্মিত স্থায়ী বেড়িবাঁধ জলোচ্ছ্বাস ছাড়াই ভাঙছে আর ভাঙছে। খানখানাবাদ উপকূলের কদম রসুল গ্রামে ভাঙা বেড়িবাঁধ দিয়ে জোয়ার-ভাটার পানি ঢুকে ভাঙ্গন বিশালকার রূপ নিচ্ছে। কোথাও আবার বাঁধ ধসে গেছে ভয়ানকভাবে। একই দৃশ্য খানখানাবাদের প্রেমাশিয়া, খানখানাবাদ গ্রাম, পুকুরিয়ার তেইচ্ছিপাড়া, সাধনপুরের রাতা খোর্দ, গন্ডামারার বড়ঘোনায়, শেখেরখীলের ফাঁড়ি মূখের অদূরে, ছনুয়ার ছোট ছনুয়া। ওইসব স্থানগুলোর অন্তত ২৬ স্থানে নব নির্মিত বেড়িবাঁধে সিসি ব্লকে ধ্বস দেখা দিয়েছে। নিম্নমানের সামগ্রীতে নির্মিত সিসি ব্লকের সিমেন্ট উঠে গিয়ে সিসি ব্লক ভেঙে গেছে। স্থানীয়রা অভিযোগ করে বলেন, বেড়িবাঁধ নির্মাণ ও সংস্কারের নামে লুটপাটের কারণে অল্প সময়ে স্থায়ী বেড়িবাঁধে ফাটল ধরেছে এবং ভাঙছে। যার ফলে কোটি টাকার বেড়ীবাঁধ এখনো অধরা, স্বপ্নের মতোই।

এলাকাবাসী অভিযোগ করে আরও বলেন, ২০১৫ সালে বাঁশখালীতে বেড়িবাঁধ নির্মাণ কাজ শুরু হলে কাজ শেষ হয় ২০২২ সালে। সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার নানা রকম কৌশল অবলম্বন করে দুর্নীতি করেছেন এ বাঁধ নির্মাণে। বেড়িবাঁধ রক্ষায় ঢালু বেড়িবাঁধে পর্যাপ্ত ঘাস ও গাছ লাগানোর কথা থাকলেও তা লাগানো হয়নি। ব্লক নির্মাণে নিম্নমানের পাথর, ইট, সিমেন্ট ও বালু ব্যবহার করায় কাজ বুঝিয়ে দেয়ার আগেই অধিকাংশ সিসি ব্লক ভেঙে গেছে। বিস্তীর্ণ বেড়িবাঁধ জুড়ে ভাঙা সিসি ব্লক দৃশ্যমান হলেও পাউবো’র সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের কোনো নজর নেই। অতিবৃষ্টি কিংবা বর্ষার ঢলে, সমুদ্রের জোয়ারের ঢেউয়ে বিলীন হয়ে যেতে বসেছে বাঁধের অধিকাংশ পয়েন্ট। এখনও বাঁশখালী উপকুলের নি¤œাঞ্চলেরর মানুষ দূর্যোগকালীন সময়ে আতংকে থাকেন। এ উপজেলার মানুষ এখনও প্রতি বর্ষায় নির্ঘুম রাত কাটান। ঘূর্ণিঝড় ও জলোচ্ছ্বাস থেকে জীবন এবং সম্পদ বাঁচাতে সমন্বিত উপকূল সংরক্ষণ ও ব্যবস্থাপনা কার্যক্রমের আওতায় বেড়িবাঁধে বনায়ন গড়ে তুলার কার্যক্রমও হাতে নেয়া হয়নি।

পাউবোর উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী অনুপম পাল বলেন, বাঁশখালী উপকূলের বেড়িবাঁধের বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে আমরা অবগত আছি। বেড়িবাঁধের জন্য বরাদ্দ চাওয়া হয়েছে। তবে তা আগামী বর্ষার আগে পাবার সম্ভাবনা নেই। তবে দুর্যোগ ঠেকাতে তারা সার্বক্ষণিক বাঁশখালীকে নজরে রেখেছেন।

back to top