alt

সারাদেশ

নামমাত্র মূল্যে বিক্রি বন বিভাগের গাছ

প্রতিনিধি, গজারিয়া (মুন্সীগঞ্জ) : বুধবার, ২৯ নভেম্বর ২০২৩

গজারিয়া (মুন্সীগঞ্জ) : উপজেলার করিমখাঁ এলাকায় কর্তন করা বননিভাগের গাছ -সংবাদ

মরা ও ঝুঁঁকিপূর্ণ বিবেচনায় মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার বিভিন্ন এলাকার ৪৬টি গাছ নামমাত্র দামে বিক্রির অভিযোগ উঠেছে উপজেলা বন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে। অল্প টাকায় গাছ বিক্রি করার কারণে কাঙ্খিত পারিশ্রমিক না পেয়ে হতাশা প্রকাশ করেছেন অনেক উপকারভোগী।

জানা যায়, মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার বেশ কয়েকটি এলাকায় সামাজিক বনায়ন কর্মসূচির মাধ্যমে বিভিন্ন প্রজাতির গাছ রোপন করা হয়। সম্প্রতি বাউশিয়া, ভবেরচর, ইমামপুর, ভাটেরচর, বালুয়াকান্দি এলাকার ৪৬টি গাছ মরা এবং ঝুঁঁকিপূর্ণ দেখিয়ে ১লাখ ৪৭ হাজার টাকা বিক্রি করা হয়েছে। প্রতিটি গাছের গড় দাম পড়েছে মাত্র ৩১৯৫ টাকা। ২৫ থেকে ৪০ বছর বয়সী এসব গাছ যে দামে বিক্রি করা হয়েছে তার বর্তমান বাজার মূল্যের চাইতে অনেক কম। সরেজমিনে উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে সামাজিক বনায়ন কর্মসূচির উপকারভোগীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, শুধুমাত্র ভবেরচর কালীতলা ব্রাক অফিস থেকে করিমখাঁ গ্রাম পর্যন্ত প্রায় তিন কিলোমিটার রাস্তায় ১৮টি গাছ মরা দেখিয়ে বিক্রি করা হয়েছে। স্থানীয়দের দাবি এখানে মাত্র চারটি গাছ মরা ছিল। উপজেলা বন কর্মকর্তা শুধুমাত্র গাছগুলো বিক্রি করার জন্য মরা দেখিয়েছেন। সামাজিক বনায়ন কর্মসূচির জন্য উপজেলা যে কয়েকটি সমিতি রয়েছে সেগুলোর তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা যায় ২০১৪ সালের পর যতগুলো সমিতি গঠন করা হয়েছে তার অধিকাংশ গুলোতেই উপজেলা বন কর্মকর্তার পরিবারের সদস্যরা রয়েছেন। করিমখাঁ গ্রামের বাসিন্দা উপকারভোগী মোহাম্মদ আলী বলেন, আমার স্ত্রী ফাহিমা বেগম এই সমিতির সদস্য ছিল। তিনি মারা যাওয়ার পর এখন আমি সদস্য হয়েছি। গাছগুলো পরিচর্যা করে বড় করেছি। গত দুই সপ্তাহ আগে আমাদের এই এলাকা থেকে বেশ কয়েকটি গাছ কেটে ফেলা হয়েছে। বিষয়টি আমরা কিছুই জানতাম না, গাছ কাটার ব্যাপারে আমাদের অবগত করা হয়নি। উপজেলা বন বিভাগ অফিসে যোগাযোগ করার পরে লভ্যাংশ পাওয়ার জন্য আমাদের আবেদন করতে বলা হয়েছে। তবে এই গাছগুলো যে দামে বিক্রি করা হয়েছে তাতে আমরা অবাক হয়েছি। এক একটি গাছের বাজার মূল্য ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকা হওয়ার কথা। অন্তত তিনগুণ কম দামে কাজগুলো বিক্রি করা হয়েছে।

আরেক উপকারভোগী সুফিয়া বেগম বলেন, গাছগুলো অনেক কম দামে বিক্রি করা হয়েছে এতে আমরা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছি। বেশি টাকায় বিক্রি করলে আমরা বেশি টাকা পেতাম। স্থানীয় বাসিন্দা শামীম আহমেদ বাঘ বলেন, সম্প্রতি এই গাছগুলোর চেয়ে আকারে ছোট আমার বাড়ির তিনটি গাছ আমি ৩২ হাজার টাকায় বিক্রি করেছি। সে হিসেবে এই গাছগুলোর একেকটির দাম ১৫ হাজার টাকা করা হওয়া উচিত। শুনেছি গাছগুলো অনেক কম দামে বিক্রি করা হয়েছে।

ইমামপুর ইউনিয়নের সাবেক ইউপি সদস্য মো. জাকারিয়া বলেন,’ আমি গাছগুলো লাগাতে দেখেছি। গাছগুলোর বয়স প্রায় ৩০ বছর। কাজগুলো যে দামে বিক্রি করা হয়েছে তা বর্তমান বাজার মূল্যের চাইতে অনেক কম। শুনছি ফরেস্টার ভাতিজা মোস্তফা গাছগুলো কেটে নিয়ে গেছে। আমার স্ত্রীও সমিতির সদস্য ছিল। কম দামের গাছ বিক্রি করায় তিনি অসন্তুষ্ট।

বিষয়টি সম্পর্কে উপজেলা বন কর্মকর্তা মো. আসাদুজ্জামান শফি বলেন, আমি বয়স্ক মানুষ আমার পক্ষে কাছে উঠে গাছ মেপে এস্টিমেট প্রস্তুত করা সম্ভব নয়। আমি চোখের আন্দাজ আমার অভিজ্ঞতার আলোকে প্রাক্কলন প্রস্তুত করেছি। নির্দিষ্ট সকল প্রক্রিয়া মেনে টেন্ডার করে গাছগুলো বিক্রি করা হয়েছে। আমি কাঠ ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে আর্থিক সুবিধা নিতে কাঠের পরিমাণ কম দেখেছি এরকম অভিযোগ সত্য নয়। যারা বলছে আমি তার দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে বিভিন্ন জায়গায় আমার আত্মীয়-স্বজনদের সামাজিক বনায়ন কর্মসূচির উপকারভোগী সমিতির সদস্য বানিয়েছি তাদের এই অভিযোগও সঠিক নয়। রাস্তার ধারে বাড়ি এমন ব্যক্তি এবং গরিব দুস্থদের এই সমিতির সদস্য করা হয়েছে। গাছগুলো ভ্যাটসহ ১ লাখ ৬৯ হাজার টাকায় বিক্রি করা হয়েছে।

ভ্যাট ছাড়া ১ লাখ ৪৭হাজার টাকার মত দাম আসে যার ৫৫ শতাংশ উপকারভোগীরা পাবে।

বিষয়টি সম্পর্কে গজারিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আব্দুল্লাহ আল মাহফুজ জানান, বিষয়টি সম্পর্কে আমাকে অবগত করা হয়নি। সাম্প্রতিক বেশ কয়েকজন গাছ বিক্রিতে অনিয়ম হয়েছে এরকম অভিযোগের কথা আমাকে জানিয়েছে। গাছগুলো যে দামে বিক্রি করা হয়েছে তাতে আমিও অবাক হয়েছি।

বিষয়টি আমি খতিয়ে দেখবো’।

মুন্সীগঞ্জ সামাজিক বনায়ন কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবু তাহের বলেন, বিষয়টি সম্পর্কে আমি অবগত হয়েছি। গাছগুলো কেটে বিক্রি করে ফেলা হয়েছে তবে ছবিতে যা দেখেছি গাছগুলোর এক একটি বাজার মূল্য ৮-১০ হাজার টাকা হওয়ার কথা। গাছ বিক্রিতে কোন অনিয়ম হয়েছে কিনা বিষয়টি আমরা খতিয়ে দেখবো।

ছবি

বারি ও মদিনা টেক এর মধ্যে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর

ছবি

গাজীপু‌রে সোয়া লাখ পিস ইয়াব উদ্ধার, আটক ৪ মাদক কারবারী

ছবি

গাজীপুরে কারখানা শ্রমিকদের মাঝে নিত্যপণ্য সামগ্রী বিতরণ

ছবি

নওগাঁয় ভয়াবহ ‘প্রক্সিকাণ্ড’ ৫৯ দাখিল পরীক্ষার্থীই ভুয়া

ছবি

অস্ত্রসহ পালিয়ে আসা রোহিঙ্গারা গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছে : পুলিশ

ছবি

উপজেলা নির্বাচনে জামানত ‘বহুগুণ’ বাড়াতে চায় ইসি

ছবি

নগরীর সমস্যা নিয়ে পোস্টার: কবি ও গ্রাফিক ডিজাইনার শামীম কারাগারে

ছবি

চাঁপাইনবাবগঞ্জে স্কুলছাত্র হত্যায় দুজনের যাবজ্জীবন

ছবি

দাখিল পরীক্ষা দিচ্ছিল অন্যের হয়ে, নওগাঁয় ৫৯ জন আটক

ছবি

কক্সবাজারের সুগন্ধ্যা বীচের নতুন নাম ‘বঙ্গবন্ধু বীচ’

ছবি

গাইবান্ধার ডিসিকে প্রত্যাহারের দাবিতে মানববন্ধন, না মানলে বৃহত্তর কর্মসুচি

ছবি

হত্যার ১৪ বছর পর ৫ জনের মৃত্যুদণ্ড

ছবি

ঢাকা-কক্সবাজার রুটে ‘বিশেষ ট্রেন’

মোল্লাহাটে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দুই গ্রুপে সংঘর্ষ, নিহত ১, পুলিশসহ আহত ২৮

শরীয়তপুরে ধুতুরাপাতা খেয়ে নারী ও শিশুসহ একই পরিবারের ৬ জন অসুস্থ, দুজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক

ছবি

মিরপুরে ঝিলপাড় বস্তিতে আগুন, নিয়ন্ত্রণে ৮ ইউনিট

ছবি

জয়পুরহাটে হত্যা মামলায় মা-ছেলেসহ পাঁচজনের মৃত্যুদণ্ড

ছবি

ঢাকা-কক্সবাজার পথে পাঁচ দিনে ৫ ‘বিশেষ ট্রেন’

ছবি

গাজীপুরে ট্রাকচাপায় নিহত ৩

রাজশাহীতে কুড়িয়ে পাওয়া বরই খেয়ে দুই শিশুর মৃত্যু

ছবি

ভাতিজার লাঠির আঘাতে চাচা নিহত

ছবি

অপহরণের ৬ দিন পর মুক্তিপণে ফিরলো স্কুল ছাত্র

ছবি

ময়মনসিংহে ডোবায় মিলল বস্তাবন্দি অজ্ঞাত নারীর লাশ

ছবি

অনুপ্রবেশের অপেক্ষায় নাফনদীতে হাজারো রোহিঙ্গা, সতর্ক অবস্থানে বিজিবি

ছবি

রাজশাহীতে দুই শিশুর মৃত্যুর কারণ নিপা ভাইরাস নয় : আইইডিসিআর

ছবি

টাঙ্গাইলে পিকআপ-অটোরিকশা সংঘর্ষে নিহত ৪

ছবি

অনুপ্রবেশকারী ৫ রোহিঙ্গাকে মায়ানমারে ফেরত

ছবি

গুলিবিদ্ধ নারীসহ পাঁচ রোহিঙ্গার অনুপ্রবেশ

ছবি

অজানা ভাইরাসে ২ মেয়ের মৃত্যুর পর মা-বাবাকে নেওয়া হলো আইসোলেশনে

ছবি

গুলিবিদ্ধ নারীসহ মায়ানমারের ৫ রোহিঙ্গার অনুপ্রবেশ

ছবি

‘মাদকনির্ভরশীলতা এবং মানসিক রোগীদের চিকিৎসা গুরুত্বপূর্ণ’

ছবি

কক্সবাজারে তিনদিনে পেটে ডিমসহ ৬ মৃত কাছিম উদ্ধার

ছবি

আবারও কাঁপল টেকনাফ সীমান্ত, নাফনদীর ওপারে থেমে থেমে বিস্ফোণের শব্দ

ছবি

সারাদেশে নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহের লক্ষ্যে কাজ করছে সরকার : শিল্পমন্ত্রী

ছবি

চাঁপাইনবাবগঞ্জে ‘মাছ ধরতে গিয়ে’ বিএসএফের গুলিতে যুবক আহত

ছবি

অতিরিক্ত যাত্রীবহন, সেন্টমার্টিনগামী দুই জাহাজে জরিমানা

tab

সারাদেশ

নামমাত্র মূল্যে বিক্রি বন বিভাগের গাছ

প্রতিনিধি, গজারিয়া (মুন্সীগঞ্জ)

গজারিয়া (মুন্সীগঞ্জ) : উপজেলার করিমখাঁ এলাকায় কর্তন করা বননিভাগের গাছ -সংবাদ

বুধবার, ২৯ নভেম্বর ২০২৩

মরা ও ঝুঁঁকিপূর্ণ বিবেচনায় মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার বিভিন্ন এলাকার ৪৬টি গাছ নামমাত্র দামে বিক্রির অভিযোগ উঠেছে উপজেলা বন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে। অল্প টাকায় গাছ বিক্রি করার কারণে কাঙ্খিত পারিশ্রমিক না পেয়ে হতাশা প্রকাশ করেছেন অনেক উপকারভোগী।

জানা যায়, মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার বেশ কয়েকটি এলাকায় সামাজিক বনায়ন কর্মসূচির মাধ্যমে বিভিন্ন প্রজাতির গাছ রোপন করা হয়। সম্প্রতি বাউশিয়া, ভবেরচর, ইমামপুর, ভাটেরচর, বালুয়াকান্দি এলাকার ৪৬টি গাছ মরা এবং ঝুঁঁকিপূর্ণ দেখিয়ে ১লাখ ৪৭ হাজার টাকা বিক্রি করা হয়েছে। প্রতিটি গাছের গড় দাম পড়েছে মাত্র ৩১৯৫ টাকা। ২৫ থেকে ৪০ বছর বয়সী এসব গাছ যে দামে বিক্রি করা হয়েছে তার বর্তমান বাজার মূল্যের চাইতে অনেক কম। সরেজমিনে উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে সামাজিক বনায়ন কর্মসূচির উপকারভোগীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, শুধুমাত্র ভবেরচর কালীতলা ব্রাক অফিস থেকে করিমখাঁ গ্রাম পর্যন্ত প্রায় তিন কিলোমিটার রাস্তায় ১৮টি গাছ মরা দেখিয়ে বিক্রি করা হয়েছে। স্থানীয়দের দাবি এখানে মাত্র চারটি গাছ মরা ছিল। উপজেলা বন কর্মকর্তা শুধুমাত্র গাছগুলো বিক্রি করার জন্য মরা দেখিয়েছেন। সামাজিক বনায়ন কর্মসূচির জন্য উপজেলা যে কয়েকটি সমিতি রয়েছে সেগুলোর তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা যায় ২০১৪ সালের পর যতগুলো সমিতি গঠন করা হয়েছে তার অধিকাংশ গুলোতেই উপজেলা বন কর্মকর্তার পরিবারের সদস্যরা রয়েছেন। করিমখাঁ গ্রামের বাসিন্দা উপকারভোগী মোহাম্মদ আলী বলেন, আমার স্ত্রী ফাহিমা বেগম এই সমিতির সদস্য ছিল। তিনি মারা যাওয়ার পর এখন আমি সদস্য হয়েছি। গাছগুলো পরিচর্যা করে বড় করেছি। গত দুই সপ্তাহ আগে আমাদের এই এলাকা থেকে বেশ কয়েকটি গাছ কেটে ফেলা হয়েছে। বিষয়টি আমরা কিছুই জানতাম না, গাছ কাটার ব্যাপারে আমাদের অবগত করা হয়নি। উপজেলা বন বিভাগ অফিসে যোগাযোগ করার পরে লভ্যাংশ পাওয়ার জন্য আমাদের আবেদন করতে বলা হয়েছে। তবে এই গাছগুলো যে দামে বিক্রি করা হয়েছে তাতে আমরা অবাক হয়েছি। এক একটি গাছের বাজার মূল্য ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকা হওয়ার কথা। অন্তত তিনগুণ কম দামে কাজগুলো বিক্রি করা হয়েছে।

আরেক উপকারভোগী সুফিয়া বেগম বলেন, গাছগুলো অনেক কম দামে বিক্রি করা হয়েছে এতে আমরা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছি। বেশি টাকায় বিক্রি করলে আমরা বেশি টাকা পেতাম। স্থানীয় বাসিন্দা শামীম আহমেদ বাঘ বলেন, সম্প্রতি এই গাছগুলোর চেয়ে আকারে ছোট আমার বাড়ির তিনটি গাছ আমি ৩২ হাজার টাকায় বিক্রি করেছি। সে হিসেবে এই গাছগুলোর একেকটির দাম ১৫ হাজার টাকা করা হওয়া উচিত। শুনেছি গাছগুলো অনেক কম দামে বিক্রি করা হয়েছে।

ইমামপুর ইউনিয়নের সাবেক ইউপি সদস্য মো. জাকারিয়া বলেন,’ আমি গাছগুলো লাগাতে দেখেছি। গাছগুলোর বয়স প্রায় ৩০ বছর। কাজগুলো যে দামে বিক্রি করা হয়েছে তা বর্তমান বাজার মূল্যের চাইতে অনেক কম। শুনছি ফরেস্টার ভাতিজা মোস্তফা গাছগুলো কেটে নিয়ে গেছে। আমার স্ত্রীও সমিতির সদস্য ছিল। কম দামের গাছ বিক্রি করায় তিনি অসন্তুষ্ট।

বিষয়টি সম্পর্কে উপজেলা বন কর্মকর্তা মো. আসাদুজ্জামান শফি বলেন, আমি বয়স্ক মানুষ আমার পক্ষে কাছে উঠে গাছ মেপে এস্টিমেট প্রস্তুত করা সম্ভব নয়। আমি চোখের আন্দাজ আমার অভিজ্ঞতার আলোকে প্রাক্কলন প্রস্তুত করেছি। নির্দিষ্ট সকল প্রক্রিয়া মেনে টেন্ডার করে গাছগুলো বিক্রি করা হয়েছে। আমি কাঠ ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে আর্থিক সুবিধা নিতে কাঠের পরিমাণ কম দেখেছি এরকম অভিযোগ সত্য নয়। যারা বলছে আমি তার দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে বিভিন্ন জায়গায় আমার আত্মীয়-স্বজনদের সামাজিক বনায়ন কর্মসূচির উপকারভোগী সমিতির সদস্য বানিয়েছি তাদের এই অভিযোগও সঠিক নয়। রাস্তার ধারে বাড়ি এমন ব্যক্তি এবং গরিব দুস্থদের এই সমিতির সদস্য করা হয়েছে। গাছগুলো ভ্যাটসহ ১ লাখ ৬৯ হাজার টাকায় বিক্রি করা হয়েছে।

ভ্যাট ছাড়া ১ লাখ ৪৭হাজার টাকার মত দাম আসে যার ৫৫ শতাংশ উপকারভোগীরা পাবে।

বিষয়টি সম্পর্কে গজারিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আব্দুল্লাহ আল মাহফুজ জানান, বিষয়টি সম্পর্কে আমাকে অবগত করা হয়নি। সাম্প্রতিক বেশ কয়েকজন গাছ বিক্রিতে অনিয়ম হয়েছে এরকম অভিযোগের কথা আমাকে জানিয়েছে। গাছগুলো যে দামে বিক্রি করা হয়েছে তাতে আমিও অবাক হয়েছি।

বিষয়টি আমি খতিয়ে দেখবো’।

মুন্সীগঞ্জ সামাজিক বনায়ন কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবু তাহের বলেন, বিষয়টি সম্পর্কে আমি অবগত হয়েছি। গাছগুলো কেটে বিক্রি করে ফেলা হয়েছে তবে ছবিতে যা দেখেছি গাছগুলোর এক একটি বাজার মূল্য ৮-১০ হাজার টাকা হওয়ার কথা। গাছ বিক্রিতে কোন অনিয়ম হয়েছে কিনা বিষয়টি আমরা খতিয়ে দেখবো।

back to top