alt

সারাদেশ

একটি রাস্তা নির্মাণে চাষাবাদের আওতায় ১২শ বিঘা জমি

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক, গোপালগঞ্জ : বুধবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২৩

গোপালগঞ্জ : টুঙ্গিপাড়া বর্ণি-গোপালপুর সড়ক -সংবাদ

গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া উপজেলার ৫টি ইউনিয়নের মধ্যে ২টি ইউনিয়ন বর্ণি ও গোপালপুর। এই দু’ ইউনিয়নের মাঝে ৫ শ’ কৃষকের ১ হাজার ২শ’ বিঘা জমি নিম্ন জলাভূমি বেষ্টিত। বছরের অধিকাংশ সময় এসব জমি জলাবদ্ধ থাকত। প্রায় ২৫ বছর যাবৎ এখানে চাষাবাদ হয় না। এ বিলের পানি একটু শুকাতেই প্রাকৃতিকভাবে হোগলা জন্ময়। তাই বিস্তীর্ণ এই জায়গাটির নাম হোগলার বিল। এ বিলের এপার ওপারে মাছের ঘেরে নৌকায় চলাচল করতে হত। কচুরিপানা ঠেলে ঘেরে নৌকায় যাওয়া আসা করতে কয়েক ঘন্টা সময় লাগত। তাই বিলের মাঝে একটি রাস্তা নির্মাণের বহু বছরের দাবি ছিল দু’ ইউনিয়নের অন্তত ৫ হাজার বাসিন্দার। অবশেষে তাদের দাবি পুরণ হয়েছে।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তর গ্রামীণ অবকাঠামো নির্মাণ (কাবিখা) প্রকল্পের আওতায় ২০২২-২৩ অর্থবছরে ৭৬ লাখ টাকা ব্যয়ে ওই বিলের মাঝে ১ হাজার ২ শ’ ৬৮ মিটার ইটের রাস্তা নির্মাণ করে দিয়েছে। আর তাতেই ১ হাজার ২শ বিঘা জমির চিত্র বদলাতে শুরু করেছে। বর্তমানে ওই রাস্তার পাশে বিভিন্ন ধরনের সবজি চাষ হয়েছে। বোরো মৌসুমে জমিতে আবাদ শুরু করেছে কৃষক। আশপাশে গড়ে উঠেছে বসতবাড়ি। এখন কৃষকরা সহজেই এখানে চাষাবাদ করে তাদের কষ্টের ফসল ঘরে তুলতে পারবেন। রাস্তার সুবাদে বিলের জায়গার দাম বেড়েছে প্রায় ৪ গুণ।

বর্নি ইউনিয়নের কৃষক ফরহাদ হোসেন বলেন, আগে আমাদের এই বিলে অনেক ধান হত। কিন্তু গত ২৫ বছর ধরে ১ হাজার ২ শ’ বিঘা জমি পতিত হয়ে পড়েছিল। তাই এখানে কোন মানুষ আসত না। এখন এই রাস্তা হওয়াতে আমরা দু’ ইউনিয়নেই সহজে যাওয়া আসা করতে পারি। এখানে অনেক ঘরবাড়ি ও মাছের ঘের তৈরি হয়েছে। আর কৃষকেরা আবার জমিতে আবাদ শুরু করেছেন। আমরা কষ্টের ফসল সহজেই ঘরে তুলছে পরব। এ রাস্তা নির্মিত হওয়ায় আমরা খুবই খুশি।

দক্ষিণ বর্নি গ্রামের মাছ চাষী মান্নান শেখ বলেন, বিলের ওপারে মিত্রডাঙ্গা গ্রামে আমার একটি মাছের ঘের রয়েছে। কচুরি ঠেলে সেই ঘেরে নৌকা নিয়ে যাওয়া আসা করতে হতো। এতে কয়েকঘন্টা সময় লাগতো ও খুব পরিশ্রম হতো। উৎপাদিত মাছ বাজারজাত করতে সমস্যা হত। এখন ঘেরে মোটর সাইকেল, বাই সাইকেল ও ভ্যানে করে যেতে পারি। মাছ ও কৃষি পণ্য সহজে বাজারজাত করতে পারছি। এ রাস্তার জন্য আমাদের আর্থসামাজিক অবস্থার পরিবর্তন ঘটেছে।

গোপালপুরের মিত্রডাঙ্গা গ্রামের গৌতম মন্ডল বলেন, এই একটি রাস্তায় আমাদের কপাল খুলে দিয়েছে। এখন আমরা জমিতে ও রাস্তার পাশ দিয়ে শাকসবজি আবাদ করতে পারছি। এছাড়া মাছের ঘের করতে পারছি। আর রাস্তা দিয়ে সহজেই কষ্টের সফল বিক্রি করে টাকা উপার্জন করছি। একটি রাস্তা আমাদের কয়েকগ্রামের মানুষের দুঃখ কষ্ট লাঘব করেছে।

মিত্রডাঙ্গা গ্রামের আরেক কৃষক শক্তিপদ কীর্তনীয়া বলেন, এই রাস্তার কারণে গত এক বছরে অনেক বসতবাড়ি উঠেছে। কারণ লোকজন সহজেই আসা-যাওয়া করতে পারছে। আগে এখানে এক বিঘা জমি (৫২ শতাংশ) বিক্রি হতো মাত্র ৬ থেকে ৭ লাখ টাকায়। এখন এক বিঘা জমি ২৫ থেকে ৩০ লাখ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। আর এই রাস্তায় আমাদের মতো কৃষকদের খুব উপকার হয়েছে।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আরিফুল ইসলাম বলেন, গোপালপুর ও বর্নি ইউনিয়নের ১ হাজার ২শ’ বিঘা জমি জলাবদ্ধতার কারণে অনাবাদী হিসেবে পড়েছিল। ৫ গ্রামের মানুষের এখানে চলাচলের একমাত্র ভরসা ছিল নৌকা। তাই তাদের দুঃখ লাঘবে কাবিখা প্রকল্পের মাধ্যমে প্রথমে মাটির রাস্তা করে দেয়া হয়। পরে এইচবিবি প্রকল্পের মাধ্যমে মাটির রাস্তা টেকসই করা হয়েছে। এখানে কৃষক ৩ হাজার ৬শ’ মেট্রিক টন খাদ্য উৎপাদন করতে পারছেন। যার বাজার দর ১০ কোটি ৮০ লাখ টাকা। সহজেই কৃষক তাদের উৎপাদিত সফল ঘরে তুলতে পারছেন। এ ফসল বাজারজাত করে ন্যয্যমূল্য পেয়ে লাভবান হচ্ছেন। এ রাস্তা নির্মিত হওয়ায় ২ ইউনিয়নের বিল বেষ্টিত এলাকার ১০ হাজার মানুষের উপকৃত হচ্ছেন।

ছবি

স্বামীকে বাঁচাতে গিয়ে মারা গেলেন অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীও

ছবি

ভাঙা লাইন মেরামত, রাজশাহীর রেল যোগাযোগ স্বাভাবিক

ছবি

কুসিক নির্বাচন : কায়সারের ১২ দফা নির্বাচনী ইশতেহার

ছবি

আদিবাসীদের বরাদ্দকৃত ঘর অসমাপ্ত রেখেই টাকা উত্তোলনের অভিযোগ

ছবি

মায়ানমায় খাদ্য ও জ্বালানি তেল পাচারকালে গ্রেপ্তার ৬

শিবালয়ে কবরস্থান থেকে ১৮টি কঙ্কাল চুরি

ছবি

স্কুলছাত্রীকে অপহরণ: ১৪ বছরের ৬ যুবককে দণ্ড

বগুড়ার শিবগঞ্জে ধানী জমি দখল নিয়ে মারপিটে আহত-৮

ছবি

সখীপুরে ইউপি চেয়ারম্যান প্রতিবেশী নারীকে পেটালেন , সোশ্যাল মিডিয়ায় ভিডিও ভাইরাল

ছবি

নড়াইলে ট্রলির চাপায় এক কিশোরের মৃত্যু

ছবি

সিলেট ট্রাক-অটোরিকশার সংঘর্ষে নারীসহ দুইজন নিহত

ছবি

ঝিনাইদহ: ১৫ বছর আগের হত্যা মামলায় ৫ জনের যাবজ্জীবন

ছবি

অতীতের কোন সরকারই এত উন্নয়ন করতে পারেনি : শিল্পমন্ত্রী

ছবি

নারায়ণগঞ্জে হত্যা মামলায় দুজনের মৃত্যুদণ্ড, একজনের যাবজ্জীবন

ছবি

গাজীপুরে ঝুট গুদামে আগুন

ছবি

নওগাঁয় আদিবাসীদের বরাদ্দকৃত ঘর, কাজ শেষ না করেই টাকা উত্তোলনের অভিযোগ

ছবি

গাজীপু‌রের কালিয়াকৈরে অ‌তি‌রিক্ত মধ্যপানে ৩ জনের মৃত্যু

ছবি

নাফ নদীর ওপারে গোলাগুলির শব্দ-কালো ধোঁয়া, সীমান্তে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ছে

ছবি

দুই কোটি টাকার স্বর্ণসহ দুই যাত্রী আটক

ছবি

আগুনের বিভীষিকা, শোকের মাতম

ছবি

চিহ্নিতের পরেও হয় না ঝুঁকিমুক্ত

এক মুহূর্তেই আনন্দ পরিণত হলো বিষাদে

ছবি

বাড়িতে আসার কথা ছিল, এলো অ্যাম্বুলেন্সে একে একে ৫ লাশ

‘কার্বন মনোক্সাইডের বিষক্রিয়ায় ইন্টার্নাল বার্নে মৃত্যু বেড়েছে’

ছবি

শপথ নিলেন নতুন ৭ প্রতিমন্ত্রী

ছবি

মন্ত্রিসভায় নতুন ৭ প্রতিমন্ত্রী যুক্ত করে প্রজ্ঞাপন জারি

ছবি

চট্টগ্রামে নির্মাণাধীন ভবনে আগুন

ছবি

বাচানো গেল না সাবেক স্বামীর দেওয়া আগুনে দগ্ধ চিকিৎসক লতাকে

ছবি

সালাম মুর্শেদীর বিরুদ্ধে বাড়ি দখলের অভিযোগ: পরবর্তী শুনানী রবিবার

ছবি

সাজা শেষ, ১৫৭ বিদেশিকে ফেরত পাঠানোর নির্দেশ

ছবি

ময়মনসিংহে মদপানের পর অসুস্থ হয়ে দুই ব্যক্তির মৃত্যু

ছবি

আরেক মামলায় জবি শিক্ষার্থী খাদিজাকে অব্যাহতি

ছবি

টাঙ্গাইলে ইঞ্জিন বিকল, উত্তরবঙ্গের সঙ্গে ঢাকার রেল যোগাযোগ বন্ধ

ছবি

শনিবার কমতে পারে ইন্টারনেটের গতি

ছবি

১০ ঘণ্টা পর সিলেটে পরিবহন ধর্মঘট স্থগিত

ছবি

সিলেটে চলছে পরিবহন ধর্মঘট, যাত্রীদের ভোগান্তি

tab

সারাদেশ

একটি রাস্তা নির্মাণে চাষাবাদের আওতায় ১২শ বিঘা জমি

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক, গোপালগঞ্জ

গোপালগঞ্জ : টুঙ্গিপাড়া বর্ণি-গোপালপুর সড়ক -সংবাদ

বুধবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২৩

গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া উপজেলার ৫টি ইউনিয়নের মধ্যে ২টি ইউনিয়ন বর্ণি ও গোপালপুর। এই দু’ ইউনিয়নের মাঝে ৫ শ’ কৃষকের ১ হাজার ২শ’ বিঘা জমি নিম্ন জলাভূমি বেষ্টিত। বছরের অধিকাংশ সময় এসব জমি জলাবদ্ধ থাকত। প্রায় ২৫ বছর যাবৎ এখানে চাষাবাদ হয় না। এ বিলের পানি একটু শুকাতেই প্রাকৃতিকভাবে হোগলা জন্ময়। তাই বিস্তীর্ণ এই জায়গাটির নাম হোগলার বিল। এ বিলের এপার ওপারে মাছের ঘেরে নৌকায় চলাচল করতে হত। কচুরিপানা ঠেলে ঘেরে নৌকায় যাওয়া আসা করতে কয়েক ঘন্টা সময় লাগত। তাই বিলের মাঝে একটি রাস্তা নির্মাণের বহু বছরের দাবি ছিল দু’ ইউনিয়নের অন্তত ৫ হাজার বাসিন্দার। অবশেষে তাদের দাবি পুরণ হয়েছে।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তর গ্রামীণ অবকাঠামো নির্মাণ (কাবিখা) প্রকল্পের আওতায় ২০২২-২৩ অর্থবছরে ৭৬ লাখ টাকা ব্যয়ে ওই বিলের মাঝে ১ হাজার ২ শ’ ৬৮ মিটার ইটের রাস্তা নির্মাণ করে দিয়েছে। আর তাতেই ১ হাজার ২শ বিঘা জমির চিত্র বদলাতে শুরু করেছে। বর্তমানে ওই রাস্তার পাশে বিভিন্ন ধরনের সবজি চাষ হয়েছে। বোরো মৌসুমে জমিতে আবাদ শুরু করেছে কৃষক। আশপাশে গড়ে উঠেছে বসতবাড়ি। এখন কৃষকরা সহজেই এখানে চাষাবাদ করে তাদের কষ্টের ফসল ঘরে তুলতে পারবেন। রাস্তার সুবাদে বিলের জায়গার দাম বেড়েছে প্রায় ৪ গুণ।

বর্নি ইউনিয়নের কৃষক ফরহাদ হোসেন বলেন, আগে আমাদের এই বিলে অনেক ধান হত। কিন্তু গত ২৫ বছর ধরে ১ হাজার ২ শ’ বিঘা জমি পতিত হয়ে পড়েছিল। তাই এখানে কোন মানুষ আসত না। এখন এই রাস্তা হওয়াতে আমরা দু’ ইউনিয়নেই সহজে যাওয়া আসা করতে পারি। এখানে অনেক ঘরবাড়ি ও মাছের ঘের তৈরি হয়েছে। আর কৃষকেরা আবার জমিতে আবাদ শুরু করেছেন। আমরা কষ্টের ফসল সহজেই ঘরে তুলছে পরব। এ রাস্তা নির্মিত হওয়ায় আমরা খুবই খুশি।

দক্ষিণ বর্নি গ্রামের মাছ চাষী মান্নান শেখ বলেন, বিলের ওপারে মিত্রডাঙ্গা গ্রামে আমার একটি মাছের ঘের রয়েছে। কচুরি ঠেলে সেই ঘেরে নৌকা নিয়ে যাওয়া আসা করতে হতো। এতে কয়েকঘন্টা সময় লাগতো ও খুব পরিশ্রম হতো। উৎপাদিত মাছ বাজারজাত করতে সমস্যা হত। এখন ঘেরে মোটর সাইকেল, বাই সাইকেল ও ভ্যানে করে যেতে পারি। মাছ ও কৃষি পণ্য সহজে বাজারজাত করতে পারছি। এ রাস্তার জন্য আমাদের আর্থসামাজিক অবস্থার পরিবর্তন ঘটেছে।

গোপালপুরের মিত্রডাঙ্গা গ্রামের গৌতম মন্ডল বলেন, এই একটি রাস্তায় আমাদের কপাল খুলে দিয়েছে। এখন আমরা জমিতে ও রাস্তার পাশ দিয়ে শাকসবজি আবাদ করতে পারছি। এছাড়া মাছের ঘের করতে পারছি। আর রাস্তা দিয়ে সহজেই কষ্টের সফল বিক্রি করে টাকা উপার্জন করছি। একটি রাস্তা আমাদের কয়েকগ্রামের মানুষের দুঃখ কষ্ট লাঘব করেছে।

মিত্রডাঙ্গা গ্রামের আরেক কৃষক শক্তিপদ কীর্তনীয়া বলেন, এই রাস্তার কারণে গত এক বছরে অনেক বসতবাড়ি উঠেছে। কারণ লোকজন সহজেই আসা-যাওয়া করতে পারছে। আগে এখানে এক বিঘা জমি (৫২ শতাংশ) বিক্রি হতো মাত্র ৬ থেকে ৭ লাখ টাকায়। এখন এক বিঘা জমি ২৫ থেকে ৩০ লাখ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। আর এই রাস্তায় আমাদের মতো কৃষকদের খুব উপকার হয়েছে।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আরিফুল ইসলাম বলেন, গোপালপুর ও বর্নি ইউনিয়নের ১ হাজার ২শ’ বিঘা জমি জলাবদ্ধতার কারণে অনাবাদী হিসেবে পড়েছিল। ৫ গ্রামের মানুষের এখানে চলাচলের একমাত্র ভরসা ছিল নৌকা। তাই তাদের দুঃখ লাঘবে কাবিখা প্রকল্পের মাধ্যমে প্রথমে মাটির রাস্তা করে দেয়া হয়। পরে এইচবিবি প্রকল্পের মাধ্যমে মাটির রাস্তা টেকসই করা হয়েছে। এখানে কৃষক ৩ হাজার ৬শ’ মেট্রিক টন খাদ্য উৎপাদন করতে পারছেন। যার বাজার দর ১০ কোটি ৮০ লাখ টাকা। সহজেই কৃষক তাদের উৎপাদিত সফল ঘরে তুলতে পারছেন। এ ফসল বাজারজাত করে ন্যয্যমূল্য পেয়ে লাভবান হচ্ছেন। এ রাস্তা নির্মিত হওয়ায় ২ ইউনিয়নের বিল বেষ্টিত এলাকার ১০ হাজার মানুষের উপকৃত হচ্ছেন।

back to top