alt

সারাদেশ

দক্ষিণ চট্টগ্রামের যোগাযোগ সহজ করেছে আনোয়ারার চার সেতু 

কাঞ্চন সুশীল, আনোয়ারা (চট্টগ্রাম) : বৃহস্পতিবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২৩

দক্ষিণ চট্টগ্রামের গুরুত্বপূর্ণ একটি উপজেলা আনোয়ারা। চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার জেলার বেশ কিছু উপজেলাসহ পুরো দক্ষিণাঞ্চলে যাতায়াতের মূল সড়ক গেছে দ্রুত উন্নয়নশীল এই উপজেলার ওপর দিয়ে। মূলত শাহ্ আমানত সেতুর পরই কর্ণফুলী উপজেলা হয়ে দক্ষিণ চট্টগ্রামের প্রবেশ পথ এই আনোয়ারা। 

মূল সড়কগুলোর সংযুক্তিতে রয়েছে বেশকিছু গুরুত্বপূর্ণ সেতু। তন্মধ্যে অন্যতম হচ্ছে বাঁশখালী পিএবি সড়কের তৈলারদ্বীপ সেতু, আনোয়ারা-পটিয়া আরকান সড়কের মুরালী সেতু, পটিয়া-আনোয়ারা কালীগঞ্জ সেতু এবং আরাকান সড়ক সংযুক্ত চন্দনাইশের পিএবি সড়কে অবস্থিত বরকল সেতু। একমাত্র তৈলারদ্বীপ সেতু ছাড়া বিগত পাঁচ বছর আগেও ছিল না বাকি এই  তিন সেতু। জোড়াতালি দেয়া কালীগঞ্জ, বরকল বেইলি ব্রিজ থাকলেও মুরালী খালে যাতায়াতে ভরসা ছিল শুধুই সাম্পান। সেতু না থাকায় ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করতে হতো দক্ষিণ চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারের জনসাধারণকে। 

এদিকে দেশের অন্যতম মেগা প্রকল্প ‘বঙ্গবন্ধু টানেল’ চালু হয়েছে গত ২৮ অক্টোবর। টানেলকে ঘিরে আনোয়ারা হয়ে উঠছে অন্যতম প্রধান বাণিজ্যিক অঞ্চল। মেগা প্রকল্পকে ঘিরে ইতিমধ্যে আনোয়ারার চার সংযোগ সড়কের তিন খালে নির্মাণ হয়েছে সংযোগ সেতু। এতে আনোয়ারার অর্থনীতি তো ফুলেফেঁপে উঠছেই, দক্ষিণ চট্টগ্রামের যাতায়াত ব্যবস্থাও সহজ ও ঝুঁকিমুক্ত হয়েছে বলে মনে করেছেন স্থানীয়রা। সেতুগুলোর কল্যাণে কক্সবাজারের সঙ্গে চট্টগ্রামের যোগাযোগ আরও সহজাত  হয়েছে বলে মনে করছেন সেতু সংশ্লিষ্টরা। ইতিমধ্যে পুরো দক্ষিণ চট্টগ্রামেরই আর্থ-সামাজিক অবস্থায় এর প্রভাব পড়তে শুরু করেছে।

তৈলারদ্বীপ সেতু : পাঁচ বছর আগেও আনোয়ারার সঙ্গে দক্ষিণ চট্টগ্রামের সংযোগে একমাত্র সেতু ছিল শঙ্খ নদীর ওপর অবস্থিত তৈলারদ্বীপ সেতু। ১৯৯৯ সালে চট্টগ্রাম-কক্সবাজারের বিকল্প সড়ক হিসেবে পরিচিত আনোয়ারা-বাঁশখালী সীমান্তে শঙ্খ নদীতে সেতুটির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ২০০৫ সালের শেষদিকে এসে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া সেতুটির উদ্বোধন করেন। এই সেতুর মাধ্যমেই স্থাপিত হয়েছিল আনোয়ারার পিএবি সড়ক হয়ে দক্ষিণ চট্টগ্রামসহ কক্সবাজার জেলার নতুন সংযোগ। বর্তমানে এই সড়ক দিয়ে ৫টি সার্ভিসের গাড়ি চলাচল করছে।

কালীগঞ্জ সেতু : দীর্ঘ দুই যুগ পর ২০২১ সালে এসে পূর্ণাঙ্গ রূপ পেয়েছে আনোয়ারা-পটিয়া সংযোগ সড়কের কালীগঞ্জ সেতু। দুই উপজেলার সংযোগ স্থাপনকারী মুরালী শিকলবাহা খালের ওপর ৩৭ কোটি টাকা ব্যয়ে গুরুত্বপূর্ণ এই সেতুটি নির্মাণের ফলে যোগাযোগের ক্ষেত্রে নতুন দিগন্তের সূচনা হয়েছে আনোয়ারা ও পটিয়া উপজেলায়। পাশাপাশি সহজ হয়েছে আনোয়ারা ও পশ্চিম চন্দনাইশের সঙ্গে পটিয়ার বিরাট একটি অংশের জনগণের যাতায়াত। ৩৭ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত সেতুটি নির্মাণ করেছে সড়ক ও জনপদ বিভাগ-সওজ। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, স্বাধীনতার আগে ১৯৭০ সালে সেতুটির নির্মাণকাজ শুরু হয়। মাঝখানে যুদ্ধাবস্থায় এক বছর বন্ধ থাকার পর ১৯৭২ সালে ব্রিজটি নির্মাণ হয়। আশির দশকে আনোয়ারা উপজেলায় উন্নীত হলে এ সেতু দিয়ে শুরু হয় বাস চলাচল। ওই সময় থেকে পূর্ব আনোয়ারার লোকজন এই সেতু দিয়েই যাতায়াত করতেন চট্টগ্রাম শহরে। 

মুরালী সেতু : পটিয়া ও আনোয়ারাবাসীর বহুল প্রত্যাশিত আরেক সেতু হচ্ছে মুরালী সেতু। ২০১৯ সালের ১৭ জুলাই শুরু হয় এই সেতুর কাজ। সেতু নির্মাণের আগে মুরালী খালে যাতায়াতের একমাত্র ভরসা ছিল সাম্পান। অত্যাধুনিক পিসি গার্ডার সেতুটির নির্মাণ ব্যয় ৩০.৬৩ কোটি ধরা হলেও এতে ব্যয় হয়েছে প্রায় ২৬ কোটি টাকা। ৭৩০ কার্যদিবসের মধ্যে নির্মাণকাজ সম্পন্ন হয় সেতুটির। সেতুর দৈর্ঘ্য ১০৬.৮৯ মিটার, প্রস্থ ১০.২৫ মিটার। ২৫০ মিটার করে মোট ৫০০ মিটার সংযোগ সড়ক নির্মাণ করা হয়েছে সেতুর দুই প্রান্তে। এই সেতু নির্মাণের ফলে দুই উপজেলার জনসাধারণই কেবল সুফল ভোগ করছে না; আরকান সড়ক হয়ে দক্ষিণ চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারের বিকল্প সড়ক হিসেবেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে এই সেতু। 

বরকল সেতু : দক্ষিণ চট্টগ্রামের যোগাযোগে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে যাচ্ছে বরকল সেতু। এই সেতু নির্মাণের ফলে ঝুঁকিমুক্ত হয়েছে আরাকান রোড সংযুক্ত পিএবি সড়কের যাতায়াত। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, পূর্ণাঙ্গ সেতু নির্মাণের জন্য সম্পূর্ণ অস্থায়ী ভিত্তিতে চাঁনখালী খালের ওপর ১৯৯৪ সালে এক কোটি টাকা ব্যয়ে বেইলি সেতু নির্মাণ করে সড়ক ও জনপথ বিভাগ। কিন্তু দীর্ঘ দুই যুগের বেশি সময় পার হলেও কর্তৃপক্ষের অবহেলায় নির্মাণ হয়নি পূর্ণাঙ্গ সেতু। সেই থেকে স্থানীয়রা ঝুঁকিপূর্ণ সেই বেইলি সেতুটির স্থলে স্থায়ীভাবে সেতু নির্মাণের দাবিতে একাধিকবার মানববন্ধন ও সভা-সমাবেশ করে সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করার চেষ্টা করে। পরে ২০১৫ সালে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের চাঁনখালী খালের ওপর ঝুঁকিপূর্ণ বেইলি সেতুটি পরিদর্শন করে দ্রুত একটি পিসি গার্ডার সেতু নির্মাণের নির্দেশ দিয়েছিলেন। সেই নির্দেশের আলোকেই বরকল সেতু নির্মাণ প্রকল্প বাস্তবায়ন হয়েছে। ২৮ কোটি ১১ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত অত্যাধুনিক পিসি গার্ডারবিশিষ্ট সেতুটির দৈর্ঘ্য ১১৮ মিটার আর প্রস্থ ১০.২৫ মিট

আনোয়ারার এই চার সেতু নির্মাণের ফলে কী প্রভাব পড়বে তা নিয়ে কথা হয়, সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী সুমন সিংহের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘দেশের সবচেয়ে বড় মেগা প্রকল্প বঙ্গবন্ধু টানেল। আনোয়ারাকে তাই অর্থনৈতিক এলাকা হিসেবে চিহ্নিত করে আনোয়ারা সংযোগ সড়ক ও সেতুগুলো নির্মাণ করা হয়েছে। টানেলের বদৌলতে আনোয়ারায় যে আঞ্চলিক বাজার হবে তা ঝুঁকিমুক্ত হবে। 

এই চার সেতু উন্নয়নে কী ভূমিকা রাখবে তা নিয়ে জানতে চাইলে আনোয়ারা উপজেলা চেয়ারম্যান তৌহিদুল হক চৌধুরী বলেন, ‘বর্তমানে আনোয়ারা একটি অর্থনৈতিক জোন। এটি একটি পর্যায়ে দেশের অর্থনৈতিক আঞ্চলিক বাজারে পরিণত হবে। উন্নয়নে মূল ভূমিকা থাকে যোগাযোগ ব্যবস্থার। পাশাপাশি এসব সেতুর মাধ্যমে বঙ্গবন্ধু টানেলের সঙ্গে সরাসরি সংযুক্ত হতে পারবে পটিয়া, চন্দনাইশ, লোহাগাড়া, সাতকানিয়া উপজেলাসহ পুরো দক্ষিণ চট্টগ্রাম। সব মিলিয়ে পাল্টে যাবে দক্ষিণ চট্টগ্রামের আর্থ-সামাজিক অবস্থা।

ছবি

টেকনাফ সীমান্তে ফের গোলাগুলির শব্দ, আতঙ্কে সাধারণ মানুষ

ছবি

মৌলভীবাজারে শহীদ মিনারে পুলিশের ওপর আ.লীগের হামলা

ছবি

বারি ও মদিনা টেক এর মধ্যে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর

ছবি

গাজীপু‌রে সোয়া লাখ পিস ইয়াব উদ্ধার, আটক ৪ মাদক কারবারী

ছবি

গাজীপুরে কারখানা শ্রমিকদের মাঝে নিত্যপণ্য সামগ্রী বিতরণ

ছবি

নওগাঁয় ভয়াবহ ‘প্রক্সিকাণ্ড’ ৫৯ দাখিল পরীক্ষার্থীই ভুয়া

ছবি

অস্ত্রসহ পালিয়ে আসা রোহিঙ্গারা গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছে : পুলিশ

ছবি

উপজেলা নির্বাচনে জামানত ‘বহুগুণ’ বাড়াতে চায় ইসি

ছবি

নগরীর সমস্যা নিয়ে পোস্টার: কবি ও গ্রাফিক ডিজাইনার শামীম কারাগারে

ছবি

চাঁপাইনবাবগঞ্জে স্কুলছাত্র হত্যায় দুজনের যাবজ্জীবন

ছবি

দাখিল পরীক্ষা দিচ্ছিল অন্যের হয়ে, নওগাঁয় ৫৯ জন আটক

ছবি

কক্সবাজারের সুগন্ধ্যা বীচের নতুন নাম ‘বঙ্গবন্ধু বীচ’

ছবি

গাইবান্ধার ডিসিকে প্রত্যাহারের দাবিতে মানববন্ধন, না মানলে বৃহত্তর কর্মসুচি

ছবি

হত্যার ১৪ বছর পর ৫ জনের মৃত্যুদণ্ড

ছবি

ঢাকা-কক্সবাজার রুটে ‘বিশেষ ট্রেন’

মোল্লাহাটে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দুই গ্রুপে সংঘর্ষ, নিহত ১, পুলিশসহ আহত ২৮

শরীয়তপুরে ধুতুরাপাতা খেয়ে নারী ও শিশুসহ একই পরিবারের ৬ জন অসুস্থ, দুজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক

ছবি

মিরপুরে ঝিলপাড় বস্তিতে আগুন, নিয়ন্ত্রণে ৮ ইউনিট

ছবি

জয়পুরহাটে হত্যা মামলায় মা-ছেলেসহ পাঁচজনের মৃত্যুদণ্ড

ছবি

ঢাকা-কক্সবাজার পথে পাঁচ দিনে ৫ ‘বিশেষ ট্রেন’

ছবি

গাজীপুরে ট্রাকচাপায় নিহত ৩

রাজশাহীতে কুড়িয়ে পাওয়া বরই খেয়ে দুই শিশুর মৃত্যু

ছবি

ভাতিজার লাঠির আঘাতে চাচা নিহত

ছবি

অপহরণের ৬ দিন পর মুক্তিপণে ফিরলো স্কুল ছাত্র

ছবি

ময়মনসিংহে ডোবায় মিলল বস্তাবন্দি অজ্ঞাত নারীর লাশ

ছবি

অনুপ্রবেশের অপেক্ষায় নাফনদীতে হাজারো রোহিঙ্গা, সতর্ক অবস্থানে বিজিবি

ছবি

রাজশাহীতে দুই শিশুর মৃত্যুর কারণ নিপা ভাইরাস নয় : আইইডিসিআর

ছবি

টাঙ্গাইলে পিকআপ-অটোরিকশা সংঘর্ষে নিহত ৪

ছবি

অনুপ্রবেশকারী ৫ রোহিঙ্গাকে মায়ানমারে ফেরত

ছবি

গুলিবিদ্ধ নারীসহ পাঁচ রোহিঙ্গার অনুপ্রবেশ

ছবি

অজানা ভাইরাসে ২ মেয়ের মৃত্যুর পর মা-বাবাকে নেওয়া হলো আইসোলেশনে

ছবি

গুলিবিদ্ধ নারীসহ মায়ানমারের ৫ রোহিঙ্গার অনুপ্রবেশ

ছবি

‘মাদকনির্ভরশীলতা এবং মানসিক রোগীদের চিকিৎসা গুরুত্বপূর্ণ’

ছবি

কক্সবাজারে তিনদিনে পেটে ডিমসহ ৬ মৃত কাছিম উদ্ধার

ছবি

আবারও কাঁপল টেকনাফ সীমান্ত, নাফনদীর ওপারে থেমে থেমে বিস্ফোণের শব্দ

ছবি

সারাদেশে নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহের লক্ষ্যে কাজ করছে সরকার : শিল্পমন্ত্রী

tab

সারাদেশ

দক্ষিণ চট্টগ্রামের যোগাযোগ সহজ করেছে আনোয়ারার চার সেতু 

কাঞ্চন সুশীল, আনোয়ারা (চট্টগ্রাম)

বৃহস্পতিবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২৩

দক্ষিণ চট্টগ্রামের গুরুত্বপূর্ণ একটি উপজেলা আনোয়ারা। চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার জেলার বেশ কিছু উপজেলাসহ পুরো দক্ষিণাঞ্চলে যাতায়াতের মূল সড়ক গেছে দ্রুত উন্নয়নশীল এই উপজেলার ওপর দিয়ে। মূলত শাহ্ আমানত সেতুর পরই কর্ণফুলী উপজেলা হয়ে দক্ষিণ চট্টগ্রামের প্রবেশ পথ এই আনোয়ারা। 

মূল সড়কগুলোর সংযুক্তিতে রয়েছে বেশকিছু গুরুত্বপূর্ণ সেতু। তন্মধ্যে অন্যতম হচ্ছে বাঁশখালী পিএবি সড়কের তৈলারদ্বীপ সেতু, আনোয়ারা-পটিয়া আরকান সড়কের মুরালী সেতু, পটিয়া-আনোয়ারা কালীগঞ্জ সেতু এবং আরাকান সড়ক সংযুক্ত চন্দনাইশের পিএবি সড়কে অবস্থিত বরকল সেতু। একমাত্র তৈলারদ্বীপ সেতু ছাড়া বিগত পাঁচ বছর আগেও ছিল না বাকি এই  তিন সেতু। জোড়াতালি দেয়া কালীগঞ্জ, বরকল বেইলি ব্রিজ থাকলেও মুরালী খালে যাতায়াতে ভরসা ছিল শুধুই সাম্পান। সেতু না থাকায় ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করতে হতো দক্ষিণ চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারের জনসাধারণকে। 

এদিকে দেশের অন্যতম মেগা প্রকল্প ‘বঙ্গবন্ধু টানেল’ চালু হয়েছে গত ২৮ অক্টোবর। টানেলকে ঘিরে আনোয়ারা হয়ে উঠছে অন্যতম প্রধান বাণিজ্যিক অঞ্চল। মেগা প্রকল্পকে ঘিরে ইতিমধ্যে আনোয়ারার চার সংযোগ সড়কের তিন খালে নির্মাণ হয়েছে সংযোগ সেতু। এতে আনোয়ারার অর্থনীতি তো ফুলেফেঁপে উঠছেই, দক্ষিণ চট্টগ্রামের যাতায়াত ব্যবস্থাও সহজ ও ঝুঁকিমুক্ত হয়েছে বলে মনে করেছেন স্থানীয়রা। সেতুগুলোর কল্যাণে কক্সবাজারের সঙ্গে চট্টগ্রামের যোগাযোগ আরও সহজাত  হয়েছে বলে মনে করছেন সেতু সংশ্লিষ্টরা। ইতিমধ্যে পুরো দক্ষিণ চট্টগ্রামেরই আর্থ-সামাজিক অবস্থায় এর প্রভাব পড়তে শুরু করেছে।

তৈলারদ্বীপ সেতু : পাঁচ বছর আগেও আনোয়ারার সঙ্গে দক্ষিণ চট্টগ্রামের সংযোগে একমাত্র সেতু ছিল শঙ্খ নদীর ওপর অবস্থিত তৈলারদ্বীপ সেতু। ১৯৯৯ সালে চট্টগ্রাম-কক্সবাজারের বিকল্প সড়ক হিসেবে পরিচিত আনোয়ারা-বাঁশখালী সীমান্তে শঙ্খ নদীতে সেতুটির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ২০০৫ সালের শেষদিকে এসে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া সেতুটির উদ্বোধন করেন। এই সেতুর মাধ্যমেই স্থাপিত হয়েছিল আনোয়ারার পিএবি সড়ক হয়ে দক্ষিণ চট্টগ্রামসহ কক্সবাজার জেলার নতুন সংযোগ। বর্তমানে এই সড়ক দিয়ে ৫টি সার্ভিসের গাড়ি চলাচল করছে।

কালীগঞ্জ সেতু : দীর্ঘ দুই যুগ পর ২০২১ সালে এসে পূর্ণাঙ্গ রূপ পেয়েছে আনোয়ারা-পটিয়া সংযোগ সড়কের কালীগঞ্জ সেতু। দুই উপজেলার সংযোগ স্থাপনকারী মুরালী শিকলবাহা খালের ওপর ৩৭ কোটি টাকা ব্যয়ে গুরুত্বপূর্ণ এই সেতুটি নির্মাণের ফলে যোগাযোগের ক্ষেত্রে নতুন দিগন্তের সূচনা হয়েছে আনোয়ারা ও পটিয়া উপজেলায়। পাশাপাশি সহজ হয়েছে আনোয়ারা ও পশ্চিম চন্দনাইশের সঙ্গে পটিয়ার বিরাট একটি অংশের জনগণের যাতায়াত। ৩৭ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত সেতুটি নির্মাণ করেছে সড়ক ও জনপদ বিভাগ-সওজ। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, স্বাধীনতার আগে ১৯৭০ সালে সেতুটির নির্মাণকাজ শুরু হয়। মাঝখানে যুদ্ধাবস্থায় এক বছর বন্ধ থাকার পর ১৯৭২ সালে ব্রিজটি নির্মাণ হয়। আশির দশকে আনোয়ারা উপজেলায় উন্নীত হলে এ সেতু দিয়ে শুরু হয় বাস চলাচল। ওই সময় থেকে পূর্ব আনোয়ারার লোকজন এই সেতু দিয়েই যাতায়াত করতেন চট্টগ্রাম শহরে। 

মুরালী সেতু : পটিয়া ও আনোয়ারাবাসীর বহুল প্রত্যাশিত আরেক সেতু হচ্ছে মুরালী সেতু। ২০১৯ সালের ১৭ জুলাই শুরু হয় এই সেতুর কাজ। সেতু নির্মাণের আগে মুরালী খালে যাতায়াতের একমাত্র ভরসা ছিল সাম্পান। অত্যাধুনিক পিসি গার্ডার সেতুটির নির্মাণ ব্যয় ৩০.৬৩ কোটি ধরা হলেও এতে ব্যয় হয়েছে প্রায় ২৬ কোটি টাকা। ৭৩০ কার্যদিবসের মধ্যে নির্মাণকাজ সম্পন্ন হয় সেতুটির। সেতুর দৈর্ঘ্য ১০৬.৮৯ মিটার, প্রস্থ ১০.২৫ মিটার। ২৫০ মিটার করে মোট ৫০০ মিটার সংযোগ সড়ক নির্মাণ করা হয়েছে সেতুর দুই প্রান্তে। এই সেতু নির্মাণের ফলে দুই উপজেলার জনসাধারণই কেবল সুফল ভোগ করছে না; আরকান সড়ক হয়ে দক্ষিণ চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারের বিকল্প সড়ক হিসেবেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে এই সেতু। 

বরকল সেতু : দক্ষিণ চট্টগ্রামের যোগাযোগে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে যাচ্ছে বরকল সেতু। এই সেতু নির্মাণের ফলে ঝুঁকিমুক্ত হয়েছে আরাকান রোড সংযুক্ত পিএবি সড়কের যাতায়াত। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, পূর্ণাঙ্গ সেতু নির্মাণের জন্য সম্পূর্ণ অস্থায়ী ভিত্তিতে চাঁনখালী খালের ওপর ১৯৯৪ সালে এক কোটি টাকা ব্যয়ে বেইলি সেতু নির্মাণ করে সড়ক ও জনপথ বিভাগ। কিন্তু দীর্ঘ দুই যুগের বেশি সময় পার হলেও কর্তৃপক্ষের অবহেলায় নির্মাণ হয়নি পূর্ণাঙ্গ সেতু। সেই থেকে স্থানীয়রা ঝুঁকিপূর্ণ সেই বেইলি সেতুটির স্থলে স্থায়ীভাবে সেতু নির্মাণের দাবিতে একাধিকবার মানববন্ধন ও সভা-সমাবেশ করে সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করার চেষ্টা করে। পরে ২০১৫ সালে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের চাঁনখালী খালের ওপর ঝুঁকিপূর্ণ বেইলি সেতুটি পরিদর্শন করে দ্রুত একটি পিসি গার্ডার সেতু নির্মাণের নির্দেশ দিয়েছিলেন। সেই নির্দেশের আলোকেই বরকল সেতু নির্মাণ প্রকল্প বাস্তবায়ন হয়েছে। ২৮ কোটি ১১ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত অত্যাধুনিক পিসি গার্ডারবিশিষ্ট সেতুটির দৈর্ঘ্য ১১৮ মিটার আর প্রস্থ ১০.২৫ মিট

আনোয়ারার এই চার সেতু নির্মাণের ফলে কী প্রভাব পড়বে তা নিয়ে কথা হয়, সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী সুমন সিংহের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘দেশের সবচেয়ে বড় মেগা প্রকল্প বঙ্গবন্ধু টানেল। আনোয়ারাকে তাই অর্থনৈতিক এলাকা হিসেবে চিহ্নিত করে আনোয়ারা সংযোগ সড়ক ও সেতুগুলো নির্মাণ করা হয়েছে। টানেলের বদৌলতে আনোয়ারায় যে আঞ্চলিক বাজার হবে তা ঝুঁকিমুক্ত হবে। 

এই চার সেতু উন্নয়নে কী ভূমিকা রাখবে তা নিয়ে জানতে চাইলে আনোয়ারা উপজেলা চেয়ারম্যান তৌহিদুল হক চৌধুরী বলেন, ‘বর্তমানে আনোয়ারা একটি অর্থনৈতিক জোন। এটি একটি পর্যায়ে দেশের অর্থনৈতিক আঞ্চলিক বাজারে পরিণত হবে। উন্নয়নে মূল ভূমিকা থাকে যোগাযোগ ব্যবস্থার। পাশাপাশি এসব সেতুর মাধ্যমে বঙ্গবন্ধু টানেলের সঙ্গে সরাসরি সংযুক্ত হতে পারবে পটিয়া, চন্দনাইশ, লোহাগাড়া, সাতকানিয়া উপজেলাসহ পুরো দক্ষিণ চট্টগ্রাম। সব মিলিয়ে পাল্টে যাবে দক্ষিণ চট্টগ্রামের আর্থ-সামাজিক অবস্থা।

back to top