alt

সারাদেশ

পাগলা মসজিদের দানবাক্সে মিলল ২৩ বস্তা টাকা

প্রতিনিধি, কিশোরগঞ্জ : শনিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২৩

কিশোরগঞ্জ : চলছে টাকা গণনা -সংবাদ

কিশোরগঞ্জের ঐতিহাসিক পাগলা মসজিদের দানবাক্সে ৩ মাস ২০ দিন পর মিলেছে ২৩ বস্তা টাকা। শনিবার (৯ ডিসেম্বর) সকালে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আবুল কালাম আজাদ ও পুলিশ সুপার মোহাম্মদ রাসেল শেখের উপস্থিতিতে মসজিদের ৯টি দান বাক্স খোলা হয়। পরে টাকাগুলো ২৩ টি বস্তায় ভরে মসজিদের দোতলায় নিয়ে সেখানে শুরু হয়েছে গণনা। রূপালী ব্যাংকের উপমহাব্যবস্থাপক রফিকুল ইসলামসহ ব্যাংকের কর্মকর্তা-কর্মচারী, মসজিদের এতিমখান ও মাদ্রাসার শিক্ষক কর্মচারীসহ দুই শতাধিক লোক গণনার কাজে অংশ নিয়েছেন। এছাড়া সার্বিক নিরাপত্তায় আনসার ও ১০ জন পুলিশ দায়িত্ব পালন করছেন।

পাগলা মসজিদের প্রশাসনিক কর্মকর্তা বীর মুক্তিযোদ্ধা শওকত আলী জানান, এর আগে গত ১৯ আগস্ট ৩ মাস ১৩ দিন পর মসজিদের দানবাক্সগুলো খোলা হয়েছিল। সেখানে ১৯ বস্তায় ৫ কোটি ৭৮ লাখ ৯ হাজার ৩২৫ টাকা, বৈদেশিক মুদ্রা ও স্বর্ণালঙ্কার পাওয়া গিয়েছিল। এবার তার চেয়ে বেশী টাকা ও স্বর্ণালঙ্কার পাওয়া যাবে বলে তিনি জানান।

জেলা শহরের পশ্চিম প্রান্তে নরসুন্দা নদীর তীরে হারুয়া এলাকায় পাগলা মসজিদের অবস্থান। সুউচ্চ মিনার ও তিন গম্বুজ বিশিষ্ট তিনতলা পাগলা মসজিদটি কিশোরগঞ্জের অন্যতম ঐতিহাসিক স্থাপনা। মসজিদকে ঘিরে মানুষের কৌতুহলের শেষ নেই। এ মসজিদে দান করলে মনোবাসনা পূর্ণ হয়- এ বিশ্বাস থেকেই পাগলা মসজিদে দেশ বিদেশের নানা ধর্ম ও বর্ণের মানুষ টাকা পয়সা, স্বর্ণালঙ্কার ও বৈদেশিক মুদ্রা দান করে থাকেন। অনেকে রাতে গোপনে এসে এ মসজিদে দান করেন বলে জানা গেছে।

জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আবুল কালাম আজাদ জানান, পাগলা মসজিদকে ঘিরে দেশ বিদেশের মানুষের অনুভূতি কাজ করে। তাই সকল ধর্মের মানুষ এখানে দান করে থাকেন। দানের এ টাকা দিয়ে শতকোটি টাকার একটি দৃষ্টিনন্দন মসজিদ নিমার্ণ করা হবে। অন্তত ৩০ হাজার মানুষ যাতে একসাথে নামাজ পড়তে পারে এমন একটি দৃষ্টিনন্দন মসজিদ নিমার্ণের প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে। এ ছাড়া জেলার মসজিদ, মাদ্রাসা ও হতদরিদ্রদের জঠিল ও কঠিন চিকিৎসা খাতে অনুদান দেয়া হয়ে থাকে বলে তিনি জানান। উল্লেখ্য, প্রায় পাঁচশত বছর পূর্বে বাংলার বারো ভূঁইয়ার অন্যতম ঈশা খানের আমলে দেওয়ান জিলকদর খান ওরফে জিলকদর পাগলা নরসুন্দা নদীর তীরে বসে নামাজ আদায় করতেন। তিনি মারা গেলে পরবর্তীতে তারঁ ভক্তরা সেখানে মসজিদটি নিমার্ণ করেন।

ছবি

মায়ের জানাজায় ইতালি থেকে এসে নিজেই লাশ হলেন শাহ আলম

ছবি

নরসিংদীতে কলেজ ছাত্র নিহত

ছবি

অবসরের ৬ মাসের মধ্যে এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীদেরকে ভাতা দেওয়ার নির্দেশ

৯ রোহিঙ্গাকে অনুপ্রবেশের সময় মায়ানমারে ফেরত পাঠাল বিজিবি

ছবি

নোয়াখালীতে খৎনায় ভুল, অতিরিক্ত রক্তপাতে সংকটে শিশুর স্বাস্থ্য

ছবি

রাজধানীর আকাশ মেঘলা আকাশ, কয়েকটি স্থানে বৃষ্টির পূর্বাভাস

ছবি

রাজবাড়ীর শহীদ মিনারে বেদির ফুল নি‌য়ে যাওয়ার ভি‌ডিও ধারণ, সাংবাদিককে মারধর

ছবি

রাজবাড়ীর শহীদ মিনারে বেদির ফুল নি‌য়ে যাওয়ার ভি‌ডিও ধারণ, সাংবাদিককে মারধর

ছবি

গাজীপুরে নিখোঁজ মাদ্রাসা ছাত্রের লাশ উদ্ধার

ছবি

বারি’তে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপিত হয়েছে

ছবি

শহীদ মিনার থেকে ফুল দিয়ে ফেরার পথে যুবলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা

ছবি

১ কোটি ৬০ লাখ টাকা মূল্যের সোনাসহ এক যাত্রী আটক

ছবি

গাজীপুরে নদী থেকে নিখোঁজ মাদরাসা ছাত্রের লাশ উদ্ধার

ছবি

বরিশালে নিজের ফাঁদে প্রাণ গেল কৃষকের

দুই মেয়েকে বিষ পান করিয়ে মায়েরও বিষ পান, মায়ের মৃত্যু

ছবি

পর্যটকবাহী বাস-পিকআপ সংঘর্ষে দুই নারী নিহত, আহত ১৫

ছবি

টেকনাফ সীমান্তে ফের গোলাগুলির শব্দ, আতঙ্কে সাধারণ মানুষ

ছবি

ফুল দেয়া নিয়ে মৌলভীবাজারে শহীদ মিনারে বাক-বিতন্ডা

ছবি

বারি ও মদিনা টেক এর মধ্যে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর

ছবি

গাজীপু‌রে সোয়া লাখ পিস ইয়াব উদ্ধার, আটক ৪ মাদক কারবারী

ছবি

গাজীপুরে কারখানা শ্রমিকদের মাঝে নিত্যপণ্য সামগ্রী বিতরণ

ছবি

নওগাঁয় ভয়াবহ ‘প্রক্সিকাণ্ড’ ৫৯ দাখিল পরীক্ষার্থীই ভুয়া

ছবি

অস্ত্রসহ পালিয়ে আসা রোহিঙ্গারা গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছে : পুলিশ

ছবি

উপজেলা নির্বাচনে জামানত ‘বহুগুণ’ বাড়াতে চায় ইসি

ছবি

নগরীর সমস্যা নিয়ে পোস্টার: কবি ও গ্রাফিক ডিজাইনার শামীম কারাগারে

ছবি

চাঁপাইনবাবগঞ্জে স্কুলছাত্র হত্যায় দুজনের যাবজ্জীবন

ছবি

দাখিল পরীক্ষা দিচ্ছিল অন্যের হয়ে, নওগাঁয় ৫৯ জন আটক

ছবি

কক্সবাজারের সুগন্ধ্যা বীচের নতুন নাম ‘বঙ্গবন্ধু বীচ’

ছবি

গাইবান্ধার ডিসিকে প্রত্যাহারের দাবিতে মানববন্ধন, না মানলে বৃহত্তর কর্মসুচি

ছবি

হত্যার ১৪ বছর পর ৫ জনের মৃত্যুদণ্ড

ছবি

ঢাকা-কক্সবাজার রুটে ‘বিশেষ ট্রেন’

মোল্লাহাটে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দুই গ্রুপে সংঘর্ষ, নিহত ১, পুলিশসহ আহত ২৮

শরীয়তপুরে ধুতুরাপাতা খেয়ে নারী ও শিশুসহ একই পরিবারের ৬ জন অসুস্থ, দুজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক

ছবি

মিরপুরে ঝিলপাড় বস্তিতে আগুন, নিয়ন্ত্রণে ৮ ইউনিট

ছবি

জয়পুরহাটে হত্যা মামলায় মা-ছেলেসহ পাঁচজনের মৃত্যুদণ্ড

ছবি

ঢাকা-কক্সবাজার পথে পাঁচ দিনে ৫ ‘বিশেষ ট্রেন’

tab

সারাদেশ

পাগলা মসজিদের দানবাক্সে মিলল ২৩ বস্তা টাকা

প্রতিনিধি, কিশোরগঞ্জ

কিশোরগঞ্জ : চলছে টাকা গণনা -সংবাদ

শনিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২৩

কিশোরগঞ্জের ঐতিহাসিক পাগলা মসজিদের দানবাক্সে ৩ মাস ২০ দিন পর মিলেছে ২৩ বস্তা টাকা। শনিবার (৯ ডিসেম্বর) সকালে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আবুল কালাম আজাদ ও পুলিশ সুপার মোহাম্মদ রাসেল শেখের উপস্থিতিতে মসজিদের ৯টি দান বাক্স খোলা হয়। পরে টাকাগুলো ২৩ টি বস্তায় ভরে মসজিদের দোতলায় নিয়ে সেখানে শুরু হয়েছে গণনা। রূপালী ব্যাংকের উপমহাব্যবস্থাপক রফিকুল ইসলামসহ ব্যাংকের কর্মকর্তা-কর্মচারী, মসজিদের এতিমখান ও মাদ্রাসার শিক্ষক কর্মচারীসহ দুই শতাধিক লোক গণনার কাজে অংশ নিয়েছেন। এছাড়া সার্বিক নিরাপত্তায় আনসার ও ১০ জন পুলিশ দায়িত্ব পালন করছেন।

পাগলা মসজিদের প্রশাসনিক কর্মকর্তা বীর মুক্তিযোদ্ধা শওকত আলী জানান, এর আগে গত ১৯ আগস্ট ৩ মাস ১৩ দিন পর মসজিদের দানবাক্সগুলো খোলা হয়েছিল। সেখানে ১৯ বস্তায় ৫ কোটি ৭৮ লাখ ৯ হাজার ৩২৫ টাকা, বৈদেশিক মুদ্রা ও স্বর্ণালঙ্কার পাওয়া গিয়েছিল। এবার তার চেয়ে বেশী টাকা ও স্বর্ণালঙ্কার পাওয়া যাবে বলে তিনি জানান।

জেলা শহরের পশ্চিম প্রান্তে নরসুন্দা নদীর তীরে হারুয়া এলাকায় পাগলা মসজিদের অবস্থান। সুউচ্চ মিনার ও তিন গম্বুজ বিশিষ্ট তিনতলা পাগলা মসজিদটি কিশোরগঞ্জের অন্যতম ঐতিহাসিক স্থাপনা। মসজিদকে ঘিরে মানুষের কৌতুহলের শেষ নেই। এ মসজিদে দান করলে মনোবাসনা পূর্ণ হয়- এ বিশ্বাস থেকেই পাগলা মসজিদে দেশ বিদেশের নানা ধর্ম ও বর্ণের মানুষ টাকা পয়সা, স্বর্ণালঙ্কার ও বৈদেশিক মুদ্রা দান করে থাকেন। অনেকে রাতে গোপনে এসে এ মসজিদে দান করেন বলে জানা গেছে।

জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আবুল কালাম আজাদ জানান, পাগলা মসজিদকে ঘিরে দেশ বিদেশের মানুষের অনুভূতি কাজ করে। তাই সকল ধর্মের মানুষ এখানে দান করে থাকেন। দানের এ টাকা দিয়ে শতকোটি টাকার একটি দৃষ্টিনন্দন মসজিদ নিমার্ণ করা হবে। অন্তত ৩০ হাজার মানুষ যাতে একসাথে নামাজ পড়তে পারে এমন একটি দৃষ্টিনন্দন মসজিদ নিমার্ণের প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে। এ ছাড়া জেলার মসজিদ, মাদ্রাসা ও হতদরিদ্রদের জঠিল ও কঠিন চিকিৎসা খাতে অনুদান দেয়া হয়ে থাকে বলে তিনি জানান। উল্লেখ্য, প্রায় পাঁচশত বছর পূর্বে বাংলার বারো ভূঁইয়ার অন্যতম ঈশা খানের আমলে দেওয়ান জিলকদর খান ওরফে জিলকদর পাগলা নরসুন্দা নদীর তীরে বসে নামাজ আদায় করতেন। তিনি মারা গেলে পরবর্তীতে তারঁ ভক্তরা সেখানে মসজিদটি নিমার্ণ করেন।

back to top