alt

সারাদেশ

ঈদযাত্রা : মোটরসাইকেলের দুর্ঘটনা ৫১ শতাংশ, সাড়ে ৪২ শতাংশ নিহত

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪

রোজার ঈদের সবচেয়ে বেশি দুর্ঘটনা ঘটেছে মোটরসাইকেলে। সবচেয়ে বেশি নিহতও হয়েছেন এই বাহনটির দুর্ঘটনায়। বেসরকারি সংস্থা রোড সেফটি ফাউন্ডেশনের তথ্য বলছে, মোটরসাইকেল দুর্ঘটনার হার ৫১.১১ শতাংশ। আর নিহতের হার ৪২.৫০ শতাংশ।

রাজধানীর ধানমন্ডিস্থ সংগঠনটির কার্যালয়ে বুধবার (২৪ এপ্রিল) এক সংবাদ সম্মেলনে সংস্থাটি জানায়, ঈদযাত্রায় ৩৫ থেকে ৪০ লাখ মানুষ মোটরসাইকেলে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে গন্তব্যে যাতায়াত করেন। ব্যাপকহারে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা ঘটেছে, অন্তত ১৮৩টি মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় ১৫৬ জন নিহত হয়েছেন। যেখানে একসঙ্গে স্বামী-স্ত্রী নিহতের ঘটনাই ঘটেছে ৭টি।

রোড সেফটি ফাউন্ডেশনের দুর্ঘটনার ধরন বিশ্লেষণে দেখা যায়, ঈদে মোটরসাইকেল নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে দুর্ঘটনা ঘটেছে ৫১.৩৬%, মুখোমুখি সংঘর্ষ ঘটেছে ২৩.৪৯% এবং অন্য যানবাহন দ্বারা মোটরসাইকেলে চাপা/ধাক্কায় দুর্ঘটনা ঘটেছে ২৫.১৩%।

সংস্থাটির পর্যবেক্ষণ, মোটরসাইকেল ৪ চাকার যানবাহনের চেয়ে ৩০ গুণ বেশি ঝুঁকিপূর্ণ। তাই এটা কোনোভাবেই গণপরিবহনের বিকল্প হতে পারে না। মূলত মানসম্পন্ন গণপরিবহন সহজলভ্য ও সাশ্রয়ী না হওয়ার কারণেই মানুষ মোটরসাইকেলে দূরের গন্তব্যে যাতায়াত করছেন।

মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা কত বেড়েছে
ফাউন্ডেশনের তথ্যানুযায়ী ২০২৩ সালের ঈদুল ফিতরে ১২৩টি মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় ১৩৩ জন নিহত হয়েছিল। প্রতিদিন গড়ে ৮ দশমিক ৭৮টি দুর্ঘটনায় ৯.৫ জন নিহত হয়েছিল। এ বছরে প্রতিদিন গড়ে ১২ দশমিক ২টি দুর্ঘটনায় ১০ দশমিক ৪ জন নিহত হয়েছেন। এই হিসাবে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা বেড়েছে ৩৮ দশমিক ৯৫% এবং প্রাণহানি বেড়েছে ৯ দশমিক ৪৭%।

ফাউন্ডেশনের পর্যবেক্ষ বলছে, কিশোর-যুবকরা বেপরোয়া মোটরসাইকেল চালিয়ে ব্যাপক মাত্রায় দুর্ঘটনায় আক্রান্ত হয়েছে। মোটরসাইকেলে ৩ জন নিহতের ঘটনা ঘটেছে ১১টি। এরা সবাই কিশোর-যুবক। বেপরোয়া মোটরসাইকেলের ধাক্কায় ১৮ জন পথচারী নিহত হয়েছেন। মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় আক্রান্তদের মধ্যে ৫৩ শতাংশের বয়স ১৪ থেকে ২০ বছর।

৩৫৮ সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩৬৭
গত রোববার (২১ এপ্রিল) সরকারি সংস্থা বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ) ঈদযাত্রা সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ে তাদের প্রতিবেদন প্রকাশ করে। বিআরটিএ বলে, এবার ১৭ দিনে (৪ থেকে ২০ এপ্রিল) ২৮৬টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৩২০ জন নিহত এবং ৪৬২ জন আহত হয়েছেন।

আগেরদিন শনিবার বেসরকারি সংস্থা যাত্রী কল্যাণ সমিতি হিসেব দেয়, ৩৯৯টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৪০৭ জন নিহত ও ১৩৯৮ জন আহত হয়েছেন। যদিও সমিতির প্রতিবেদনকে ‘বিভ্রান্ত্রিমূলক’ বলছে সরকারি সংস্থাটি। এবার রোড সেফটি ফাউন্ডেশনের দেয়া হিসেবেও সরকারি তথ্যের বেশি বলছে, তবে সমিতির নিহতের সংখ্যা থেকে কম।

৯টি জাতীয় দৈনিক, ৭টি অনলাইন নিউজ পোর্টাল, ইলেক্ট্রনিক গণমাধ্যম এবং নিজস্ব তথ্যের ভিত্তিতে তৈরি করা প্রতিবেদন বলছে, ঈদের আগে-পরে ১৫ দিনে (৪ এপ্রিল থেকে ১৮ এপ্রিল) দেশে ৩৫৮টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৩৬৭ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন ১৫০০ জনের বেশি।

বুধবার সংবাদ সম্মেলনে রোড সেফটি ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. এ আই মাহবুব উদ্দিন আহমেদ বলেন, যদিও গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংখ্যা ৪৯৩ জন। শুধু ঢাকার জাতীয় অর্থোপেডিক হাসপাতালেই (পঙ্গু হাসপাতালে) ঈদের তিন দিনে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হয়ে ভর্তি হয়েছেন ৪৫৪ জন, যার অধিকাংশই মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় আক্রান্ত। এই বাস্তবতায় ১৫ দিনে সারাদেশের হাসপাতালসমূহে আহত মানুষের সংখ্যা দেড় হাজারের বেশি হবে।

দুর্ঘটনা বেড়েছে ৩৯.২০% ও প্রাণহানি ২০.১৯%
ফাউন্ডেশন বলছে, ঈদযাত্রায় সড়ক দুর্ঘটনা এবং প্রাণহানি উভয়ই বেড়েছে। গত বছরে ঈদুল ফিতরে ২৪০টি দুর্ঘটনায় ২৮৫ জনের প্রাণহানি ঘটেছিল। প্রতিদিন গড়ে ১৭.১৪টি দুর্ঘটনায় ২০.৩৫ জন নিহত হয়েছিল। এই বছরে ঈদযাত্রায় প্রতিদিন গড়ে ২৩.৮৬টি দুর্ঘটনায় ২৪.৪৬ জন নিহত হয়েছেন।

এই হিসাবে এ বছর দুর্ঘটনা বেড়েছে ৩৯.২০% এবং প্রাণহানি বেড়েছে ২০.১৯%। সড়ক দুর্ঘটনায় ৫টি পরিবার পরোপুরি নিশ্চিহ্ন হয়ে গেছে। কেউ বেঁচে নেই! স্কুল, মাদ্রাসা, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র নিহত হয়েছে ৭৪ জন বলেও ফাউন্ডেশনের পর্যবেক্ষণে হিসেবে উঠে এসেছে।

এই সময়ে ৩টি নৌ-দুর্ঘটনায় ৭ জন নিহত ও ৮ আহত হয়েছেন। ১৪টি রেলপথ দুর্ঘটনায় ১৯ জন নিহত এবং ১৭ জন আহত হয়েছেন বলেও ফাউন্ডিশনের তথ্য।

অধ্যাপক মাহবুব বলেন, ‘সড়ক দুর্ঘটনা আমাদের জীবনে নিত্য আতঙ্কের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। কিন্তু দুর্ঘটনা নিয়ন্ত্রণে কার্যকর উদ্যোগের ধারাবাহিকতা নেই। সবকিছু চলছে দায়সারাভাবে। অধিকাংশ সড়ক দুর্ঘটনা ঘটছে সড়ক পরিবহন খাতের অব্যবস্থাপনার কারণে। এই অবস্থার উন্নয়নে টেকসই সড়ক পরিবহন কৌশল প্রণয়ন করে বাস্তবায়ন করতে হবে। এজন্য প্রয়োজন সরকারের রাজনৈতিক সদিচ্ছা।’

সখীপুরে আগুনে পুড়ল ১১ দোকান, তিন কোটি টাকার ক্ষতি

ঘুমধুম সীমান্তে মাইন বিস্ফোরণে আহত ২ একজনের অবস্থা আশংকা জনক

সৌদি আরবে আরেক বাংলাদেশি হজযাত্রীর মৃত্যু

ছবি

গাজীপুরে আগুন পুড়লো কলোনির ৭০টি ঘর

ছবি

উখিয়ায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আগুন, পুড়েছে ৩ শতাধিক বসতি

ছবি

ঝিনাইদহে প্রবাসীর স্ত্রীকে গলা কেটে হত্যা

ছবি

বাঁশখালী ছনুয়া-কুতুবদিয়া জেটিঘাট এখন মরণ ফাঁদ

আখতারুজ্জামান, শিমুল-এরা কারা

ছবি

টানা তাপপ্রাবাহে ফলন তলানিতে, বাজারে চড়া দাম লিচুর

ছবি

ধনবাড়ীতে ডায়াবেটিক ধান চাষে মিলেছে সফলতা

ছবি

খাবারের প্যাকেট নিয়ে দুই গ্রুপের সংঘর্ষ, নিহত ১

ছবি

কুমারখালীর হাবাসপুর সরকারি বিদ্যালয় ৩ শিক্ষার্থীর বিপরীতে ৪ শিক্ষক, শিক্ষার্থীরা থাকে অনুপস্থিত

ছবি

বরুড়ায় স্বেচ্ছাশ্রমে দেড় কিমি. রাস্তা তৈরি করছেন দেওড়া গ্রামবাসীরা

মতলবে ঋণের চাপে বিকাশ ব্যবসায়ীর আত্মহত্যা

ছবি

বেগমগঞ্জে আগ্নেয়াস্ত্রসহ ৪ ডাকাত গ্রেপ্তার

ছবি

সেই গৃহবধূর চুল কাটা ঘটনায় মামলা নথিভুক্ত

ছবি

কিরগিজস্তানের মাফিয়ার কবলে ইন্দুরকানীর যুবক

ছবি

সিরাজদিখানে বাইক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ২ স্কুলছাত্র নিহত

ছবি

রাজশাহীতে কলেজছাত্র অপহরণ, গ্রেপ্তার ৩

ছবি

মনোহরদীতে কমিউনিটি ক্লিনিকের সরকারি ওষুধ মিললো বাড়িতে

ছবি

গাইবান্ধায় কোরবানির জন্য প্রস্তুত দেড় লাখ পশু, দাম নিয়ে চিন্তিত খামারিরা

ভাতকুড়া-মুশুদ্দি ভাঙা সড়কটি সংস্কার দাবি

ছবি

বাগাতিপাড়ায় হেরোইনসহ নারী মাদককারবারি আটক

ছবি

১৪ ভরি স্বর্ণালংকার চুরি, বিদেশে পালানোর সময় দোকান কর্মচারী গ্রেপ্তার

ছবি

মোল্লাহাটে দুই গ্রুপের সংঘর্ষ, আহত ১৫

ছবি

ঠাকুরগাঁওয়ে ছেলের চুরির অপবাদে মাকে নির্যাতন, আদিবাসী গৃহবধূর মৃত্যু

ছবি

তালতলীতে চেয়াম্যান প্রার্থীর কর্মীকে মারধরের অভিযোগ

ছবি

লাখাইয়ে সরকারিভাবে ধান-চাল সংগ্রহ উদ্বোধন

ছবি

৩ জেলায় ভারতীয় নাগরিকসহ তিন মরদেহ উদ্ধার

ছবি

কালিগঞ্জে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মাদ্রাসাছাত্রের মৃত্যু

ছবি

রূপগঞ্জে হাবিবুর রহমান চেয়ারম্যান নির্বাচিত

ছবি

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বিপুল পরিমাণ অস্ত্র-গুলিসহ আরসা সন্ত্রাসী গ্রেপ্তার

ছবি

নরসিংদীতে আধিপত্য বিস্তারে দুপক্ষের সংঘর্ষ, গুলি-টেঁটাবিদ্ধ ৭

ছবি

আরাকান আর্মির গুলিতে বাংলাদেশি জেলের পা বিচ্ছিন্ন

ছবি

গাজীপুরে তুরাগ কমিউটার ট্রেনের বগি লাইনচ্যুত

সমুদ্র সৈকতে ভেসে এলো অজ্ঞাত নারীর মরদেহ

tab

সারাদেশ

ঈদযাত্রা : মোটরসাইকেলের দুর্ঘটনা ৫১ শতাংশ, সাড়ে ৪২ শতাংশ নিহত

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪

রোজার ঈদের সবচেয়ে বেশি দুর্ঘটনা ঘটেছে মোটরসাইকেলে। সবচেয়ে বেশি নিহতও হয়েছেন এই বাহনটির দুর্ঘটনায়। বেসরকারি সংস্থা রোড সেফটি ফাউন্ডেশনের তথ্য বলছে, মোটরসাইকেল দুর্ঘটনার হার ৫১.১১ শতাংশ। আর নিহতের হার ৪২.৫০ শতাংশ।

রাজধানীর ধানমন্ডিস্থ সংগঠনটির কার্যালয়ে বুধবার (২৪ এপ্রিল) এক সংবাদ সম্মেলনে সংস্থাটি জানায়, ঈদযাত্রায় ৩৫ থেকে ৪০ লাখ মানুষ মোটরসাইকেলে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে গন্তব্যে যাতায়াত করেন। ব্যাপকহারে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা ঘটেছে, অন্তত ১৮৩টি মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় ১৫৬ জন নিহত হয়েছেন। যেখানে একসঙ্গে স্বামী-স্ত্রী নিহতের ঘটনাই ঘটেছে ৭টি।

রোড সেফটি ফাউন্ডেশনের দুর্ঘটনার ধরন বিশ্লেষণে দেখা যায়, ঈদে মোটরসাইকেল নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে দুর্ঘটনা ঘটেছে ৫১.৩৬%, মুখোমুখি সংঘর্ষ ঘটেছে ২৩.৪৯% এবং অন্য যানবাহন দ্বারা মোটরসাইকেলে চাপা/ধাক্কায় দুর্ঘটনা ঘটেছে ২৫.১৩%।

সংস্থাটির পর্যবেক্ষণ, মোটরসাইকেল ৪ চাকার যানবাহনের চেয়ে ৩০ গুণ বেশি ঝুঁকিপূর্ণ। তাই এটা কোনোভাবেই গণপরিবহনের বিকল্প হতে পারে না। মূলত মানসম্পন্ন গণপরিবহন সহজলভ্য ও সাশ্রয়ী না হওয়ার কারণেই মানুষ মোটরসাইকেলে দূরের গন্তব্যে যাতায়াত করছেন।

মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা কত বেড়েছে
ফাউন্ডেশনের তথ্যানুযায়ী ২০২৩ সালের ঈদুল ফিতরে ১২৩টি মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় ১৩৩ জন নিহত হয়েছিল। প্রতিদিন গড়ে ৮ দশমিক ৭৮টি দুর্ঘটনায় ৯.৫ জন নিহত হয়েছিল। এ বছরে প্রতিদিন গড়ে ১২ দশমিক ২টি দুর্ঘটনায় ১০ দশমিক ৪ জন নিহত হয়েছেন। এই হিসাবে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা বেড়েছে ৩৮ দশমিক ৯৫% এবং প্রাণহানি বেড়েছে ৯ দশমিক ৪৭%।

ফাউন্ডেশনের পর্যবেক্ষ বলছে, কিশোর-যুবকরা বেপরোয়া মোটরসাইকেল চালিয়ে ব্যাপক মাত্রায় দুর্ঘটনায় আক্রান্ত হয়েছে। মোটরসাইকেলে ৩ জন নিহতের ঘটনা ঘটেছে ১১টি। এরা সবাই কিশোর-যুবক। বেপরোয়া মোটরসাইকেলের ধাক্কায় ১৮ জন পথচারী নিহত হয়েছেন। মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় আক্রান্তদের মধ্যে ৫৩ শতাংশের বয়স ১৪ থেকে ২০ বছর।

৩৫৮ সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩৬৭
গত রোববার (২১ এপ্রিল) সরকারি সংস্থা বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ) ঈদযাত্রা সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ে তাদের প্রতিবেদন প্রকাশ করে। বিআরটিএ বলে, এবার ১৭ দিনে (৪ থেকে ২০ এপ্রিল) ২৮৬টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৩২০ জন নিহত এবং ৪৬২ জন আহত হয়েছেন।

আগেরদিন শনিবার বেসরকারি সংস্থা যাত্রী কল্যাণ সমিতি হিসেব দেয়, ৩৯৯টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৪০৭ জন নিহত ও ১৩৯৮ জন আহত হয়েছেন। যদিও সমিতির প্রতিবেদনকে ‘বিভ্রান্ত্রিমূলক’ বলছে সরকারি সংস্থাটি। এবার রোড সেফটি ফাউন্ডেশনের দেয়া হিসেবেও সরকারি তথ্যের বেশি বলছে, তবে সমিতির নিহতের সংখ্যা থেকে কম।

৯টি জাতীয় দৈনিক, ৭টি অনলাইন নিউজ পোর্টাল, ইলেক্ট্রনিক গণমাধ্যম এবং নিজস্ব তথ্যের ভিত্তিতে তৈরি করা প্রতিবেদন বলছে, ঈদের আগে-পরে ১৫ দিনে (৪ এপ্রিল থেকে ১৮ এপ্রিল) দেশে ৩৫৮টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৩৬৭ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন ১৫০০ জনের বেশি।

বুধবার সংবাদ সম্মেলনে রোড সেফটি ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. এ আই মাহবুব উদ্দিন আহমেদ বলেন, যদিও গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংখ্যা ৪৯৩ জন। শুধু ঢাকার জাতীয় অর্থোপেডিক হাসপাতালেই (পঙ্গু হাসপাতালে) ঈদের তিন দিনে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হয়ে ভর্তি হয়েছেন ৪৫৪ জন, যার অধিকাংশই মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় আক্রান্ত। এই বাস্তবতায় ১৫ দিনে সারাদেশের হাসপাতালসমূহে আহত মানুষের সংখ্যা দেড় হাজারের বেশি হবে।

দুর্ঘটনা বেড়েছে ৩৯.২০% ও প্রাণহানি ২০.১৯%
ফাউন্ডেশন বলছে, ঈদযাত্রায় সড়ক দুর্ঘটনা এবং প্রাণহানি উভয়ই বেড়েছে। গত বছরে ঈদুল ফিতরে ২৪০টি দুর্ঘটনায় ২৮৫ জনের প্রাণহানি ঘটেছিল। প্রতিদিন গড়ে ১৭.১৪টি দুর্ঘটনায় ২০.৩৫ জন নিহত হয়েছিল। এই বছরে ঈদযাত্রায় প্রতিদিন গড়ে ২৩.৮৬টি দুর্ঘটনায় ২৪.৪৬ জন নিহত হয়েছেন।

এই হিসাবে এ বছর দুর্ঘটনা বেড়েছে ৩৯.২০% এবং প্রাণহানি বেড়েছে ২০.১৯%। সড়ক দুর্ঘটনায় ৫টি পরিবার পরোপুরি নিশ্চিহ্ন হয়ে গেছে। কেউ বেঁচে নেই! স্কুল, মাদ্রাসা, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র নিহত হয়েছে ৭৪ জন বলেও ফাউন্ডেশনের পর্যবেক্ষণে হিসেবে উঠে এসেছে।

এই সময়ে ৩টি নৌ-দুর্ঘটনায় ৭ জন নিহত ও ৮ আহত হয়েছেন। ১৪টি রেলপথ দুর্ঘটনায় ১৯ জন নিহত এবং ১৭ জন আহত হয়েছেন বলেও ফাউন্ডিশনের তথ্য।

অধ্যাপক মাহবুব বলেন, ‘সড়ক দুর্ঘটনা আমাদের জীবনে নিত্য আতঙ্কের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। কিন্তু দুর্ঘটনা নিয়ন্ত্রণে কার্যকর উদ্যোগের ধারাবাহিকতা নেই। সবকিছু চলছে দায়সারাভাবে। অধিকাংশ সড়ক দুর্ঘটনা ঘটছে সড়ক পরিবহন খাতের অব্যবস্থাপনার কারণে। এই অবস্থার উন্নয়নে টেকসই সড়ক পরিবহন কৌশল প্রণয়ন করে বাস্তবায়ন করতে হবে। এজন্য প্রয়োজন সরকারের রাজনৈতিক সদিচ্ছা।’

back to top