alt

সারাদেশ

ঘূর্ণিঝড় রিমাল

পৌনে ৩ কোটি গ্রাহকের বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : সোমবার, ২৭ মে ২০২৪

ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে উপকূলীয় এলাকাসহ দেশের বেশকিছু জেলার প্রায় পৌরে ৩ কোটি গ্রাহকের বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হয়ে গেছে। এর মধ্যে পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের (আরইবি) গ্রাহক ২ কোটি ৬৬ লাখের বেশি। ঝড়ের কারণে ওয়েস্ট জোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের (ওজোপাডিকো) আওতাধীন অনেক এলাকা বিদ্যুৎহীন রয়েছে। এই কোম্পানিটিরও সাড়ে ৪ লাখের বেশি গ্রাহক বিদ্যুৎহীন।

কোথাও বিদ্যুতের খুঁটি উপড়ে পড়ায়, কোথাও তার (বিতরণ লাইন) ছিঁড়ে যাওয়ায় আবার কোথায় সঞ্চালন লাইনের ওপর গাছপালা ভেঙে পড়ায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হয়ে গেছে। ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে অনেক এলাকার বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ রাখা হয়েছে। বিদ্যুৎ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, ক্ষতিগ্রস্ত লাইন মেরামতে এর মধ্যে অনেক এলাকায় কাজ শুরু হয়েছে। সোমবার (২৭ মে) রাতের মধ্যে বেশকিছু এলাকায় এবং আজ সব জায়গায় বিদ্যুৎ সরবরাহ পুরোপুরি স্বাভাবিক হবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন সংশ্লিষ্টরা।

বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়ের এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘ঘূর্ণিঝড় রিমাল এর প্রভাবে প্রায় ৮০টি পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির মধ্যে ৬৫টি সমিতিতে গ্রাহক সংযোগ আংশিক বা সম্পুর্ণ বন্ধ আছে। প্রাথমিক ক্ষয়-ক্ষতির তথ্য অনুযায়ী, ৩০টি পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ভৌগোলিক এলাকায় ঘূর্ণিঝড়ের আঘাতে ২৩৯২টি পোল ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। ট্রান্সফরমার বিকল হয়েছে ১৯৮২টি। ইন্সুলেটর ভেঙেছে ২১৮৪৮টি। ৬২৪৫৪টি স্থানে তার ছিড়ে গেছে। মিটার বিকল হয়েছে ৪৬৩১৮টি। সার্বিকভাবে প্রাথমিক ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ ৯১ কোটি টাকার বেশি।’

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, ‘ঘূর্ণিঝড় চলমান থাকায় ক্ষয়-ক্ষতির প্রকৃত পরিমাণ সরেজমিনে পরিদর্শন করে নির্ণয় করা সম্ভব হয়নি। প্রাথমিকভাবে মাঠ পর্যায়ে কর্মকর্তাগণের সঙ্গে টেলিফোনে আলোচনা করে ক্ষয়-ক্ষতির একটি প্রাক্কলন প্রস্তুত করা হয়েছে। কেন্দ্রীয়ভাবে ২৪ ঘণ্টাব্যাপী কন্ট্রোল রুম-এর মাধ্যমে তদারিকি করা হচ্ছে। জেলা পর্যায় ও সমিতি ভিত্তিক কন্ট্রোল রুম রয়েছে। পরিবরহন ঠিকাদারকে স্ট্যান্ডবাই রাখা হয়েছে। আরইবি ও ওজোপাডিকো এলাকায় সকল স্তরের কর্মকর্তা কর্মচারীদের ছুটি বাতিল করে রক্ষণাবেক্ষণ কাজের জন্য প্রস্তুত রাখা হয়েছে। ঝড়ের প্রকোপ কমার সঙ্গে সঙ্গে বিদ্যুৎ সংযোগ স্বাভাবিক করা হবে।’

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সাতক্ষীরা, খুলনা, বাগেরহাট, পিরোজপুর, ভোলা, পটুয়াখালী ও বরিশালের অধিকাংশ গ্রাহক এবং ফেনী, কক্সবাজারসহ কয়েকটি জেলায় আংশিক বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রয়েছে। ওজোপাডিকোর দুই লাখের বেশি গ্রাহকের বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে। কোথাও বিদ্যুতের খুঁটি উপড়ে, কোথাও তার ছিঁড়ে আবার কোথায় সঞ্চালন লাইনের ওপর গাছপালা ভেঙে পড়ে এসব এলাকার বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ হয়ে গেছে। বাগেরাহাটের ছয় লাখের বেশি মানুষ বিদ্যুৎহীন রয়েছে।

২৬ মে রোববার সকাল থেকেই জেলার অধিকাংশ এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহে বিঘ্ন ঘটে। খুলনা বিভাগের সাতক্ষীরার শ্যামনগর ও কালীগঞ্জ। বাগেরহাটের মোড়েলগঞ্জ, শরণখোলা, মোংলা ও রামপাল উপজেলার প্রায় অধিকাংশ এলাকায় সোমবার সারাদিনই বিদ্যুৎ ছিল না। অন্যান্য এলাকাতেও বিদ্যুৎ ছিল আসা-যাওয়ার মাঝে। জেলা সদরে রাত সাড়ে ১০টা পর্যন্ত ওজোপাডিকো বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক রেখেছিল। কিন্তু সঞ্চালন লাইনে গাছপালা উপড়ে পড়ায় রাত ১১টার পর বিদ্যুৎ সরবরাহ পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যায়।

বাগেরহাট পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির মহাব্যবস্থাপক সুশান্ত রায় সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘বাগেরহাট জেলায় ৪ লাখ ৮৫ হাজারের বেশি গ্রাহক রয়েছে। সঞ্চালন লাইনের বিভিন্ন স্থানে গাছপালা উপড়ে পড়ায় বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।’

ফেনী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানেজার হাওলাদার মো. ফজলুর রহমান সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘রাত থেকেই ঝড়ো হাওয়ায় বিদ্যুতের সংযোগ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। সোমবার সকাল ৮টা থেকে পুরোপুরি সংযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে। জেলায় পল্লী বিদ্যুতের ৪ লাখ গ্রাহক বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন রয়েছে।’

ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে কক্সবাজারের মহেশখালীতে রোববার রাত দেড়টা থেকে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রয়েছে। এতে ভোগান্তিতে পড়েছেন উপজেলার একটি পৌরসভার ও আটটি ইউনিয়নের অন্তত ৭০ হাজার গ্রাহক। বিভিন্ন স্থানে পল্লী বিদ্যুতের তার ছিঁড়ে গেছে। গাছের ডালপালা ভেঙে পড়ে ৫৫টি স্থানে লাইনের তার ছিঁড়ে গেছে। ঝড়ে পাঁচটি ট্রান্সফরমার বিকল হয়ে গেছে।

পিরোজপুর জেলা প্রায় ৩৬ ঘণ্টা ধরে বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন রয়েছে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, পিরোজপুর সদর উপজেলার নামাজপুর, ভাইজোড়া, শারিকতলা, পাড়েরহাটসহ জেলার কাউখালী, ইন্দুরকানী, ভান্ডারিয়া, মঠবাড়িয়া, নাজিরপুর ও নেছারাবাদসহ বিভিন্ন এলাকার লোক বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন।

পিডিবির মুখপাত্র শামীম হাসান সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘ঘূর্ণিঝড়ের সময় সারাদেশের অনেক বৈদ্যুতিক পোল ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে-মূলত খুলনা ও বরিশাল অঞ্চলে। সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে তারা উপকূলীয় এলাকায় বেশকিছু বিদ্যুৎকেন্দ্র বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। রক্ষণাবেক্ষণের পর আবারও বিদ্যুৎ সরবরাহ শুরু করা হবে।’

সখীপুরে গৃহবধূ নিখোঁজের পর পুকুর থেকে লাশ উদ্ধার

দুই ভাইয়ের চিরদিনের ছুটি

সিলেটে তিন নদীর পানি বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে

ছবি

ঘড়ি ছাড়াই হাতের দিকে তাকিয়েই সময় বলে দেন ইয়াছিন!

নড়াইলে এবারও ঈদ করতে পারছেন না ২০০ পরিবার,আজাদ হত্যা মামলা নিয়ে উত্তেজনা

ছবি

রংপুরে ঈদ উপলক্ষে বরাদ্দ চাল কালোবাজারে বিক্রি,৪ হাজার কেজি ভিজিএফের চাল উদ্ধার

ছবি

রংপুরে ১৫ কিলোমিটার যানজট, যাত্রীদের চরম দূর্ভোগ

ছবি

বরিশাল জেলাকে ভূমিহীন ও গৃহহীন ঘোষণা

ছবি

তিস্তার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত, ডুবেছে ফসলি জমি

ছবি

ঈদের দিন ৩ বিভাগে ভারী বৃষ্টির আভাস

রাঙ্গামাটিতে বজ্রপাতে চারজনের মৃত্যু

চাঁদাবাজির অভিয়োগে ৫ পুলিশ সদস্য বরখাস্ত

ছবি

বাড়তি ভাড়ায় ফিটনেসবিহীন লঞ্চে দ্বিগুণ যাত্রী পারাপার

ছবি

জেলা প্রশাসনের তত্ত্বাবধানে খুলে দেওয়া হলো বেনজীরের সাভানা পার্ক

ছবি

সেন্ট মার্টিনে ২৩০০ পরিবারকে চাল সহায়তা

ফরিদপুরে পুলিশের কাছে চাঁদা বন্ধের আবেদন বরলো ইউপি চেয়ারম্যান

সোনারগাঁয়ে গরু বিক্রেতাদের মেরে নগদ টাকা মোবাইল ও গরু ছিনতাই, আহত ৫

ছবি

দেশকে রক্ষার সক্ষমতা আছে: সেনাপ্রধান

ছবি

নাফনদীতে মায়ানমারের ৩টি জাহাজ, নেই কোনো বিস্ফোরণের শব্দ

ছবি

বরিশালে অটোরিকশা-ইজিবাইক মুখোমুখি সংঘর্ষে নারী নিহত

শেষ সময়ে ঈদে বাড়ি যেতে ঘরমুখো মানুষের ভিড় বেড়েছে সড়ক মহাসড়কে

ছবি

বনানীতে বাসের ধাক্কায় বাইকচালক নিহত

ছবি

কাভার্ডভ্যানের পেছনে লিচুবাহী ট্রাকের ধাক্কা, নিহত ২

ছবি

সামিট-ওরিয়নের দুটিসহ রেন্টাল ৬ বিদ্যুৎকেন্দ্রের মেয়াদ ফের বাড়ছে

ছবি

ট্রেনের টিকিট কালোবাজারি: র‌্যাবের অভিযানে ১০ জনকে গ্রেপ্তার

ফরিদপুরে পুকুর থেকে শিশুর লাশ উদ্ধার

ছবি

নিত্যপণ্য নিয়ে কক্সবাজার থেকে সেন্টমার্টিন যাচ্ছে জাহাজ

ছবি

রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে অস্ত্র ও গুলিসহ আরসা সন্ত্রাসী গ্রেপ্তার

ছবি

গাজীপুরে পুকুরে ডুবে দুই মাদ্রাসা শিক্ষার্থীর মৃত্যু

ছবি

বেতন-বোনাসের দাবিতে কুমিল্লায় শ্রমিক বিক্ষোভ, ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে ধীরগতি

ছবি

টাঙ্গাইলে মহাসড়‌কে ট্রাক উল্টে ১৫ কিলোমিটার যানজট

ছবি

মাদকের টাকার জন্য ছোট ভাইয়ের সঙ্গে ঝগড়া, নিজের বুকে ছুরি চালাল কিশোর

ছবি

দুম্বা পালন করে স্বাবলম্বী ভৈরবের সবুজ

আখাউড়া স্থলবন্দর দিয়ে প্রথমবার জিরা আমদানি

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বজ্রপাতে ২ জন নিহত

ছবি

সিলেটে আবারও বন্যার পদধ্বনি, প্রস্তুত আশ্রয়কেন্দ্র

tab

সারাদেশ

ঘূর্ণিঝড় রিমাল

পৌনে ৩ কোটি গ্রাহকের বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

সোমবার, ২৭ মে ২০২৪

ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে উপকূলীয় এলাকাসহ দেশের বেশকিছু জেলার প্রায় পৌরে ৩ কোটি গ্রাহকের বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হয়ে গেছে। এর মধ্যে পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের (আরইবি) গ্রাহক ২ কোটি ৬৬ লাখের বেশি। ঝড়ের কারণে ওয়েস্ট জোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের (ওজোপাডিকো) আওতাধীন অনেক এলাকা বিদ্যুৎহীন রয়েছে। এই কোম্পানিটিরও সাড়ে ৪ লাখের বেশি গ্রাহক বিদ্যুৎহীন।

কোথাও বিদ্যুতের খুঁটি উপড়ে পড়ায়, কোথাও তার (বিতরণ লাইন) ছিঁড়ে যাওয়ায় আবার কোথায় সঞ্চালন লাইনের ওপর গাছপালা ভেঙে পড়ায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হয়ে গেছে। ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে অনেক এলাকার বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ রাখা হয়েছে। বিদ্যুৎ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, ক্ষতিগ্রস্ত লাইন মেরামতে এর মধ্যে অনেক এলাকায় কাজ শুরু হয়েছে। সোমবার (২৭ মে) রাতের মধ্যে বেশকিছু এলাকায় এবং আজ সব জায়গায় বিদ্যুৎ সরবরাহ পুরোপুরি স্বাভাবিক হবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন সংশ্লিষ্টরা।

বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়ের এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘ঘূর্ণিঝড় রিমাল এর প্রভাবে প্রায় ৮০টি পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির মধ্যে ৬৫টি সমিতিতে গ্রাহক সংযোগ আংশিক বা সম্পুর্ণ বন্ধ আছে। প্রাথমিক ক্ষয়-ক্ষতির তথ্য অনুযায়ী, ৩০টি পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ভৌগোলিক এলাকায় ঘূর্ণিঝড়ের আঘাতে ২৩৯২টি পোল ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। ট্রান্সফরমার বিকল হয়েছে ১৯৮২টি। ইন্সুলেটর ভেঙেছে ২১৮৪৮টি। ৬২৪৫৪টি স্থানে তার ছিড়ে গেছে। মিটার বিকল হয়েছে ৪৬৩১৮টি। সার্বিকভাবে প্রাথমিক ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ ৯১ কোটি টাকার বেশি।’

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, ‘ঘূর্ণিঝড় চলমান থাকায় ক্ষয়-ক্ষতির প্রকৃত পরিমাণ সরেজমিনে পরিদর্শন করে নির্ণয় করা সম্ভব হয়নি। প্রাথমিকভাবে মাঠ পর্যায়ে কর্মকর্তাগণের সঙ্গে টেলিফোনে আলোচনা করে ক্ষয়-ক্ষতির একটি প্রাক্কলন প্রস্তুত করা হয়েছে। কেন্দ্রীয়ভাবে ২৪ ঘণ্টাব্যাপী কন্ট্রোল রুম-এর মাধ্যমে তদারিকি করা হচ্ছে। জেলা পর্যায় ও সমিতি ভিত্তিক কন্ট্রোল রুম রয়েছে। পরিবরহন ঠিকাদারকে স্ট্যান্ডবাই রাখা হয়েছে। আরইবি ও ওজোপাডিকো এলাকায় সকল স্তরের কর্মকর্তা কর্মচারীদের ছুটি বাতিল করে রক্ষণাবেক্ষণ কাজের জন্য প্রস্তুত রাখা হয়েছে। ঝড়ের প্রকোপ কমার সঙ্গে সঙ্গে বিদ্যুৎ সংযোগ স্বাভাবিক করা হবে।’

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সাতক্ষীরা, খুলনা, বাগেরহাট, পিরোজপুর, ভোলা, পটুয়াখালী ও বরিশালের অধিকাংশ গ্রাহক এবং ফেনী, কক্সবাজারসহ কয়েকটি জেলায় আংশিক বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রয়েছে। ওজোপাডিকোর দুই লাখের বেশি গ্রাহকের বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে। কোথাও বিদ্যুতের খুঁটি উপড়ে, কোথাও তার ছিঁড়ে আবার কোথায় সঞ্চালন লাইনের ওপর গাছপালা ভেঙে পড়ে এসব এলাকার বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ হয়ে গেছে। বাগেরাহাটের ছয় লাখের বেশি মানুষ বিদ্যুৎহীন রয়েছে।

২৬ মে রোববার সকাল থেকেই জেলার অধিকাংশ এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহে বিঘ্ন ঘটে। খুলনা বিভাগের সাতক্ষীরার শ্যামনগর ও কালীগঞ্জ। বাগেরহাটের মোড়েলগঞ্জ, শরণখোলা, মোংলা ও রামপাল উপজেলার প্রায় অধিকাংশ এলাকায় সোমবার সারাদিনই বিদ্যুৎ ছিল না। অন্যান্য এলাকাতেও বিদ্যুৎ ছিল আসা-যাওয়ার মাঝে। জেলা সদরে রাত সাড়ে ১০টা পর্যন্ত ওজোপাডিকো বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক রেখেছিল। কিন্তু সঞ্চালন লাইনে গাছপালা উপড়ে পড়ায় রাত ১১টার পর বিদ্যুৎ সরবরাহ পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যায়।

বাগেরহাট পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির মহাব্যবস্থাপক সুশান্ত রায় সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘বাগেরহাট জেলায় ৪ লাখ ৮৫ হাজারের বেশি গ্রাহক রয়েছে। সঞ্চালন লাইনের বিভিন্ন স্থানে গাছপালা উপড়ে পড়ায় বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।’

ফেনী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানেজার হাওলাদার মো. ফজলুর রহমান সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘রাত থেকেই ঝড়ো হাওয়ায় বিদ্যুতের সংযোগ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। সোমবার সকাল ৮টা থেকে পুরোপুরি সংযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে। জেলায় পল্লী বিদ্যুতের ৪ লাখ গ্রাহক বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন রয়েছে।’

ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে কক্সবাজারের মহেশখালীতে রোববার রাত দেড়টা থেকে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রয়েছে। এতে ভোগান্তিতে পড়েছেন উপজেলার একটি পৌরসভার ও আটটি ইউনিয়নের অন্তত ৭০ হাজার গ্রাহক। বিভিন্ন স্থানে পল্লী বিদ্যুতের তার ছিঁড়ে গেছে। গাছের ডালপালা ভেঙে পড়ে ৫৫টি স্থানে লাইনের তার ছিঁড়ে গেছে। ঝড়ে পাঁচটি ট্রান্সফরমার বিকল হয়ে গেছে।

পিরোজপুর জেলা প্রায় ৩৬ ঘণ্টা ধরে বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন রয়েছে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, পিরোজপুর সদর উপজেলার নামাজপুর, ভাইজোড়া, শারিকতলা, পাড়েরহাটসহ জেলার কাউখালী, ইন্দুরকানী, ভান্ডারিয়া, মঠবাড়িয়া, নাজিরপুর ও নেছারাবাদসহ বিভিন্ন এলাকার লোক বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন।

পিডিবির মুখপাত্র শামীম হাসান সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘ঘূর্ণিঝড়ের সময় সারাদেশের অনেক বৈদ্যুতিক পোল ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে-মূলত খুলনা ও বরিশাল অঞ্চলে। সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে তারা উপকূলীয় এলাকায় বেশকিছু বিদ্যুৎকেন্দ্র বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। রক্ষণাবেক্ষণের পর আবারও বিদ্যুৎ সরবরাহ শুরু করা হবে।’

back to top