alt

বাংলাদেশ

চার লাখ টাকার জন্য পায়ের অপারেশন হচ্ছেনা বেরোবির মেধাবী শিক্ষার্থী লিমনের

চিকিৎসার অভাবে পায়ে পচন ধরেছে

লিয়াকত আলী বাদল রংপুর : বুধবার, ১৬ জুন ২০২১
image

মাত্র চার লাখ টাকা জোগাড় করতে না পারায় অপারেশনের অভাবে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধাবী শিক্ষার্থী শাহীনুজ্জামান লিমন পা কেটে ফেলার পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। দীর্ঘ ছয় মাস ধরে চিকিৎসা করাতে না পারায় পচন ধরেছে পায়ে। অথচ মাত্র চার লাখ টাকা হলেই অপারেশন করে আবারও আগের মতো হাটতে পারবেন মেধাবী এ শিক্ষার্থী। এ জন্য সমাজের বিত্তবান ও শিক্ষামন্ত্রীর সহযোগীতা চান তিনি।

শাহীনুজ্জামান লিমন নীলফামারী জেলার কিশোরগঞ্জ উপজেলার বড়ভিটা ফয়েজ পন্ডিতের পাড়া গ্রৎামের লোকমান আলীর ছেলে। সে বর্তমানে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ২০১৪-১৫ সেশনের ফাইনাল ইয়ারের শিক্ষার্থী।

শাহীনুজ্জামান লিমন জানান, প্রায় সাত মাস আগে নীলফামারী শহর থেকে অটো রিকশা করে বাড়ি ফেরার পথে দুর্ঘটনার শিকার হন তিনি। দুর্ঘটনায় তিনজনের মৃত্যু হলেও সৌভাগ্যক্রমে তিনি বেঁচে যান। তবে তার বাম পায়ের হার (টিবিয়া-ফিবুলা) ভেঙ্গে যায়। নীলফামারী সদর হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে রংপুরের প্রাইম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাকে। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে তাকে ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

পঙ্গু হাসপাতালে প্রায় এক সপ্তাহ চিকিৎসা নিয়ে ডাক্তার এক মাসের মধ্যে হার জোড়া লাগবে বলে জানায়।

কিন্তু দেড় মাস গেলেও হাড় জোড়া না লাগায় আবারও ডাক্তারের শরণাপন্ন হলে ডাক্তার অপারেশনের পরামর্শ দেয়। এতে চার লাখ টাকারও বেশি খরচ লাগবে বলে তাকে জানানো হয় কিন্তু এত টাকা তার পরিবারের পক্ষে দেওয়া সম্ভব না হওয়ায় চার মাসেও অপারেশন করা হয়নি। এমনি অবস্থায় তার বাম পায়ে পচন ধরেছে। ধীরে ধীরে পা ছোট হয়ে আসছে দ্রুততম সময়ে অপারেশন করতে না পারলে তার পা কেটে ফেলতে হবে বলে আশঙ্কা চিকিৎসকদের।

মেধাবী শিক্ষার্থী লিমন জানান তিন ভাই ও এক বোনের মধ্যে তিনি দ্বিতীয়। তার বড় ভাই একটি বেসরকারি কোম্পানিতে চাকরি করলেও করোনা সংক্রমনের কারনে সেই চাকুরী চলে গেছে। বর্তমানে স্ট্রোক করে চিকিৎসাধীন তিনিও। তার একমাত্র বোনের বিয়ে হলেও একমাত্র ছোট ভাই ২য় শ্রেণীতে পড়াশুনা করছে। লিমনের পিতা একটি বেসরকারি কোম্পানিতে চাকরি করায় পরিবারের খরচ ও দুই ভাইয়ের চিকিৎসা করাতেই সব সম্বল শেষ হয়ে গেছে। এছাড়াও ব্যাংক লোন রয়েছে প্রায় দুই লক্ষ টাকা। বিক্রি করার মত জমিজমা নেই, যতটুকু আছে তাও বন্ধক।

এমনি অবস্থায় সমাজের বিত্তশালীদের কাছ থেকে সহায়তা চায় লিমন তার বন্ধুবান্ধব ও পরিবার। আবারও প্রিয় ক্যাম্পাসের নির্মল বাতাসে হেটে চলে ক্লাস করতে চায় সে। বড় হয়ে সমাজের সেবা করার প্রত্যয় তার।

শাহীনুজ্জামান লিমন আরো জানান ব্যাংকে লোন নেওয়া আছে তাই আর লোন নিতেও পারছিনা। বর্তমানে চার লাখ টাকা আমার পরিবারের পক্ষে জোগাড় করাও সম্ভব না। আমার পরিবার অনেক কষ্ট করেও টাকা ম্যানেজ করতে পারছে না।

জরুরী ভাবে পায়ের অপারেশন করা না হলে আমার বড় ক্ষতি হয়ে যাবে। আমার একটি পা কেটে ফেলতে হবে। তিনি বলেন আমি আবার নিজ পায়ে চলতে চাই। পড়াশুনা করে দেশ ও জাতির সেবা করতে চাই।

এ ব্যাপারে লিমনের বন্ধু রাজিব হাসান রাজু জানান , আমি আমার বন্ধুর কষ্ট আর দেখতে পারছি না, সে লজ্জায় টাকার কথা কাউকেই বলেনি। এতদিন তাই অপারেশন ছাড়াই দিনের পর দিন এই অবস্থায় আছে। আমি চাই আমার মেধাবী বন্ধুর জন্য সমাজের বিত্তবানরা মানবতার হাত বাড়িয়ে দিন যেন আমরা আবারো একসাথে চলতে পারি।

মাত্র চার লাখ টাকার জন্য মেধাবী শিক্ষার্থীর পায়ের অপারেশন হবেনা? এপ্রশ্ন শিক্ষার্থীদের। সমাজের বিত্তবান অনেক মানুষ আছেন তারা যদি সহায়তার হাত বাড়িয়ে দেন তাহলে আবারো সুস্থ হয়ে চলতে পারবে মেধাবী শিক্ষার্থী লিমন। এই প্রত্যাশা সকলের। লিমনের সাথে যোগাযোগের নাম্বার- ০১৬২৯৩৯৯৮৫৬।

ছবি

হোটেল ভাড়া করে রোগী সামাল দেয়ার চিন্তা

ছবি

৭ আগস্ট থেকে বড় আকারে টিকা কার্যক্রম শুরু হচ্ছে

তরল অক্সিজেনের বরাদ্দ নেই পাবনায় অচল আইসিইউ

ছবি

বন্ধু দিবসে তপু ও রাফার সাথে গাইলো শত শিক্ষার্থী

নাসিরনগরের ইউএনও সপরিবারে করোনায় আক্রান্ত

ছবি

পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট ও বিজ্ঞানীর আন্তর্জাতিক পুরস্কার লাভ

ছবি

ময়মনসিংহ মেডিকেলে স্বেচ্ছাসেবকদের সঙ্গে ছাত্রলীগ নেতার দুর্ব্যবহার, টিকাপ্রদান আড়াই ঘন্টা বন্ধ

সাতক্ষীরায় ভ্রাম্যমাণ আদালতে কম্পিউটার পুড়িয়ে দেওয়ায় অসহায় ৬ সদস্যের পরিবার

ওবায়দুল কাদেরের এলাকায় আ.লীগের কোন কার্যালয় নেই

সেনবাগে বিকাশ প্রতারক চক্র হাতিয়ে নিচ্ছে শিক্ষার্থীদের টাকা

ছবি

নোয়াখালীতে করোনা শনাক্তের হার ৩৩ শতাংশ

ছবি

দুই ডোজ টিকা নেয়ার পরও করোনার কাছে হেরে গেলেন ডা. জাকিয়া

ছবি

টেকনাফে বন্যহাতির বাচ্চা প্রসব

ছবি

কিশোরগঞ্জে মৃত্যু ২, নতুন আক্রান্ত ১৮৩

ছবি

বেগমগঞ্জে মাদ্রাসায় খাদ্যে বিষক্রিয়ায় এক ছাত্রের মৃত্যু, আহত ১৭

ডেঙ্গু আক্রান্ত ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড

ছবি

টিকা গ্রহীতাদের ৯৮ শতাংশের শরীরে অ্যান্টিবডি

ছবি

মহামারিতে অসহায় মানুষের পাশে ডিপিএস এসটিএস কমিউনিটি ক্লাব

সিআরবিতে অনুমোদনহীন স্থাপনা নির্মাণে ব্যবস্থা: সিডিএ

ছবি

বন্ধু দিবসে প্যারাস্যুট অ্যাডভান্সড-এর বিশেষ ক্যাম্পেইন

ওবায়দুল কাদেরের বাড়ির সামনে ককটেলের বিস্ফোরণ, গুলি

ছবি

কিশোরগঞ্জে সৈয়দ আশরাফের ম্যুরালে হামলায় প্রতিবাদ

ছবি

কঠোর বিধিনিষেধেও নওগাঁর বদলগাছীতে সব খোলা

ছবি

মান্দায় ভাতা কার্ডের নামে টাকা নেওয়ার অভিযোগ: অস্বীকার ইউপি সদস্যের

ছবি

কিশোরগঞ্জের কারাগারে বড় ভাইকে খুনের আসামির মৃত্যু

ছবি

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ব্যবসায়ীর ওপর হামলা, ৬ লাখ টাকা ছিনতাই

ছবি

ব্রাহ্মণবাড়িয়া হাসপাতালে অক্সিজেন নিয়ে ‘পাশে আছি আমরা’

ছবি

সাতক্ষীরার জলাবদ্ধতা নিরসনে নাগরিক কমিটির ১৩ দফা প্রস্তাব

বগুড়ায় বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণের অভিযোগ, কলেজছাত্র গ্রেফতার

ছবি

যাত্রীর চাপ কমেছে বাংলাবাজার-শিমুলীয়া ঘাটে, পারাপারের অপেক্ষায় ৩ শতাধিক পন্যবাহী ট্রাক

আরিচা ও পাটুরিয়া ঘাটে যাত্রীর চাপ কমেছে

ছবি

উখিয়ায় রোহিঙ্গা নেতাকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় উদ্ধার

ছবি

রংপুর বিভাগের ৮ জেলায় করোনায় ৩৩ দিনে মৃতের সংখ্যা ৫শ ছাড়িয়েছে

ছবি

বঙ্গবন্ধু সেতুতে টোল আদায়ে রেকর্ড

নোয়াখালীতে র্ধষণ, দোষ স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি

ছবি

মমেকে আরও ২৩ জনের মৃত্যু

tab

বাংলাদেশ

চার লাখ টাকার জন্য পায়ের অপারেশন হচ্ছেনা বেরোবির মেধাবী শিক্ষার্থী লিমনের

চিকিৎসার অভাবে পায়ে পচন ধরেছে

লিয়াকত আলী বাদল রংপুর
image

বুধবার, ১৬ জুন ২০২১

মাত্র চার লাখ টাকা জোগাড় করতে না পারায় অপারেশনের অভাবে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধাবী শিক্ষার্থী শাহীনুজ্জামান লিমন পা কেটে ফেলার পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। দীর্ঘ ছয় মাস ধরে চিকিৎসা করাতে না পারায় পচন ধরেছে পায়ে। অথচ মাত্র চার লাখ টাকা হলেই অপারেশন করে আবারও আগের মতো হাটতে পারবেন মেধাবী এ শিক্ষার্থী। এ জন্য সমাজের বিত্তবান ও শিক্ষামন্ত্রীর সহযোগীতা চান তিনি।

শাহীনুজ্জামান লিমন নীলফামারী জেলার কিশোরগঞ্জ উপজেলার বড়ভিটা ফয়েজ পন্ডিতের পাড়া গ্রৎামের লোকমান আলীর ছেলে। সে বর্তমানে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ২০১৪-১৫ সেশনের ফাইনাল ইয়ারের শিক্ষার্থী।

শাহীনুজ্জামান লিমন জানান, প্রায় সাত মাস আগে নীলফামারী শহর থেকে অটো রিকশা করে বাড়ি ফেরার পথে দুর্ঘটনার শিকার হন তিনি। দুর্ঘটনায় তিনজনের মৃত্যু হলেও সৌভাগ্যক্রমে তিনি বেঁচে যান। তবে তার বাম পায়ের হার (টিবিয়া-ফিবুলা) ভেঙ্গে যায়। নীলফামারী সদর হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে রংপুরের প্রাইম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাকে। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে তাকে ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

পঙ্গু হাসপাতালে প্রায় এক সপ্তাহ চিকিৎসা নিয়ে ডাক্তার এক মাসের মধ্যে হার জোড়া লাগবে বলে জানায়।

কিন্তু দেড় মাস গেলেও হাড় জোড়া না লাগায় আবারও ডাক্তারের শরণাপন্ন হলে ডাক্তার অপারেশনের পরামর্শ দেয়। এতে চার লাখ টাকারও বেশি খরচ লাগবে বলে তাকে জানানো হয় কিন্তু এত টাকা তার পরিবারের পক্ষে দেওয়া সম্ভব না হওয়ায় চার মাসেও অপারেশন করা হয়নি। এমনি অবস্থায় তার বাম পায়ে পচন ধরেছে। ধীরে ধীরে পা ছোট হয়ে আসছে দ্রুততম সময়ে অপারেশন করতে না পারলে তার পা কেটে ফেলতে হবে বলে আশঙ্কা চিকিৎসকদের।

মেধাবী শিক্ষার্থী লিমন জানান তিন ভাই ও এক বোনের মধ্যে তিনি দ্বিতীয়। তার বড় ভাই একটি বেসরকারি কোম্পানিতে চাকরি করলেও করোনা সংক্রমনের কারনে সেই চাকুরী চলে গেছে। বর্তমানে স্ট্রোক করে চিকিৎসাধীন তিনিও। তার একমাত্র বোনের বিয়ে হলেও একমাত্র ছোট ভাই ২য় শ্রেণীতে পড়াশুনা করছে। লিমনের পিতা একটি বেসরকারি কোম্পানিতে চাকরি করায় পরিবারের খরচ ও দুই ভাইয়ের চিকিৎসা করাতেই সব সম্বল শেষ হয়ে গেছে। এছাড়াও ব্যাংক লোন রয়েছে প্রায় দুই লক্ষ টাকা। বিক্রি করার মত জমিজমা নেই, যতটুকু আছে তাও বন্ধক।

এমনি অবস্থায় সমাজের বিত্তশালীদের কাছ থেকে সহায়তা চায় লিমন তার বন্ধুবান্ধব ও পরিবার। আবারও প্রিয় ক্যাম্পাসের নির্মল বাতাসে হেটে চলে ক্লাস করতে চায় সে। বড় হয়ে সমাজের সেবা করার প্রত্যয় তার।

শাহীনুজ্জামান লিমন আরো জানান ব্যাংকে লোন নেওয়া আছে তাই আর লোন নিতেও পারছিনা। বর্তমানে চার লাখ টাকা আমার পরিবারের পক্ষে জোগাড় করাও সম্ভব না। আমার পরিবার অনেক কষ্ট করেও টাকা ম্যানেজ করতে পারছে না।

জরুরী ভাবে পায়ের অপারেশন করা না হলে আমার বড় ক্ষতি হয়ে যাবে। আমার একটি পা কেটে ফেলতে হবে। তিনি বলেন আমি আবার নিজ পায়ে চলতে চাই। পড়াশুনা করে দেশ ও জাতির সেবা করতে চাই।

এ ব্যাপারে লিমনের বন্ধু রাজিব হাসান রাজু জানান , আমি আমার বন্ধুর কষ্ট আর দেখতে পারছি না, সে লজ্জায় টাকার কথা কাউকেই বলেনি। এতদিন তাই অপারেশন ছাড়াই দিনের পর দিন এই অবস্থায় আছে। আমি চাই আমার মেধাবী বন্ধুর জন্য সমাজের বিত্তবানরা মানবতার হাত বাড়িয়ে দিন যেন আমরা আবারো একসাথে চলতে পারি।

মাত্র চার লাখ টাকার জন্য মেধাবী শিক্ষার্থীর পায়ের অপারেশন হবেনা? এপ্রশ্ন শিক্ষার্থীদের। সমাজের বিত্তবান অনেক মানুষ আছেন তারা যদি সহায়তার হাত বাড়িয়ে দেন তাহলে আবারো সুস্থ হয়ে চলতে পারবে মেধাবী শিক্ষার্থী লিমন। এই প্রত্যাশা সকলের। লিমনের সাথে যোগাযোগের নাম্বার- ০১৬২৯৩৯৯৮৫৬।

back to top