alt

সারাদেশ

শেরপুরে সরকারি বই কেজি দরে বিক্রির অভিযোগ

প্রতিনিধি, শেরপুর (বগুড়া) : বুধবার, ২৪ নভেম্বর ২০২১

বগুড়ার শেরপুরে খানপুর দ্বি-মুখি উচ্চ বিদ্যালয়ের সরকারি পাঠ্যবই কেজি দরে বিক্রির অভিযোগ উঠেছে। কর্তৃপক্ষের কোন প্রকার অনুমোদন ছাড়াই বিদ্যালয়টির লাইব্রেরিয়ান শিক্ষক ও দপ্তরি পাঠ্যবইগুলো বিক্রি করেছেন। ঘটনাটি মঙ্গলবার দুপুরের পর জানাজানি হলে প্রশাসনসহ সর্বত্রই তোলপাড় শুরু হয়। সেইসঙ্গে এলাকাবাসীর মাঝে তীব্র ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে।

জানা যায়, বিগত কয়েকদিন আগে খানপুর বিদ্যালয়ের লাইব্রেরিয়ান গোলাপ মন্ডল ও দপ্তরি আব্দুর রশিদ শিক্ষাবোর্ডের মাধ্যমিক স্তরের পুরাতন পাঠ্যবইগুলো বিক্রির পরিকল্পনা করেন। এরই ধারাবাহিকতায় নৈশ্যপ্রহরী মনির আলীকে পাঠ্যবইগুলো বস্তায় ভরতে বলেন। প্রথমপর্যায়ে রাজি না হলে তাকে নানা ভয়ভীতি দেখানোর পর সরকারি পাঠ্যবইগুলো পাঁচটি বস্তায় ভরেন এবং তাদের নির্দেশে গত সোমবার (২২ নভেম্বর) ভোররাতে একটি অটোভ্যানে করে স্থানীয় মির্জাপুরস্থ জুয়েল মিয়া নামে এক ভাঙারির দোকানে নিয়ে যান। পরবর্তীতে ওই দপ্তরি ও শিক্ষক বিক্রি করে টাকা নিয়ে যান বলে অভিযোগ রয়েছে।

ঘটনাটি সম্পর্কে জানতে চাইলে নৈশ্যপ্রহরী মনির আলী সত্যতা স্বীকার করে বলেন, তিনি সবকিছুই করেছেন আব্দুর রশিদ ও গোলাপ মন্ডলের নির্দেশে ও চাপে পড়ে। তবে ঘটনাটি প্রকাশ না করতে কয়েরখালি বাজারে তাকে ডেকে নিয়ে বিভিন্ন ভয়ভীতি দেখানো হয়েছে বলেও জানান তিনি।

এদিকে ঘটনাটি সম্পর্কে বক্তব্য জানতে চাইলে অভিযুক্ত দপ্তরি আব্দুর রশিদ বলেন, বিদ্যালয়ের সরকারি কোন পাঠ্যবই বিক্রি করেনি। তবে আমার বাড়ির কিছু ভাঙারি (৪৫ কেজি) মির্জাপুর বাজারের ওই দোকানে নিয়ে বিক্রি করেছেন বলে স্বীকার করেন। অপর অভিযুক্ত লাইব্রেরিয়ান শিক্ষক গোলাপ মন্ডল এই বিষয়ে কোন মন্তব্য করতে অপারগতা প্রকাশ করেন।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ইসমাঈল হোসেন এ প্রসঙ্গে বলেন, এ ধরণের কোন ঘটনার খবর আমার জানা নেই। এছাড়া তাদের প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে কিছু লোক রয়েছে। মূলত তারাই প্রতিষ্ঠানের সুনাম নষ্ট করার জন্য এসব অপপ্রচার চালাচ্ছেন বলে দাবি করেন। জানতে চাইলে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শেখ নাজমুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি মৌখিকভাবে শুনেছি।

এরপর থেকেই বিভিন্ন মাধ্যমে খোঁজখবর নিচ্ছি। ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেলে অবশ্যই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. ময়নুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমোদন ছাড়া বিদ্যালয়ের সরকারি পাঠ্যবই বিক্রি করার কোনো সুযোগ নেই। এমনকি এটি দন্ডনীয় অপরাধ। তাই যদি সরকারি পাঠ্যবই কেউ বিক্রি করে থাকেন তাহলে তাদের বিরুদ্ধে তদন্তপূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ছবি

চট্টগ্রামে অটোরিকশা-টেম্পোকে ধাক্কা দিয়ে রেললাইনে ফেলা বাসচালক গ্রেপ্তার

ছবি

বৈদ্যুতিক তার নিয়ে খেলা করতে গিয়ে ২ শিশু নিহত

ছবি

৪ ঘণ্টার চেষ্টায় চট্টগ্রামের ঝুট গুদামের আগুন নিয়ন্ত্রণে

ছবি

‘নৃশংসতার পুনরাবৃত্তি যাতে না ঘটে তাই সর্বোচ্চ শাস্তি’

ছবি

নিরাপদ সড়কের দাবিতে সাইকেল শোভাযাত্রা

ছবি

মুরাদের সংসদ সদস্য পদ : কী হতে পারে

রায়ে প্রমাণ হয়েছে দেশে আইনের শাসন আছে : আইনমন্ত্রী

সেই রাতে যা ঘটেছিল

ছবি

মেয়ের সামনে মাকে ধর্ষণ: ডিবির এসআই গ্রেপ্তার

ছবি

চরফ্যাসনে ট্রলার ডুবি: ৪ দিনেও হদিস মেলেনি ২০ জেলের

ছবি

বগুড়া মোটর মালিক গ্রুপের নির্বাচনে ৩৮জন প্রার্থীর মনোনয়ন জমা

ছবি

প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রীর সাথে বসনিয়ার রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ

ছবি

ইউপি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন তৃতীয় লিঙ্গের অনিকা রানী

ছবি

ডা. মুরাদকে উপজেলা আ.লীগ থেকেও অব্যাহতি

ছবি

‘ভয়ভীতি দেখানো হচ্ছে’ অভিযোগ নৌকার প্রার্থী আইভীর

ছবি

বাঁকি ৫ আসামিরও ফাঁসি চান আবরারের মা

ছবি

জাওয়াদ’র বৃষ্টিতে কৃষকের সর্বনাশ

ঢাকা জেলার শ্রেষ্ঠ ওসি সিরাজুল

যশোরে পদার্থবিজ্ঞানে ভুল প্রশ্নপত্রে পরীক্ষা

ছবি

ঠাকুরগাঁওয়ে নৈশ কোচ ও সিএনজির মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ১

ছবি

৮ ঘণ্টা পর দৌলতদিয়া-পাটুরিয়ায় ফেরি চলাচল শুরু

ছবি

রোদ পোহাতে গিয়ে ট্রেনে কাটা পড়ে তিন শিশুসহ নিহত ৪

সখীপুরে নারী গ্রামপুলিশের শ্লীলতাহানি,ইউপি সচিবকে কারাদণ্ড

ছবি

দল থেকেও কি বাদ পড়ছেন মুরাদ ?

ছবি

যশোর শহরে ড্রেন নির্মাণের ১০০ কোটি টাকা ভেসে গেল

বেপরোয়া ট্রাক কেড়ে নিল নোবিপ্রবি শিক্ষার্থীর প্রাণ

ছবি

এডিস মশা গ্রাম-গঞ্জেও ছড়াচ্ছে, এ পর্যন্ত মৃত্যু ১০০

কী বলছেন ইমন, মাহি

নিরাপদ সড়কের দাবি মানতে সময় বেঁধে দিলেন ৭ কলেজের শিক্ষার্থীরা

তিতাস নদী দখলকারীদের তালিকা দাখিলে হাইকোর্টের নির্দেশ

‘ওমিক্রন’ দ্রুত ছড়ালেও ভয়ঙ্কর নয় : সংক্রমণ বিশেষজ্ঞ

চতুর্থ ধাপে বিনা ভোটে ৪৮ চেয়ারম্যানসহ নির্বাচিত ২৯৫ জন

জাপানি দুই শিশুকে নিয়ে আপিল শুনানি ১২ ডিসেম্বর

সিএমএইচ-এ সফলভাবে কিডনী প্রতিস্থাপন

নিজের নিরাপত্তার কথা ভেবেই ডিবি অফিসে গিয়েছেন ইমন

পানির ট্যাংকি থেকে পড়ে এক ব্যক্তি মারা গেছে

tab

সারাদেশ

শেরপুরে সরকারি বই কেজি দরে বিক্রির অভিযোগ

প্রতিনিধি, শেরপুর (বগুড়া)

বুধবার, ২৪ নভেম্বর ২০২১

বগুড়ার শেরপুরে খানপুর দ্বি-মুখি উচ্চ বিদ্যালয়ের সরকারি পাঠ্যবই কেজি দরে বিক্রির অভিযোগ উঠেছে। কর্তৃপক্ষের কোন প্রকার অনুমোদন ছাড়াই বিদ্যালয়টির লাইব্রেরিয়ান শিক্ষক ও দপ্তরি পাঠ্যবইগুলো বিক্রি করেছেন। ঘটনাটি মঙ্গলবার দুপুরের পর জানাজানি হলে প্রশাসনসহ সর্বত্রই তোলপাড় শুরু হয়। সেইসঙ্গে এলাকাবাসীর মাঝে তীব্র ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে।

জানা যায়, বিগত কয়েকদিন আগে খানপুর বিদ্যালয়ের লাইব্রেরিয়ান গোলাপ মন্ডল ও দপ্তরি আব্দুর রশিদ শিক্ষাবোর্ডের মাধ্যমিক স্তরের পুরাতন পাঠ্যবইগুলো বিক্রির পরিকল্পনা করেন। এরই ধারাবাহিকতায় নৈশ্যপ্রহরী মনির আলীকে পাঠ্যবইগুলো বস্তায় ভরতে বলেন। প্রথমপর্যায়ে রাজি না হলে তাকে নানা ভয়ভীতি দেখানোর পর সরকারি পাঠ্যবইগুলো পাঁচটি বস্তায় ভরেন এবং তাদের নির্দেশে গত সোমবার (২২ নভেম্বর) ভোররাতে একটি অটোভ্যানে করে স্থানীয় মির্জাপুরস্থ জুয়েল মিয়া নামে এক ভাঙারির দোকানে নিয়ে যান। পরবর্তীতে ওই দপ্তরি ও শিক্ষক বিক্রি করে টাকা নিয়ে যান বলে অভিযোগ রয়েছে।

ঘটনাটি সম্পর্কে জানতে চাইলে নৈশ্যপ্রহরী মনির আলী সত্যতা স্বীকার করে বলেন, তিনি সবকিছুই করেছেন আব্দুর রশিদ ও গোলাপ মন্ডলের নির্দেশে ও চাপে পড়ে। তবে ঘটনাটি প্রকাশ না করতে কয়েরখালি বাজারে তাকে ডেকে নিয়ে বিভিন্ন ভয়ভীতি দেখানো হয়েছে বলেও জানান তিনি।

এদিকে ঘটনাটি সম্পর্কে বক্তব্য জানতে চাইলে অভিযুক্ত দপ্তরি আব্দুর রশিদ বলেন, বিদ্যালয়ের সরকারি কোন পাঠ্যবই বিক্রি করেনি। তবে আমার বাড়ির কিছু ভাঙারি (৪৫ কেজি) মির্জাপুর বাজারের ওই দোকানে নিয়ে বিক্রি করেছেন বলে স্বীকার করেন। অপর অভিযুক্ত লাইব্রেরিয়ান শিক্ষক গোলাপ মন্ডল এই বিষয়ে কোন মন্তব্য করতে অপারগতা প্রকাশ করেন।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ইসমাঈল হোসেন এ প্রসঙ্গে বলেন, এ ধরণের কোন ঘটনার খবর আমার জানা নেই। এছাড়া তাদের প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে কিছু লোক রয়েছে। মূলত তারাই প্রতিষ্ঠানের সুনাম নষ্ট করার জন্য এসব অপপ্রচার চালাচ্ছেন বলে দাবি করেন। জানতে চাইলে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শেখ নাজমুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি মৌখিকভাবে শুনেছি।

এরপর থেকেই বিভিন্ন মাধ্যমে খোঁজখবর নিচ্ছি। ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেলে অবশ্যই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. ময়নুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমোদন ছাড়া বিদ্যালয়ের সরকারি পাঠ্যবই বিক্রি করার কোনো সুযোগ নেই। এমনকি এটি দন্ডনীয় অপরাধ। তাই যদি সরকারি পাঠ্যবই কেউ বিক্রি করে থাকেন তাহলে তাদের বিরুদ্ধে তদন্তপূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

back to top