alt

সারাদেশ

চট্টগ্রামে হু হু করে বাড়ছে করোনা : স্বাস্থ্যবিধির বালাই নেই

নিরুপম দাশগুপ্ত, চট্টগ্রাম ব্যুরো : সোমবার, ১৭ জানুয়ারী ২০২২

চট্টগ্রামে ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হন ৫৫০ জন। তবে এ সময়ের মধ্যে ভাইরাসটিতে কারও মৃত্যু হয়নি। নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে সংক্রমণের হার প্রায় ২৭ দশমিক ৭৩ শতাংশ। রোববার (১৬ জানুয়ারি) সকালে চট্টগ্রাম সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে প্রকাশিত প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানা গেছে।

এদিকে প্রাণঘাতী করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে সরকারি নির্দেশনায় অনীহা দেখাচ্ছে সাধারণ মানুষ। স্বাস্থ্যবিধি মেনে যত সিট ততজন যাত্রী নিয়ে বাস চলার নির্দেশনা থাকলেও বাস্তবে দেখা গেছে ভিন্ন চিত্র। নগরীর বিভিন্ন বাসে নির্ধারিত আসনের অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে বাস চলাচল করতে দেখা গেছে।

পাশাপাশি স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব মানার ব্যাপারে উদাসীন ছিল বাস যাত্রী ও পরিবহন শ্রমিকরা। সোমবার (১৭ জানুয়ারি) সকাল থেকেই নগরীর বিভিন্ন সড়কে এমন চিত্র দেখা যায়। তবে নগরীর রেলওয়ে স্টেশনে স্বাস্থ্যবিধি মানার ব্যাপারে কঠোর ছিল রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। চট্টগ্রাম রেলওয়ে স্টেশন থেকে সব আন্তঃনগর ট্রেন অর্ধেক যাত্রী নিয়ে ছেড়ে যায় এবং যাত্রীদের সবার মুখে মাস্ক ছিল।

অন্যদিকে, গণপরিবহনে স্বাস্থ্যবিধি ও সরকারি বিধিনিষেধ মানা হচ্ছে কিনা তা তদারকি করতে নগরীর বিভিন্ন সড়কে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করছেন চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন ও বিআরটিএ’র নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট। সরকারি নির্দেশনা না মানার দায়ে জরিমানা করেন দায়িত্বরত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা।

সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ ইলিয়াছ চৌধুরী জানান, ২৪ ঘণ্টায় চট্টগ্রামের বিভিন্ন ল্যাবে এক হাজার ৯৮৩ জনের নমুনা পরীক্ষায় ৫৫০ জনের দেহে করোনার জীবাণু শনাক্ত হয়। শনাক্তদের মধ্যে ৩৬২ জন নগরের এবং ১৮৮ জন বিভিন্ন উপজেলার বাসিন্দা। তিনি জানান, ২৪ ঘণ্টায় চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ল্যাবে ১৫ জন, ফৌজদারহাট বিআইটিআইডি ল্যাবে ৯৭ জন, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ল্যাবে ৩৪ জন, অ্যান্টিজেন টেস্টে ২৩৮ জন, শেভরন হাসপাতাল ৫৯ জন, চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতাল ল্যাবে ৩২ জন, ইপিক হেলথকেয়ার ল্যাবে ৩২ জন, ল্যাব এইড হাসপাতাল ল্যাবে তিনজন, এশিয়ান স্পেশালাইজড হাসপাতাল ল্যাবে ২৫ জন এবং শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ল্যাবে ১৫ জনের শরীরে করোনার সংক্রমণ শনাক্ত হয়।

এ নিয়ে জেলায় এ পর্যন্ত মোট শনাক্তের সংখ্যা দাঁড়ালো এক লাখ চার হাজার ৯৭৭ জনে এবং মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল এক হাজার ৩৩৫ জনে।

সোমবার সকাল থেকে নগরীর আগ্রাবাদ, দেওয়ানহাট, টাইগারপাস, জিইসি, দুই নম্বর গেট, বহদ্দারহাট ও নিউমার্কেট এলাকা ঘুরে দেখা যায়, গণপরিবহন শ্রমিক (বাস) ও যাত্রীদের মধ্যে কোন সচেতনতা দেখা যায়নি। বাস চালক-সহকারী ও যাত্রীদের অধিকাংশের মুখে মাস্ক ছিল না। আসন না পেয়ে দাঁড়িয়ে গন্তব্যে যেতে দেখা যায় অনেক যাত্রীকে।

তবে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সরকার ঘোষিত বিধিনিষেধ অনুযায়ী মোট আসন সংখ্যার অর্ধেক যাত্রী নিয়ে চলেছে আন্তঃনগর ট্রেন। সকালে চট্টগ্রাম রেলওয়ে স্টেশন থেকে সব আন্তঃনগর ট্রেনে অর্ধেক যাত্রী দেখা গেছে। সবার ছিল মুখে মাস্ক। স্টেশনে মাস্ক ব্যবহারে কঠোর ছিল রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। প্রবেশপথে রাখা হয়েছে হ্যান্ড স্যানিটাইজার। যাত্রীদের হাত স্যানিটাইজ করে দিয়েছেন দায়িত্বরত কর্মচারীরা। মুখে মাস্ক নেই এমন ক্রেতার কাছে টিকিট বিক্রি করেনি কাউন্টারে দায়িত্বরত কর্মকর্তা। অন্যদিকে, যাত্রীদের মুখে মাস্ক না থাকলে রেলস্টেশনের ভেতরে ঢুকতে দেয়া হয়নি।

প্রসঙ্গত, করোনা সংক্রমণ উদ্বেগজনক হারে বাড়তে থাকায় সরকার ১১ দফা বিধিনিষেধ আরোপ করেছে। বৃহস্পতিবার (১৩ জানুয়ারি) থেকে পরবর্তী নির্দেশনা না দেওয়া পর্যন্ত দেশবাসীকে এসব বিধিনিষেধ মেনে চলতে বলা হয়েছে। এসব বিধিনিষেধের মধ্যে রয়েছে উন্মুক্ত স্থানে সব ধরনের সামাজিক, রাজনৈতিক, ধর্মীয় অনুষ্ঠান ও সমাবেশ বন্ধ রাখা অন্যতম।

নোয়াখালীতে ৯টি অবৈধ ক্লিনিক সিলগালা

ছবি

কিশোরী সংঘের ছোঁয়ায় রোধ হচ্ছে বাল্যবিবাহ, স্কুল থেকে ঝরে পড়া

রংপুরে ২৪ ঘণ্টায় দুই হত্যাকান্ড

ছবি

নতুন বিষয় ও গবেষণার কাজে আরও মনোযোগী হতে হবে: উপাচার্য

ছবি

বাঁশ দিয়ে ঘিরে দখল সরকারি পুকুর

আসামিদের হুমকিতে পালিয়ে বেড়াচ্ছে পরিবার

সেতু সংস্কারের অভাবে বাড়ছে ভোগান্তি

কৃষি আবহাওয়ার পূর্বাভাস বঞ্চিত শেরপুরে প্রায় ৬০ হাজার কৃষক

ধর্ষণের শিকার শিশু মামলার পরও গ্রেপ্তার হয়নি অভিযুক্ত

ছাত্রীর পর এবার এমসি কলেজ ছাত্রের মরদেহ উদ্ধার

ছবি

২২ বছর ধরে পারাপারের ভরসা নড়বড়ে সাঁকো

ছবি

চুয়াডাঙ্গায় ৩ ডায়াগনস্টিক সেন্টার সিলগালা

ছবি

নরসিংদীতে পৃথক দুর্ঘটনায় নিহত ২

ছবি

নরসিংদীতে নির্বাচনী সংঘাতে আহত ১৫

ছবি

উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের সাথে ট্রেন চলাচল শুরু

অহিংস অগ্নিযাত্রা : তরুণীকে হেনস্থার প্রতিবাদ

ছবি

ভরা মৌসুমে ধান সরবরাহ কম, বাড়ছে দাম

ছবি

তারেককে দেশে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা চলছে: তথ্যমন্ত্রী

ছবি

‘যারা দেশের টাকা পাচার করেছে তাদের নামের তালিকা করা হচ্ছে’

ছবি

শহরের মুদি দোকানগুলো বাকিতে পণ্য বিক্রি বন্ধ করায় দুর্দশায় ক্রেতারা

ছবি

খুলনা-কলকাতা রুটে রোববার থেকে চলবে ‘বন্ধন এক্সপ্রেস’

ছবি

‘জাতীয়ভাবে এমন উদ্যোগ নিতে হবে যেন আমাদের সন্তানেরা থাকে নিরাপদে’

ছবি

আজ আসছে খিরসাপাত, আমের বাজার চড়া

ছবি

আশ্রয়ণ প্রকল্প নিয়ে দুর্নীতি করলেই ব্যবস্থা: আইনমন্ত্রী

ছবি

ফরিদপুরের নগরকান্দায় রাতের আঁধারে সরকারি পুকুর দখল

ছবি

প্রধান শিক্ষকের ‘স্বেচ্ছাচারিতা’, বিদ্যালয়ে শিক্ষা কার্যক্রম ব্যাহত

ছবি

প্রশিক্ষণে নেদারল্যান্ডস গিয়ে ‘নিখোঁজ’ ২ পুলিশ

বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল আজিজ স্মরণে সভা

শটসার্কিটের আগুনে দগ্ধ শিশুসহ দুজন

২ জেলায় হামলা-সংঘর্ষে নিহত দুই, গ্রেপ্তার সাত

ছবি

হাতির ভয় দেখিয়ে মাহুতের চাঁদাবাজি

বগুড়ায় জাল টাকা ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার চারজন

তিন দিন পর উল্টো লুটপাটের মামলা

বান্দরবানে পর্যটকবাহী মাইক্রো খাদে : নিহত ৩

হাতিয়ায় ১৭ জেলেকে অর্থদন্ড

ছবি

পদ্মায় বিলীন কয়েকশ’ একর ফসলি জমি

tab

সারাদেশ

চট্টগ্রামে হু হু করে বাড়ছে করোনা : স্বাস্থ্যবিধির বালাই নেই

নিরুপম দাশগুপ্ত, চট্টগ্রাম ব্যুরো

সোমবার, ১৭ জানুয়ারী ২০২২

চট্টগ্রামে ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হন ৫৫০ জন। তবে এ সময়ের মধ্যে ভাইরাসটিতে কারও মৃত্যু হয়নি। নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে সংক্রমণের হার প্রায় ২৭ দশমিক ৭৩ শতাংশ। রোববার (১৬ জানুয়ারি) সকালে চট্টগ্রাম সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে প্রকাশিত প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানা গেছে।

এদিকে প্রাণঘাতী করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে সরকারি নির্দেশনায় অনীহা দেখাচ্ছে সাধারণ মানুষ। স্বাস্থ্যবিধি মেনে যত সিট ততজন যাত্রী নিয়ে বাস চলার নির্দেশনা থাকলেও বাস্তবে দেখা গেছে ভিন্ন চিত্র। নগরীর বিভিন্ন বাসে নির্ধারিত আসনের অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে বাস চলাচল করতে দেখা গেছে।

পাশাপাশি স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব মানার ব্যাপারে উদাসীন ছিল বাস যাত্রী ও পরিবহন শ্রমিকরা। সোমবার (১৭ জানুয়ারি) সকাল থেকেই নগরীর বিভিন্ন সড়কে এমন চিত্র দেখা যায়। তবে নগরীর রেলওয়ে স্টেশনে স্বাস্থ্যবিধি মানার ব্যাপারে কঠোর ছিল রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। চট্টগ্রাম রেলওয়ে স্টেশন থেকে সব আন্তঃনগর ট্রেন অর্ধেক যাত্রী নিয়ে ছেড়ে যায় এবং যাত্রীদের সবার মুখে মাস্ক ছিল।

অন্যদিকে, গণপরিবহনে স্বাস্থ্যবিধি ও সরকারি বিধিনিষেধ মানা হচ্ছে কিনা তা তদারকি করতে নগরীর বিভিন্ন সড়কে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করছেন চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন ও বিআরটিএ’র নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট। সরকারি নির্দেশনা না মানার দায়ে জরিমানা করেন দায়িত্বরত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা।

সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ ইলিয়াছ চৌধুরী জানান, ২৪ ঘণ্টায় চট্টগ্রামের বিভিন্ন ল্যাবে এক হাজার ৯৮৩ জনের নমুনা পরীক্ষায় ৫৫০ জনের দেহে করোনার জীবাণু শনাক্ত হয়। শনাক্তদের মধ্যে ৩৬২ জন নগরের এবং ১৮৮ জন বিভিন্ন উপজেলার বাসিন্দা। তিনি জানান, ২৪ ঘণ্টায় চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ল্যাবে ১৫ জন, ফৌজদারহাট বিআইটিআইডি ল্যাবে ৯৭ জন, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ল্যাবে ৩৪ জন, অ্যান্টিজেন টেস্টে ২৩৮ জন, শেভরন হাসপাতাল ৫৯ জন, চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতাল ল্যাবে ৩২ জন, ইপিক হেলথকেয়ার ল্যাবে ৩২ জন, ল্যাব এইড হাসপাতাল ল্যাবে তিনজন, এশিয়ান স্পেশালাইজড হাসপাতাল ল্যাবে ২৫ জন এবং শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ল্যাবে ১৫ জনের শরীরে করোনার সংক্রমণ শনাক্ত হয়।

এ নিয়ে জেলায় এ পর্যন্ত মোট শনাক্তের সংখ্যা দাঁড়ালো এক লাখ চার হাজার ৯৭৭ জনে এবং মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল এক হাজার ৩৩৫ জনে।

সোমবার সকাল থেকে নগরীর আগ্রাবাদ, দেওয়ানহাট, টাইগারপাস, জিইসি, দুই নম্বর গেট, বহদ্দারহাট ও নিউমার্কেট এলাকা ঘুরে দেখা যায়, গণপরিবহন শ্রমিক (বাস) ও যাত্রীদের মধ্যে কোন সচেতনতা দেখা যায়নি। বাস চালক-সহকারী ও যাত্রীদের অধিকাংশের মুখে মাস্ক ছিল না। আসন না পেয়ে দাঁড়িয়ে গন্তব্যে যেতে দেখা যায় অনেক যাত্রীকে।

তবে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সরকার ঘোষিত বিধিনিষেধ অনুযায়ী মোট আসন সংখ্যার অর্ধেক যাত্রী নিয়ে চলেছে আন্তঃনগর ট্রেন। সকালে চট্টগ্রাম রেলওয়ে স্টেশন থেকে সব আন্তঃনগর ট্রেনে অর্ধেক যাত্রী দেখা গেছে। সবার ছিল মুখে মাস্ক। স্টেশনে মাস্ক ব্যবহারে কঠোর ছিল রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। প্রবেশপথে রাখা হয়েছে হ্যান্ড স্যানিটাইজার। যাত্রীদের হাত স্যানিটাইজ করে দিয়েছেন দায়িত্বরত কর্মচারীরা। মুখে মাস্ক নেই এমন ক্রেতার কাছে টিকিট বিক্রি করেনি কাউন্টারে দায়িত্বরত কর্মকর্তা। অন্যদিকে, যাত্রীদের মুখে মাস্ক না থাকলে রেলস্টেশনের ভেতরে ঢুকতে দেয়া হয়নি।

প্রসঙ্গত, করোনা সংক্রমণ উদ্বেগজনক হারে বাড়তে থাকায় সরকার ১১ দফা বিধিনিষেধ আরোপ করেছে। বৃহস্পতিবার (১৩ জানুয়ারি) থেকে পরবর্তী নির্দেশনা না দেওয়া পর্যন্ত দেশবাসীকে এসব বিধিনিষেধ মেনে চলতে বলা হয়েছে। এসব বিধিনিষেধের মধ্যে রয়েছে উন্মুক্ত স্থানে সব ধরনের সামাজিক, রাজনৈতিক, ধর্মীয় অনুষ্ঠান ও সমাবেশ বন্ধ রাখা অন্যতম।

back to top