alt

সারাদেশ

শুধু নির্দেশনা দিয়েই শেষ, বিধি মানার কোন লক্ষণ নেই বাস-ট্রেনে

তদারকিও নেই

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : সোমবার, ১৭ জানুয়ারী ২০২২

কমলাপুরে লোকাল ট্রেনের চিত্র, সরকারি নির্দেশনাকে তোয়াক্কা না করে যাত্রী নেয়া হয় গাদাগাদি করে -সংবাদ

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে স্বাস্থ্যবিধি মানার কোন নির্দেশনা কার্যকর হচ্ছে না গণপরিবহনে। বাস ও লোকাল ট্রেনে দাঁড়িয়ে ও গাদাগাদি করে যাত্রী পরিবহন করা হচ্ছে। এক্ষেত্রে মানা হচ্ছে না কোন স্বাস্থ্যবিধি। তবে আন্তঃনগর ট্রেনে এক সিট ফাঁকা যাত্রী পরিবহন করা হলেও কমিউটার, মেইল ও লোকাল ট্রেনের অবস্থা খুবই খারাপ। এক সিটে তিন জন করে গাদাগাদি ও দাঁড়িয়ে যাত্রী পরিবহন করতে দেখা বিভিন্ন ট্রেন। নির্দেশনা দিয়েই শেষ, কিন্তু তদারকির কোন লক্ষণ নেই।

রাজধানীর বিভিন্ন রুটে বাস ও মিনিবাসে একই অবস্থা। সিট অনুযায়ী যাত্রী পরিবহনের কথা থাকলেও তা মানছে না পরিবহন চালকরা। এছাড়া যাত্রী, চালক ও হেলপারের মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক থাকলেও অনেককেই তা মানতে দেখা যায়নি।

সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ)’র বিধিনিষেধের ৫ দফা নির্দেশনার কোনটাই মানছে না পরিবহন চালকরা। প্রতিটি বাসের চালক ও সহকারীর টিকা সনদ থাকতে হবে। বাসের যাত্রী, চালক, সহকারী ও টিকেট বিক্রয়কারীর অবশ্যই মাস্ক থাকতে হবে। প্রতিটি বাসে হ্যান্ড সেনিটাইজার ও জীবানুণাশক দিয়ে যাত্রীদের ব্যাগ ও জিনিসপত্র জীবানুমুক্ত করতে হবে। পরিবহন ছাড়ার আগে ও পরে জীবানুমুক্ত করা এই ৫ দফা নির্দেশনা ছিল বিআরটিএ’র।

এ বিষয়ে রাজধানীর পুরানা পল্টন এলাকায় সুরুজ মিয়া নামের নামের এক সিএনজি চালক বলেন, ‘দেশে এখন আর করোনা নাই। এটা বড় লোকের রোগ। আমাদের মতো গরিব মানুষের কিচ্ছু হবে না।’

মতিঝিল এলাকায় আজিজ নামের এক যাত্রী বলেন, ‘যাত্রাবাড়ী থেকে মতিঝিলে আসলাম ৮ নম্বার নামে একটি বাসে। এই বাসের নেই কোন স্বাস্থ্যবিধির বালাই। দাঁড়িয়ে ও গাদাগাদি করে যাত্রী পরিবহন করা হয়েছে। চালক ও হেলপার কারও মুখেই মাস্ক ছিল না। মাস্ক ছাড়া যাত্রীদেরও কোন তদারকি করা হয়নি। এছাড়া বাসের সিটগুলো ছিল নোংরা ও ময়লাযুক্ত।’

তবে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ আবার বাড়তে থাকায় মানুষকে স্বাস্থ্যবিধি মানাতে কঠোর হতে যাচ্ছে সরকার। সোমবার (১৭ জানুয়ারি) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম সেই ইঙ্গিতই দিয়েছেন।

সভা শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব সাংবাদিকদের বলেন, ‘এরই মধ্যে আমরা বলে দিয়েছি, আগে ২/১ দিন অবজার্ভ করব, তার পরে আমরা একটু অ্যাকশনে যাব। কারণ প্রথম থেকেই অ্যাকশনে যেতে চাই না। আমরা দেখতে চাচ্ছি, উনারা (জনগণ) মানেন কি না (স্বাস্থ্যবিধি)। অলরেডি আমরা প্রশাসনকে এবং আইন প্রয়োগকারী সংস্থাকে ওয়াচ করতে বলেছি, তারপরে ইনশাল্লাহ আমরা কাল-পরশুর মধ্যে কিছু একটা চেষ্টা করব।’

ছবি

নরসিংদীতে নির্বাচনী সংঘাতে আহত ১৫

ছবি

উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের সাথে ট্রেন চলাচল শুরু

অহিংস অগ্নিযাত্রা : তরুণীকে হেনস্থার প্রতিবাদ

ছবি

ভরা মৌসুমে ধান সরবরাহ কম, বাড়ছে দাম

ছবি

তারেককে দেশে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা চলছে: তথ্যমন্ত্রী

ছবি

‘যারা দেশের টাকা পাচার করেছে তাদের নামের তালিকা করা হচ্ছে’

ছবি

শহরের মুদি দোকানগুলো বাকিতে পণ্য বিক্রি বন্ধ করায় দুর্দশায় ক্রেতারা

ছবি

খুলনা-কলকাতা রুটে রোববার থেকে চলবে ‘বন্ধন এক্সপ্রেস’

ছবি

‘জাতীয়ভাবে এমন উদ্যোগ নিতে হবে যেন আমাদের সন্তানেরা থাকে নিরাপদে’

ছবি

আজ আসছে খিরসাপাত, আমের বাজার চড়া

ছবি

আশ্রয়ণ প্রকল্প নিয়ে দুর্নীতি করলেই ব্যবস্থা: আইনমন্ত্রী

ছবি

ফরিদপুরের নগরকান্দায় রাতের আঁধারে সরকারি পুকুর দখল

ছবি

প্রধান শিক্ষকের ‘স্বেচ্ছাচারিতা’, বিদ্যালয়ে শিক্ষা কার্যক্রম ব্যাহত

ছবি

প্রশিক্ষণে নেদারল্যান্ডস গিয়ে ‘নিখোঁজ’ ২ পুলিশ

বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল আজিজ স্মরণে সভা

শটসার্কিটের আগুনে দগ্ধ শিশুসহ দুজন

২ জেলায় হামলা-সংঘর্ষে নিহত দুই, গ্রেপ্তার সাত

ছবি

হাতির ভয় দেখিয়ে মাহুতের চাঁদাবাজি

বগুড়ায় জাল টাকা ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার চারজন

তিন দিন পর উল্টো লুটপাটের মামলা

বান্দরবানে পর্যটকবাহী মাইক্রো খাদে : নিহত ৩

হাতিয়ায় ১৭ জেলেকে অর্থদন্ড

ছবি

পদ্মায় বিলীন কয়েকশ’ একর ফসলি জমি

ছবি

মিরসরাইয়ে র‍্যাবের ওপর হামলার ঘটনায় গ্রেপ্তার ১৩

ছবি

হরিরামপুরে পদ্মায় বিলীন কাঞ্চনপুরের দুই তৃতীয়াংশ

সাভারে অনিবন্ধিত দুই হাসপাতাল সিলগালা

কুমিল্লায় রেল যোগাযোগ স্বাভাবিক হয়েছে

কুমিল্লায় ট্রেন লাইনচ্যুত, সিলেট-চট্টগ্রামের ট্রেন বন্ধ

রংপুরে শিশু ধর্ষণ মামলায় ইমামের যাবজ্জীবন

ছবি

করোনা চিকিৎসায় বিবাহিত স্বাস্থ্যকর্মীরা বেশী মানসিক রোগে আক্রান্ত

ছবি

তেজগাঁও ট্রাকে পিষ্ট হয়ে শিশু নিহত

ছবি

অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে শিক্ষক-শিক্ষার্থী, খোয়ালেন টাকা-মোবাইল

ছবি

বিদ্যুৎপৃষ্টে প্রাণ গেল ছাত্রলীগ নেতার, আহত ২

বাঁশকালীতে জমি বিবাদে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের শঙ্কা

পাকুন্দিয়ায় ৬ষ্ঠ শ্রেণির স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণ

ছবি

অবৈধ অটোরিকশার চোখ ধাঁধাঁনো এলইডির আলোতে বাড়ছে দুর্ঘটনা

tab

সারাদেশ

শুধু নির্দেশনা দিয়েই শেষ, বিধি মানার কোন লক্ষণ নেই বাস-ট্রেনে

তদারকিও নেই

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

কমলাপুরে লোকাল ট্রেনের চিত্র, সরকারি নির্দেশনাকে তোয়াক্কা না করে যাত্রী নেয়া হয় গাদাগাদি করে -সংবাদ

সোমবার, ১৭ জানুয়ারী ২০২২

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে স্বাস্থ্যবিধি মানার কোন নির্দেশনা কার্যকর হচ্ছে না গণপরিবহনে। বাস ও লোকাল ট্রেনে দাঁড়িয়ে ও গাদাগাদি করে যাত্রী পরিবহন করা হচ্ছে। এক্ষেত্রে মানা হচ্ছে না কোন স্বাস্থ্যবিধি। তবে আন্তঃনগর ট্রেনে এক সিট ফাঁকা যাত্রী পরিবহন করা হলেও কমিউটার, মেইল ও লোকাল ট্রেনের অবস্থা খুবই খারাপ। এক সিটে তিন জন করে গাদাগাদি ও দাঁড়িয়ে যাত্রী পরিবহন করতে দেখা বিভিন্ন ট্রেন। নির্দেশনা দিয়েই শেষ, কিন্তু তদারকির কোন লক্ষণ নেই।

রাজধানীর বিভিন্ন রুটে বাস ও মিনিবাসে একই অবস্থা। সিট অনুযায়ী যাত্রী পরিবহনের কথা থাকলেও তা মানছে না পরিবহন চালকরা। এছাড়া যাত্রী, চালক ও হেলপারের মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক থাকলেও অনেককেই তা মানতে দেখা যায়নি।

সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ)’র বিধিনিষেধের ৫ দফা নির্দেশনার কোনটাই মানছে না পরিবহন চালকরা। প্রতিটি বাসের চালক ও সহকারীর টিকা সনদ থাকতে হবে। বাসের যাত্রী, চালক, সহকারী ও টিকেট বিক্রয়কারীর অবশ্যই মাস্ক থাকতে হবে। প্রতিটি বাসে হ্যান্ড সেনিটাইজার ও জীবানুণাশক দিয়ে যাত্রীদের ব্যাগ ও জিনিসপত্র জীবানুমুক্ত করতে হবে। পরিবহন ছাড়ার আগে ও পরে জীবানুমুক্ত করা এই ৫ দফা নির্দেশনা ছিল বিআরটিএ’র।

এ বিষয়ে রাজধানীর পুরানা পল্টন এলাকায় সুরুজ মিয়া নামের নামের এক সিএনজি চালক বলেন, ‘দেশে এখন আর করোনা নাই। এটা বড় লোকের রোগ। আমাদের মতো গরিব মানুষের কিচ্ছু হবে না।’

মতিঝিল এলাকায় আজিজ নামের এক যাত্রী বলেন, ‘যাত্রাবাড়ী থেকে মতিঝিলে আসলাম ৮ নম্বার নামে একটি বাসে। এই বাসের নেই কোন স্বাস্থ্যবিধির বালাই। দাঁড়িয়ে ও গাদাগাদি করে যাত্রী পরিবহন করা হয়েছে। চালক ও হেলপার কারও মুখেই মাস্ক ছিল না। মাস্ক ছাড়া যাত্রীদেরও কোন তদারকি করা হয়নি। এছাড়া বাসের সিটগুলো ছিল নোংরা ও ময়লাযুক্ত।’

তবে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ আবার বাড়তে থাকায় মানুষকে স্বাস্থ্যবিধি মানাতে কঠোর হতে যাচ্ছে সরকার। সোমবার (১৭ জানুয়ারি) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম সেই ইঙ্গিতই দিয়েছেন।

সভা শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব সাংবাদিকদের বলেন, ‘এরই মধ্যে আমরা বলে দিয়েছি, আগে ২/১ দিন অবজার্ভ করব, তার পরে আমরা একটু অ্যাকশনে যাব। কারণ প্রথম থেকেই অ্যাকশনে যেতে চাই না। আমরা দেখতে চাচ্ছি, উনারা (জনগণ) মানেন কি না (স্বাস্থ্যবিধি)। অলরেডি আমরা প্রশাসনকে এবং আইন প্রয়োগকারী সংস্থাকে ওয়াচ করতে বলেছি, তারপরে ইনশাল্লাহ আমরা কাল-পরশুর মধ্যে কিছু একটা চেষ্টা করব।’

back to top