alt

সারাদেশ

পশ্চিমাঞ্চল রেল : লেভেল ক্রসিং যেন মরণফাঁদ

সুব্রত দাস, রাজশাহী : বুধবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২২

রাজশাহী : অরক্ষিত রেলগেট -সংবাদ

কোথাও নিরাপত্তারক্ষী নেই, গেটও নেই। এমনই দিনের পর দিন মানুষ পারাপার করছে রেললাইন। আর তাতেই ট্রেনে কাটা পড়ে মৃত্যুর সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে দিনের পর দিন। সোমবার (২৪ জানুয়ারি) সকাল সাড়ে ৮টায় চাঁপাইনবাবগঞ্জে অরক্ষিত একটি রেলক্রসিংয়ে ভটভটি অতিক্রম করার সময় ট্রেনের ধাক্কায় তিনজন মাছ ব্যবসায়ী নিহত হয়। এর আগে গত ৮ ডিসেম্বর নীলফামারী সদরের বউবাজার রেলস্টেশন এলাকায় ট্রেনের নিচে কাটাপড়ে একই পরিবারের তিন শিশু চারজন নিহত হয়েছেন। গত ৫ জানুয়ারি দিনাজপুরের পার্বতীপুরে ট্রেন ও ট্রাকের সংঘর্ষে ট্রেন চালক আবদুর রশিদ সরকার ও সহকারী চালক ইউনুস আলী গুরুতর আহত হয়েছিলেন। তাদের দুজনকে চিকিৎসার জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে হয়েছে। গত ৬ ডিসেম্বর ভোর ৪টায় নাটোর শহরের তেবাড়িয়া রেলক্রসিংয়ে দাঁড়িয়ে থাকা একটি ট্রাকের সঙ্গে ও ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা কুড়িগ্রামগামী কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেস ট্রেনের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে পাঁচ ঘণ্টা বন্ধ থাকার পর উত্তরাঞ্চলের সঙ্গে সারা দেশের ট্রেন যোগাযোগ চালু হয়। অথচ ওই লেভেল ক্রসিংয়ে কোন গেটম্যান ছিল না। গত ২ ডিসেম্বর পাবনার ভাঙ্গুড়া ও পার্বতীপুর রেলওয়ে জংশনে দুটি ট্রেন লাইনচ্যুত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এছাড়া গত এক ডিসেম্বর নাটোরের লালপুরের আজিমপুর রেলওয়ে স্টেশনে রেললাইন পারাপারের সময় ঢাকাগামী দ্রুতযান এক্সপ্রেসের চাকায় পিষ্ট হয়ে ছেলেকে বিশ^বিদ্যালয়ের ভর্তি করাতে এসে খুলনা সদরের হেমায়েত উদ্দিন নামে এক ব্যক্তি মারা যান। এর আগে সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় এমনই একটি অরক্ষিত ক্রসিংয়ে ২০১৯ সালের ২০ জুলাই দুর্ঘটনায় বর-কনেসহ ১২ জন প্রাণ হারান। এভাবেই অরক্ষিত লেভেল ক্রসিং গেটের কারণে দুর্ঘটনায় শত শত প্রাণ ঝড়ে যাচ্ছে। রেলওয়ের হিসাবমতে ২০১৪ সাল থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত এক হাজার ১৯৯টি দুর্ঘটনা ঘটেছে। ওইসব দুর্ঘটনায় ২০৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। তার মধ্যে রেলগেটে সংঘটিত দুর্ঘটনায় ১৬৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। অর্থাৎ তাদের প্রায় সবাই লেভেল ক্রসিং পার হতে যাওয়া বাস, মাইক্রোবাস ও ছোট যানবাহনের আরোহী।

রাজশাহী, রংপুর ও খুলনা বিভাগ নিয়ে গঠিত পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের এক হাজার ৫৬৮ কিলোমিটার রেলপথে এক হাজার ৪৩৯টি রেল ক্রসিং গেটের প্রায় অর্ধেকই যেন মৃত্যুপুরী। রেল কর্তৃপক্ষের উদাসীনতা আর সড়ক নির্মাণ করতে গিয়ে অনুমতির বৈধতা-অবৈধতার মারপ্যাঁচেই যেন বন্দী এসব লেভেল ক্রসিং। প্রায় দেড় হাজার লেভেল ক্রসিংয়ে কাগজে-কলমে নিয়োগপ্রাপ্ত ১৮৯ জন গেটকিপারের তথ্য পাওয়া গেছে। তবে কর্তৃপক্ষের দাবি, প্রকল্পের মাধ্যমে আরও ৭০০ জন গেটকিপার দায়িত্বে রয়েছে। হিসাব অনুযায়ী পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের প্রায় অর্ধেক লেভেল ক্রসিং গেট অরক্ষিত থাকায় ট্রেন দুর্ঘটনায় বাড়ছে মৃত্যুর মিছিল।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, রেলওয়ের পাকশী ও লালমনিরহাট বিভাগ নিয়ে পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ে। পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের পাকশী বিভাগের আওতায় অনুমোদিত বা বৈধ লেভেল ক্রসিং (ট্রাফিক ও ইঞ্জিনিয়ারিং) গেট রয়েছে ৮০৮টি এবং অননুমোদিত বা অবৈধ গেট রয়েছে ১২৩টি। আর লালমনিরহাট বিভাগে অনুমোদিত বা বৈধ লেভেল ক্রসিং গেট (ট্রাফিক ও ইঞ্জিনিয়ারিং) রয়েছে ৪১৭টি এবং অননুমোদিত বা অবৈধ গেট রয়েছে ৯৯টি। সেই হিসাবে পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের আওতায় এক হাজার ৪৩৯টি লেভেল ক্রসিং গেটের ২২২টিই অননুমোদিত বা অবৈধ। আর এসব অননুমোদিত গেটের মধ্যে এলজিইডির রয়েছে ১৮৪টি। এছাড়া সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর সওজের রয়েছে পাঁচটি। বাকিগুলো ইউনিয়ন পরিষদ, জেলা পরিষদ ও সিটি করপোরেশনের অধীনে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এক হাজার ৪৩৯টি লেভেল ক্রসিং গেটের জন্য মঞ্জুুরিকৃত গেটকিপার ছিল ১৮৯ জন। এদের মধ্যে ১১৯ জন গেটকিপার স্বপদে কর্মরত। বাকি ৭০ জনকে অন্যত্র সরিয়ে নেয়া হয়েছে। এছাড়া পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ে কর্তৃপক্ষের দাবি, মঞ্জুরিকৃত ১৮৯ জন ছাড়াও প্রায় ৭০০ জন গেটকিপার প্রকল্পের মাধ্যমে কাজ করছেন। হিসাব অনুযায়ী, ৬২০টি লেভেল ক্রসিং গেটে কোন গেটকিপার না থাকায় গেটগুলো পুরোপুরি অরক্ষিত।

পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়েতে বৈধ ও অবৈধ এসব লেভেল ক্রসিং গেটের মধ্যে ৮১৯টিতে গেটম্যান থাকার কথা বলা হলেও এসব গেটম্যানের বিরুদ্ধে দায়িত্ব অবহেলার বিষয়টি অনুসন্ধানে উঠে এসেছে। মঞ্জুরিকৃত ১১৯ জন গেটকিপার কোনরকম তাদের দায়িত্ব কিছুটা পালন করলেও প্রকল্পের মাধ্যমে দায়িত্বে থাকা ৭০০ গেটকিপারের অধিকাংশই তাদের দায়িত্ব ঠিকমতো পালন করেন না। আবার যে লেভেল ক্রসিং গেটগুলোতে গেটম্যান নেই সেগুলোর সামনে সতর্কতামূলক সাইনবোর্ড থাকলেও অবৈধভাবে গড়ে ওঠা ২২২টি ক্রসিংয়ের অধিকাংশের সামনেই নেই সতর্কতামূলক সাইনবোর্ড। ফলে অনেক সময় পথচারীরা লেভেল ক্রসিং অতিক্রমের সময় অসাবধানতাবশত দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে। বৈধ-অবৈধ লেভেল ক্রসিংয়ের মাইর-প্যাঁচসহ কর্তৃপক্ষের উদাসীনতায় এভাবেই প্রতিনিয়ত ঘটছে রেল দুর্ঘটনা। রেল সংশ্লিষ্ট অনেকেই নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলছেন, রেল পরিচালনার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের উদাসীনতা এবং অন্যান্য ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানেরই সৃষ্ট পশ্চিম রেলের এসব অরক্ষিত লেভেল ক্রসিং গেট। আর এসব অরক্ষিত লেভেল ক্রসিংয়ের কারণেই ট্রেন চলাচলে প্রতিনিয়ত বাধার সৃষ্টি হচ্ছে। অথচ রেলওয়ে আইন-১৮৯০ এর ১২৮ ধারায় বলা হয়েছে, কোন ব্যক্তি ট্রেন চলাচলে বাধা সৃষ্টি করলে বা বাধা সৃষ্টির চেষ্টা করলে তার সর্বোচ্চ দুই বছরের কারাদ-ের বিধান রয়েছে। তবে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ বলছে, প্রতিনিয়ত সরকারের অন্য কোন প্রতিষ্ঠান, ব্যক্তি কিংবা জনপ্রতিনিধি অবৈধভাবে লেভেল ক্রসিং গেট তৈরি করছে। যার কারণেই প্রতিনিয়ত অরক্ষিত লেভেল ক্রসিং গেট বাড়ছে, ঘটছে দুর্ঘটনাও।

পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের জেনারেল ম্যানেজার (জিএম) অসীম কুমার তালুকদার বলেন, ‘প্রথম কথা হচ্ছে প্রতিনিয়ত নিজেদের প্রয়োজনের ব্যক্তি পর্যায় থেকে শুরু করে জনপ্রতনিধি কিংবা অন্যরা লেভেল ক্রসিং গেট সৃষ্টি করছে, যা অবৈধ। প্রতিনিয়ত এভাবে অবৈধ গেট সৃষ্ট হলে রাতারাতি সেখানে জনবল দেয়া রেলওয়ে কর্তৃপক্ষের সম্ভব না। অবৈধ লেভেল ক্রসিং যাতে তৈরি না হয় সেজন্য সবাইকে আন্তরিক হতে হবে। পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়েতে স্থায়ী কিছু গেটকিপার রয়েছে। এছাড়া প্রকল্পের মাধ্যমে প্রায় ৭০০ গেটকিপার অস্থায়ী ভিত্তিতে কর্মে নিয়োজিত রয়েছে।’

তবে বাংলাদেশের পরিপ্রেক্ষিতে লেভেল ক্রসিং গেটগুলোতে ঠিকমত গেটকিপার রাখা সম্ভব নয়। সঙ্গত কারণেই এভাবে ট্রেন দুর্ঘটনা লাঘব করা যাবে না বলে বিশেষজ্ঞদের অভিমত। রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (রুয়েট) পুরকৌশল বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ড. মো. কামরুজ্জামান বলেন, ‘বিজ্ঞানসম্মতভাবে দেশের লেভেল ক্রসিংগুলো করা হয়নি। নিয়ম অনুযায়ী, লেভেল ক্রসিং হবে রাস্তার সমান্তরাল। কিন্তু দেশের অধিকাংশ লেভেল ক্রসিং হয় উঁচু, নয়তো নিচু। যার কারণে লেভেল ক্রসিং অতিক্রম করার সময় যানবাহন ক্রসিং আটকে যায় নয়তো বন্ধ হয়ে যায়। ফলে অহরহ ঘটছে দুর্ঘটনা, প্রতিনিয়ত ক্রসিংয়ে ঝড়ে যাচ্ছে তাজা প্রাণ। তবে গুরুত্বপূর্ণ জায়গাগুলোতে ‘ওভারপাস’ এবং ‘আন্ডারপাস’ তৈরি করা সম্ভব হলে দেশে লেভেল ক্রসিংয়ে মৃত্যুর মিছিল কিছুটা হলেও কমবে।’

লালমনিরহাটে দুই ট্রাকের সংঘর্ষে নিহত ১, আহত

বেগমগঞ্জের ছাত্র হোষ্টেলে সন্ত্রাসীদের হামলা। আহত ৬

ছবি

প্লাস্টিক বর্জ্য মুক্ত হচ্ছে মাধবকুণ্ড

ছবি

মেঘনা থেকে বালু তুলতে পারবেন না সেলিম খান

কক্সবাজার হাসপাতালের মর্গের ফ্রিজ নষ্ট

ছবি

সুপ্রিম কোর্টে নিরাপত্তা জোরদার, অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন

ছবি

বরিশালে গাছের সঙ্গে বাসের ধাক্কা, নিহতের সংখ্যা বেড়ে ১০

ছবি

শাহজিবাজার বিদ্যুৎ প্লান্টে ভয়াবহ আগুন

নোয়াখালীতে ৯টি অবৈধ ক্লিনিক সিলগালা

ছবি

কিশোরী সংঘের ছোঁয়ায় রোধ হচ্ছে বাল্যবিবাহ, স্কুল থেকে ঝরে পড়া

রংপুরে ২৪ ঘণ্টায় দুই হত্যাকান্ড

ছবি

নতুন বিষয় ও গবেষণার কাজে আরও মনোযোগী হতে হবে: উপাচার্য

ছবি

বাঁশ দিয়ে ঘিরে দখল সরকারি পুকুর

আসামিদের হুমকিতে পালিয়ে বেড়াচ্ছে পরিবার

সেতু সংস্কারের অভাবে বাড়ছে ভোগান্তি

কৃষি আবহাওয়ার পূর্বাভাস বঞ্চিত শেরপুরে প্রায় ৬০ হাজার কৃষক

ধর্ষণের শিকার শিশু মামলার পরও গ্রেপ্তার হয়নি অভিযুক্ত

ছাত্রীর পর এবার এমসি কলেজ ছাত্রের মরদেহ উদ্ধার

ছবি

২২ বছর ধরে পারাপারের ভরসা নড়বড়ে সাঁকো

ছবি

চুয়াডাঙ্গায় ৩ ডায়াগনস্টিক সেন্টার সিলগালা

ছবি

নরসিংদীতে পৃথক দুর্ঘটনায় নিহত ২

ছবি

নরসিংদীতে নির্বাচনী সংঘাতে আহত ১৫

ছবি

উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের সাথে ট্রেন চলাচল শুরু

অহিংস অগ্নিযাত্রা : তরুণীকে হেনস্থার প্রতিবাদ

ছবি

ভরা মৌসুমে ধান সরবরাহ কম, বাড়ছে দাম

ছবি

তারেককে দেশে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা চলছে: তথ্যমন্ত্রী

ছবি

‘যারা দেশের টাকা পাচার করেছে তাদের নামের তালিকা করা হচ্ছে’

ছবি

শহরের মুদি দোকানগুলো বাকিতে পণ্য বিক্রি বন্ধ করায় দুর্দশায় ক্রেতারা

ছবি

খুলনা-কলকাতা রুটে রোববার থেকে চলবে ‘বন্ধন এক্সপ্রেস’

ছবি

‘জাতীয়ভাবে এমন উদ্যোগ নিতে হবে যেন আমাদের সন্তানেরা থাকে নিরাপদে’

ছবি

আজ আসছে খিরসাপাত, আমের বাজার চড়া

ছবি

আশ্রয়ণ প্রকল্প নিয়ে দুর্নীতি করলেই ব্যবস্থা: আইনমন্ত্রী

ছবি

ফরিদপুরের নগরকান্দায় রাতের আঁধারে সরকারি পুকুর দখল

ছবি

প্রধান শিক্ষকের ‘স্বেচ্ছাচারিতা’, বিদ্যালয়ে শিক্ষা কার্যক্রম ব্যাহত

ছবি

প্রশিক্ষণে নেদারল্যান্ডস গিয়ে ‘নিখোঁজ’ ২ পুলিশ

বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল আজিজ স্মরণে সভা

tab

সারাদেশ

পশ্চিমাঞ্চল রেল : লেভেল ক্রসিং যেন মরণফাঁদ

সুব্রত দাস, রাজশাহী

রাজশাহী : অরক্ষিত রেলগেট -সংবাদ

বুধবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২২

কোথাও নিরাপত্তারক্ষী নেই, গেটও নেই। এমনই দিনের পর দিন মানুষ পারাপার করছে রেললাইন। আর তাতেই ট্রেনে কাটা পড়ে মৃত্যুর সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে দিনের পর দিন। সোমবার (২৪ জানুয়ারি) সকাল সাড়ে ৮টায় চাঁপাইনবাবগঞ্জে অরক্ষিত একটি রেলক্রসিংয়ে ভটভটি অতিক্রম করার সময় ট্রেনের ধাক্কায় তিনজন মাছ ব্যবসায়ী নিহত হয়। এর আগে গত ৮ ডিসেম্বর নীলফামারী সদরের বউবাজার রেলস্টেশন এলাকায় ট্রেনের নিচে কাটাপড়ে একই পরিবারের তিন শিশু চারজন নিহত হয়েছেন। গত ৫ জানুয়ারি দিনাজপুরের পার্বতীপুরে ট্রেন ও ট্রাকের সংঘর্ষে ট্রেন চালক আবদুর রশিদ সরকার ও সহকারী চালক ইউনুস আলী গুরুতর আহত হয়েছিলেন। তাদের দুজনকে চিকিৎসার জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে হয়েছে। গত ৬ ডিসেম্বর ভোর ৪টায় নাটোর শহরের তেবাড়িয়া রেলক্রসিংয়ে দাঁড়িয়ে থাকা একটি ট্রাকের সঙ্গে ও ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা কুড়িগ্রামগামী কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেস ট্রেনের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে পাঁচ ঘণ্টা বন্ধ থাকার পর উত্তরাঞ্চলের সঙ্গে সারা দেশের ট্রেন যোগাযোগ চালু হয়। অথচ ওই লেভেল ক্রসিংয়ে কোন গেটম্যান ছিল না। গত ২ ডিসেম্বর পাবনার ভাঙ্গুড়া ও পার্বতীপুর রেলওয়ে জংশনে দুটি ট্রেন লাইনচ্যুত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এছাড়া গত এক ডিসেম্বর নাটোরের লালপুরের আজিমপুর রেলওয়ে স্টেশনে রেললাইন পারাপারের সময় ঢাকাগামী দ্রুতযান এক্সপ্রেসের চাকায় পিষ্ট হয়ে ছেলেকে বিশ^বিদ্যালয়ের ভর্তি করাতে এসে খুলনা সদরের হেমায়েত উদ্দিন নামে এক ব্যক্তি মারা যান। এর আগে সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় এমনই একটি অরক্ষিত ক্রসিংয়ে ২০১৯ সালের ২০ জুলাই দুর্ঘটনায় বর-কনেসহ ১২ জন প্রাণ হারান। এভাবেই অরক্ষিত লেভেল ক্রসিং গেটের কারণে দুর্ঘটনায় শত শত প্রাণ ঝড়ে যাচ্ছে। রেলওয়ের হিসাবমতে ২০১৪ সাল থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত এক হাজার ১৯৯টি দুর্ঘটনা ঘটেছে। ওইসব দুর্ঘটনায় ২০৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। তার মধ্যে রেলগেটে সংঘটিত দুর্ঘটনায় ১৬৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। অর্থাৎ তাদের প্রায় সবাই লেভেল ক্রসিং পার হতে যাওয়া বাস, মাইক্রোবাস ও ছোট যানবাহনের আরোহী।

রাজশাহী, রংপুর ও খুলনা বিভাগ নিয়ে গঠিত পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের এক হাজার ৫৬৮ কিলোমিটার রেলপথে এক হাজার ৪৩৯টি রেল ক্রসিং গেটের প্রায় অর্ধেকই যেন মৃত্যুপুরী। রেল কর্তৃপক্ষের উদাসীনতা আর সড়ক নির্মাণ করতে গিয়ে অনুমতির বৈধতা-অবৈধতার মারপ্যাঁচেই যেন বন্দী এসব লেভেল ক্রসিং। প্রায় দেড় হাজার লেভেল ক্রসিংয়ে কাগজে-কলমে নিয়োগপ্রাপ্ত ১৮৯ জন গেটকিপারের তথ্য পাওয়া গেছে। তবে কর্তৃপক্ষের দাবি, প্রকল্পের মাধ্যমে আরও ৭০০ জন গেটকিপার দায়িত্বে রয়েছে। হিসাব অনুযায়ী পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের প্রায় অর্ধেক লেভেল ক্রসিং গেট অরক্ষিত থাকায় ট্রেন দুর্ঘটনায় বাড়ছে মৃত্যুর মিছিল।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, রেলওয়ের পাকশী ও লালমনিরহাট বিভাগ নিয়ে পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ে। পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের পাকশী বিভাগের আওতায় অনুমোদিত বা বৈধ লেভেল ক্রসিং (ট্রাফিক ও ইঞ্জিনিয়ারিং) গেট রয়েছে ৮০৮টি এবং অননুমোদিত বা অবৈধ গেট রয়েছে ১২৩টি। আর লালমনিরহাট বিভাগে অনুমোদিত বা বৈধ লেভেল ক্রসিং গেট (ট্রাফিক ও ইঞ্জিনিয়ারিং) রয়েছে ৪১৭টি এবং অননুমোদিত বা অবৈধ গেট রয়েছে ৯৯টি। সেই হিসাবে পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের আওতায় এক হাজার ৪৩৯টি লেভেল ক্রসিং গেটের ২২২টিই অননুমোদিত বা অবৈধ। আর এসব অননুমোদিত গেটের মধ্যে এলজিইডির রয়েছে ১৮৪টি। এছাড়া সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর সওজের রয়েছে পাঁচটি। বাকিগুলো ইউনিয়ন পরিষদ, জেলা পরিষদ ও সিটি করপোরেশনের অধীনে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এক হাজার ৪৩৯টি লেভেল ক্রসিং গেটের জন্য মঞ্জুুরিকৃত গেটকিপার ছিল ১৮৯ জন। এদের মধ্যে ১১৯ জন গেটকিপার স্বপদে কর্মরত। বাকি ৭০ জনকে অন্যত্র সরিয়ে নেয়া হয়েছে। এছাড়া পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ে কর্তৃপক্ষের দাবি, মঞ্জুরিকৃত ১৮৯ জন ছাড়াও প্রায় ৭০০ জন গেটকিপার প্রকল্পের মাধ্যমে কাজ করছেন। হিসাব অনুযায়ী, ৬২০টি লেভেল ক্রসিং গেটে কোন গেটকিপার না থাকায় গেটগুলো পুরোপুরি অরক্ষিত।

পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়েতে বৈধ ও অবৈধ এসব লেভেল ক্রসিং গেটের মধ্যে ৮১৯টিতে গেটম্যান থাকার কথা বলা হলেও এসব গেটম্যানের বিরুদ্ধে দায়িত্ব অবহেলার বিষয়টি অনুসন্ধানে উঠে এসেছে। মঞ্জুরিকৃত ১১৯ জন গেটকিপার কোনরকম তাদের দায়িত্ব কিছুটা পালন করলেও প্রকল্পের মাধ্যমে দায়িত্বে থাকা ৭০০ গেটকিপারের অধিকাংশই তাদের দায়িত্ব ঠিকমতো পালন করেন না। আবার যে লেভেল ক্রসিং গেটগুলোতে গেটম্যান নেই সেগুলোর সামনে সতর্কতামূলক সাইনবোর্ড থাকলেও অবৈধভাবে গড়ে ওঠা ২২২টি ক্রসিংয়ের অধিকাংশের সামনেই নেই সতর্কতামূলক সাইনবোর্ড। ফলে অনেক সময় পথচারীরা লেভেল ক্রসিং অতিক্রমের সময় অসাবধানতাবশত দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে। বৈধ-অবৈধ লেভেল ক্রসিংয়ের মাইর-প্যাঁচসহ কর্তৃপক্ষের উদাসীনতায় এভাবেই প্রতিনিয়ত ঘটছে রেল দুর্ঘটনা। রেল সংশ্লিষ্ট অনেকেই নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলছেন, রেল পরিচালনার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের উদাসীনতা এবং অন্যান্য ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানেরই সৃষ্ট পশ্চিম রেলের এসব অরক্ষিত লেভেল ক্রসিং গেট। আর এসব অরক্ষিত লেভেল ক্রসিংয়ের কারণেই ট্রেন চলাচলে প্রতিনিয়ত বাধার সৃষ্টি হচ্ছে। অথচ রেলওয়ে আইন-১৮৯০ এর ১২৮ ধারায় বলা হয়েছে, কোন ব্যক্তি ট্রেন চলাচলে বাধা সৃষ্টি করলে বা বাধা সৃষ্টির চেষ্টা করলে তার সর্বোচ্চ দুই বছরের কারাদ-ের বিধান রয়েছে। তবে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ বলছে, প্রতিনিয়ত সরকারের অন্য কোন প্রতিষ্ঠান, ব্যক্তি কিংবা জনপ্রতিনিধি অবৈধভাবে লেভেল ক্রসিং গেট তৈরি করছে। যার কারণেই প্রতিনিয়ত অরক্ষিত লেভেল ক্রসিং গেট বাড়ছে, ঘটছে দুর্ঘটনাও।

পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের জেনারেল ম্যানেজার (জিএম) অসীম কুমার তালুকদার বলেন, ‘প্রথম কথা হচ্ছে প্রতিনিয়ত নিজেদের প্রয়োজনের ব্যক্তি পর্যায় থেকে শুরু করে জনপ্রতনিধি কিংবা অন্যরা লেভেল ক্রসিং গেট সৃষ্টি করছে, যা অবৈধ। প্রতিনিয়ত এভাবে অবৈধ গেট সৃষ্ট হলে রাতারাতি সেখানে জনবল দেয়া রেলওয়ে কর্তৃপক্ষের সম্ভব না। অবৈধ লেভেল ক্রসিং যাতে তৈরি না হয় সেজন্য সবাইকে আন্তরিক হতে হবে। পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়েতে স্থায়ী কিছু গেটকিপার রয়েছে। এছাড়া প্রকল্পের মাধ্যমে প্রায় ৭০০ গেটকিপার অস্থায়ী ভিত্তিতে কর্মে নিয়োজিত রয়েছে।’

তবে বাংলাদেশের পরিপ্রেক্ষিতে লেভেল ক্রসিং গেটগুলোতে ঠিকমত গেটকিপার রাখা সম্ভব নয়। সঙ্গত কারণেই এভাবে ট্রেন দুর্ঘটনা লাঘব করা যাবে না বলে বিশেষজ্ঞদের অভিমত। রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (রুয়েট) পুরকৌশল বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ড. মো. কামরুজ্জামান বলেন, ‘বিজ্ঞানসম্মতভাবে দেশের লেভেল ক্রসিংগুলো করা হয়নি। নিয়ম অনুযায়ী, লেভেল ক্রসিং হবে রাস্তার সমান্তরাল। কিন্তু দেশের অধিকাংশ লেভেল ক্রসিং হয় উঁচু, নয়তো নিচু। যার কারণে লেভেল ক্রসিং অতিক্রম করার সময় যানবাহন ক্রসিং আটকে যায় নয়তো বন্ধ হয়ে যায়। ফলে অহরহ ঘটছে দুর্ঘটনা, প্রতিনিয়ত ক্রসিংয়ে ঝড়ে যাচ্ছে তাজা প্রাণ। তবে গুরুত্বপূর্ণ জায়গাগুলোতে ‘ওভারপাস’ এবং ‘আন্ডারপাস’ তৈরি করা সম্ভব হলে দেশে লেভেল ক্রসিংয়ে মৃত্যুর মিছিল কিছুটা হলেও কমবে।’

back to top