alt

সারাদেশ

মেঘনার ক্রমাগত ভাঙনে আতংকে আশুগঞ্জের চর-সোনারামপুরবাসী

জেলা বার্তা পরিবেশক, ব্রাক্ষণবাড়িয়া : বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২

ব্রাক্ষণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে মেঘনা নদীর ভাঙনে আতংকিত হয়ে পড়েছে উপজেলার চর- সোনারামপুরবাসী। গত কয়েকদিনে চরের দুটি ঘর বিলীন হয়ে গেছে নদীগর্ভে, দেবে গেছে চরের শ্মশ্বানের মাঝখানের মাটি। ক্রমাগত ভাঙনে আতংকিত চরে বসবাসকারী সাড়ে ৬ হাজার মানুষ। বন্যার কারণে পানিতে তলিয়ে গেছে চরে স্থাপিত আশুগঞ্জ - সিরাজগঞ্জ ২৩০ কেভি বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইনের রিভারক্রসিং টাওয়ারের নীচ। নদীর ভাঙনে হুমকিতে পড়েছে টাওয়ারটি।

সংশ্লিষ্টদের দাবি, মেঘনা নদীর চরের উজানে অপরিকল্পিত ড্রেজিং, কয়েকজন চরবাসীর নদী তীর দখল ও বর্ষার কারণে নদীতে তীব্র স্রোতের কারণে চরে ভাঙন শুরু হয়েছে। ইতিমধ্যেই ভাঙন প্রতিরোধ ও টাওয়ারের নিরাপত্তা রক্ষায় বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) টাওয়ার এলাকা ও চরের শ্মশান ঘাট এলাকায় ৭ হাজার জিও ব্যাগ ফেলার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে। ইতিমধ্যেই জিও ব্যাগ ফেলা শুরু হয়েছে।

এদিকে বুধবার (২৯ জুন) সকালে আশুগঞ্জ - সিরাজগঞ্জ ২৩০ কেভি বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইনের রিভারক্রসিং টাওয়ারের এলাকা সরেজমিনে পরিদর্শন করেছেন পিজিসিবির ডিজাইন এন্ড কোয়ালিটি কন্ট্রোল (সিভিল ডিজাইন ) বিভাগের উপ- বিভাগীয় প্রকৌশলী মোঃ গোলাম রব্বানী। এ সময় তার সাথে ছিলেন পিজিসিবির স্থানীয় দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সহকারি প্রকৌশলী সাদী মোহাম্মদ উপস্থিত ছিলেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বৃটিশ আমলে মেঘনা নদীর বুকে জেগে উঠা চর- সোনারামপুরে জনবসতি শুরু হয়। বর্তমানে চরে ৬ হাজার ৪২২ জন মানুষ বসবাস করেন। বসবাসকারীদের প্রায় ৯০ ভাগই হিন্দু ধর্মাম্বলী। চরের পূর্ব সীমানায় রয়েছে ২৩০ কেভি আশুগঞ্জ - সিরাজগঞ্জ বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইনের রিভারক্রসিং ৩ নং টাওয়ার।

প্রতিবছর বর্ষা শুরু এবং শেষের দিকে টাওয়ার এলাকায় এবং চরের মধ্যবর্তী শ্মশান ঘাট এলাকায় কম- বেশি ভাঙন দেখা দেয়। চলতি বর্ষা মৌসুমের শুরু থেকে অতিবৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলের কারণে আবার ভাঙন শুরু হয়।

গত সপ্তাহে চরের বাসিন্দা রাসু দাস ও উৎপল দাসের বাড়ির একাংশ নদীতে তলিয়ে গেছে। দেবে গেছে শ্মশানের মাঝখানের মাটি। এ অবস্থায় স্থানীয় প্রশাসন ও উপজেলা দুর্যোগ প্রস্তুতি কমিটি চরের ভাঙন এলাকা পরিদর্শন করে পানি উন্নয়ন বোর্ডকে ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ করেছেন।

গত ২০১৯ সালেও টাওয়ার এলাকায় ব্যাপক ভাঙন দেখা দিলে জিও ব্যাগ ফেলা হয়েছিল। তাছাড়া টাওয়ারের নিরাপত্তায় সিমেন্টের ব্লক রয়েছে। স্থানীয় প্রশাসন ও উপজেলা দুর্যোগ প্রস্তুতি কমিটির অনুরোধে পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) টাওয়ার এলাকায় ও চরের শ্মশান ঘাট এলাকায় ৭ হাজার জিও ব্যাগ ফেলার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে।

চরের বাসিন্দা ইব্রাহিম মোল্লা, ভারত দাস, শিপন দাসসহ বেশ কয়েকজন বলেন, কয়েক বছর আগে চরের উজানে মেঘনা নদীতে অপরিকল্পিত ডেজিং করার পর থেকে প্রতিবছরই বর্ষায় চরে ভাঙন শুরু হয়। তারা চর রক্ষায় চরের চারপাশে বাধঁ নির্মাণের দাবি জানান।

এ ব্যাপারে আশুগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার অরবিন্দ বিশ্বাস বলেন, চরে ভাঙন এলাকা পরিদর্শন করে পানি উন্নয়ন বোর্ডকে ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ করেছি।

এ ব্যাপারে বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড, ব্রাক্ষণবাড়িয়ার নির্বাহী প্রকৌশলী (অতিঃদায়িত্ব) খান মোঃ ওয়ালিউজ্জামান বলেন, ভাঙন এলাকায় ৭ হাজার জিও ব্যাগ (বালির বস্তা) ফেলা হবে। ইতিমধ্যেই ৪ হাজার ব্যাগ ফেলা হয়েছে।

এ ব্যাপারে কিশোরগঞ্জ জেলার ভৈরব নৌ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ সাইদুর রহমান বলেন, টাওয়ারের আশে- পাশে যাতে কেউ ঘেষতে না পারে সেজন্য নৌ পুলিশের বৃদ্ধি করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি অব বাংলাদেশ (পিজিসিবি) লিমিটেডের ডিজাইন এন্ড কোয়ালিটি কন্ট্রোল (সিভিল ডিজাইন ) বিভাগের উপ- বিভাগীয় প্রকৌশলী মোঃ গোলাম রব্বানী বলেন, টাওয়ারের নিরাপত্তার জন্য যে ব্লক ও জিও ব্যাগ ফেলা হয়েছিল তা কিছুটা নষ্ট ও স্থানচ্যুতি হয়েছে। টাওয়ার এলাকায় ৩ থেকে ৫ ফুট পানি আছে। তাছাড়া টাওয়ারের পশ্চিম পাশে (চরঘেষে) নতুন করে প্রবল স্রোতধারা বইছে- যাতে টাওয়ারের পশ্চিম পাশের মাটি ও সরে যাবার আশংকা রয়েছে। তিনি বলেন, বিষয়টি উধর্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হবে।

এ ব্যাপারে পিজিসিবির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) প্রকৌশলী গোলাম কিবরিয়া বলেন, বুধবার পিজিসিবির পক্ষ থেকে ডিজাইন এন্ড কোয়ালিটি কন্ট্রোল বিভাগের উপ- বিভাগীয় প্রকৌশলী মোঃ গোলাম রব্বানী ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। বিষয়টি নজরদারির জন্য দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে।

দেশ ও জাতীকে উন্নত করতে হলে শিক্ষার বিকল্প নেই-এমপি শাওন

বগুড়ায় আটক হওয়া কোটি টাকা সারের নিলাম নিয়ে রহস্য

সমুদ্রের ইলিশ ফেনী নদীর বলে বিক্রি হচ্ছে!

শিবগঞ্জে বিয়ের প্রলোভনে গার্মেন্টস কর্মীকে ধর্ষণ, গ্রেপ্তার ২

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনায় যোগ হলো আরও ৩০ ‘রেসকিউ বোট’

টিকটক করতে নদীতে ঝাঁপ দেয়া যুবকের মরদেহ উদ্ধার

বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে স্মার্টকার্ড বিতরণ

বদলগাছীতে ১২০ টাকার কাঁচা মরিচ ২৫০

ছবি

৭ বছর পর মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি গ্রেপ্তার

হাতুড়িপেটায় আহত কিশোরের মৃত্যু, আসামিপক্ষের বাড়িঘর ভাংচুর

ছবি

‘ক্ষুধা-দারিদ্র্য বিমোচনে গম ভুট্টার উৎপাদন বাড়াতে হবে’

ছবি

১৫ বছর ধরে ঝুঁকিপূর্ণ সেতু দিয়ে যাতায়াত!

চুনারুঘাটে সড়কে ঝরল নারী

ছবি

থ্যালাসেমিয়ায় আক্রান্ত দুই সন্তানকে বাঁচাতে মায়ের আকুতি

ছবি

চালের দামে উল্লম্ফন : সপ্তাহে বস্তা প্রতি বেড়েছে ৩শ’ টাকা

ছবি

বৈশ্বিক পরিস্থিতি জানেন, আমরা বিশ্বেরই একটা অংশ: বাণিজ্যমন্ত্রী

হবিগঞ্জে জামিনে মুক্ত যুবককে ছুরিকাঘাতে হত্যা

সর. প্রা. বিদ্যালয়ে ১৭৯ শিক্ষকের পদ শূন্য : শিক্ষাকার্যক্রম ব্যাহত

ঝালকাঠিতে নদীর পানি বিপৎসীমার উপর অর্ধশত গ্রাম প্লাাবিত

ডেঙ্গুজ্বরে আরও ৯২ হাসপাতালে ভর্তি, মোট মৃত্যু ১৬

ছবি

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনার

ছবি

পদ্মা সেতু থেকে ঝাঁপ দিয়ে যুবক নিখোঁজ

বগুড়ায় ট্রাক-মোটরসাইকেল মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ২

ছবি

পদ্মা সেতু থেকে ঝাঁপ দিয়ে যুবক নিখোঁজ

ছবি

গার্ডার পড়ে ৫ জনের প্রাণহানি: তদন্ত কমিটি গঠন

বঙ্গবন্ধু নিপীড়িত মানুষের আশার আলো-প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী

ছবি

অবিনশ্বর-চিরঅম্লান বঙ্গবন্ধু

ছবি

সাগরে আটকা পড়া ১৩ জেলেসহ ট্রলার উদ্ধার

ছবি

আখাউড়ায় ১০০ দুঃস্থ পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দিলো বিজিবি

ছবি

ডেসকোর উদ্যোগে শোক দিবস পালিত

ছবি

কক্সবাজার সৈকতে গোসল নেমে পর্যটক নিখোঁজ, উদ্ধার ২

ছবি

উত্তরায় গার্ডার ধস: বেঁচে রইলেন শুধু নবদম্পতি

ছবি

জলবায়ু ও পরিবেশবান্ধব বিনিয়োগে উৎসাহিত করতে জিআইজেড এর প্রশিক্ষণ

ছবি

সেনাবাহিনীর ‘লেডিস ক্লাব ও বাফওয়ার” জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে দুস্থদের মধ্যে খাবার বিতরন

ছবি

ডিফেন্স ফাইন্যান্স ডিপার্টমেন্টের উদ্যোগে জাতীয় শোক দিবস পালন

ছবি

রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনে কক্সবাজারে আসছেন জাতিসংঘের মানবাধিকার প্রধান

tab

সারাদেশ

মেঘনার ক্রমাগত ভাঙনে আতংকে আশুগঞ্জের চর-সোনারামপুরবাসী

জেলা বার্তা পরিবেশক, ব্রাক্ষণবাড়িয়া

বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২

ব্রাক্ষণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে মেঘনা নদীর ভাঙনে আতংকিত হয়ে পড়েছে উপজেলার চর- সোনারামপুরবাসী। গত কয়েকদিনে চরের দুটি ঘর বিলীন হয়ে গেছে নদীগর্ভে, দেবে গেছে চরের শ্মশ্বানের মাঝখানের মাটি। ক্রমাগত ভাঙনে আতংকিত চরে বসবাসকারী সাড়ে ৬ হাজার মানুষ। বন্যার কারণে পানিতে তলিয়ে গেছে চরে স্থাপিত আশুগঞ্জ - সিরাজগঞ্জ ২৩০ কেভি বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইনের রিভারক্রসিং টাওয়ারের নীচ। নদীর ভাঙনে হুমকিতে পড়েছে টাওয়ারটি।

সংশ্লিষ্টদের দাবি, মেঘনা নদীর চরের উজানে অপরিকল্পিত ড্রেজিং, কয়েকজন চরবাসীর নদী তীর দখল ও বর্ষার কারণে নদীতে তীব্র স্রোতের কারণে চরে ভাঙন শুরু হয়েছে। ইতিমধ্যেই ভাঙন প্রতিরোধ ও টাওয়ারের নিরাপত্তা রক্ষায় বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) টাওয়ার এলাকা ও চরের শ্মশান ঘাট এলাকায় ৭ হাজার জিও ব্যাগ ফেলার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে। ইতিমধ্যেই জিও ব্যাগ ফেলা শুরু হয়েছে।

এদিকে বুধবার (২৯ জুন) সকালে আশুগঞ্জ - সিরাজগঞ্জ ২৩০ কেভি বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইনের রিভারক্রসিং টাওয়ারের এলাকা সরেজমিনে পরিদর্শন করেছেন পিজিসিবির ডিজাইন এন্ড কোয়ালিটি কন্ট্রোল (সিভিল ডিজাইন ) বিভাগের উপ- বিভাগীয় প্রকৌশলী মোঃ গোলাম রব্বানী। এ সময় তার সাথে ছিলেন পিজিসিবির স্থানীয় দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সহকারি প্রকৌশলী সাদী মোহাম্মদ উপস্থিত ছিলেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বৃটিশ আমলে মেঘনা নদীর বুকে জেগে উঠা চর- সোনারামপুরে জনবসতি শুরু হয়। বর্তমানে চরে ৬ হাজার ৪২২ জন মানুষ বসবাস করেন। বসবাসকারীদের প্রায় ৯০ ভাগই হিন্দু ধর্মাম্বলী। চরের পূর্ব সীমানায় রয়েছে ২৩০ কেভি আশুগঞ্জ - সিরাজগঞ্জ বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইনের রিভারক্রসিং ৩ নং টাওয়ার।

প্রতিবছর বর্ষা শুরু এবং শেষের দিকে টাওয়ার এলাকায় এবং চরের মধ্যবর্তী শ্মশান ঘাট এলাকায় কম- বেশি ভাঙন দেখা দেয়। চলতি বর্ষা মৌসুমের শুরু থেকে অতিবৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলের কারণে আবার ভাঙন শুরু হয়।

গত সপ্তাহে চরের বাসিন্দা রাসু দাস ও উৎপল দাসের বাড়ির একাংশ নদীতে তলিয়ে গেছে। দেবে গেছে শ্মশানের মাঝখানের মাটি। এ অবস্থায় স্থানীয় প্রশাসন ও উপজেলা দুর্যোগ প্রস্তুতি কমিটি চরের ভাঙন এলাকা পরিদর্শন করে পানি উন্নয়ন বোর্ডকে ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ করেছেন।

গত ২০১৯ সালেও টাওয়ার এলাকায় ব্যাপক ভাঙন দেখা দিলে জিও ব্যাগ ফেলা হয়েছিল। তাছাড়া টাওয়ারের নিরাপত্তায় সিমেন্টের ব্লক রয়েছে। স্থানীয় প্রশাসন ও উপজেলা দুর্যোগ প্রস্তুতি কমিটির অনুরোধে পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) টাওয়ার এলাকায় ও চরের শ্মশান ঘাট এলাকায় ৭ হাজার জিও ব্যাগ ফেলার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে।

চরের বাসিন্দা ইব্রাহিম মোল্লা, ভারত দাস, শিপন দাসসহ বেশ কয়েকজন বলেন, কয়েক বছর আগে চরের উজানে মেঘনা নদীতে অপরিকল্পিত ডেজিং করার পর থেকে প্রতিবছরই বর্ষায় চরে ভাঙন শুরু হয়। তারা চর রক্ষায় চরের চারপাশে বাধঁ নির্মাণের দাবি জানান।

এ ব্যাপারে আশুগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার অরবিন্দ বিশ্বাস বলেন, চরে ভাঙন এলাকা পরিদর্শন করে পানি উন্নয়ন বোর্ডকে ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ করেছি।

এ ব্যাপারে বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড, ব্রাক্ষণবাড়িয়ার নির্বাহী প্রকৌশলী (অতিঃদায়িত্ব) খান মোঃ ওয়ালিউজ্জামান বলেন, ভাঙন এলাকায় ৭ হাজার জিও ব্যাগ (বালির বস্তা) ফেলা হবে। ইতিমধ্যেই ৪ হাজার ব্যাগ ফেলা হয়েছে।

এ ব্যাপারে কিশোরগঞ্জ জেলার ভৈরব নৌ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ সাইদুর রহমান বলেন, টাওয়ারের আশে- পাশে যাতে কেউ ঘেষতে না পারে সেজন্য নৌ পুলিশের বৃদ্ধি করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি অব বাংলাদেশ (পিজিসিবি) লিমিটেডের ডিজাইন এন্ড কোয়ালিটি কন্ট্রোল (সিভিল ডিজাইন ) বিভাগের উপ- বিভাগীয় প্রকৌশলী মোঃ গোলাম রব্বানী বলেন, টাওয়ারের নিরাপত্তার জন্য যে ব্লক ও জিও ব্যাগ ফেলা হয়েছিল তা কিছুটা নষ্ট ও স্থানচ্যুতি হয়েছে। টাওয়ার এলাকায় ৩ থেকে ৫ ফুট পানি আছে। তাছাড়া টাওয়ারের পশ্চিম পাশে (চরঘেষে) নতুন করে প্রবল স্রোতধারা বইছে- যাতে টাওয়ারের পশ্চিম পাশের মাটি ও সরে যাবার আশংকা রয়েছে। তিনি বলেন, বিষয়টি উধর্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হবে।

এ ব্যাপারে পিজিসিবির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) প্রকৌশলী গোলাম কিবরিয়া বলেন, বুধবার পিজিসিবির পক্ষ থেকে ডিজাইন এন্ড কোয়ালিটি কন্ট্রোল বিভাগের উপ- বিভাগীয় প্রকৌশলী মোঃ গোলাম রব্বানী ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। বিষয়টি নজরদারির জন্য দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে।

back to top