alt

সারাদেশ

নিত্যপণ্যের বাড়তি দামে কোন পরিবর্তন নেই

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের শুরু থেকে বৈশ্বিক পণ্যবাজারে দামের উত্তাপ ছড়াতে থাকে। জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির প্রভাব দেশের বাজারেও। লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়তে থাকে তেল-চাল-আট-ময়দা-ডাল-ডিম-মাছ মাংস-সবজিরসহ প্রায় সব ধরনের নিত্যপণ্যে ও অন্য পণ্যের দাম । এতে কয়েক দফা বাড়ে নিত্যপণ্যের দাম। এর মধ্যে দু-একটি বাদে অধিকাংশ পণ্যের দাম বেড়ে একটি জায়গায় স্থির হয়ে আছে। কমার কোন লক্ষণ নেই। বাজার খরচ মেটাতে হিমশিম খাচ্ছেন সাধারণ মানুষ।

রাজধানীর শ্যামলী বিডিআর মার্কেট কাঁচা বাজার, মোহাম্মদপুরের টাউনহল বাজার, সেগুনবাগিচা বাজারসহ বেশকিছু দোকান ঘুরে দেখা গেছে, তেল-চাল-আট-ময়দা-ডাল-ডিম-মাছ-মাংস-সবজির দাম চড়া।

বিশ্ববাজারে দাম কমার পরিপ্রেক্ষিতে সরকার পাম তেল ও চিনির দাম কমিয়ে নির্ধারণ করলেও বাজারে সেগুলো এখনও বাড়তি দামে বিক্রি হচ্ছে। সরকার খোলা চিনির দাম নির্ধারণ করেছে কেজিপ্রতি ৮৪ টাকা। অথচ পাইকারি বাজারে শুক্রবারও (৩০ সেপ্টেম্বর) খোলা চিনি বিক্রি হয়েছে ৮৭ টাকা কেজি দরে। যা খুচরায় এখনও ৯০ টাকা। প্যাকেটজাত চিনি কেজিপ্রতি ৯৫ টাকা দর বিক্রি করছেন খুচরা বিক্রেতারা। বাজারে নতুন দামের প্যাকেটজাত চিনি এখনও আসেনি বলে জানান ব্যবসায়ীরা। মোটা চালের দাম আবারও কেজিতে বেড়েছে এক থেকে দুই টাকা। সরু বা চিকন চালের দাম বেড়েছে কেজিতে ৫ টাকা। চাল ব্যবসায়ীরা বলছেন, এখন মোকামে চালের দাম চড়া। এছাড়া দেশের বিভিন্ন জায়গায় থেকে ঢাকায় চাল আনতে খরচ বেশি পড়ছে। এ কারণে তাদের বেশি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে।

রাজধানীর বিভিন্ন বাজারে দেখা গেছে, বাজারে স্বর্ণা জাতের মোটা চাল বিক্রি হচ্ছে কেজিপ্রতি ৫৪ থেকে ৫৮ টাকায়। তবে একটু নিম্নমানের এই চাল গত সপ্তাহে ৪৭ টাকা কেজিতেও বিক্রি হয়েছে। এখন ৪৮ থেকে ৪৯ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া মাঝারি মানের বিআর-২৮ জাতের চাল কেজিপ্রতি ৫৮ থেকে ৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। পাশাপাশি চিনিগুঁড়া চাল প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ১২০ থেকে ১৩০ টাকায়।

ব্যবসায়ীরা মানভেদে সরু চাল বিক্রি করছেন প্রতি কেজি ৭০ থেকে ৮৫ টাকা পর্যন্ত। সরু চালের মধ্যে মিনিকেট ও নাজিরশাইলের বিক্রি বেশি। ভালো মানের মিনিকেট ৭৫ টাকা, আর নাজিরশাইল কিনতে প্রতি কেজির জন্য গুনতে হচ্ছে ৮৫ টাকা। যা গত সপ্তাহের তুলনায় কেজিতে ৪ থেকে ৫ টাকা বেশি।

দাম বাড়ার তালিকায় রয়েছে আটা ও ময়দাও। যদিও বিশ্ববাজারে গমের দাম কমেছে। কিন্তু দেশের বাজারে আটার দাম এখনও বাড়তি। খোলা আটা বিক্রি হচ্ছে কেজিপ্রতি ৫৩ থেকে ৫৫ টাকায়। প্যাকেটজাত আটার দুই কেজির প্যাকেট বিক্রি হচ্ছে ১১৫ থেকে ১২৫ টাকায়। খোলা ময়দা কেজি রাখা হচ্ছে ৬০ টাকার কাছাকাছি। দোকানিরা বলছেন, প্যাকেট আটার দাম কেজিতে বেড়েছে দুই টাকার মতো। অর্থাৎ যে আটা (প্যাকেট) ৫০ টাকা কেজিতে পাওয়া যেতো, এখন সেই আটা কিনতে হচ্ছে ৫২ টাকা কেজি দরে।

খোলা ময়দার দাম বেড়েছে কেজিতে দুই থেকে তিন টাকা। দোকানিরা গত সপ্তাহে খোলা ময়দা ৬২ টাকা কেজি দরে বিক্রি করলেও এ সপ্তাহে তারা বিক্রি করছেন ৬৫ টাকা কেজি দরে। এছাড়া ৫৮ টাকা কেজি দরের খোলা ময়দা চলতি সপ্তাহে বিক্রি করছেন ৬০ টাকা কেজি দরে।

চাল ব্যবসায়ীরা বলছেন, জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর পর থেকে সব ধরনের চালে কেজিপ্রতি অন্তত ৫ থেকে ১০ টাকা বেড়েছে। তবে এ সপ্তাহে নতুন করে দাম বাড়েনি। বিশ্ববাজারে গমের দাম কমলেও দেশের বাজারে আটার দাম এখনও বাড়তি। খোলা আটা বিক্রি হচ্ছে কেজি ৫৩ থেকে ৫৫ টাকায়। প্যাকেটজাত আটার দুই কেজি বিক্রি হচ্ছে ১১৫ থেকে ১২৫ টাকায়। খোলা ময়দা কেজি রাখা হচ্ছে ৬০ টাকার কাছাকাছি।

বাজারে করতে আসা একরাম মিয়া বলেন, দীর্ঘদিন নিত্যপণ্যের ঊর্ধ্বমূল্যে মানুষ নাজেহাল। কোন পণ্যের দাম কমছে না, শুধু বাড়ছে আর বাড়ছেই। মধ্যবিত্তদের জন্য এখন আতঙ্কের জায়গা বাজার। যারা হিসাবের টাকা দিয়ে সংসার চালান তারা আর হিসাব-নিকাশ মেলাতে পারছেন না।

বাজারে এখনও মোটা ডাল বিক্রি হচ্ছে কেজিপ্রতি ১০৫ থেকে ১১০ টাকায়। সরু দানা ডালের দাম কেজি ১৩০ থেকে ১৩৫ টাকা।

করিম মিয়া নামে ক্রেতা বলেন, দুটোর দাম কমলে বাড়ে আরও তিনটি সবজির দাম। শাকের দাম কমেছে কিন্তু বেড়েছে মরিচের দাম। বাজারে সবজির অভাব নেই। কিন্তু অধিকাংশ সবজির দাম ৫০ টাকার বেশি।

বিক্রেতারা বলছেন, সবজির দাম বাড়ার স্পষ্ট কারণ জানা নেই। তবে অধিকাংশ সবজিই গত সপ্তাহের তুলনায় কেজিতে ৫ থেকে ১০ টাকা কমেছে।

বাজারের সবজি বিক্রেতা বেলাল মিয়া বলেন, গত সপ্তাহেও ঢেঁড়শ ছিল ৫০ টাকা, আজ তা ৬০ টাকায় বিক্রি করতে হচ্ছে, কেজিতে বেড়েছে ১০ টাকা। কাঁকরোল কেজিতে ১০ টাকা বেড়ে হয়েছে ৬০ টাকা। গত সপ্তাহেও যা ছিল ৫০ টাকা। শসার দাম হেরফের না হওয়ায় ৫০-৬০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে।

কাঁচা মরিচের দাম কেজিতে ২০ টাকা বেড়ে হয়েছে ৮০ টাকা। যা গত সপ্তাহে ছিল ৬০ টাকা। আর টমেটো ১২০-১৪০ টাকা ও গাজর বিক্রি হচ্ছে ১৬০ টাকা কেজি দরে। গত সপ্তাহেও গাজরের দাম ছিল ১৩০ টাকা। এখন কেজিতে বেড়েছে ৩০ টাকা। আর আলু যথারীতি বিক্রি হচ্ছে ৩৫ টাকায়

বাজার ঘুরে দেখা যায়, লাউ ৫০ থেকে ৬০, কচুরমুখী ৬০ ও লতি ৬০ টাকা। দাম কমায় করলা বিক্রি হচ্ছে ৭০ টাকায়, মিষ্টি কুমড়া ৪০ টাকা। ধুন্দল ৬০, ঝিঙ্গা ৭০, চিচিঙ্গা ৭০, পটোল ৫০। মুলার কেজি আগের মতোই ৬০ টাকা কেজি। কাঁচকলার হালি ৪০ টাকা।

বিক্রেতা খোকন মিয়া বলেন, গত সপ্তাহেও এসব সবজির দাম ১০ থেকে ১৫ টাকা বাড়তি ছিল। তবে শুধু পেঁপেই মিলছে ২৫ থেকে ৩০ টাকায়।

সাইফুল ইসলাম নামে এক ক্রেতা বলেন, শীতের সবজি নামছে কিন্তু দাম অনেক বেশি। শিম খেতে মন চায় কিন্তু কেজি ১৪০ টাকা। তাই বাধ্য হয়ে আড়াইশ’ গ্রাম শিম কিনেছি।

বাজার ঘুরে জানা যায়, কমেছে শাকের দাম। পাট শাক দুই আঁটি ১৫, কলমি শাক দুই আঁটি ২০, কচুর লতি দুই আঁটি ১০, মুলা শাক দুই আঁটি ২০, লালশাক দুই আঁটি ২০, পুইশাক ২০ ও শাপলা ডাটা ১০ টাকা। তবে ধনেপাতা ১০০ গ্রাম ৩০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। আর লেবুর হালি ১০ টাকায় মিলছে।

নিম্নআয়ের মানুষের পছন্দের লাউয়ের দাম ১০-১৫ টাকা করে কমেছে। ৫০ থেকে ৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে লাউ। জালি কুমড়া ৪০ টাকা পিস।

শাক বিক্রেতা মজনু বলেন, শাকের দাম বেশি ছিল। লাল শাকের এক আটি ছিল ২০ টাকা। এখন তা জোড়া ২০। পুইশাকের দামও কমেছে। বিক্রিও হচ্ছে বেশি।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, কোম্পানিভেদে দুধের দাম ৫০ টাকা পর্যন্ত বেড়ে এখন প্রতি কেজি ডানো ৮৫০ টাকা, ডিপ্লোমা ৮৪০ টাকা, ফ্রেশ ৭১০ টাকা ও মার্কস ৭৯০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

বাজারে মাছের দামও বাড়তি। প্রতি কেজি তেলাপিয়া ২০০ টাকা, রুই ২৫০ টাকা, পাঙ্গাশ ১৬০ টাকা, সিলভার কার্প ১৪০ টাকা, শিং মাছ আকার ভেদে ৫০০-৭৫০ টাকা এবং চিংড়ি ৬০০-১২০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

বাজারে আকার ভেদে কেজিতে ইলিশের দাম বেড়েছে ৫০-১০০ টাকা। আগে যে ইলিশ ৭০০ টাকা ছিল, সেটি শুক্রবার ৭৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। সামনে আরও দাম বাড়তে পারে। ১৭০০ গ্রাম ওজনের ইলিশ বিক্রি হচ্ছে এক হাজার ৪০০ টাকায়।

এর আগে গাজীপুরে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট (বারি) মিলনায়তনে কেন্দ্রীয় গবেষণা পর্যালোচনা ও কর্মসূচি প্রণয়ন কর্মশালার উদ্বোধন শেষে কৃষিমন্ত্রী প্রশ্ন রেখে বলেছিলেন একটা ডিমের দাম ১৩ টাকা হবে কেন, কৃষিমন্ত্রী মো. আবদুর রাজ্জাক বলেছেন, ‘একটা ডিমের উৎপাদন খরচ ৫ থেকে ৬ টাকা। সেই ডিম সর্বোচ্চ ৮ টাকা বিক্রি হতে পারে। কিন্তু তা না করে সেই ডিম বিক্রি হচ্ছে ১২ থেকে ১৩ টাকা। এটা কেন? একটা ডিমের দাম ১৩ টাকা হবে কেন? এটা কি আমরা নিয়ন্ত্রণ করতে পারি না? এ ব্যাপারে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়, প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়সহ আমাদের সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টা প্রয়োজন।’

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে আবদুর রাজ্জাক বলেন, কোন কারণে ডিমের সরবরাহ কমে গেলে কিছু অসাধু ব্যবসায়ী, ফার্মের মালিক, হ্যাচারির মালিক নানারকম চক্রান্ত করে ডিমের দাম বাড়িয়ে দেন। মানুষকে জিম্মি করে ফেলেন। তাদের বিরুদ্ধে কঠোর মনিটরিং (তদারকি) ব্যবস্থা চালু করা উচিত।

কৃষিমন্ত্রী আরও বলেন, ‘ডিম আমদানি করলে আমাদের আমদানি নির্ভরতা বাড়বে, যা আমরা সমর্থন করি না। একটু কষ্ট হবে, প্রয়োজনে ডিম কম খাব। তবু স্থানীয়ভাবেই ডিম উৎপাদন করে খেতে হবে। এটা চাহিদা ও সরবরাহের বিষয়। সরবরাহ কমে গেছে বলেই ডিমের বাজারে এত অস্থিরতা। এ সুযোগেই অসাধু চক্র নানা কৌশলে লাভবান হচ্ছে। তাদের নিয়ন্ত্রণ করা জরুরি।’

ছবি

মাদক বহনকারী পিকআপের ধাক্কায় উল্টে গেল র‌্যাবের গাড়ি, নিহত ৩

ছবি

শরীয়তপুরের ডমুড্যা দেশের দ্বিতীয় ডিজিটাল ভিলেজ হচ্ছে

৩০ দিনের মধ্যে খাল দখলদারদের তালিকার নির্দেশ

১২ ঘণ্টার ব্যবধানে ফের খুন বৃদ্ধা

১২ লাখের সড়কে নামমাত্র কাজ

ছবি

ঘোড়াঘাটে আমন ধানের বাম্পার ফলন ও দাম পেয়ে কৃষকরা খুশি

ছবি

৫১ বছরেও বীরাঙ্গনা মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি বঞ্চিত মানদা

দুই জেলায় ইয়াবা গ্রেপ্তার তিনজন

ছবি

সাভারে কোটি টাকার হেরোইনসহ মাদক কারবারি আটক

মজুরি ১শ’ টাকার পরিবর্তে ৩শ’ দাবি পরিচ্ছন্নতা কর্মীদের

ছবি

পাখির কিচিরমিচিরে মুখর ডাকবাংলো

পীরগাছা মহিলা কলেজে অবৈধভাবে অধ্যক্ষ নিয়োগের পাঁয়তারা

ছবি

আশ্রয়ণের ১৪ ঘরের ৭টিই বিক্রি প্রশ্নের মুখে তালিকা প্রণয়ন

আর্জেন্টিনা সমর্থকদের সংঘর্ষে নিহত ১, আহত ১৫

দোকান বরাদ্দের ইজারা বাতিল দাবিতে সবজি ব্যবসায়ীদের ধর্মঘট

ছবি

৪৫০ নেতাকর্মী গ্রেপ্তার, ১১ জনের রিমান্ড আবেদন

ছবি

হাতির আক্রমণে প্রাণ গেল কৃষকের

ছবি

নারায়ণগঞ্জে নেতাকে না পেয়ে ছেলেকে নিয়ে গেছে পুলিশ

ছবি

নিজের গায়ে পেট্রল ঢেলে আগুন, তরুণের মৃত্যু

ছবি

মিরসরাইয়ে ছাত্রদল নেতাকে ‘পিটিয়ে’ পুলিশে দিল ছাত্রলীগ

রংপুরে চালকল মালিকদের খাদ্য বিভাগের সঙ্গে চুক্তি করতে অনীহা

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে ডাবল মাডার : ৪ বছর পর রহস্য উদ্ঘাটন

ছবি

খাগড়াছড়িতে পরিবহন ধর্মঘট

ছবি

রামুতে পাহাড় ধসে একই পরিবারের ৪ জন নিহত

গাজীপুরে গুঁড়িয়ে দেওয়া হলো ৫ ইটভাটা, ২৪ লাখ টাকা জরিমানা

ছবি

নানিয়ারচরে ইউপিডিএফ সংগঠককে গুলি করে হত্যা!

ছবি

অনুমোদন ছাড়াই চলছে ইটভাটা

ছবি

বিরামপুরে বাসের সঙ্গে মোটরসাইকেলের সংঘর্ষ, নারীসহ দুজনের মৃত্যু

ছবি

মেসিভক্তের বিয়ের ‘আর্জেন্টিনা গেট’, নির্মাণকারী ব্রাজিল সমর্থক

ছবি

কালীগঞ্জ : মা ও শিশু হাসপাতালে নার্স দিয়েই চলছে চিকিৎসাসেবা

ছবি

বাবা-মার সঙ্গে ঝগড়া করে ঘর পুড়িয়ে দিল ছেলে

ছবি

প্রেমিকার বাবা–ভাইয়ের পিটুনিতে তরুণের মৃত্যু

ফরিদপুরে সাংবাদিকদের সাথে নবাগত জেলা প্রশাসকের মতবিনিময়

হাসপাতাল-ক্লিনিকের লাইসেন্স দেখে চিকিৎসককে সেবা প্রদানের নির্দেশ

তিতাসে পুলিশের সামনে থেকে তুলে নিয়ে যুবলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা

ছবি

  কক্সবাজারে প্রধানমন্ত্রী সড়ক বিভাগের ৩টি সড়ক উদ্বোধন করবেন 

tab

সারাদেশ

নিত্যপণ্যের বাড়তি দামে কোন পরিবর্তন নেই

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের শুরু থেকে বৈশ্বিক পণ্যবাজারে দামের উত্তাপ ছড়াতে থাকে। জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির প্রভাব দেশের বাজারেও। লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়তে থাকে তেল-চাল-আট-ময়দা-ডাল-ডিম-মাছ মাংস-সবজিরসহ প্রায় সব ধরনের নিত্যপণ্যে ও অন্য পণ্যের দাম । এতে কয়েক দফা বাড়ে নিত্যপণ্যের দাম। এর মধ্যে দু-একটি বাদে অধিকাংশ পণ্যের দাম বেড়ে একটি জায়গায় স্থির হয়ে আছে। কমার কোন লক্ষণ নেই। বাজার খরচ মেটাতে হিমশিম খাচ্ছেন সাধারণ মানুষ।

রাজধানীর শ্যামলী বিডিআর মার্কেট কাঁচা বাজার, মোহাম্মদপুরের টাউনহল বাজার, সেগুনবাগিচা বাজারসহ বেশকিছু দোকান ঘুরে দেখা গেছে, তেল-চাল-আট-ময়দা-ডাল-ডিম-মাছ-মাংস-সবজির দাম চড়া।

বিশ্ববাজারে দাম কমার পরিপ্রেক্ষিতে সরকার পাম তেল ও চিনির দাম কমিয়ে নির্ধারণ করলেও বাজারে সেগুলো এখনও বাড়তি দামে বিক্রি হচ্ছে। সরকার খোলা চিনির দাম নির্ধারণ করেছে কেজিপ্রতি ৮৪ টাকা। অথচ পাইকারি বাজারে শুক্রবারও (৩০ সেপ্টেম্বর) খোলা চিনি বিক্রি হয়েছে ৮৭ টাকা কেজি দরে। যা খুচরায় এখনও ৯০ টাকা। প্যাকেটজাত চিনি কেজিপ্রতি ৯৫ টাকা দর বিক্রি করছেন খুচরা বিক্রেতারা। বাজারে নতুন দামের প্যাকেটজাত চিনি এখনও আসেনি বলে জানান ব্যবসায়ীরা। মোটা চালের দাম আবারও কেজিতে বেড়েছে এক থেকে দুই টাকা। সরু বা চিকন চালের দাম বেড়েছে কেজিতে ৫ টাকা। চাল ব্যবসায়ীরা বলছেন, এখন মোকামে চালের দাম চড়া। এছাড়া দেশের বিভিন্ন জায়গায় থেকে ঢাকায় চাল আনতে খরচ বেশি পড়ছে। এ কারণে তাদের বেশি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে।

রাজধানীর বিভিন্ন বাজারে দেখা গেছে, বাজারে স্বর্ণা জাতের মোটা চাল বিক্রি হচ্ছে কেজিপ্রতি ৫৪ থেকে ৫৮ টাকায়। তবে একটু নিম্নমানের এই চাল গত সপ্তাহে ৪৭ টাকা কেজিতেও বিক্রি হয়েছে। এখন ৪৮ থেকে ৪৯ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া মাঝারি মানের বিআর-২৮ জাতের চাল কেজিপ্রতি ৫৮ থেকে ৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। পাশাপাশি চিনিগুঁড়া চাল প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ১২০ থেকে ১৩০ টাকায়।

ব্যবসায়ীরা মানভেদে সরু চাল বিক্রি করছেন প্রতি কেজি ৭০ থেকে ৮৫ টাকা পর্যন্ত। সরু চালের মধ্যে মিনিকেট ও নাজিরশাইলের বিক্রি বেশি। ভালো মানের মিনিকেট ৭৫ টাকা, আর নাজিরশাইল কিনতে প্রতি কেজির জন্য গুনতে হচ্ছে ৮৫ টাকা। যা গত সপ্তাহের তুলনায় কেজিতে ৪ থেকে ৫ টাকা বেশি।

দাম বাড়ার তালিকায় রয়েছে আটা ও ময়দাও। যদিও বিশ্ববাজারে গমের দাম কমেছে। কিন্তু দেশের বাজারে আটার দাম এখনও বাড়তি। খোলা আটা বিক্রি হচ্ছে কেজিপ্রতি ৫৩ থেকে ৫৫ টাকায়। প্যাকেটজাত আটার দুই কেজির প্যাকেট বিক্রি হচ্ছে ১১৫ থেকে ১২৫ টাকায়। খোলা ময়দা কেজি রাখা হচ্ছে ৬০ টাকার কাছাকাছি। দোকানিরা বলছেন, প্যাকেট আটার দাম কেজিতে বেড়েছে দুই টাকার মতো। অর্থাৎ যে আটা (প্যাকেট) ৫০ টাকা কেজিতে পাওয়া যেতো, এখন সেই আটা কিনতে হচ্ছে ৫২ টাকা কেজি দরে।

খোলা ময়দার দাম বেড়েছে কেজিতে দুই থেকে তিন টাকা। দোকানিরা গত সপ্তাহে খোলা ময়দা ৬২ টাকা কেজি দরে বিক্রি করলেও এ সপ্তাহে তারা বিক্রি করছেন ৬৫ টাকা কেজি দরে। এছাড়া ৫৮ টাকা কেজি দরের খোলা ময়দা চলতি সপ্তাহে বিক্রি করছেন ৬০ টাকা কেজি দরে।

চাল ব্যবসায়ীরা বলছেন, জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর পর থেকে সব ধরনের চালে কেজিপ্রতি অন্তত ৫ থেকে ১০ টাকা বেড়েছে। তবে এ সপ্তাহে নতুন করে দাম বাড়েনি। বিশ্ববাজারে গমের দাম কমলেও দেশের বাজারে আটার দাম এখনও বাড়তি। খোলা আটা বিক্রি হচ্ছে কেজি ৫৩ থেকে ৫৫ টাকায়। প্যাকেটজাত আটার দুই কেজি বিক্রি হচ্ছে ১১৫ থেকে ১২৫ টাকায়। খোলা ময়দা কেজি রাখা হচ্ছে ৬০ টাকার কাছাকাছি।

বাজারে করতে আসা একরাম মিয়া বলেন, দীর্ঘদিন নিত্যপণ্যের ঊর্ধ্বমূল্যে মানুষ নাজেহাল। কোন পণ্যের দাম কমছে না, শুধু বাড়ছে আর বাড়ছেই। মধ্যবিত্তদের জন্য এখন আতঙ্কের জায়গা বাজার। যারা হিসাবের টাকা দিয়ে সংসার চালান তারা আর হিসাব-নিকাশ মেলাতে পারছেন না।

বাজারে এখনও মোটা ডাল বিক্রি হচ্ছে কেজিপ্রতি ১০৫ থেকে ১১০ টাকায়। সরু দানা ডালের দাম কেজি ১৩০ থেকে ১৩৫ টাকা।

করিম মিয়া নামে ক্রেতা বলেন, দুটোর দাম কমলে বাড়ে আরও তিনটি সবজির দাম। শাকের দাম কমেছে কিন্তু বেড়েছে মরিচের দাম। বাজারে সবজির অভাব নেই। কিন্তু অধিকাংশ সবজির দাম ৫০ টাকার বেশি।

বিক্রেতারা বলছেন, সবজির দাম বাড়ার স্পষ্ট কারণ জানা নেই। তবে অধিকাংশ সবজিই গত সপ্তাহের তুলনায় কেজিতে ৫ থেকে ১০ টাকা কমেছে।

বাজারের সবজি বিক্রেতা বেলাল মিয়া বলেন, গত সপ্তাহেও ঢেঁড়শ ছিল ৫০ টাকা, আজ তা ৬০ টাকায় বিক্রি করতে হচ্ছে, কেজিতে বেড়েছে ১০ টাকা। কাঁকরোল কেজিতে ১০ টাকা বেড়ে হয়েছে ৬০ টাকা। গত সপ্তাহেও যা ছিল ৫০ টাকা। শসার দাম হেরফের না হওয়ায় ৫০-৬০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে।

কাঁচা মরিচের দাম কেজিতে ২০ টাকা বেড়ে হয়েছে ৮০ টাকা। যা গত সপ্তাহে ছিল ৬০ টাকা। আর টমেটো ১২০-১৪০ টাকা ও গাজর বিক্রি হচ্ছে ১৬০ টাকা কেজি দরে। গত সপ্তাহেও গাজরের দাম ছিল ১৩০ টাকা। এখন কেজিতে বেড়েছে ৩০ টাকা। আর আলু যথারীতি বিক্রি হচ্ছে ৩৫ টাকায়

বাজার ঘুরে দেখা যায়, লাউ ৫০ থেকে ৬০, কচুরমুখী ৬০ ও লতি ৬০ টাকা। দাম কমায় করলা বিক্রি হচ্ছে ৭০ টাকায়, মিষ্টি কুমড়া ৪০ টাকা। ধুন্দল ৬০, ঝিঙ্গা ৭০, চিচিঙ্গা ৭০, পটোল ৫০। মুলার কেজি আগের মতোই ৬০ টাকা কেজি। কাঁচকলার হালি ৪০ টাকা।

বিক্রেতা খোকন মিয়া বলেন, গত সপ্তাহেও এসব সবজির দাম ১০ থেকে ১৫ টাকা বাড়তি ছিল। তবে শুধু পেঁপেই মিলছে ২৫ থেকে ৩০ টাকায়।

সাইফুল ইসলাম নামে এক ক্রেতা বলেন, শীতের সবজি নামছে কিন্তু দাম অনেক বেশি। শিম খেতে মন চায় কিন্তু কেজি ১৪০ টাকা। তাই বাধ্য হয়ে আড়াইশ’ গ্রাম শিম কিনেছি।

বাজার ঘুরে জানা যায়, কমেছে শাকের দাম। পাট শাক দুই আঁটি ১৫, কলমি শাক দুই আঁটি ২০, কচুর লতি দুই আঁটি ১০, মুলা শাক দুই আঁটি ২০, লালশাক দুই আঁটি ২০, পুইশাক ২০ ও শাপলা ডাটা ১০ টাকা। তবে ধনেপাতা ১০০ গ্রাম ৩০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। আর লেবুর হালি ১০ টাকায় মিলছে।

নিম্নআয়ের মানুষের পছন্দের লাউয়ের দাম ১০-১৫ টাকা করে কমেছে। ৫০ থেকে ৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে লাউ। জালি কুমড়া ৪০ টাকা পিস।

শাক বিক্রেতা মজনু বলেন, শাকের দাম বেশি ছিল। লাল শাকের এক আটি ছিল ২০ টাকা। এখন তা জোড়া ২০। পুইশাকের দামও কমেছে। বিক্রিও হচ্ছে বেশি।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, কোম্পানিভেদে দুধের দাম ৫০ টাকা পর্যন্ত বেড়ে এখন প্রতি কেজি ডানো ৮৫০ টাকা, ডিপ্লোমা ৮৪০ টাকা, ফ্রেশ ৭১০ টাকা ও মার্কস ৭৯০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

বাজারে মাছের দামও বাড়তি। প্রতি কেজি তেলাপিয়া ২০০ টাকা, রুই ২৫০ টাকা, পাঙ্গাশ ১৬০ টাকা, সিলভার কার্প ১৪০ টাকা, শিং মাছ আকার ভেদে ৫০০-৭৫০ টাকা এবং চিংড়ি ৬০০-১২০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

বাজারে আকার ভেদে কেজিতে ইলিশের দাম বেড়েছে ৫০-১০০ টাকা। আগে যে ইলিশ ৭০০ টাকা ছিল, সেটি শুক্রবার ৭৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। সামনে আরও দাম বাড়তে পারে। ১৭০০ গ্রাম ওজনের ইলিশ বিক্রি হচ্ছে এক হাজার ৪০০ টাকায়।

এর আগে গাজীপুরে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট (বারি) মিলনায়তনে কেন্দ্রীয় গবেষণা পর্যালোচনা ও কর্মসূচি প্রণয়ন কর্মশালার উদ্বোধন শেষে কৃষিমন্ত্রী প্রশ্ন রেখে বলেছিলেন একটা ডিমের দাম ১৩ টাকা হবে কেন, কৃষিমন্ত্রী মো. আবদুর রাজ্জাক বলেছেন, ‘একটা ডিমের উৎপাদন খরচ ৫ থেকে ৬ টাকা। সেই ডিম সর্বোচ্চ ৮ টাকা বিক্রি হতে পারে। কিন্তু তা না করে সেই ডিম বিক্রি হচ্ছে ১২ থেকে ১৩ টাকা। এটা কেন? একটা ডিমের দাম ১৩ টাকা হবে কেন? এটা কি আমরা নিয়ন্ত্রণ করতে পারি না? এ ব্যাপারে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়, প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়সহ আমাদের সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টা প্রয়োজন।’

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে আবদুর রাজ্জাক বলেন, কোন কারণে ডিমের সরবরাহ কমে গেলে কিছু অসাধু ব্যবসায়ী, ফার্মের মালিক, হ্যাচারির মালিক নানারকম চক্রান্ত করে ডিমের দাম বাড়িয়ে দেন। মানুষকে জিম্মি করে ফেলেন। তাদের বিরুদ্ধে কঠোর মনিটরিং (তদারকি) ব্যবস্থা চালু করা উচিত।

কৃষিমন্ত্রী আরও বলেন, ‘ডিম আমদানি করলে আমাদের আমদানি নির্ভরতা বাড়বে, যা আমরা সমর্থন করি না। একটু কষ্ট হবে, প্রয়োজনে ডিম কম খাব। তবু স্থানীয়ভাবেই ডিম উৎপাদন করে খেতে হবে। এটা চাহিদা ও সরবরাহের বিষয়। সরবরাহ কমে গেছে বলেই ডিমের বাজারে এত অস্থিরতা। এ সুযোগেই অসাধু চক্র নানা কৌশলে লাভবান হচ্ছে। তাদের নিয়ন্ত্রণ করা জরুরি।’

back to top