alt

সারাদেশ

মহেশখালীতে বাঁশ দিয়ে মুজিববর্ষের ঘর নির্মাণ

জেলা বার্তা পরিবেশক, কক্সবাজার : শনিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২২

বিগত ২০২০ সালের ৭ মার্চ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষণা দিয়েছিলেন দেশের একটি মানুষও গৃহহীন থাকবে না। তার এই মহান ব্রতকে সামনে রেখেই মুজিববর্ষে প্রতিটি গৃহহীন-ভূমিহীন পরিবারই পাচ্ছে দুর্যোগ সহনীয় সেমিপাকা ঘর, আর দুই শতাংশ জমির মালিকানা। সম্পূর্ণ বিনামূল্যে দুই শতক জমির মালিকানাসহ সুদৃশ্য রঙিন টিনশেডের সেমিপাকা বাড়ি পাবেন গৃহহীন ও ভূমিহীনরা। সারাদেশে গৃহহীনদের জন্য ঘর নির্মাণের এই মহাযজ্ঞ প্রতিনিয়ত মনিটরিং করছেন স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তবে বিভিন্ন স্থানে এ ঘর নির্মাণ নিয়ে নানা অভিযোগও উঠেছে।

কক্সবাজারের মহেশখালীতে গৃহহীন হতদরিদ্রদের প্রধানমন্ত্রীর দেয়া মুজিববর্ষের ঘরের ফ্লোর করা হচ্ছে বাঁশ দিয়ে। এখনও ঘরগুলো পুরো নির্মাণ হয়নি, এরই মধ্যে কিছু ঘরের দেয়ালে দেখা দিয়েছে ফাটল। মুজিববর্ষের ঘর তৈরির পেছনে সংশ্লিষ্টদের অনিয়মের তথ্যও পাওয়া যায়। মহেশখালীর কালারমারছড়ায় সরেজমিনে দেখা দেখা যায় এমন দৃশ্য।

উপজেলার কালারমারছড়া ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের সোনারপাড়া, ৭নং ওয়ার্ডের ছামিরাঘোনা ও অফিসপাড়ায় নির্মাণাধীন মুজিববর্ষের এসব ঘর তৈরিতে উপকারভোগীদের বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে নগদ অর্থ ও নির্মাণ সামগ্রী আদায় করার মতো নানা অনিয়মের অভিযোগ উঠে আসে উপকারভোগীদের মুখে।

এ বিষয়ে মহেশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নিয়োজিত তদারকির দায়িত্বে থাকা স্থানীয় শামসুল আলম জানান, ইউএনওর অর্পিত দায়িত্ব হিসেবে স্থানীয়ভাবে বিষয়টি তিনি তদারকি করছেন। অর্থ আদায় কিংবা মালামালের খরচ বাবদ অর্থ নেয়ার কথাটি ভিত্তিহীন।

ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, মুজিববর্ষের ঘর নির্মাণে ইউএনওর নিয়োজিত লোকজন ও মিস্ত্রিরা কাজে ব্যয় বৃদ্ধির অজুহাতে নির্মাণ কাজ বন্ধ হওয়ার ভয়ভীতি দেখিয়ে উপকারভোগীদের কাছ থেকে অনেকটাই জোরপূর্বক অর্থ ও নির্মাণসামগ্রী আদায় করে নিয়েছে। অনেক উপকারভোগীকে নিজের অর্থে কিনতে হয়েছে সিমেন্ট। অনেক সময় ঘর তৈরির মালামাল এক স্থান থেকে অন্য স্থানে বহন করার জন্য নিজ অর্থে দিতে হয়েছে।

পরিচয় গোপন রাখার শর্তে একজন উপকারভোগী বলেন, ইউএনওর নিয়োজিত ব্যক্তি ও মিস্ত্রি বলেছে এসব ঘর নির্মাণে সরকারের পক্ষ থেকে ৫০ বস্তা সিমেন্ট দেয়া হয়েছে। এসব সিমেন্ট শেষ হয়ে যাওয়ায় নিজ থেকে সিমেন্ট কিনে দিয়ে বাকি কাজ চালিয়ে নিতে হবে। তাই নিজেরা মজুরি করে সংসার চালালেও এসব সিমেন্টের টাকা জোগাড় করে সিমেন্ট কিনে দেয়ার কথা জানান ওই ব্যক্তি। এ সময় নিজ অর্থে সিমেন্ট কিনে দেয়ার সত্যতা জানতে চাইলে তিনি কয়েকটা সিমেন্ট দোকানির সিমেন্ট ক্রয়ের বিল দেখান। নির্মাণ কাজ শেষ না হওয়া পর্যন্ত সিমেন্ট জোগান দিতে হয়েছে বলে জানান তারা।

মহেশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ ইয়াছিনের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, সরকার নিজ তহবিল থেকে পূর্ণ অর্থ ব্যয় করে এসব ঘর নির্মাণ করে দিচ্ছে। মুজিববর্ষের এসব ঘর সারাদেশে সরাসরি ইউএনওদের তত্ত্বাবধানে নির্মাণ করা হচ্ছে। এ কাজে কোন ঠিকাদার নিযুক্ত হয়নি। বরাদ্দের চেয়েও অতিরিক্ত নির্মাণ ব্যয় বৃদ্ধির কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, অতিরিক্ত যে খরচ লাগছে তা এমপি, স্থানীয় চেয়ারম্যানের মাধ্যমে খরচ মিটানো হচ্ছে। তবে কেউ যদি উপকারভোগীদের কাছ থেকে অর্থ নিয়ে থাকে তাহলে তদন্তের মাধ্যমে ব্যবস্থা নেয়ার হবে বলেও জানান ইউএনও।

এসব ঘরের ফ্লোরে বাঁশের অংশ ব্যবহার করার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি জানান, ফ্লোরে রড ব্যবহার করার বিষয়ে ধরা নেই। উপকারভোগীরা নিজ থেকে এটা করতে পারেন বলে তিনি জানান।

তবে স্থানীয় ইউএনওর ঠিকাদারিতে নির্মিত এসব ঘর নির্মাণ সম্পন্ন না হওয়া পর্যন্ত উপকারভোগীরা নির্মাণে নিজেদের নির্মাণ সামগ্রী সংযুক্ত করার নিয়ম নেই। সারাদেশে মুজিববর্ষের ঘর নির্মাণে নানা অনিয়ম নিয়ে সচেষ্টতার অবস্থান থেকে এ সতর্কতা অবলম্বন করা হয়েছে।

গৃহহীনদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর দেয়া এসব ঘর তৈরিতে ২ লাখ ৮৪ হাজার ৫০০ টাকা করে বরাদ্দ দিয়েছে সরকার। মহেশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার দাবি, এসব ঘর তৈরিতে প্রায় তিন লাখ টাকার অধিক ব্যয় হচ্ছে।

উল্লেখ্য, কক্সবাজারের উখিয়া উপজেলার হলদিয়াপালং ইউনিয়নে গৃহহীন হিসেবে যে ১৮ জনকে ঘর দেয়া হয়েছিল তাদের মধ্যে কেবল তিনজন সেই ঘরে থাকছেন। বাকি ১৫টি ঘরে তালা দিয়েছে উপজেলা প্রশাসন। ঘটনাটি তদন্তে কমিটি গঠন করা হয়েছে। ঘরগুলো সম্পদশালীরা বরাদ্দ নিয়ে এর কয়েকটি বিক্রি করেছেন, কেউ আবার ভাড়া দিয়েছেন আবার কেউ অন্যকে উপহার দিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠে।

ছবি

খুলনায় প্রকাশ্যে গুলি করে হত্যা

ছবি

উত্তরাঞ্চলে তাপমাত্রা আগামী সপ্তাহে কমবে

সাংবাদিককে লাঞ্ছিত করা সেই ভূমি কর্মকর্তা বদলি

ছবি

রুমায় পাহাড়ের গহীনে গোলাগুলি, আতঙ্কে জনমানবশূন্য বসতি

ছবি

বান্দরবানের রুমায় ‘কেএনএফ সদস্যের’ গুলিবিদ্ধ লাশ, আতঙ্কে স্থানীয়রা

ছবি

পালাব না, ফখরুল সাহেবের বাসায় গিয়ে উঠব: রাজশাহীতে কাদের

ছবি

স্বতন্ত্র প্রার্থী আবু আসিফ আহমেদ নিখোঁজ

বাগেরহাটে এবার এসএসসি ফরম পূরনে ব্যর্থ হয়ে স্কুল শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা

মধুমেলায় জাদু প্রদর্শনীর নামে চলছে অশ্লীল নৃত্য

দুই সপ্তাহ পর নিখোঁজ যুবকের লাশ উদ্ধার

ছবি

ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক দখল করে ব্যবসা! নিত্য দুর্ঘটনা

৫শ’ দরিদ্র শিক্ষার্থী পেল প্রধানমন্ত্রীর উপহার

ভেজাল সারে সয়লাব বাজার : ঘুমিয়ে প্রশাসন

স্ত্রী হত্যা : মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামি বিমানবন্দরে গ্রেপ্তার

ছবি

কালভার্টের মুখ ভরাট আ’লীগ নেতার ৩ হাজার হেক্টরে জলাবদ্ধতার শঙ্কা

ছবি

ঘিওরে দুইশ’ বর্ষী ঘোড়দৌড়ে হাজারো মানুষের ঢল

ছবি

রুপগঞ্জে মাদরাসার জমি দখলের অভিযোগ

ছবি

১৫ হাজার হেক্টরে বোরোর লক্ষ্যমাত্রা : জোরেশোরে চলছে চারা রোপণ

রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্রে ফের চুরি : তারসহ আটক ২

ছবি

দেশে ফিরে এসেছিলাম শুধু মানুষের কথা ভেবে: প্রধানমন্ত্রী

ছবি

নেত্রকোনা পৌর শহরের ময়লার ভাগাড়ে যুবকের লাশ

ছবি

হবিগঞ্জে দল বেঁধে বলাৎকারের পর হত্যা

ছবি

দাঁড়িয়ে থাকা ট্রাকে ধাক্কা দিয়ে প্রাণ গেলো মোটরসাইকেল চালকের

ছবি

ডিসি-রিটার্নিং অফিসারের নম্বর ক্লোন করে প্রার্থীর কাছে অর্থ দাবি

ছবি

রাইস মিলের পাশে যুবকের গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার

ছবি

গাজীপুরে গভীর রাতে স্ত্রীর গলা কেটে হত্যা,পালিয়ে গেল স্বামী

ছবি

সরকারি খাতায় অবৈধ ইটভাটা ৪ হাজার ৬৩৩

ছবি

জেলা ও উপজেলার অধিকাংশ হাসপাতাল বেহাল

ছবি

বিএনপির সঙ্গে আমরা খেলে জিততে চাই: তথ্যমন্ত্রী

ছবি

আন্দোলনের কারণে সরকার ইভিএম থেকে সরে এসেছে দাবি ভিপি নুরের

বিএনপির কাছে সংবিধানের চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিদেশিদের প্রেসক্রিপশন

ছবি

সিরাজগঞ্জে যমুনার চরে দুর্গম পথের ভরসা ঘোড়ার গাড়ি

ধর্ম যার যার, উৎসব সবার মনে রেখে সবাই মিলে উৎসব পালন করব : বিমান প্রতিমন্ত্রী

ছবি

লক্ষ্মীপুরে দেড় হাজার হেক্টরে সরিষার আবাদ

নির্ধারিত স্থানে সার বিক্রি করেন না ডিলাররা : বাড়তি ভাড়ায় ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক

ছবি

প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘরে বদলে গেছে ৩১২ পরিবারের জীবন

tab

সারাদেশ

মহেশখালীতে বাঁশ দিয়ে মুজিববর্ষের ঘর নির্মাণ

জেলা বার্তা পরিবেশক, কক্সবাজার

শনিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২২

বিগত ২০২০ সালের ৭ মার্চ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষণা দিয়েছিলেন দেশের একটি মানুষও গৃহহীন থাকবে না। তার এই মহান ব্রতকে সামনে রেখেই মুজিববর্ষে প্রতিটি গৃহহীন-ভূমিহীন পরিবারই পাচ্ছে দুর্যোগ সহনীয় সেমিপাকা ঘর, আর দুই শতাংশ জমির মালিকানা। সম্পূর্ণ বিনামূল্যে দুই শতক জমির মালিকানাসহ সুদৃশ্য রঙিন টিনশেডের সেমিপাকা বাড়ি পাবেন গৃহহীন ও ভূমিহীনরা। সারাদেশে গৃহহীনদের জন্য ঘর নির্মাণের এই মহাযজ্ঞ প্রতিনিয়ত মনিটরিং করছেন স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তবে বিভিন্ন স্থানে এ ঘর নির্মাণ নিয়ে নানা অভিযোগও উঠেছে।

কক্সবাজারের মহেশখালীতে গৃহহীন হতদরিদ্রদের প্রধানমন্ত্রীর দেয়া মুজিববর্ষের ঘরের ফ্লোর করা হচ্ছে বাঁশ দিয়ে। এখনও ঘরগুলো পুরো নির্মাণ হয়নি, এরই মধ্যে কিছু ঘরের দেয়ালে দেখা দিয়েছে ফাটল। মুজিববর্ষের ঘর তৈরির পেছনে সংশ্লিষ্টদের অনিয়মের তথ্যও পাওয়া যায়। মহেশখালীর কালারমারছড়ায় সরেজমিনে দেখা দেখা যায় এমন দৃশ্য।

উপজেলার কালারমারছড়া ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের সোনারপাড়া, ৭নং ওয়ার্ডের ছামিরাঘোনা ও অফিসপাড়ায় নির্মাণাধীন মুজিববর্ষের এসব ঘর তৈরিতে উপকারভোগীদের বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে নগদ অর্থ ও নির্মাণ সামগ্রী আদায় করার মতো নানা অনিয়মের অভিযোগ উঠে আসে উপকারভোগীদের মুখে।

এ বিষয়ে মহেশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নিয়োজিত তদারকির দায়িত্বে থাকা স্থানীয় শামসুল আলম জানান, ইউএনওর অর্পিত দায়িত্ব হিসেবে স্থানীয়ভাবে বিষয়টি তিনি তদারকি করছেন। অর্থ আদায় কিংবা মালামালের খরচ বাবদ অর্থ নেয়ার কথাটি ভিত্তিহীন।

ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, মুজিববর্ষের ঘর নির্মাণে ইউএনওর নিয়োজিত লোকজন ও মিস্ত্রিরা কাজে ব্যয় বৃদ্ধির অজুহাতে নির্মাণ কাজ বন্ধ হওয়ার ভয়ভীতি দেখিয়ে উপকারভোগীদের কাছ থেকে অনেকটাই জোরপূর্বক অর্থ ও নির্মাণসামগ্রী আদায় করে নিয়েছে। অনেক উপকারভোগীকে নিজের অর্থে কিনতে হয়েছে সিমেন্ট। অনেক সময় ঘর তৈরির মালামাল এক স্থান থেকে অন্য স্থানে বহন করার জন্য নিজ অর্থে দিতে হয়েছে।

পরিচয় গোপন রাখার শর্তে একজন উপকারভোগী বলেন, ইউএনওর নিয়োজিত ব্যক্তি ও মিস্ত্রি বলেছে এসব ঘর নির্মাণে সরকারের পক্ষ থেকে ৫০ বস্তা সিমেন্ট দেয়া হয়েছে। এসব সিমেন্ট শেষ হয়ে যাওয়ায় নিজ থেকে সিমেন্ট কিনে দিয়ে বাকি কাজ চালিয়ে নিতে হবে। তাই নিজেরা মজুরি করে সংসার চালালেও এসব সিমেন্টের টাকা জোগাড় করে সিমেন্ট কিনে দেয়ার কথা জানান ওই ব্যক্তি। এ সময় নিজ অর্থে সিমেন্ট কিনে দেয়ার সত্যতা জানতে চাইলে তিনি কয়েকটা সিমেন্ট দোকানির সিমেন্ট ক্রয়ের বিল দেখান। নির্মাণ কাজ শেষ না হওয়া পর্যন্ত সিমেন্ট জোগান দিতে হয়েছে বলে জানান তারা।

মহেশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ ইয়াছিনের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, সরকার নিজ তহবিল থেকে পূর্ণ অর্থ ব্যয় করে এসব ঘর নির্মাণ করে দিচ্ছে। মুজিববর্ষের এসব ঘর সারাদেশে সরাসরি ইউএনওদের তত্ত্বাবধানে নির্মাণ করা হচ্ছে। এ কাজে কোন ঠিকাদার নিযুক্ত হয়নি। বরাদ্দের চেয়েও অতিরিক্ত নির্মাণ ব্যয় বৃদ্ধির কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, অতিরিক্ত যে খরচ লাগছে তা এমপি, স্থানীয় চেয়ারম্যানের মাধ্যমে খরচ মিটানো হচ্ছে। তবে কেউ যদি উপকারভোগীদের কাছ থেকে অর্থ নিয়ে থাকে তাহলে তদন্তের মাধ্যমে ব্যবস্থা নেয়ার হবে বলেও জানান ইউএনও।

এসব ঘরের ফ্লোরে বাঁশের অংশ ব্যবহার করার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি জানান, ফ্লোরে রড ব্যবহার করার বিষয়ে ধরা নেই। উপকারভোগীরা নিজ থেকে এটা করতে পারেন বলে তিনি জানান।

তবে স্থানীয় ইউএনওর ঠিকাদারিতে নির্মিত এসব ঘর নির্মাণ সম্পন্ন না হওয়া পর্যন্ত উপকারভোগীরা নির্মাণে নিজেদের নির্মাণ সামগ্রী সংযুক্ত করার নিয়ম নেই। সারাদেশে মুজিববর্ষের ঘর নির্মাণে নানা অনিয়ম নিয়ে সচেষ্টতার অবস্থান থেকে এ সতর্কতা অবলম্বন করা হয়েছে।

গৃহহীনদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর দেয়া এসব ঘর তৈরিতে ২ লাখ ৮৪ হাজার ৫০০ টাকা করে বরাদ্দ দিয়েছে সরকার। মহেশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার দাবি, এসব ঘর তৈরিতে প্রায় তিন লাখ টাকার অধিক ব্যয় হচ্ছে।

উল্লেখ্য, কক্সবাজারের উখিয়া উপজেলার হলদিয়াপালং ইউনিয়নে গৃহহীন হিসেবে যে ১৮ জনকে ঘর দেয়া হয়েছিল তাদের মধ্যে কেবল তিনজন সেই ঘরে থাকছেন। বাকি ১৫টি ঘরে তালা দিয়েছে উপজেলা প্রশাসন। ঘটনাটি তদন্তে কমিটি গঠন করা হয়েছে। ঘরগুলো সম্পদশালীরা বরাদ্দ নিয়ে এর কয়েকটি বিক্রি করেছেন, কেউ আবার ভাড়া দিয়েছেন আবার কেউ অন্যকে উপহার দিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠে।

back to top