alt

সারাদেশ

মাঠে মাঠে ধান কাটার উৎসব

প্রতিনিধি, পোরশা (নওগাঁ), কেশবপুর (যশোর) : বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২

https://sangbad.net.bd/images/2022/November/30Nov22/news/pic-1.jpg

পোরশা (নওগাঁ) : আমন ধান কাটছেন কৃষকেরা -সংবাদ

বরেন্দ্র অঞ্চলে সোনালি ধানের ঝিলিক

নওগাঁর বরেন্দ্র অঞ্চলে উৎসবমুখর পরিবেশে আমন ধান কাটা-মাড়াই শুরু করেছেন কৃষকরা। বরেন্দ্র অঞ্চলের আবাদি জমিগুলোতে এখন সোনালি ধানের ঝিলিক। বাতাসেও বইছে আমনের সুঘ্রান। কৃষকের মুখে ফুটেছে ফসলের হাসি। বরেন্দ্র অঞ্চলের মানুষ আশ্বিন ও কার্তিক মাসকে অভাবের মাস বলেন। অভাবের দুই মাস পেরিয়ে এখন অগ্রহায়ণ মাস চলছে।

ধানও বাড়িতে উঠতে শুরু করেছে। অনাবৃষ্টি, টানা খরা, ইঁদুর ও পোকার আক্রমণের সঙ্গে যুদ্ধ করে কৃষকরা আমন ধান ফলিয়েছেন। তবে এ বছর ইঁদুর ও পোকার আক্রমণ তেমন লক্ষ্য করা না গেলেও, ছিল টানা খরা। অতিরিক্ত খরা বা অনাবৃষ্টির কারণে এবার আমনের ফলন গত বছরের চেয়ে কিছুটা হলেও কম হবে বলে জানান বরেন্দ্র অঞ্চলের আমন চাষিরা।

পোরশা উপজেলা কৃষি অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, এ বছর পোরশা উপজেলার ৬টি ইউনিয়নে ১৫ হাজার ৫৫০ হেক্টর আবাদি জমিতে আমন চাষাবাদের লক্ষ্যমাত্রা থাকলেও, আমন চাষ হয়েছে ১৫ হাজার ১০০ হেক্টর জমিতে।

পোরশা উপজেলার সহড়ন্দ গ্রামের কৃষক মোস্তফা জানান, তিনি ২৮ শতক জমিতে স্বর্ণা-৫ জাতের ধান পেয়েছেন মোট ১৭ মণ। গত বছর ওই জমিতে ধান পেয়েছিলেন ২০ মণ। এ বছর ধান কম হওয়ার কারণ হিসাবে তিনি বলেন, বৃষ্টি না হওয়ায় আর সেচের পানির কোন ব্যবস্থা না থাকায় জমিতে ঠিকমতো পানি দিতে পারিনি। জমিতে পানির ব্যবস্থা করতে পারলে হয়তো গত বছরের মতো এ বছরও অধিক ধান হতো।

সম্প্রতি পোরশা উপজেলার গাঙ্গুরিয়া হাট ও মশিদপুর হাটসহ বেশ কয়েকটি হাটের ধানের আড়তগুলোতে দেখা গেছে, ১ মণ স্বরর্ণা-৫ জাতীয় আমন ধান সর্বোচ্চ ১ হাজার ২০০ টাকায় বেচা-কেনা হচ্ছে।

পোরশা উপজেলা কৃষি অফিসার সঞ্জয় কুমার সরকার জানান, আমনের কিছু জমিতে পানির টান পেলেও, সেচের ব্যবস্থা আছে এমন জমিতে পানির টান পায়নি। তাই আমনের ফলনে বিপর্যয় হবে না বলে তিনি মনে করেন।

https://sangbad.net.bd/images/2022/November/30Nov22/news/pic-2.jpg

কেশবপুর (যশোর) : ধান কেটে বাড়ি নিয়ে যাচ্ছেন কৃষকরা -সংবাদ

খরার কারণে কাক্সিক্ষত ফলন না হওয়ায় হতাশ চাষি

যশোরের কেশবপুর উপজেলায় চলছে আমন ধান কাটা ও মাড়াই উৎসব। ধান ঘরে তুলতে কৃষাণ-কৃষাণীরা ব্যস্ত সময় পার করছেন। ধানের বাজার দর ভালো থাকায় কৃষকরাও খুশি। তবে খরার কারণে কাক্সিক্ষত ফলন না হওয়ায় হতাশা ব্যক্ত করেছেন তারা।

উপজেলা কৃষি অফিস জানায়, চলতি বছর আমন আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয় ৯ হাজার ৩২০ হেক্টর জমিতে। কিন্তু বৃষ্টির অভাবে সময়মত কৃষকরা বীজতলা তৈরিসহ চাষ-আবাদ করতে ব্যর্থ হয়। যে কারণে ৮ হাজার ৮শ হেক্টর জমিতে এবার আমনের আবাদ হয়েছে। ধান উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল ৪৪ হাজার মেট্রিক টন। কিন্তু খরার কারণে উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা কমিয়ে ধরা হয়েছে ৪২ হাজার ২৪০ মেট্রিক টন। যা গত বছরের চেয়ে ২ হাজার মেট্রিক টন কম।

কৃষকরা জানান, আবহাওয়ার বিরূপ প্রভাবে আমন মৌসুমের শুরুতে কাক্সিক্ষত বৃষ্টিপাত হয়নি। এতে আমনের বীজতলা তৈরি ও পাট কেটে আমন আবাদেও বিলম্ব হয়। বৈশ্বিক প্রভাবে কৃষি উপকরণের মূল্যবৃদ্ধির পাশাপাশি বেড়ে যায় উৎপাদন খরচও। এই ক্ষতি পোষাতে আমন ধানের মূল্যবৃদ্ধির আশায় ছিলেন তারা। ধান কাটা ও মাড়াইয়ের ভরা মৌসুমে বাজার দর এখনও ভালো অবস্থায় আছে। তবে ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে ধানের দরপতন ঘটালে কৃষকদের লোকসান গুনতে হবে।

খুচরা ধান ব্যবসায়ী আব্দুস সাত্তার জানান, এক সপ্তাহ আগে ধানের দাম ছিল প্রতি মণ ১৩৭০ থেকে ১৩৮০ টাকা। সাতদিনের ব্যবধানে বাজার দর নেমে প্রতি মণ ধান বিক্রি হচ্ছে সাড়ে ১২শ থেকে ১২৭০ টাকা দরে। খরার কারণে অধিকাংশ উঁচু জমির ধানের ফলন একটু কম হলেও সব মিলিয়ে এবার ধানের ভালো ফলন হয়েছে।

বাজার দরও ভালো।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ঋুতুরাজ সরকার বলেন, আমন ধান বৃষ্টির ওপর নির্ভরশীল। অন্যান্য বছরের তুলনায় এ বছর বৃষ্টিপাত কম হওয়ায় ধানের ফলনও কিছুটা কমেছে। তবে গত বছরের চেয়ে চলতি বছর বাজারে ধানের দাম বেশি থাকায় কৃষকরা লাভবান হবেন।

বগুড়ায় পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় ২ জন নিহত

ছবি

ফরিদপুরে নাইমার পাশে দাড়ালেন জেলা প্রশাসক

ছবি

ইজতেমা মাঠ পেলেন জুবায়েরপন্থীরা, একতরফা সিদ্ধান্ত বলে প্রতিক্রিয়া

ফসলি জমির মাটিতে ইট : জরিমানা অর্ধলাখ

অসৎ পথে উপার্জন কেউ ভোগ করতে পারবে না : দুদক সচিব

ছবি

কমিউনিটি ক্লিনিকে অনিয়মিত স্বাস্থ্যকর্মীরা : স্বাস্থ্যসেবা বঞ্চিত গারো পাহাড়ের মানুষ

সড়ক সংস্কারে নিম্নমানের খোয়া ব্যবহার

সোনারগাঁয়ে লোকজ উৎসবে উদীচীর সাংস্কৃতিক সন্ধ্যা

চসিকের পরিচালকের ওপর হামলা প্রতিবাদে এলজিইডির কর্মকর্তা কর্মচারীদের মানববন্ধন

ছবি

সীমান্তে তারকাঁটার বেড়া নিয়ে উত্তজেনা- পরে পতাকা বৈঠক

চসিকের পরিচালকের ওপর হামলা প্রতিবাদে এলজিইডির কর্মকর্তা কর্মচারীদের মানববন্ধন

ছবি

আওয়ামী লীগ নয়, দল করি শেখ মুজিবুর রহমানের: কাদের সিদ্দিকী

ছবি

এক যুগেও সংস্কার না হওয়ায় লোহার সেতু মরনফাঁদ

গরু চোরদের মারধর থেকে ছেলেকে বাঁচাতে গিয়ে নিহত মা

পুড়ে ছাই বসতঘর

দুই শিশুকে হত্যার দায়ে এক নারীর মৃত্যুদন্ড

ছবি

নানীকে কুপিয়ে হত্যার : নাতির যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

ছবি

১০ হাজার টাকায় ভাড়াটে খুনি নিয়ে ভাতিজাকে হত্যা

ছবি

অটোরিকশার ধাক্কায় ছিটকে পড়ে ট্রাক চাপায় নিহত

ছবি

আনসার মহা পরিচালক মেজর জেনারেল একে এম আমিনুল হকের শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন

ছবি

সীমান্ত সড়কের কাজের অগ্রগতি পরিদর্শন সেনাপ্রধানের

রাজশাহীতে ইএসডিও-রেসকিউ প্রকল্প ও রেঁস্তোরা মালিক সমিতির মতবিনিময়

ছবি

এলজিইডির কর্মকর্তাকে মারধরের প্রতিবাদে নড়াইলে মানববন্ধন

নাজিরপুরে নৌকা ডুবে একজনের মৃত্যু

ছবি

‘স্মার্ট বাংলাদেশ’ গড়তে শেখ হাসিনাকে সহযোগিতা করার আহবান

ছবি

নিখোঁজ প্রার্থী আবু আসিফ আহমেদকে উদ্ধার ও তদন্ত প্রতিবেদন দেওয়ার নির্দেশ

ছবি

সাভারে জমি নিয়ে বিরোধে দুইজন গুলিবিদ্ধ

ছবি

কার্যালয়ে ঢুকে প্রকল্প পরিচালককে মারধর, গ্রেপ্তার ৩

ছবি

খুলনায় প্রকাশ্যে গুলি করে হত্যা

ছবি

উত্তরাঞ্চলে তাপমাত্রা আগামী সপ্তাহে কমবে

সাংবাদিককে লাঞ্ছিত করা সেই ভূমি কর্মকর্তা বদলি

ছবি

রুমায় পাহাড়ের গহীনে গোলাগুলি, আতঙ্কে জনমানবশূন্য বসতি

ছবি

বান্দরবানের রুমায় ‘কেএনএফ সদস্যের’ গুলিবিদ্ধ লাশ, আতঙ্কে স্থানীয়রা

ছবি

পালাব না, ফখরুল সাহেবের বাসায় গিয়ে উঠব: রাজশাহীতে কাদের

ছবি

স্বতন্ত্র প্রার্থী আবু আসিফ আহমেদ নিখোঁজ

বাগেরহাটে এবার এসএসসি ফরম পূরনে ব্যর্থ হয়ে স্কুল শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা

tab

সারাদেশ

মাঠে মাঠে ধান কাটার উৎসব

প্রতিনিধি, পোরশা (নওগাঁ), কেশবপুর (যশোর)

বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২

https://sangbad.net.bd/images/2022/November/30Nov22/news/pic-1.jpg

পোরশা (নওগাঁ) : আমন ধান কাটছেন কৃষকেরা -সংবাদ

বরেন্দ্র অঞ্চলে সোনালি ধানের ঝিলিক

নওগাঁর বরেন্দ্র অঞ্চলে উৎসবমুখর পরিবেশে আমন ধান কাটা-মাড়াই শুরু করেছেন কৃষকরা। বরেন্দ্র অঞ্চলের আবাদি জমিগুলোতে এখন সোনালি ধানের ঝিলিক। বাতাসেও বইছে আমনের সুঘ্রান। কৃষকের মুখে ফুটেছে ফসলের হাসি। বরেন্দ্র অঞ্চলের মানুষ আশ্বিন ও কার্তিক মাসকে অভাবের মাস বলেন। অভাবের দুই মাস পেরিয়ে এখন অগ্রহায়ণ মাস চলছে।

ধানও বাড়িতে উঠতে শুরু করেছে। অনাবৃষ্টি, টানা খরা, ইঁদুর ও পোকার আক্রমণের সঙ্গে যুদ্ধ করে কৃষকরা আমন ধান ফলিয়েছেন। তবে এ বছর ইঁদুর ও পোকার আক্রমণ তেমন লক্ষ্য করা না গেলেও, ছিল টানা খরা। অতিরিক্ত খরা বা অনাবৃষ্টির কারণে এবার আমনের ফলন গত বছরের চেয়ে কিছুটা হলেও কম হবে বলে জানান বরেন্দ্র অঞ্চলের আমন চাষিরা।

পোরশা উপজেলা কৃষি অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, এ বছর পোরশা উপজেলার ৬টি ইউনিয়নে ১৫ হাজার ৫৫০ হেক্টর আবাদি জমিতে আমন চাষাবাদের লক্ষ্যমাত্রা থাকলেও, আমন চাষ হয়েছে ১৫ হাজার ১০০ হেক্টর জমিতে।

পোরশা উপজেলার সহড়ন্দ গ্রামের কৃষক মোস্তফা জানান, তিনি ২৮ শতক জমিতে স্বর্ণা-৫ জাতের ধান পেয়েছেন মোট ১৭ মণ। গত বছর ওই জমিতে ধান পেয়েছিলেন ২০ মণ। এ বছর ধান কম হওয়ার কারণ হিসাবে তিনি বলেন, বৃষ্টি না হওয়ায় আর সেচের পানির কোন ব্যবস্থা না থাকায় জমিতে ঠিকমতো পানি দিতে পারিনি। জমিতে পানির ব্যবস্থা করতে পারলে হয়তো গত বছরের মতো এ বছরও অধিক ধান হতো।

সম্প্রতি পোরশা উপজেলার গাঙ্গুরিয়া হাট ও মশিদপুর হাটসহ বেশ কয়েকটি হাটের ধানের আড়তগুলোতে দেখা গেছে, ১ মণ স্বরর্ণা-৫ জাতীয় আমন ধান সর্বোচ্চ ১ হাজার ২০০ টাকায় বেচা-কেনা হচ্ছে।

পোরশা উপজেলা কৃষি অফিসার সঞ্জয় কুমার সরকার জানান, আমনের কিছু জমিতে পানির টান পেলেও, সেচের ব্যবস্থা আছে এমন জমিতে পানির টান পায়নি। তাই আমনের ফলনে বিপর্যয় হবে না বলে তিনি মনে করেন।

https://sangbad.net.bd/images/2022/November/30Nov22/news/pic-2.jpg

কেশবপুর (যশোর) : ধান কেটে বাড়ি নিয়ে যাচ্ছেন কৃষকরা -সংবাদ

খরার কারণে কাক্সিক্ষত ফলন না হওয়ায় হতাশ চাষি

যশোরের কেশবপুর উপজেলায় চলছে আমন ধান কাটা ও মাড়াই উৎসব। ধান ঘরে তুলতে কৃষাণ-কৃষাণীরা ব্যস্ত সময় পার করছেন। ধানের বাজার দর ভালো থাকায় কৃষকরাও খুশি। তবে খরার কারণে কাক্সিক্ষত ফলন না হওয়ায় হতাশা ব্যক্ত করেছেন তারা।

উপজেলা কৃষি অফিস জানায়, চলতি বছর আমন আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয় ৯ হাজার ৩২০ হেক্টর জমিতে। কিন্তু বৃষ্টির অভাবে সময়মত কৃষকরা বীজতলা তৈরিসহ চাষ-আবাদ করতে ব্যর্থ হয়। যে কারণে ৮ হাজার ৮শ হেক্টর জমিতে এবার আমনের আবাদ হয়েছে। ধান উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল ৪৪ হাজার মেট্রিক টন। কিন্তু খরার কারণে উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা কমিয়ে ধরা হয়েছে ৪২ হাজার ২৪০ মেট্রিক টন। যা গত বছরের চেয়ে ২ হাজার মেট্রিক টন কম।

কৃষকরা জানান, আবহাওয়ার বিরূপ প্রভাবে আমন মৌসুমের শুরুতে কাক্সিক্ষত বৃষ্টিপাত হয়নি। এতে আমনের বীজতলা তৈরি ও পাট কেটে আমন আবাদেও বিলম্ব হয়। বৈশ্বিক প্রভাবে কৃষি উপকরণের মূল্যবৃদ্ধির পাশাপাশি বেড়ে যায় উৎপাদন খরচও। এই ক্ষতি পোষাতে আমন ধানের মূল্যবৃদ্ধির আশায় ছিলেন তারা। ধান কাটা ও মাড়াইয়ের ভরা মৌসুমে বাজার দর এখনও ভালো অবস্থায় আছে। তবে ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে ধানের দরপতন ঘটালে কৃষকদের লোকসান গুনতে হবে।

খুচরা ধান ব্যবসায়ী আব্দুস সাত্তার জানান, এক সপ্তাহ আগে ধানের দাম ছিল প্রতি মণ ১৩৭০ থেকে ১৩৮০ টাকা। সাতদিনের ব্যবধানে বাজার দর নেমে প্রতি মণ ধান বিক্রি হচ্ছে সাড়ে ১২শ থেকে ১২৭০ টাকা দরে। খরার কারণে অধিকাংশ উঁচু জমির ধানের ফলন একটু কম হলেও সব মিলিয়ে এবার ধানের ভালো ফলন হয়েছে।

বাজার দরও ভালো।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ঋুতুরাজ সরকার বলেন, আমন ধান বৃষ্টির ওপর নির্ভরশীল। অন্যান্য বছরের তুলনায় এ বছর বৃষ্টিপাত কম হওয়ায় ধানের ফলনও কিছুটা কমেছে। তবে গত বছরের চেয়ে চলতি বছর বাজারে ধানের দাম বেশি থাকায় কৃষকরা লাভবান হবেন।

back to top